চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রদলের আহবায়ক কমিটি প্রত্যাখ্যান, বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ
২৯ডিসেম্বর,মঙ্গলবার,নিউজ ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: নিশিরাতে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রদলের পকেট কমিটি দেয়ার মাধ্যমে সংগঠনকে কলংকিত করা হয়েছে। গত ২৩ ডিসেম্বর দিবাগত রাতে ঘোষিত চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রদলের আহবায়ক কমিটিকে প্রত্যাখ্যান করে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে মহানগরীর পদবঞ্চিত নেতারা। জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের সাংগঠনিক অভিভাবক দেশনায়ক তারেক রহমানের নির্দেশ উপেক্ষা করে মাঠের নেতাদের বাদ দিয়ে রাতের আধারে একটি বিশেষ অঞ্চলকে প্রাধান্য দিয়ে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রদলের পকেট কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে অভিযোগ করে পদবঞ্চিত নেতারা বলেন, চট্টগ্রাম বিভাগীয় টিম এবং ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের কাছে তারুণ্যের অহংকার দেশনায়ক তারেক রহমান এর নির্দেশ ছিল যেন বিগত এক যুগেরও অধিকতর সময় ধরে মামলা-হামলার শিকার হয়েও ধারাবাহিক আন্দোলন সংগ্রামে রাজপথে সক্রিয় ছিল সেই সাহসী সংগঠক, ত্যাগী ও সংগঠনের নিবেদিতদের সমন্বয়ে যেন একটি আন্দোলনমুখী ও শক্তিশালী কমিটি গঠন করে। কিন্তু ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের শীর্ষ নেতৃবৃন্দ অর্থের মোহে প্রিয় নেতার নির্দেশ উপেক্ষা করে এবং ওনাকে ভুল তথ্য দিয়ে ব্যাপক অর্থের বিনিময়ে রাতের আধারে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রদলের একটি বিতর্কিত পকেট কমিটি ঘোষণা দিয়ে দেয়। যা চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রদলের তৃণমূল নেতাদের যেমন করেছে হতাশ, তেমনি হতবাক। আমাদের অভিভাবক দেশনায়ক তারেক রহমানের প্রতি আমাদের আকুল আবেদন অনতিবিলম্বে এই ওয়ান ম্যানদের বাণিজ্যিক কমিটি বাতিল করে আমাদের একটা সুন্দর ও শক্তিশালী কমিটি উপহার দিন। উক্ত বিক্ষোভ মিছিলোত্তর সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, মহানগর ছাত্রদলের সদ্য সাবেক সহসভাপতি খোরশেদ আলম টিটু, যুগ্ন সম্পাদক আরিফুল ইসলাম আরিফ, কাইয়ুমের রশিদ বাবু, ইমতিয়াজ উদ্দিন অপু, অনিক ওয়াহিদ, মোহাম্মদ জনি, সহ সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ হানিফ, শাহাব উদ্দিন আহমেদ, মোহাম্মদ হানিফ, মোহাম্মদ মাহির, গিয়াস উদ্দিন সারজিল, মোহাম্মদ রাসেল উদ্দিন প্রমুখ।- প্রেস বিজ্ঞপ্তি
মাতারবাড়ীতে ভিড়লো প্রথম বাণিজ্যিক জাহাজ
২৯ডিসেম্বর,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: এমভি ভেনাস ট্রায়াম্প। পানামা পতাকাবাহী বাণিজ্যিক জাহাজটি সফলভাবে ভিড়েছে মাতারবাড়ী বন্দর জেটিতে। বন্দরের নিজস্ব দুইজন সিনিয়র পাইলটের নেতৃত্বে শক্তিশালী টাগবোট কাণ্ডারী-৮ এর সহায়তায় জাহাজটি মঙ্গলবার (২৯ ডিসেম্বর) সকাল ১০টায় জেটিতে আনা হয়। ভোর সাড়ে ৫টার দিকে জাহাজটি ইন্দোনেশিয়া থেকে চট্টগ্রাম বন্দরের বহির্নোঙরে আসে। চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের সহকারী হারবার মাস্টার ক্যাপ্টেন মো. আতাউল হাকিম সিদ্দিকি বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। মাতারবাড়ী গভীর সমুদ্রবন্দর চ্যানেলের ড্রাফট বেশি থাকায় জোয়ারের জন্য বহির্নোঙরে অপেক্ষা না করেই জাহাজটি সরাসরি জেটিতে ভিড়তে সক্ষম হয়েছে। চট্টগ্রাম বন্দরে কর্ণফুলী নদীর জোয়ারের ওপর নির্ভর করে বহির্নোঙরে (সাগর) অপেক্ষমাণ জাহাজ জেটিতে আনা হয়। অপেক্ষার সময় বাড়লে পরিবহন ব্যয় বাড়ে আমদানিকারকদের। বন্দর সূত্রে জানা গেছে, এ জাহাজে ৩১৩ প্যাকেজে ৭৩৬ টন স্টিল স্ট্রাকটার আনা হয়েছে উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য। এর মধ্যে রয়েছে বিম, কলাম, গার্ডার, টাওয়ার ইত্যাদি। জাহাজটির স্থানীয় এজেন্ট অ্যানসাইন্ট স্টিমশিপ কোম্পানি লিমিটেড।
করোনায় ৬৪জন নেতাকর্মী হারিয়েছে চট্টগ্রাম নগর আওয়ামীলীগ: আ জ ম নাছির উদ্দীন
২৮ডিসেম্বর,সোমবার,নিউজ ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: এপ্রিল থেকে চলতি ডিসেম্বর পর্যন্ত চলমান করোনা কালে ওয়ার্ড,থানা,ইউনিট ও মহানগর পর্যায়ের ৬৪ জন নেতাকর্মী মারা গেছেন। এতে করে দলের সাংগঠনিক শূণ্যতা সৃষ্টি হয়েছে। এই শূণ্যতা পূরণে দলের প্রকৃত ত্যাগী,নিবেদিত নেতাদেরকে শূণ্যপদে পদায়ন করার সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামীলীগ। ২৮ ডিসেম্বর নগরীর ৯ নং উত্তর পাহাড়তলী ওয়ার্ড কার্যালয় চত্বরে উত্তর পাহাড়তলী ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের আহবায়ক মরহুম এস এম আলমগীরের নাগরিক শোক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় নগর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন একথা বলেন। তিনি বলেন, এই করোনাকালে আওয়ামীলীগের চট্টগ্রাম মহানগর পর্যায় থেকে শুরু করে থানা,ওয়ার্ড ও ইউনিট পর্যায়ের ৬৪ জন নেতাকর্মী মৃত্যুবরণ করেছেন। না ফেরার দেশে চলে যাওয়া এই নেতাকর্মীরা ছিলেন দলের সম্পদ। ক্ষমতায় থাকায় অনেক সুযোগ সন্ধানী বহিরাগত দলে ঢুকে পড়েছে। দলের সম্পদ দুঃসময়ের এই নেতাকর্মীরা কোনঠাসা হয়ে যাচ্ছেন। আর কাউকে আমরা হারাতে চাইনা। আমরা তাদেরকে অবশ্যই মূল্যায়ন করতে চাই। ত্যাগী,নিবেদিত নেতাকর্মীদেরকে মহানগর থেকে তৃনমূল পর্যায় পর্যন্ত সঠিক নেতৃত্বের আসনে আনতে পারলে দলের জন্য তা মঙ্গলজনক হবে। করোনাকালের দ্বিতীয় ঢেউ চলছে। এই ঢেউ প্রতিরোধে প্রত্যেক স্তরের নেতাকর্মীদেরকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে রাজনৈতিক,সামাজিক কর্মকান্ড করার পরামর্শ দেন তিনি। আকবর শাহ থানা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক কাজী আলতাফ হোসেনের সভাপতিত্বে সভায় চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক নোমান আল মাহমুদসহ থানা ,ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সংশ্লিষ্ট নেতাকর্মীরা বক্তব্য রাখেন।
করোনা: চট্টগ্রামে নতুন আক্রান্ত ১৫৪ জন
২৮ডিসেম্বর,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: গত ২৪ ঘন্টায় চট্টগ্রামে ১হাজার ৫৯৪টি নমুনা পরীক্ষা করে নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ১৫৪ জন। এ নিয়ে মোট করোনা আক্রান্ত ২৯ হাজার ৮৭৯ জন। এসময়ে চট্টগ্রামে একজনের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার (২৮ ডিসেম্বর) সকালে সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, এইদিন কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ ল্যাব ও চট্টগ্রামে ৮টি ল্যাবে নমুনা পরীক্ষা হয়। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবে ১১৭টি নমুনা পরীক্ষা করে ৩২ জন করোনা আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছেন। বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেসে (বিআইটিআইডি) ৮০০টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে শনাক্ত হয় ৩০ জন। চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) ল্যাবে ২৭৯টি নমুনা পরীক্ষা করে ৮ জনের শরীরে করোনা ভাইরাস পাওয়া গেছে। চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি অ্যান্ড অ্যানিম্যাল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় (সিভাসু) ল্যাবে ৫৮টি নমুনা পরীক্ষা হয়। এতে পজেটিভ আসে ৫ জনের। ইম্পেরিয়াল হাসপাতাল ল্যাবে ১০৭টি নমুনা পরীক্ষা করে ৩১ জন, শেভরণ ক্লিনিক্যাল ল্যাবরেটরিতে ৮৩টি নমুনা পরীক্ষা করে ২৬ জন এবং চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতাল ল্যাবে ৩১টি নমুনা পরীক্ষা করে ১০ জন করোনা আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছেন। জেনারেল হাসপাতালের রিজিওনাল টিবি রেফারেল ল্যাবরেটরিতে (আরটিআরএল) ৩২টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে ১২টি নমুনা পজেটিভ আসে। অন্যদিকে কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ ল্যাবে চট্টগ্রামের ৮৭টি নমুনা পরীক্ষা কারো শরীরে করোনা ভাইরাসের অস্তিত্ব মিলেনি। চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি জানান, গত ২৪ ঘণ্টার নমুনা পরীক্ষায় ১৫৪ জন নতুন আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছেন। এইদিন নমুনা পরীক্ষা করা হয় ১হাজার ৫৯৪টি। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে নগরে ১৩৯ জন এবং উপজেলায় ১৫ জন।
অধ্যাপক খালেদ ছিলেন জাতির বিবেক: ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ
২৭ডিসেম্বর,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: অধ্যাপক খালেদ ছিলেন জাতির বিবেক। মুক্তিযুদ্ধের সময় অধ্যাপক খালেদ একদিকে সাংবাদিকতা করতেন, অন্যদিকে মানুষকে মুক্তিযুদ্ধে উদ্বুদ্ধ করতেন। তিনি বাংলাদেশের সংবিধান প্রণেতাদের অন্যতম ছিলেন। আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি শনিবার (২৬ ডিসেম্বর) বিকেল ৪টায় চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের আবদুল খালেক ইঞ্জিনিয়ার হলে দৈনিক আজাদীর প্রাক্তন সম্পাদক অধ্যাপক খালেদ এর ১৭তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে স্মরণসভায় এ মন্তব্য করেন। প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধে অনন্য অবদানের জন্য শেখ হাসিনা সরকার তাকে দেশের সর্বোচ্চ স্বাধীনতা পদক দিয়েছে। তার সাথে একইদিনে আমিও স্বাধীনতা পদক পেয়েছিলাম। অধ্যাপক খালেদের সাথে একত্রে স্বাধীনতা পদক পাওয়া আমার জন্যেও গৌরবের। উনি আমৃত্যু আওয়ামী লীগের একজন আদর্শবান নেতা ছিলেন এবং বঙ্গবন্ধুর সত্যিকারের অনুসারী ছিলেন। ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ বলেন, আমার রাজনৈতিক জীবনে অধ্যাপক খালেদের সাথে অনেকবার কথা হয়েছে। বিপদে যেমন হয়েছে, সুসময়েও কথা হয়েছে। খালেদ সাহেব ছিলেন আমার পথপ্রদর্শক। আমি যখনই কোনো সমস্যায় পড়তাম, তখন খালেদ সাহেবের সাথে দেখা করতে যেতাম। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর এমপি হোস্টেলে আমরা একই হলে ছিলাম। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার কথা শোনার পর আমি কাঁদতে কাঁদতে অধ্যাপক খালেদের রুমে গিয়েছিলাম। দেশের ক্রান্তিলগ্নে উনি আমাকে ধৈর্য ধারণ করতে বলেছিলেন। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পরে দলের দুঃসময়ে পার্টিকে পুনর্গঠনের সময় আমি উনার কাছ থেকে অনেক সহযোগিতা পেয়েছি। অনেক উপদেশ, পরামর্শ পেয়েছি। অধ্যাপক মোহাম্মদ খালেদ স্মরণসভা পরিষদ আয়োজিত স্মরণসভায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের আহ্বায়ক ও চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি আবু সুফিয়ান। সংগঠনের সদস্য সচিব হেলাল উদ্দিন চৌধুরীর সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য দেন সাবেক চবি উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী, চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এম এ সালাম, চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব সভাপতি আলী আব্বাস, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চট্টগ্রাম মহানগরের কমান্ডার মোজাফফর আহমদ, সাপ্তাহিক স্লোগান পত্রিকার উপদেষ্টা সম্পাদক ওয়েল গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ সিরাজুল ইসলাম কমু, সিনিয়র সাংবাদিক মঈনুদ্দিন কাদেরী শওকত, চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ, অধ্যাপক খালেদের সন্তান ও স্লোগান পত্রিকার সম্পাদক মো. জহির। সভায় সাবেক চবি উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, ১৯২২ সালের ৬ জুলাই বিহারের রাজধানী পাটনায় জন্মগ্রহণ করেন অধ্যাপক মোহাম্মদ খালেদ। উনার বাবা ছিলেন বিহার সরকারের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা। যে কারণে শৈশবে নান্দনিক পরিবেশে বড় হয়েছিলেন। কলকাতা ইসলামিয়া কলেজে বঙ্গবন্ধুর সান্নিধ্যে এসেছিলেন অধ্যাপক খালেদ। ১৯৬২ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর ইঞ্জিনিয়ার আবদুল খালেকের ইন্তেকালের পর তিনি আজাদী পত্রিকার সম্পাদকের দায়িত্ব নেন। সেই থেকে ২০০৩ সালের ২১ ডিসেম্বর মৃত্যু পর্যন্ত তিনি আজাদী পত্রিকার সম্পাদক ছিলেন। উনি খুবই অমায়িক ও ভদ্র মানুষ ছিলেন। যেকোন মানুষকে নিজের মতো করে নিতেন অধ্যাপক খালেদ। চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এম এ সালাম বলেন, অধ্যাপক খালেদ বঙ্গবন্ধুর স্নেহভাজন ছিলেন। তিনি ১৯৭০ সালে জাতীয় পরিষদ নির্বাচনে হাটহাজারী-রাউজান সংসদীয় আসনে জয়ী হয়েছিলেন। ওই সময়ে মীরসরাইয়ে প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। অধ্যাপক খালেদ সিধেসাদা চলাফেরা করতেন, কিন্তু চিন্তা চেতনা ছিলো অনেক উন্নত। উনি অনেক বিরাট বিষয়কে অল্পকথায় গুছিয়ে তুলে ধরতে পারতেন। চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব সভাপতি আলী আব্বাস বলেন, অধ্যাপক খালেদ সর্বগুণে গুণান্বিত একজন মানুষ ছিলেন। উনি চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। আমি যখন বাংলার বাণীতে ছিলাম, আমি খেলাপ্রিয় ছিলাম। তখন আমি আজাদীতে রিপোর্ট করার আগ্রহের কথা বলেছিলাম অধ্যাপক খালেদকে। উনি আমাকে সুযোগ দিয়েছিলেন। তাঁর বিশাল মন ছিল। সুন্দর ব্যবহারের অধিকারী ছিলেন। মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোজাফফর আহমদ বলেন, অধ্যাপক খালেদ চট্টগ্রামের বিজয় মেলার নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। বিএনপি ছাত্রদলের বাধার মুখেও বিজয় মেলায় যুদ্ধাপরাধী গোলাম আজমের সাথে পাকিস্তানের জেনারেলের গোপন মিটিংয়ের ছবি আমরা ম্যুরালে এঁকেছিলাম। বিজয় মেলার কারণে বাংলাদেশের তরুণ যুব সমাজ আবার জেগে উঠেছিল। এর পেছনেও অধ্যাপক খালেদের অবদান রয়েছে। সৈয়দ সিরাজুল ইসলাম কমু বলেন, আমি অধ্যাপক খালেদের বক্তব্য শোনার জন্য যেতাম। উনার শুদ্ধ বাংলার বক্তৃতা আমাকে মুগ্ধ করতো। ২০০২ সালে উনাকে শেষবারের দেখায় আমি প্রশ্ন করেছিলাম, আমাদের রাজনৈতিক মুক্তি কোন পথে? উনি বললেন, বঙ্গবন্ধুর দেখানো পথ, বঙ্গবন্ধুর নির্দেশিত পথ, এটা যে নামে আসুক। বঙ্গবন্ধুর সৈনিকরা যতদিন সুনির্দিষ্ট প্রত্যয় নিয়ে রাজনীতি ও দেশের উন্নয়নে কাজ করবে না, ততদিন দেশের মুক্তি আসবে না। সভাপতি আবু সুফিয়ান বলেন, অধ্যাপক খালেদ আদর্শবান, নীতিবান ও সাহসী একজন সম্পাদক ছিলেন। উনি রাজনীতিবিদ ছিলেন, সমাজসেবক ছিলেন, জনপ্রিয় মানুষ ছিলেন। প্রেসক্লাবের সভাপতি থাকাকালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে আমরা চিঠি দিয়েছিলাম চট্টগ্রাম থেকে প্রফেসর খালেদ সাহেবকে সম্মাননা দেওয়া জন্য। বঙ্গবন্ধুকন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা অধ্যাপক খালেদকে স্বাধীনতা পদক দিয়েছেন।
করোনা: চট্টগ্রামে মৃত্যুশূন্য দিনে আক্রান্ত ১০৭ জন
২৭ডিসেম্বর,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্ত হয়েছে ১০৭ জনের। এ নিয়ে চট্টগ্রামে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ২৯ হাজার ৭২৫ জন। এসময়ে চট্টগ্রামে করোনায় কারও মৃত্যু হয়নি। রোববার (২৭ ডিসেম্বর) সকালে সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, চট্টগ্রামের ৫টি ল্যাবে ১ হাজার ৫০০টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেস (বিআইটিআইডি) ল্যাবে ৮৩৩টি, চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) ল্যাবে ৪৬২টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। বিআইটিআইডি ল্যাবে ১৭ জন, চমেক ল্যাবে ২৬ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। এছাড়া, বেসরকারি ইম্পেরিয়াল হাসপাতাল ল্যাবে ১৬৩টি নমুনা পরীক্ষা করে ৪৯ জন এবং চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতাল ল্যাবে ২০টি নমুনা পরীক্ষা করে ৮ জনের শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। জেনারেল হাসপাতালের রিজিওনাল টিবি রেফারেল ল্যাবরেটরিতে (আরটিআরএল) ২২টি নমুনা পরীক্ষা করে ৭টি পজেটিভ শনাক্ত হয়। এইদিন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাব, চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি অ্যান্ড অ্যানিম্যাল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় (সিভাসু) ল্যাব, শেভরন ক্লিনিক্যাল ল্যাবরেটরিতে এবং কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ ল্যাবে নমুনা পরীক্ষা করা হয়নি। চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি জানান, গত ২৪ ঘণ্টার নমুনা পরীক্ষায় ১০৭ জন নতুন আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছেন। আক্রান্তদের মধ্যে নগরে ৯৮ জন এবং উপজেলায় ৯ জন।
ছদ্মবেশে ম্যাজিস্ট্রেট, ধরা খেলো- ইভটিজার
২৬ডিসেম্বর,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সাধারণ পাবলিক সেজে খুলশী থানার ডেভার পাড়, কুসুমবাগ আবাসিক এলাকায় পর্যবেক্ষণে নামেন জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ অভিযানে ম্যাজিস্ট্রেট সাধারণ পাবলিকের ছদ্মবেশে ইভটিজিং করা অবস্থায় মো. রাসেল নামে এক ইভটিজারকে আটক করে। তাকে ১৫ দিনের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। শনিবার (২৬ ডিসেম্বর) দুপুর ১টার দিকে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উমর ফারুক এ অভিযান পরিচালনা করেন। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উমর ফারুক বলেন, স্কুল-কলেজ বা কর্মক্ষেত্রে যাওয়া আসার সময় অনেক মেয়ে ইভটিজিংয়ের শিকার হওয়ার অভিযোগ শুনা যায়। এরই প্রেক্ষিতে অভিযান পরিচালনা করা হয়। সরেজমিনে পর্যবেক্ষণ করে দেখা যায়, ইভটিজার ভিকটিমকে তার কর্মক্ষেত্রে যাওয়া আসার সময় প্রতিনিয়ত কয়েকজনকে সাথে নিয়ে ইভটিজিং করে আসছিল। কাছাকাছি থেকে পর্যবেক্ষণ করি এবং ইভটিজিং করা অবস্থায় ইভটিজারকে হাতেনাতে ধরে ১৫ দিনের কারাদণ্ড প্রদান করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, এলাকার সকল পেশার মানুষকে ইভটিজিংয়ের বিরুদ্ধে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে কাজ করতে অনুরোধ জানানো হয় যাতে সমাজ থেকে এ ব্যাধি দূর হয়।
লাভলেইনে নির্মাণাধীন দেয়াল ধসে ২ শ্রমিকের মৃত্যু
২৬ডিসেম্বর,শনিবার,সিনিয়র সংবাদদাতা,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: নগরীর কোতোয়ালী থানার লাভলেইনে নির্বাচন কমিশন অফিসের সামনে নির্মাণাধীন দেয়াল ধসে মো. সালাউদ্দিন (১৭) নামের এক শ্রমিকের মৃত্যুর পর একই দুর্ঘটনায় আহত মো. শুক্কুর (২২) নামে আরও এক শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। শনিবার (২৬ ডিসেম্বর) দুপুর আড়াইটার দিকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন চমেক পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ জহিরুল হক ভুইঁয়া। তিন বলেন, নির্বাচন কমিশন অফিসের সামনের একটি জায়গায় দেয়াল নির্মাণের কাজ করতে গিয়ে দেয়াল ধসের ঘটনায় একজন ঘটনাস্থলে মারা গেছে এবং শুক্কুর নামের অন্য একজন শ্রমিককে গুরুতর আহতাবস্থায় চমেক হাসপাতালে ভর্তি করালে ২৪ নম্বর ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। আগে দুপুর ১টার দিকে চট্টগ্রাম নগরীর কোতোয়ালী থানার লাভলেইনে নির্বাচন কমিশন অফিসের সামনে নির্মাণাধীন দেয়াল ধসে মো. সালাউদ্দিন (১৭) নামের ওই শ্রমিকের ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয়েছে। এ দুর্ঘটনায় আহত মো. শুক্কুরকে (২২) গুরুতর আহতাবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।
হুইপ সামশুল হক করোনা আক্রান্ত
২৬ডিসেম্বর,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: জাতীয় সংসদের হুইপ ও চট্টগ্রাম-১২ পটিয়া উপজেলার স্থানীয় সাংসদ সামশুল হক চৌধুরী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। শনিবার (২৬ ডিসেম্বর) বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হুইপপুত্র চট্টগ্রাম চেম্বার পরিচালক নাজমুল করিম চৌধুরী শারুন। পরিবার সূত্রে জানা যায়, করোনা পজিটিভ আসলেও তিনি শারীরিকভাবে সুস্থ আছেন এবং চট্টগ্রাম শহরের নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে আছেন। গত ২০ ডিসেম্বর বন্দর উপদেষ্টা কমিটির ১৪তম বার্ষিক সভায় অংশগ্রহণের পর তিনি শারীরিক অসুস্থতা বোধ করেন। ২৩ ডিসেম্বর রাতে করোনা পরীক্ষায় তার পজিটিভ আসে।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর