শুক্রবার, এপ্রিল ১৬, ২০২১
নওফেলকে নিয়ে মানহানিকর স্ট্যাটাস, আটক যুবক
১৫,জুলাই,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম-৯ আসনের সংসদ সদস্য ও শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলকে নিয়ে ফেসবুকে মানহানিকর স্ট্যাটাস দেওয়ায় এনামুল হক নামে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ। বুধবার (১৫ জুলাই) এনামুল হককে আটক করা হয়। আটক এনামুল হক বাকলিয়া থানাধীন কালামিয়া বাজার এলাকার মো. শরীফের ছেলে। ১৩ জুলাই বাকলিয়া ১৮ নম্বর ওয়ার্ড ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. ইসমাঈল উদ্দীন রুবেলের দায়ের করা অভিযোগের প্রেক্ষিতে তাকে আটক করা হয় বলে জানিয়েছে পুলিশ। চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের সহকারী কমিশনার (চকবাজার জোন) মুহাম্মদ রাইসুল ইসলাম নিউজ একাত্তরকে বলেন, চট্টগ্রাম-৯ আসনের সংসদ সদস্য ও শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল মহোদয়কে নিয়ে ফেসবুকে মানহানিকর স্ট্যাটাস দেওয়ায় এনামুল হক নামে এক যুবককে আটক করা হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত চলছে। আটক এনামুলকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। মুহাম্মদ রাইসুল ইসলাম জানান, অভিযোগে বাদি মো. ইসমাঈল উদ্দীন রুবেল উল্লেখ করেছেন- অভিযুক্ত এনামুল হক চট্টগ্রাম-৯ আসনের সংসদ সদস্য ও শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল মহোদয়কে নিয়ে ফেসবুকে মানহানিকর স্ট্যাটাস দেওয়ায় বাকলিয়া এলাকায় স্থানীয়দের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এনামুল হক একটি পত্রিকার নিউজ শেয়ার দিয়ে ক্যাপশনে ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফলকে ইঙ্গিত করে অশালীন ভাষা ব্যবহার করেন।
দ্বিতীয় দফায় স্থগিত হলো চসিক নির্বাচন
১৫,জুলাই,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনার কারণে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) নির্বাচন দ্বিতীয় দফায় স্থগিত করেছে নির্বাচন কমিশন। মঙ্গলবার এ সংক্রান্ত একটি চিঠি স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিবের কাছে পাঠানো হয়েছে। ফলে আগামী ৫ আগস্টের মধ্যে অর্থাৎ চলতি মেয়াদের মধ্যে চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচন করার আইনি বাধ্যবাধকতা থাকলেও তা সম্ভব হচ্ছে না। ইসির উপ-সচিব মো. আতিয়ার রহমান স্বাক্ষরিত মন্ত্রণালয়ের সচিবকে পাঠানো চিঠিতে বলা হয়েছে- দেশে করােনা ভাইরাস সংক্রমণজনিত কারণে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত চলতি বছরের ২৯ মার্চ নির্ধারিত চট্টগাম সিটি করপোরেশনের নির্বাচন ২১ মার্চ জারি করা প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে স্থগিত করা হয়েছিল। বর্তমানেও করােনার প্রাদুর্ভাব অব্যাহত থাকায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে এবং অতিবৃষ্টি ও পাহাড় ধ্বসের আশঙ্কা বিবেচনায় চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়াদকালের মধ্যে অর্থাৎ এ বছরের ৫ আগস্টের মধ্যে নির্বাচন আয়ােজন করা সম্ভব হবে না মর্মে সিদ্ধান্ত জানিয়েছে ইসি। ২০১৫ সালের ২৮ এপ্রিল চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনের ভোটগ্রহণ করেছিল ইসি। এ সিটির মেয়াদ শেষ হবে ২০২০ সালের ৫ আগস্ট। নির্বাচনী আইন অনুযায়ী, ৫ আগস্টের পূর্ববর্তী ১৮০ দিনের মধ্যে নির্বাচনের আইনি বাধ্যবাধকতা রয়েছে। কিন্তু করোনার কারণে সেটা সম্ভব হচ্ছে না। গত ১৬ ফেব্রুয়ারি এ সিটি নির্বাচনের তফসিল দিয়েছিল ইসি। এ নির্বাচনে মনোনয়নপত্র দাখিল করে ছয় প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বৈধ হয়েছিল। তারা হলেন- আওয়ামী লীগের এম রেজাউল করিম চৌধুরী, বিএনপির শাহাদাত হোসেন, বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের এমএ মতিন, পিপলস পার্টির আবুল মনজুর, ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশের মুহাম্মদ ওয়াহেদ মুরাদ ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. জান্নাতুল ইসলাম। এছাড়া কাউন্সিলর পদে ২ শতাধিক প্রার্থীর মনোনয়নপত্রও বৈধ হয়েছিল।
বিউবো প্রধান প্রকৌশলীকে গ্রাহকের ভোগান্তি নিরসনের আহ্বান: খোরশেদ আলম সুজন
১৪,জুলাই,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বিদ্যুতের সঞ্চালন লাইনের ত্রুটি মেরামত, গড় বিল সমাধান এবং গ্রাহক ভোগান্তি নিরসনে আহ্বান জানিয়েছেন জনদুর্ভোগ লাঘবে জনতার ঐক্য চাই শীর্ষক নাগরিক উদ্যোগের প্রধান উপদেষ্টা ও চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম সুজন। মঙ্গলবার (১৪ জুলাই) বেলা সাড়ে ১২টায় বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড চট্টগ্রাম দক্ষিণ অঞ্চলের প্রধান প্রকৌশলী মো. শামসুল আলমকে ফোন করে এ আহবান জানান তিনি। সুজন বলেন, বিদ্যুৎ হচ্ছে সভ্যতার লাইফ লাইন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একক নেতৃত্বে বিদ্যুৎ মন্ত্রণালয় জনগনের কাছে বিদ্যুৎ সুবিধা পৌঁছে দেওয়ার জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। সম্প্রতি গ্রাহকের ভুতুড়ে বিল সমন্বয় নিয়ে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণ করে দোষীদের উপযুক্ত শাস্তি প্রদান করায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানান তিনি। তিনি বলেন, অনেক বাধা বিপত্তি পার হয়ে শত প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাহসী নেতৃত্বে বিদ্যুৎ উৎপাদন এগিয়ে যাচ্ছে। সে ধারা অব্যাহত রেখে জনগনকে কাঙিক্ষত সেবা পৌঁছে দেওয়ার জন্য বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড চট্টগ্রাম এর সকল স্তরের কর্মকতা এবং কর্মচারীদের প্রতি অনুরোধ জানান তিনি। তিনি আরও বলেন, হঠাৎ করে নগরজুড়ে লোডশেডিং, সাটডাউনের মাত্রা বেড়ে গেছে। যে কারণে জনগনের দুর্ভোগ বেড়েছে। তাছাড়া সঞ্চালন লাইনে ত্রুটি, গড় বিল এবং লো ভোল্টেজের কারণেও গ্রাহকরা কিছুটা অস্বস্তিতে রয়েছে। ঘনঘন বিদ্যুতের যাওয়া আসায় জনজীবন অতিষ্ট হয়ে পড়েছে। এর ফলে গ্রাহকের মূল্যবান জিনিসপত্রও নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। তবে গ্রাহকের সবচেয়ে বেশী অভিযোগ নিউমুরিং বিক্রয় ও বিতরন বিভাগের বিরুদ্ধে। সুজন বলেন, এ অফিসের আওতাধীন গ্রাহকরা সীমাহীন ভোগান্তিতে রয়েছে। দেখা যাচ্ছে যে একটুখানি বৃষ্টি পড়ার সাথে সাথেই বিদ্যুৎ চলে যাচ্ছে। ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করেও বিদ্যুতের দেখা পাচ্ছে না গ্রাহকরা। এছাড়া নতুন মিটার সংযোগ, মিটার নষ্ট হলে মিটার প্রাপ্তিতে ভোগান্তি, গ্রাহকদের অযথা হয়রানি এবং গ্রাহকদের সাথে দুর্ব্যবহার এ অফিসের কতিপয় কর্মকর্তা-কর্মচারীর নিত্য নৈমত্তিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাছাড়া হালিশহর বিক্রয় ও বিতরন বিভাগের ব্যাপক অনিয়মেও অতিষ্ট হয়ে উঠেছে সাধারণ গ্রাহকরা। এখানকার দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা-কর্মচারীরা প্রতিমাসে ভুতুড়ে রিডিং দিয়ে গ্রাহকদের হয়রানি করছে। বিভিন্নস্থানে মিটার ছাড়াই অবৈধ সংযোগ দিয়ে বাড়তি টাকা আদায় করছে কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। আর সঞ্চালন লাইনের ট্রিপের কারণেও গ্রাহকরা ভোগান্তিতে রয়েছে। প্রধান প্রকৌশলী মো. শামসুল আলম নির্ধারিত মতবিনিময় সভাটি স্থগিত হওয়ায় দুঃখ প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, বিদ্যুৎ মন্ত্রণালয়ের অধীনে আমরা সবাই হচ্ছি জনগণের সেবক। সে লক্ষ্যে আমাদের কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীর একক পদক্ষেপের কারণে সারা দেশজুড়ে হাজার হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে অত্যাধুনিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মিত হচ্ছে। যার কারণে একদিকে যেমন বিদ্যুতের চাহিদা বাড়ছে এবং অন্যদিকে জনগনও নিরবচ্ছিন্নভাবে বিদ্যুৎ সরবরাহ পাচ্ছে। বর্তমান সরকার দায়িত্ব গ্রহণের আগে বিদ্যুতের সঞ্চালন লাইনগুলো ছিলো অনেক পুরানো। সাবস্টেশন ছিল অপ্রতুল। প্রতিদিনই কোন না কোন এলাকায় ট্রান্সফরমার নষ্ট হয়ে গ্রাহক ভোগান্তি হতো। বর্তমানে বিদ্যুৎ অফিসের সে রকম কোন সমস্যা নেই। তবে লাইনের ট্রিপের কারণে কিছু কিছু বিতরণ বিভাগের গ্রাহগ দুর্ভোগে আছেন। তিনি সুজনের অভিযোগগুলো নিয়ে স্ব-স্ব বিতরণ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলীদের সাথে আলোচনা করে দ্রুত সমাধানের আশ্বাস দেন। এছাড়া কোন কর্মকর্তা-কর্মচারী যদি গ্রাহকদের অযথা হয়রানি করে তার বিরুদ্ধেও শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করার প্রতিশ্রুতি প্রদান করেন।
করোনা কেড়ে নিল আরও এক চিকিৎসকের প্রাণ
১৪,জুলাই,মঙ্গলবার,শারমিন আকতার,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালের গাইনী বিভাগের রেজিস্ট্রার ডা. সুলতানা লতিফা জামান আইরিন করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৩৪ বছর। মঙ্গলবার (১৪ জুলাই) দুপুর ১ টা ৪০ মিনিটে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন। ডা. আইরিনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চমেক হাসপাতালের সহকারী পরিচালক ডা. আফতাবুল ইসলাম। তিনি কে বলেন, কয়েকদিন ধরে চমেক হাসপাতালের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন ছিলেন ডা. আইরিন। আজ দুপুরে তিনি মৃত্যুবরণ করেন। করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় তার ফুসফুস বেশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এর আগেও মা ও শিশু হাসপাতালের আইসিউতে ভর্তি ছিলেন তিনি। ডা. আইরিন বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ) চট্টগ্রাম শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. মাইজুল আকবর চৌধুরীর সহধর্মিণী। তিনি চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ থেকে শিক্ষাজীবন শেষ করে চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালে কর্মজীবন শুরু করেন। এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত ও করেনা উপসর্গ নিয়ে চট্টগ্রামে ১১ চিকিৎসকের মৃত্যু হয়েছে।
মহানগর গোয়েন্দা (বন্দর) বিভাগের অভিযানে ইয়াবা সহ ৩ জন গ্রেফতার
১৩,জুলাই,সোমবার,রাজিব দাশ,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: মহানগর গোয়েন্দা (বন্দর) বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার এস.এম. মোস্তাইন হোসেন, বিপিএম এর সার্বিক দিক নির্দেশনায় অতিঃ উপ-পুলিশ কমিশনার(ডিবি-বন্দর) মোহাম্মদ আবু বকর সিদ্দিক ও সহকারী পুলিশ কমিশনার (ডিবি-বন্দর) মোঃ গোলাম ছরোয়ার এর তত্ত্বাবধানে পুলিশ পরিদর্শক মোহাম্মদ ফেরদৌস জাহান এর নেতৃত্বে ১১ নং টিম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ১৩ ই জুলাই চট্টগ্রামের কোতোয়ালি থানাধীন ফিরিঙ্গী বাজার ব্রিজ ঘাট এলাকায় অভিযা্ন পরিচালনা করে ৩০০ পিস ইয়াবাসহ মোঃ বাহারুল ইসলাম বাহার (৩০)কে গ্রেফতার করেন এবং কর্ণফুলী থানা এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে ২০০০ পিস ইয়াবা সহ মোঃ মফিজুর রহমান মফিজ (২৮) ও আব্দুল কাদের (২২) কে গ্রেফতার করেন । গ্রেফতারকৃত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে কোতোয়ালি ও কর্ণফুলী থানায় পৃথক পৃথক ০২টি নিয়মিত মামলা রুজু করা হয়েছে।
সাহেদের নামে চট্টগ্রামে প্রতারণা-অর্থ আত্মসাতের মামলা
১৩,জুলাই,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: রিজেন্ট গ্রুপ ও রিজেন্ট কেসিএস লিমিটেডের চেয়ারম্যান মো. সাহেদ ওরফে সাহেদ করিমের নামে প্রতারণার মাধ্যমে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে মামলা দায়ের করেছেন এক ব্যবসায়ী। সোমবার (১৩ জুলাই) ডবলমুরিং থানায় মামলাটি দায়ের করেন মো. সাইফুদ্দিন (৫৫) নামে এক ব্যক্তি। তিনি গাড়ির টায়ার ও যন্ত্রাংশ আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান মেসার্স মেগা মোটরর্সের মালিক জিয়া উদ্দিন মোহাম্মদ জাহাঙ্গীরের পক্ষে মামলাটি দায়ের করেন। মামলায় রিজেন্ট গ্রুপ ও রিজেন্ট কেসিএস লিমিটেডের চেয়ারম্যান মো. সাহেদ ওরফে সাহেদ করিম ছাড়াও শহীদুল্লাহ (৬০) নামে আরও একজনকে আসামি করা হয়েছে। মামলার এজাহারে মেগা মোটরর্সের মালিক জিয়া উদ্দিন মোহাম্মদ জাহাঙ্গীরের কাছ থেকে প্রতারণার মাধ্যমে ৯১ লাখ ২৫ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আনা হয়েছে। ডবলমুরিং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সদীপ কুমার দাশ নিউজ একাত্তরকে বলেন, রিজেন্ট গ্রুপ ও রিজেন্ট কেসিএস লিমিটেডের চেয়ারম্যান মো. সাহেদ ওরফে সাহেদ করিমের নামে প্রতারণার মাধ্যমে ৯১ লাখ ২৫ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ডবলমুরিং থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। মামলাটি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। মো. সাহেদ ওরফে সাহেদ করিমসহ আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা করছি। মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান মেসার্স মেগা মোটরর্সের আমদানি করা থ্রি-হুইলার ঢাকা সিটিতে চলাচলের রুট পারমিটসহ চলাচলের আনুষাঙ্গিক কার্যক্রম পরিচালনার অনুমতি নিয়ে দেওয়ার বিষয়ে আশ্বস্ত করে মো. সাহেদ ওরফে সাহেদ করিম। এর জন্য সাহেদ করিম মেগা মোটরর্সের মালিক জিয়া উদ্দিন মোহাম্মদ জাহাঙ্গীরের কাছ থেকে ২০১৭ সালের ২২ জানুয়ারি সাহেদ করিমের প্রিমিয়ার ব্যাংকের ঢাকা অ্যাভিনিউ গেইট শাখার অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে নগদ ৩০ লাখ টাকা গ্রহণ করেন। একই বছরের ২৫ জানুয়ারি প্রিমিয়ার ব্যাংকের চট্টগ্রাম আগ্রাবাদ শাখার মাধ্যমে ৪ লাখ ৭৫ হাজার টাকা, ৩০ জানুয়ারি ৫ লাখ টাকা, ১ ফেব্রুয়ারি ৫ লাখ টাকা, ১৩ ফেব্রুয়ারি ৬ লাখ টাকা, ১৬ ফেব্রুয়ারি ৩ লাখ ৫০ হাজার টাকা, ২০ ফেব্রুয়ারি ২ লাখ টাকা, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২ লাখ টাকা, ৫ মার্চ ১ লাখ টাকাসহ মোট ৫৯ লাখ ২৫ হাজার টাকা গ্রহণ করেন সাহেদ করিম। এছাড়া ৪ ফেব্রুয়ারি ১৮ লাখ, ৮ ফেব্রুয়ারি ৬ লাখ, ২০ ফেব্রুয়ারি ১ লাখ ও ৭ মার্চ ৭ লাখ টাকা মেসার্স মেগা মোটরর্সের অফিসে এসে নগদ গ্রহণ করেন রিজেন্ট গ্রুপ ও রিজেন্ট কেসিএস লিমিটেডের চেয়ারম্যান মো. সাহেদ ওরফে সাহেদ করিম। বিভিন্ন লোকজনের নাম ভাঙিয়ে মোট ৯১ লাখ ২৫ হাজার টাকা গ্রহণ করে ২০১৭ সালের ৫ মার্চ মেগা মোটর্সকে বিআরটিএ চেয়ারম্যানের স্বাক্ষর করা একটি পরিপত্রের ফটোকপি দেন মো. সাহেদ ওরফে সাহেদ করিম। সেখানে ২০০ সিএনজি থ্রি-হুইলারকে ঢাকা সিটিতে চলাচলের অনুমতি দেওয়া হয়েছে বলে উল্লেখ ছিল। পরে মেসার্স মেগা মোটরর্স কর্তৃপক্ষ বিআরটিএতে যোগযোগ করলে পরিপত্রের ফটোকপিটি ভুয়া বলে জানতে পারেন মেসার্স মেগা মোটর্সের মালিক জিয়া উদ্দিন মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর। মামলার বাদি মো. সাইফুদ্দিন বলেন, আমি গাড়ির টায়ার ও যন্ত্রাংশ আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান মেসার্স মেগা মোটরর্সের মালিক জিয়া উদ্দিন মোহাম্মদ জাহাঙ্গীরের আত্মীয়। তিনি অসুস্থ হয়ে পড়ায় আমি তার ব্যবসা দেখাশুনা করি। রিজেন্ট গ্রুপ ও রিজেন্ট কেসিএস লিমিটেডের চেয়ারম্যান মো. সাহেদ ওরফে সাহেদ করিম মেসার্স মেগা মোটরর্সের আমদানি করা থ্রি-হুইলার ঢাকা সিটিতে চলাচলের রুট পারমিটসহ চলাচলের আনুষাঙ্গিক কার্যক্রম পরিচালনার অনুমতি নিয়ে দেওয়ার বিষয়ে আশ্বস্ত করে মোট ৯১ লাখ ২৫ হাজার টাকা গ্রহণ করে। টাকা গ্রহণ করে ২০১৭ সালের ৫ মার্চ মেগা মোটর্সকে বিআরটিএ চেয়ারম্যানের স্বাক্ষর করা একটি পরিপত্রের ফটোকপি দেন। সেখানে ২০০ সিএনজি থ্রি-হুইলারকে ঢাকা সিটিতে চলাচলের অনুমতি দেওয়া হয়েছে বলে উল্লেখ ছিল। পরে আমরা বিআরটিএতে যোগযোগ করলে পরিপত্রের ফটোকপিটি ভুয়া বলে জানতে পারি। তারপর থেকে সাহেদ করিমের কাছ থেকে টাকা ফেরত চাইলে টাকা ফেরত না দিয়ে সময়ক্ষেপণ করতে থাকে। আমরা বিষয়টি আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করতে এতদিন অপেক্ষা করেছিলাম। কিন্তু সে পথ বন্ধ হয়ে গেছে তাই আইনের আশ্রয় নিয়েছি।” বলেন মো. সাইফুদ্দিন।
বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারবর্গের উদ্যোগে অস্বচ্ছল মানুষের মাঝে উপহার বিতরণ
১৩,জুলাই,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ১৩ জুলাই চট্টল শার্দুল মরহুম জহুর আহমদ চৌধুরীর ৪৬তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে দামপাড়া পল্টন রোডস্থ মরহুমের বাসভবনে বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারবর্গের উদ্যোগে অস্বচ্ছল মানুষের মাঝে উপহার সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। অনুষ্ঠানে সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে অস্বচ্ছল মানুষের মাঝে এই উপহার তুলে দেন।বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারবর্গের চেয়ারম্যান মো জসিম উদ্দিন চৌধুরীর সভাপতিত্ব ও মহাসচিব উত্তম বড়ুয়ার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে মুক্তি যোদ্ধা মাহফুজ আহমদ, মোহাম্মদ আলী,কুতুবউদ্দিন চৌধুরী, মো মাসুম, মো মঞ্জু, মো নাসির, মো বাবুল, মো মিন্টু, খালেদ মোহাম্মদ আলী টিটু, রনি সরকার, মে তাকিব,মো ফয়সাল, মো আকবর, মিন্টু দেব,হাবিবুর রহমান হাবিব, নূর হোসেন দুলাল,শেখ সাদি,মো বেলাল,সুজন বড়ুয়া, মেজবাহ উদ্দিন আজাদ, শেখ ফরিদ, মো আজিজ, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চট্টগ্রাম মহানগর ইউনিটের সহকারী কমান্ডার খোরশেদ আলম,মো সাজ্জাদ হোসেন ফয়সাল, জাহেদ হাসান, মো দাউদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। দোয়া মোনাজাত পাঠ করেন মোহাম্মদ আলী।
করোনায় আক্রান্ত সিএমপির উপ-কমিশনার মিজান আর নেই
১৩,জুলাই,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনো ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) উপ-কমিশনার মিজানুর রহমান মৃত্যুবরণ করেছেন। সোমবার (১৩ জুলাই) ভোরে ঢাকার রাজারবাগ কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (জনসংযোগ) মির্জা সায়েম মাহমুদ নিউজ একাত্তরকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। পুলিশ কর্মকর্তা মির্জা সায়েম মাহমুদ জানান, করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৮ জুন রাজারবাগ কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালে ভর্তি হন সিএমপির নগর গোয়েন্দা (দক্ষিণ) বিভাগের উপ-কমিশনার মিজানুর রহমান। সেখানে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে আইসিইউতে স্থানান্তর করা হয়। আইসিইউতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার ভোরে তিনি মৃত্যুবরণ করেন। চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-কমিশনার মিজানুর রহমানের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন পুলিশ কমিশনার মো. মাহবুবর রহমান। এক শোক বার্তায় তিনি মরহুমের আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন। তার শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।
৯ নং উত্তর পাহাড়তলী ওয়ার্ডের ১১০০ মহিলার মাঝে মেয়রের সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ
১২,জুলাই,রবিবার,শারমিন আকতার,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন বস্তি উন্নয়ন ও দারিদ্র্য হ্রাসকরণ কর্মসূচির আওতায় ৯ নং উত্তর পাহাড়তলী ওয়ার্ডের ১১০০ জন মহিলার মাঝে কোভিড-১৯ সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। আজ ১২ জুলাই ওয়ার্ড কার্যালয় প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। মেয়র নিজ হাতে উপস্থিত ৩০০ জনের মাঝে সুরক্ষা সামগ্রীগুলো তুলে দেন। বাকি ৮০০ জনকে স্থানীয় প্রতিনিধিদের মাধ্যমে বিতরণ করা হবে। অনুষ্ঠানে কাউন্সিলর জহুরুল আলম জসিম, সংরক্ষিত কাউন্সিলর আবিদা আজাদ, মেয়রের একান্ত সচিব আবুল হাশেম, জাইকা'র বস্তি উন্নয়ন ও দারিদ্র্য হ্রাসকরণ কর্মসুচির সিনিয়র কর্মকর্তা সনজিত কুমার দাশ, চসিক বস্তি উন্নয়ন কর্মকর্তা মইনুল হোসেন আলী চৌধুরী জয়, উত্তর পাহাড়তলী ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের আহবায়ক এস এম আলমগীর প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর