মাদরাসা ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে শিক্ষক আটক
১৪মে,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: বাঁশখালীতে ১২ বছর বয়সী এক মাদরাসা ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে দায়ের হওয়া মামলার আসামি মাদরাসা শিক্ষক মো. ফয়জুল্লাহকে আটক করেছে RAB।মঙ্গলবার ভোরে বাঁশখালীর মনকির চর এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয় বলে জানান RAB-৭ এর মিডিয়া অফিসার সহকারী পুলিশ সুপার মো. মাশকুর রহমান।তিনি জানান, গত ২৪ এপ্রিল ওই মাদরাসা ছাত্রীকে ধর্ষণ করে মো. ফয়জুল্লাহ। পরে এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের হলেও পলাতক ছিলেন তিনি। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে RAB সদস্যরা তাকে আটক করে। তিনি বাঁশখালীর শীলকূপ ইউনিয়নের মাওলানা আবুল কাশেমের ছেলে।মো. ফয়জুল্লাহকে বাঁশখালী থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে বলে জানান মো. মাশকুর রহমান।
চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে সিলিং ফ্যান ও টেলিভিশন দিয়েছে চসিক
১৪মে,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম:চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে জীবনমান উন্নয়নে কারাবন্দি পুরুষ, মহিলা ও শিশুদের জন্য ৫শ টি সিলিং ফ্যান এবং ৫০টি এলইডি টেলিভিশন দিয়েছে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষ।মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন মঙ্গলবার ১৪ মে সকালে কেন্দ্রীয় কারাগারে কারাবন্দিদের হাতে এসব বিদ্যুৎ সামগ্রী তুলে দেন।এসময় উপস্থিত ছিলেন চসিক সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর জেসমিন পারভিন জেসি, কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমন, চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার নাছির আহমেদ, সিনিয়র জেল সুপার মো. কামাল হোসেন, বেসরকারি কারা পরিদর্শক মোহাম্মদ আবদুল হান্নান, মোহাম্মদ আবদুল মান্নান, শেখ ফোরকানুল হক চৌধুরী, চসিক তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী ঝুলন কুমার দাশসহ বেসরকারি কারা পরিদর্শক, কারা কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন।এর আগে ২১ জানুয়ারি সিটি মেয়র কারাগার পরিদর্শনকালে কারাবন্দিদের জন্য ব্যবহার্য সামগ্রী প্রদানের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন।বিদ্যুৎ সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, কারাগারকে বন্দিরা সংশোধনাগার হিসেবে মনে করতে পারেন। সংশোধনের মাধ্যমে পরবর্তীতে তারা স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার সুযোগ রয়েছে। সরকারও চায় তারা স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসুক।তিনি বলেন, বর্তমান সরকার কারাগারকে সংশোধনাগার হিসেবে রূপান্তরে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে। যারা দীর্ঘদিনের জন্য বন্দি থাকবে, তাদের রোজগারের ব্যবস্থা, মানবিক জীবনযাপনের ব্যবস্থা করা হবে।কারাগার থেকে বের হয়ে তারা পরিবারের বোঝা না হয়ে কর্মক্ষম ও উপার্জনক্ষম ব্যক্তি হিসেবে সমাজে পুনর্বাসিত হবে বলে প্রত্যাশা করেন মেয়র।চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে ধারণক্ষমতার চেয়ে বেশি বন্দী থাকার বিষয়ে মেয়র উদ্বেগ প্রকাশ করেন। তিনি কারাবন্দিদেরকে জেল কোড যথাযথ অনুসরণ করার আহবান জানান।
বুবলী হত্যার ঘটনায় , তিন আসামি রিমান্ডে
১৪মে,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম মহানগরের বাকলিয়া থানাধীন বজ্রঘোনা এলাকায় বুবলী (২৭) হত্যার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় এজাহারভুক্ত তিন আসামিকে তিনদিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশকে অনুমতি দিয়েছে আদালত। সোমবার চট্টগ্রাম মহানগর হাকিম আল ইমরান খানের আদালত এই আদেশ দিয়েছেন বলে জানান বাকলিয়া থানার ওসি নেজাম উদ্দীন। আসামিরা হলেন- বাকলিয়ার মদিনা মসজিদের উত্তর পাশে বাণিজ্য ভাণ্ডারের বাড়ির মৃত জালাল আহম্মদের ছেলে মো. মুছা (৪০) ও একই এলাকার সোবহান সওদাগরের বাড়ির মৃত আমিন শরীফের ছেলে আহাম্মদ কবির (৪২) ও নবী হোসেন (৬০)। ওসি নেজাম উদ্দীন বলেন, এজাহারভুক্ত তিন আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১০ দিনের রিমান্ডের আবেদন জানানো হয়। শুনানি শেষে আদালত ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এর আগে শনিবার রাত ১০টার দিকে বজ্রঘোনা এলাকায় ভাইকে বাঁচাতে গিয়ে গুলিতে বুবলী আক্তার (২৭) নামে এক নারীর মৃত্যুর ঘটনায় অভিযুক্ত শাহ আলম পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন। এ সময় বাকলিয়া থানার ওসি নেজাম উদ্দীনসহ চার পুলিশ সদস্য আহত হন। ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করা হয়েছে একটি পিস্তল ও দুই রাউন্ড গুলি। পাশাপাশি বুবলী হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে নুর আলম ও নুর নবী নামে দুজনকেও গ্রেপ্তার করা হয়। এদের মধ্যে নুর আলম নিহত শাহ আলমের ভাই। এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় শনিবার রাতেই বুবলীর বাবা নোয়া মিয়া বাদী হয়ে শাহ আলম, তার ভাই নূর আলম (২৫), নবী হোসেন (৬০), মো. জাবেদ (২৪), মো. মুছা (৪০), আহমদ কবির (৪২)সহ ৬ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো চার-পাঁচজনকে আসামি করে বাকলিয়া থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। আসামিরা সবাই বজ্রঘোনা মদিনা মসজিদ এলাকার বাসিন্দা। এরপর রোববার দিবাগত রাত থেকে সোমবার ভোররাত পর্যন্ত চট্টগ্রাম মহানগরীর বিভিন্ন এলাকায় টানা অভিযান চালিয়ে এজাহারনামীয় আসামি মুছা ও কবিরকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানান বাকলিয়া থানার ওসি নেজাম উদ্দীন।
চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজির সাথে বৌদ্ধ নেতৃবৃন্দের মতবিনিময়
১৪মে,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম রেঞ্জে ডিআইজি কার্যালয়ে আসন্ন বুদ্ধ পূর্ণিমা উপলক্ষে বৌদ্ধ প্রতিনিধিদের সাথে মতবিনিময় সভা গতকাল সোমবার চট্টগ্রাম রেঞ্জে ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুকের সভাপতিত্বে মিথুন বড়ুয়ার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত হয়। চট্টগ্রাম জেলার প্রতিটি বৌদ্ধ বিহারে ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান নির্বিঘ্নে পালন করার জন্য সার্বিক নিরাপত্তা বিষয়ে আলোকপাত করে বক্তব্য দেন, চট্টগ্রামের এডিশনাল ডিআইজি মোহাম্মদ আবুল ফয়েজ, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হাসান বারী নুর, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এডমিন) মোহাম্মদ সারওয়ার আলম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নিষ্কৃতি চাকমা, সহকারী পুলিশ সুপার মান্না দে, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (উত্তর) মো. মশিউদ্দৌলা রেজা, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ডিএসবি মহিউদ্দিন মাহমুদ সোহেল, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (দক্ষিণ) মোহাম্মদ আফরুজুল হক টুটুল, বৌদ্ধ প্রতিনিধিদের পক্ষে বক্তব্য দেন, বৌদ্ধ সমিতির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান লায়ন আদর্শ কুমার বড়ুয়া, বুড্ডিস্ট ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান গকুল কান্তি বড়ুয়া, কৃষ্টি প্রচার সংঘ চট্টগ্রাম অঞ্চলের সহ-সভাপতি বিনয় ভূষণ বড়ুয়া, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কমলেন্দু বিকাশ বড়ুয়া, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কাজল কান্তি বড়ুয়া, কোতোয়ালী থানা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক টিংকু বড়ুয়া, বৌদ্ধ সমিতি যুবর সাধারণ সম্পাদক স্বপন কুমার বড়ুয়া, বৌদ্ধ সমিতি মহিলার সভাপতি পূরবী বড়ুয়া, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপিকা ববি বড়ুয়া, কৃষ্টি প্রচার সংঘ মহিলার সাধারণ সম্পাদক চম্পাকলি বড়ুয়া, বুড্ডিস্ট লিডার্স ফোরামের সভাপতি মণ্ডলীর সদস্য উত্তম কুমার বড়ুয়া, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কানন চৌধুরী, বৌদ্ধ যুব পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সজিব বড়ুয়া ডায়মন্ড, কাজলপ্রিয় বড়ুয়া, রবীন্দ্র লাল বড়ুয়া, দীপন কান্তি বড়ুয়া, রনেশ কুমার চৌধুরী, কৃষ্টি প্রচার সংঘ যুবর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বিজয় বড়ুয়া বাপ্পা, রিকন বড়ুয়া, সীবলী সংসদ চট্টগ্রাম সভাপতি বিকাশ কান্তি বড়ুয়া, বিপ্লব বিজয় বড়ুয়া প্রমুখ। ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুক বলেন, আতংকিত না হয়ে নিজেদের সুরক্ষিত রাখতে সর্বোচ্চ নিরাপত্তার মাঝেও সকলকে সতর্ক দৃষ্টি রাখতে হবে এবং প্রতিটি বৌদ্ধ বিহারের বিহার অধ্যক্ষ, বিহার পরিচালনা কমিটি এবং প্রত্যেক থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাগণের সমন্বয়ে সার্বিক নিরাপত্তা সংক্রান্ত বিস্তারিত আলোচনার মাধ্যমে সঠিক পদক্ষেপ গ্রহণ করার জন্য দিক নির্দেশনা প্রদান করেন এবং প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিরাপত্তা সংক্রান্ত যা যা করণীয় সব বিষয়ে প্রস্তুতি গ্রহণ করার জন্য ইতিমধ্যেই নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে। জেলা পর্যায়ের সকল বৌদ্ধ ধর্মালম্বীদের নিরাপত্তা সংক্রান্ত যোগাযোগ রক্ষা করার জন্য ডিআইজি কন্ট্রোলরুম নং চট্টগ্রাম রেঞ্জ-০১৭৬৯-৬৯১১৫৯, জেলা কন্ট্রোলরুম নং-০১৭৬৯-৬৯৪৫২৭ এই নম্বরগুলোতে যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ করা জানানো হয়েছে। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
চট্টগ্রামের বাকলিয়ায় গৃহবধূ হত্যার ঘটনায় তিন আসামি রিমান্ডে
১৩মে,সোমবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রামের বাকলিয়ায় বাসায় ঢুকে এক নারীকে গুলি করে হত্যার ঘটনায় তিনজনকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দিয়েছে আদালত। মহানগর হাকিম আল ইমরান সোমবার প্রত্যেকের জন্য তিন দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন জানিয়ে বাকলিয়া থানার ওসি নেজাম উদ্দিন বলেন, গ্রেপ্তার নূরনবী, মুছা ও আহমদ কবিরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১০ দিন করে রিমান্ড চাওয়া হয়েছিল। শুনানি শেষে আদালত তিন দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছে। এছাড়া ওই ঘটনায় গ্রেপ্তার নূর আলম স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিতে রাজি হওয়ায় তাকে আদালতে নেওয়া হয়েছে বলে জানান ওসি। উল্লেখ্য,গত শনিবার রাত ১০টার দিকে বজ্রঘোনা এলাকায় ভাইকে বাঁচাতে গিয়ে গুলিতে বুবলী আক্তার (২৭) নামে এক নারীর মৃত্যু ঘটনায় অভিযুক্ত শাহ আলম পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন। হত্যার ঘটনায় শনিবার রাতেই বুবলীর বাবা নোয়া মিয়া বাদী হয়ে শাহ আলম, তার ভাই নূর আলম (২৫), নবী হোসেন (৬০), মো. জাবেদ (২৪), মো. মুছা (৪০), আহমদ কবিরসহ (৪২) ছয়জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও চার-পাঁচজনকে আসামি করে বাকলিয়া থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। তাদের মধ্যে হত্যাকাণ্ডের প্রধান আসামি শাহ আলম ওই রাতেই পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন। শাহ আলমের ছোট ভাই নূর আলম ও তাদের সহযোগী নবী হোসেনকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে।
মা ও শিশু হাসপাতালে আন্তর্জাতিক নার্সেস দিবস উদযাপন
১৩মে,সোমবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতাল নার্সিং ইনস্টিটিউট/ কলেজের উদ্যোগে আন্তর্জাতিক নার্সেস দিবস ২০১৯ উপলক্ষে গতকাল রোববার এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতাল নার্সিং ইনস্টিটিউট/কলেজের প্রিন্সিপাল ঝিনু রানী দাসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন হাসপাতালের কার্যনির্বাহী কমিটির জেনারেল সেক্রেটারী (ভারপ্রাপ্ত) ও নার্সিং সাব কমিটির মেম্বার সেক্রেটারী ডাঃ মোঃ আরিফুল আমিন। বক্তব্য রাখেন কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ও নার্সিং সাব-কমিটির কো-চেয়ারম্যান রেখা আলম চৌধুরী, মোঃ জাহিদুল হাসান, হাসপাতালের পরিচালক (মেডিক্যাল এ্যাফেয়ার্স) প্রফেসর ডাঃ আবদুল ওয়াহিদ আল মামুন, হাসপাতালের পরিচালক (প্রশাসন) ডাঃ মোঃ নুরুল হক, সহকারী পরিচালক (মেডিক্যাল এ্যাফেয়ার্স) ডাঃ ফাহিম হাসান রেজা, সহকারী পরিচালক (নার্সিং) ডাঃ কামাল হোসেন জুয়েল, ভাইস প্রিন্সিপাল স্মৃতি রানী ঘোষ, সহকারী নার্সিং সুপারিনটেনডেন্ট প্রভা চক্রবর্তী। প্রধান অতিথি বলেন,নার্সিং একটি মহান পেশা। নার্সিং এর জনক ফ্লোরেন্স নাইটিঙ্গেল এর আদর্শ অনুসরণ করতে হবে। অসহায় রোগীদের প্রতি আন্তরিক সেবা, হাসি ও ভাল ব্যবহার করার জন্য তিনি নার্সদের প্রতি অনুরোধ জানান। অনুষ্ঠানে নার্সিং ইনস্টিটিউট ও নার্সিং কলেজের শিক্ষক/শিক্ষিকা, ডাক্তার, নার্স ও ছাত্র-ছাত্রীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন হাসপাতাল নার্সিং ইনস্টিটিউট/কলেজের নার্সিং ইন্সট্রাকটর আয়েশা সিদ্দিকা। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
সম্পর্ক তৈরিতে আগ্রহী ফ্রান্সের মন্টিপেলিয়ের
১৩মে,সোমবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটির (ইডিইউ) স্থায়ী ক্যাম্পাসের স্থাপত্যশৈলী দেখে মুগ্ধ হয়েছেন ফ্রান্সের মন্টিপেলিয়ের বিজনেস স্কুল এর ডেপুটি ডিরেক্টর অব ইন্টারন্যাশনাল অ্যাডমিশনস অ্যান্ড ট্যালেন্ট সিলেকশন ডিপার্টমেন্ট গেইলে এঞ্জালরিক। সম্প্রতি তিনি পূর্ব নাসিরাবাদস্থ ইডিইউ ক্যাম্পাস পরিদর্শনে আসেন। তাকে বরণ করে নেন ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটির উপাচার্য অধ্যাপক মু. সিকান্দার খান। এসময় তিনি একটি সেমিনারে অংশ নেন। ফ্রান্সের অন্যতম প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী মন্টিপেলিয়ের শহরে অবস্থিত এই বিশেষায়িত বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটির সম্পর্ক তৈরির লক্ষ্যে তার এই আগমন বলে তিনি জানিয়েছেন। তিনি বলেন, মন্টিপেলিয়ের বিজনেস স্কুল আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে নতুন চিন্তা ও জ্ঞানের প্রসার ঘটাতে চায়। এ লক্ষ্যে এগিয়ে চলা মন্টিপেলিয়ের বর্তমানে বিশ্বের মেধাবী মানুষদের মিলনক্ষেত্র হয়ে উঠছে। এই চলার পথে চট্টগ্রামের আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটিকেও পাশে পেতে চাই আমরা। স্টুডেন্ট এক্সচেঞ্জ প্রোগ্রামসহ আরো কীভাবে পারস্পরিক সহযোগিতা করা যেতে পারে, তা নিয়ে ইডিইউ কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনার মাধ্যমে তা নির্ধারণ করা হবে বলেও জানান তিনি। এঞ্জালরিক তার প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে জানান, মন্টিপেলিয়ের শহরের ব্যবসায়ী ও শিল্পপতিরা ১৮৯৭ সালে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠা করেন। ইউরোপের প্রাচীনতম এই বিজনেস স্কুলে স্নাতক, স্নাতকোত্তর ও অ্যাক্সিকিউটিভ এমবিএ প্রোগ্রাম চলমান আছে। ইডিইউর উপাচার্য অধ্যাপক সিকান্দার বলেন, জ্ঞানের উৎকর্ষ সাধন হয় জ্ঞানের বিনিময়ে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে জ্ঞানের পারস্পরিক বিনিময় দু’পক্ষকেই লাভবান করে। তাই ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটির সাথে সম্পর্ক তৈরিতে মন্টিপেলিয়ের বিজনেস স্কুলের যে আগ্রহ, তা খুবই ইতিবাচক। ইডিইউর প্রতিষ্ঠাতা ভাইস চেয়ারম্যান সাঈদ আল নোমান বলেন, উদ্যোক্তা তৈরির যে লক্ষ্য নিয়ে মন্টিপেলিয়ের বিজনেস স্কুল কাজ করছে, একই লক্ষ্য ইস্ট ডেল্টারও। দু’পক্ষ সম্মিলিতভাবে কাজ করলে তা ভবিষ্যতে বাণিজ্যিক বিশ্বে গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব রাখবে। এছাড়া, চট্টগ্রামের শিক্ষার্থীদের বিশ্বমানে গড়ে তুলতে ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটি যে গ্লোবাল এক্সপেরিয়েন্স দিচ্ছে, তাতে মন্টিপেলিয়ের বিজনেস স্কুলের সাথে যৌথ কার্যক্রম এক নতুন সংযোজন হবে। যা চট্টগ্রামবাসীর জন্যও অনন্য সুযোগ সৃষ্টি করবে বলে মন্তব্য করেন তিনি। এতে আরো উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক সামস উদ-দোহা, রেজিস্ট্রার সজল কান্তি বড়য়া, স্কুল অব লিবারেল আর্টসের অ্যাসোসিয়েট ডিন মুহাম্মদ শহিদুল ইসলাম চৌধুরী, স্কুল অব বিজনেসের অ্যাসোসিয়েট ডিন ড. মোহাম্মদ রকিবুল কবির, প্রক্টর অনন্যা নন্দী প্রমুখ। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
পাহাড়তলী থানা পুলিশের ব্যতিত্রুমী প্রচারণা
১২মে,নিজেস্ব প্রতিবেদক,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: সাম্প্রতিককালে যানবাহনে নারী যাত্রীদের সাথে অশালীন আচরণ সহ ধর্ষণের মতো ঘটনা বৃদ্ধি পেয়েছে। দূর পাল্লা আর স্বল্প দূরত্বের গাড়ীর ড্রাইভার, হেলপার, কনডাক্টর, নারী ও পুরুষ যাত্রীদের মধ্যে এই অপরাধের বিরুদ্ধে সচেতনতা বৃদ্ধি করার উদ্দেশ্যে অফিসার ইনচার্জ জনাব মোঃ মঈনুর রহমান স্যার অফিসার ফোর্সদেরকে নিয়া থানার এলাকার বিভিন্ন জায়গায় প্রচারণা চালান। উক্ত প্রচারনা চালানোর সময় মালিক সমিতি ও শ্রমিক ইউনিয়নের সর্বস্তরের লোকজন বিভিন্ন ভাবে সহযোগিতা করেন।গাড়িতে নারীযাত্রীদের উপর যৌন হয়রানি ও হত্যার মত জঘন্য ঘটনার প্রতিবাদ এবং জনসচেতনতার লক্ষে চট্টগ্রাম নগরীর পাহাড়তলী থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মঈনুর রহমানের নেতৃত্বে আজ ১২ ই মে পাহাড়তলী থানাধীন অলংকার মোড়ে বিভিন্ন গাড়িতে যাত্রী ও গাড়ির ড্রাইভার,হেলপার,সুপারভাইজার সহ সকলের মধ্যে জনসচেতনা মূলক প্রচার পত্র বিলি করেন। প্রচারপত্রে লেখা ছিল সম্মানিত যাত্রীগণ: আপনারা নারী সহযাত্রীদের সাথে ভালো ব্যবহার করুন। গাড়ীর ড্রাইভার,হেলপার ও কনডাকটর ভাই: নারী যাত্রীদের সাথে অশালীন আচরন করবেন না। প্রচারে: অফিসার ইনর্চাজ,পাহাড়তলী থানা, সিএমপি, চট্টগ্রাম।
রাজধানীর রাসেল হত্যাকাণ্ডে জড়িত দুই অভিযুক্তকে চট্টগ্রাম থেকে গ্রেফতার
১২মে,রবিবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম:রাজধানীর কদমতলী এলাকায় রাসেল হত্যাকাণ্ডে জড়িত আরো দুই অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) ঢাকা মেট্রো-উত্তর। গ্রেফতারকৃতদের নাম- জহিরুল হক ওরফে সানু (২৮) ও পিংকি আক্তার (২৫)।১১ মে, ২০১৯ রাত ১২.২০ টায় সিএমপি চট্টগ্রাম এর ইপিজেড থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেফতার করে পিবিআই ঢাকা মেট্রো (উত্তর) এর একটি বিশেষ টিম।উল্লেখ্য, রাসেলের গ্রামের বাড়ি খুলনার রূপসা থানা এলাকায়। চাকরির সন্ধানে ঢাকায় এসে গত ১০ অক্টোবর, ২০১৫ রাত আনুমানিক ১১ টার দিকে কদমতলী থানাধীন বড়ইতলা মোড়ে দুর্বৃত্তদের ছুরিকাঘাতে খুন হন। উক্ত ঘটনায় ভিকটিমের মা রাশিলা বেগম গত ১৩ অক্টোবর, ২০১৫ কদমতলী থানায় একটি মামলা রুজু করেন।মামলাটি প্রথমে তদন্ত করে কদমতলী থানা পুলিশ। পরবর্তী সময়ে বিজ্ঞ আদালতের আদেশে পিবিআই মামলাটির তদন্তভার গ্রহণ করে। মামলাটি তদন্তকালে হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে সজল ওরফে পিচ্চি সজল, মোঃ হোসেন বাবু ওরফে হুন্ডা বাবু ও সজল এই তিনজনকে গ্রেফতার করে পিবিআই। গ্রেফতারকৃত এই ৩ জন হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে বিজ্ঞ আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করে। জবানবন্দিতে তারা উক্ত হত্যাকাণ্ডে পিংকি ও তার স্বামী জহিরুল হক ওরফে সানুর জড়িত থাকার কথা প্রকাশ করে।তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে গতকাল (১১ মে, ২০১৯) চট্টগ্রামের মেট্রোপলিটন পুলিশর ইপিজেড থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে জহিরুল হক ওরফে সানু ও পিংকি আক্তারকে গ্রেফতার করে পুলিশ।গ্রেফতারকৃত পিংকি ও তার স্বামী জহিরুলের বিরুদ্ধে কদমতলী থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। হত্যাকাণ্ডে জড়িত অন্যান্য সহযোগীদের গ্রেফতার অভিযান অব্যাহত আছে।ডিএমপি নিউজ ।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর