বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৯
মুক্তির আন্দোলনে আবৃত্তিশিল্পীরাও ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন
০৬আগস্ট,মঙ্গলবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিবেদিত দুইদিনব্যাপী মুক্তিযুদ্ধের আবৃত্তি উৎসব গতকাল সোমবার শেষ হলো কবিতা ও সুধীজনের কথায় বঙ্গবন্ধুকে স্মরণের মধ্য দিয়ে। এবারের অনুষ্ঠানের আয়োজক সম্মিলিত আবৃত্তি জোট ও সম্মিলিত আবৃত্তি পরিষদ চট্টগ্রাম। উৎসবের সমাপনী শুরু কথামালা পর্বের মাধ্যমে। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন গবেষক ও ভাষাবিজ্ঞানী ড. মাহবুবুল হক। আমন্ত্রিত অতিথি ছিলেন পেশাজীবী সমন্বয় পরিষদের সভাপতি ডা. এ কিউ এম সিরাজুল ইসলাম, নাট্যজন ও সাংবাদিক প্রদীপ দেওয়ানজী, আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদ সভাপতিমন্ডলীর সদস্য (সিলেট অঞ্চল) মোকাদ্দেস বাবুল, নৃত্যশিল্পী সংস্থা, চট্টগ্রামের সভাপতি শারমিন হোসেন, গ্রুপ থিয়েটার ফোরাম সভাপতি খালেদ হেলাল এবং নাট্যজন সুচরিত দাশ খোকন। সভাপতিত্ব করেন সম্মিলিত আবৃত্তি জোটের সভাপতি আবৃত্তিশিল্পী হাসান জাহাঙ্গীর। স্বাগত বক্তব্য দেন, সম্মিলিত আবৃত্তি পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান মাহফুজ, জোটের যুগ্ম সম্পাদক দেবাশীষ রুদ্র। এ পর্বের সঞ্চালনায় ছিলেন সেলিম রেজা সাগর ও মেজবাহ চৌধুরী। প্রধান অতিথি ড. মাহবুবুল হক বলেন, বঙ্গবন্ধুর ডাকে উদ্বুদ্ধ হয়ে ১৯৭১ এ সবাই মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল। আমরা তখন রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলাম। সেই সময় আবৃত্তিশিল্পীরা এই সাংস্কৃতিক সংগ্রামের মাধ্যমে মুক্তির আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল। কথামালার পর আমন্ত্রিত আবৃত্তিশিল্পীদের পরিবেশনায় ছিলেন নাট্যজন সনজীব বড়ুয়া, আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক আহসান উল্লাহ তমাল, সিলেট অঞ্চলের সাংগঠনিক সম্পাদক মনির হোসেন, কুমিল্লা অঞ্চলের সাংগঠনিক সম্পাদক এমদাদ হোসেন কৈশোর, রাজশাহী অঞ্চলের সাংগঠনিক সম্পাদক শরীফ বিল্টু, এবং উঠোন সাংস্কৃতিক চর্চা কেন্দ্রের সভাপতি আয়েশা হক শিমু। এছাড়াও কবির কণ্ঠে কবিতা পাঠ করেন খালিদ আহসান, অভিক ওসমান, আশীষ সেন, ইউসুফ মুহম্মদ, উৎপল কান্তি বড়ুয়া, অরুণ শীল ও মনিরুল মনির। এ পর্বের সঞ্চালনায় ছিলেন জোটের প্রশিক্ষণ সম্পাদক গৌতম চৌধুরী, মুহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন ও মোহাম্মদ সেলিম ভূঁইয়া। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
গণমাধ্যমের স্বাধীনতার ওপর গুরুত্বারোপ
০৬আগস্ট,মঙ্গলবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: পোর্ট সিটি ইন্টারন্যাশনাল ইউনির্ভাসিটির সাংবাদিকতা ও গণমাধ্যম অধ্যয়ন বিভাগের উদ্যোগে গতকাল সোমবার মুক্ত গণমাধ্যম তত্ত্ব ও জনবান্ধব উন্নয়ন সাংবাদিকতা বিষয়ক লেকচার সেশন বিশ্ববিদ্যালয়ের মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়েছে। এশিয়ান মিডিয়া ইনফরমেশন অ্যান্ড কমিউনিকেশন সেন্টার (এমিক), সিংগাপুরের গবেষণা শাখার প্রাক্তন প্রধান ও থাইল্যান্ডের চুলালংকন বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক ড. কালিঙ্গা সেনেভিরত্নে মূল আলোচক হিসেবে মুক্ত গণমাধ্যম তত্ত্ব ও জনবান্ধব উন্নয়ন সাংবাদিকতা বিষয়ে আলোচনা করেন। আলোচনায় তিনি জনবান্ধব উন্নয়ন সাংবাদিকতা চর্চায় গণমাধ্যমের স্বাধীনতার উপর গুরুত্বারোপ করেছেন। ড. কালিঙ্গা আরো বলেন, গণমাধ্যমকে রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভ বলা হয় যদিও বর্তমান গণমাধ্যম এই দিক থেকে অনেকটুকু বিচ্যুত। একটি দেশের উন্নয়ন তখনই শীর্ষে থাকে যখন দেশের গণমাধ্যম মুক্ত থাকে। বিভাগের সভাপতি দিলরুবা আক্তারের সভাপতিত্বে এবং প্রভাষক প্রশান্ত কুমার শীলের সঞ্চালনায় লেকচার সেশনে প্রধান অতিথি ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. নূরল আনোয়ার, বিশেষ অতিথি ছিলেন চবি শিক্ষক ও পোর্ট সিটি ইন্টারন্যাশনাল ইউনির্ভাসিটির সাংবাদিকতা ও গণমাধ্যম অধ্যয়ন বিভাগের সমন্বয়ক অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ সহিদ উলাহ, বিজ্ঞান ও প্রকৌশল অনুষদের ডিন অধ্যাপক ইঞ্জিনিয়ার মফ্;জল আহমদ, কলা, আইন ও সমাজ বিজ্ঞান অনুষদের ডিন মোহাম্মদ ইউনুস, বিভাগের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীবৃন্দ। বিশেষ অতিথি অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ সহিদ উলাহ ও সাংবাদিকতা বিভাগের প্রাক্তন সভাপতি জুয়েল দাশ উন্নয়ন সাংবাদিকতার প্রয়োজনীয়তা বিষয়ে স্ব স্ব বক্তব্যে আলোচনা করেছেন। পরে ড. কালিঙ্গা ছাত্র-ছাত্রীদের সাথে একটি উন্মুক্ত আলোচনায় অংশ নেন। শিক্ষার্থীরা এতে সমসাময়িক সময়ে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও নিরপেক্ষতার বিষয় সম্পর্কে জানতে চান। বিভাগের সভাপতি দিলরুবা আক্তার ধন্যবাদ জ্ঞাপনের মাধ্যমে সেশনের সমাপ্তি ঘোষণা করেন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
চট্টগ্রামে ডেঙ্গু এখন নিয়ন্ত্রিত : জেলা প্রশাসক
০৬আগস্ট,মঙ্গলবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: ডেঙ্গু এখন নিয়ন্ত্রিত। নির্মূল করতে না পারলেও নিয়ন্ত্রণে এসেছে। আমরা যদি ঘর-বাড়ি, স্কুল কলেজ, অফিস ও নিজের আঙ্গিনা পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখি এডিস মশা বংশ বিস্তার করতে না পারে, আমরা শীঘ্রই চট্টগ্রামকে ডেঙ্গুরোগ মুক্ত রাখতে সক্ষম হব। গতকাল সোমবার সকালে চট্টগ্রাম ফায়ার সার্ভিস স্টেশনে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন ও ফায়ার সার্ভিসের উদ্যোগে ডেঙ্গু প্রতিরোধে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযানে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন একথা বলেন। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় ডেঙ্গু সচেতণা প্রোগ্রাম চলছে। জেলা প্রশাসন পুলিশসহ সরকারের বিভিন্ন বিভাগ পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযানের পাশাপাশি সচেতনামূলক প্রোগ্রামগুলি হাতে নিয়েছে। জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন আরো বলেন, ঈদুল আজহা উপলক্ষে দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে চট্টগ্রামে লোক আসছে। লোহাগাড়ায় সনাক্ত হওয়া একজন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র। জ্বর নিয়ে চট্টগ্রামে এসেছেন। এখানে গতকাল পর্যন্ত ২৩৩ জন ডেঙ্গু রোগী ছিল। প্রতিদিন গড়ে ৬/৭ জন রোগী বাড়ছে। আসুন সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে নিজের আঙ্গিনা আশপাশ পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করে ডেঙ্গু প্রতিরোধে ভূমিকা রাখি। পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযানে অংশ গ্রহণ করেন ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা। এতে উপস্থিত ছিলেন, পুলিশ সুপার নুরে আলম মিনা, ফায়ার সার্ভিস উপ-পরিচালক মোহাম্মদ আবদুল মান্নান, সহকারী পরিচালক মো. জসিম উদ্দীন (পিএফএস)সহ কর্মকতারা। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
সচেতনতার মাধ্যমে ডেঙ্গু মোকাবেলা করা হবে:চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার
০১আগস্ট,বৃহস্পতিবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম:চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার বলেছেন, ডেঙ্গু নিয়ে উদ্বিগ্ন হওয়ার কোন কোন কারণ নেই। কিন্তু ডেঙ্গু রোগের প্রাদুর্ভাব নিয়ে কিছু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও এক শ্রেণীর অসাধুচক্র গুজব ছড়াচ্ছে। ডেঙ্গু নিয়ে কোন ধরনের গুজবে কান না দেয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, চট্টগ্রাম বিভাগের চেয়ে অন্যান্য জেলায় ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বেশি। সরকার দেশের সরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলোতে ডেঙ্গু রোগীদের জন্য ফ্রি চিকিৎসা, ডেঙ্গু সনাক্ত করণে সব ধরনের পরীক্ষা-নিরীক্ষার ব্যবস্থা করেছে। বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে ও ডেঙ্গু চিকিৎসার ফি কত টাকা নিবে তা নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। একজন ডেঙ্গু রোগীর জন্য তাৎক্ষনিক কি করণীয় তার ব্যবস্থা সকল হাসপাতালে আছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এ ব্যাপারে অত্যন্ত সর্তক রয়েছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন সকল কর্মচারীর ছুটি বাতিল করা হয়েছে। যেসব হাসপাতালে এখনো পর্যন্ত ডেঙ্গুর চিকিৎসা সামগ্রী সংকট রয়েছে সেখানে কয়েকদিনের মধ্যে সরবরাহের ব্যবস্থা করছে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়। আশা করি ৮/১০ দিনের মধ্যেই ডেঙ্গু নিয়ন্ত্রণে আসবে। সকলে মিলে জনসচেতনতার মাধ্যমে ডেঙ্গু মোকাবেলা করতে হবে।গতকাল সকাল ১০ টায় নগরীর পিটিআই প্রাঙ্গণে আয়োজিত সপ্তাহব্যাপী মশক নিধন, ডেঙ্গু প্রতিরোধ, পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান ও জনসচেতনতামূলক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। বিভাগীয় প্রশাসন ও প্রাথমিক শিক্ষা, চট্টগ্রাম বিভাগ এ কর্মসূচির আয়োজন করেন।তিনি বলেন, এডিস মশা থেকে রক্ষায় ঘর ও আশপাশের যেকোন পাত্রে বা জায়গায় জমে থাকা পানি নিয়মিত পরিস্কার করতে হবে। ডেঙ্গু থেকে রক্ষা পেতে হলে বাড়ি-ঘরের আশপাশ সবসময় পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। পিটিআই-তে এ আয়োজনের উদ্দেশ্য হচ্ছে শিক্ষকদের অনেক দায়-দায়িত্ব আছে। এখানে যারা প্রশিক্ষণরত তারা সকলেই স্কুলের শিক্ষক। শিক্ষকরা তাদের নিজ নিজ বিদ্যালয়ে ছাত্র ও অভিভাবকদের ডেঙ্গু রোধ ও পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা সম্পর্কে সচেতন করতে পারবেন। প্রাথমিক শিক্ষা চট্টগ্রাম বিভাগের উপ-পরিচালক মো. সুলতান মিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মশক নিধন অনুষ্ঠানে অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (সার্বিক) শংকর রঞ্জন সাহা, বিভাগীয় পরিচালক (স্থানীয় সরকার) দীপক চক্রবর্তী, অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (রাজস্ব) মো. হাবিবুর রহমান, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের সচিব আবু শাহেদ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মো. আবু হাসান সিদ্দিক, প্রাথমিক শিক্ষা চট্টগ্রাম বিভাগের সহকারী পরিচালক রাশেদা বেগম, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার নাসরিন সুলতানা, পিটিআই সুপার কামরুন নাহার, প্রাথমিক শিক্ষা চট্টগ্রাম বিভাগীয় কার্যালয়ের শিক্ষা অফিসার তাপস কুমার পাল, মামুন কবির, সহকারী জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার হৃষিকেশ শীল, জহির উদ্দিন চৌধুরী, পিটিআইর সহকারী সুপার রওশন আক্তার জাহান, চসিকর পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা হাসান রশিদ, বিভাগীয়-জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, সাংবাদিক, থানা প্রাথমিক অফিসার, সহকারী থানা প্রাথমিক অফিসার, পিটিআইর প্রশিক্ষণার্থী ও বিভিন্ন স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
ডেঙ্গু প্রতিকার ও প্রতিরোধে করণীয়- শীর্ষক সেমিনার
০১আগস্ট,বৃহস্পতিবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: ডা. জাকির হোসেন সিটি কর্পোরেশন হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের উদ্যোগে কলেজ মিলনায়তনে সম্প্রতি ডেঙ্গু রোগের প্রতিরোধ ও প্রতিকার শীর্ষক এক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। অধ্যক্ষ ডা. মো. নুরুল আমিনের সভাপতিত্বে ও সহকারী অধ্যাপক ডা. অঞ্জন দত্তের সঞ্চালনায় উক্ত সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ৩৩নং ফিরিঙ্গী বাজার ওয়ার্ড কাউন্সিলর আলহাজ হাসান মুরাদ বিপ্লব। বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ৩৩, ৩৪ ও ৩৫নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর লুৎফুন্নেছা দোভাষ বেবী, বক্তব্য রাখেন সহকারী অধ্যাপক ডা. এস.এইচ.আর রেজাউল করিম, উপস্থিত ছিলেন প্রভাষক ডাঃ কামাল হোসেন, প্রভাষক ডা. কাউসার জালাল হামিদ, প্রভাষক ডা. শরীফ জামান শরীফ, প্রভাষক ডা. জালাল উদ্দিন। আরো উপস্থিত ছিলেন সহযোগী অধ্যাপক ডা. আর ইউসুফ ভুইয়া, প্রভাষক ডা. দীপাদের, প্রভাষক ডা. অশ্রকলা চৌধুরী, প্রভাষক জুলফিকার হায়দার, মেডিকেল অফিসার, ডা. খোরশেদুল আলম চৌধুরী, ডা. খুরশীদা আক্তার, ডা. বিকাশ চন্দ্র বণিক। প্রধান অতিথি কাউন্সিলর হাসান মুরাদ বিপ্লব বলেন, ডেঙ্গু প্রতিরোধে জনসচেতনতা বৃদ্ধি ও উদ্ভুদ্ধ করণের জন্য প্রতিটি ঘরে ঘরে গিয়ে ডেঙ্গুরোগের প্রতিকার সম্পর্কে অবহিত করলে এবং জনসচেতনতা বৃদ্ধি পেলে ডেঙ্গু রোগ অনেকটা প্রতিরোধ করা সম্ভব বলে মত প্রকাশ করেন। বিজ্ঞপ্তি
পতেঙ্গা সৈকত এলাকায় দোকানের আড়ালে মদের ব্যবসা,আটক ২
৩১জুলাই২০১৯,বুধবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: নগরের পতেঙ্গা সৈকত এলাকায় অভিযান চালিয়ে বিদেশি মদ ও বিয়ারসহ দুইজনকে আটক করেছে Rapid Action Battalion (Rab)। বুধবার (৩১ জুলাই) ভোররাতে তাদের আটক করা হয় বলে জানান Rab-7 এর মিডিয়া অফিসার সহকারী পুলিশ সুপার মো. মাশকুর রহমান। আটক হওয়া দুইজন হলো-মো. করিম (৪৬) ও মো. সাইমুন (২০)। এদের মধ্যে করিম সৈকতে দোকান পরিচালনার আড়ালে অবৈধ মদের ব্যবসা করতো বলে জানিয়েছে Rab। তাদের কাছ থেকে ৬৫ বোতল বিদেশি মদ ও ১৬৮ ক্যান বিয়ার উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানান মো. মাশকুর রহমান। অভিযান পরিচালনাকারী Rab-7 এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সোহেল মাহমুদ বলেন, সৈকত এলাকায় অভিযান চালিয়ে বিদেশি মদ ও বিয়ারসহ দুইজনকে আটক করা হয়েছে। করিম দোকান পরিচালনার আড়ালে মাদকের ব্যবসা করতো।
চট্টগ্রাম নগরীর পাঠানটুলী ওয়ার্ডে স্কুল শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের অভিযোগ
৩১জুলাই২০১৯,বুধবার,স্টাফ রিপোর্টার,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের ২৩ নং পাঠানটুলী ওয়ার্ডের একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৭ বছরের শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। পাঠানটুলী খান সাহেব আবদুল হাকিম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দারোয়ান দীলিপ (৪২) ঘটনাটি ঘটিয়েছে এমন অভিযোগে বুধবার (৩১ জুলাই) সকাল থেকে বিদ্যালয় ঘিরে রেখে বিক্ষোভ করছে এলাকাবাসী। খবর পেয়ে বেলা ১২টার সময় ডবলমুরিং থানার এসআই জহিরের নেতৃত্বে পুলিশের একটি টিম ঘটনাস্থলে যায়। তবে এর আগে অভিযুক্ত দারোয়ান দীলিপ কুমার পালিয়ে যাওয়ায় তাকে আটক করা সম্ভব হয়নি। শিশুটিকে হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে জানিয়ে ডবলমুরিং থানার ওসি সদিপ কুমার দাশ বলেন, ঘটনার তদন্ত চলছে এবং অভিযুক্ত দারোয়ান দিলীপকে আটকের চেষ্টা চলছে।
আইনের শাসন ছাড়া সমাজ সুন্দরভাবে চলতে পারে না
৩১জুলাই২০১৯,বুধবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির উদ্যোগে চট্টগ্রাম আদালতে কর্মরত নবাগত আইনজীবীদের ২দিন ব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মশালার ১ম দিনে গতকাল মঙ্গলবার সমিতির সভাপতি এএসএম বদরুল আনোয়ারের সভাপতিত্বে উদ্বোধন করেন চট্টগ্রামের মহানগর দায়রা জজ মো. আকবর হোসেন মৃধা। স্বাগত বক্তব্য দেন, সমিতির সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আইয়ুব খান। বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রামের চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ ওসমান গণি, বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের সদস্য মুহাম্মদ দেলোয়ার হোসেন চৌধুরী। সঞ্চালনায় ছিলেন সমিতির সহসাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ রাশেদ ফারুকী। কর্মশালায় নবীনদের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে প্রশিক্ষণ প্রদান করেন ১ম আদালতের যুগ্ম জেলা দায়রা জজ মো. জসিম উদ্দিন, মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আবু সালেম মো. নোমান, সমিতির সাবেক সভাপতি মো. কফিল উদ্দিন চৌধুরী, শেখ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, সাবেক সাধারণ সম্পাদক নাজমুল আহসান খান আলমগীর। এছাড়া আরোও উপস্থিত ছিলেন কার্যনির্বাহী পরিষদের সমিতির সিনিয়র সহসভাপতি মো. ইছহাক, সহসভাপতি মোহাম্মদ রফিকুল আলম, অর্থ সম্পাদক রফিকুল আলম, পাঠাগার সম্পাদক ভাস্কর রায় চৌধুরী, সাংস্কৃতিক ও ক্রীড়া সম্পাদক জেবুন নাহার লীনা, তথ্য ও প্রযুক্তি সম্পাদক মোহাম্মদ হাসান মুরাদ, নির্বাহী সদস্য যথাক্রমে মো. আলী ইয়াছিন, মো. জাহিদুল ইসলাম চৌধুরী, পাইরিন আকতার, মো. আরিফ উদ্দীন চৌধুরী, মোহাম্মদ আফজাল হোসাইন, মো. নাছির উদ্দীন রুবেল, আবদুল জব্বার, মো. রিয়াদ উদ্দীনসহ সহ প্রায় ৮০০জন নবীন আইনজীবী। স্বাগত বক্তব্যে সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আইয়ুব খান বলেন, আজকের প্রশিক্ষণার্থী সকল নবীনদের সিনিয়রদের সকল কর্মকাণ্ড অনুসরণ ও অনুকরণ করতে হবে। কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে নিজেকে একজন আইনজীবী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে হবে। আইনজীবীদের জীবনে কোন হতাশা নাই আছে অবারিত স্বপ্নীল সুন্দর জীবন। এ পেশায় কল্যাণমূলক কর্মকাণ্ড করার অনেক সুযোগ রয়েছে। আমাদেরকে সেই পথ ধরেই বিচারপ্রার্থী জনগোষ্ঠীর সেবায় প্রস্তুতি গ্রহণ করতে হবে। প্রধান অতিথির বক্তব্য মহানগর দায়রা জজ মো. আকবর হোসেন মৃধা বলেন, নবীন আইনজীবীদের পদচারণায় আদালত অঙ্গন আজ মুখরিত আইন পেশা স্বাধীন ও মহৎ পেশা। সভ্যতার ক্রম বিকাশে বিচার কার্য শুরু হওয়ার লগ্ন থেকে আইনজীবীরা ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা ও অধিকার হারা মানুষের অধিকারকে আইনীভাবে নিশ্চিত করার জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে আসছেন। আইনের শাসন ছাড়া একটি সমাজ সুন্দরভাবে চলতে পারে না। আইনজীবীগণ সমাজে অঘোষিত অভিভাবক। তারাই সমাজে যুগ যুগ ধরে প্রতিনিধিত্ব করে আসছেন। সমাজ পরিবর্তনে এবং সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনে আইনজীবীদের ভূমিকা সর্বমহলে গ্রহণযোগ্য। তারাঁই ন্যায়বিচার ও আইনের শাসন বাস্তবায়নের হাল ধরবেন। কঠোর পরিশ্রমরে মধ্য দিয়ে আইনজীবী হিসেবে নিজেকে প্রারম্ভিক লগ্ন থেকে গড়ে তুলতে হবে। বিশেষ অতিথির বক্তব্য মুহাম্মদ দেলোয়ার হোসেন চৌধুরী বলেন, আইনজীবীরা সমাজের সচেতন অংশের প্রতিনিধিত্ব করেন। আমরা গর্বের সাথে বলতে পারি চট্টগ্রামের প্রতিটা আইনজীবী একজন সচেতন নাগরিক। মানবিক মূল্যবোধ ও মহত্ত্বের দিক থেকেও আমরা শ্রেষ্ঠ। বিশেষ অতিথির বক্তব্য চীফ মেট্টোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ ওসমান গণি বলেন, বেঞ্চ এবং বারের সুসর্ম্পকের মধ্য দিয়ে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠিত হয়। এর মধ্য কোন একটিতে ব্যত্যয় ঘটলে বিচার প্রার্থী জনগোষ্ঠী ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হয়। আমাদের সকলকে সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। সভাপতির বক্তব্য এ এসএম বদরুল আনোয়ার বলেন, বিচার বিভাগ পৃথকীকরণ এবং স্বাধীন বিচার ব্যবস্থা বাস্তবায়নে আইনজীবীরা অগ্রণী ভূমিকা রেখেছে। আজকের নবাগতরা আমাদের পূর্বসূরীদের বীরত্ব ও ঐতিহ্য সংরক্ষণের ধারক ও বাহক হবেন। এ প্রত্যাশা করে আপনাদের দিকে আমরা তাকিয়ে আছি। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
ইস্ট ডেল্টায় বিএ ইন ইংলিশ গ্র্যাজুয়েটদের পুনর্মিলনী
৩১জুলাই২০১৯,বুধবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: ইস্ট ডেল্টা ইউনিভার্সিটির (ইডিইউ) গ্র্যাজুয়েটরা বিশ্বঅঙ্গনে প্রতিনিধিত্ব করছে। দেশীয় গণ্ডি পেরিয়ে শিক্ষার্থীরা যাতে বর্তমান প্রতিযোগিতামূলক বিশ্বে নেতৃত্বে আসীন হতে পারে, তা নিশ্চিত করতে ইন্টারন্যাশনাল গ্লোবাল লিডারশিপ এক্সপেরিয়েন্স প্রোগ্রামের আওতায় তাদের বিদেশে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। বিএ ইন ইংলিশ গ্র্যাজুয়েটদের পুনর্মিলনীতে এ কথা বলেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ভাইস চেয়ারম্যান সাঈদ আল নোমান। গতকাল সোমবার সন্ধ্যা ৬টায় ইডিইউ ক্যাম্পাসের অ্যাম্ফিথিয়েটারে এ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠিত হয়। এতে উপাচার্য অধ্যাপক মু. সিকান্দার খান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় একাডেমিক স্বাধীনতা উপভোগের স্থান। জ্ঞান অর্জনের নানা শাখায় বিচরণের সুযোগ থাকে বিশ্ববিদ্যালয়ে, যা ইস্ট ডেল্টায় রয়েছে। বাংলাদেশে উচ্চশিক্ষাক্ষেত্রে মৌলিক ও উদ্ভাবনী নানা সুযোগ-সুবিধা এবং নতুন ধরনের পাঠ্যবিষয় যুক্ত করেছে ইডিইউ। বিশ্বের বিভিন্ন বড় ও নামী প্রতিষ্ঠানগুলো কীভাবে পরিচালিত হয়, সে অভিজ্ঞতা প্রত্যক্ষভাবে অর্জনের সুযোগ এনেছে ইস্ট ডেল্টা। ইন্টারন্যাশনাল গ্র্যাজুয়েট লিডারশিপ এক্সপেরিয়েন্স নামের এ প্রোগ্রামের অধীনে শিক্ষার্থীরা বিদেশে গিয়ে সেসব প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন এবং কর্মকর্তাদের সঙ্গে সেশনে উপস্থিত হওয়ার মাধ্যমে এ অভিজ্ঞতা নিতে পারছে। এ প্রোগ্রামের বিভিন্ন খুঁটিনাটি বিষয় পাওয়ার পয়েন্ট প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের সামনে তুলে ধরেন স্কুল অব লিবারেল আর্টস অ্যান্ড সোশ্যাল সায়েন্সের অ্যাসোসিয়েট ডিন মুহাম্মদ শহীদুল ইসলাম। তিনি শিক্ষার্থীদের মাঝে ইস্ট ডেল্টায় সম্প্রতি শুরু হওয়া এমএ ইন ইংলিশের বিভিন্ন দিকও তুলে ধরেন। এতে আরো বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের মহাপরিচালক সৈয়দ শফিকউদ্দীন আহমেদ, ট্রেজারার অধ্যাপক সামস-উদ-দোহা, রেজিস্ট্রার সজল কান্তি বড়ুয়া, প্ল্যানিং অ্যান্ড ডেভলপমেন্ট ডিরেক্টর শাফায়েত কবির চৌধুরী। আলোচনা পর্ব শেষে অনুষ্ঠিত হয় ইডিইউর বর্তমান ও বিএ ইন ইংলিশ গ্র্যাজুয়েটদের পরিবেশনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর