আকাশের পাশে স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী
১০ মে,শুক্রবার ,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম :স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মো: মুরাদ হাসান এমপি বিকেলে (১০ মে) চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পরিদর্শনকালে সন্ত্রাসী হামলায় আহত ফটিকছড়ির সাহসী সাংবাদিক এমএস আকাশকে দেখতে যান। এ সময় তিনি অথ্রোপেটিক্স বিভাগের ৭৯ নং ওয়ার্ডের চিকিৎসকদের কাছ থেকে আকাশের চিকিৎসার খোঁজ খবর নেন। দায়িত্বরত চিকিৎসক ডা. নজরুল ইসলাম তসলিম ও ডা. মো. ইকবাল হোসেন তাঁকে জানান, সাংবাদিক আকাশের বাম পায়ের দুটি হাড ভাঙ্গা। কিডনি ও হার্টে আরো সমস্যা দেখা দিয়েছে। এগুলো কেটে উঠলে পায়ের ওপারেশন হবে।এ সময় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের পরিচালক, চট্টগ্রামের সিভিল সার্জনসহ উর্ধতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
সাতকানিয়া আল্লামা ফজলুল্লাহ ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে নির্মিত মসজিদের উদ্বোধন
১০ মে,শুক্রবার ,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম :চট্টগ্রাম-১৫ সাতকানিয়া-লোহাগাড়া আসনের সাংসদ ও শীর্ষ স্থানীয় এনজিও সংস্থা আল্লামা ফজলুল্লাহ ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভী এমপি বলেন, পৃথিবীর সর্বাপেক্ষা উত্তম স্থান মসজিদ। মসজিদে নববীতে বসেই মহানবী (সাঃ) ইবাদত বন্দেগীর পাশাপাশি, জ্ঞানচর্চাসহ মদিনা সনদের ভিত্তিতে নবগঠিত মদিনা রাষ্ট্রের যাবতীয় কাজের আঞ্জাম দিয়েছিলেন। সুতরাং দ্বীনের মূল ভিত্তি পাঁচ ওয়াক্ত সালাত আদায়ের পাশাপাশি অন্যান্য কার্যাবলী সম্পাদনেও মসজিদের ভুমিকা প্রাসঙ্গিক ও অনস্বীকার্য। মসজিদের সাথে মুসলমানদের দৈনন্দিন জীবন ওৎপ্রোতভাবে জড়িত। এটি মুসলমানের মিলনমেলা, যেখানে তারা প্রতিদিন পাঁচবার মিলিত হয়ে রবের সাথে সম্পর্ক স্থাপনের পাশাপাশি তাদের পারস্পরিক খোঁজ-খবর রাখে এবং ভ্রাতৃত্বের বন্ধন গড়ে তোলে। ফলশ্রুতিতে তাদের পারস্পরিক সহযোগিতা ও ভালবাসার আবেশ ছড়িয়ে পড়ে সমাজে এবং গড়ে উঠে একটি সুশীল সমাজ। তিনি বলেন, ইমাম খতিবরা কোরআন হাদিসের আলোকে বিভিন্ন মাসআলা বর্ণনার পাশাপাশি সন্ত্রাস, নৈরাজ্য, জঙ্গিবাদ এবং মাদকাসক্তির কূফলের বিরুদ্ধে জোরালো ভূমিকা রাখলে সমাজ বহুলাংশে এগিয়ে যাবে।তিনি আজ ১০ মে ২০১৯ ইং শুক্রবার আল্লামা ফজলুল্লাহ ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে নির্মিত সাতকানিয়া উপজেলার দক্ষিণ কাঞ্চনা ফুলতলা বাজার জামে মসজিদ (মসজিদে আয়েশা আলী আব্দুল্লাহ আল নিরা রহঃ) এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত মুসল্লীদের উদ্দেশ্যে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথা গুলো বলেন।এ সময় অন্যান্যের মাঝে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ও মসজিদ পরিচালনা কমিটির সভাপতি জাফর আলম, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক নুরুল আবছার চৌধুরী, দাতা সংস্থার প্রতিনিধি মাওলানা মোহাম্মদ সানাউল্লাহ, মাওলানা মোহাম্মদ জাকরিয়া, কাঞ্চনা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মোখলেস উদ্দিন জাকের, কাঞ্চনা ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সালাম, সাতকানিয়া প্রেস ক্লাবের সভাপতি সৈয়দ মাহফুজুন্নবী খোকন, বিশিষ্ট সমাজ সেবক আনোয়ার হাবিব হেলাল, উপজেলা যুবলীগের সদস্য মিজানুর রহমান মারুফ, মসজিদ কমিটির সেক্রেটারি নুরুল আবছার, দাতা সদস্য জসিম উদ্দিন, মোহাম্মদ বাবুল, আওয়ামীলীগ নেতা মোহাম্মদ আলম, মাননীয় সাংসদের সহকারী একান্ত সচিব সাহাদত হোসাইন শাহেদ, যুবলীগ নেতা দেলোয়ার হোসেন বেলাল, ছাত্রলীগ নেতা মোহাম্মদ ইদ্রিস, ইউপি সদস্য আব্দুল মান্নান, শহীদুল ইসলাম প্রমুখ।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
চট্টগ্রাম মহানগর উত্তর ইসলামী ফ্রন্টের ইফতার মাহফিল
১০ মে,শুক্রবার ,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম : বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট চট্টগ্রাম মহানগর উত্তর সভাপতি আলহাজ্ব মুহাম্মদ নঈমুল ইসলাম ৪ রমযান ১০ মে চট্টগ্রামের মুরাদপুরস্থ একটি অভিজাত রেস্তোরায় সাংগঠনিক নেতৃবৃন্দ ও পেশাজীবীদের সম্মানে ইফতার মাহফিলের আয়োজন করেন। ইফতারে মাহফিলে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট চট্টগ্রাম বিভাগীয় সাংগঠনিক সচিব কাজী মাওলানা মুহাম্মদ সোলাইমান চৌধুরী। বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ সচিব অধ্যক্ষ আল্লামা তৈয়ব আলী, মাওলানা রেজাউল করিম তালুকদার, অধ্যক্ষ আবু তালেব বেলাল, নূর হোসেন, মুহাম্মদ আবদুর রহিম, ইঞ্জিনিয়ার সৈয়দ মুহাম্মদ আবু আজম। বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনা চট্টগ্রাম মহানগর উত্তরের সাবেক সভাপতি ছাত্রনেতা মুহাম্মদ মাছুমুর রশিদ এবং সাবেক সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ মিজানুর রহমানের যৌথ সঞ্চালনায় ইফতার মাহফিলে বক্তারা বলেন, আত্মকেন্দ্রিকতা ও ভোগবাদী সংস্কৃতির কারণে ক্রমশ সামাজিক মূল্যবোধের অবক্ষয় ঘটছে। মানুষ আত্মকলহ আর আধিপত্যবাদকে অগগ্রাধিকার দেয়ার কারণে সামাজিক শৃঙ্খলা বিনষ্ট হচ্ছে ও মানুষ মানবিকতা শুণ্য হচ্ছে। এরকম অবস্থায় মাহে রমজানের আগমন শান্তির সুবাতাস ছড়াচ্ছে। রোযা মানুষকে ভোগবাদিতা থেকে যেমন বিরত রাখে তেমনি অপরের কল্যাণে ব্রতী হওয়ার শিক্ষাও দেয়। বক্তারা বলেন, মানবিক অবক্ষয়পুষ্ট জীবনধারার বিপরীতে রোযা ফলপ্রসু প্রতিষেধকও বটে। ইফতার মাহফিলে আরো উপস্থিত ছিলেন আ ন ম তৈয়ব আলী, সৈয়দ মাওলানা হাবিবুর রহমান, জায়নুল আলম, নাছির উদ্দীন মাহমুদ, মুহাম্মদ এনামুল হক ছিদ্দিকী, মুহাম্মদ শফিউল আলম, ডা. নেজাম উদ্দিন, আলমগীর ইসলাম বঈদী, মনজুরুল আনোয়ার চৌধুরী, মাওলানা ইয়াছিন, স.ম এনাম, মুহাম্মদ সোহাইল উদ্দীন আনসারী, মুহাম্মদ ইসমাইল হোসেন, নুরুল ইসলাম শাকিল, মুহাম্মদ আখতার হোসেন, মাস্টার মুহাম্মদ ইসমাইল, মুহাম্মদ সালা উদ্দিন খোকন, মুহাম্মদ আমান উল্লাহ আমান, মুহাম্মদ ইশতিয়াক রেযা, মুহাম্মদ ছালামত উল্লাহ, মুহাম্মদ লিয়াকত, মুহাম্মদ হায়দার আলী, মাওলানা আইয়ুব, মাওলানা মতিন, মুহাম্মদ রহিম উদ্দিন, মুহাম্মদ সেলিম, মাওলানা জামাল উদ্দিন খোকন, যুবনেতা আব্দুল হামিদ রজভী, এস এম ইকবাল বাহার চৌধুরী, মুহাম্মদ দিদারুল ইসলাম কাদেরী, মুহাম্মদ ইদ্রিস, মুহাম্মদ মফিজুর রহমান, মুহাম্মদ ছালামত রেযা, মুহাম্মদ গোলাম মোস্তাফা, মুহাম্মদ এরশাদুল কেিরম, মুহাম্মদ শাহাদাত হোসাইন, মুহাম্মদ শফি, মুহাম্মদ জাবের, মুহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল রুমান, মুহাম্মদ মঈনুদ্দীন কাদেরী, মুহাম্মদ আদনান তাহসীন, মুহাম্মদ কাযী আরাফাত, মুহাম্মদ ইফতেখারুল আলম, শায়ের মুহাম্মদ বাহা উদ্দিন, মুহাম্মদ মুনির উদ্দিন কাদেরী, মুহাম্মদ কুতুব উদ্দিন প্রমুখ।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
আলহাজ্ব আব্দুল হাকিম মাইজভান্ডারীর ২৩ তম মৃত্যু বার্ষিকী অনুষ্ঠিত
১০ মে,শুক্রবার ,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম :উত্তর কাট্টলী আলহাজ্ব মোস্তফা-হাকিম বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের উদ্যোগে কলেজের প্রতিষ্ঠাতাবৃন্দের পিতা আলহাজ্ব আব্দুল হাকিম মাইজভান্ডারীর ২৩ তম মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে কুরআন খতম, আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল গতকাল বিকাল ৪টায় কলেজ চত্বরে অনুষ্ঠিত হয়েছে। চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র এম মনজুর আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন, গাউসুল আজম মাইজভান্ডারী মাওলানা শাহ সুফী সৈয়দ আহমদ উল্লাহ এর প্রপুত্র আলহাজ্ব শাহ সুফী সৈয়দ সহিদুল হক মাইজভান্ডারী।অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথিসহ অতিথিবৃন্দ বলেন, মরহুম আব্দুল হাকিম মাইজভান্ডারী ছিলেন একজন জনদরদী ও দানবীর। তিনি তাঁর জীবদ্দশায় মানুষের সেবা করতে পছন্দ করতেন। সমাজের সর্বস্তরের মানুষের প্রতি তাঁর ভালোবাসা ছিল অতুলনীয়। তাঁর এই সমাজ সেবা ধারাবাহিকভাবে তাঁর সুযোগ্য সন্তান চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র এম মনজুর আলম সহ তাঁর পরিবারও করে যাচ্ছেন বলে উপস্থিত বক্তারা মন্তব্য করেন। মোস্তফা-হাকিম কলেজের অধ্যাপক কজী মাহবুবুর রহমানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, আকবর শাহ থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি, সুলতান আহাম্মদ, সেক্রেটারী কাজী আলতাফ হোসেন চৌধুরী, সীতাকু- আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোঃ ইসহাক, ৯ নং উত্তর পাহাড়তলী ওয়ার্ড আওযামীলীগের আহবায়ক এস এস আলমগীর, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দ মাহমুদুল হক, ২ নং বারৈয়ারঢালা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রেহান উদ্দিন রেহান, মোস্তফা-হাকিম কলেজের অধ্যক্ষ মোহাম্মদ আলমগীর, উপাধ্যক্ষ বাদশা আলম প্রমুখ। প্রেস বিজ্ঞপ্তি :
সড়ক দূর্ঘটনায় মৃত্যু বরণকারী হাফেজা বেগমের পরিবারকে নগদ র্অথ ও চেক বিতরণ
১০ মে,শুক্রবার ,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম : আনসার ও ভিডিপি কর্তৃক ভিডিপি সদস্যা আইন-শৃংখলা রক্ষা ও নিরাপত্তার দায়িত্ব পালনের লক্ষ্যে ভোট কেন্দ্রে যাওয়ার পথে মর্মান্তিক সড়ক দূর্ঘটনায় মৃত্যু বরণকারী হাফেজা বেগমের পরিবারকে ৪ লক্ষ টাকা প্রদান করা হয়।। এর মধ্যে বড় মেয়ে মুর্শিদা আকতার এর হাতে নগদ ১ লক্ষ টাকা এবং মেজ ও ছোট মেয়েদের প্রত্যেককে ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা করে লামা সোনালী ব্যাংক শাখার ফিক্সড ডিপোজিট চেক তুলে দেন চট্টগ্রাম ও পার্বত্য চট্টগ্রাম রেঞ্জ এর আনসার - ভিডিপি এর পরিচালক ও জেলা কমান্ড্যান্ট মোঃ সাইফুজ্জামান, বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টায় বান্দরবান সদর উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কার্যালয়ে অনুদানের অর্থ চেক প্রদান করা হয়। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন আনসার ও ভিডিপি বান্দরবান এর সহকারী জেলা কমান্ড্যান্ট মোঃ জহুরুল ইসলাম, বান্দরবান সদর উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা আব্দুর রহিম সহ অন্যান্য আনসার ও ভিডিপির সদস্যগন। উল্লেখ্য গত ১৮-৩-২০১৯ খ্রি: তারিখে বান্দরবান পার্বত্য জেলায় অনুষ্টিব্য ২য় ধাপ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন-২০১৯খ্রি: উপলক্ষে ভোট কেন্দ্রে আইন-শৃংখলা রক্ষা ও নিরাপত্তার দায়িত্ব পালনের লক্ষ্যে ১৭-৩-১৯ তারিখ-২.৩০ মিনিটের সময় লামা উপজেলাধীন,ফাইতং ইউনিয়ন পোলাও পাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রে যাওয়ার পথে চকরিয়া বানিয়াছড়া নামক স্থানে কর্মরত ভিডিপি সদস্যা হাফেজা বেগম মমার্ন্তিক সড়ক দূর্ঘটনায় গুরুতর আহত হয়ে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পর মৃত্যু বরণ করেন। মৃত্যুকালে তিনি স্বামী ও ৩ মেয়ে রেখে যান।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
বাকলিয়া থানা এলাকায় মাদক বিরোধী অভিযান,গ্রেফতার ১১
১০ মে,শুক্রবার ,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম : বাকলিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ-জনাব মোহাম্মদ নিজাম উদ্দীন-পিপিএম নেতৃত্বে টিম বাকলিয়া থানা কর্তৃক থানা এলাকায় মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করিয়া বিভিন্ন এলাকা হইতে ১১ জন আসামীকে মাদকদ্রব্য সহ গ্রেফতার করা হয়। তাহাদের বিরুদ্ধে বাকলিয়া থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে ০৯ (নয়)টি নিয়মিত মামলার রুজু করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃত আসামীদের নাম ও ঠিকানাঃ ১। মোঃ বিল্লাল (৩৯), পিতা-ছবির আহম্মদ, সাং-ধানরামপুর, ঝাড় মিয়া, বেপারীর বাড়ী, থানা-মুরাদনগর, জেলা-কুমিল্লা, বর্তমানে-আলকরণ, ৩নং গলি, হালিম উল্লার ভাড়া ঘর, থানা- কোতোয়ালী, জেলা- চট্টগ্রাম, ২। মোঃ অলি (৩০), পিতা-মৃত মজিবর রহমান, মাতা-মমতাজ বেগম, সাং-দিঘীর পাড়, কাজী বাড়ী, থানা-বাঙ্গরা বাজার, জেলা-কুমিল্লা, ৩। মোঃ রফিকুল ইসলাম (৩৮), পিতা-মৃত আলী আহম্মদ, সাং-তৈলারদ্বীপ, মেম্বার ওমর আলীর বাড়ী, থানা-আনোয়ারা, জেলা-চট্টগ্রাম, বর্তমানে-নতুন ব্রীজের লাইনম্যান, থানা- বাকলিয়া, জেলা- চট্টগ্রাম, ৪। মোঃ শাহেদ (২৮), পিতা-মোঃ শাহ আলম, সাং-শিবনগর, বেপারী বাড়ী, থানা-মুরাদনগর, জেলা-কুমিল্লা, বর্তমানে-হাজী শান্তি সওদাগরের কলোনী, ম্যাচ ফ্যাক্টরী, থানা- বাকলিয়া, জেলা- চট্টগ্রাম, ৫। মোঃ উজ্জ্বল (২০), পিতা-মোঃ শানু মিয়া, সাং-হেয়াকো, মুসলিম পাড়া, থানা-ভূজপুর, জেলা-চট্টগ্রাম, বর্তমানে- আমিন হাজী রোড, মোজাহের সওদাগরের কলোনী, থানা- বাকলিয়া, জেলা- চট্টগ্রাম, ৬। জাকির হোসেন (২৭), পিতা-মৃত আবুল কাসেম, সাং-চর হাসান, ভূঁইয়া বাড়ী, থানা-চরজব্বর, জেলা-নোয়াখালী, বর্তমানে-বৌ বাজার, পুলিশ বিট, ইরানী বিল্ডিং, থানা- বাকলিয়া, জেলা- চট্টগ্রাম, ৭। মোঃ ফয়সাল(২০), পিতা- মোঃ শহিদ মিয়া, সাং- দাররা, দিঘীরপাড়, থানা- মুরাদনগর, জেলা- কুমিল্লা, বর্তমানে- সর্দ্দারবাড়ী, বৌ বাজার, থানা- বাকলিয়া, জেলা- চট্টগ্রাম, ৮। মোঃ সুজন(১৮), পিতা- মোঃ মাসুদ, মাতা- মৃত রেহানা বেগম, সাং-দাররা বাজার, থানা- মুরাদনগর, জেলা- কুমিল্লা, বর্তমানে- পশ্চিম পাড়া নয়া মসজিদ, চর চাক্তাই, থানা- বাকলিয়া, জেলা- চট্টগ্রাম, ৯। মোঃ আব্দুর রাজ্জাক(২৮), পিতা- মৃত হামদু মিয়া, মাতা- মৃত আফিয়া খাতুন, সাং- হাজী সৈয়দুর রহমান এর বাড়ী, কালামিয়া বাজার, ১৮নং ওয়ার্ড, থানা- বাকলিয়া, জেলা- চট্টগ্রাম, ১০। মোঃ মনছুর (৩৫), পিতা-মৃত আব্দুল হায়াত, মাতা-বেগম সায়ের, সাং-পশ্চিম বারখাইন, থানা-আনোয়ারা, জেলা-চট্টগ্রাম, বর্তমানে- বাস্তুহারা, নোমান কলেজ রোড, মসজিদ গলি, মনুসরের ঘর, থানা- বাকলিয়া, জেলা- চট্টগ্রাম , ১১। মোঃ রাশেদ (৩৫), পিতা- মোঃ আলী, মাতা-জবার খাতুন, সাং-আব্দুছ সোবাহানের বাড়ী, মহিলা স্কুলের সামনে, থানা-বাকলিয়া, জেলা-চট্টগ্রাম।বাকলিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ-জনাব মোহাম্মদ নিজাম উদ্দীন বলেন,মাদক ব্যবসায়ী, মাদক বহনকারী ও মাদক সেবনকারীদের বিরুদ্ধে নিয়মিত অভিযান পরিচালনা অব্যাহত থাকবে। বাকলিয়া থানা এলাকায় বসবাসরত যুব সমাজকে মাদকের ছোবল থেকে মুক্ত করব ইনশা আল্লাহ। পুলিশের মাদক বিরোধী এই অভিযানে এলাকার সচেতন নাগরিকদের এগিয়ে আসার আহব্বান করছি এবং পাশাপাশি মাদকের বিষয়ে গোপনে পুলিশকে তথ্য দিয়ে সহায়তা করার জন্য অনুরোধ করছি।
অস্বচ্ছল শিক্ষার্থী ও অসুস্থ রোগীদের মাঝে সিটি মেয়রের টাকা বিতরণ
১০ মে,শুক্রবার ,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ আ জ ম নাছির উদ্দীন তার মাসিক সম্মানীর পুরো টাকা ১ লক্ষ ৩৫ হাজার অটিজম স্কুল, মেডিকেল, ইঞ্জিনিয়ারিং, বিশ্ববিদ্যালয়ে অস্বচ্ছল শিক্ষার্থীসহ অসুস্থ রোগীদের মধ্যে বিতরণ করেন। মেয়র হিসেবে চসিকের দায়িত্ব গ্রহনের পর থেকে গত বুধবার পর্যন্ত ৩শ ২২ জন ব্যক্তির মধ্যে তার সম্মানীর টাকা বাবত প্রায় ৫৫ লক্ষ টাকা বিতরণ করা হয়। সিটি মেয়রের মাসিক সম্মাণী মাসে ১লক্ষ ৩৫ হাজার টাকা। এ টাকার একটি পয়সাও তিনি কখনো ছুঁয়েও দেখেন না। সিটি মেয়রে এ সম্মানীর টাকা বিতরণে দেখভাল করেন চসিকের অতিরিক্ত প্রধান হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির চৌধুরী। তিনি সিটি মেয়রের এ সম্মানীর টাকা প্রতিমাসে প্রতিষ্ঠান, শিক্ষার্থী ও অসুস্থব্যক্তি মধ্যে বিতরণ করে থাকেন। এ তালিকায় আছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ৩ জন। যার একজনের দুইটি হাত নেই। ডেকেল কলেজের শিক্ষার্থী আছেন ৩ জন। উচ্চমাধ্যমিক শ্রেণির আছেন ১ জন। অন্যরা জটিল রোগে আক্রান্ত। কারও অপারেশন হবে। কারও ঔষুধ কেনার আর্থিক সংগতি নেই। শুধু যে মাসিক সম্মানী বিলিয়ে দেন তা নয়। অনেক সময় অসহায় মানুষের দুঃখ, কষ্টের কথা শুনে প্রায়শঃ নিজের পকেটের টাকাও দিয়ে দেন। সকলকে তিনি বলেন, নিরবে-নিভৃত্বে অস্বচ্ছ মানুষদের সাহায্য কর। কেউ যাতে না ফেরে খালি হাতে-এটাই স্বভাবজাত তার উক্তি। এছাড়া সিটি মেয়র নিজের সম্মানীর টাকা অস্বচ্ছ মানুষের মধ্যে বিলিয়ে দেওয়ার পাশাপাশি তিনি করপোরেশনের গাড়ি, তেল, চালকও নেন না। নিজের গাড়িতে করে চলাফেরা করেন। এ প্রসঙ্গে সিটি মেয়র বলেন আমি রাজনীতি করছি নগরবাসীর কল্যাণের জন্য। কিছু পাওয়ার জন্য মেয়র হইনি, দেওয়ার জন্য এসেছি। আর মেয়র পদবীটা হচ্ছে সম্মাণের। তিনি মনে প্রাণে বিশ্বাস করেন, রাজনীতি হচ্ছে ত্যাগ স্বীকারের জন্য। আল্লাহ রাব্বুল আলামিন আমাকে অনেক দিয়েছেন। নগরের অসহায়, দুস্থ কিছু মানুষ, কিছু ছাত্র, বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুদের কল্যাণে নিয়োজিত প্রতিষ্ঠানের কল্যাণে আমার সম্মানীর টাকা ব্যয় হচ্ছে এটা আমার জন্য সুখকর ও আনন্দের। আমি সততা, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহির ভেতর থেকেই আমার উপর অর্পিত দায়িত্ব যথাযথ পালন করে যেতে চাই। সাহার্য্যপ্রাপ্ত দের সর্ম্পকে মেয়র বলেন, যেসব শিক্ষার্থী এ সাহায্য পাচ্ছে তারা একদিন সমাজে প্রতিষ্ঠিত হবে। নিজের পায়ে দাঁড়াবে। তখন তারাও এ কৃতজ্ঞতাবোধ থেকে পিছিয়ে পড়া মানুষের জন্য অবদান রাখবে। অন্যদের প্রতি সাহায্যের হাত বাড়াবে। তাই সমাজের অস্বচ্ছ মানুষের কল্যাণে দেশের বিত্তবানদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান মেয়র। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ইঞ্জিনিয়ার দেলোয়ার হোসেন মজুমদার ও চসিক তত্তবধায়ক প্রকৌশলী ঝুলুন কুমার দাশ উপস্থিত ছিলেন।প্রেসবিজ্ঞপ্তি
সরকারের নির্ধারিত মূল্যে পণ্য বিক্রয় করুন
১০ মে,শুক্রবার ,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: নগরীর বিভিন্ন এলাকায় বিভিন্ন ধরনের নাগরিক সমস্যা চিহ্নিত করণ এবং তা থেকে পরিত্রাণের লক্ষ্যে কর্মপন্থা নির্ধারণের জন্য জনদুর্ভোগ লাঘবে জনতার ঐক্য চাই শীর্ষক নাগরিক উদ্যোগের প্রধান উপদেষ্টা ও চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম সুজনের নেতৃত্বে নগরীতে পঁচা, বাসী ও ভেজাল পণ্য উৎপাদন, বিক্রয় ও পরিবেশন থেকে ব্যবসায়ীদের বিরত রাখার লক্ষ্যে নাগরিক পদযাত্রার দ্বিতীয় দিন গত ৮ মে রেয়াজউদ্দিন বাজার থেকে শুরু হয়। এ সময় রেয়াজউদ্দিন বাজারেরব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে সুজন বলেন, সরকার রমজান মাসকে জনসাধারনের মাঝে স্বস্তির মাস হিসেবে উপহার দিতে বদ্ধ পরিকর। এ লক্ষ্যে রমজান মাসের পূর্বেই যাবতীয় প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়। ব্যবসায়ীরা যাতে নির্বিঘে ও নিরাপদে ব্যবসা বাণিজ্য করতে পারে সেজন্য কাজ করছে আইন শৃংখলা বাহিনী। জেলা প্রশাসন সরকার নির্ধারিত মূল্যে পণ্য বিক্রয়ের জন্য ব্যবসায়ীদের নিকট আহবান জানাচ্ছেন এবং সে লক্ষ্যে প্রতিদিন মোবাইল কোর্টও পরিচালিত করছেন। কিন্তু সরকারের এতোসব উদ্যোগের পরও কতিপয় ব্যবসায়ীরা সরকার নির্ধারিত মূল্যে পণ্য বিক্রয় করছে না। কিছু কিছু ব্যবসায়ীরা ওজনে ক্রেতা সাধারণকে কম দিয়ে লাভের অংক বাড়াতে চায়। যা ক্রেতা সাধারণের জন্য অস্বস্তিকর বলে অভিমত প্রকাশ করেন তিনি। তিনি বলেন, চট্টগ্রামের অন্যতম প্রতিষ্ঠিত ব্যবসা বাণিজ্য কেন্দ্র হচ্ছে এ রেয়াজউদ্দিন বাজার। তাই এ বাজারে বিপুল সংখ্যক পাইকারী ও খুচরা ক্রেতার উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়। কিন্তু সরকার নির্ধারিত মূল্যে পণ্য বিক্রয় না করা এবং ওজনে কম দেওয়ার মানসিকতা থাকলে এ বাজার অচিরেই ক্রেতা শুন্য হয়ে পড়বে। তখন সত্যিকার অর্থেই বিপাকে পড়বেন ব্যবসায়ীরা। তাই এ মাসটিকে অন্ততঃ ব্যবসা বানিজ্যের হাতিয়ার না করে ক্রেতা সাধারণের মন জয় করার জন্য সুজন সর্বস্তরের ব্যবসায়ীদের প্রতি অনুরোধ জানান। জনাব সুজন এরপর পুরো বাজার পরিদর্শন করেন এবং দাম বৃদ্ধি নিয়ে ক্রেতা সাধারনের বিভিন্ন অভিযোগ শ্রবণ করেন। ক্রেতা সাধারণের তাৎক্ষণিক অভিযোগের প্রেক্ষিতে সুজন মাংসের দোকানে গিয়ে সরকার নির্ধারিত মূল্যে মাংস বিক্রি না করার অভিযোগের সত্যতা পান। তিনি এ সময় ব্যবসায়ীদের সাথে খোলামেলা আলাপ আলোচনা করেন এবং সরকার নির্ধারিত মূল্যে পণ্য বিক্রয় করার আহবান জানান। তিনি ক্রেতা সাধারণের কষ্ট হয় এ রকম কার্যকলাপ থেকে বিরত থাকার জন্য ব্যবসায়ীদের অনুরোধ জানান। জনাব সুজন খাদ্যে ভেজাল বিষয়ে গতকাল র‌্যাব মহাপরিচালকের বক্তব্যকে পুরোপুরি সমর্থন করে নিরাপদ খাদ্য আইন সংশোধন করে আগামী প্রজন্মকে একটি উজ্জ্বল মেধা সম্পন্ন প্রজন্মে পরিণত করার পদক্ষেপ গ্রহণ করার জন্য সরকারের প্রতি বিনীত আহবান জানান।নাগরিক পদযাত্রার দ্বিতীয় দিনে পদযাত্রা এবং প্রচারপত্র বিলির সময় বিপুল সংখ্যক ক্রেতা সাধারণ এবং ব্যবসায়ীবৃন্দ সুজনের সাথে পুরো বাজার প্রদক্ষিণ করেন। এর আগে রেয়াজউদ্দিন বাজার প্যারামাউন্ট সিটির সামনে ময়লা আবর্জনার স্তুপ পড়ে থাকতে দেখে জনাব সুজন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তাকে ফোন করেন এবং প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা দ্রততম সময়ের মধ্যেময়লা আবর্জনা পরিস্কার করে নেওয়ার আশ্বাস প্রদান করেন। নাগরিক পদযাত্রার দ্বিতীয় দিনে রেয়াজউদ্দিন বাজারের ব্যবসায়ীদের উদ্দেশ্যে প্রচার পত্র বিলি করছেন নাগরিক উদ্যোগের প্রধান উপদেষ্টা ও নগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম সুজন।প্রেসবিজ্ঞপ্তি

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর