শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ২০, ২০১৯
তারুণ্যের অগ্রযাত্রা ছড়িয়ে পড়ুক সবখানে
২৭জুলাই২০১৯,শনিবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: সামাজিক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন সানরাইজ সোশ্যাল ফাউন্ডেশনের ৩য় বর্ষে পদার্পণ উৎসব গত বৃহস্পতিবার জেলা শিল্পকলা একাডেমির অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়। সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মো. আফজাল খানের সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি ছিলেন প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটির উপাচার্য সমাজবিজ্ঞানী ড. অনুপম সেন। প্রধান আলোচক ছিলেন ব্যারিস্টার মিলকী ফাউন্ডেশনের সভাপতি সাইদ মিলকী। উৎসবের উদ্বোধন করেন বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশনের ডেপুটি গভর্নর মো. আমিনুল ইসলাম বাবু। বিশেষ আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন লায়ন্স জেলার জোন চেয়ারম্যান লায়ন নাজমুল কবির খোকন এবং র;্যাঙ্কস প্রোপার্টিজের সিইও তানভীর শাহরিয়ার রিমন। বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম কলেজের আরবি ও ইসলাম শিক্ষা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আরিফুর রহমান, ড. মুহাম্মদ কামাল উদ্দীন, লায়ন মুহাম্মদ ওবায়দুর রহমান, তারুণ্যের উচ্ছ্বাসের সাধারণ সম্পাদক মো. মুজাহিদুল ইসলাম এবং নারী উদ্যোক্তা সুলতানা নূর জাহান। অনুষ্ঠানে উপদেষ্টা প্যানেলের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ইঞ্জিনিয়ার দেবব্রত পাল, ইঞ্জিনিয়ার হুমায়ুন রশিদ, জাহাঙ্গীর খান, শান্তময় দাশ এবং শামীমা ওয়াহিদ। অনুষ্ঠানে অগ্রযাত্রা স্মারকের মোড়ক উন্মোচন করা হয়। প্রধান অতিথি ড. অনুপম সেন বলেন, বাংলাদেশের এখনো বিপুলসংখ্যক লোক দারিদ্র্য পীড়িত। এখনো অনেকের জীবন সংকটের আবর্তে মলিন। লোকগুলোর জীবনে কিছুটা সুখ আনন্দ দিতে সানরাইজ পরিবারের এগিয়ে যাওয়াকে স্বাগত জানাই। কামনা করি, তারুণ্যের এই অগ্রযাত্রা সবখানে ছড়িয়ে পড়ুক। পরে অতিথিবৃন্দ ৩য় বর্ষে পদার্পণ উৎসবের কেক কাটেন। সামাজিক ও মানবিক কাজে অবদান রাখায় ২৬টি সংগঠনকে পুরস্কৃত করা হয়। সংগঠনের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন সহ- সভাপতি হিরু জান্নাত সাথী, সাধারণ সম্পাদক জয়নুল আবেদীন, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক সোহরাব হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, অর্থ সম্পাদক নিশু জান্নাত লাকি, আইয়ুব খান, সিফাত আরমান, হিমু, খলিলুর রহমান, শাহা জালাল, বিকাশ চন্দ্র ভৌমিক, সালাউদ্দিন, এম সুজন, তাহমিনা প্রিয়া, তাপস দেব নাথ, জহিরুল ইসলাম, ফরিদ আহমেদ, দুর্জয়, এম হাসান, জাহেদ প্রমুখ। এছাড়া চট্টগ্রাম, কুমিল্লা, চকরিয়া, চাঁদপুর এবং খাগড়াছড়ি ইউনিটের সদস্যবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
রক্তকরবীর গহন রাতে শ্রাবণধারা
২৭জুলাই২০১৯,শনিবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: শুদ্ধ সঙ্গীতচর্চার সংগঠন রক্তকরবীর উদ্যোগে ২৫ জুলাই সন্ধ্যায় টিআইসি মিলনায়তনে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের বর্ষার গান নিয়ে আয়োজন করা হয় গহন রাতে শ্রাবণধারা অনুষ্ঠান। শুরুতে রক্তকরবীর সংগঠক শীলা মোমেন গহন রাতে শ্রাবণ ধারা পড়িছে গানটি পরিবেশনের মাধ্যমে অনুষ্ঠানটি শান্তনু বিশ্বাসকে নিবেদন করা হয়। এরপর ফুলকির সভাপতি আবুল মোমেন বলেন, চট্টগ্রামের সাংস্কৃতিক অঙ্গনের প্রিয়মুখ নাট্যজন শান্তনু বিশ্বাসকে হারিয়ে আমরা মর্মাহত। রক্তকরবীর সুহৃদ নাট্যজন শান্তনু বিশ্বাস ছিলেন সঙ্গীতেরও মানুষ। অকালে তাঁকে হারিয়ে রক্তকরবীর সকলেই মর্মাহত। মর্ম বেদনা নিয়েই আজ আমরা আয়োজন করেছি গহন রাতে শ্রাবণ ধারা অনুষ্ঠানটি। এরপর শমী সুহৃদ পরিবেশন করেন শান্তনু বিশ্বাসের সুর করা ঘুম ঘুম মায়া মায়া গানটি। রবীন্দ্রনাথের ছিন্নপত্রে আর কোনো কোনো ছোটগল্পে নদীতে, প্রান্তরে, জনপদে, গঞ্জে, বনানীতে বর্ষার অপরূপ সৌন্দর্যের বর্ণনা পাঠককে মুগ্ধ করে। আর বর্ষার গানে কবি যেন ভাবের জগতের সব রঙ সব রূপ সকল রস ছড়িয়ে দিয়েছেন। এরপর একে একে মেঘের পরে মেঘ, বহুযুগের ওপর হতে, নীল নবঘনে আষাঢ় গগনে ও আষাঢের পূর্ণিমা, মনে হল যেন পেরিয়ে এলেম, কোথা যে উধাও, ধরনীর গগনের মিলনের, নিবিড় মেঘেরর ছায়ায়, ওগো সাঁওতালি ছেলে, আমার প্রিয়ার ছায়া, নীল অঞ্জনঘন পুঞ্জছায়া, আজ শ্রাবণের পূর্ণিমাতে, পাগলা হাওয়া বাদল দিনে, প্রভৃতি বর্ষার গান পরিবেশিত হয়। অনুষ্ঠানটি সঙ্গীত পরিচালনায় ছিলেন রক্তকরবীর সংগঠক শীলা মোমেন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
ঘরকাটা ইঁদুররা অর্জিত সাফল্য ম্লান করছে : ইনু
২৭জুলাই২০১৯,শনিবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদের সভাপতি হাসানুল হক ইনু এমপি বলেছেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ ২০১৯ সালে দ্বিতীয় পর্বে প্রবেশ করেছে। ২০০৮ থেকে ২০১৮, টানা দশ বছরের প্রথম পর্বে জঙ্গি-সন্ত্রাস-সাম্প্রদায়িকতা দমন যুদ্ধে ছিল। জঙ্গি-সন্ত্রাস এখন কোণঠাসা এবং পিছু হটে গেছে। দশ বছরের উন্নয়নের অগ্রযাত্রাও সাধিত হয়। এখন দ্বিতীয় পর্বে উন্নয়নের চমৎকার সাফল্য ধরে রাখা, ঘরে ঘরে সুফল পৌঁছানো এবং জঙ্গিবাদের পুনঃ উৎপাত আর না করতে দেয়া হচ্ছে মূল কর্তব্য। দ্বিতীয় পর্বে আমরা নতুন আপদ হিসেবে দেখছি দলবাজি-গুণ্ডামী-দুর্নীতি-লুটপাট-নারী-শিশু নির্যাতন মাদক কারবারির দৌরাত্ম্য। এসব সমস্যা উন্নয়নের সাফল্যকে ম্লান করে দিচ্ছে। তাই বাংলাদেশকে সামনের দিকে আরেক ধাপ এগুতে হলে শক্তহাতে দলবাজি-গুণ্ডামী-লুটপাট-দুর্নীতি-মাদক কারবারি-শিশু ও নারী নির্যাতনকারীদের দমন করতে হবে। তাই আজ সকল ক্ষেত্রে সুশাসন প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে সব সমস্যা সমাধান সম্ভব। তাই ২য় পর্বে সুশাসনের চুক্তি করা প্রধান কর্তব্য। আজকে ডেঙ্গু-গুজবসহ ছোটবড় সব সমস্যার সমাধান সম্ভব সুশাসন নিশ্চিত করলে। কিন্তু আজ ঘরকাটা ইঁদুররা সব অর্জিত সাফল্য ম্লান করছে। তাই এই ঘরকাটা ইঁদুরদের দমন করতে সুশাসনের সংগ্রাম নিজ ঘর ও উপর থেকেই শুরু করতে হবে। এই জঙ্গি দমনের যুদ্ধের চাইতেও সুশাসনের সংগ্রাম কঠিন। মহাজোটের ছাতার তলে সুশাসন বিঘ্নকারীদের রাখা যাবে না। ঐক্যের শক্তি যেমন জঙ্গি দমনে সাফল্য দিয়েছে, তেমনি সুশাসনের সংগ্রামেও ঐক্যের শক্তি ও ঐক্যের ঢাল শক্ত হাতে ধরে রাখতে হবে। সুশাসনের জন্য, দল-মুখ না দেখে প্রধানমন্ত্রী হাতের শাসনদণ্ডের কঠোর ব্যবহার চাই। গতকাল শুক্রবার ব্র্যাক লার্নিং সেন্টার হলে মুক্তিযোদ্ধা ও জাসদের উপদেষ্টা আবুল কাশেমের স্মরণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। প্রধান বক্তা জাসদ সাধারণ সম্পাদক শিরীণ আখতার বলেন, আজকের সমাজের ভয়াবহ কালো মেঘের ছায়া সমাজকে এক গুমোট আবহাওয়ার ভেতর ফেলে দিচ্ছে, নারী নির্যাতন, শিশু ধর্ষণ এমনকি মাদ্রাসার ছাত্রীদের উপর যৌন হয়রানি ও নির্যাতন ছেয়ে যাচ্ছে। এরই মধ্যে সারাদেশে গণপিটুনিতে মানুষ হত্যা সাধারণ জনগণকে অস্থির করে তুলেছে। মুক্তিযুদ্ধের যে শক্তি সাফল্যের উপর জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার দাঁড়িয়ে আছে সেখানে আবারো মুক্তিযুদ্ধের এই শক্তিকে আইনের শাসন ও সুশাসন প্রতিষ্ঠার জন্য এক নতুন সামাজিক চুক্তিতে আবদ্ধ হতে হবে। জাসদ উত্তর জেলা সভাপতি বেলায়েত হোসেনের সভাপতিত্বে স্মরণসভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন জাসদ কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নুরুল আকতার, জসিম উদ্দিন বাবুল, ডা. মাহফুজুর রহমান, ডাকসুর সাবেক জিএস গোলাম জিলানী চৌধুরী। বক্তব্য দেন তৈয়বুর রহমান, মাইনুল ইসলাম, সেলিম চৌধুরী, আহমদ হোসেন নিজামী, জহুর আহমদ, মঈনুল আলম খান, বোধিপাল বড়ুয়া, রুবিনা ইয়াসমিন, মরহুমের পুত্র ডা. মো. শাহেদুল করিম, ফজলিন করিম, পারভীন আক্তার প্রমুখ। সভা পরিচালনা করেন শহিদুল ইসলাম রিপন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
মানবতার ফেরিওয়ালার ফ্রি ব্লাড গ্রুপিং
২৭জুলাই২০১৯,শনিবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: মানবতার ফেরিওয়ালা আয়োজিত ও হিউম্যান ওয়েলফেয়ার সোসাইটির সহযোগিতায় ফ্রি ব্লাড গ্রুপিং ক্যাম্প গতকাল শুক্রবার দিনব্যাপী মধ্যম পতেঙ্গা, রাজার পুকুর পাড়ে অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগের সদস্য ও সংগঠনের উপদেষ্টা শাকিল হারুন। প্রধান অতিথি ছিলেন সংরক্ষিত ওয়ার্ডের মহিলা কাউন্সিলর শাহানুর বেগম। বিশেষ অতিথি ছিলেন ৪১ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. নুরুল আলম। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বিট পুুলিশিং কমিটি ১৩৩ এর সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব আলম সুমন, ৪১ নং ওয়ার্ড যুবলীগ নেতা শেখ আহমদ, মো. মুহিন, মো. ফাহিম, শিপু, সাজু, মো. সুমন, ফয়সাল, সোহান, বোরহান, মো. শাকিব, মো. ফরহাদ, মো. আজাদ, মো. সোহেল, মো. সিফাত, মো. মাহিম ও শিহাব প্রমুখ। অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, ফ্রি ব্লাড গ্রুপিং একটি মানব কল্যাণমূলক কাজ। এই কাজে অর্থ ও সময়ের প্রয়োজন হয়। ফ্রি ব্লাড গ্রুপিং করার ফলে সাধারণ মানুষ উপকৃত হবে। অসহায় মানুষকে রক্তদান করার পাশাপাশি জনসাধারণ এই কাজে উৎসাহিত করা উচিত। এলাকাভিত্তিক সামাজিক সংগঠনের মাধ্যমে মানব কল্যাণমূলক কর্মসূচি অব্যাহত থাকলে দেশ ও জাতি লাভবান হবে। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
পোর্ট সিটি ভার্সিটির বিজনেস ফিয়েস্তার পুরস্কার বিতরণ
২৫জুলাই২০১৯,বৃহস্পতিবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: পোর্ট সিটি ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগ আয়োজিত ৩দিন ব্যাপী বিজনেস ফিয়েস্তার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান গত ২২ জুলাই বিশ্ববিদ্যালয় অডিটরিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে ১৫৭টি দলের ৪৭১ জন শিক্ষার্থী প্রথম ধাপে অংশগ্রহণ করে। বাছাইকৃত ৩০টি দলের মধ্য থেকে চ্যাম্পিয়ন হয় মারকারী, রানার্স আপ হয় ট্রায়ো ও নিবুলা। শিক্ষার্থীরা কুইজ প্রতিযোগিতা ছাড়াও কর্মশালা, কেসস্টাডি এবং সমালোচনামূলক যুক্তি বিশ্লেষণে অংশগ্রহণ করে। ব্যবসায়ে নতুন উদ্ভাবনী শক্তি সবার মাঝে ছড়িয়ে দেয়ার লক্ষ্যে ও যুগোপযোগী উদ্যোক্তা নির্মাণে- এই শ্লোগানকে সামনে রেখে বিশ্ববিদ্যালয়ে ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগ এ আয়োজন করেছে। বিভাগের সভাপতি ড. রাজীব চক্রবর্তীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মো. নূরুল আনোয়ার, বিশেষ অতিথি ছিলেন ব্যবসা প্রশাসন অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. ফসিউল আলম, বিজ্ঞান ও ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের ডিন অধ্যাপক ইঞ্জিনিয়ার মফজল আহমেদ। সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি বলেন, একাডেমিক পড়াশুনার পাশাপাশি শিক্ষা সহায়ক কার্যক্রম ছাত্র-ছাত্রীদের মেধা ও মনন বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের সভাপতি ড. রাজীব চক্রবর্তী বলেন, বিজনেস ফিয়েস্তা ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের ছাত্র-ছাত্রীদের মেধাবিকাশের সহায়ক কার্যক্রমের নিয়মিত অংশ। তিনি এ ধরনের আয়োজন অব্যাহত থাকার কথা বলেন এবং বিজয়ী ও অংশগ্রহণকারী প্রতিটি দলকে অভিনন্দন জানান। এতে উপস্থিত ছিলেন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো. মাহফুজুর রহমান, মো. মুসা প্রমুখ। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
সচেতনের বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি
২৫জুলাই২০১৯,বৃহস্পতিবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন সচেতনের উদ্যোগে গতকাল সোমবার নাসিরাবাদে বৃক্ষরোপন কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। নাসিরাবাদ ভিএসএফ ভবনের সামনে একটি ফলজ ও বনজ গাছ লাগিয়ে কর্মসূচির উদ্বোধন করেন ওমরগণি এমইএস বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি মোহাম্মদ মোহসীন। এসময় তিনি বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবেলায় আমাদের অস্তিত্ব রক্ষার জন্য বৃক্ষরোপনের কোন বিকল্প নেই। তাই তিনি বিভিন্ন স্কুল, কলেজ, ছাত্র সংগঠন ও সামাজিক সংগঠনকে বৃক্ষরোপন কর্মসূচি সফল করার আহ্বান জানান। এতে উপস্থিত ছিলেন মহানগর যুবলীগ নেতা নাছির উদ্দিন, মহানগর স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা জাহেদ হোসেন টিটু, ছাত্রনেতা তৌহিদুল ইসলাম, মোহাম্মদ তাওসিফ আহম্মেদ, আবদুর রহমান, মো. মুনিরুজ্জাম, সাইফুল ইসলাম, মনিরুল ইসলাম, মো. আবির, জাহিদুর রহমান, আব্দুর রহমান, মো. আলী, মুনতাসির মুন, মো. আকিবুর রহিম, মো. ফাহিম মিয়া, নোমাল আল মাহামুদ, মো. শিবলী রহমান, মো. হোসেন মিয়া, আমিরুল ইসলাম। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
বেসরকারি স্কুলগুলো শিক্ষা ব্যবস্থায় সহায়ক ভূমিকা রাখছে
২৫জুলাই২০১৯,বৃহস্পতিবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবস্থ ইঞ্জিনিয়ার আবদুল খালেক মিলনায়তনে কিন্ডারগার্টেন এডুকেশন এসোসিয়েশন কেয়া আয়োজিত গোল্ডমেডেল বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠান সংগঠন চেয়ারম্যান অধ্যাপক সৈয়দ হাফেজ আহমদের সভাপতিত্বে গত ২০ জুলাই অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ও মানববিদ্যা বিভাগের ডিন প্রফেসর ড: সেকান্দর চৌধুরী। প্রধান আলোচক ছিলেন বি এড কলেজের অধ্যাপক শামসুদ্দিন শিশির। কেয়ার মহাসচিব অধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম খানের পরিচালনায় এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন কেয়ার পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মঈনুদ্দীন কাদের লাভলু, সমাজসেবক নুরুল আলম, রাউজান সাহিত্য পরিষদের সভাপতি মহিউদ্দিন ইমন প্রমুখ। আলোচনায় অংশ নেন অধ্যক্ষ রফিকুল ইসলাম, অধ্যক্ষ ছৈয়দুল আজাদ, এডভোকেট হামিদ উল্লাহ, এনায়েত হোসেন মনির, মোস্তফা রেজাউল মুনির, আব্দুর রহিম, মো. খবির উদ্দিন প্রমুখ। প্রধান অতিথি বলেন, শিক্ষার্থীদের বিষয়বস্তু আকর্ষণীয় আনন্দঘন করার জন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে উদ্যোগী ভূমিকা পালন করতে হবে। অনুষ্ঠানে মহানগরের ৩১০ জন বৃত্তি প্রাপ্ত ছাত্র ছাত্রীদের গোল্ডমেডেল, ক্রেস্ট ও প্রাইজমানি প্রদান করা হয়। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
বিস্তারের ৩ দিনব্যাপী সমকালীন নৃত্য বিষয়ক কর্মশালা সমাপ্ত
২৪জুলাই২০১৯,বুধবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: বিস্তার : চিটাগাং আর্টস কমপ্লেক্সের উদ্যোগে ও গ্যেটে ইন্সটিটিউট বাংলাদেশের সহযোগিতায় তিন দিনব্যাপী বিস্তার প্রাঙ্গণে সমকালীন নৃত্য ও নৃত্যপরিকল্পনা বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত শনিবার কর্মশালার উদ্বোধন করেন গ্যেটে ইন্সটিটিউট বাংলাদেশের পরিচালক ড. কিরস্টিন হাকেনব্রখ। তরুণ জার্মান নৃত্যপরিচালক কোসি সেবাস্তিয়ান আহলো-ওকাউই পরিচালিত কর্মশালায় চট্টগ্রামের বিভিন্ন নৃত্য সংগঠনের পরিচালক ও ছাত্রছাত্রীসহ মোট ২৬ জন নৃত্যশিল্পী অংশগ্রহণ করেন। কর্মশালায় সমকালীন নৃত্যের বিভিন্ন মুদ্রা, ভাষা ও ভঙ্গি প্রশিক্ষণসহ নৃত্যের ইতিহাস, গুরুত্ব, দর্শন ও ব্যাকরণ বিষয়ে অংশগ্রহণকারীদেরকে মৌলিক ধারণা প্রদান করা হয়। গত সোমবার সন্ধ্যা ৭টায় অংশগ্রহণকারীদের মাঝে সনদপত্র বিতরণের মাধ্যমে কর্মশালার সমাপ্তি ঘটে। বিস্তারের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক আলম খোরশেদের সঞ্চালনায় সমাপনী অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য এবং সনদপত্র প্রদান করেন চট্টগ্রাম জেলা শিল্পকলা একাডেমির পরিচালনা পর্ষদের সাধারণ সম্পাদক, নাট্যজন সাইফুল আলম বাবু। কর্মশালা থেকে প্রাপ্ত ধারণাকে চর্চার মাধ্যমে আরো শাণিত করে তা চট্টগ্রামের তরুণ নৃত্যশিল্পীদের সাথে ভাগ করে নেওয়ার জন্য তিনি অংশগ্রহণকারীদের প্রতি আহবান জানান। অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারীদের পক্ষ থেকে আরও বক্তব্য রাখেন নৃত্যশিল্পী ও শিক্ষক অনন্য বড়ুয়া এবং এশিয়ান ইউনিভার্সিটি ফর উইমেনের শিক্ষক কেলসি লেখনার। সবশেষে প্রশিক্ষক কোসি সেবাস্টিয়েনকে স্মারক উপহার প্রদান করেন নৃত্যশিল্পী প্রমা অবন্তী ও হানিফ খন্দকার। প্রেস বিজ্ঞপ্তি
কাগতিয়া মাদরাসার অধ্যক্ষ মুনির উল্লাহর অপসারণ ও গ্রেফতার দাবি
২৪জুলাই২০১৯,বুধবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: উত্তর জেলা ছাত্রলীগ মুনিরীয়া যুবতবলীগ কমিটির প্রতিষ্ঠাতা কাগতিয়া মাদরাসার অধ্যক্ষ মুনির উল্লাহর অধ্যক্ষ পদ থেকে অপসারণ ও তার গ্রেফতার দাবি করেছে। গত রোববার ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী এমপির বিরুদ্ধে মুনিরীয়া পন্থী সন্ত্রাসীদের অপপ্রচার ও তরিকতের নামে জঙ্গি সন্ত্রাসী লালনের অভিযোগ করে এই দাবি জানিয়েছে। বিকালে আয়োজিত এই মানববন্ধনে জেলার বিভিন্ন উপজেলা থেকে আসা কয়েকশ ছাত্রলীগ নেতাকর্মী কর্মসূচিতে অংশ নেয়। তারা দাবি করেন মনির উল্লাহ একজন ভণ্ডপীর। তিনি তরিকতের নামে চাঁদাবাজি করে হাজার কোটি টাকার মালিক হয়েছেন। পীর সেজে তার সন্ত্রাসী বাহিনীর মাধ্যমে মানুষের জায়গা জমি দখল করেছে। কর্মসূচিতে সভাপতিত্ব করেন জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি তানভির হোসেন চৌধুরী তপু। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন ছাত্রলীগ নেতা জিল্লুর রহমান মাসুদ, সাখাওয়াত হোসেন পিপলু,অনুপ চক্রবর্তী, মোহাম্মদ আসিফসহ বিভিন্ন উপজেলা থেকে আসা নেতৃবৃন্দ। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর