বৃহস্পতিবার, মার্চ ৪, ২০২১
অডিও সিডি হস্তান্তরকালে রেজাউল করিম: নির্বাচিত হলে সংস্কৃতিবান্ধব নগরী গড়ব
১৭,জানুয়ারী,রবিবার,নিউজ ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: মেয়র পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা এম. রেজাউল করিম চৌধুরীর পক্ষে গণরায় আদায়ে চট্টগ্রাম মহানগর সাংস্কৃতিক সমন্বয় পরিষদ প্রকাশিত প্রচারণামূলক অডিও সিডির কপি গতকাল শনিবার ১৬ জানুয়ারি মেয়র প্রার্থী এম. রেজাউল করিমের কাছে আনুষ্ঠানিকভাবে হস্তান্তর করা হয়। এ উপলক্ষে তাঁর বহদ্দারহাটস্থ বাসভবনে সংস্কৃতিকর্মী ও সংগঠকদের সাথে অনুষ্ঠিত এক প্রীতি সম্মিলন অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, বর্তমান প্রযুক্তির উৎকর্ষের যুগে অডিও সিডি একটি গুরুত্বপূর্ণ কার্যকর মাধ্যম। আমি মেয়র নির্বাচিত হলে চট্টগ্রামকে সংস্কৃতিবান্ধব নগরীতে পরিণত করবো এবং সংস্কৃতি কর্মীদের সামাজিক মর্যাদা, সম্মান, নিরাপত্তা ও জীবনমান উন্নয়নে সচেষ্ট হবো। তিনি জঙ্গিবাদ, মাদক ও সন্ত্রাসমুক্ত সমাজ বিনির্মাণে সংস্কৃতিকর্মীদের সোচ্চার হবার আহ্বান জানান। চট্টগ্রাম সাংস্কৃতিক সমন্বয় পরিষদের সভাপতি নজরুল ইসলাম মোস্তাফিজের সভাপতিত্বে ও শিল্পী দীপংকর দেবনাথের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন শওকত ওসমান জাহাঙ্গীর, মোহাম্মদ নাছির, রূপম মুৎসদ্দি টিটু, সঞ্জয় গান্ধী, নিরঞ্জন ঘোষ, বাবুল দাশ, মোহাম্মদ সায়েম উদ্দিন, শিল্পী সমীরন পাল, প্রিয়া ভৌমিক প্রমুখ।- প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
মতবিনিময় সভায় শাহাদাত: করোনার টিকা মানুষের জন্য সহজলভ্য করে দিতে হবে
১৭,জানুয়ারী,রবিবার,নিউজ ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চসিক নির্বাচনে বিএনপির মেয়র প্রার্থী ও মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক ডা. শাহাদাত হোসেন বলেছেন, করোনা মহামারীর মধ্যে মানুষ তাদের চিকিৎসা পাওয়ার মৌলিক অধিকারগুলো ঠিকমতো পাচ্ছে না। সরকারের সুষ্ঠু পরিকল্পনার অভাবে তা ব্যাহত হয়েছে। অতি সাধারণ মানুষগুলো তাদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা থেকে বঞ্চিত হয়েছে। এমতাবস্থায় করোনার টিকা মানুষের জন্য সহজলভ্য করে দিতে হবে। বেসরকারি খাতে দিয়ে হলেও মানুষ যাতে এই টিকা সহজভাবে পায় তার ব্যবস্থা নিতে হবে। তিনি গত ১৫ জানুয়ারি নাসিমন ভবনস্থ দলীয় কার্যালয়ের মাঠে মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন বক্তব্যে মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব আবুল হাশেম বক্কর। প্রধান বক্তা ছিলেন কেন্দীয় স্বেচ্ছাসেবক দলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান। বিশেষ বক্তা ছিলেন, কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদির ভূঁইয়া জুয়েল। এইচ এম রাশেদ খানের সভাপতিত্বে ও বেলায়েত হোসেন বুলুর পরিচালনায় সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন, আনু মোহাম্মদ শামীম আজাদ, জামির হোসেন, ইয়াছিন আলী, শওকত আজম খাজা, সাদরেজ জামান, হাসান বিন শফিক সোহাগ, এম জি মাসুম রাসেল, সাইদুর রহমান মামুন, সরোয়ার আলম সারু, মহসিন চৌধুরী রানা, রফিকুল ইসলাম, সরোয়ার উদ্দীন সেলিম।- প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
আঞ্জুমান মুফিদুল ইসলামের শীতবস্ত্র বিতরণ
১৭,জানুয়ারী,রবিবার,নিউজ ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: আঞ্জুমান মুফিদুল ইসলাম চট্টগ্রাম শাখার উদ্যোগে এম. এম আলী রোডস্থ আঞ্জুমান কার্যালয়ের অফিস চত্বরে গতকাল শনিবার শীতবস্ত্র (কম্বল) বিতরণ করা হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন আঞ্জুমানের নির্বাহী সদস্য ও উপপুলিশ কমিশনার (সদর) মো. আমির জাফর। উপস্থিত ছিলেন কোষাধ্যক্ষ মোরশেদুল আলম কাদেরী, সহ-সাধারণ সম্পাদক কাজী মো. আশেকে এলাহী, নিবাহী সদস্য হাজী জাহানারা বেগম (লুনা), নিজাম উদ্দীন মাহমুদ হোসাইন ,সহকারী পরিচালক মো. সেলিম নাসের প্রমুখ। তাছাড়া আঞ্জুমান মুফিদুল ইসলামের কর্মকর্তা/কর্মচারীবৃন্দ শীতবস্ত্র (কম্বল) বিতরণ অনুষ্ঠানে সার্বিকভাবে সহযোগিতা করেন। কম্বল বিতরণ অনুষ্ঠান শেষে উপ পুলিশ কমিশনার (সদর) মো. আমির জাফর সংস্থার নেতৃবৃন্দদ্বয়কে সাথে নিয়ে আঞ্জুমান বহুতল ভবন নির্মাণ প্রকল্প পরিদর্শন করেন।- প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
নৌকা, মিষ্টি কুমড়া ও বই প্রতীকের জনজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে- নিছার উদ্দিন আহমেদ মঞ্জু
১৬,জানুয়ারী,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম নগরীতে নৌকা ও ১০ নং উত্তর কাট্টলী ওয়ার্ডে মিষ্টি কুমড়া ও বই প্রতীকের জনজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে, এই তিনটি প্রতীক জননেত্রীর মনোনীত প্রতীক বিধায় নগরবাসী ও উত্তর কাট্টলী বাসি জননেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের ধারা উব্যাহত রাখতে একজোট হয়েছেন। আশাকরি এই জনজোয়ারের প্রতিফলন ঘটবে আগামী ২৭ শে জানুয়ারী, কোনো যড়যন্ত্রই এই জনজোয়ারে বাধাগ্রস্ত করতে পারবে না ইনশাআল্লাহ। ১৬ ই জানুয়ারী ১০ নং উত্তর কাট্টলী ওয়ার্ডের বড় কালীবাড়িস্থ জোনাকী ক্লাবে নৌকা, মিষ্টি কুমড়া ও বই প্রতীকের সমর্থনে আকবরশাহ থানা আওয়ামী লীগের আয়োজিত মহিলা সমাবেশে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে ড. আলহাজ্ব নিছার উদ্দিন আহমেদ মঞ্জু এসব কথা বলেন।তিনি আরো বলেন, আমি বিগত দিনে উত্তর কাট্টলী বাসির সেবায় সর্বদায় নিজেকে নিয়োজিত রেখেছি, করোনা মহামারীতে ও নিজের জীবনের এবং পরিবারের সদস্যদের জীবনের মায়া ত্যাগকরে এলাকাবাসীর সেবায় নিয়জিত ছিলাম,এবারও আমি নির্বাচিত হলে আমার এলাকাবাসীকে সাথে নিয়ে মাদক ও সন্ত্রাস মুক্ত একটি আধুনিক ওয়ার্ড হিসেবে উপহার দিবো। উক্ত সমাবেশের প্রধান অতিথি চট্টগ্রাম মহানগর মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি হাসিনা মহিউদ্দিন বলেন, আগামী ২৭ জানুয়ারি আপনারা একযোগে নৌকা, মিষ্টিকুমড়া ও বই মার্কায় ভোট দিয়ে জয়জুক্ত করবেন, সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর প্রার্থী তছলিমা বেগম নুরজাহান ( রুবি) ( বই প্রতিক) বলেন,আমাকে দল থেকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে আপনাদের সেবা করার জন্য, আমার প্রতিক বই,আগামী ২৭ জানুয়ারী নৌকা, মিষ্টি কুমড়ার পাশাপাশি বই মার্কায় ও আপনার একটি মূল্যবান ভোট প্রদান করে আপনাদের সেবা করার সুযোগ দিবেন। উক্ত সভায় আকবরশাহ থানা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, শ্রমীকলীগ, মহিলা আওয়ামী লীগের নেতা কর্মী ও স্থানীয় গন্যমান্য ব্যাক্তিগণ উপস্থিত ছিলেন। উক্ত সভায় এলাকার সর্বস্থরের মানুষের সৎপূর্থ অংশগ্রহণে নৌকা, মিষ্টি কুমড়া ও বই প্রতিকের প্রাথীরা বিপুল ভোটের মাধ্যমে জয়ী হবেন বলে সমাবেশে আগত সকলে মন্তব্য করেন।
গণসংযোগকালে রেজাউল: হোল্ডিং ট্যাক্স না বাড়িয়ে উন্নয়ন পরিকল্পনা সাজাব
১৬,জানুয়ারী,শনিবার,নিউজ ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চসিক নির্বাচনে বৃহত্তর বাকলিয়া এলাকার তিন ওয়ার্ডে মেয়র প্রার্থী রেজাউল করিম চৌধুরীর সমর্থনে গণসংযোগে বিভিন্ন পথসভায় বক্তব্য রেখেছেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন এবং আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী মুক্তিযোদ্ধা এম রেজাউল করিম চৌধুরী। গতকাল শুক্রবার শুরু হওয়া গণসংযোগের বিভিন্ন পথসভায় আওয়ামী লীগের এই তিন নেতা বক্তব্য দেন। পথসভায় রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, আধুনিক বাকলিয়া গড়তে উন্নয়নের প্রতীক নৌকায় ভোট দানের আহ্বান জানিয়ে বলেন, মেয়র নির্বাচিত হলে হোল্ডিং ট্যাক্স না বাড়িয়েই উন্নয়ন পরিকল্পনা সাজাব এবং আধুনিক সেবা নিশ্চিত করব। প্রসঙ্গক্রমে তিনি আরো বলেন, বাকলিয়াবাসীকে অতীতে বিএনপি মিথ্যে স্বপ্ন দেখিয়ে ভোট নিয়ে গিয়েছিল। আবার তারা এটাকে তাদের ভোট ব্যাংক বলেও দাবি করত। কিন্তু বাকলিয়ার উন্নয়নে তারা কিছুই করেনি। বাকলিয়ার মানুষ আর ধোকাবাজির ফাঁদে পড়বে না। কারণ তারা জানে, একমাত্র আওয়ামী লীগই এ এলাকার উন্নয়নে কাজ করেছে। নৌকায় ভোট দিয়ে কেউ ঠকেনি। বৃহত্তর বাকলিয়াকে পরিকল্পিত ও স্বয়ংসম্পূর্ণ করে আকর্ষণীয় নান্দনিক রূপে সাজানোর সুযোগ রয়েছে, এটি আওয়ামী লীগ দেখিয়েছে। বাকলিয়ার উন্নয়নের ধারাকে অব্যাহত রাখতে বাকলিয়াবাসী নৌকার বিজয় নিশ্চিত করবে বলে আমি আশাবাদী। আধুনিক হাসপাতাল, স্কুল, কলেজ, খেলার মাঠ, পার্ক ও সুস্থ সংস্কৃতি চর্চা কেন্দ্র, কর্ণফুলী তীরবর্তী পর্যটন স্পট নিয়ে বাকলিয়া হতে পারে শহরের ভেতর নতুন আরেক শহর। আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন বলেন, সারা বাংলাদেশের মানুষ চট্টগ্রামকে বীর চট্টলা হিসেবে জানে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চসিক নির্বাচনে একজন বীর মুক্তিযোদ্ধাকে মনোনয়ন দিয়েছেন। তাঁকে সম্মান জানিয়ে স্বাধীনতা ও উন্নয়নের প্রতীক নৌকায় ভোট দিয়ে মেয়র নির্বাচিত করা সকলের নৈতিক দায়িত্ব। এ সময় ভোটারদের উদ্দেশে সাবেক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন বলেন, জলামগ্নতা এ এলাকার একটি চরম সমস্যা। শেখ হাসিনা চট্টগ্রামের প্রতি আন্তরিক। চলমান রিভার ড্রাইভ রোডসহ ও জলাবদ্ধতা নিরসনে চলমান মেগাপ্রকল্প সম্পন্ন হলে এ সমস্যার একটা সুরাহা হবে। খাল খনন, সমপ্রসারণ ও সংস্কার এবং নগরীর ড্রেনেজ ব্যবস্থায় চলমান কাজগুলো সম্পন্ন হলে মশকের প্রজনন ক্ষেত্র অনেকটাই ধ্বংস হবে, মশার উৎপাত কমে আসবে। এছাড়াও মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নোমান আল মাহমুদ, ক্রীড়া সম্পাদক দিদারুল আলম চৌধুরী, ১৭নং ওয়ার্ড পশ্চিম বাকলিয়া কাউন্সিলর প্রার্থী মোহাম্মদ শহিদুল আলম, ১৮ নং পূর্ব বাকলিয়া ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী মোহাম্মদ হারুন অর রশিদ, ১৯ নং দক্ষিণ বাকলিয়া ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী মো. নূরুল আলম, ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুল হায়দার চৌধুরী রোটন, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক নেতা আহমদ হোসেন, ১৭, ১৮ ও ১৯ নং ওয়র্ডের সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদপ্রার্থী শাহীন আকতার রোজী, মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম রনি প্রমূখ নেতৃবৃন্দ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
নির্বাচিত হলে নগরের স্বাস্থসেবার উন্নয়নে কাজ করার প্রতিশ্রুতি শাহাদাতের
১৬,জানুয়ারী,শনিবার,নিউজ ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: নগরীর চকবাজার ধুনিরপোল ডিসি রোডে নির্বাচনী কার্যালয় উদ্বোধন করেছেন বিএনপি’র মেয়র প্রার্থী ডা. শাহাদাত হোসেন। গতকাল দুপুরে উদ্বোধন শেষে চকবাজার ওয়ার্ডের বিভিন্ন এলাকা গণসংযোগ করেন তিনি। এসময় নির্বাচিত হলে নগরের স্বাস্থসেবার উন্নয়নে কাজ করার প্রতিশ্রুতি দেন তিনি। এছাড়া অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার অভিযান পরিচালনা করতে প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানান। গতকাল ছিল চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনী প্রচারণার অষ্টম দিন। এদিন ধুনিরপোল থেকে গণসংযোগ শুরু করে সিরাজুদৌলা রোড, চন্দনপুরা, গণি বেকারি, কলেজ রোড, অলি খাঁ মসজিদ মোড়, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ও আশেপাশের এলাকা, পাঁচলাইশ বড় গ্যারেজ, কাতালগঞ্জ হয়ে তেলিপট্টি মোড় এলাকায় শেষ করেন ডা. শাহাদাত হোসেন। প্রচারণায় ডা. শাহাদাত বলেন, স্বাস্থ্যসেবা মানুষের মৌলিক অধিকার। জনগণের স্বাস্থ্যকে ঝুঁকিমুক্ত রাখাই আমাদের কাছে মুখ্য। চট্টগ্রাম এখন করোনা ভাইরাসের ঝুঁকিতে রয়েছে, এটি দীর্ঘস্থায়ী হচ্ছে। পাশাপাশি চট্টগ্রামে ক্যান্সার রোগীও দিন দিন বেড়ে যাচ্ছে। তাই চট্টগ্রামবাসীর নিরাপদ, পরিচ্ছন্ন ও স্বাস্থ্যসম্মত একটি শহরের জন্য আমরা জনগণের দল হিসেবে জনগণের পাশে আছি এবং থাকবো। নির্বাচিত হলে ইনশাল্লাহ সিটি কর্পোরেশনের তত্ত্বাবধানে চট্টগ্রামে একটি আধুনিক বিশেষায়িত করোনা মহামারী হাসপাতাল এবং একটি ক্যান্সার হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করবো। তিনি বলেন, সিটি কর্পোরেশন পরিচালিত যেসব নগর স্বাস্থকেন্দ্র এবং হাসপাতাল রয়েছে সেগুলোকে উন্নত, সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি ও সংস্কার করার পাশাপাশি প্রতিটি ওয়ার্ডে মা শিশু এবং বয়স্কদের জন্য রোগ নিরাময় কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা, শিশুদের জন্য ছয় থেকে সাত বেডের এনআইসিও চালু করার পরিকল্পনা রয়েছে। যাতে মা শিশুদের উন্নত সেবার পাশাপশি বয়স্কদের বাত-ব্যথাসহ নানান রোগের চিকিৎসা নিজ এলাকায় পেতে পারেন। ডা. শাহাদাত আরো বলেন, ছাত্রলীগ যুবলীগ সন্ত্রাসীদের হাতে থাকা অবৈধ অস্ত্র সাধারণ ভোটার ও বিএনপি নেতা কর্মীদের মধ্যে ভয়ভীতি ছড়ানোর জন্য ব্যবহার করতে পারে। তাই নিয়মানুযায়ী নির্বাচনের পূর্বে সকল বৈধ অস্ত্র জমা নিয়ে সন্ত্রাসীদের হাতে থাকা অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে সাড়াশি অভিযান পরিচালনার জন্য প্রশাসনকে আহ্বান জানাচ্ছি। অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে অভিযান কিংবা বৈধ অস্ত্র জমা নেয়ার কোনো ধরনের উদ্যোগ না নেয়ায় প্রতিদিন ক্ষমতাসীন দলের সন্ত্রাসীদের অস্ত্রের ঝঁনঝনানি, হানাহানি শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যে নিজেদের মধ্যে গোলাগুলি ও ছুরিকাঘাতে ২ জন নিহত হয়েছে। পথসভায় অংশ নিয়ে দক্ষিণ জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আবু সুফিয়ান অবরুদ্ধ গণতন্ত্রকে মুক্ত করতে ভোট কেন্দ্রে গিয়ে যোগ্য প্রার্থী ডা: শাহাদাত হোসেনকে নির্বাচিত করতে ভোটারদের প্রতি আহ্বান জানান। গণসংযোগে উপস্থিত ছিলেন চকবাজার ওর্য়াড কাউন্সিলর প্রার্থী সালাউদ্দীন কায়সার লাবু, পশ্চিম বাকলিয়া ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী আরিফুল ইসলাম ডিউক, মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থী পারভীন আক্তার চৌধুরী, মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থী শামীমা নাসরিন, বিএনপি নেতা অধ্যাপক ইউনুচ চৌধুরী, কাজী বেলাল উদ্দিন, ইয়াছিন চৌধুরী লিটন, গাজী সিরাজ উল্লাহ, মো. কামরুল ইসলাম, জেলী চৌধুরী মো. সেকান্দর, আব্দুল্লাহ আল ছগির, মনজুর আলম মনজু, বিএনপি নেতা শফিকুল আলম, ইব্রাহিম বাচ্চু, আমিন মাহমুদ, আবু আহমেদ, অধ্যক্ষ খোরশেদ আলম, ইসমাঈল বাবুল, খায়রুজ্জামান জুনু, হাজী মো. এমরান, এম এ হালিম বাবলু, এমদাদুল হক বাদশা, সহ সভাপতি নাছিম চৌধুরী, নুরুল আলম শিপু, হাজী মো: ইউসুফ, জমির উদ্দিন বাবলু, আব্দুল কাদের, আইয়ুব খান, হাফেজ আহমেদ, জসিম উদ্দীন, মো: আলাউদ্দীন, হামিদুল হক, সৈয়দুল আমিন, জাহেদুল হক, রোকন উদ্দৌলা, মো: আজম, মিজানুর রহমান, খালেদ বিন মিঠু, মো: উসমান, মো: আলমগীর, হাসনাত মাসুদ, মো: ইউসুফ, মেহেদী হাসান, জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ।
করোনা: ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রামে নতুন আক্রান্ত ৮৮ জন
১৬,জানুয়ারী,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: গত ২৪ ঘন্টায় চট্টগ্রামে ১ হাজার ১৬৮টি নমুনা পরীক্ষা করে নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৮৮ জন। এ নিয়ে মোট আক্রান্ত ৩২ হাজার ১২ জন। এসময়ে চট্টগ্রামে করোনায় মৃত্যুবরণ করেনি কেউ। শনিবার (১৬ জানুয়ারি) সকালে সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, এইদিন কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ ল্যাব ও চট্টগ্রামে ৬টি ল্যাবে নমুনা পরীক্ষা হয়। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবে ১০৫টি নমুনা পরীক্ষা করে ২৭ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেসে (বিআইটিআইডি) ২৬২টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে শনাক্ত হয় ৮ জন। চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) ল্যাবে ৪৭১টি নমুনা পরীক্ষা করে ২১ জনের শরীরে করোনা ভাইরাস পাওয়া গেছে। ইম্পেরিয়াল হাসপাতাল ল্যাবে ৮৪টি নমুনা পরীক্ষা করে ১৩ জন, শেভরণ ক্লিনিক্যাল ল্যাবরেটরিতে ৮৪টি নমুনা পরীক্ষা করে ১৪ জন এবং চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতাল ল্যাবে ১৮টি নমুনা পরীক্ষা করে ৫ জন করোনা আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছেন। এইদিন, চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি অ্যান্ড অ্যানিম্যাল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় (সিভাসু) ল্যাবে এবং জেনারেল হাসপাতালের রিজিওনাল টিবি রেফারেল ল্যাবরেটরিতে (আরটিআরএল) কোনো নমুনা পরীক্ষা করা হয়নি। কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ ল্যাবে চট্টগ্রামের ১৪৪টি নমুনা পরীক্ষা করে কারো শরীরে করোনা ভাইরাসের অস্তিত্ব মিলেনি। চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি জানান, গত ২৪ ঘণ্টার নমুনা পরীক্ষায় ৮৮জন নতুন আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছেন। এইদিন নমুনা পরীক্ষা করা হয় ১ হাজার ১৬৮টি। নতুন আক্রান্তের মধ্যে মহানগর এলাকায় ৭৭ জন এবং উপজেলায় ১১ জন।
২১ বছর বুকে পাথর বেঁধে থাকা ত্যাগীদের মূল্যায়ন করতে হবে: তথ্যমন্ত্রী
১৫,জানুয়ারী,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, আওয়ামী লীগ যখন ক্ষমতায় ছিল না, তখন যারা নির্যাতন ও কষ্ট সহ্য করেছে, যারা ২১ বছর বুকে পাথর বেঁধে দল করেছে, সেই ত্যাগী নেতাদের দলে মূল্যায়ন করতে হবে। তবেই তৃণমূল পর্যায়ে দল সুসংগঠিত হবে। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ খেটে খাওয়া মানুষের দল, এ দলে সুযোগসন্ধানীদের কোনো স্থান নেই। যারা দলের জন্য নিবেদিত তারাই আসন্ন স্থানীয় সরকার নির্বাচনে প্রাধান্য যেমন পাবেন, তেমনি দলীয় ভাবেও পদ পদবিতে স্থান পাবেন। আগামীতে কোনো কাউয়ার স্থান আওয়ামী লীগে হবে না। অনুপ্রবেশকারীদের চিহ্নিত করে বিতাড়িত করা হবে। শুক্রবার (১৫ জানুয়ারি) বিকেলে কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অ্যাডভোকেট ফরিদুল ইসলাম চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র মুজিবুর রহমানের সঞ্চালনায় জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য দেন জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোস্তাক আহমেদ চৌধুরী, সংসদ সদস্য আশেক উল্লাহ রফিক, সাইমুম সরওয়ার কমল, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সালাহ উদ্দিন আহমেদ সিআইপি, কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান কর্নেল ফোরকান আহমদ, মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি কানিজ ফাতেমা আহমেদ মোস্তাক, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি রেজাউল করিম। তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, একশ্রেণির লোক আওয়ামী লীগকে নিরাপদ স্থান হিসেবে ব্যবহার করতে দলে ঢুকে পড়ছে। যারা অপকর্মে লিপ্ত, যারা অবৈধ আয়ের পথে রয়েছে, যারা অবৈধ আয়ের টাকা রক্ষা করতে মরিয়া মূলত তারাই দলে অনুপ্রবেশকারী। নৌকায় বেশি যাত্রী হলে ডুবে যাবার উপক্রম হয়, তাই আর কোনো যাত্রীর দরকার নেই। আগামী স্থানীয় সরকার নির্বাচনে মনোনয়ন বিষয়ে নেতাদের উদ্দেশে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, তৃণমূল থেকে নাম পাঠানোর সময় দলের জন্য ত্যাগী, বিশ্বস্তদের নাম পাঠাবেন। দলের সিদ্ধান্ত না মেনে নির্বাচনে অংশ নিলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও কঠোর হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন তিনি। কক্সবাজার কেন্দ্রিক সরকারের উন্নয়ন পরিকল্পনার চিত্র তুলে ধরে তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, কক্সবাজারের মানুষ ভাবেনি এখানে আন্তর্জাতিক মানের একটি বিমানবন্দর হবে। স্বপ্নকে হার মানিয়ে উন্নয়ন হচ্ছে। গৃহহীনকে ঘর দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, কয়েক বছর আগেও কক্সবাজারের এই চিত্র ছিল না। এখানে যেসব উন্নয়নকাজ হচ্ছে তা অকল্পনীয়। দেড়শ বছর পর দেশের রেললাইন সম্প্রসারণের কাজ চলছে। আগামী বছর জুন মাস নাগাদ কক্সবাজারেও রেল যোগাযোগ শুরু হবে, সেটা স্বপ্ন নয়, বাস্তবতা। তথ্যমন্ত্রী বলেন, গত ১২ বছরে দেশের প্রতিটি মানুষের চেহারার পরিবর্তন হয়েছে। রুচির পরিবর্তন ঘটেছে। এখন আর ছেঁড়া কাপড়, খালি পায়ে মানুষ দেখা যায় না। ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ গেছে। গ্রামে-গঞ্জেও ব্যাপক উন্নয়নের জোয়ার। তা আওয়ামী লীগের নেতাদের কারণে সম্ভব হয়েছে। শেখ হাসিনার যোগ্য নেতৃত্বে দেশ আরো অনেক দূর এগিয়ে যাবে বলেও মন্তব্য করেন হাছান মাহমুদ। মতবিনিময় সভায় ১২ বছর আগের উন্নয়ন এবং এখনকার উন্নয়ন চিত্র মানুষের মাঝে তুলে ধরতে তৃণমূলের নেতা কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান তথ্যমন্ত্রী।
বিদ্রোহী প্রার্থীর পৃষ্ঠপোষকদের ব্যাপারেও কঠিন সিদ্ধান্ত
১৫,জানুয়ারী,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: নির্বাচনের সার্বিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণের জন্য ঢাকা থেকে আসা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন বলেছেন, দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে যারা বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন তাদের বহিস্কারের সুপারিশ করা হয়েছে। পাশাপাশি যারা বিদ্রোহীদের পৃষ্ঠপোষকতা করছেন তাদের ব্যাপারেও কঠোর সাংগঠনিক সিদ্ধান্ত আসতে পারে। শুক্রবার (১৫ জানুয়ারি) আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী রেজাউল করিম চৌধুরীর প্রধান নির্বাচনী কার্যালয়ে আওয়ামী লীগ নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেন তিনি। আহমদ হোসেন বলেন, আমরা যারা আওয়ামী লীগের রাজনীতি করি, দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে গিয়ে কাজ করতে পারি না। তাছাড়া মনোনয়ন চেয়ে যারা আবেদন করেছিলেন প্রত্যেকেই দলীয় সিদ্ধান্ত মেনে নিয়ে দল সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থীদের পক্ষে কাজ করার অঙ্গীকার করেছেন। অন্যথায় দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের কারণে স্বয়ংক্রিয়ভাবে দলীয় পদ হারাবেন বলে মুচলেকায় উল্লেখ ছিল। তিনি বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন অগ্রযাত্রার যুগপূর্তি, মুজিব শতবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী আমরা নৌকার বিজয়ের মধ্য দিয়ে পালন করতে চাই। দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম নগরী হিসেবে চট্টগ্রামের মেয়র হিসেবে আমাদের প্রার্থীর বিজয় অত্যন্ত গুরুত্ব বহন করে। নির্বাচনী পরিস্থিতির কথা বলতে গিয়ে আহমদ হোসেন বলেন, ভোটার উপস্থিতিতেই সুষ্ঠু নির্বাচন হবে। নির্বাচন কমিশন নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখতে স্বাধীনভাবে কাজ করছে। বক্তব্যে তিনি নেতাকর্মীদেরকে ঘরে ঘরে উন্নয়নের বার্তা নিয়ে গিয়ে নৌকার পক্ষে গণজোয়ার সৃষ্টি করার আহ্বান জানান। আলোচনায় অংশ নিয়ে মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, ছোট ছোট গ্রুপে ভাগ হয়ে এই কার্যক্রমকে আরো গতিশীল করে ঘরে ঘরে উন্নয়নের বার্তা পৌঁছে দিয়ে নৌকায় ভোট চাইতে হবে। মেয়র প্রার্থী রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, আমরা নির্বাচনে বিশ্বাসী, গণমানুষের রায়ে বিশ্বাসী। সুষ্ঠু, সুন্দর ও উৎসবমুখর পরিবেশে উন্নয়নের প্রতীক নৌকায় ভোট দিতে মানুষ ভোটকেন্দ্রে আসবে বলে আমি আশাবাদী। গণসংযোগে নৌকা ও আওয়ামী লীগের প্রতি মানুষের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ দেখে বিএনপি নানা অজুহাত তুলে নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করে নির্বাচন থেকে সরে গিয়ে পরাজয়ের গ্লানি এড়াতে চাইছে। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন মহানগর আওয়ামী লীগের সদস্য মো. বেলাল হোসেন, মিররাইয়ের উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন, ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুল হায়দার চৌধুরী রোটন প্রমুখ।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর