বাংলাদেশ সাংবাদিক ফেডারেশন চট্রগ্রাম বিভাগীয় কমিটি গঠন
২৮জানুয়ারী,মঙ্গলবার,ষ্টাফ রিপোর্টার,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: বাংলাদেশ সাংবাদিক ফেডারেশন (বিডিএসএফ) চট্টগ্রাম বিভাগীয় আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে । পেশাদার সাংবাদিকদের সমন্নয়ে গঠিত কমিটিতে বিবিসি নিউজ টুয়ান্টি ফোর ডট কম ডট বিডি এর সম্পাদক ও প্রকাশক মাহামুদুল হাসান রাকিব কে আহবায়ক, দি কমার্সিয়াল টাইমস এর চট্রগ্রাম প্রতিনিধি সজল চৌধুরী কে যুগ্ন-আহবায়ক ও দৈনিক প্রিয় বাংলাদেশ পত্রিকার চট্রগ্রাম প্রতিনিধি খোকন মজুমদার রাজিব কে সদস্য সচিব করে ৭ সদস্য বিশিষ্ট চট্রগ্রাম বিভাগীয় আহবায়ক কমিটির অনুমোদন দিয়েছে বাংলাদেশ সাংবাদিক ফেডারেশন(বিডিএসএফ) এর কেন্দ্রীয় কমিটি। শনিবার (২৫ ই জানুয়ারী) চট্রগ্রাম বিভাগীয় আহবায়ক কমিটির প্রেরিত কপিতে কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মাইনুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক মাসুদ রানা স্বাক্ষর করে উক্ত কমিটির অনুমোদন প্রদান করেন। এ সময় তারা সাংবাদিকদের কল্যানে কাজ করার জন্য চট্রগ্রাম বিভাগীয় আহবায়ক কমিটির প্রতি আহবাণ জানান। এবং আগামী তিন মাসের মধ্যে পূনাঙ্গ কমিটি করার নির্দেশ প্রদান করেন। সদস্যতে যারা নিযুক্ত হয়েছেনঃ মোঃ রাকিবুর রহমান,মোঃ তারেকুল ইসলাম,মোঃ রাসেল হোছাইন,মোঃ আব্দুল আওয়াল রোকন।
আহলে সুন্নাত নেতা মাওলানা নুরে বাংলা কারামুক্তিতে বিপুল সংবর্ধনা
২৭জানুয়ারী,সোমবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: আহলে সুন্নাত ওয়াল জমাআতের জনপ্রিয় ইসলামী বক্তা মাওলানা মাহবুবুল আলম নুরে বাংলা দীর্ঘ ১৮ দিনের কারাবাসের পরে ২৭ জানুয়ারি সোমবার বিকাল ৫টায় চট্টগ্রাম কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি পেয়েছেন। মুক্তি পেয়ে কারাগারের বাইরে আসলে শত শত সুন্নী জনতা, বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট, যুবসেনা ও ছাত্রসেনার বিভিন্ন স্থরের নেতাকর্মিরা তাকে বিপুলভাবে সংবর্ধিত করে। ছাত্রসেনা কেন্দ্রীয় গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক ছাত্রনেতা মুহাম্মদ মাছুমুর রশিদ কাদেরীর সঞ্চালনায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে মাওলানা মাহবুবুল আলম নুরে বাংলা বলেন, শান্তির ধর্ম ইসলাম ও মানবতার মুক্তির দিশারী প্রিয়নবী (দ.) এর মান-মর্যদাকে সমুন্নত রাখতে এবং সোনার বাংলার স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বকে অক্ষুন্ন রাখতে আমি সবসময় কথা বলে যাব। স্বাধীনতা বিরোধী রাজাকার গোষ্ঠী কোন মামলা হামলার মাধ্যমে আমাকে সত্যের পক্ষে কথা বলা থেকে বিরত রাখতে পারবে না। এসময় তিনি তাঁর গ্রেফতার পরবর্তী সময়ে রাজনৈতিক ও আইনী সংগ্রামে যারা যুক্ত ছিলেন তাদের কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন। সংবর্ধনায় উপস্থিত ছিলেন আহলে সুন্নাত নেতা আব্দুল মোতালেব, আল্লামা নুরুল আবছার, ইসলামী ফ্রন্ট দক্ষিণ জেলা সহ-সভাপতি মাস্টার মুহাম্মদ আবুল হোসাইন, যুবসেনা কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মুহাম্মদ আবু আজম, ছাত্রসেনা কেন্দ্রীয় সভাপতি জি.এম শাহাদত হোসাইন মানিক, অ্যাডভোকেট মোজাম্মেল ফারুকী, এডিএম আরুছুর রহমান, অ্যাড. মুহাম্মদ ফরিদুল ইসলাম, অ্যাড. মুহাম্মদ মোজাম্মেল, ইসলামী ফ্রন্ট নেতা মাওলানা সোহাইল উদ্দিন আনসারী, মাওলানা ইউনুচ তৈয়বী, ছাত্রনেতা গোলাম মোস্তফা, এইচ এম এনামুল হক, মুহাম্মদ গোলাম তাহের, আবু ছালেহ আঙ্গুর, হাফেজ আমিন, মাওলানা আবু ছালেহ কাদেরী, হাফেজ মাওলানা এনাম, মুহাম্মদ আবু বক্কর, মুহাম্মদ ফরিদুল আলম, মুহাম্মদ ইলিয়াস সহ নেতাকর্মীবৃন্দ। সংবর্ধনা অনুষ্ঠান শেষে মাওলানা মাহবুবুল আলম নুরে বাংলা শহর কুতুব হযরত শাহ্ আমানত (রহ.) এর পবিত্র মাযার যিয়ারত করেন।
এক নজরে ৩৩ নং ফিরিঙ্গী বাজার ওয়ার্ডের উন্নয়ন চিত্র ও পরিকল্পনা
২৭জানুয়ারী,সোমবার,কমল চক্রবর্তী,বিশেষ প্রতিনিধি,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের কোতোয়ালী থানাধীন ১ বর্গ কিলোমিটার এলাকার মোট জনসংখ্যা প্রায় এক লক্ষ ও মোট বিশ হাজার ভোটারের ৩৩ নং ফিরিঙ্গী বাজার ওয়ার্ডের উন্নয়ন চিত্র ও আগামীর পরিকল্পনা তুলে ধরা হল। সরেজমিনে ঘুরে দেখা এলাকার উন্নয়ন চিত্র ও বর্তমান সফল কাউন্সিলর আলহাজ্ব হাসান মুরাদ বিপ্লবের আগামীর উন্নয়ন পরিকল্পনা তুলে ধরা হল। বর্তমান উন্নয়ন চিত্রঃ সিটি কর্পোরেশন ও ফিরিঙ্গী বাজার ওয়ার্ড অফিস সুত্রে জানা গেছে, ৩৩ নং ফিরিঙ্গী বাজার ওয়ার্ডের বিভিন্ন প্রকল্পে মোট ১২৩ কোটি টাকার এডিবির বরাদ্ধের কাজ চলছে। তারমধ্যে উল্লেখ যোগ্য কাজ গুলোর মধ্যে কোতয়ালী মোড়ের হজরত শাহ সুন্দর মাজার সজ্জিতকরণ কাজ করেছেন। কাজ চলমান আছে আলকরন-১, ২, ৩ নং গলির ড্রেন সম্প্রসারণ ও রাস্তা প্রসস্থ করন কাজ। বাটা গলির রাস্তা পাকা করনের কাজ। ৩ কোটি টাকা ব্যায়ে ডাঃ মান্নান গলির কাঁচা রাস্তা পাকাকরনের কাজ । কবি নজরুল সড়ক পাকাকররনের কাজ। হাজী কলোনির রাস্তা পাকাকরনের কাজ। এয়াকুব নগর এর রাস্তা পাকাকরনের কাজ। শিব বাড়ি এলাকার রাস্তা মেরামত ও পাকাকরনের কাজ। কোতয়ালী থেকে মেরিনার্স রোড পর্যন্ত মিড আইল্যান্ড সজ্জিতকরণ ও সম্প্রসারণ। প্রায় ৪ কোটি টাকা ব্যায়ে কোতয়ালী থেকে মেরিনার্স ও অভয়মিত্র ঘাট পর্যন্ত রোড কারপেটিং এর কাজ। ব্রিজ ঘাট এলাকার রাস্তা পাকাকরনের কাজ । বান্ডেল খালের উপর দুটি রিটাইনিং ওয়াল নির্মাণ কাজ। ডাঃ জাকির হোসেন হোমিও কলেজের দশ তলা ভবনের মধ্যে ৬ তলা ভবন নির্মাণ কাজ। হরিজন সেবকদের জন্য অত্যাধুনিক বহুতল ভবন নির্মাণ কাজ যা ইতিমধ্যে এর ভিতিপ্রস্তর স্তাপন করা হয়েছে এবং দরপত্র চুরান্ত পর্যায়ে আছে। দ্রুত কাজ শুরু হবে। আলকরন ২নং গলির পুকুর সংস্কার ও সৌন্দর্য বর্দ্ধন। মহিলা ও পুরুষদের জন্য আলাদা ঘাট। আছে মহিলাদের পোশাক পরিবর্তনের জন্য পুকুর পাড়ে নির্দিষ্ট কক্ষ। পুকুরের চার পাশ ও রাস্তা সিসি ঢালাই করা। আলকরন সুলতান আহমেদ দেওয়ান সিটি করপরেশন উচ্চ বিদ্যালয়ের উন্নতমানের গেইট স্থাপন। দেয়ালে বঙ্গবন্ধুর ও নতুন বই উৎসবের মুর্যারল স্থাপন। কবি নজরুল রোড থেকে ডাস্টবিন সড়িয়ে ফুলের বাগান করা হয়েছে। অভয় মিত্র ঘাট এলাকায় ডাস্টবিন সড়িয়ে ফুলের বাগান করা হয়েছে। চেয়ারম্যান ঘাট এলাকায় ফুলের বাগান। মহিম দাশ রোডের উন্নয়ন ও ডাস্টবিন সড়িয়ে ফুলের বাগান করা হয়েছে। সাবিত্রী স্কুল এর পাশে থাকা ডাস্টবিন সড়িয়ে ফুলের বাগান করা হয়েছে। ৩৩ নং ওয়ার্ড অফিসের সামনের রাস্তা সজ্জিতকরণ। যাত্রী ছাউনী তৈরি করা হয়েছে। ব্রীজ ঘাট এর রাস্তা প্রসস্ত করন ও রাস্তার মাঝখানে আইল্যান্ড স্থাপন ও সজ্জিতকরণ। মানুষের বসার জন্য একটি গোল চক্কর করা হয়েছে। বংশাল রোডের পাকাকরনের কাজ ও ড্রেন সমপ্রসারন। আব্দুর রহমান দোভাশ গলির রাস্তা পাকাকরন ও ড্রেন সম্প্রসারন। সুজা কাঠঘড় থেকে টুকিটাকি পর্যন্ত রাস্তা মেরামত ও পাকাকরন। ধাউম্মা পুকুর পাড় এলাকার রাস্তা পাকাকরন ও ড্রেন সম্প্রসারন। শাহজি পাড়ার রাস্তা পাকাকরন ও ড্রেন সম্প্রসারন। ফিরিঙ্গী বাজার মসজিদ গলির রাস্তা পাকাকরন ও ড্রেন সম্প্রসারন। টেক পাড়া এলাকার রাস্তা পাকাকরন। মধ্যম নোয়াপাড়া এলাকার রাস্তা পাকাকরন। ১ম নোয়াপাড়া এলাকার রাস্তা পাকাকরন ও ড্রেন সম্প্রসারন। চুরিয়াল টুলী এলাকার রাস্তা পাকাকরন ও ড্রেন সম্প্রসারন। জে এম সেন স্কুল এলাকার রাস্তার উপর থেকে ডাস্টবিন সড়িয়ে ফুলের বাগান করা হয়েছে। চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন পরিচালিত তিন বছর মেয়াদী ম্যাটস কোর্স চালু করন। ডিপ্লোমা ইন নার্স কোর্স চালু করন। রাস্তায় ব্যপক এলইডি বাল্ব স্থাপন করা হয়েছে। প্রতিটি সড়কে এলইডি বাল্ব স্থাপন। এলাকার ময়লা আবর্জনা অপসারনে ডাস্টবিন বসানো হয়েছে। সেইসাথে ডোর টু ডোর ময়লা অপসারনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। জলাবদ্ধতা নিরসনে ড্রেন গুলোকে সম্প্রসারণ। মাদক ও সন্ত্রাস নির্মূলে জনসচেতনতা তৈরি করতে দেয়ালে দেয়ালে সচেতনতার জন্য লেখনী। আগামীর নির্বাচন নিয়ে কথা হয় ৩৩ নং ফিরিঙ্গী বাজার ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সিলর আলহাজ্ব হাসান মুরাদ বিপ্লব এর সাথে, তিনি জানান, আমি আশাবাদী এলাকায় যে সকল কাজ করেছি তাতে এলাকার জনগন আমাকে আবার কাউন্সিলর হিসাবে নির্বাচিত করবে। আমার ওয়ার্ড একটি সমৃদ্ধ ওয়ার্ড। এখানে প্রাইমারী স্কুল, হাইস্কুল, কলেজ, মসজিদ, মাদ্রাসা হোমিও কলেজ সব মিলিয়ে এটাকে একটি শিক্ষা নগরী বলা চলে। আমি মাদক ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স। আমি আমার ওয়ার্ডকে মাদক মুক্ত ঘোষণা করেছি। আমার চাওয়া পাওয়ার কিছু নেই। জনগনের জন্য কিছু করতে পারাটাই আমার একমাত্র চাওয়া। আমি বিগত ৫ বছরে চেষ্টা করেছি জনগণকে সর্বোত্তম সেবা দিতে। আপনারা নিশ্চয় সরেজমিনে ঘুড়ে দেখেছেন এলাকার উন্নয়ন চিত্র। আমি এই উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রাখাতে চাই। আমি চাই এলাকার জনগন আমাকে ভালোবাসুক ও মন থেকে দোয়া করুক। জনগন চায় বলে আমি এই বারও নির্বাচন করব। অসমাপ্ত কাজ গুলো শেষ করব এবং আমার কিছু পরিকল্পনা আছে সেই গুলো বাস্তবায়নের জন্য। সেই সাথে আমাদের জানালেন আগামীর উন্নয়ন পরিকল্পনার কথা। আগামীর উন্নয়ন পরিকল্পনাঃ অসমাপ্ত কাজ গুলো অগ্রাধিকার ভিত্তিতে শেষ করা। এলাকায় একটি কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা। যেখানে থাকবে কম্পিউটার প্রশিক্ষন, সেলাই প্রশিক্ষন, বিউটি পার্লারের কাজ, বিভিন্ন হাতের কাজের প্রশিক্ষন। এখানে এলাকার বেকার যুবক ও মহিলাদের প্রশিক্ষন দিয়ে আত্মকর্মসংস্থানের সুযোগ করে দেয়া হবে। মাদক ও সন্ত্রাস মুক্ত একটি মডেল ওয়ার্ড গঠন। গরিব ও অসহায় পরিবারের সন্তানদের শিক্ষার জন্য আর্থিক সহায়তা প্রদান।এলাকার জনগনের বিনোদনের জন্য একটি পার্ক করা। এলাকার নিরাপত্তার জন্য সড়কে ব্যাপক হারে সিসি ক্যামরা স্থাপন। প্রতিটি রাস্তা শতভাগ আলোকায়নের ব্যবস্থা করা। ডোর টু ডোর ময়লা অপসারণ শতভাগ কার্যকর করন। ফুটপাত জনগনের হাঁটার উপযোগী করা। এলাকার জনগনের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানে ওয়ার্ড অফিসে কাউন্সিলিং বোর্ড গঠনের ব্যবস্থা করা।
উন্নয়নধারা অব্যাহত রাখতে ওয়ার্ড বাসির সহযোগিতা একান্ত প্রয়োজন
২৬জানুয়ারী,রবিবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: ৯নং উত্তর পাহাড়তলী ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মোঃ জহুরুল আলম জসিম বলেন, সামাজিক অপরাধীদের নির্মূল করতে সমাজ কল্যাণ পরিষদের নেতৃবৃন্দকে সৎ সাহস নিয়ে এগিয়ে আসতে হবে। গুটি কয়েক মাদক ও ইয়াবা ব্যবসায়ীদের কাছে পুরো সমাজ জিম্মি হয়ে থাকতে পারে না। অচিরেই ব্লক বাসীদের সহযোগিতা নিয়ে প্রতিটি আবাসিক এলাকায় সিটি ক্যামেরা স্থাপনের উদ্যোগ নেওয়া হবে। এ জন্য সমাজ সচেতন মানুষকে এগিয়ে আসতে হবে। পাহাড়তলী ওয়ার্ডের সর্বস্তরের জনগণের আন্তরিক সহযোগিতা পেয়েছি বলেই বর্তমান মেয়র আলহাজ্ব আ.জ.ম নাছির উদ্দিনের আন্তরিকতায় এ ওয়ার্ডে প্রায় ২০০ কোটি টাকার কাজ সম্পন্ন হয়েছে এবং আগামী অর্থ বছরে আরো প্রায় ৫০ কোটি টাকার কাজ অনুমোদিত হয়ে অপেক্ষমান রয়েছে। এই উন্নয়নধারা অব্যাহত রাখতে ওয়ার্ড বাসির সহযোগিতা একান্ত প্রয়োজন। তিনি আরো বলেন, সমাজ হতে সকল অপরাজনীতি মুক্ত সমাজ গড়তে নেতৃবৃন্দকে সব সময় স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতামূলক কর্মকান্ডের মাধ্যমে আই ব্লক সমাজ কল্যাণ পরিষদের নেতৃবৃন্দকে দায়িত্ব পালন করতে হবে। আই ব্লক সমাজ কল্যাণ পরিষদের নবনির্বাচিত কমিটির সাধারণ সভা ও অভিষেক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ আহ্বান জানান। অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি আকবর শাহ্ থানা অফিসার ইনচার্জ মোস্তাফিজুর রহমান রাতের বেলায় যে এলাকায় বখাটে ছেলেদের পাওয়া যাবে তাদেরকে সুনির্দিষ্ট অভিযোগের কারণে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে আকবরশাহ থানা পুলিশ সর্বদা তৎপর। থানা পুলিশের সহযোগিতা না ফেলে সাথে সাথে ৯৯৯ ফোন করে যে কোন সহযোগিতা গ্রহণ করার জন্য নগরবাসীর তথা দেশবাসীর কাছে আহ্বান জানান। সংগঠনের সভাপতি মো: মফিজ উল্লাহর সভাপতিত্বে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভা পরিচালনা করেন সংগঠনের সহ-সভাপতি সৈয়দ শামীম আলম সিদ্দিকী। এসময় আরো বক্তব্য রাখেন ওয়ার্ড আওয়ামী যুবলীগ নেতা মো: বেলাল উদ্দিন জুয়েল, কামাল উদ্দিন পারভেজ, মো: আব্দুল মান্নান, মো: সারোয়ার জাহান রাসেল, সুপর্ণা তালুকদার, মালেকা আনোয়ার, রনঞ্জিত সেন, এ.কে.এম আরিফুল ইসলাম প্রমুখ। সংগঠনের সদস্যদের মধ্যে সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সেলিম, সহ-সাধারণ সম্পাদক মো: শফিকুল মাওলা, অর্থ সম্পাদক ছালে আহম্মদ সওদাগর, সাংগঠনিক সম্পাদক মো: শফিকুল ইসলাম, প্রচার সম্পাদক মো: আকতার হোসেন মামুন, সদস্য যথাক্রমে ডা: সৈয়দ আহমদ পাটওয়ারী, আইয়ুব আলী হাওলাদার, মো: রফিকুল ইসলাম, মো: নাছির উদ্দিন। অনুষ্ঠানের শুরুতে নবনির্বাচিত কমিটির সদস্যদের শপথ বাক্য পাঠ করান অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি কাউন্সিলর মো: জহুরুল আলম জসিম।
বাঁশখালীতে Rab এর সাথে বন্দুকযুদ্ধে এক ডাকাত নিহত, বিপুল পরিমাণ অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার
২৬জানুয়ারী,রবিবার,কমল চক্রবর্তী,বিশেষ প্রতিনিধি,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম জেলার বাঁশখালী থানাধীন বাণীগ্রাম লটমুণি পাহাড় এলাকায় ডাকাতদলের সাথে Rab-7 এর টহলদলের সাথে বন্দুকযুদ্ধে চাঞ্চল্যকর ৩১ জেলেকে পানিতে ফেলে হত্যা মামলা সহ দুই ডজনেরও অধিক মামলার আসামী চাম্বল এলাকার কুখ্যাত ডাকাত ও জলদস্যু মোরশেদ আলম (৩৫) নিহত হয়েছে। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে চারটি অস্ত্র, তিনটি রাম দা ও ১৯ রাউন্ড গুলি জব্দ করা হয়। আজ রোববার (২৬ জানুয়ারি) ভোরে বাঁশখালীর বাণীগ্রাম লটমণি পাহাড় এলাকায় এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে বলে জানান Rab-7 এর সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) এএসপি মাহমুদুল হাসান মামুন। নিহত মোরশেদ আলম বাঁশখালী উপজেলার চাম্বল এলাকার বাসিন্দা বলে জানিয়েছে Rab। নিহত মোরশেদ আলমের বিরুদ্ধে বঙ্গোপসাগরের কুতুবদিয়া এলাকায় ৩১ জেলেকে পানিতে ফেলে হত্যা মামলা সহ দুই ডজনের অধিক মামলা রয়েছে বলে জানান এএসপি মাহমুদুল হাসান মামুন। Rab-7 এর সহকারী পরিচালক এএসপি কাজী মোহাম্মদ তারেক আজিজ জানান, আজ ভোরে চট্টগ্রাম জেলার বাঁশখালীর বাণীগ্রাম লটমণি পাহাড় এলাকায় Rab এর টহলদলের সাথে ডাকাত দলের বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। পরে মোরশেদ আলম (৩৫) নামে একজনের মরদেহ পাওয়া যায়। মোরশেদ আলম বঙ্গোপসাগর এলাকার কুখ্যাত দস্যু। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে একটি বিদেশি পিস্তল, একটি থ্রি কোয়ার্টার গান, দুইটি ওয়ান শ্যুটার গান, ১৯ রাউন্ড গুলি ও ৩টি রাম দা জব্দ করা হয়।
চট্টগ্রামে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া মুজিববর্ষের উপহার স্কুল বাসের উদ্বোধন
২৫জানুয়ারী,শনিবার,কমল চক্রবর্তী,বিশেষ প্রতিনিধি,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রামে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া মুজিববর্ষের উপহার স্কুল বাসের উদ্বোধন করা হয়েছে। নগরীর বহদ্দারহাট থেকে নিউমার্কেট ও অক্সিজেন থেকে আগ্রাবাদ রোডে চলাচলের জন্য দশটি দোতলা বাস চালূ করা হয়েছে যা শুধুমাত্র শিক্ষার্থীদের জন্য । মুজিববর্ষের শুরুতেই প্রধানমন্ত্রির দেয়া এ উপহার পেয়ে আনন্দিত শিক্ষার্থীরা। শনিবার (২৫ জানুয়ারি) সকাল সাড়ে দশটায় চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের আয়োজনে এ উদ্বোধন অনুষ্ঠান আয়োজিত হয়। চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক মো. ইলিয়াস হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে শিক্ষা উপমন্ত্রী ও সাংসদ ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে জিপিএইচ ইস্পাত লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আলমাস শিমুল অংশগ্রহণ করেন। উদ্বোধন করা দশটি বাস নগরীর দুটি রুটে মর্নিং এবং ডে শিফটে স্কুল শুরু এবং ছুটির সময়ে চলাচল করবে। একটি রুটে বাসগুলো নগরীর বহদ্দারহাট থেকে শুরু করে নিউ মার্কেট হয়ে বাদুরতলা, মুরাদপুর, চকবাজার, গণি বেকারি, জামালখান, চেরাগি পাহাড়, অন্দরকিল্লা এবং কোতোওয়ালি এলাকা পর্যন্ত চলাচল করবে। এবং অন্য রুটে বাসগুলো নগরীর অক্সিজেন মোড় থেকে শুরু করে আগ্রাবাদ হয়ে মুরাদপুর, জিইসি মোড়, ওয়াসা মোড় এবং টাইগারপাস এলাকা পর্যন্ত চলাচল করবে। প্রতিটি বাসে ৭৫টি আসনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। শিক্ষার্থীরা স্কুলড্রেস পরিহিত অবস্থায় বাসে উঠতে হবে। প্রতিটি বাসে ছয়টি সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে । জেলা প্রশাসক কার্যালয় থেকে বাস গুলো পর্যবেক্ষণ করা হবে। শিক্ষার্থীরা যে কোনো দূরত্বে মাত্র পাঁচ টাকায় ভাড়ার বিনিময়ে চলাচল করতে পারবে। এ বাসে কোনো সুপারভাইজার কিংবা কোনো টিকিট কাউন্টার থাকবে না। শিক্ষার্থীরা স্বেচ্ছায় সততার সাথে নির্দিষ্ট কাউন্টারে পাঁচ টাকা ভাড়া দিয়ে দিবে। বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্পোরেশন (বিআরটিসি) ডিপো সূত্রে জানা যায়, এসব বাস সরকারি ছুটির দিন ব্যতীত প্রতিদিন সকাল ৬টা ১৫ মিনিট থেকে দুপুর সোয়া ১২টা পর্যন্ত এবং বিকেল ৪টা থেকে ৫টা পর্যন্ত দুই শিফটে নগরীর দুটি রুটে চলাচল করবে। জানা যায়, শিক্ষার্থীদের সুবিধার্থে চালু হতে যাওয়া এসব বাস পরিচালনায় ব্যয়ের ঘাটতি পূরণে বিআরটিসির সঙ্গে জিপিএইচ ইস্পাত লিমিটেডের ১ কোটি ২০ লাখ টাকা করে (প্রতি বছর) দুই বছরের জন্য একটি বিজ্ঞাপন প্যাকেজের চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। এ বিষয়ে স্থানীয়রা বলেন, এই বাস সার্ভিস চালু হলে শিক্ষার্থীদের যাতায়াতে ভোগান্তি ও খরচ দুটোই কমবে।
ফৌজদারহাট-বায়েজীদ বাইপাস সড়ক উন্মুক্ত হচ্ছে মার্চে
২৪জানুয়ারী,শুক্রবার,নূর মোহাম্মদ,বিশেষ প্রতিনিধি,সীতাকুণ্ড,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রামে ফৌজদারহাট-বায়েজীদ বাইপাস সড়কটি যানবাহন চলাচলের জন্য আগামী মার্চ মাসে খুলে দেয়া হবে। সড়কটি চালু হলে নগরীর স্থবির হয়ে যাওয়া বিস্তৃত এলাকার যান চলাচলে গতিশীলতা আসবে। শুধু নগরীর যান চলাচলই নয়, আবাসন শিল্পায়ন এবং পর্যটনেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছে অনেকেই। ইতোমধ্যে সড়কটির ৯০ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের মতে সড়কটি চালু হলে বিশ্বমানের শহর ও পর্যটনের ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখবে বলে মনে করেন নগর পরিকল্পনাবিদরা। চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের প্রধান প্রকৌশলী কাজী হাসান বিন শামস বলেন, কাপ্তাই, ফটিছড়ি, রাউজান থেকে আসা গাড়িগুলো এ রাস্তা ব্যবহার করবে। প্রসঙ্গত- ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সীতাকুণ্ডের ফৌজদারহাট থেকে বায়েজীদ পর্যন্ত এ সড়কের নির্মাণ প্রকল্প গ্রহণ করা হয় ১৯৯৭ সালে। সেই সময় ৩৩ কোটি ৮১ লাখ টাকা ব্যয়ে গৃহীত প্রকল্পটি ১৯৯৯ সালে একনেকে পাস হলেও অজানা কারণে আলোর মুখ দেখেনি। পরে ছয় কিলোমিটার দীর্ঘ ও চার লেনের রাস্তাটি নির্মাণের জন্য ২০০৪ সালে ৫৫ একর জমি অধিগ্রহণ করা হয়। আর প্রকল্প ব্যয় বেড়ে দাঁড়ায় ৩২০ কোটি টাকা। পাহাড় কাটা নিয়ে এশিয়ান ইউনিভার্সিটি ফর উইম্যানের সঙ্গে বিরোধের কারণে কাজ শুরু করতে আরও কিছু সময় দেরি হয়। বর্তমানে রাস্তাটির ৯০ শতাংশ ও সাড়ে পাঁচ কিলোমিটারের বেশি অংশের কাজ শেষ হয়েছে বলে জানিয়ে প্রকল্প পরিচালক প্রকৌশলী রাজীব দাশ বলেন, প্রায় সাড়ে পাঁচ কিলোমিটার রাস্তা নির্মাণ করা হয়েছে। এছাড়া ৬টি কালভার্ট নির্মাণ করা হয়েছে।আগামী মার্চ মাসেই সড়কটি যানবাহন চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হবে। চট্টগ্রামকে আধুনিক নগরী হিসেবে গড়তে হলে এ বাইপাস সড়কটি গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে বলে আশাবাদ নগর পরিকল্পনাবিদ আশিক ইমরানের। তিনি বলেন, অন্যান্য নির্মাধীণ যে প্রজেক্টগুলো আছে সেগুলো শেষ হলে এর ব্যবহারবিধি বেড়ে যাবে। চট্টগ্রাম মহানগরীর বিস্তৃত এলাকার যান চলাচল স্বাভাবিক রাখতে এই রাস্তাটি দ্রুত চালু করা জরুরী বলে মন্তব্য করে সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, চট্টগ্রাম মহানগরীর প্রবেশ মুখ স্থবির হয়ে গেছে। কর্ণেল হাট থেকে একে খান মোড়, জাকির হোসেন রোড থেকে জিইসি এবং সন্নিহিত এলাকায় রাতে দিনে যানজট লেগে থাকে। সকাল থেকে শুরু হওয়া যানজট থেকে মুক্তি মিলেনা গভীর রাতেও। বড় বড় প্রাইম মুভার, রডের গাড়ি, সিমেন্টের গাড়ি, পণ্যবাহী ট্রাক, কাভার্ড ভ্যান মিলে বেহাল অবস্থা শুরু হয় সকাল থেকে। বাইপাস সড়কটি ফৌজদারহাট থেকে বায়েজিদ রোডের সাথে যুক্ত হবে। বায়েজিদ রোড অঙিজেন মোড়ে গিয়ে সংযুক্ত হয়েছে অঙিজেন-কুয়াইশ সড়কের সাথে। এতে করে ঢাকা থেকে সীতাকুণ্ড পর্যন্ত বিসতৃত এলাকা থেকে আসা যেসব গাড়ি উত্তর চট্টগ্রামের হাটহাজারী, ফটিকছড়ি, রাউজান, রাঙুনিয়া, কাপ্তাইসহ সন্নিহিত অঞ্চলে কিংবা খাগড়াছড়ি, রাঙামাটি, বান্দরবান এবং কঙবাজারসহ দক্ষিন চট্টগ্রামে যাবে সেই সব গাড়ি শহরে প্রবেশ না করে এই রাস্তা ধরে গন্তব্যে পৌঁছতে পারবে। আবার শহর বা উপরোক্ত অঞ্চলগুলো থেকে যেসব গাড়ি ঢাকা কিংবা দেশের অপরাপর অংশে যাবে সেগুলো শহরের জিইসি মোড বা জাকির হোসেন রোড স্পর্শ না করেই বাইপাস রোড ধরে বেরিয়ে যেতে পারবে। অপরদিকে মীরসরাই, সীতাকুণ্ড এবং ফৌজদারহাট থেকে রড এবং স্টিল আনা নেয়ার জন্য প্রতিদিন অসংখ্য প্রাইমমুভার শহরের ভিতর দিয়ে নাসিরাবাদ শিল্প এলাকায় যাতায়াত করে। রডবাহী বিশাল বিশাল গাড়িগুলো জাকির হোসেন রোডে যে ভয়াবহ অবস্থার সৃষ্টি করে তার ধকল পুরো এলাকার যান চলাচলের ক্ষেত্রে পড়ে। প্রতিদিনই সকাল থেকে গভীর রাত অব্দি বড় বড় প্রাইমমুভারের দখলে থাকে পুরো জাকির হোসেন রোড। রাস্তাটি চালু হলে এই ধরনের বিপুল সংখ্যক গাড়ি শহরের যান চলাচলের উপর যেই চাপ সৃষ্টি করছে তা থেকে নগরী রক্ষা পাবে। যার প্রভাব পড়বে পুরো নগরীর যান চলাচলের ক্ষেত্রে।
চট্টগ্রাম নগরীর ফিশারিঘাটে পুড়েছে নয়টি দোকান
২৩জানুয়ারী,বৃহস্পতিবার,ষ্টাফ রিপোর্টার,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: নগরীর ফিশারিঘাট এলাকায় আগুনে নয়টি দোকান পুড়ে গেছে। বৃহস্পতিবার সকালে পুরাতন ফিশারিঘাট এলাকায় এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে বলে ফায়ার সার্ভিস জানিয়েছে। নন্দন কানন ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার আব্দুল মান্নান নিউজ একাত্তরকে বলেন, সকাল ছয়টার দিকে আগুন লাগার খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের নন্দন কানন ও লামার বাজার স্টেশনের চারটি গাড়ি ঘটনাস্থলে গিয়ে সোয়া আটটার দিকে আগুন নেভায়। আগুনে নয়টি দোকান পুড়ে অন্তত ১০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে জানান তিনি। পুড়ে যাওয়া দোকানগুলোর মধ্যে চায়ের দোকান, কম্পিউটার, কাঠ, কাপড়ের দোকান রয়েছে। প্রাথমিক অনুসন্ধানে বৈদ্যুতিক গোলোযোগ থেকে আগুন লাগার কথা জানিয়েছেন ফায়ার সার্ভিস কর্মকর্তা মান্নান।
সড়ক ফুটপাত দখলমুক্ত করতে অভিযান শীঘ্রই: মেয়র আ জ ম নাছির
২২জানুয়ারী,বুধবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: নগরীর রাস্তা ও ফুটপাত দখলমুক্ত করতে শীঘ্রই ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে অভিযান শুরু করবে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন (চসিক)। এক্ষেত্রে জরিমানার পাশাপাশি অবৈধ দখলদারদের মালামাল জব্দ করা হবে। এমনকি কারাদণ্ডও দেয়া হবে। গতকাল মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত চসিকের সাধারণ সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়েছে। নগরীর থিয়েটার ইনস্টিটিউট হলে অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। প্রসঙ্গত, এতদিন চসিকের পরিচালিত বেশিরভাগ ভ্রাম্যমাণ আদালতে কেবল জরিমানা করা হতো। গতকালের সভায় সিদ্ধান্ত হয়, আগামী মাসের প্রথম সপ্তাহে লালদীঘি মাঠে সিটি কর্পোরেশনের উদ্যোগে সন্ত্রাস ও মাদকবিরোধী সমাবেশ হবে। এক্ষেত্রে যেদিন মাঠ খালি থাকবে ওইদিনই সমাবেশ হবে। সভায় মেয়র বলেন, বিভিন্ন রাস্তা, ফুটপাত ও ড্রেনের উপরে ইট, বালি, কংকর লৌহজাত দ্রব্য, নির্মাণ সামগ্রী, অস্থায়ী দোকান ও দোকানপাটের মালামাল এবং কাঁচাবাজার বসিয়ে সর্বসাধারণের চলাচলের পথে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা কোনোভাবেই মানা যাবে না। এতে পরিবেশ দূষণের পাশপাশি শহরের সৌন্দর্যহানি হচ্ছে। এটা নাগরিক স্বার্থের পরিপন্থী ও বেআইনি। যত্রতত্র ময়লা না ফেলার জন্য নগরীর হোটেল, রেস্টুরেন্ট ও কমিউনিটি সেন্টারের মালিকদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি। ওয়ার্ডভিত্তিক উন্নয়নের ফিরিস্তি জনবহুল এলাকায় টাঙানো এবং ভিডিওচিত্র প্রদর্শনের নির্দেশনা দিয়ে মেয়র বলেন, এই কার্যক্রমের মাধ্যমে ওয়ার্ডের সামগ্রিক উন্নয়ন চিত্র সম্পর্কে নগরবাসী জানবে। এতে সংশ্লিষ্ট কাউন্সিলরের জনপ্রিয়তাও বৃদ্ধি পাবে। চলমান উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের জবাবদিহিতা নিশ্চিতে এবং গতি আনতে চসিকের প্রকৌশলীদের মধ্যে সমন্বয় নিশ্চিতের নির্দেশনা দেন মেয়র। যেসব ঠিকাদার উন্নয়ন কাজে গাফিলতি করছে তাদের সম্পর্কে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে তিনি বলেন, ঠিকাদারদের করুণা করার কোনো সুযোগ নেই। তাদের কাছ থেকে কার্যাদেশ মতে শতভাগ কাজ আদায় করতে হবে। কাজের গুণগত মানের ক্ষেত্রে কোনো ধরনের আপস করা যাবে না। তিনি আরো বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীকে উপলক্ষ্য করে যত্রতত্র জাতির পিতার ছবি, ম্যুরাল ও ভাস্কর্য স্থাপন করা যাবে না। এক্ষেত্রে চসিকের অনুমতি লাগবে। এ ব্যাপারে কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলরদের তদারকি করার আহ্বান জানান। সভায় চসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামসুদ্দোহা, প্রধান প্রকৌশলী লে. কর্নেল সোহেল আহমদ, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা মফিদুল আলম, প্রধান শিক্ষা কর্মকর্তা সুমন বড়ুয়া, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. সেলিম আকতার চৌধুরী, মেয়রের একান্ত সচিব মো. আবুল হাশেম, স্পেশাল ম্যাজিস্ট্রেট (যুগ্ম জেলা জজ) জাহানারা ফেরদৌস, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আফিয়া আখতারসহ চসিক বিভাগীয় ও শাখা প্রধানগণ এবং নগরীর সরকারি ও স্বায়ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠানের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন। সঞ্চালনায় ছিলেন চসিক সচিব আবু শাহেদ চৌধুরী।- আজাদী

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর