লেখক মুশতাক আহমেদ হত্যার প্রতিবাদে বাম গণতান্ত্রিক জোট চট্টগ্রাম জেলার মানববন্ধন
২৬,ফেব্রুয়ারী,শুক্রবার,নিউজ ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে গ্রেফতার লেখক মুশতাক আহমেদকে কাশিমপুর কারাগারে হত্যার প্রতিবাদে বাম গণতান্ত্রিক জোট চট্টগ্রাম জেলা শাখা গত ২৬ ফেব্রুয়ারি বিকাল ৪.৩০ মিনিটে চেরাগী পাহাড় মোড়ে মানববন্ধন করেন। বাম গণতান্ত্রিক জোট চট্টগ্রাম জেলা অন্যতম নেতা ও সিপিবি চট্টগ্রাম জেলার সাধারণ সম্পাদক অশোক সাহার সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, কমিউনিস্ট পার্টি চট্টগ্রাম জেলার নেতা অমৃত বড়য়া, গণসংহতি আন্দোলন চট্টগ্রাম জেলার সদস্য সচিব ফরহাদ জামান জনি, বাংলাদেশ সামাজতান্ত্রিক দল (মার্ক্সবাদী) চট্টগ্রাম জেলার নেতা রিপা মজুমদারসহ প্রমুখ। মানববন্ধন বক্তারা বলেন, আওয়ামী লীগ গত ১০ বছর ধরে ফ্যাসিবাদী কায়দায় রাষ্ট্র পরিচালনা করছে। জনগণের ভোটের অধিকার থেকে শুরু করে কথা বলার অধিকার পর্যন্ত আওয়ামী সরকার কেড়ে নিয়েছে। তারা উন্নয়নের নামে হাজার হাজার কোটি টাকা লুটপাট করছে, দেশের সম্পদ পাচার করছে বিদেশে, রাষ্ট্রের সমস্ত অধিদপ্তরকে পরিণত করছে তাদের দলীয় অঙ্গ সংগঠনে। চিকিৎসা খাত, শিক্ষা খাত সবর্ত্রে অনিয়ম-দুর্ণীতি। এই করোনাকালীন সময়ে তাদের এই অনিয়ম দুর্ণীতি আরো বেশী জনগণের সামনে হাজির হয়। আওয়ামী লীগ সরকার জনগণকে জিম্মি করে রাষ্ট্র পরিচালনা করছে ।যখন এই সব অন্যায়, লুটপাট, দূর্ণীতি নিয়ে কথা বলা হয়, প্রতিবাদ করা হয় তখনই সরকার ডিজিটাল নিরাপত্তাসহ নানা আইনের মাধ্যমে আন্দোলন-প্রতিবাদকারীদের গ্রেফতার করে, গুম-খুন করা হয় । লেখক মুশতাক আহমেদকেও সরকারের বিরুদ্ধে অপপ্রচারের অভিযোগ তুলে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অধীন গ্রেফতার করে কারাগারে আটক রাখে । দীর্ঘ কারাবাসে তার উপর ব্যাপক নির্যাতন-নিপীড়ন করা হয় । যার ফলাফল গত ২৫ ফেব্রুয়ারি তিনি কাশিমপুর কারাগারে বন্দি অবস্থায় মারা যায় । এটা কেবল স্বাভাবিক মৃত্যু নয় এটা রাষ্ট্রীয় হত্যাকা-। এটার দায় সরকারকে নিতে হবে। সমাবেশে বক্তারা আরো বলেন, অবিলম্বে গণবিরোধী ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিল করে দ্রুত লেখক মুশতাক আহমেদ হত্যার সুষ্ট তদন্ত করে দোষীদের বিচার করতে হবে।
চান্দগাঁও আবাসিক কল্যান সমিতির নির্বাচন: করিম-জুবায়ের-ইসমাইল প্যানেল কে নির্বাচিত করুন
২৬,ফেব্রুয়ারী,শুক্রবার,নিউজ ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: আগামী ২৭ ফেব্রুয়ারী শনিবার সকাল ৯ টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত নগরীর চান্দগাঁও আবাসিক এলাকা কল্যান সমিতির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। উক্ত নির্বাচনে সৎ শিক্ষিত, পরিশ্রমী, প্রবীন-নবীন ব্যক্তিবর্গের সমন্বয়ে গঠিত আলহাজ্ব আহসানুল করিম- জুবায়ের হাসান চৌধুরী - ইঞ্জিনিয়ার ইসমাইল পরিষদের পূর্ণপ্যানেল কে আপনাদের মূল্যবান রায় প্রদান করে জয়যুক্ত করার আহবান। উল্লেখ যে সমিতির সভাপতি খ্যাতিমান সমাজসেবক শিল্পপতি মানবদরদী মরহুম আলহাজ্ব হাসান মাহমুদ চৌধুরীর হাতেগড়া সে সাজানো বাগান চান্দগাঁও এলাকাবাসীর উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখার স্বার্থে চলমান উন্নয়ন, নিরাপত্তা প্রহরীর দায়িত্ব বেগবানের পাশাপাশি প্রতিটি রাস্তা পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখা এবং উন্নত মানের লাইটিং দিয়ে সাজানো হবে। তাই সমৃদ্ধি ও সম্প্রীতির অগ্রয়াত্রায় চান্দগাঁও আবাসিক এলাকা কল্যান সমিতির দ্বি-বার্ষিক নির্বাচনে সভাপতি পদে আলহাজ্ব আহসানুল করিম, সাধারণ সম্পাদক পদে ইঞ্জিনিয়ার মোহাম্মদ ইসমাইল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে মরহুম আলহাজ্ব হাসান মাহমুদ চৌধুরীর বড় ছেলে জুবায়ের হাসান চৌধুরী পরিষদের পূর্ণ প্যানেল কে নির্বাচিত করার আহবান।
চট্টগ্রাম এসপি কার্যালয় উদ্বোধন করলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
২৬,ফেব্রুয়ারী,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: নবনির্মিত চট্টগ্রাম জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয় উদ্বোধন করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। শুক্রবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে নগরের ২ নম্বর গেটে নবনির্মিত এ ভবন উদ্বোধন করেন তিনি। উদ্বোধন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী, মোছলেম উদ্দিন আহমদ, মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী, নজরুল ইসলাম চৌধুরী, ড. আবু রেজা নদভী, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী, চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মমিনুর রহমান, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, সিডিএ চেয়ারম্যান মো. জহিরুল আলম দোভাষ, চট্টগ্রাম চেম্বার সভাপতি মো. মাহাবুবুল আলম, রাউজান উপজেলা চেয়ারম্যান একেএম এহেছানুল হায়দর চৌধুরী বাবুল, চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি আনোয়ার হোসেন, সিএমপি কমিশনার সালেহ মোহাম্মদ তানভীর, জেলা পুলিশ সুপার এস এম রশিদুল হক প্রমুখ। প্রসঙ্গত, চট্টগ্রাম জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়টি জরাজীর্ণ হওয়ায় ২০১৭ সালে গণপূর্ত বিভাগ-২ এর অধীনে নতুন ভবন নির্মাণকাজ শুরু হয়। সাময়িক সময়ের জন্য পুলিশি কার্যক্রম চলে হালিশহর ছোটপুলের জেলা পুলিশ লাইন্সে। এখন থেকে নগরের ২ নম্বর গেটে নতুন এ ভবন উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে আবারও জেলা পুলিশের কার্যক্রম শুরু হচ্ছে।
সীতাকুণ্ডের সৈয়দপুরে ব্রিজ নির্মাণ করছে মোস্তফা হাকিম ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশন
২৫,ফেব্রুয়ারী,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সীতাকুণ্ড উপজেলার সৈয়দপুর ইউনিয়নের দুইটি গ্রাম উত্তর বগাচতর ও দক্ষিণ বগাচতর। দুই গ্রামের মাঝখানে বদরখালী খালের ওপর সেতুবন্ধন তৈরি করেছিল ৫০ বছরের প্রাচীন একটি বাঁশের সাঁকো। সেই সাঁকোর দুর্ভোগের খবর নজরে আসে আলহাজ মোস্তফা হাকিম ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) সাবেক মেয়র মোহাম্মদ মনজুর আলমের। তিনি দুই গ্রামের মানুষের দুর্ভোগ লাঘবে সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে মোস্তফা হাকিম ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশনের নিজস্ব অর্থায়নে বাঁশের সাঁকোর জায়গায় ১০৫ ফুট দীর্ঘ ও ৬ ফুট প্রস্থের একটি স্টিলের ব্রিজ নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেন। এরপর প্রায় ৪০ লক্ষাধিক টাকা ব্যয় নির্ধারণ করে ব্রিজটি নির্মাণের কাজ শুরু করেন। সীতাকুণ্ডের সংসদ সদস্য দিদারুল আলমের সার্বিক তদারকির মাধ্যমে দ্রুতগতিতে নির্মাণকাজ বাস্তবায়ন হচ্ছে ব্রিজটির। এ প্রসঙ্গে চসিকের সাবেক মেয়র মোহাম্মদ মনজুর আলম বলেন, ১৯৭৭ সাল থেকে আর্তমানবতার সেবার প্রত্যয় নিয়ে আমার বাবা-মার নামে মোস্তফা-হাকিম ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করি। সেই থেকে ফাউন্ডেশনের অধীনে একে একে প্রতিষ্ঠা করি বিদ্যালয়, কলেজ, হাসপাতাল, মসজিদ, মাদ্রাসা, এতিমখানা, কবরস্থান, মন্দির ও শ্মশানসহ ৭১টি সেবাধর্মী প্রতিষ্ঠান। যা প্রতিনিয়ত মানবতার সেবায় কাজ করে যাচ্ছে নিরলসভাবে। তারই ধারাবাহিকতায় উত্তর ও দক্ষিণ বগাচতর গ্রামের লোকজনের যাতায়াতের সুবিধার্থে মানবতার দুর্ভোগ লাগবে এ ব্রিজটি নির্মাণ করছি। তিনি আশা করেন আগামী মার্চের প্রথম সপ্তাহের দিকে উদ্বোধনের মাধ্যমে এলাকাবাসীর চলাচলের জন্য ব্রিজটি উন্মুক্ত করা সম্ভব হবে।
চট্টগ্রামে করোনা আক্রান্ত ৮৬ জন, টিকা নিলেন ১৫ হাজার
২৫,ফেব্রুয়ারী,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: গত ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রামে ১ হাজার ৭২০টি নমুনা পরীক্ষা করে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে ৮৬ জনের। এ নিয়ে মোট আক্রান্ত ৩৪ হাজার ৭০৫ জন। অন্যদিকে চট্টগ্রামে করোনার টিকাদান কার্যক্রমে সর্বশেষ টিকা নিয়েছেন ১৫ হাজার ৬৫৫জন। এখন পর্যন্ত ২ লাখ ২৭ হাজার ২৭০ জন টিকা নিয়েছেন। বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) সকালে সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে এসব তথ্য জানানো হয়। গত ২৪ ঘণ্টায় কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ ল্যাব ও চট্টগ্রামে ৮টি ল্যাবে নমুনা পরীক্ষা হয়। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবে ৪০টি নমুনা পরীক্ষা করে ৮ জনের করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেসে (বিআইটিআইডি) ৭৯২টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে শনাক্ত হয় ৮ জন। চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) ল্যাবে ৫০৩টি নমুনা পরীক্ষা করে ৩৫ জনের শরীরে করোনা ভাইরাস পাওয়া গেছে। চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি অ্যান্ড অ্যানিম্যাল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় (সিভাসু) ল্যাবে ৫৬টি নমুনা পরীক্ষা করে ১০ জন করোনা আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে। ইম্পেরিয়াল হাসপাতাল ল্যাবে ৪৯টি নমুনা পরীক্ষা করে ৫ জন, শেভরণ ক্লিনিক্যাল ল্যাবরেটরিতে ২০৯টি নমুনা পরীক্ষা করে ১১ জন, চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতাল ল্যাবে ১০টি নমুনা পরীক্ষা করে ৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ ছাড়া জেনারেল হাসপাতালের রিজিওনাল টিবি রেফারেল ল্যাবরেটরিতে (আরটিআরএল) ৮টি নমুনা পরীক্ষা করে ৫ জনের শরীরে করোনা ভাইরাসের অস্তিত্ব মিলেছে। এছাড়া কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ ল্যাবে চট্টগ্রামের ৫৩টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে সবকটি নমুনা নেগেটিভ আসে। চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি জানান, গত ২৪ ঘণ্টার নমুনা পরীক্ষায় ৮৬ জন নতুন আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছেন। এইদিন নমুনা পরীক্ষা করা হয় ১ হাজার ৭২০টি। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে নগরে ৭১ জন এবং উপজেলায় ১৫ জন। তিনি বলেন, করোনার টিকা কার্যক্রমে বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) টিকা নিয়েছেন ১৫ হাজার ৬৫৫ জন। এর মধ্যে সিটি করপোরেশন এলাকায় ৭ হাজার ৪৪৮ জন এবং উপজেলায় ৮ হাজার ২০৭ জন।
সিইসি-চসিক মেয়রের বিরুদ্ধে ডা. শাহাদাতের মামলা
২৪,ফেব্রুয়ারী,বুধবার,নিউজ ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নুরুল হুদা ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র এম রেজাউল করিমের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন চসিক নির্বাচনে বিএনপির মনোনীত প্রার্থী ডা. শাহাদাত হোসেন। নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ এনে বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) তাদের বিরুদ্ধে চট্টগ্রাম আদালতে মামলাটি দায়ের করেন তিনি। এ মামলায় চসিক মেয়র ও সিইসি ছাড়া আরও সাতজনকে আসামি করা হয়েছে। এ বিষয়ে ডা. শাহাদাত হোসেন বলেন, ভোটের দিন ভোটকেন্দ্র দখল, সহিংসতা করে নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে তারা। প্রশাসনের ভূমিকায় আমি হতাশ। আমাকে ২২টি কেন্দ্রে শূন্য ভোট দেখানো হয়েছে। কিভাবে এ রকম ফলাফল হয়? ২২ কেন্দ্রে কি আমি একটি ভোটও পেলাম না? তিনি আরও বলেন, ভোটের পরদিন পত্রপত্রিকায় আসা নিউজের কাটিং আমি তথ্য হিসেবে মামলায় সংযুক্ত করেছি। যদি দেশে ন্যায়বিচার থাকে তবে আমি বিচার পাব বলে আশা করছি।
চট্টগ্রামে করোনার টিকা নিলেন আরও ১৫ হাজার, নতুন আক্রান্ত ৯৬ জন
২৪,ফেব্রুয়ারী,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্ত হয়েছে ৯৬ জনের। এ নিয়ে চট্টগ্রামে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ৩৪ হাজার ৬১৯ জন। এসময়ে করোনায় মৃত্যুবরণ করেনি কেউ। অন্যদিকে চট্টগ্রামে মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) করোনার টিকা নিয়েছেন ১৫ হাজার ৮৯৫ জন। এ পর্যন্ত মোট ২ লাখ ১১ হাজার ৬১৫ জন টিকা গ্রহণ করেছেন। বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) সকালে সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদন সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়। গত ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রামের ৮টি ল্যাবে ১ হাজার ৫১৬টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবে ৫২টি, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেস (বিআইটিআইডি) ল্যাবে ৪৫৪টি, চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) ল্যাবে ৭৫৭টি, চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি অ্যান্ড অ্যানিম্যাল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় (সিভাসু) ল্যাবে ৬৭টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। চবি ল্যাবে ২ জন, বিআইটিআইডি ল্যাবে ১২ জন, চমেক ল্যাবে ৩০ জন এবং সিভাসু ল্যাবে ১৩ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এছাড়া বেসরকারি ইম্পেরিয়াল হাসপাতাল ল্যাবে ৬৮টি নমুনা পরীক্ষা করে ১১ জন, শেভরন ক্লিনিক্যাল ল্যাবরেটরিতে ১০৩টি নমুনা পরীক্ষা করে ২৩ জন এবং চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতাল ল্যাবে ৮টি নমুনা পরীক্ষা করে ১ জনের শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। জেনারেল হাসপাতালের রিজিওনাল টিবি রেফারেল ল্যাবরেটরিতে (আরটিআরএল) ৭টি নমুনা পরীক্ষা করে ৪টি নমুনা পজেটিভ আসে। তবে এদিন কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ ল্যাবে চট্টগ্রামের কোনো নমুনা পরীক্ষা করা হয়নি। চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি জানান, গত ২৪ ঘণ্টার নমুনা পরীক্ষায় ৯৬ জন নতুন আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছেন। নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ১ হাজার ৫১৬টি। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে নগরে ৮৮ জন এবং উপজেলায় ৮ জন। তিনি আরও বলেন, করোনার টিকা প্রদান কার্যক্রমে সর্বশেষ একদিনে টিকা নিয়েছেন ১৫ হাজার ৮৯৫ জন। এর মধ্যে সিটি করপোরেশন এলাকায় ৭ হাজার ৭৯৫ জন এবং উপজেলায় ৮ হাজার ১০০ জন।
কাজের মান নিয়ে কাউন্সিলরদের সম্মতি মন্তব্য ছাড়া ঠিকাদাররা বিল পাবেন না - চসিক মেয়র
২৩,ফেব্রুয়ারী,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ রেজাউল করিম চৌধুরী বলেছেন, কর্পোরেশনের ৬ষ্ঠ নির্বাচিত পরিষদ একটি যৌথ পরিবার। একে অপরকে জানতে হবে, বুঝতে হবে সমন্বয় সাধনের মাধ্যমে কাজ ভাগাভাগি করে সমস্যার সমাধান নিশ্চিত করতে হবে। তিনি আরো বলেন, সমস্যা আছে এবং থাকবেই। মেধা,দক্ষতা,সৃজনশীলতার মাধ্যমে সমাধানের পথ খুঁজতে হবে। নগরবাসী আস্থা ও বিশ্বাস স্থাপন করে আমাদেরকে নির্বাচিত করেছেন। তাদের আস্থা ও বিশ্বাসের প্রতিদান দিতে হবে। আজ মঙ্গলবার নগরীর থিয়েটার ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের ৬ষ্ঠ পরিষদের প্রথম সাধারণ সভায় সভাপতির বক্তব্যে একথা বলেছেন। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনেক সমস্যার মাঝে নানাবিধ প্রতিকূলতা ডিঙ্গিয়ে যদি ১২ বছরে বাংলাদেশকে বিশ্বে টেকসই উন্নয়নের রোল মডেলে পরিণত করতে পারেন, তা হলে আমরা কেন আমাদের মেয়াদকালীন সময়ে চট্টগ্রামকে পরিকল্পিত অত্যাধুনিক বিশ্বমানের নগরীতে পরিণত করতে পারবো না বলে মন্তব্য করনে ময়ের। এ প্রসঙ্গে তিনি আরো বলেন, অতীত নিয়ে কিছু বলতে চাই না। এখন যা আছে তা নিয়েই যাত্রা শুরু করে দিয়েছি। প্রথম ১০০ দিনের মধ্যে অগ্রাধিকার ভিত্তিক জরুরি কর্মপরিকল্পনার অংশ হিসেবে প্রতিটি ওয়ার্ডে পর পর দু দিন মশকনিধন, পরিচ্ছন্নতাসহ জরুরি সেবামূলক কার্যক্রম চলবে। এই কাজে যারা নিয়োজিত তাদের তদারক ও নির্দেশনা দেবেন কাউন্সিলররা। নিয়োজিত জনবলের প্রতিদিনের নির্ধারিত কর্মঘন্টাকে তারাই কাজে লাগাবেন। সুযোগ পেলেই সকলে ফাঁকি দেয়। কেউ যাতে ফাঁকি দিতে না পারে সে ব্যাপারে নির্বাচিত কাউন্সিলরদের নজরদারি করতে হবে। তিনি আশা করেন, কাউন্সিলররা যথাযথ তদারকি ও নজরদারি সঠিকভাবে করলে ১০০ দিনের কর্মপরিকল্পনার সুফল নগরবাসী অবশ্যই পাবে। তিনি জলাবদ্ধতা নিরসনে সামরিক বাহিনীর তত্ত্ববধানে ৬ হাজার কোটি টাকার প্রকল্প বাস্তবায়নের কথা উল্লেখ করে বলেন, এই প্রকল্পের ৪০ ভাগের বেশি কাজ সম্পন্ন হয়েছে। এই প্রকল্প বাস্তবায়নের স্বার্থে চাক্তাই খালসহ বিভিন্ন খালে কিছু স্থানে বাঁধ দেয়ায় পানি চলাচল রুদ্ধ হয়ে গেছে। তাই বর্ষা মৌসুমে ওভার-ফ্লো হতে পারে । একারণে এবছরও জলাবদ্ধতা মুক্ত হওয়া যাবে না। তিনি প্রকল্প বাস্তবায়নে দায়িত্বপ্রাপ্ত সেনাবাহিনীর কর্মকর্তাদের খালের যে অংশে বাঁধ দেয়া হয়েছে সেখানে পানি চলাচলের জন্য বিকল্প পথ তৈরি করে দেয়ার পরামর্শ দেন। তিনি চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের পরিচ্ছন্নতা বিভাগ নিয়ে কিছু প্রশ্ন আছে বলে মন্তব্য করে বলেন, পরিচ্ছন্ন বিভাগের অনেকেই আছেন যারা হাজিরা দেন কিন্তু কাজে নেই। কোন স্তরে কত জনবল আছে তা জানতে হবে এবং কারা কি কাজ করছে, কর্মঘন্টা কতক্ষণ তা যাচাই-বাছাই করে এই বিভাগতে ঢেলে সাজানো হবে। কেননা সিটি কর্পোরেশনের একটি টাকাও অপচয় করা যাবেনা। তিনি আরো বলেন, মশক নিধনের যে ওষুধ ছিটানো হয় তাতে কাজ হচ্ছে না বলে অভিমত রয়েছে। তিনি আরো বলেন, নগরীর বেহাল সড়কগুলো মেরামত করতে যে পরিমান বিটুমিন দরকার সে পরিমান মজুদ নেই । তিনি কাউন্সিলরদের উদ্দেশ্যে বলেন, ঠিকাদাররা ওয়ার্ডে যে কাজগুলো করছে তা তাদের যাচাই-বাছাই করে দেখতে হবে। কাজের মান বিচার তারাই করবেন। কাজের মান নিয়ে কাউন্সিলরদের সম্মতি মন্তব্য ছাড়া ঠিকাদাররা বিল পাবেন না। তিনি অবনতিশীল চসিকের স্বাস্থ্য খাত নিয়ে হতাশা ব্যক্ত করে বলেন, এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী থাকলে স্বাস্থ্য বিভাগের জৌলুস ছিলো। মেমন হাসপাতালের প্রসূতি ভর্তির জন্য তদবীর করতে হয়। এখন এখানে রোগি নেই। স্বাস্থ্যবিভাগে প্রয়োজনীয় জনবল ও সরঞ্জাম নেই। বিভিন্ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রের ভবনগুলো জীর্ণ দশায়। কোন আরবান হেলথ কমপ্লেক্স স্বাস্থ্যের বাইরে অন্য অফিসে চলছে। এই আরবান হেলথ এডিপি প্রকল্পের অধীন এবং তাদের অনুদান নির্ভর। অনুদানের শর্ত অনুযায়ী স্বাস্থ্যের বাইরে আরবান হেলথ কমপ্লেক্সের স্থাপনা ব্যবহৃত হলে অনুদান বন্ধ হয়ে যাবে। সভায় মেয়র ভাষার মাসে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের নামফলক ইংরেজিতে লিখা থাকায় উদ্বেগ প্রকাশ করে অবিলম্বে তা সরিয়ে ফেলতে বলেন। সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কাজী মুহাম্মদ মোজাম্মেল হক। ভারপ্রাপ্ত সচিব ও প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা মফিদুল আলমের সঞ্চালনায় এতে চট্টগ্রাম ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী মো.ফজলুল্লাহ, চসিকের প্রধান শিক্ষা কর্মকর্তা সুমন বড়য়া, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. সেলিম আকতার চৌধুরী, উপ-পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) জয়নাল আবেদিন অতিরিক্ত প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা মোর্শেদুল আলম চৌধুরী, ইঞ্জিনিয়ার গোলাম মোর্শেদ, বিভিন্ন সরকারি ও সেবা সংস্থার. প্রতিনিধিরা বক্তব্য রাখেন।
চাকরিতে চার দফা দাবি আদায়ে নগর আওয়ামীলীগের কাছে হরিজনদের স্মারকলিপি
২৩,ফেব্রুয়ারী,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনে পরিচ্ছন্ন সেবক হিসেবে নিয়োজিত হরিজন সম্প্রদায়ের লোকেদের চাকরি স্থায়ীকরণ ,অস্থায়ী হরিজনদেরকে উনষাট বছর বয়সে চাকরিচ্যূত না করা,পোষ্য কোটায় তাদের পরিবার সদস্যদেরকে নিয়োগ প্রদান ও মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী বেতন বৃদ্ধিকরণের দাবিতে নগর আওয়ামী লীগের কাছে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে। আজ ২৩ ফেব্রুয়ারি বিকালে দারুল ফজল মার্কেটস্থ সংগঠন কার্যালয়ে চট্টগ্রাম হরিজন সমাজ পঞ্চায়েত কমিটির উদ্যোগে মত বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। মত বিনিময় সভায় নেতৃবৃন্দ চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক সাবেক সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের কাছে এই স্মারক লিপি প্রদান করেন। এসময় আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের নব নির্বাচিত মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরীর কাছে আমরা সাংগঠনিক ভাবে সুপারিশ করব। দাবি আদায়ে করণীয় নির্ধারণে আপনাদেরকেই চসিকসহ সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের সাথে যোগাযোগ বৃদ্ধি করতে হবে। এক্ষেত্রে সংগঠন ও ব্যক্তি পর্যায়ে রাখতে আমরা স্ব স্ব পক্ষ থেকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করব। স্মারকলিপি প্রদানের সময় হরিজন সম্প্রদায় নেতা গাদুলা সর্দার,রাজ কাপুর সর্দার,সুরেশ দাশ সর্দার, শ্যাম বাবু সর্দার,দিলাবর সর্দার,বানাচি সর্দার, হরিজন আঞ্চলিক কমিটি নেতা বিষ্ণু দাশ,রঘুবীর দাশ,জগন্নাথ দাশ ঝর্ণা,শরমন দাশ লালা, কার্তিক দাশ,ওমপ্রকাশ দাশ,কৃষ্ণ দাশসহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর