শনিবার, আগস্ট ৮, ২০২০
পটিয়ায় ইয়াবাসহ গ্রেফতার দুজন
২৮এপ্রিল,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: পটিয়ায় দুই হাজার ইয়াবাসহ দুজনকে পুলিশ গ্রেফতার করেছেন। তারা হলেন কক্সবাজার জেলার টেকনাফ উপজেলার মামুনুর রশিদ প্রকাশ আশিক (২৬) ও একই উপজেলার মোশারফ হোসেন প্রকাশ মুছা (৩২)। সোমবার দুপুর পৌনে ২টায় উপজেলার কমলমুন্সির হাট এলাকা থেকে পটিয়া থানা পুলিশ ইয়াবাসহ দুজনকে গ্রেফতার করেন। পুলিশ জানান, করোনাভাইরাসের সুযোগ নিয়ে চট্টগ্রাম-কক্সবাজার আরকান মহা সড়কে বিভিন্নভাবে ইয়াবা পাচার চলছে। পাচারকারীরা একের পর এক গাড়ি পাল্টে তাদের গন্তব্যে যাচ্ছে। সোমবার দুপুরে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পটিয়া থানার উপ-পরিদর্শক মো. শাখাওয়াতসহ একদল পুলিশ অভিযান চালায়। এসময় দুই ইয়াবা পাচারকারীর শরীর থেকে দুই হাজার ইয়াবা উদ্ধার করে। তাদের মধ্যে মোশারফের বিরুদ্ধে আগেও মাদকদ্রব্য আইনের মামলা রয়েছে। পটিয়া থানার উপ-পরিদর্শক আবদুল খালেদ জানিয়েছেন, গোপন সংবাদে খবর পেয়ে অভিযান চালানো হয়েছে। এ ব্যাপারে এসআই শাখাওয়াত বাদি হয়ে পটিয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।
জমিজমা নিয়ে বিরোধকে কেন্দ্র করে এক ব্যক্তি নিহত
২৮এপ্রিল,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: নগরের আগ্রাবাদ পানওয়ালা পাড়ায় সোমবার বিকেলে আজগর আলী (৫০) নামে এক ব্যক্তি খুন হয়েছেন। বড় ভাই সালামত আলীর সাথে জমিজমা নিয়ে বিরোধকে কেন্দ্র করে ঝগড়ার সময় মারধর করলে নিহত হন আজগর। জুনায়েদ নামে নিহত আজগরের এক আত্মীয় জানান, ঝগড়ার এক পর্যায়ে বুকে ইট দিয়ে আঘাতের কারণে নিহত হয়েছেন আজগর । পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে আজগরের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদনেত্মর চমেক হাসপাতালে পাঠিয়েছে বলে জানান জুনাইদ। এদিকে ঘটনার পর থেকে সালামত আলীসহ তার পরিবারের সবাই পলাতক বলে জানা গেছে। নিহত আজগর ডবলমুরিং থানার ওসি সদীপ কুমার দাস জানান, নিহত আজগর স্ট্রোকের রোগী ছিলেন। তবে বিকেলে ঝগড়ার সময় মারধরের কারণে নিহত হয়েছেন আজগর। এ ব্যাপারে একটি হত্যা মামলা প্রক্রিয়াধীন বলে জানান ওসি সদীপ। সূত্র জানায়, ছোট ভাই আব্বাস আলী ও সালামত আলীর সাথে বাকবিতণ্ডার এক পর্যায়ে আজগর আলীকে ইট দিয়ে উপর্যুপরি আঘাত করে গুরুতর আহত করে। আহত অবস্থায় আজগর আলীকে চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালে নেওয়া হলে দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। নিহত আজগর আলীর ভায়রা ভাই মো. জাবেদ বলেন, পারিবারিক জায়গা-জমির নিয়ে তাদের মধ্যে বিরোধ ছিল। এর জের ধরে বিকেল ৫ টার দিকে ছোট দুই ভাই মিলে আজগরকে মেরে পালিয়ে যায়।
চট্টগ্রামে ৯ জন করোনা রোগী শনাক্ত
২৮এপ্রিল,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম:এবার পুলিশ, RAB ও চিকিৎসকসহ ৯ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে চট্টগ্রামে। এর বাইরে লক্ষ্মীপুরের একজন করোনা পজিটিভ রোগী পাওয়া গেছে। যথারীতি পুলিশ সদস্য দামপাড়া পুলিশ লাইনের এবং RAB সদস্য পতেঙ্গা কার্যালয়ের। এছাড়া আক্রানত্ম হওয়া চিকিৎসকটি চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজের একজন সহকারী অধ্যাপক। চট্টগ্রামের ফৌজদারহাটে অবসিত বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকসাস ডিজিজ (বিআইটিআইডি) ও ভেটেরিনারি বিশ্ববিদ্যালয়ে মোট ১০০টি নমুনার পরীড়্গায় মোট ১২ জনের করোনা পজিটিভ পাওয়া গেছে। এরমধ্যে চট্টগ্রাম মহানগরীর ৬ জন, সাতকানিয়ায় দুজন, সীতাকু-ে একজন, বোয়ালখালী একজন ও মিরসরাই একজন আক্রানত্ম হয়েছেন। তবে সাতকানিয়ার দুজন পুরাতন রোগী। দ্বিতীয় দফা পরীড়্গায় পজিটিভ রিপোর্ট এসেছে। এদিকে নতুন করে ৯ জন করোনায় আক্রানত্ম হওয়ায় চট্টগ্রামে মোট আক্রানেত্মর সংখ্যা ৬৪ জন হয়েছে। এদের মধ্যে মারা গিয়েছেন পাঁচ জন এবং সুস হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১২ জন। রিপোর্টের বিষয়ে চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বী বলেন, বিআইটিআইডি ও ভেটেরিনারি শেষ ২৪ ঘণ্টায় ১০০ জনের নমুনা পরীক্সাা করা হয়েছে। এরমধ্যে ১২ জনের নমুনা পজিটিভ পাওয়া গেছে। এই ১২ জনের মধ্যে ১১ জন চট্টগ্রামের ও একজন লক্ষ্মীপুর জেলার। এদিকে জানা যায়, চট্টগ্রামের ৯ জনের মধ্যে দামপাড়া পুলিশ সদস্য (৩২) একজন, পতেঙ্গা RAB কার্যালয়ের একজন (৪৫), আগ্রাবাদ মা ও শিশু হাসপাতালের একজন নারী স্টাফ (৬৫), পাহাড়তলী এলাকার একজন পুরম্নষ (৭০), চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের একজন সহকারী অধ্যাপক (৪৪), দড়্গিণ হালিশহর পুরম্নষ (৪৮), বোয়ালখালী পুরম্নষ (৪৮), মিরসরাই পুরম্নষ (২৩), সীতাকু-ের পোর্ট লিঙ্ক রোড বিএমএ পুরম্নষ (৪৮)। এছাড়া লড়্গীপুর সদর হাসপাতালের একজন (৪৬)। সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বী বলেন, এরমধ্যে দ্বিতীয় দফায় পজিটিভ হয়েছে সাতকানিয়ার দুই জন। এরা হলেন মোহাম্মদ হোসেন (৫২) ও জাকির হোসেন (১৯)। এরা পুরাতন রোগী। এই দুই রোগী জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এদিকে সিভিল সার্জন সূত্রে জানা যায়, নতুন আক্রানত্মদের চিকিৎসার জন্য জেনারেল হাসপাতাল কিংবা ফৌজদারহাট হাসপাতালে নিয়ে আসা হবে। একইসাথে তাদের বসবাসরত এলাকাটি লকডাউন করা হবে। সোমবার ৯ জন শনাক্ত হওয়ায় মোট আক্রানেত্মর সংখ্যা ৬৪ জন হয়েছে। গত রোববার সাত জন ( সাতকানিয়ায় একই পরিবারের ৬ ও দামপাড়া পুলিশ লাইনের একজন) করোনা শনাক্ত হয়েছিল। এছাড়া গত ২৫ এপ্রিল শনিবার হালিশহর নয়াবাজার চুনা ফ্যাক্টরির মোড় ও শানিত্মবাগে দুই জন আক্রানত্ম হয়েছিলেন। এর আগে ২৪ এপ্রিল দামপাড়া পুলিশ লাইন ব্যারাকে একজন পুলিশ সদস্য আক্রানেত্মর আগে ২২ এপ্রিল চট্টগ্রামের লালখান বাজার, বালুচড়া ও ফটিকছড়িতে একজন করে তিনজন, ২১ এপ্রিল চন্দনাইশে একজন আক্রানেত্মর আগে ১৯ এপ্রিল উত্তর কাট্টলী থেকে দুই জন, দামপাড়ার একজন পুলিশ সদস্য ও সাতকানিয়ার একজন ছিল। এছাড়া ১৮ এপ্রিল আক্রানত্ম হওয়া মিরসরাইয়ের নারী সিএমএইচে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। ১৭ এপ্রিল পাহাড়তলী থানাধীন শাপলা আবাসিকে একজন মহিলা আক্রানত্ম হয়েছিল। ১৬ এপ্রিল সরাইপাড়ায় আক্রানত্ম হওয়া ব্যক্তি ১৭ এপ্রিল সকালে ফৌজদারহাটে চিকিৎসাধীন অবসয় মারা যান। এছাড়া ১৫ এপ্রিল আক্রানত্ম হওয়া পাঁচজনের দুইজন ছিল দামপাড়ার পুলিশ সদস্য, একজন নিমতলার মহিলা ( যিনি চিকিৎসাধীন অবসয় মারা গিয়েছিলেন), পটিয়া ও আনোয়ারার একজন করে। এছাড়া ১৪ এপ্রিল আক্রানত্ম হওয়া ১১ জনের মধ্যে সাগরিকায় চার জন, পাঁচলাইশে একজন, বোয়ালখালীর একজন, সাতকানিয়ায় পাঁচজন ছিল। ১৩ এপ্রিল সরাইপাড়ায় একজন ও উত্তর কাট্টলীতে একজন আক্রানেত্মর আগে ১২ এপ্রিল রোববার দামপাড়া ট্রাফিক পুলিশের একজন, ফৌজদারহাটের একজন, সাতকানিয়ার দুই জন, পটিয়ার একজন ছিল। গত শনিবার ১১ এপ্রিল পাহাড়তলী সিডিএ মার্কেট এলাকার একজন এবং সাতকানিয়ার একজন ছিল। এছাড়া গত শুক্রবার ১০ এপ্রিল ফিরিঙ্গীবাজার এলাকার কাঠ ব্যবসায়ী এবং পাহাড়তলী অলংকার এলাকার সবজি বিক্রেতা, ৭ এপ্রিল বুধবার সাগরিকা এলাকার একজন গার্মেন্টস চাকুরে, হালিশহর শাপলা আবাসিক এলাকার একজন নারী, সীতাকুন্ডের একজন আক্রানত্ম হয়, ৫ এপ্রিল দামপাড়া এক নম্বর গলির বৃদ্ধের ২৫ বছর বয়সী ছেলে এবং ৩ এপ্রিল দাপমাড়া এক নম্বর গলির ৬৭ বছর বয়সী বৃদ্ধ আক্রানত্ম হন। আক্রানত্মদের মধ্যে এপর্যনত্ম মারা গেছেন পাঁচজন। এরমধ্যে সাতকানিয়ার এক বৃদ্ধ একজন মারা যাওয়ার পর করোনা শনাক্ত হয়েছেন, পটিয়ায় ৬ বছরের এক শিশু মারা গেল, নগরীর সরাইপাড়া লোহারপুল এলাকার এক নারী মারা যাওয়ার পর করোনায় শনাক্ত হয়েছেন, গত ১৫ এপ্রিল নিমতলা এলাকার এক নারী মারা যাওয়ার পর গত ১৭ এপ্রিল মারা গেলো সরাইপাড়ার আক্রানত্ম পুরম্নষটি। এর বাইরে রাজবাড়ী থেকে একজন এসে করোনায় পজিটিভ হয়েছেন মাদারবাড়ি এলাকার একজন এবং করোনা শনাক্ত হওয়ায় ঢাকার হাসপাতাল থেকে পালিয়ে এসেছিলেন চান্দগাঁওয়ের একজন।
নগরীর পাঁচলাইশ থেকে ২ কোটি টাকার ইয়াবাসহ একজনকে আটক করেছে Rab-7
২৭এপ্রিল,সোমবার,কমল চক্রবর্তী,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম মহানগরীর পাঁচলাইশ থানাধীন মির্জাপুর বাইলেন মুরাদপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৪০ হাজার ইয়াবাসহ আব্দুল আজিজ(৫০)নামে একজনকে আটক করেছে Rab-7 সোমবার ২৭ এপ্রিল বিকাল ৫ টার সময় মহানগরীর পাঁচলাইশ থানাধীন মির্জাপুর বাইলেন মুরাদপুর হযরত মামুন খলিফা দরবার এ্যালোমিনিয়াম ওয়াক্স দোকানের ভিতর অভিযান চালিয়ে ৪০ হাজারপিস ইয়াবা সহ ১ মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করা হয়েছে বলে জানান Rab-7 এর সহকারী পরিচালক( মিডিয়া) এএসপি মাহমুদুল হাসান মামুন। আবদুল আজিজ (৫০) চট্টগ্রাম জেলার চন্দনাইশ থানাধীন কানাই মাজার (মামুন খলিফাপাড়া) এলাকার মৃতঃ আব্দুল জব্বার এর ছেলে। বর্তমান ঠিকানা ১৯০/২০৬ মির্জাপুর বাইলেন, মুরাদপুর, থানা- পাঁচলাইশ, চট্টগ্রাম। Rab-7 এর সহকারী পরিচালক (অপেরেশন) মেজর মোঃ মুশফিকুর রহমান জানান, গোপন সংবাদের মাধ্যমে আমরা জানতে পারি যে, মহানগরীর পাঁচলাইশ থানাধীন মির্জাপুর বাইলেন মুরাদপুর হযরত মামুন খলিফা দরবার এ্যালোমিনিয়াম ওয়াক্স দোকানের ভিতর কতিপয় মাদক ব্যবসায়ী মাদকদ্রব্য ক্রয়-বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে অবস্থান করছে। এমন তথ্যের ভিত্তিতে সময় Rab-7 এর একটি টহল দল অভিযান চালিয়ে এক মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করে। এসময় তাকে তল্লাশি করে ৪০ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়। আসামীকে নগরীর পাঁচলাইশ থানায় হস্তান্তরের কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন আছে বলেও জানান। Rab-7 এর সহকারী পরিচালক এএসপি মাশকুর রহমান জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালালে Rabর উপস্থিতি টের পেয়ে পালানোর চেষ্টাকালে আসামী আবদুল আজিজ (৫০) নামে এক মাদক ব্যবসায়ীকে ৪০ হাজার পিস ইয়াবাসহ আটক করা হয়।, পরবর্তীতে আটককৃত আসামীকে ব্যপক জিজ্ঞাসাবাদে তার দেখানো ও সনাক্তমতে তার দোকানের ভিতর বাজারের ব্যাগের মধ্যে সুকৌশলে লুকানো অবস্থায় ৪০ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়। তিনি আরও জানান, গ্রেফতারকৃত আসামীকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, সে দীর্ঘদিন যাবত এ্যালোমিনিয়ামের কলস বিক্রির আড়ালে চট্টগ্রাম শহর এবং দেশের বিভিন্ন অঞ্চালের মাদক ব্যবসায়ী ও মাদক সেবীদের কাছে মাদকদ্রব্য ক্রয়-বিক্রয় করে আসছে। উদ্ধারকৃত মাদকদ্রব্যের আনুমানিক মূল্য ২ কোটি টাকা। আটককৃত আসামীকে নগরীর পাঁচলাইশ থানায় হস্তান্তরের কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন।
হাটহাজারীতে রমজান উপলক্ষে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান অব্যাহত
২৭এপ্রিল,সোমবার,আবুল মনছুর,হাটহাজারী,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য স্থিতিশীল রাখতে চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলার বিভিন্ন বাজারগুলোতে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। আজ সোমবার (২৭ এপ্রিল) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মাদ রুহুল আমীন এই ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন। এসময় অভিযানে সহযোগীতা করেন সেনাবাহিনী ও পুলিশবাহিনীর টিম। ইউএনও রুহুল আমীন জানান, রমজান উপলক্ষে আদা, তেল, পিয়াজ সহ নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য বৃদ্ধির কারনে এবং নিয়মিত বাজার মনিটরিং এর অংশ হিসাবে আজ উপজেলার ইছাপুর ও হাটহাজারী পৌর বাজারে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হয়। বাজার মনিটরিং এর সময় দোকানে মূল্য তালিকা না ঝুলানো ও নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্য বৃদ্ধি করার দায়ে ছয় জন ব্যাবসায়ীকে ১১ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। পবিত্র রমজান ও দুর্যোগকালীন সময়ে বাজার দর স্থিতিশীল রাখতে বাজার মনিটরিং ও ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা অব্যাহত থাকবে বলে জানান তিনি।
খাতুনগঞ্জে পান-সুপারির গোডাউনে মিলল মজুদ করা ১২ টন আদা
২৭এপ্রিল,সোমবার,কমল চক্রবর্তী,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: নগরীর পাইকারি বাজার খাতুনগঞ্জে সাড়াশি অভিযান চালিয়ে পান-সুপারির গোডাউনে বেশী দামে বিক্রির জন্য মজুদ করা ১২ টন আদা উদ্ধার করে ভ্রাম্যমাণ আদালত। সোমবার 27 এপ্রিল খাতুনগঞ্জের বিভিন্ন মার্কেটে টানা কয়েক ঘণ্টার অভিযান পরিচালনা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। এতে নেতৃত্ব দেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. তৌহিদুল ইসলাম। অভিযানের শুরুতেই খাতুনগঞ্জের বশির মার্কেটে শাহ আমানত ট্রেডার্সে যান ভ্রাম্যমাণ আদালত। আড়তের মালিকের কাছে আদা বিক্রির কাগজ দেখতে চাইলে ওই আড়তে আদা বিক্রি হয় না বলে দাবি করেন মালিক তৈয়ব আলী। তবে গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে পাশের শুক্কুর আলীর পান-সুপারির গোডাউনে ৮৮ বস্তায় ভরে রাখা প্রায় ১২ টন আদার সন্ধান পান ভ্রাম্যমাণ আদালত। শুক্কুর আলী এইসব আদা শাহ আমানত ট্রেডার্সের জানালে আদার আড়তদার তৈয়ব আলীর কারসাজি ধরা পড়ে। এ সময় শাহ আমানত ট্রেডার্সের আদা আমদানির কাগজ দেখে ভ্রাম্যমাণ আদালত জানতে পারেন মিয়ানমার থেকে কেজি প্রতি ৮৪ টাকায় কেনা এসব আদা ২৩০-২৫০ টাকায় বিক্রি করছেন আড়তদার তৈয়ব আলী। তাকে ১ লাখ টাকা জরিমানার পাশাপাশি ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে কেজি প্রতি ১২০ টাকায় এসব আদা পাইকারদের কাছে বিক্রির নির্দেশ দেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। শাহ আমানত ট্রেডার্সের পর খাতুনগঞ্জের একতা ট্রেডার্স, শাহাদাত ট্রেডার্স এবং মাহবুব খান সাওদাগরের আড়তে অভিযান পরিচালনা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। অভিযানে ৮০-৯০ টাকায় কেজি প্রতি আদা কিনে ২৩০-২৫০ টাকায় বিক্রির প্রমাণ মেলে। এ সময় একতা ট্রেডার্সের মালিককে ৫০ হাজার, শাহাদাত ট্রেডার্সের মালিককে ৫০ হাজার এবং মাহবুব খান সাওদাগরকে ১ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। অভিযানে নেতৃত্ব দেওয়া নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. তৌহিদুল ইসলাম জানান, চট্টগ্রামে ৩২ জন আমদানিকারক আড়তদার এবং ব্রোকারদের মধ্যে সিন্ডিকেট করে কেজি প্রতি ৮০-৯০ টাকায় কেনা আদা ২৫০ টাকা পর্যন্ত পাইকারিতে বিক্রি করছেন। যা কোনোভাবেই ১২০ টাকার বেশি হওয়ার কথা না। তিনি বলেন, সোমবারের অভিযানে যে ৪ জন আড়তদারকে জরিমানা করা হয়েছে তারা আমদানিকারক আজাদ সিন্ডিকেটের লোক বলে আমাদের কাছে তথ্য আছে। আজাদ সিন্ডিকেটের আমদানি লাইসেন্স বাতিল করতে ডিসি স্যারের মাধ্যমে আমরা বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে চিঠি দেবো। ‘অভিযানে আমরা যেটুকু দেখেছি, বাজারে আদার কোনো সংকট নেই। আদা নানা জায়গায় মজুদ করে কৃত্রিম সংকট তৈরির চেষ্টা চলছে। আমদানিকারক, আড়তদার এবং ব্রোকাররা সিন্ডিকেট করে পেপারলেস মার্কেট তৈরির মাধ্যমে ফোনে ফোনে আদার দাম বাড়াচ্ছেন। আমরা এটা হতে দেবো না।’ যোগ করেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের এই কর্মকর্তা।
করোনা রোগী সেবা: নিয়োজিতদের উপহার সামগ্রী প্রদান করলেন চট্টগ্রাম বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক
২৭এপ্রিল,সোমবার,সৈয়দুল ইসলাম,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: জাতীয় পুষ্টি সপ্তাহ-২০২০ উপলক্ষে চট্টগ্রাম নগরীর আন্দরকিল্লা ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে আইসোলেশনে থাকা করোনা আক্রান্ত রোগীদের সেবায় নিয়োজিত বেসরকারী কর্মচারীদের মাঝে উপহার সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। আজ ২৭ এপ্রিল ২০২০ ইং সোমবার দুপুরে জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়ে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে উপহার সামগ্রী বিতরণ করেন বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডা. হাসান শাহরিয়ার কবীর। সিভিল সার্জন কার্যালয়ের পক্ষ থেকে দেয়া উপহার সামগ্রীর মধ্যে ছিল চাল, সোয়াবিন তেল, পিঁয়াজ, আলু, সেমাই, ছোলা, লবন ও চিনি। এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি, আন্দরকিল্লা ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. অসীম কুমার নাথ (উপ-পরিচালক), ডেপুটি সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ আসিফ খান, সিভিল সার্জন কার্যালয়ের মেডিকেল অফিসার ডা. ওয়াজেদ চৌধুরী অভি, মেডিকেল অফিসার (রোগ নিয়ন্ত্রণ) ও কোভিড-১৯ এর ফোকাল পারসন ডা. মোঃ নুরুল হায়দার, জেনারেল হাসপাতালের সিনিয়র কনসালট্যান্ট (মেডিসিন) ডা. মোঃ আবদুর রব, জেলা স্বাস্থ্য তত্বাবধায়ক সুজন বড়ুয়া, সিভিল সার্জন কার্যালয়ের প্রধান সহকারী মোঃ আবু তৈয়ব, প্রধান সহকারী (প্রেষণে) সাহিদুল ইসলাম, জেলা স্টোর ইনচার্জ মোঃ জাহেদুল ইসলাম, অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর তাপস রায় চৌধুরী, সিভিল সার্জনের পি.এ মফিজুল আলম, বিভাগীয় সরকারী গাড়ী চালক সমিতির যুগ্ম সম্পাদক মোঃ খোরশেদ আলম ও কর্মচারী সমিতির সদস্য শাহিনুর ইসলাম প্রমূখ। উপহার সামগ্রী বিতরণকালে বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডা. হাসান শাহরিয়ার কবীর বলেন, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে জনগণকে আতঙ্কিত না হয়ে সচেতন হতে হবে। সবসময় পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা থেকে সাবধানতা অবলম্বনের মাধ্যমে চলাফেরা করলে করোনা ভাইরাস থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। স্যানিটাইজার বা সাবান ও পানি দিয়ে হাত পরিস্কার করতে হবে। পরিচিত বা অপরিচিত ব্যক্তির সাথে হাত মেলানো বা আলিঙ্গন করা থেকে বিরত থাকতে হবে। অপরিস্কার হাত দিয়ে চোখ, নাক, ও মুখ স্পর্শ করা যাবেনা। জেলা সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি বলেন, করোনা ভাইরাস থেকে রক্ষা পেতে হলে পরিস্কার পরিচ্ছন্নতার বিকল্প নেই। সাবান ও পানি দিয়ে ঘনঘন পুরো হাত ধোয়ার পাশাপাশি অ্যালকোহলমুক্ত স্যানিটাইজার দিয়ে তালুসহ হাত পরিস্কার রাখতে হবে। হাঁচি বা কাশি দেওয়ার সময় হাতের কনুইয়ের ভাঁজে বা টিস্যু দিয়ে নাক ঢাকতে হবে। ব্যবহৃত টিস্যুটি দ্রুত বন্ধ বিনে ফেলতে হবে। করোনা ভাইরাস নিয়ে গুজব সৃষ্টিকারীদের ধরিয়ে দেয়ার আহবান জানান তিনি।
নগরীর বাকলিয়া এলাকায় বালুর ট্রাকের ধাক্কায় একজন পথচারী গুরুতর আহত
২৭এপ্রিল,সোমবার,কমল চক্রবর্তী,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: বাকলিয়া এলাকায় বালুর ট্রাকের ধাক্কায় একজন পথচারী রাস্তা পারাপারের সময় গাড়ি চাকার নিচে পডে গুরুত্ব আহত হয়। চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিসেট্রট রেজওয়ানা আফরিনের দুর্দান্ত প্রচেষ্টায় তিনি নিজেই চাকার নিচে আটকা পড়া আহত ব্যক্তিকে উদ্ধার করতে সক্ষম হন । আজ সোমবার সকালের দিকে চট্টগ্রাম কক্সবাজার মহাসড়কের পাশে বাকলিয়া এলাকার লিজা গার্ডেন এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে । আহত মোহাম্মদ আজম (৫৫) বাকলিয়া এলাকার কালা মিয়া বাজারের বাদশাহ মিয়া বাডীর বাসিন্দা বলে জানা গেছে । এ সময় বিটিভির নিউজ টিম ও জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিসেট্রট রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা অবস্থায়, হঠাত্ ব্যপরোয়া গতিতে আসা বালুর ট্রাকটি এক পথচারী ব্যক্তিকে চাপা দিলে,বিটিভি নিউজ টিম ও রোজওয়ানা এবং সাথে থাকা পুলিশ এগিয়ে গিয়ে যান ।পরে ঘটনাস্থল থেকে ঘাতক ট্রাকের ড্রাইভারকে আটক করা হয় এবং ট্রাকটি জব্ধ করা হয়। রেজওয়ানা আফরিন তিনি নিজে গাড়ির চাকায় পিষ্ট হওয়া ব্যক্তিকে গুরুতর আহত ব্যক্তিকে উদ্ধার করে ঐ ড্রাইভারকেসহ দ্রুত গতিতে চমেক হাসপাতালের জরুরি বিভাগে ভর্তি করেন । পরে , বাকলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করে,চমেক হাসপাতালের সামনে থেকে ট্রাক ড্রাইভার ও গাড়ির চাবি বাকলিয়া থানাকে হস্তান্তর করা হয়েছে। চমেক হাসপাতালের পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মোঃ জহিরুল হক ভুঁইয়া জানান, আহত ব্যক্তির শারীরিক অবস্থা খুবই আশঙ্কাজনক তাঁর নাম মোহাম্মদ আজম (৫৫)তিনি বর্তমানে চমেক হাসপাতালের ২৮ নং ওয়ার্ডের ২০ নং বেডে চিকিত্সাধীন রয়েছে বলে জানান ।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর