চাল রপ্তানিতে এলসি মূল্য বাড়িয়ে দিয়েছে ভারত সরকার
ভারত চাল রপ্তানিতে এলসিমূল্য বাড়ায় দেশের বাজারে আবারো বেড়েছে চালের দাম। প্রতি মেট্রিক টন চালে এলসি মূল্য ৩০ ডলার বাড়িয়ে সাড়ে ৪শ' ডলার নির্ধারণ করায় দেশের বাজারে কেজিতে ৩ টাকা বেড়েছে চালের দর। অন্যদিকে আমদানিকারকরা বলছেন, দেশে ডলারের পাশাপাশি পরিবহন খরচ বাড়ায় বেড়েছে চালের দাম। দেশে চালের বাজার স্বাভাবিক রাখতে ৩৯ টাকা দরে ৩ লাখ মেট্রিক টন আমন চাল সংগ্রহের সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। ৩ ডিসেম্বর থেকে শুরু হয়ে এ কর্মসূচি চলবে ২৮শে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। এরপরই চাল রপ্তানিতে এলসি মূল্য বাড়িয়ে দিয়েছে ভারত সরকার। টন প্রতি রফতানির এলসি মূল্য ৩০ ডলার বাড়িয়ে সাড়ে ৪শ' ডলার নির্ধারণ করায় দেশের বাজারে বেড়ে গেছে সব ধরনের চালের দর। আমদানিকারকরা বলছেন, ডলারের দাম এবং পরিবহন খরচ বাড়ার প্রভাব পড়েছে চালের বাজারে। হিলি স্থলবন্দর আমদানিকারক রাজেশ পোদ্দার বলেন, এক সপ্তাহে চালের বাজার ছিল ৪২০ থেকে ৪২৫ ডলার। আর বর্তমানে এটা বেড়ে ৪৪০ থেকে ৪৫০ ডলার হয়েছে। হিলি স্থলবন্দর আমদানিকারক মামুনুর রশিদ লেবু বলেন, তিন আগে এই চালটা বিক্রি হয়েছে ৩৬ থেকে ৩৫ টাকায়। আর সরকার ৩৯ টাকায় চাল কেনার ঘোষণা দেয়ার পর সেটা বেড়ে এখন ৩৯ ও ৪০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আসা পাইকাররা জানান, হিলি স্থলবন্দরে গত সপ্তাহের চেয়ে কেজিতে ৩ টাকা বেশি দিয়ে চাল কিনতে হচ্ছে তাদের। অন্যদিকে ভারতীয় ট্রাক ড্রাইভাররা অভিযোগ করেন নানা প্রতিবন্ধকতার। চালের পাইকারি ক্রেতা জানান, যে চাল কিনছি ৩৬ টাকায়। আর সেই এখন চাল ৩৯ টাকায় কিনতেই হিমশিম খাচ্ছি। অন্য ক্রেতা জানান, গত তিন দিনে প্রতি কেজি চালে তিন টাকা বেড়েছে। গত ১ সপ্তাহে এ বন্দর দিয়ে ২০ হাজার মেট্রিক টন চাল আমদানি হয়েছে বলে জানিয়েছে হিলি কাস্টমস।
প্রবাসী বাংলাদেশিদের ভোট দেয়ার সুযোগ থাকবে:অর্থন্ত্রী
বুধবার সকালে, বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে প্রবাসী বাংলাদেশিদের আরো কার্যকরভাবে সম্পৃক্ত করার উপায় নিয়ে আয়োজিত এক সেমিনারে অর্থন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত জানান, উত্তর আমেরিকা, ইউরোপ এবং মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশ ও মালয়েশিয়ায় ভোট কেন্দ্র করার উদ্যোগ নেওয়া হবে। অর্থমন্ত্রী বলেন, আগামী নির্বাচনে সৌদি আরব, মালয়েশিয়াসহ বেশ কয়েকটি দেশের প্রবাসী বাংলাদেশিদের ভোট দেয়ার সুযোগ থাকবে। আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, আগামী জাতীয় নির্বাচনে প্রবাসী বাংলাদেশিদের ভোট প্রদানের সুযোগ দিতে সরকার বিশেষ ব্যবস্থা নিচ্ছে। যেসব এলাকা বা দেশে বেশি সংখ্যক প্রবাসী আছে, সেখানে বিশেষ সেন্টার স্থাপনের মাধ্যমে তাদের ভোট প্রদানের বিষয়ে সরকার ভাবছে। অর্থমন্ত্রী বলেন, আগামী বাজেট হয়তো বা আমার শেষ বাজেট। এ বাজেটে সরকার প্রবাসীদের বিনিয়োগে আগ্রহী করতে তাদের প্রণোদনার মেয়াদ আরো এক বছর বাড়ানোর ব্যবস্থা নিচ্ছে। তিনি বলেন, মনে রাখতে হবে প্রবাসীদের পাঠানো অর্থে আমার দেশের অর্থনীতির চাকা চাঙা। তাই তাদেরকে যেন আমরা কখনো লেবার না বলি। অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব কাজী শফিকুল আজমের সভাপতিত্বে সেমিনারে অন্যদের মধ্যে ওয়েলফেয়ার অ্যান্ড ওভারসিজ এমপ্লয়মেন্ট সেক্রেটারি ড. নমিতা হালদার, ইউএনডিপি বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর সুদীপ্ত মুখার্জী, ইউএনের সাবেক কর্মকর্তা ড. একে আব্দুল মোমিন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
দেশে আরও ব্যাংকের প্রয়োজন :অর্থমন্ত্রী
অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, ব্যাংকের সংখ্যা আরও বাড়লে কোনো সমস্যা নেই। কারণ দেশের সব জনগণকে ব্যাংকিং সেবার আত্ততায় আনতে হলে আরও ব্যাংকের প্রয়োজন রয়েছে। মঙ্গলবার অর্থ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে এক চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, হ্যাঁ আরও তিনটি ব্যাংকের অনুমোদন দেয়ার প্রক্রিয়া চলছে। কারণ দেশে আরও ব্যাংকের প্রয়োজন। মুহিত বলেন, ব্যাংকগুলোকে একীভূত করার বিধিবিধান রয়েছে। সেটাকে যুগোপযোগী করা হচ্ছে। যেসব ব্যাংক একীভূত হতে চায়, নিয়মানুযায়ী তারা একীভূত হতে পারবে। একটি বিশেষ শিল্পগোষ্ঠী কয়েকটি ব্যাংকের নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে এমন প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, বিষয়টি আমাদের নজরেও রয়েছে। একটি পার্টি মার্কেট থেকে বড় অংকের লোন নিয়ে ব্যাংকের নিয়ন্ত্রণ নিচ্ছে। বিষয়টি আমরা খতিয়ে দেখছি।
রিজাল ব্যাংককে পৃথিবী থেকে বিদায় করতে চাই :অর্থমন্ত্রী
ফিলিপাইনের রিজাল ব্যাংককে দুনিয়া থেকে বিদায় করতে চাই বলে মন্তব্য করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। শনিবার রাজধানীর শিশু একাডেমিতে জিওলজিক্যাল সোসাইটি আয়োজিত অনুষ্ঠান শেষে তিনি এ কথা বলেন। মুহিত বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে অর্থ চুরির ঘটনায় ফিলিপাইনের রিজাল কমার্শিয়াল ব্যাংকিং কর্পোরেশনের (আরসিবিসি) বিরুদ্ধে মামলার বিষয়ে আলোচনা চলছে। অর্থ চুরির পর থেকে ফিলিপাইনের রিজাল ব্যাংককে টাকা ফেরতের ব্যাপারে বলা হয়েছে। প্রথমে তারা আশ্বাস দিলেও পরবর্তীতে গড়িমসি শুরু করে। তাই এখন শক্ত পদক্ষেপ নেয়ার সময় এসেছে। রিজাল ব্যাংককে পৃথিবী থেকে বিদায় করতে চাই। এর আগে বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষ থেকে জানানো হয়, চুরি যাওয়া অর্থ পুনরুদ্ধারে সব ধরনের আইনি সহায়তা দিচ্ছে ফিলিপাইন সরকার। একটি নির্দিষ্ট সময় পর যদি চুরি হওয়া অর্থ সম্পূর্ণ উদ্ধার না হয়, তবে আরসিবিসির বিরুদ্ধে মামলা হবে। উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক অব নিউইয়র্কে (নিউইয়র্ক ফেড) রক্ষিত বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভের হিসাব থেকে ১০ কোটি ১০ লাখ মার্কিন ডলার চুরির ঘটনা ঘটে। এর মধ্যে ৮ কোটি ১০ লাখ ডলার ফিলিপাইনের আরসিবিসির চারটি অ্যাকাউন্টে আর বাকি দুই কোটি ডলার যায় শ্রীলঙ্কায়। ব্যাংকটির মাধ্যমে স্থানীয় মুদ্রায় বদলে ফিলিপাইনের ক্যাসিনোতে (জুয়া খেলার জায়গা) চলে যায় বেশির ভাগ অর্থ। তবে হ্যাকারদের একটি বানান ভুলে দুই কোটি ডলার শ্রীলঙ্কায় পাঠানোর চেষ্টা ব্যর্থ হয়। পরে ফিলিপাইনের সিনেট শুনানির মাধ্যমে বাংলাদেশ ব্যাংক এক কোটি ৫২ লাখ ডলার ফেরত আনতে সক্ষম হয়।
সেরা ব্যাংক প্রাইম ব্যাংক
প্রাইম ব্যাংক সম্প্রতি ইনস্টিটিউট অব চার্টার্ড সেক্রেটারিজ অব বাংলাদেশ (আইসিএসবি) কর্তৃক করপোরেট সুশাসনের জন্য আইসিএসবি ন্যাশনাল অ্যাওয়ার্ড-২০১৬ এর সেরা ব্যাংক হিসাবে প্রথম পুরস্কার লাভ করেছে। রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্ত্মর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আইসিএসবি আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের কাছ থেকে প্রাইম ব্যাংকের কোম্পানি সেক্রেটারি মোহাম্মদ এহসান হাবীব এই পুরস্কার গ্রহণ করেন। বাণিজ্য সচিব শুভাশীষ বসু ও বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. এম খায়রম্নল হোসেনসহ অন্যরা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। বিজ্ঞপ্তি
চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন চেম্বারের বাণিজ্য মেলা শুরু ১ ডিসেম্বর
চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের উদ্যোগে নগরীর হালিশহর আবাহনী মাঠে আগামী ১ ডিসেম্বর থেকে শুরু হচ্ছে মাসব্যাপী বাণিজ্য ও রপ্তানি মেলা ২০১৭। ধারাবাহিক চতুর্থবারের মতো আয়োজিত এবারের মেলায় দুই শতাধিক স্টল এবং অর্ধশতাধিক প্যাভেলিয়ন ও মিনি প্যাভেলিয়ন অংশ নিচ্ছে। রোববার দুপুরে নগরীর আগ্রাবাদস্থ মেট্রোপলিটন চেম্বার কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বাণিজ্য মেলার বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরেন মেলা আয়োজক কমিটির আহ্বায়ক আমিনুজ্জামান ভুঁইয়া। মেট্রোপলিটন চেম্বারের সভাপতি ও কেডিএস গ্রুপের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব খলিলুর রহমান চৌধুরী সংবাদ সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন। সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, চতুর্থবারের মতো চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন চেম্বার মাসব্যাপী আন্তর্জাতিক বাণিজ্য ও রপ্তানি মেলার আয়োজন করতে যাচ্ছে। ১ ডিসেম্বর নগরীর হালিশহরস্থ আবাহনী মাঠে বেলা ১১টায় মেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ। এবারের মেলায় দেশি বিদেশি ২০০টি স্টল থাকবে। এর মধ্যে বড় প্যাভেলিয়ন থাকবে ২০টি, মিনি প্যাভেলিয়ন থাকবে ৩০টি। ভারতের গোদরেজ সিকিউরিটিজ, পিএইচপি গ্রুপের গাড়ি এবং টাটা গ্রুপের স্বল্পমূল্যের মোটরসাইকেল ও গাড়ির প্রদর্শনী এবং কম মূল্যে বিক্রির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে এই মেলায়। ভারত ছাড়াও থাইল্যান্ড, পাকিস্তান বাণিজ্য মেলায় অংশ নিচ্ছে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়। সংবাদ সম্মেলনে মেট্রোপলিটন চেম্বারের প্রেসিডেন্ট খলিলুর রহমান চৌধুরী বলেন, বিদেশে দেশীয় পণ্যের বাজার সম্প্রসারণের লক্ষ্যে মেলা চলাকালীন দেশের রাষ্ট্রদূত ও হাইকমিশনারসহ ভিআইপিদের মেলা পরিদর্শনের জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। খলিলুর রহমান বলেন, নানা প্রতিবন্ধকতা থাকা সত্ত্বেও মেট্রোপলিটন চেম্বার মানসম্পন্ন আন্তর্জাতিক মেলা আয়োজন করছে। দেশীয় শিল্পের বিকাশে ও প্রসারে এই মেলা গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা রাখবে।এই মেলা চট্টগ্রামবাসীর একটি মিলন মেলায় পরিণত হবে। মেলায় প্রবেশমূল্য রাখা হয়েছে পূর্বের ন্যায় ১০ টাকা। সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মেলার কো-কনভেনার মাহবুব চৌধুরী, সহ-সভাপতি মো: আব্দুস সালাম, পরিচালক প্রফেসর সৈয়দ আহসানুল আলম পারভেজ, প্রফেসর জাহাঙ্গীর চৌধুরী, রাসেল মাহমুদ, সুলতানা শিরিন আক্তার প্রমুখ।
শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমুর অস্ট্রিয়ার উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ
ভিয়েনায় অনুষ্ঠিতব্য এলডিসি বা স্বল্পোন্নত দেশগুলোর মন্ত্রীপর্যায়ের ৭ম সম্মেলনে যোগ দেবেন শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু। এ লক্ষ্যে তিনি আজ সকালে অস্ট্রিয়ার উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করবেন। জাতিসংঘের শিল্প উন্নয়ন সংস্থার (ইউনিডো) মহাপরিচালক লি ইয়ংয়ের আমন্ত্রণে তিনি এ সফরে যাচ্ছেন। আগামী ২৩ ও ২৪ নভেম্বর ইউনিডো আয়োজিত এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। এতে ইউনিডোর সদস্যভুক্ত দেশগুলোর শিল্পমন্ত্রী, আন্তর্জাতিক আর্থিক ও বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের প্রধান নির্বাহী, অর্থনীতিবিদ, শিল্পগবেষক, পরিবেশবিদ, নীতিনির্ধারক, বিশ্ববরেণ্য শিল্পউদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা অংশ নেবেন। সম্মেলনে স্বল্পোন্নত দেশগুলোর শিল্পখাতের ক্রমবর্ধমান উন্নতি ও উৎপাদনশীলতা অর্জনে উপযুক্ত প্রযুক্তির ব্যবহার নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হবে। পাশাপাশি শিল্পখাতে কর্মসংস্থান বৃদ্ধি, দক্ষ মানবসম্পদ তৈরির জন্য কারিগরি প্রশিক্ষণের সুযোগ সম্প্রসারণ, অধিকতর জনগোষ্ঠীকে শিল্পখাতে সংম্পৃক্ত করে দ্রুত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অর্জন, সবুজ প্রযুক্তির ব্যবহার এবং জনগণের আয় ও জীবনযাত্রার টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিতকল্পে করণীয় নির্ধারণ করা হবে। এছাড়া, সম্মেলনে এলডিসিভুক্ত দেশগুলোর সাম্প্রতিক আর্থসামাজিক অগ্রগতির বিষয়ে মন্ত্রীপর্যায়ে বিতর্ক অনুষ্ঠিত হবে। এতে উন্নয়নের কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্য অর্জনে বেসরকারিখাতের অংশগ্রহণ বৃদ্ধি এবং সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্ব জোরদারের বিষয়ে উপস্থিত মন্ত্রী ও নীতিনির্ধারকরা আলোচনা করবেন।