প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে সাক্ষাৎ করলেন মোছলেম উদ্দিন আহমদ
২২অক্টোবর,মঙ্গলবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম:২১ অক্টোবর সোমবার বিকেলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকারী বাসভবন গণভবনে চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মোছলেম উদ্দিন আহমদের নেতৃত্বে বোয়ালখালী উপজেলা পরিষদ নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মো: নুরুল আলম, ভাইস চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা এস এম সেলিম, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ও বোয়ালখালী উপজেলা পরিষদ মহিলা আওয়ামী লীগ সভাপতি শামীম আরা বেগম ও কধুরখীর ইউনিয়ন পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান শফিউল আজম শেফু সাক্ষাৎ করেছেন।এ সময় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কুশল বিনিময় করেন নবনির্বাচিত চেয়ারম্যানবৃন্দকে অভিনন্দন জানান। নেতৃবৃন্দ চট্টগ্রামের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ড পরিচালনার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন ও কৃতজ্ঞতা জানান। নেতৃবৃন্দ কালুরঘাটে নতুন ব্রীজ নির্মাণ সহ চট্টগ্রামের বিভিন্ন সমস্যা প্রধানমন্ত্রীর নজরে আনেন। প্রধানমন্ত্রী চট্টগ্রামের উন্নয়নের দায়িত্ব নিজে নিয়েছেন বলেন এবং দ্রুত সমাধান হবে বলে আশ্বস্থ করেন।
নাশকতার পরিকল্পনাকালে জামায়াত-শিবিরের ১৮ নেতা কর্মী আটক
২২অক্টোবর,মঙ্গলবার,চট্টগ্রাম প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: সস্প্রতি ভোলা জেলার বোরহান উদ্দিন থানার গুজবের ঘটনাকে কেন্দ্র করিয়া চট্টগ্রামে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতি করিয়া দেশকে অস্থিতিশীল করার লক্ষ্যে বাকলিয়া থানাধীন বগারবিল ২৫ কামরা জে.এস. টাওয়ার ভবনের সামনে রাস্তার উপর বাংলাদেশ জামায়াত ইসলামী ও তাহার অঙ্গ সংঘটন বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্র শিবিরের কতিপয় নেতাকর্মী নাশকতামূলক কর্মকান্ড সংগঠিত করার উদ্দশ্যে জমায়েত হইয়া অবস্থান করাকালে বাকলিয়া থানাধীন বগারবিল এলাকা হইতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান পরিচালনা করিয়া বগারবিল ২৫ কামরা জে.এস. টাওয়ার ভবনের ৪র্থ তলার সিঁড়ির ডান পাশের ফ্ল্যাট হইতে প্রচুর পরিমানে জিহাদি বই, লাঠি, ককটেল, কাচেঁর বোতল উদ্ধার করা হয়। ধৃত আসামীদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করিলে তাহারাও সকলেই বাংলাদেশ জামায়াত ইসলামী ও তাহার অঙ্গ সংঘটন বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্র শিবিরের সক্রিয় সদস্য বলিয়া প্রকাশ করে। উল্লেখিত সকল আসামীরা বর্ণিত ঘটনাস্থলে সমবেত হইয়া বিস্ফোরক ঘটানো সহ নাশকতামূলক কর্মকান্ডের মাধ্যমে অরাজকতা সৃষ্টি করার জন্য সমবেত হইয়াছিল। এছাড়াও গ্রেফতারকৃত আসামীরা জনগণের জানমাল ও সরকারী সম্পত্তি ক্ষতিসাধন করিবার এবং সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করার ও আইন-শৃঙ্খলা নষ্ট করিয়া জনগণের আতংক সৃষ্টি করার মাধ্যমে দেশের চলমান গণতান্ত্রিক সুষ্ঠু ধারাকে ব্যাহত করার ষড়যন্ত্র করিতেছিল এবং ভোলা জেলার বোরহান উদ্দিন থানার ঘটনাকে কেন্দ্র করিয়া চট্টগ্রাম মহানগর এলাকায় আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতি করিয়া অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করার অপচেষ্টায় লিপ্ত ছিল। আসামীদের বিরুদ্ধে বাকলিয়া থানায় বিশেষ ক্ষমতা আইন ও বিষ্ফোরক আইনে নিয়মিত মামলা রুজু করা হইয়াছে। গ্রেফতারকৃত আসামীদের মধ্যে ১। মোঃ আশরাফুল(২৪) কোতয়ালী থানার ছাত্র শিবিরের সেক্রেটারী, ২। মিজবাহ উদ্দীন হাবিব(২৪) মহাসীন কলেজের ছাত্র শিবিরের সেক্রেটারী, ৩। রাকিবুল হাসান(২১) দারুল উলুম মাদ্রাসা চন্দনপুরার ছাত্র শিবিরের সেক্রেটারী ও ৪। মোঃ সাইমন(২৩) দেওয়ান বাজার ওয়ার্ড ছাত্র শিবিরের সেক্রেটারী। ইহাছাড়া গ্রেফতারকৃত আসামীদের নামে মহানগরী এলাকায় নাশকতার মামলা রহিয়াছে।
আপনার রক্তেই মানুষ ফিরে পাবে নতুন জীবন
২২অক্টোবর,মঙ্গলবার,মো:ইরফান চৌধুরী,নিউজ একাত্তর ডট কম: আপনি কি জানেন, আপনার দেওয়া রক্তে একজন মানুষ ফিরে পেতে পারেন নতুন জীবন? একজন শিক্ষার্থী যখন ঠিক এভাবেই ক্যাম্পাসের ফটকে কথাগুলো বলছিলেন, তখন পিঠে ব্যাগ ঝোলানো অন্য ছাত্র-ছাত্রীরা যেন ডুব দিয়েছিলেন ক্ষণিকের ভাবনাতে। শিক্ষার্থীদের রক্তদানে উৎসাহিত করতে চিটাগং ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটিতে (সিআইইউতে) অনুষ্ঠিত হলো ব্লাড গ্রুপিং ক্যাম্পেইন বা রক্তের গ্রুপ পরীক্ষা বিষয়ক দিনব্যাপী কর্মসূচি। নগরের জামাল খানের সিআইইউ ক্যাম্পাসে সম্প্রতি সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটি (এসডব্লিউএস) এই কর্মসূচির আয়োজন করে। এতে রক্তের গ্রুপ পরীক্ষার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের জন্য আরও ছিলো চলচ্চিত্র প্রদর্শনী। যেখান থেকে অর্জিত অর্থ মেডিক্যাল ক্যাম্প কর্মসূচির জন্য ব্যয় করা হবে। সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটির প্রেসিডেন্ট শিক্ষার্থী এসএম আলী রেজা বলেন, এই ক্লাবের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের ভেতর জনসচেতনতামূলক মনোভাব তৈরির পাশাপাশি সমাজের সাধারণ ও দুস্থ মানুষের জন্যও আমরা কাজ করে যাচ্ছি। ক্লাবের সদস্যরা জানান, রক্তদান নিয়ে অনেক শিক্ষার্থীর মনে এখনও সংশয় রয়েছে। তাই অনেকে রক্তের গ্রুপ পরীক্ষা করতে আগ্রহী ছিলো না। কেউবা মনে করেন রক্ত দিলে রক্তশূন্যতায় ভুগবেন। অনেকের রয়েছে পারিবারিক বিধি-নিষেধ। মোট ১৫০ জন ছাত্র-ছাত্রী তাদের রক্তের গ্রুপ পরীক্ষা করেছেন। সিআইইউ বিজনেস স্কুলের প্রভাষক ও সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটির ফ্যাকাল্টি ইনচার্জ ইফফাত ইশরাত খান বলেন, আশরাফুল মাখলুকাত বা সৃষ্টির সেরা জীব হিসেবে মানুষের মহামূল্যবান জীবন রক্ষায় রক্ত দেওয়া কর্তব্য বলে আমি মনে করি। সিআইইউ বিজনেস স্কুলের ডিন ও সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটির উপদেষ্টা ড. মোহাম্মদ নাঈম আবদুল্লাহ বলেন, এই ধরনের কার্যক্রমের মাধ্যমে ছাত্র-ছাত্রীদের ভেতর ইতিবাচক গুণাবলী তৈরি হয়। সিআইইউতে পড়াশোনা ও সহশিক্ষা কার্যক্রম একে অপরের পরিপূরক বলে উল্লেখ করেন তিনি।
বিএলএফ চট্টগ্রাম মহানগর ও জেলা কমিটির অভিষেক
২২অক্টোবর,মঙ্গলবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: গত ১৮ অক্টোবর শুক্রবার বাংলাদেশ লেবার ফেডারেশন-বিএলএফ চট্টগ্রাম মহানগর ও জেলা কমিটির যৌথ উদ্যোগে অভিষেক অনুষ্ঠান নগরীর জিইসি কনভেনশন হলে অনুষ্ঠিত হয়। জেলা কমিটির সভাপতি সৈয়দ রবিউল হক শিমুলর সভাপতিত্বে ও মহানগর কমিটির সভাপতি মোঃ আনোয়ার হোসেনর সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন মহানগর কমিটির সাধারণ সম্পাদক আবু আহমেদ মিঞা। সভার শুরুতে বর্ণাঢ্য Railly ও অনুষ্ঠানের শুভ উদ্বোধন করেন আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন শ্রমিক নেতা বিএলএফ এর কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য শাহ মো: আবু জাফর। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম বিএলএফর উপদেষ্টা ও চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দিন। আ.জ.ম নাছির উদ্দিন বলেন- বিএলএফ সর্বস্তরের শ্রমজীবী মানুষের অধিকার নিয়ে কথা বলে। সম্পূর্ণ রাজনৈতিক প্রভাবমুক্ত এই শ্রমিক সংগঠনের দীর্ঘদিনের আন্দোলন সংগ্রামের ইতিহাস বর্ণনা করে তিনি চট্টগ্রাম মহানগর ও জেলা কমিটির নেতৃবৃন্দকে আত্মত্যাগের মাধ্যমে নিস্বার্থভাবে নির্যাতিত, নিপিড়িত মেহনতী মানুষের কল্যাণে কাজ করার আহব্বান জানান। এক্ষেত্রে তিনি বিএলএফ এর উপদেষ্টা হিসেবে বিএলএফকে সর্বাঙ্গীক সহযোগিতার নিশ্চয়তা প্রদান করেন। সভায় শাহ মো: আবু জাফর বলেন, বিএলএফ একটি অরাজনৈতিক জাতীয় ও আন্তর্জাতিক শ্রকিক ফেডারেশন। তার এই মূলমন্ত্রের প্রমাণ আজকের এই অভিষেক অনুষ্ঠান। এই অনুষ্ঠানে দল মত নির্বিশেষে অনেক শ্রমিক নেতা ও মেহনতি শ্রমিক উপস্থিত আছেন। সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন-কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক সাবেক সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা এড. দেলোয়ার হোসেন খান, জাতীয়তাবাদী শ্রমিক দলের বিভাগীয় সভাপতি এএম নাজিম উদ্দিন, জাতীয় শ্রমিকলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মো: শফর আলী, কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি চৌধুরী মোহাম্মদ আলী, কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাকিল আখতার চৌধুরী, কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এম শাহাদাত হোসেন, বিভাগীয় বিএলএফ এর সাধারণ সম্পাদক নুরুল আবছার ভূঁইয়া, কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সাধারণ সম্পাদক এসএম নাছিম, কেন্দ্রীয় কমিটির আইন বিষয়ক সম্পাদক এড. সিরাজুল ইসলাম, জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক মো: মাঈনুদ্দিন, বিভাগীয় যুব কমিটির আহব্বায়ক মো: নুরুল আবছার তৌহিদ সহ মহানগর কমিটি, জেলা কমিটি, যুব কমিটি, বিভিন্ন ব্যাসিক ইউনিয়নের সভাপতি ও সাধারণ সম্পদাকসহ বিভিন্ন সামাজিক নেতৃবৃন্দ। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
পুলিশের ২৫ কর্মকর্তাকে সেরা কাজের স্বীকৃতি
২১অক্টোবর,সোমবার,মো:ইরফান চৌধুরী,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম রেঞ্জে সেরা কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ ২৫ জন পুলিশ কর্মকর্তাকে সম্মাননা স্মারক দেয়া হয়েছে। গতকাল রোববার সকালে খুলশীর রেঞ্জ কার্যালয়ে ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুক মাসিক অপরাধ পর্যালোচনা সভায় এ সম্মাননা তুলে দেন। গত সেপ্টেম্বর মাসে অপরাধ নিয়ন্ত্রণে দক্ষতা, আলোচিত মামলার রহস্য উদঘাটন, অস্ত্র ও মাদক উদ্ধার, আসামি গ্রেপ্তার, পরোয়ানা তামিল এবং কোর্ট প্রসিকিউশন মামলাসহ সার্বিক বিবেচনার স্বীকৃতিস্বরূপ ১৬টি ক্যাটাগরিতে এসব পুলিশ কর্মকর্তাকে নির্বাচিত করা হয়। এর মধ্যে শ্রেষ্ঠ জেলার পুরস্কার পেয়েছেন চট্টগ্রাম জেলা পুলিশ সুপার নুরেআলম মিনা। আগস্ট মাসে মামলা তদন্তে সাফল্য অর্জনকারী হিসেবে সম্মাননা পেয়েছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মুহাম্মদ আলমগীর। চট্টগ্রাম রেঞ্জ পুলিশের বিভিন্ন থানার মধ্যে শ্রেষ্ঠ হয়েছে কুমিল্লার বুড়িচং থানা। সংশ্লিষ্ট থানার ওসি আকুল চন্দ্র বিশ্বাসকে সম্মাননা স্মারক তুলে দেয়া হয়। অন্যান্য ক্যাটাগরিতে শ্রেষ্ঠ কোর্ট পরিদর্শক হয়েছেন চট্টগ্রাম সদর কোর্ট পুলিশ পরিদর্শক সুব্রত ব্যানার্জী। শ্রেষ্ঠ ডিবি ইউনিটের মধ্যে প্রথম নোয়াখালী জেলা গোয়েন্দা শাখা ও দ্বিতীয় কুমিল্লা জেলা গোয়েন্দা শাখা। শ্রেষ্ঠ ডিবি কর্মকর্তা হয়েছেন নোয়াখালীর এসআই মো. সাঈদ মিয়া। শ্রেষ্ঠ মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা হয়েছেন চাঁদপুরের মতলব উত্তর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মুরশেদুল আলম ভূঁইয়া, নোয়াখালীর গোয়েন্দা শাখার পুলিশ পরিদর্শক মো. জাকির হোসেন, কোম্পানীগঞ্জ থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মোস্তাফিজুর রহমান, রাউজান থানার এসআই মেহের আলী, চকরিয়া থানার এসআই প্রিয়পাল ঘোষ ও সীতাকুণ্ড মডেল থানার এসআই মো. রফিকুল ইসলাম। শ্রেষ্ঠ কমিউনিটি পুলিশিং অফিসার হয়েছেন কুমিল্লা সদর দক্ষিণ মডেল থানার ওসি মো. মামুন অর রশিদ ও চাঁদপুর সদর মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক মো. আব্দুর রব। শ্রেষ্ঠ মাদক উদ্ধারকারী অফিসার হয়েছেন রামু থানার এসআই মো. সোহেল রানা, অবৈধ অস্ত্র-গুলি উদ্ধারকারী অফিসার বুড়িচং থানার এসআই মো. শাহীন কাদির, শ্রেষ্ঠ ডিএসবি ওয়াচার হিসেবে প্রথম কক্সবাজারের ওয়াচার কনস্টেবল মো. সাদ্দাম হোসেন ও দ্বিতীয় কুমিল্লার ডিআইও এসআই মো. আবুল খায়ের। শ্রেষ্ঠ ওয়ারেন্ট তামিলকারী হয়েছেন নোয়াখালীর সুধারাম মডেল থানার এসআই সাইফুল ইসলাম, দ্বিতীয় বুড়িচং থানার এসআই মো. শাহীন কাদির ও রাউজান থানার এসআই মো. ইব্রাহিম খলিল। শ্রেষ্ঠ এএসআই হয়েছেন নোয়াখালীর সুধারাম মডেল থানার এএসআই সালাহ উদ্দিন ও ফটিকছড়ি থানার এএসআই মো. নুরুল হাকিম। শ্রেষ্ঠ ট্রাফিক ইউনিট কুমিল্লা জেলা ট্রাফিক ও চট্টগ্রাম জেলা ট্রাফিক। এছাড়া স্ব-স্ব ইউনিটের পুলিশের টিআই (প্রশাসন) মো. কামাল উদ্দিন ও টিআই (প্রশাসন) মীর নজরুল ইসলামের হাতে সম্মাননা স্মারক তুলে দেওয়া হয়েছে। শ্রেষ্ঠ কমিউনিটি পুলিশিং মনোনীত সদস্য হয়েছেন কুমিল্লার সদর দক্ষিণ উপজেলা কমিউনিটি পুলিশিং কমিটির সভাপতি মো. আব্দুল মালেক। এ সময় উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি (অপারেশন অ্যান্ড ক্রাইম) মোহাম্মদ আবুল ফয়েজ, এবিএম মাসুদ হোসেন (কঙবাজার), মোহাম্মদ জাকির হোসেন মজুমদার (বান্দরবান), মো. আহমার উজ্জামান (খাগড়াছড়ি), মো. আলমগীর কবীর (রাঙামাটি), খোন্দকার নুরুন্নবী (ফেনী), চট্টগ্রামের আর আর এফ কমান্ড্যান্ট এম এ মাসুদ হোসেন, রেঞ্জ অফিসের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপারেশন অ্যান্ড ক্রাইম) মাহমুদা বেগম, সহকারী পুলিশ সুপার মান্না দে, সহকারী পুলিশ সুপার আকলিমা আক্তার প্রমুখ।
বাস্তব ও অভিজ্ঞতা মিশে গল্পের জাগতিক মিশ্রণ হয়
২১অক্টোবর,সোমবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: বাস্তব ও অভিজ্ঞতা মিশে গল্পের এক জাগতিক মিশ্রণ হয়। গত ১৯ অক্টোবর চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের বঙ্গবন্ধু মিলনায়তনে খড়িমাটি থেকে প্রকাশিত মেজর (অবঃ) মোঃ এমদাদুল ইসলামের গল্পের বই খরস্নায়ু এর পাঠ ও বিক্রয় উৎসবে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল এমপি একথা বলেন। তিনি আরো বলেন, ফিকশন এন্ড ফেক্টকে দেখেছেন, লিখেছেন। এই গল্পগুলো আমাদের কাছে লেখকের অভিজ্ঞানে উত্তম ফসল। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে চট্টগ্রামস্থ ভারতীয় সহকারী হাই কমিশনার অনিন্দ্য ব্যানার্জি বলেন, বইপড়ার আসল উদ্দেশ্য হচ্ছে শুধু অবসর যাপন নয়। বই জীবনের কাজে লাগতে হবে। প্রত্যেক কাজ নির্ভর করে তার উদ্দেশ্যকে প্রাধান্য দিয়ে। সভাপতির বক্তব্যে ড. অনুপম সেন বলেন, গল্পে গল্প, গল্পে নৃশংসতা তিনি তুলে ধরেছেন। তার চেয়েও মানুষের জীবনের নৃশংসতা আরো বেশি। তার গল্পে মৃত্যু কতভাবে আছে, ঘুরে ফিরে মৃত্যু এসেছে। তবে এখানে সৌন্দর্য ও বিভৎসতা পাশাপাশি তুলে ধরেছেন লেখক। আলোচনায় অধ্যাপক ড. মোহীত উল আলম বলেন, গল্পে পৈচাশিক ঘটনাকে লেখক মানবিক চোখে উপস্থাপন করেছেন। লেখার মাঝে মাঝে প্রকৃতির বর্ণনা রয়েছে, যা কাব্যময় লেগেছে। সবাই কিন্তু একই গল্প লিখছে, কে কিভাবে উপস্থাপন করবে সেটাই ভিন্নতা। সাংবাদিক সুভাষ দে বলেন, তিনি ছোট ছোট জীবন ছোট ছোট ঘটনা নিয়ে বিষাদ রচনা করেছেন। তার অভিজ্ঞতা ও প্রত্যক্ষদর্শীর বর্ণনা এখানে রয়েছে। নাট্যজন ও কবি অভীক ওসমান বলেন, তার গল্প আলাদা করবো এই কারণে যে তিনি বিভিন্ন ঘটনাকে জীবনের খুব ঘনিষ্ট আয়োজন থেকে প্রত্যক্ষ করেছেন। লেখক মেজর (অব.) মো. এমদাদুল ইসলাম বলেন, গল্পের বই থেকে আমার অনেকখানি জীবন দেখা হয়ে গেছে। যা লিখে নিতে চাই। আপনাদের পড়াতে চাই। তা-ই এই বই। কথাসাহিত্যিক বিশ্বজিৎ চৌধুরী বলেন, গল্প লেখার শিল্পকৌশল নিয়ে তিনি অপূর্ব অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে গেছেন। বিস্ময়ের সাথে দেখেছি তার সফলতা। তিনি সৈনিক কিন্তু তার লেখনিতে মানবিকতা উঠে এসেছে। অতিথিদের উত্তরীয় দিয়ে বরণ করে নেন চলচ্চিত্রকার ও প্রাবন্ধিক শৈবাল চৌধূরী, কথাসাহিত্যিক আজাদ বুলবুল, তাসফিক ইবনে এমদাদ ও ওয়াফি বিনতে এমদাদ। মনিরুল মনিরের সঞ্চালনায় গল্প থেকে পাঠ করেন আবৃত্তশিল্পী রাশেদ হাসান ও বর্ষা চৌধুরী। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
মাদক সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে গণজাগরণ সৃষ্টি করতে হবে : আ.জ.ম নাছির
২১অক্টোবর,সোমবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: কল্পলোক আবাসিক নির্মান কন্ট্রাক্টর শ্রমিক কল্যাণ সমিতির উদ্যোগে মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গি ও চাঁদাবাজ বিরোধী এক সমাবেশ গতকাল রোববার সকালে কল্পলোক আবাসিকের মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম সিটি কপোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন। হাজি মোহাম্মদ কামাল কন্ট্রন্টারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন চসিক প্যানেল মেয়র ও কাউন্সিলর চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, পটিয়া উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান ডাঃ তিমির বরুণ চৌধুরী, সাবেক কাউন্সিলর জালাল উদ্দীন ইকবাল। এতে আরো উপস্থিত ছিলেন বকশিরহাট আওয়ামী লীগ নেতা বাহাদুর, বৃহত্তর বাকলিয়া বঙ্গবন্ধু স্মৃতি সংসদের সভাপতি রিতাপ উদ্দীন বাবু, ওসমান গনি, মোঃ মহসিন, মোঃ কামাল উদ্দীন, এস এম মুবিনুল হক মনিরাজ, যুবলীগ নেতা মোঃ কবির কন্ট্রক্টার, রতন চৌধুরী, হুমায়ন কবির আজাদ, মোঃ শরীফ শাহ, মোঃ নুর নবী, হাজী কামাল কন্ট্রক্টার, মোঃ লোকমান কন্ট্রক্টারসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও বিভিন্ন শ্রেণির নেতৃবৃন্দ। প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিটি মেয়র বলেন, গ্রামগঞ্জ-শহর থেকে শুরু করে সারা দেশে মাদকের বিরুদ্ধে গণজাগরণ সৃষ্টি করতে হবে। এই মাদকই যুব সমাজকে বিপথে ঠেলে দিচ্ছে। মাদক কেনার অর্থ জোগাড় করতে গিয়েই কিশোর-তরুণরা ব্যাপকভাবে নানা অপরাধের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ছে। মাদকের এই নেশার জালে একবার কেউ জড়িয়ে পড়লে সহজে সেই জাল থেকে বেরিয়ে আসতে পারে না। এ ধরনের ঘৃন্য কর্মকাণ্ডের সাথে জড়িত ব্যক্তি সে যে দলেরই নেতা-কর্মী হউক তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে সকল ধরনের সহযোগিতা করা হবে বলে উল্লেখ করেন মেয়র। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
স্ত্রীর পরকীয়া প্রেমের জেরে খুন হয় বাবা-মেয়ে
২০অক্টোবর,রবিবার,নিউজ চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: পরকীয়া প্রেমের জেরে চট্টগ্রামে আবু তাহের ও মেয়েকে হত্যা করে তার স্ত্রী ও তার প্রেমিক। এ ঘটনায় হাছিনা বেগম ও মাইনউদ্দিনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। (২০ অক্টোবর) সকালে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ সংবাদ সম্মেলন করে এ তথ্য জানায়। পুলিশ জানায়, এ ঘটনায় নিহত আবু তাহেরের ভাই অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে নগরীর বন্দর থানায় মামলা করেছেন। শনিবার (১৯ অক্টোবর) সকালে নগরীর নিমতলা এলাকার বাসিন্দা আবু তাহের ও তার মেয়েকে নিজ বাসায় গলা কেটে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। এর পর ঘটনার কারণ অনুসন্ধানে তদন্ত শুরু করে পুলিশ, Rab ও সিআইডি। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিহতের স্ত্রী, খালাসহ কয়েক জনকে থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। পরে ঘটনার সাথে সংশ্লিষ্টা পাত্তয়ায় স্ত্রীকে গ্রেপ্তার দেখিয়েছে পুলিশ।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর