শনিবার, মার্চ ৬, ২০২১
চট্টগ্রামে গ্রেফতারী পরোয়ানাভূক্ত আসামী আব্দুর রহমান গ্রেফতার
০৭,অক্টোবর,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম নগরীর পাঁচলাইশ এলাকা থেকে গ্রেফতারী পরোয়ানাভূক্ত আসামী আবদুল রহমান (৬০)কে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বুধবার (৭ অক্টোবর) সকাল সাড়ে ১০ টায় মির্জাপুল থেকে তাকে গ্রেফতার করে। সে হাটহাজারী উত্তর মেখল রহিমপুরের বাসিন্দা মৃত আবদুল খালেকের পুত্র এবং চট্টগ্রাম রাঙামাটি মোটর মালিক সমিতির অবৈধ সাধারণ সম্পাদক। জালিয়াতি, আত্মসাৎ ও প্রতারণার মামলায় পাঁচলাইশ থানা পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। একাধিক মামলার সাজা ও গ্রফেতারি পরোয়ানাও রয়েছে তার বিরুদ্ধে। তাকে দুপুর ১২ টায় জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। পাঁচলাইশ থানার এস আই জসিম বলেন, পাঁলাইশ এলাকায় অভিযান চালিয়ে মির্জাপুলের একটি অফিস থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। উল্লেখ্য, রাউজানের সাবেক মেয়র কাজী আবদুল্লাহ আল হাছানের পুত্র কাজী আবদুল্লাহ আল আনিসুর রহমানের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় গত ৩০ সেপ্টম্বর গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছিল চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন ম্যাজিষ্ট্রেট। নির্বাচন ছাড়া আবদুর রহমান দীর্ঘ ১২ বছর ক্ষমতা দখল করে একের পর এক অন্যায় করে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন অত্র মামলার বাদী।
রেল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য ৩০ শতাংশ কোঠা থাকবে: রেলপথ মন্ত্রী
০৭,অক্টোবর,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: রেলপথ মন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রেলপথ মন্ত্রণালয়কে ঢেলে সাজিয়েছেন। বাংলাদেশ রেলওয়ে এখন আগের অবস্থানে নেই। রেলের সকল সেক্টরে অকল্পনীয় পরিবর্তন ও উন্নয়ন হয়েছে। নিয়োগবিধি সংশোধনসহ রেল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য ৩০ শতাংশ পোষ্য কোঠা রাখার ও ব্যবস্থা রাখা হচ্ছে। রেলপথ মন্ত্রী আজ (০৭ অক্টোবর) চট্টগ্রামে রেলওয়ের পাহাড়তলিস্থ প্রধান সরঞ্জাম নিয়ন্ত্রেকের কার্যালয় এবং নতুন আমদানিকৃত ১০ টি এমজি ডিজেল লোকোমেটিভ পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এ তথ্য জানান। এ সময় রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব সেলিম রেজা, বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক মো. সামসুজ্জামান, প্রধান সরঞ্জাম নিয়ন্ত্রক রুহুল কাদের আজাদ উপস্থিত ছিলেন। মো. নূরুল ইসলাম সুজন বলেন, রেলে নিযুক্ত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য আবাসন ব্যবস্থায় কাজ চলছে। রেল কর্মচারীদের জন্য ভবন নির্মাণের পরিকল্পনা করছে সরকার। এ জন্য রেল পরিবারের সকলের সহযোগিতা কামনা করেন মন্ত্রী। ঘুষ দিয়ে কারও চাকরি নিতে হবে না উল্লোখ করে রেল মন্ত্রী বলেন, আগামী কয়েক মাসের মধ্যে নিয়োগবিধির কাজ শেষ করে নতুন লোক নিয়োগ দেওয়া হবে। জনবল কাঠামো বৃদ্ধি করে রেলকে আরো যুগোপোযোগী করা হবে বলে উল্লেখ করেন রেলমন্ত্রী।
শিশু ও নারী নির্যাতন রুখে দাঁড়ানোর আহ্বান ইপসার
০৭,অক্টোবর,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: শিশু ও নারীদের উপর করা সব ধরনের নির্যাতনের দ্রুত বিচারের দাবিতে মানববন্ধন করেছে স্থায়িত্বশীল উন্নয়ন সংগঠন- ইপসা। বুধবার (৭ অক্টোবর) বিশ্ব শিশু দিবস ও শিশু অধিকার সপ্তাহ উদযাপন উপলক্ষ্যে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব চত্বরে এই মানববন্ধন কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। চট্টগ্রামের ২০টিরও বেশি উন্নয়ন সংস্থা ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের নেতারা মানববন্ধনে সংহতি জানিয়ে অংশ নেন। মানববন্ধনে স্বাগত বক্তব্যে ইপসার কর্মসূচি সমন্বয়ক মোহাম্মদ আলী শাহিন বলেন, গত ৯ মাসে দেশে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে ৯৭৫টি, তার মধ্যে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ ২০৮টি। ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনা ঘটেছে ৪৩টি। আইন ও সালিস কেন্দ্রের (আসক) হিসাব অনুযায়ী, ২০১৯ সালে ১ হাজার ৪১৩ জন নারী ধর্ষণের শিকার হন। ২০১৮ সালে এই সংখ্যা ছিল ৭৩২ জন। আর চলতি বছরে প্রতিদিন অন্তত ৩ জন নারী ধর্ষণ ও নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। বলার অপেক্ষা রাখে না- এই হিসাব অসম্পূর্ণ। অভিযুক্ত ব্যক্তিরা প্রভাবশালী বা তাদের পরিবারের সদস্যদের চাপে অনেক ধর্ষণের তথ্য চাপা পড়ে যায়। নারীর নিরাপত্তা দেওয়া এবং নারী নির্যাতন, ধর্ষণ প্রভৃতি অপরাধ প্রতিহত করার দায়িত্ব শুধু সরকার ও সরকারি দলের নয়। সমাজের সকল শ্রেণি-পেশার মানুষকে ঐক্যবদ্ধভাবে শিশু ও নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে অবস্থান নিতে হবে। ইপসার প্রধান নির্বাহী মো. আরিফুর রহমান বলেন, বিগত কয়েকমাস ধরে দেশে শিশু ও নারী নির্যাতন অস্বাভাবিক মাত্রায় বৃদ্ধি পেয়েছে। ধর্ষণ, শিশু ও নারী নির্যাতনসহ সকল ধরনের সহিংসতার দ্রুত বিচার করতে হবে এবং সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। ধর্ষণ বন্ধে প্রয়োজনে দেশের প্রচলিত আইন পরিবর্তন করতে হবে। উন্নয়নকর্মী থেকে শুরু করে সর্বস্তরের মানুষকে ধর্ষণ ও নির্যাতনের বিরুদ্ধে সচেতন হতে হবে। রাষ্ট্রের প্রতিটি মানুষের সচেতনতাই পারে আমাদের এই বিপর্যয় থেকে রক্ষা করতে। সন্তানকে বাসায় নৈতিকতা ও সুশিক্ষা এবং নারীর প্রতি শ্রদ্ধাশীলতা শিক্ষা দিতে হবে। পাশাপাশি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতেও নারীর প্রতি সম্মানের মানসিকতা সৃষ্টির জন্য প্রতিনিয়ত নৈতিক শিক্ষা দিতে হবে। শিশু ও নারী নির্যাতন বন্ধে মানববন্ধনে চারটি সুনির্দিষ্ট দাবি জানান ইপসার উপ-পরিচালক নাছিম বানু। তিনি বলেন, শিশু ও নারী নির্যাতন বন্ধে সকল ধরনের শিশু ও নারী নির্যাতন ও ধর্ষণের বিচার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের মাধ্যমে করতে হবে। তিন মাসের মধ্যে ধর্ষণের বিচারকাজ নিষ্পন্ন করতে হবে। ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি এবং নির্যাতিত শিশু ও নারীর সুরক্ষা নিশ্চিত করতে হবে। আমরা মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে শিশু ও নারীদের জন্য একটি নিরাপদ দেশের স্বপ্ন দেখেছি। সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে সবাইকে আন্তরিক হতে হবে। ইপসার প্রোগ্রাম অফিসার মো. ওমর শাহেদ হিরোর সঞ্চালনায় মানববন্ধনে আরো বক্তব্য রাখেন, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের (সিইউজের) সাবেক সাধারণ সম্পাদক হাসান ফেরদৌস, ১৫ নম্বর বাগমনিরাম ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর মো. গিয়াস উদ্দিন, এন্টি ট্যোবেকো মিডিয়া অ্যালায়েন্সের (আত্মা) আহ্বায়ক মো. আলমগীর সবুজ, আত্মার সদস্য কামরুল হুদা, ইপসার উপ-পরিচালক মোহাম্মদ শাহজাহান প্রমুখ।
২০২২ সালের মধ্যে নতুন কালুরঘাট সেতু: রেলমন্ত্রী
০৭,অক্টোবর,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ২০২২ সালের মধ্যে নতুন কালুরঘাট সেতু বাস্তবায়ন হবে বলে জানিয়েছেন রেলপথ মন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন। বুধবার (০৭ অক্টোবর) সকাল ১১টায় কালুরঘাট সেতু পরিদর্শন শেষে তিনি এ কথা বলেন। নুরুল ইসলাম সুজন বলেন, চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী নদী কর্ণফুলী। এ নদীর ওপর কালুরঘাট সেতুটি রেল কাম সড়ক সেতু করার মানুষের যে দাবি তা শিগগিরই পূরণ হচ্ছে। মন্ত্রণালয়ে দায়িত্ব নেওয়ার পরপরই প্রধানমন্ত্রী আমাকে জানান, সেতুটি রেল কাম সড়ক সেতু করার উদ্যোগ নিয়েছেন। তিনি বলেন, পরে সেতুর অগ্রগতি সম্পর্কে জানতে কোরিয়ার প্রকৌশলী টিমের সঙ্গে কথা বলি, তারা পরিদর্শনে এসে প্রথমে সেতুটি করবে বলে জানালেও কিছুদিন পর জানায়-তারা সেতুর কাজ করবে না। একপর্যায়ে আমি আবারও বৈঠকে বসলে তারা জানায়, রেলসেতু ও সড়ক সেতু আলাদা করতে হবে। বিষয়টি নিয়ে আমি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে আলাদা সভায় ব্যক্তিগতভাবে আলোচনা করি। আমি প্রধানমন্ত্রীর কাছে কোরিয়ার প্রস্তাবনা তুলে ধরি। তখন প্রধানমন্ত্রী আমাকে জানান, আলাদা সেতু নয়। সেতুটি হবে রেল কাম সড়ক সেতু। রেলপথ মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা মোতাবেক রেল কাম সড়ক সেতু করার উদ্যোগ নিয়েছি। সে লক্ষ্যে পুরনো সেতুটি পরিদর্শনে আসা। আশা করছি ২০২২ সালের মধ্যে নতুন কালুরঘাট সেতু বাস্তবায়ন করতে পারবো। এতদিনও সেতুর কাজ না হওয়ায় আমি আন্তরিকভাবে দুঃখ প্রকাশ করছি। তিনি বলেন, সেতুর ওপর হবে দুই লাইনের সড়ক। রেললাইনটি হবে ডুয়েলগেজের। সেতুটি হলে ভারত, বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের সঙ্গে রেল যোগাযোগ স্থাপন করা সম্ভব হবে।
ফটিকছড়িতে প্রতীক বরাদ্দ দেয়ার পর প্রার্থীদের আনুষ্ঠানিক প্রচার-প্রচারণা শুরু
০৬,অক্টোবর,মঙ্গলবার,সজল চক্রবর্তী,ফটিকছড়ি,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: নিজ কর্মী- সমর্থকদের নিয়ে প্রার্থীরা বিভিন্ন হাট-বাজারে ঘুরে ভোটারদের কাছে ভোট চেয়ে ও দোয়া কামনা করে যাচ্ছেন। এর আগে গত রোববার(৪অক্টোবর) সুয়াবিল ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৪ জন,সাধারণ সদস্য পদে ৩৪জন,সংরক্ষিত সদস্য (মহিলা) পদে ৯ জন ও নানুপুর ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে উপ নির্বাচনে ৭জন প্রার্থীর মাঝে প্রতীক বরাদ্দ দেয় রিটার্নিং কর্মকর্তা। এছাড়াও জাফতনগর ইউপির ৮নং ওয়ার্ডের উপনির্বাচনে সাধারণ সদস্য পদে দুইজন প্রার্থীর মাঝে প্রতীক বরাদ্দ দিয়েছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাচন অফিসার মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির। সুয়াবিলে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী জয়নাল আবেদিনকে (নৌকা প্রতীক), বিএনপি মনোনীত প্রার্থী মোহাম্মদ ইয়াকুবকে (ধানের শীষ প্রতীক), স্বতন্ত্র প্রার্থী মোহাম্মদ হায়াতকে (আনারস প্রতীক) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী নুরুল আলমকে (চশমা প্রতীক) দেওয়া হয়। অন্যদিকে নানুপুর ইউপিতে আওয়ামী লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী শফিউল আজমকে (নৌকা প্রতীক), বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী জয়নাল আবেদিনকে (ধানের শীষ প্রতীক), স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী মুহাম্মদ আমান উল্লাহকে (ঘোড়া প্রতীক), মুহাম্মদ নুরুল হুদাকে (আনারস প্রতিক),মোহাম্মদ নাছির উদ্দিনকে (টেবিল ফ্যান প্রতিক),মুহাম্মদ ছাবের উদ্দিনকে (মোটরসাইকেল প্রতিক) ও সৈয়দ মঈনুদ্দিনকে (রজনীগন্ধা প্রতীক) বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাচন অফিসার মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির বলেন, ইউপি নির্বাচন আইন মোতাবেক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আগামী ২০ অক্টোবর ভোট গ্রহনের ৭২ ঘন্টা আগ পর্যন্ত প্রাার্থীরা নিয়ম অনুযায়ী প্রচার-প্রচারণা করতে পারবেন। যদি কেউ আইন অমান্য করে তাহলে আমরা আইনগত ব্যবস্থা নিবো। অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন গ্রহনের সকলের সহযোগীতা চাই।
চট্টগ্রামে করোনায় আক্রান্ত আরও ৬৭
০৬,অক্টোবর,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় চট্টগ্রামের সরকারি ও বেসরকারি ৮টি ল্যাবে ও কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজের ল্যাবে চট্টগ্রামের ৮০৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ৬৭ জনের দেহে কোভিড-১৯ শনাক্ত হয়। চট্টগ্রামে সর্বমোট করোনা শনাক্ত হয়েছে ১৯ হাজার ১৮৩ জন। মঙ্গলবার (৬ অক্টোবর) সকালে সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদনের এ তথ্য জানা যায়। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবে ৭৯টি নমুনা পরীক্ষা করে ১৭ জন কোভিড-১৯ পজিটিভ শনাক্ত হয়। তারমধ্যে ৪ জন নগরীর ও ১৩ জন উপজেলার বাসিন্দা। বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেসে (বিআইটিআইডি) ২৫৫টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে শনাক্ত হন ১০ জন। তারমধ্যে ৯ জন নগরীর ও ১ জন উপজেলার বাসিন্দা। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) ল্যাবে ৩১৯টি নমুনা পরীক্ষায় ১৭ জন পজিটিভ পাওয়া গেছে। এরমধ্যে ১৪ জন নগরীর ও ৩ জন উপজেলার বাসিন্দা। চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ল্যাবে ৫৩টি নমুনা পরীক্ষা করে ৪ জন পজিটিভ শনাক্ত হয়। পজিটিভ শনাক্ত হওয়া ৪ জনই নগরীর বাসিন্দা। ইম্পেরিয়াল হাসপাতালের ল্যাবে ৩১টি নমুনা পরীক্ষায় ৪ জন করোনা আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন। তারা সবাই নগরীর বাসিন্দা। শেভরন ল্যাবে ৩৭টি নমুনা পরীক্ষায় ৮ জন করোনা আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন। তারাও সবাই নগরীর বাসিন্দা। চট্টগ্রাম মা ও শিশু জেনারেল হাসপাতালের ল্যাবে ১৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এরমধ্যে ৪ জনের পজেটিভ শনাক্ত হয় এবং তারা সবাই নগরীর বাসিন্দা। আরটিআরএলে ২ জনের নমুনা পরীক্ষায় ২ জনেরই কোভিড-১৯ পজিটিভ শনাক্ত হয়। তারা ২ জনের ১ জন নগরীর ও ১ জন উপজেলার বাসিন্দা। এছাড়া কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজের ল্যাবে চট্টগ্রামের ১৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে উপজেলার ১ জন আক্রান্ত হিসেবে কেউ শনাক্ত হয়েছে। চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি জানান, গত ২৪ ঘণ্টার নমুনা পরীক্ষায় ৬৭ জন নতুন আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছেন। গতকাল (রোববার) মোট নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৮০৬ জনের। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে নগরে ৪৮ জন এবং উপজেলায় ১৯ জন। শেষ ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত ১ জনের মৃত্যু হয়েছে।
সিএমপির শীর্ষ ১৪ পদে রদবদল, ১২ এসআইকে বদলি
০৫,অক্টোবর,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) তিন উপ-কমিশনার (ডিসি), আট অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি) ও তিন সহকারী কমিশনার (এসি) পদমর্যাদার কর্মকর্তার রদবদল হয়েছে। সোমবার (০৫ অক্টোবর) বিকেলে সিএমপি কমিশনার সালেহ্ মোহাম্মদ তানভীরের পৃথক আদেশে এসব রদবদল হয়। সিএমপির উপ-কমিশনার (সদর) আমির জাফর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। আদেশে সিএমপির গোয়েন্দা বিভাগের ডিসি (উত্তর) আলী হোসেনকে গোয়েন্দা বিভাগের ডিসি (দক্ষিণ) হিসেবে অতিরিক্ত দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে, গোয়েন্দা বিভাগের ডিসি (পশ্চিম) মনজুর মোরশেদকে গোয়েন্দা বিভাগের ডিসি (বন্দর) হিসেবে অতিরিক্ত দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে এবং গোয়েন্দা বিভাগের ডিসি (বন্দর) এসএম মোস্তাইন হোসেনকে এস্টেট অ্যান্ড বিল্ডিং বিভাগের ডিসি হিসেবে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। এর আগে এসএম মোস্তাইন হোসেন এস্টেট অ্যান্ড বিল্ডিং বিভাগের ডিসি হিসেবে অতিরিক্ত দায়িত্ব পালন করতেন। ডিসি (প্রসিকিউশন) এমএন নাসিরুদ্দিনকে ডিসি (অপরাধ) পদে বদলি করা হয়েছে এবং তাকে ডিসি (প্রসিকিউশন) হিসেবে অতিরিক্ত দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। সিএমপির দক্ষিণ জোনের এডিসি শাহ মুহাম্মদ আবদুর রউফকে গোয়েন্দা বিভাগের এডিসি (দক্ষিণ), গোয়েন্দা বিভাগের এডিসি (দক্ষিণ) মির্জা সায়েম মাহমুদকে গোয়েন্দা বিভাগের এডিসি (উত্তর) ও অতিরিক্ত দায়িত্বে এডিসি (পিআর), কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের এডিসি পলাশ কান্তি নাথকে দক্ষিণ জোনের এডিসি, গোয়েন্দা বিভাগের এডিসি (উত্তর) আসিফ মহিউদ্দিনকে কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের এডিসি, ট্রাফিক বন্দর জোনের এডিসি অলক বিশ্বাসকে বন্দর জোনের এডিসি, এস্টেট অ্যান্ড বিল্ডিং বিভাগের এডিসি নাদিরা নূরকে উত্তর জোনের এডিসি, উত্তর জোনের এডিসি আশিকুর রহমানকে ট্রাফিক বন্দর বিভাগের এডিসি এবং পিওএম-বন্দর জোনের এডিসি নুতান চাকমাকে এমটি বিভাগের এডিসি হিসেবে পদায়ন করা হয়েছে। সিএমপির এস্টেট অ্যান্ড বিল্ডিং বিভাগের সহকারী কমিশনার (এসি) মমতাজ উদ্দিনকে ট্রাফিক পশ্চিম বিভাগের এসি, ট্রাফিক পশ্চিম বিভাগের এসি কীর্তিমান চাকমাকে বন্দর জোনের এসি এবং বন্দর জোনের এসি মো. কামরুল হাসানকে এস্টেট অ্যান্ড বিল্ডিং বিভাগের এসি হিসেবে পদায়ন করা হয়েছে। উপ-কমিশনার (সদর) আমির জাফর বলেন, সিএমপির তিন ডিসি, আট এডিসি ও তিন এসি পদে রদবদল হয়েছে। সিএমপি কমিশনার সালেহ্ মোহাম্মদ তানভীর স্যার এসব আদেশ দিয়েছেন। এদিকে রোববার (০৪ অক্টোবর) পুলিশ সদর দফতরের এক আদেশে সিএমপিতে কর্মরত ১২ জন উপ-পরিদর্শককে (এসআই), ১১ সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই), দু্ই সার্জেন্ট ও এক এটিএসআইকে বিভিন্ন রেঞ্জ ও অন্য ইউনিটে বদলি করা হয়েছে। বদলি আদেশে উল্লেখ করা হয়েছে, ৭ অক্টোবরের মধ্যে নতুন কর্মস্থলে যোগ না দিলে ৮ অক্টোবর থেকে তাদেরকে স্ট্যান্ড রিলিজ হিসেবে গণ্য করা হবে। পুলিশ সদর দফতরের এআইজি (পার্সোনাল ম্যানেজমেন্ট-৩) মো. মাহাবুবুল করিম স্বাক্ষরিত ওই আদেশে সিএমপির এসআই গোলাম মোহাম্মদ নাসিম হোসেনকে নৌ-পুলিশে, এসআই মোহাম্মদ আলাউদ্দিনকে ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশে, এসআই সজল কান্তি দাশকে বরিশাল রেঞ্জে, এসআই মোশাররফ হোসাইনকে রেলওয়ে পুলিশে, এসআই আতাউর রহমানকে ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশে, এসআই শহীদের রহমানকে রেলওয়ে পুলিশে, এসআই আকরাম হোসেন সুমনকে টুরিস্ট পুলিশে, এসআই আবু মুসাকে ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশে, এসআই নিদুল চন্দ্র কপালিকে নৌ পুলিশে, এসআই আবু সাঈদকে রেলওয়ে পুলিশে, এসআই মো. হাবিবুর রহমানকে সিলেট রেঞ্জে এবং মো. আবদুল হককে ময়মনসিংহ রেঞ্জে বদলি করা হয়েছে। পুলিশ সদর দফতরের আরেক আদেশে সিএমপির এএসআই সুকান্ত দস্তিদারকে ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশে, এএসআই মো. নাছের আহম্মদকে টুরিস্ট পুলিশে, এএসআই মো. খোরশেদ আলমকে ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশে, এএসআই আবু মুছাকে রেলওয়ে পুলিশে, এএসআই কামাল হোসেনকে রেলওয়ে পুলিশে, এএসআই জুয়েল বড়ুয়াকে ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশে, এএসআই নয়ন কান্তি দাশকে রেলওয়ে পুলিশে, এএসআই প্রনীত চাকমাকে টুরিস্ট পুলিশে, এএসআই রুমি বড়ুয়াকে ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশে, এএসআই মো. বখতিয়ারকে রেলওয়ে পুলিশে ও এএসআই মো. মনির হোসেন ভুঞাকে রেলওয়ে পুলিশে বদলি করা হয়েছে। পৃথক আদেশে সিএমপির ট্রাফিক বিভাগের সার্জেন্ট জাহিদুর রহমানকে খুলনা রেঞ্জে ও সার্জেন্ট মোহাম্মদ আব্দুল আজিজকে বরিশাল রেঞ্জে এবং পৃথক আরেকটি আদেশে সিএমপির এটিএসআই মো. ফরিদ উদ্দীনকে রেলওয়ে পুলিশে বদলি করা হয়েছে।
আকবরশাহে অস্ত্রসহ কিশোর গ্যাংয়ের সদস্য আটক
০৫,অক্টোবর,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: নগরীর আকবরশাহে মো. ফরহাদ হোসেন (২৫) নামের এক কিশোর গ্যাং সদস্যকে আটক করেছে Rab। রবিবার ( ০৪ অক্টোবর) সকাল সাড়ে নয়টায় জয়ন্তিকা আবাসিক এলাকায় থেকে তাকে আটক করে Rab। আটক মো. ফরহাদ হোসেন চট্টগ্রামের সন্দ্বীপ উপজেলার মুছাপুর এলাকার মৃত আবুবক্কর সিদ্দিকের ছেলে। Rabর সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) মো. মাশকুর রহমান জানান, অভিযানে আটককৃত আসামীর দেহ তল্লাশী করে তার হাতে থাকা একটি পিস্তল সদৃশ্য এবং একটি চাকু উদ্ধারসহ আসামিকে আটক করা হয়। আসামিকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় তারা পথচারীদের মালামাল ও টাকা পয়সা ডাকাতি করার উদ্দেশ্যে সমাবেত হয়েছে। আটককৃত আসামী এবং উদ্ধারকৃত মালামাল সংক্রান্তে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আকবরশাহ থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।
পুরাতন রেল স্টেশনে পিস্তলসহ ৮ ছিনতাইকারী গ্রেফতার
০৫,অক্টোবর,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: নগরীর পুরাতন রেল স্টেশন এলাকা থেকে একটি পিস্তল, ৬ টি ছোরা ও একটি চাপাতিসহ ৮ জন ছিনতাইকারীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সোমবার (৫ অক্টোবর) ভোর রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করে কোতোয়ালি থানা পুলিশ। বিষয়টি নিউজ একাত্তরকে নিশ্চিত করেন কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসিন। গ্রেফতারকৃতরা হলেন- মো. বদিউল আলম প্রকাশ বদি (২৬), মো. তারেক (২৭), মো. মামুন (২২), জুয়েল দাশ (২৬), মো. আসিফ হোসেন প্রকাশ সাকিব (২০), মেহেদী হাসান (২৩), রিপন দত্ত (২০) ও মো. সোহেল (২৫)। ওসি মোহাম্মদ মহসিন জানান, আসামিরা প্রত্যেকে পেশাদার ছিনতাইকারী। নগরীর বিভিন্ন এলাকায় তারা ছিনতাইসহ বিভিন্ন অপরাধ করে বেড়ায়। গ্রেফতারের আগেও তারা পুরাতন রেল স্টেশন এলাকায় ডাকাতির উদ্দেশ্যে একত্র হয়। তাদের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে মামলা দিয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর