পরিবেশ অধিদফতর: ৬ মাসে চার শতাধিক অভিযান, জরিমানা ১৫ কোটি
২১সেপ্টেম্বর,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: পরিবেশ দূষণ, পাহাড় কাটা, পুকুর ভরাট, পরিবেশ ছাড়পত্রবিহীন প্রতিষ্ঠান পরিচালনাসহ নানা অভিযোগে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিকে জরিমানা করেছে পরিবেশ অধিদফতর। গত জানুয়ারি থেকে চার শতাধিক ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা করে পরিবেশ অধিদফতর চট্টগ্রাম অঞ্চল ও মহানগর। করোনার সময় দুই মাস কার্যক্রম বন্ধ থাকলেও করোনার আগে ও পর থেকে এখন পর্যন্ত নিয়মিত এনফোর্সমেন্ট চালিয়েছে পরিবেশ অধিদফতর। এসব অভিযানে জানুয়ারি থেকে আগস্ট মাস পর্যন্ত পরিবেশ অধিদফতর চট্টগ্রাম অঞ্চল কার্যালয় পরিবেশ দূষণ, পাহাড় কাটা, পুকুর ভরাট, পরিবেশ ছাড়পত্রবিহীন প্রতিষ্ঠান পরিচালনাসহ নানা অভিযোগে ৩৫৯ প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিকে জরিমানা করেছে মোট ১১ কোটি ৮৪ লাখ ২৬ হাজার টাকা এবং পরিবেশ অধিদফতর চট্টগ্রাম মহানগর কার্যালয় জানুয়ারি থেকে জুন মাস পর্যন্ত জরিমানা করেছে ৩ কোটি ৯৩ হাজার ২৪০ টাকা। এসব জরিমানার বিপরীতে জানুয়ারি থেকে আগস্ট মাস পর্যন্ত পরিবেশ অধিদফতর চট্টগ্রাম অঞ্চল কার্যালয়ে আদায় হয়েছে ৩ কোটি ৪১ লাখ ৮০ হাজার টাকা এবং জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত চট্টগ্রাম মহানগরে আদায় হয়েছে ৫০ লাখ ৩৮ হাজার টাকা। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, পরিবেশ অধিদফতর চট্টগ্রাম অঞ্চল কার্যালয়ে গত জানুয়ারি মাসে মোট ৬০ জন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে ১ কোটি ২১ লাখ ১৫ হাজার টাকা, ফেব্রুয়ারি মাসে ৮৪ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে ৬ কোটি ৯৩ লাখ ২৫ হাজার টাকা, মার্চ মাসে ১১৯ ব্যক্তি প্রতিষ্ঠানকে ২ কোটি ১১ লাখ ৮০ হাজার টাকা, জুনে ৪ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে ৪ লাখ ২০ হাজার টাকা, জুলাই মাসে ১৫ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে ৪২ লাখ ১১ হাজার টাকা ও আগস্ট মাসে ৭৭ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে ১ কোটি ১১ লাখ ৭৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। আদায় হয়েছে জানুয়ারি মাসে ১ কোটি ২৫ হাজার টাকা, ফেব্রুয়ারি মাসে ৮৭ লাখ ৫৫ হাজার টাকা, মার্চ মাসে ১ কোটি ৪ লাখ ৭৪ হাজার টাকা, জুন মাসে ৪ লাখ টাকা, জুলাই মাসে ৩২ লাখ ২১ হাজার টাকা এবং আগস্ট মাসে ১৩ লাখ ৫ হাজার টাকা। পরিবেশ অধিদফতর চট্টগ্রাম মহানগর কার্যালয়ে গত জানুয়ারি মাসে ৬ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে ৫ লাখ ৪৬ হাজার টাকা, ফেব্রুয়ারি মাসে ২২ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে ১ কোটি ৭৯ লাখ ৯০ হাজার ২৪০ টাকা, মার্চ মাসে ১৩ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে ২২ লাখ ৪৪ হাজার টাকা ও জুন মাসে ৯ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে ৯২ লাখ ৯৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। আদায় হয়েছে জানুয়ারি মাসে ১ লাখ ৬২ হাজার টাকা, ফেব্রুয়ারি মাসে ১৬ লাখ ১২ হাজার টাকা, মার্চ মাসে ১৪ লাখ ১৪ হাজার টাকা ও জুন মাসে ১৮ লাখ ৫০ হাজার টাকা। পরিবেশ অধিদফতর চট্টগ্রাম মহানগর কার্যালয়ের উপ-পরিচালক মিয়া মাহমুদুল হক বলেন, পরিবেশ দূষণ, পাহাড় কাটার বিরুদ্ধে আমাদের নিয়মিত অভিযান পরিচালিত হচ্ছে। পরিবেশ আইন অমান্যকারীদের শাস্তির আওতায় আনা হচ্ছে। পরিবেশের ক্ষতিসাধনকারীদের জরিমানা করা হচ্ছে। পরিবেশ অধিদফতর চট্টগ্রাম অঞ্চল কার্যালয়ের পরিচালক মোহাম্মদ মোয়াজ্জম হোসাইন বলেন, পরিবেশের ক্ষতিসাধন করে এমন কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানকে আমরা ছাড় দিচ্ছি না। কঠোর হয়ে যাদের জরিমানা করা দরকার তাদের জরিমানা করছি, যাদের বিরুদ্ধে মামলা করা দরকার তাদের বিরুদ্ধে মামলা করছি। পরিবেশ রক্ষায় কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করেছি আমরা। তিনি বলেন, আমাদের সুস্থ পৃথিবীতে বেঁচে থাকতে হলে পরিবেশ রক্ষা জরুরি। পরিবেশ দূষণ করে, পাহাড় কেটে পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট করে জীববৈচিত্র্যের হুমকি হয়ে যারা দাঁড়াবে, তাদের শাস্তির আওতায় আনবো আমরা।
পটিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় মাদ্রাসা শিক্ষক নিহত
২১সেপ্টেম্বর,সোমবার,পটিয়া প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: পটিয়া উপজেলার শ্রীমাই ব্রিজ এলাকায় সিএনজি উল্টে মাদ্রাসা শিক্ষক মারা গেছেন। আজ রবিবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। নিহত মাওলানা আবুল কালাম আজাদ (৫২) চন্দনাইশের সাতবাড়িয়া এলাকার মৃত এলাহি বক্সের সন্তান। তিনি পটিয়া উপজেলার আমিরুল আওলিয়া মাদ্রাসার শিক্ষক ছিলেন। পটিয়া থানার ওসি বোরহান উদ্দিন নিউজ একাত্তরকে জানান, রিক্সাকে সাইড দিতে গিয়ে সিএনজি উল্টে মাওলানা আবুল কালাম আজাদ গুরুত্বর আহত হলে তাকে পটিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হয়। এসময় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
পেশাদারীত্বে সততার বিকল্প নাই : সুজন
২১সেপ্টেম্বর,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম নগরীকে একটি বাসযোগ্য নগরী হিসেবে গড়ে তোলার জন্য আমার পরিকল্পনার সাথে একাত্ম হয়ে যিনি কাজ করে গেছেন তার কর্মক্ষেত্র যেখানেই হোক আমরা তাকে মনে রাখবো। এ শহরকে তিনি ভালোবেসেছিলেন বলে কর্ম জীবনের এক তৃতীয়াংশ সময় চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনে বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করতে পেরেছিলেন। দায়িত্ব পালনকালে প্রকৃত পেশাদারিত্বেরও পরিচয় দেখিয়েছেন। তার দক্ষতা, নিষ্ঠা এবং কর্মক্ষেত্রে আন্তরিকতার কারণে আমার সাথেও তার গভীর সম্পর্ক গড়ে উঠে। আমি মনে করি তিনি যেখানেই দায়িত্ব পালন করবেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনকে সে অবস্থায়ও সর্বাত্মক সহযোগিতা করবেন বলে প্রত্যাশা রাখি। চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামসুদ্দোহার শেষ কর্মদিবস উপলক্ষে চসিক প্রশাসক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মতবিনিময় সভায় প্রশাসক একথা বলেন। তিনি আরো বলেন, বিদায়ী কর্মকর্তা মো. সামসুদ্দোহা চসিকের দায়িত্ব পালনকালে যে প্রজ্ঞা, মেধা ও সাংগঠনিক দক্ষতার পরিচয় দিয়েছেন তা প্রশংসার দাবী রাখে। তিনি চট্টগ্রাম নগরীর যাবতীয় সমস্যা সমাধান কল্পে যে পরিকল্পনা ইতিমধ্যে গ্রহণ করা হয়েছে তা বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আন্তরিকতা ও নিষ্ঠার সাথে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে বলেন, বিদায়ী প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সুকৌশলে চসিকের বিভিন্ন সমস্যা মোকাবেলা করেছেন অনুরূপ তা থেকে শিক্ষা নেয়ার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, পেশাদারীত্বে সততার কোন বিকল্প নাই। বিদায়ী প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামসুদ্দোহা বলেন, দীর্ঘ ৮ বছর চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সাথে দায়িত্ব পালন করা আমার জন্য গৌরবের। আমি আমার কর্মকান্ড পরিচালনার ক্ষেত্রে সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের যে সহযোগিতা পেয়েছি তা আমি চিরদিন মনে রাখব। আজকের এই দিনে চসিকের প্রশাসক মহোদয় চসিকে আমার কর্মক্ষেত্রে শেষ দিনে আমার জন্য যে অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছেন এজন্য আমি তাঁর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। আমি যেখানে কর্মে যুক্ত থাকিনা কেন, চসিক যদি আমার সহযোগিতা প্রত্যাশা করে আমি অবশ্যই আন্তরিকভাবে সে সহযোগিতা প্রদান করবো। তিনি আরো বলেন, আমার দায়িত্বপালন কালে আমি কাউকে কোন রকম দুঃখ দিতে চাইনি। তবুও কেউ যদি আমার ব্যবহারে অসন্তুষ্ট বা দুঃখ পেয়ে থাকেন আমি তার জন্য সবার কাছে ক্ষমা প্রার্থনা জানাচ্ছি। তিনি যেখানে দায়িত্ব পালন করবেন সেখানে সুনাম রক্ষা করার জন্য আন্তরিক থাকবেন বলে অভিমত ব্যক্ত করেন। চসিকের সচিব মোহাম্মদ আবু সাহেদ চৌধুরীর সভাপতিত্বে আন্দরকিল্লাস্থ কে বি আবদুচ ছত্তার মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন চসিক প্রধান প্রকৌশলী লে. কর্ণেল সোহেল আহমেদ, প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা মোহাম্মদ মুফিদুল আলম, প্রধান শিক্ষা কর্মকর্তা সুমন বড়ুয়া, প্রশাসকের একান্ত সচিব মোহাম্মদ আবুল হাশেম, রাজস্ব কর্মকর্তা শাহেদা ফাতেমা, স্পেশাল ম্যাজিস্ট্রেট (যুগ্ম জেলা জজ) জাহানারা ফেরদৌস, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মারুফা বেগম নেলী, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. সেলিম আকতার চৌধুরী, প্রধান নগর পরিকল্পনাবিদ এ কে এম রেজাউল করিম, প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকতা শফিকুল মান্নান সিদ্দিকী, অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম, অতিরিক্ত প্রধান হিসাব রক্ষন কর্মকর্তা হুমায়ুন কবির, উপ সচিব আশেক রসুল চৌধুরী টিপু, উপ পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা মো. মোরশেদ আলম চৌধুরী, চসিক সিবিএ’র সভাপতি ফরিদ আহমদ । উল্লেখ্য যে, চসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামসুদ্দোহা জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের পরিপত্র আদেশে পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশনের পরিচালক হিসাবে যোগদান করবেন। অন্যদিকে চসিকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করবেন কক্সবাজার শরণার্থী ও প্রত্যাবাসন কমিশনার কার্যালয়ের অতিরিক্ত শরণার্থী ও প্রত্যাবাসন কমিশনার কাজী মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক।
পণ্যের বহুমূখীকরণে বেশী পণ্য রপ্তানির সুযোগ রয়েছে: চেম্বার সভাপতি
২১সেপ্টেম্বর,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: যেসব দেশে আপনারা নিয়োগ পেয়েছেন সেখানে আপনারাই বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করবেন। আপনাদের সহযোগিতায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে বাংলাদেশ উন্নত রাষ্ট্রের দিকে এগিয়ে যাবে। ব্যবসা-বাণিজ্য সম্প্রসারণের ক্ষেত্রে কমার্শিয়াল কাউন্সিলরদের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বর্তমানে পণ্যের বহুমূখীকরণের কারণে বাংলাদেশ থেকে অনেক বেশী পণ্য রপ্তানির সুযোগ রয়েছে। আপনারা উভয় দেশের ব্যবসা-বাণিজ্য বৃদ্ধির ক্ষেত্রে সংযোগ স্থাপন করে দিবেন। মিরসরাই ইকনোমিক জোন দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে সর্ববৃহৎ অর্থনৈতিক অঞ্চল যেখানে বিনিয়োগ আকর্ষণের জন্য আপনাদেরকেই মার্কেটিং করতে হবে। বাংলাদেশ এখন বে অব বেঙ্গল ট্রাইয়্যাঙ্গেল গ্রোথ এবং ব্লু ইকনোমিকে কাজে লাগিয়ে আগামি দিনে অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধশালী হবে। চেম্বার সভাপতি চট্টগ্রাম বন্দর ও চেম্বারের অতীত ইতিহাস এবং কর্মকান্ড সম্পর্কে কাউন্সিলরদের বিস্তারিত অবহিত করেন। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় হতে নতুনভাবে নিয়োগপ্রাপ্ত কমার্শিয়াল কাউন্সিলরগণ দি চিটাগাং চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রির সভাপতি মাহবুবুল আলমর সাথে এক সৌজন্য সাক্ষাতে মিলিত হন। গতকাল শনিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) বিকালে ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারস্থ বঙ্গবন্ধু কনফারেন্স হলে সৌজন্য সাক্ষাতকালে চেম্বার সভাপতি মাহবুুবুল আলম এসব কথা বলেন। এ সময় চিটাগাং চেম্বার পরিচালক নাজমুল করিম চৌধুরী শারুন ও সৈয়দ মোহাম্মদ তানভীর, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম-সচিব আবদুর রহিম খান ও উপ-সচিব সৈয়দা নাহিদা হাবিবা, আমেরিকার লস এঞ্জেলেসস্থ বাংলাদেশ কনস্যূলেট জেনারেল অফিসর কমার্শিয়াল কাউন্সিলর খুরশিদুল আলম (উপ-সচিব), কোরিয়ার সিওলস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসর কমার্শিয়াল কাউন্সিলর ড. মোঃ মিজানুর রহমান (উপ-সচিব), মিয়ানমারের রেঙ্গুনস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসর কমার্শিয়াল কাউন্সিলর শাহেদুল আকবর খান (উপ-সচিব), ইরানের তেহরানস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসর কমার্শিয়াল কাউন্সিলর ড. জুলিয়া মঈন (উপ-সচিব), বেলজিয়ামের ব্রাসেলসস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসর কমার্শিয়াল কাউন্সিলর মোঃ সাইফুল আজম (যুগ্ম-পরিচালক), চায়নার কুনমিংস্থ বাংলাদেশ কনস্যূলেট জেনারেল অফিসর ফার্স্ট সেক্রেটারী (কমার্শিয়াল) মোঃ বজলুর রশিদ (সিনিয়র সহকারী সচিব) এবং বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আরশাদুল আলম উপস্থিত ছিলেন। সংশ্লিষ্ট দেশসমূহের সাথে বাংলাদেশের বর্তমান ব্যবসা-বাণিজ্য ও বিনিয়োগের তথ্যচিত্র উপস্থাপন করে ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে কিছু সুপারিশ তুলে ধরেন বাংলাদেশ সেন্টার অব এক্সিলেন্স (বিসিই)র প্রধান নির্বাহী ওয়াসফি তামিম। উল্লেখ্য, বিসিই হচ্ছে চেম্বারের একটি ইনিশিয়েটিভ যার মূল লক্ষ্য হচ্ছে বিভিন্ন সেক্টরভিত্তিক গবেষণা কর্যক্রম পরিচালনা এবং প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষ নির্বাহী গড়ে তোলা। চেম্বার পরিচালক নাজমুল করিম চৌধুরী শারুন মিয়ানমারে আইটি খাতের বিস্তারে বাংলাদেশী বিশেষজ্ঞদের কাজ করার সুযোগ রয়েছে উল্লেখ করে এ ব্যাপারে নবনিযুক্ত কমার্শিয়াল কাউন্সিলরকে উদ্যোগ গ্রহণের অনুরোধ জানান। তিনি প্রয়োজনে চেম্বারের মাধ্যমে কাউন্সিলরদেরকে সহযোগিতা করার জন্য একটি সাপোর্ট প্ল্যাটফর্ম সৃষ্টি করার অভিমত ব্যক্ত করেন। চেম্বার পরিচালক সৈয়দ মোহাম্মদ তানভীর বলেন-ইরানে বাংলাদেশী তৈরীপোশাক রপ্তানির সুযোগ রয়েছে। তিনি অন্যান্য দেশে সম্ভাবনাময় বাণিজ্য খাত চিহ্নিতকরণ ও তা কাজে লাগাতে বেসরকারি খাতকে সম্পৃক্ত করার জন্য কাউন্সিলরদের প্রতি অনুরোধ জানান। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম-সচিব আবদুর রহিম খান বলেন-গত ১৫ বছরে বাংলাদেশে বেসরকারি খাত ও সরকারি খাতের সম্পর্ক অনেক বেশী উন্নত হয়েছে। নতুন নিয়োগপ্রাপ্ত কাউন্সিলরদের অত্যন্ত মেধাবী উল্লেখ করে আন্তর্জাতিক ব্যবসা-বাণিজ্যে সেতুবন্ধন রচনায় তাঁরা সফল হবেন বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন, যার মাধ্যমে বিদ্যমান সুবিধার সর্বোচ্চ সদ্ব্যবহার নিশ্চিত করা সম্ভব হবে। অন্যান্য কাউন্সিলরগণ আমেরিকাতে জিএসপি সুবিধা পুনর্বহাল, কোরিয়াতে বাংলাদেশী মৎস্য, কাঁকড়া ইত্যাদি রপ্তানিতে সহায়তা করা, ইরানের সাথে জয়েন্ট চেম্বার কার্যক্রম স্থাপন, মিয়ানমার হতে ভোগ্যপণ্য আমদানি, বেলজিয়ামে রপ্তানি পণ্যের বহুমূখীকরণ এবং চীনের সাথে ব্যবসায়িক সম্পর্কোন্নয়নে কাজ করার কথা জানান।
সদরঘাটে অস্ত্রসহ যুবক গ্রেফতার
২০সেপ্টেম্বর,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: নগরীর সদরঘাট থানাধীন কালীবাড়ির মোড়ে হোটেল গোল্ডেন স্টারের সামনে থেকে অস্ত্র, ম্যাগাজিন ও গুলিসহ মো রানা (২৪) নামের এক যুবককে গ্রেফতার করেছে Rapid Action Battalion (Rab)। রোববার (২০) সেপ্টেম্বর সকালে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়। বিষয়টি নিউজ একাত্তরকে নিশ্চিত করেন Rab-7 এর এএসপি মাহমুদুল হাসান মামুন। গ্রেফতার রানা সন্দীপ উপজেলার বাগেরহাটের মো আবু তাহেরের ছেলে। গ্রেফতার পরবর্তী রানা পুলিশকে জানায়, সে ও তার সহযোগরা অবৈধ অস্ত্র ব্যবহার করে দীর্ঘদিন ধরে সদরঘাট এলাকায় অস্ত্র ব্যবসাসহ বিভিন্ন ধরণের সন্ত্রাসি কার্যকলাপ চালিয়ে আসছেন। এএসপি মাহমুদুল হাসান মামুন বলেন, অস্ত্রসহ কিছু দুষ্কৃতকারী সদরঘাট এলাকায় অবস্থান করছে এমন খবরে সেখানে অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে। অভিযানে রানা নামের একজনকে অস্ত্রসহ গ্রেফতার করা হয়। তবে রানার দুজন সহযোগী পালিয়েছে। গ্রেফতারকৃত রানার বিরুদ্ধে সদরঘাট থানায় অস্ত্র আইনে মামলা করা হয়েছে বলেও জানান এএসপি মাহমুদুল হাসান মামুন।
টিভি আমার ফেইজবুক পেইজ উদ্বোধন
২০সেপ্টেম্বর,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: অনলাইন ভিত্তিক টিভি চ্যানেল টিভি আমার ফেইজবুক পেইজ এর কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন টিভি আমার পরিবারের উপদেষ্ঠা, আওলাদে রাসুল, হাদীয়ে জামান, মাইজভান্ডার দরবারের সাজ্জাদানশীন, পীরে তরিকত শাহসূফী হযরত মাওলানা আলহাজ্ব সৈয়দ মঈনুল কবির মাইজভান্ডারি (ম.জি.আ)। গত ১১ সেপ্টেম্বর শুক্রবার ফটিকছড়ি মাইজভান্ডার দরবার শরীফের হাদী মন্জিলে এর উদ্বোধন করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন শাহজাদা হযরত আলহাজ্ব সৈয়দ তানভীর হাদী মাইজভান্ডারি (ম.জি.আ) ও শাহজাদা হযরত সৈয়দ তাজভীর হাদী মাইজভান্ডারি (ম.জি.আ), টিভি আমার এর এডিটর ইন চীফ ও চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের নিবার্হী সদস্য পীরজাদা মুহাম্মদ মহরম হোসাইন মাইজভান্ডারি। অন্যান্যদের মধ্যে উপস্হিতি ছিলেন, জমিয়তে মঈনুল হাদী গাউছে মাইজভান্ডারী কমিটি বাংলাদেশের সমন্বয়কারী, ইসলামী গবেষক মাওলানা কামরুল ইসলাম রাশেদ মাইজভান্ডারি।
প্রদীপের জামিন নামঞ্জুর, সম্পত্তি ক্রোকের আবেদন
২০সেপ্টেম্বর,রবিবার,আদালত প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা রাশেদ হত্যা মামলা ও কক্সবাজারের টেকনাফ থানার সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করেছেন আদালত। একই সাথে দুদকের পক্ষ থেকে প্রদীপ কুমার দাশের সম্পত্তি ক্রোকের আবেদন জমা দেয়া হয়েছে। আজ রবিবার (২০ সেপ্টেম্বর) মহানগর সিনিয়র স্পেশাল দায়রা জজ শেখ আশফাকুর রহমানের আদালত এ আদেশ দেন। এর আগে ১৪ সেপ্টেম্বর মহানগর সিনিয়র স্পেশাল দায়রা জজ শেখ আশফাকুর রহমানের আদালত দুদকের মামলায় প্রদীপ কুমার দাশকে গ্রেপ্তার দেখানোর আদেশ দেন। দুদকের আইনজীবী কাজী সানোয়ার আহমেদ লাভলু জানান, দুদকের মামলায় প্রদীপ কুমার দাশের জামিন আবেদন নামঞ্জুর এবং সেই সাথে আদালতে তার সম্পত্তি ক্রোকের আবেদন জমা দেয়া হয়েছে। মামলা সূত্রে জানা যায়, প্রদীপ কুমার দাশ ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে দুদকে দাখিলকৃত সম্পদ বিবরণীতে ১৩ লাখ ১৩ হাজার ১৭৫ টাকার সম্পদ অর্জনের তথ্য গোপন ও ঘুষ ও দুর্নীতির মাধ্যমে ৩ কোটি ৯৫ লাখ ৫ হাজার ৬৩৫ টাকার সম্পদ অর্জন করেছেন। ২০১৮ সালে প্রদীপ কুমার দাশ ও তার স্ত্রী চুমকী কারণের বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে তদন্ত শুরু করে দুদক।
দ্বীনি শিক্ষার প্রসারে কাজ করছেন শেখ হাসিনা: শিক্ষা উপমন্ত্রী
১৯সেপ্টেম্বর,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: দ্বীনি শিক্ষার প্রসারে কাজ করছেন শেখ হাসিনা নগরীর পূর্ব বাকলিয়া ওয়ার্ডের আহমদিয়া করিমিয়া ছুন্নিয়া ফাযিল(ডিগ্রি) মাদ্রাসায় সরকারি অর্থায়নে ৬ তলা একাডেমিক ভবনের ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি বক্তব্যে শিক্ষা উপ-মন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল এ কথা বলেন। আজ শনিবার দুপুরে মাদ্রাসা গভর্নিং বডির সহ-সভাপতি আলহাজ্ব মুহাম্মদ আবুল কাসেমে এর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও চসিক নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী এম. রেজাউল করিম চৌধুরী। প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিক্ষা উপ-মন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেন, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রতিদিন সকালে কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে তাঁর দিন শুরু করতেন। বঙ্গবন্ধু তাঁর পরিবারের সদস্যদের কে দ্বীনি শিক্ষা প্রদান করে গেছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা প্রতিদিন সকালে তাহাজ্জুদ নামাজ এবং কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে দিন শুরু করেন। দ্বীনের প্রতি দরদ বঙ্গবন্ধু কন্যা তার পিতার কাছ থেকে বংশপরম্পরায় পেয়ে এসেছেন। দ্বীনি শিক্ষার প্রসারে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা সারাদেশে ১৮০০ মাদ্রাসা ভবন নির্মাণের জন্য ৬০০০ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পাশে থেকে দ্বীনি শিক্ষার প্রসার-কে আরো শক্তিশালী করতে আহ্বান জানান শিক্ষা উপ-মন্ত্রী। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে এম. রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকারের আমলে বাংলাদেশের এমন কোন মাদ্রাসা নেই যেখানে অনুদান প্রদান করা হয়নি। সারাদেশের যেখানে মাদ্রাসার জন্য অনুদান বা ভবন চাওয়া হয়েছে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সাথে সাথে তা অনুমোদন দিয়েছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী অসংখ্য মাদ্রাসা এমপিও ভুক্ত করেছেন। আজ সারাদেশে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর একান্ত প্রচেষ্টায় মাদ্রাসাগুলোতে উন্নয়নের জোয়ার চলছে। তিনি আরও বলেন, ইসলামের শিক্ষার প্রচারে ও প্রসারে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার কোন বিকল্প নেই।
পাঁচলাইশে চুরি যাওয়া তিন লাখ টাকার সিগারেট পটিয়ায় উদ্ধার
১৯সেপ্টেম্বর,শনিবার,রাজিব দাশ,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: পাঁচলাইশ থানা এলাকা থেকে চুরি যাওয়া ব্রিটিশ আমেরিকান টোবাকো কোম্পানির তিন লাখ টাকার সিগারেটসহ রনি কান্তি ধর (২৩) ও নয়ন দেব (২৭) নামের দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। শুক্রবার (১৮ সেপ্টেম্বর) পটিয়া উপজেলার বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালিয়ে চুরি যাওয়া এসব সিগারেটসহ দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেন পাঁচলাইশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কাশেম ভুঁইয়া। জানা যায়, গত ১৬ সেপ্টেম্বর সকাল সাড়ে ৯ টার সময় পাচলাইশ থানা এলাকার একটি রাস্তা থেকে গ্রেফতারকৃতরা ভ্যান ভর্তি ব্রিটিশ আমেরিকান টোবাকো কোম্পানির বিভিন্ন ব্র্যান্ডের সিগারেট চুরি করে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় ১৮ সেপ্টেম্বর ফয়সাল (২৮) নামের এক যুবক পাঁচলাইশ থানায় একটি মামলা করেন। পরে মামলাটি আমলে নিয়ে পাঁচলাইশ থানা পুলিশ তদন্ত শুরু করে। একপর্যায়ে গতকাল রাতে (১ ৮ সেপ্টেম্বর) গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পটিয়া উপজেলায় অভিযান পরিচালনা করে চুরি যাওয়া সিগারেটসহ দুজনকে গ্রেফতার করেন পাঁচলাইশ থানা পুলিশ। পাঁচলাইশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি আবুল কাশেম ভুঁইয়া বলেন, ভ্যান ভর্তি সিগারেট চুরি যাওয়ার ঘটনায় ফয়সাল নামের একজন অভিযোগ করলে সেটি আমলে নিয়ে অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানে চুরি যাওয়া সিগারেটসহ ঘটনায় জড়িত দুজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতার দুজনকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর