শনিবার, মার্চ ৬, ২০২১
দ্বীনি শিক্ষার প্রসারে কাজ করছেন শেখ হাসিনা: শিক্ষা উপমন্ত্রী
১৯সেপ্টেম্বর,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: দ্বীনি শিক্ষার প্রসারে কাজ করছেন শেখ হাসিনা নগরীর পূর্ব বাকলিয়া ওয়ার্ডের আহমদিয়া করিমিয়া ছুন্নিয়া ফাযিল(ডিগ্রি) মাদ্রাসায় সরকারি অর্থায়নে ৬ তলা একাডেমিক ভবনের ভিত্তি প্রস্থর স্থাপন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি বক্তব্যে শিক্ষা উপ-মন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল এ কথা বলেন। আজ শনিবার দুপুরে মাদ্রাসা গভর্নিং বডির সহ-সভাপতি আলহাজ্ব মুহাম্মদ আবুল কাসেমে এর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও চসিক নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী এম. রেজাউল করিম চৌধুরী। প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিক্ষা উপ-মন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেন, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রতিদিন সকালে কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে তাঁর দিন শুরু করতেন। বঙ্গবন্ধু তাঁর পরিবারের সদস্যদের কে দ্বীনি শিক্ষা প্রদান করে গেছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা প্রতিদিন সকালে তাহাজ্জুদ নামাজ এবং কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে দিন শুরু করেন। দ্বীনের প্রতি দরদ বঙ্গবন্ধু কন্যা তার পিতার কাছ থেকে বংশপরম্পরায় পেয়ে এসেছেন। দ্বীনি শিক্ষার প্রসারে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা সারাদেশে ১৮০০ মাদ্রাসা ভবন নির্মাণের জন্য ৬০০০ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পাশে থেকে দ্বীনি শিক্ষার প্রসার-কে আরো শক্তিশালী করতে আহ্বান জানান শিক্ষা উপ-মন্ত্রী। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে এম. রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকারের আমলে বাংলাদেশের এমন কোন মাদ্রাসা নেই যেখানে অনুদান প্রদান করা হয়নি। সারাদেশের যেখানে মাদ্রাসার জন্য অনুদান বা ভবন চাওয়া হয়েছে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সাথে সাথে তা অনুমোদন দিয়েছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী অসংখ্য মাদ্রাসা এমপিও ভুক্ত করেছেন। আজ সারাদেশে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর একান্ত প্রচেষ্টায় মাদ্রাসাগুলোতে উন্নয়নের জোয়ার চলছে। তিনি আরও বলেন, ইসলামের শিক্ষার প্রচারে ও প্রসারে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার কোন বিকল্প নেই।
পাঁচলাইশে চুরি যাওয়া তিন লাখ টাকার সিগারেট পটিয়ায় উদ্ধার
১৯সেপ্টেম্বর,শনিবার,রাজিব দাশ,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: পাঁচলাইশ থানা এলাকা থেকে চুরি যাওয়া ব্রিটিশ আমেরিকান টোবাকো কোম্পানির তিন লাখ টাকার সিগারেটসহ রনি কান্তি ধর (২৩) ও নয়ন দেব (২৭) নামের দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। শুক্রবার (১৮ সেপ্টেম্বর) পটিয়া উপজেলার বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালিয়ে চুরি যাওয়া এসব সিগারেটসহ দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেন পাঁচলাইশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কাশেম ভুঁইয়া। জানা যায়, গত ১৬ সেপ্টেম্বর সকাল সাড়ে ৯ টার সময় পাচলাইশ থানা এলাকার একটি রাস্তা থেকে গ্রেফতারকৃতরা ভ্যান ভর্তি ব্রিটিশ আমেরিকান টোবাকো কোম্পানির বিভিন্ন ব্র্যান্ডের সিগারেট চুরি করে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় ১৮ সেপ্টেম্বর ফয়সাল (২৮) নামের এক যুবক পাঁচলাইশ থানায় একটি মামলা করেন। পরে মামলাটি আমলে নিয়ে পাঁচলাইশ থানা পুলিশ তদন্ত শুরু করে। একপর্যায়ে গতকাল রাতে (১ ৮ সেপ্টেম্বর) গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পটিয়া উপজেলায় অভিযান পরিচালনা করে চুরি যাওয়া সিগারেটসহ দুজনকে গ্রেফতার করেন পাঁচলাইশ থানা পুলিশ। পাঁচলাইশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি আবুল কাশেম ভুঁইয়া বলেন, ভ্যান ভর্তি সিগারেট চুরি যাওয়ার ঘটনায় ফয়সাল নামের একজন অভিযোগ করলে সেটি আমলে নিয়ে অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানে চুরি যাওয়া সিগারেটসহ ঘটনায় জড়িত দুজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতার দুজনকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।
৯ বছরে ৯টি বিয়ে
১৯সেপ্টেম্বর,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ২৯ বছর বয়সী সুলায়মান পেশায় গার্মেন্ট শ্রমিক। কিন্তু নিজেকে পরিচয় দিতেন পুলিশ কর্মকর্তা, কখনও সামরিক বাহিনীর কর্মকর্তা হিসেবে। এসব পরিচয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অল্প বয়সী মেয়েদের সঙ্গে সখ্যতা গড়ে তাদের বিয়ে করতেন তিনি। গত ৯ বছরে বিয়ে করেছেন মোট ৯টি। বিয়ের সময় নিতেন যৌতুক। বিয়ের পরে স্ত্রীর ভাই, আত্মীয়-স্বজনকে চাকরি দেওয়ার নামেও হাতিয়ে নিতেন টাকা। আবার স্ত্রীদের দিয়ে বিভিন্ন এনজিও থেকে নিতেন লোন। এভাবেই চলছিল তার দিনকাল। কিন্তু প্রতারক সুলায়মান অবশেষে পাহাড়তলী এলাকার একটি বাসা থেকে গ্রেফতার হলো পুলিশের হাতে। নগর গোয়েন্দা পুলিশের উপ-কমিশনার (বন্দর) এসএম মোস্তাইন হোসেনের কাছে সুলায়মানের বিরুদ্ধে এক স্ত্রীর দায়ের করা অভিযোগ তদন্তে গিয়ে তার এসব অপকর্ম জানতে পারে পুলিশ। নগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (বন্দর) মোহাম্মদ আবু বকর সিদ্দিক বলেন, সুলায়মানের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ পাওয়ার পর তদন্ত করতে গিয়ে তার নানা অপকর্মের বিষয়ে জানতে পারি আমরা। সুলায়মান পেশায় গার্মেন্ট শ্রমিক হলেও নিজেকে পরিচয় দিতেন পুলিশ কর্মকর্তা, কখনও সামরিক বাহিনীর কর্মকর্তা হিসেবে। এসব পরিচয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অল্পবয়সী মেয়েদের সঙ্গে সখ্যতা গড়ে তাদের বিয়ে করতেন তিনি। গত ৯ বছরে বিয়ে করেছেন মোট ৯টি। তিনি জানান, বিয়ের সময় নিতেন যৌতুক। বিয়ের পরে স্ত্রীর ভাই, আত্মীয় স্বজনকে চাকরি দেওয়ার নামেও হাতিয়ে নিতেন টাকা। আবার স্ত্রীদের দিয়ে বিভিন্ন এনজিও থেকে লোন নিতেন। অষ্টম স্ত্রী রাহেলার কাছ থেকে তার ভাই ও বোনকে চাকরি দেওয়ার নাম করে হাতিয়ে নিয়েছেন প্রায় আড়াই লাখ টাকা এবং তার নামে এনজিও থেকে ঋণ তুলে হাতিয়ে নিয়েছেন এক লাখ টাকা। নবম স্ত্রী রহিমার কাছ থেকে যৌতুক নিয়েছেন দুই লাখ টাকা। প্রতারক সুলায়মানের বিরুদ্ধে পাহাড়তলী থানায় নবম স্ত্রী রহিমার মা বাদি হয়ে একটি মামলা দায়ের করেছেন বলে জানান মোহাম্মদ আবু বকর সিদ্দিক।
মহালয়ার সূর্য উঠবে স্তোত্রপাঠ শুনে
১৬সেপ্টেম্বর,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বীরেন্দ্র কৃষ্ণ ভদ্রের দরাজ কণ্ঠে চণ্ডীপাঠ শুনেই ঘুম ভাঙবে সনাতন সম্প্রদায়ের। বৃহস্পতিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) মহালয়ার সূর্য উঠবে স্তোত্রপাঠ শুনতে শুনতেই। পিতৃপক্ষের অবসান হলেও দেবীপক্ষের সূচনা হতে আরও মাসখানেক দেরি। তবে শরতের ভোর, কাশফুলের বাতাসে দোল খাওয়া, শিউলি ফুল, ঘাসের ডগায় শিশির বিন্দু জানান দিচ্ছে দেবী দুর্গা আসছেন মর্ত্যলোকে। পূর্বপুরুষ, ঋষি, পিতামাতা এবং গুরুর উদ্দেশে খাদ্যদ্রব্য ও জল নিবেদন করে তর্পণ শেষ করেছেন গৃহস্বামীরা। মহালয়ায় মাতৃপূজার মহালগ্নকে বরণ করবার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন সবাই। করোনার প্রাদুর্ভাবের এই সময়ে সব আয়োজনে টানা হয়েছে লাগাম। তবুও বাণী কুমারের গ্রন্থনায় এবং সন্ধ্যা মুখোপাধ্যায়, মানবেন্দ্র মুখোপাধ্যায়, দ্বিজেন মুখোপাধ্যায়, তরুণ বন্দ্যোপাধ্যায়, উৎপলা সেন, ইলা বসু, পঙ্কজ মল্লিক, সুপ্রীতি ঘোষের গানে দেবীর স্তুতি ও আগমনি সংগীত শুনতে ভুল করেন না কেউ। ১৯৩১ সালে মহালয়ার আগের রাতে সব শিল্পী জড়ো হয়েছিলেন কলকাতার আকাশবাণী বেতার ভবনে। ব্রাহ্মমুহূর্তে মা দুর্গাকে স্মরণ করে স্ত্রোত্র পাঠ শুরু করলেন বীরেন্দ্র কৃষ্ণ ভদ্র। সেই রেকর্ড বাজছে আজও। সমসাময়িককালে অনেকেই এমন চণ্ডীপাঠের অনুকরণ করতে চেয়েছেন, কিন্তু পারেননি। ১৯০৫ সালে আহিরিটোলায় কালীকৃষ্ণ ভদ্র-সরলাবালা দেবীর কোলে জন্মেছিলেন যে বীরেন্দ্র, কে জানতো পরবর্তীতে তিনিই হয়ে উঠবেন মহালয়ার কীর্তিগাথা প্রকাশের নায়ক! বীরেন্দ্র কৃষ্ণ ভদ্র শুরুতেই আবাহন করলেন: আশ্বিনের শারদপ্রাতে বেজে উঠেছে আলোক মঞ্জীর, ধরণীর বহিরাকাশে অন্তরিত মেঘমালা, প্রকৃতির অন্তরাকাশে জাগরিত জ্যোতির্ময়ী জগন্মাতার আগমন বার্তা। আনন্দময়ী মহামায়ার পদধ্বনি অসীম ছন্দে বেজে উঠে রূপলোক ও রসলোকে আনে নব ভাবমাধুরীর সঞ্জীবন। তাই আনন্দিতা শ্যামলীমাতৃকার চিন্ময়ীকে মৃন্ময়ীতে আবাহন। আজ চিৎ-শক্তিরূপিনী বিশ্বজননীর শারদ স্মৃতিমণ্ডিতা প্রতিমা মন্দিরে মন্দিরে ধ্যানবোধিতা। বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ চট্টগ্রাম মহানগর শাখার সভাপতি অ্যাডভোকেট চন্দন তালুকদার বলেন, নগরের জেএম সেন হলে বৃহস্পতিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) মহালয়ার বিভিন্ন মাঙ্গলিক কর্মসূচি স্বাস্থ্যবিধি মেনে অনুষ্ঠিত হবে। সকাল ৮টায় চণ্ডীপাঠ, ১০টায় মহালয়া পূজা, বেলা ১টায় অঞ্জলি প্রদান, দুপুর ১টা ৩০ মিনিটে প্রসাদ বিতরণ, বিকাল ৩টায় ধর্মীয় আলোচনা সভা, বিকাল ৪টায় শঙ্খ ও উলুধ্বনি প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছে। বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও চট্টগ্রাম জেলা শাখার সভাপতি শ্যামল কুমার পালিত বলেন, শ্রীশ্রী চণ্ডীর উৎপত্তিস্থল বোয়ালখালীর কড়লডেঙ্গা মেধস মুনির আশ্রমে দেবীপক্ষের শুভ উদ্বোধন অনুষ্ঠান কেন্দ্রীয় কমিটির নির্দেশনা অনুযায়ী সীমিত পরিসরে বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত হবে। মহালয়ার অনুষ্ঠান শুধুমাত্র মাতৃপূজা, প্রার্থনা ও পুষ্পাঞ্জলি প্রদানের মধ্য দিয়ে উদযাপনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ চট্টগ্রাম জেলা শাখা। এবছর মহালয়া উপলক্ষে মেধস আশ্রমে পূজার্থীদের যাতায়াতের জন্য কোনো যানবাহনের ব্যবস্থাও থাকছে না। চট্টগ্রাম জেলার আওতাধীন ১৫ উপজেলায় অনুরূপভাবে সীমিত পরিসরে মহালয়া উদযাপনের জন্য জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের পক্ষ থেকে আহ্বান জানানো হয়েছে ব
আগে আমদানি করা পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধির যৌক্তিকতা নেই: চেম্বার সভাপতি
১৫সেপ্টেম্বর,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: গত কয়েক দিনে হঠাৎ করে দেশের বাজারে পেঁয়াজের অস্বাভাবিক মূল্য বৃদ্ধিতে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন দি চিটাগাং চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি’র সভাপতি মাহবুবুল আলম। মঙ্গলবার ( ১৫ সেপ্টেম্বর) এক বিবৃতিতে তিনি বলেন-হঠাৎ করে পেঁয়াজের মূল্য খুচরা পর্যায়ে যথেষ্ট বৃদ্ধি পেয়েছে। আতংকিত হয়ে ভোক্তাসাধারণ প্রয়োজনের অতিরিক্ত পেঁয়াজ কেনার জন্য খুচরা দোকানগুলোতে ভিড় করছে। ফলে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি হচ্ছে। এ সুযোগে কিছু পাইকারী ও খুচরা ব্যবসায়ী অযথা পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি করছে। কিন্তু পূর্বের আমদানিকৃত পেঁয়াজের হঠাৎ করে মূল্য বৃদ্ধির কোন যৌক্তিকতা নেই। এ প্রেক্ষিতে চিটাগাং চেম্বার সভাপতি বলেন-দেশে পর্যাপ্ত পরিমাণ পেঁয়াজের মজুদ রয়েছে। তিনি আগামী দিনের চাহিদা পূরণে চীন, মিশর, মিয়ানমার, পাকিস্তান ও তুরস্ক থেকে অতি শীঘ্রই পেঁয়াজ আমদানি করার জন্য সংশ্লিষ্ট আমদানিকারকদের প্রতি আহবান জানিয়েছেন। এছাড়া সড়ক পথেও মিয়ানমার হতে পেঁয়াজ আমদানি করে বর্তমান চাহিদা পূরণ করা সম্ভব বলে তিনি মনে করেন। এমতাবস্থায়, চেম্বার সভাপতি পেঁয়াজের বাজার অস্থিতিশীল হওয়ার কোন কারণ নেই মন্তব্য করে জনসাধারণকে বিভ্রান্ত না হয়ে পেঁয়াজের বাজার স্থিতিশীল রাখতে এবং কৃত্রিম সংকটরোধে প্রয়োজনের অতিরিক্ত পেঁয়াজ না কেনার অনুরোধ জানিয়েছেন। পাশাপাশি টিসিবির মজুদকৃত পেঁয়াজ আরো বেশী আউটলেটের মাধ্যমে বিক্রয়ের ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সরকারের প্রতি আহবান জানান মাহবুবুল আলম।
১৩ কোটি টাকার ইয়াবাসহ তিন কারবারি ধরা
১৫সেপ্টেম্বর,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: নগরের বাকলিয়া ও আনোয়ারা উপজেলার গহিরা এলাকা থেকে বিপুল পরিমাণ ইয়াবাসহ তিনজনকে আটক করেছে Rapid Action Battalion (Rab)। এ সময় তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয় দুই লাখ ৬৫ হাজার ১৩০ পিস ইয়াবা। গ্রেফতার তিনজনই মাদক কারবারের সাথে জড়িত বলে দাবি করেছে Rab। মঙ্গলবার (১৫ সেপ্টেম্বর) নগরে ও উপজেলায় পৃথক অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করে Rab। Rab এর অধিনায়ক লে. কর্নেল মো. মশিউর রহমান জুয়েলের নেতৃত্বে এ অভিযান পরিচালিত হয়। এরা হলেন, আনোয়ারা উপজেলার রায়পুর চুন্নাপাড়া এলাকার নুরুল হকের ছেলে মো. কামরুজ্জামান (৩০), কক্সবাজার জেলার রামু উপজেলার খুনিয়াপালং রশিদ আহমদের ছেলে মো. জমির উদ্দীন (৩৬) ও একই উপজেলার ডেগারদীঘি বদ্দারপাড় এলাকার নুরুল হকের ছেলে মো. রমজান আলী (২৫)। তাদের কাছ উদ্ধার হওয়া এসব ইয়াবার আনুমানিক মূল্য প্রায় ১৩ কোটি ২৫ লাখ ৬৫ হাজার টাকা বলে জানিয়েছেন Rab। Rab জানায়, এদের মধ্যে কামরুজ্জামানকে আনোয়ারা গহিরা এলাকা আটক করে Rab। ওই সময় তার কাছ থেকে ৪০ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার হয়। তাছাড়া পরে তার দেওয়া তথ্যে আরেক ইয়াবা ব্যবসায়ীর বাড়ি থেকে ১ লাখ ২৫ হাজার ১৩০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে। অন্যদিকে বাকলিয়া থানাধীন আহাদ কনভেনশন সেন্টারের সামনে থেকে আটক করা হয় মো. জমির উদ্দীন ও মো. রমজান আলীকে। এ সময় তাদের কাছ থেকে ১ লাখ পিস ইয়াবা উদ্ধার করার হয়েছে। Rab-7 এর অধিনায়ক লে. কর্নেল মো. মশিউর রহমান নিউজ একাত্তরকে বলেন, আনোয়ারার গহিরা ও বাকলিয়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে ২ লাখ ৬৫ হাজার ১৩০ পিস ইয়াবাসহ তিনজনকে গ্রফেতার করা হয়েছে।
সিইপিজেড ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্টকে ১৫ লাখ টাকা জরিমানা
১৪সেপ্টেম্বর,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম রফতানি প্রক্রিয়াজাতকরণ অঞ্চলের (সিইপিজেড) কেন্দ্রীয় বর্জ্য শোধনাগার চিটাগাং ওয়েস্ট ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্টকে (সিডব্লিউটিপি) ১৪ লাখ ৭৬ হাজার ৮০০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এনএসআই মেট্রো শাখার তথ্যের ভিত্তিতে পরিবেশ অধিদফতর সোমবার (১৪ সেপ্টেম্বর) অভিযান চালিয়ে এ জরিমানা করেছে। সূত্র জানায়, গত ৯ সেপ্টেম্বর এনএসআইর একটি টিম প্ল্যান্টটি সরেজমিন অনুসন্ধান করে জানতে পারে, চট্টগ্রাম ইপিজেডের ক্ষতিকর প্রায় ১ লাখ ঘনমিটার তরল বর্জ্য বঙ্গোপসাগরে ফেলা হয়। চট্টগ্রামের রফতানি প্রক্রিয়াজাতকরণ অঞ্চলে ইপিজেডের কেন্দ্রীয় বর্জ্য শোধনাগার চিটাগাং ওয়েস্ট ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট (সিডব্লিউটিপি) গত ২৮ আগস্ট থেকে ১০ দিন অকার্যকর ছিল। এই ১০ দিনের প্রতিদিনই ৯ হাজার ২৩০ ঘনমিটার করে অপরিশোধিত তরল বর্জ্য ফেলা হয়েছে সাগরে। এতে পরিবেশ ও সাগরের জন্য অপূরণীয় ক্ষতি হয়। পরিবেশ অধিদফতরের পরিচালক মোহাম্মদ নূরুল্লাহ নূরী জানান, সিডব্লিউটিপির কারিগরি ত্রুটি সমাধানে ৭ দিনের সময় দেওয়া হয়েছে। সূত্র: বাংলা নিউজ
দুর্নীতি মামলায় বদির বিচার শুরু
১৩সেপ্টেম্বর,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জন করে নিজ দখলে রাখা ও সম্পদের তথ্য গোপনের অভিযোগে দুদুকের দায়ের করা একটি মামলায় টেকনাফের সাবেক এমপি আব্দুর রহমান বদির বিরুদ্ধে বিচার শুরু হয়েছে। রোববার (১৩ সেপ্টেম্বর) অভিযোগ গঠনের মাধ্যমে বিভাগীয় বিশেষ জজ আদালতের ভারপ্রাপ্ত বিচারক ইসমাইল হোসেন এ আদেশ দেন। এসময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন টেকনাফের বহুল আলোচিত-সমালোচিত সাবেক এমপি আব্দুর রহমান বদি। আগামী ১৫ অক্টোবর সাক্ষ্যগ্রহণের মাধ্যমে মামলার পরবর্তী কার্যক্রম শুরু হবে উল্লেখ করে রাষ্ট্রপক্ষের কৌসুলি মেজবাহ উদ্দিন নিউজ একাত্তরকে বলেন, নানা কারণে আব্দুর রহমান বদির বিরুদ্ধে জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জন ও সম্পদের তথ্য গোপনের অভিযোগে দুদকের করা মামলার বিচার শুরু হয়নি। অবশেষে আজ রোববার ১৩ অক্টোবর সেটি হয়ে গেল। এখন তার বিরুদ্ধে প্রথমে সাক্ষ্যগ্রহণ ও পরে যুক্তিতর্ক শুনানি অনুষ্ঠিত হবে। আশা করি এ মামলা দ্রুত নিষ্পত্তি হবে। ২০০৭ সালের ১৭ ডিসেম্বর দুর্নীতি দমন কমিশন চট্টগ্রাম অঞ্চলের উপ-পরিচালক আবুল কালাম আজাদ দুদক আইনের ২৬/২ ও ২৭/১ ধারা অনুযায়ী আব্দুর রহমান বদির বিরুদ্ধে মামলাটি করেন। এর মধ্যে ২৬/১ ধারায় ৪৩ লাখ ৪৩ হাজার ৪৪৯ টাকা ৫৩ পয়সা সম্পদের তথ্য গোপন ও ২৭/১ ধারায় ৬৫ লাখ ৭০ হাজার ৪১৯ টাকার জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জন করে নিজ দখলে রাখার অভিযোগ আনা হয়েছে। বদির আইনজীবী রফিকুল আলম বলেন, এক এগারোর সময় সেনাবাহিনীর হাতে গ্রেফতার হয়ে কারাগারে ছিলেন আমার মক্কেল আব্দুর রহমান বদি। কারাগারে থাকতেই তার বিরুদ্ধে দুদক এ মামলাটি দায়ের করেন। পরবর্তীতে তিনি এ মামলা থেকে জামিন নেন এবং এখনো তিনি এ মামলায় জামিনে আছেন। চট্টগ্রামে এটিই তার বিরুদ্ধে একমাত্র মামলা। আর কোনো মামলা নেই। আশা করি আমার মক্কেল দুদকের এ মামলায় ন্যায় বিচার পাবেন। আদালত সূত্র জানায়, আবুল কালাম আজাদের করা মামলা তদন্ত করে দুদকের আরেক উপ-পরিচালক আলী আকবর ২০০৮ সালে টেকনাফের সাবেক এমপি আব্দুর রহমান বদির বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দাখিল করেন। উল্লেখ্য, বিভাগীয় বিশেষ জজ আদালতে বিচারক না থাকায় জেলা ও দায়রা জজ ইসমাইল হোসেন এ আদালতে ভারপ্রাপ্ত বিচারকের দায়িত্ব পালন করছেন।
চান্দগাঁওয়ে চুনারটালে ৪ জুয়াড়ি আটক
১২সেপ্টেম্বর,শনিবার,রাজিব দাশ,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: নগরীর চান্দগাঁও থানাধীন বিভিন্ন এলাকায় জুয়ার আসরে পুলিশি অভিযান পরিচালিত হয়। এসময় চুনারটাল এলাকা থেকে একটি জুয়ার বোর্ডে থাকা চারজনকে আটক করা হয়েছে। শনিবার (১২ সেপ্টেম্বর) সকালে এ অভিযান পরিচালিত হয়। চান্দগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আতাউর রহমান খন্দকার নিউজ একাত্তরকে বলেন, কমিশনার স্যারের নির্দেশে জুয়ার বিরুদ্ধে সাঁড়াশি অভিযান পরিচালিত হয়েছে। একটি জুয়ার বোর্ড থেকে চারজনকে আটক করা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে তাস ও টাকা জব্দ করা হয়েছে। আটক চারজনের বিরুদ্ধে জুয়া আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। আটক হওয়া চারজন হলো- মো. নুর ইসলাম (৫৪), মো. ইউসুফ (৩২), মো. আলম (২৭) ও মো. মাসুদ (৪২)। তারা চান্দগাঁও থানাধীন চুনারটাল এলাকায় বসবাস করেন। জুয়ার বিরুদ্ধে নিয়মিত পুলিশি অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানান চান্দগাঁও থানার ওসি আতাউর রহমান খন্দকার।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর