পটিয়ায় নববধূকে ধর্ষণের মূল হোতা গ্রেফতার
১০সেপ্টেম্বর,বৃহস্পতিবার,পটিয়া প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: পটিয়ার চাঞ্চল্যকর নববধূকে গণধর্ষণ মামলার প্রধান আসামি আবু তাহের মন্টু (৩০) কে গ্রেফতার করেছে Rab। বুধবার (৯ সেপ্টেম্বর) আনুমানিক বিকেল ৫ টায় নগরীর ইপিজেড থানাধীন সল্টগোলা এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার আসামি কোলাগাঁও ইউনিয়নের আজিজুল হক মেম্বারের বাড়ির বাদশা মিয়ার ছেলে আবু তাহের মন্টু। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে অন্য সহযোগীদের নিয়ে ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছে। Rab সূত্রে জানা যায়, গত ৭ জুন পটিয়া থানাধীন কোলাগাঁও বড়ুয়াপাড়া এলাকায় সদ্যবিবাহিত নবদম্পতি স্ত্রীর বাড়ি থেকে স্বামীর বাড়ি যাচ্ছিলেন। ঐ সময় হান্নান, মন্টু, জুয়েল এবং মিন্টু নামে ৪ জন বখাটে যুবক সদ্যবিবাহিত এ নবদম্পতির পথ অবরোধ করে। এবং সদ্যবিবাহিতা স্ত্রীকে জোরপূর্বক টেনেহিঁচড়ে আধা কিলোমিটার দূরে একটি পুকুর পাড়ে নিয়ে গিয়ে স্বামীকে গাছের সঙ্গে বেঁধে রেখে পালাক্রমে ঐ নববধূকে ধর্ষণ করে। এ ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছিল। পরবর্তীতে গত ১৫ জুন পটিয়া থানায় এই ঘটনায় মামলা দায়ের হলে ১৮ জুন জুয়েল ও মিন্টুকে গ্রেফতার করে পটিয়া থানায় হস্তান্তর করা হয়। পলাতক আসামি কোলাগাঁও ইউনিয়নের খায়ের উল্লাহ সওদাগরের বাড়ির মৃত আবুল হোসেনের সন্তান হান্নান (৩২) কে গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে Rab। গ্রেফতার আসামি আবু তাহের মন্টু একটি হত্যামামলারও আসামি।
ফটিকছড়িতে আগুনে পুড়লো ৮ দোকান
১০সেপ্টেম্বর,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ফটিকছড়িতে বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকে আগুন লেগে পুড়ে গেছে ৮টি দোকান। এতে ১০ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১০ সেপ্টেম্বর) সকালে বিবিরহাট বাজারের বড় মসজিদ সংলগ্ন দুই নম্বর গলিতে এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে ফটিকছড়ি ও হাটহাজারী থেকে ৩টি গাড়ি গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। ফায়ার সার্ভিসের চট্টগ্রাম জোন-৩ এর উপসহকারী পরিচালক রফিকুল ইসলাম ভূঁইয়া জানান, আগুনে হার্ডওয়্যার, হোমিও ফার্মেসি, কাপড়ের দোকান, সেলুন, ব্রিক ফিল্ড অফিস ও মোবাইল সার্ভিসিংয়ের ২টি দোকান পুড়ে যায়।
চুক্তিরত্যুন বাইর অইলে কোপাই দিয়্যুম
০৯সেপ্টেম্বর,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: কর্ণফুলী নদীর পেশাদার সাম্পান মাঝিদের (পাটনিজীবি) ঘাট ফিরিয়ে দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন (চসিক) প্রশাসক খোরশেদ আলম সুজন। বুধবার (৯ সেপ্টেম্বর) চসিক সম্মেলন কক্ষে সাম্পান মাঝিদের প্রতিনিধিদের সাথে এক বৈঠকে এই তিনি এ আশ্বাস দেন। এসময় তিনি বলেন, আমি আপনাদের কাছে অনুরোধ করবো। এই বিষয়ে আমি যদি কোন অভিযোগ পাই। যদি ঘাটের যাত্রীদের কাছ থেকে টাকা বেশি আদায় করা হয়, মালামাল লোড-আনলোড অথবা অন্য যে কোন অভিযোগ পাই তাহলে সাথে সাথেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তাছাড়া যদি আমি বেঁচে থাকি তাহলে ঘাট আপনাদের ফিরিয়ে দেব। পাটনিজীবিদের বিভিন্ন অভিযোগের প্রেক্ষিতে নগরের বিল্পব উদ্যানে ইজারাদারদের শর্ত ভঙ্গ করার বিষয়টি ইঙ্গিত করে চসিক প্রশাসক বলেন, 'পচ্চাত্তর কুটি টিয়্যার (৭৫ কোটি টাকার) জায়গা কর্পোরেশনে ইজারা দিয়্যেদে বছরে ১ লাখ টিয়্যার (টাকা) দরে। তারপরেও যেহেতু আগের মেয়র সাব দ্যিই গেইয়্যি সুতরাং হাকিম লইরল্যেও হুকুম ন্ লরে। ইতারার লগে অ্যাঁর লগে (আমার সাথে) এহন সমস্যা অইয়্যে দে কি....মেয়রে লগে তোরার লগে যেইনদ্যিলে চুক্তি অইয়্যি, চুক্তি বরাবর থাক। চুক্তির বাইর অইব্যি আঁই তোরারে কোপাই দিয়্যুম।' বৈঠকে সাম্পান মাঝিরা চসিক প্রশাসককে বলেন, ঘাট ব্যবসায়ীরা ইজারা নেয়ায় পেশাহীন হয়ে পড়েছে তারা। অর্থের অভাবে পরিবার পরিজন নিয়ে সীমাহীন কষ্টে দিন পার করতে হচ্ছে। যে কারণে অনেক সাম্পান মাঝি পেশা ছেড়ে চলে যাচ্ছে। এসব অভিযোগ আমলে নিয়ে জবাবে চসিক প্রশাসক বলেন, আগামীতে সাম্পান মাঝিরাই ঘাট ইজারা পাবেন। পাটনীজীবি নাম দিয়ে অপেশাদার কেউ ঘাট ইজারা নিতে পারবে না। বৈঠকে সিটি কর্পোরেশনের প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা মফিদুল আলম, প্রশাসকের একান্ত সচিব আবুল হাশেম, ভূসম্পদ কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) কামরুল ইসলামসহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন। অন্যদিকেসাম্পান মাঝি কল্যাণ সমিতি ফেডারেশনের পক্ষে প্রতিনিধিত্ব করেন উপদেষ্টা আলীউর রহমান। সাম্পান মাঝিদের পক্ষ উপস্থিত ছিলেন কর্ণফুলী নদী সাম্পান মাঝি কল্যাণ সমিতি ফেডারেশন এর সভাপতি এস এম পেয়ার আলীসহ অন্যান্যরা। প্রসঙ্গত গত পহেলা বৈশাখ ১৪২৭ বাংলা তারিখে ইজারা না পেয়ে ঘাট ছাড়া হয়েছে সাম্পান মাঝিরা। এরপর (২৫ আগষ্ট) অনশন কর্মসূচী কর্ণফুলী ঘাটে অনশন করেন। পরে দাবি আদায় না হলে চসিক কার্যালয় ঘেরাওয়ের হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছিল। অন্যদিকে চসিক সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পাটনিজীবিদের ইজারা দেওয়া হলে প্রায় ৪৫ লাখ টাকা আয় বঞ্চিত হবে চসিক। এমন অবস্থায় চসিক প্রশাসক খোরশেদ আলম সুজনের সিদ্ধান্তের দিকে তাকিয়ে আছেন চসিক কর্মকর্তারা।- সিভয়েস
চট্টগ্রামে আরো ৫৪ জন আক্রান্ত
০৯সেপ্টেম্বর,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সর্বশেষ ২৪ ঘন্টায় চট্টগ্রামে ৯৭১ নমুনা পরীক্ষায় নতুনভাবে ৫৪ জনের করোনা আক্রান্ত হয়েছে। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ১৭ হাজার ৬৪৪ জনে। বুধবার (৮ সেপ্টেম্বর) সকালে সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে এ তথ্য প্রকাশ হয়। প্রতিবেদন অনুযায়ী, চট্টগ্রামের সরকারি ও বেসরকারি মিলে ৬টি ল্যাবে ও কক্সবাজার ল্যাবে নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এরমধ্যে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) ল্যাবে ১৪৫টি, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেস (বিআইটিআইডি) ল্যাবে ২৪৯টি, চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) ল্যাবে ৩০২টি এবং চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি অ্যান্ড অ্যানিম্যাল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় (সিভাসু) ল্যাবে ১০৬টি, ইম্পেরিয়াল হাসপাতালের ল্যাবে ৬৮টি ও শেভরন ল্যাবে ৫৫টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে চবি ল্যাবে ৯ জন, বিআইটিআইডি ল্যাবে ৬ জন, চমেক ল্যাবে ১৮ জন, সিভাসু ল্যাবে ৪ জন, ইম্পেরিয়াল হাসপাতালের ল্যাবে ৫ জন এবং শেভরন ল্যাবে ৩‌ জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এছাড়া কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ ল্যাবে চট্টগ্রামের ৪৬টি নমুনা পরীক্ষা করে ৯ জনের শরীরের করোনা ভাইরাসের অস্তিত্ব মিলেছে। চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি নিউজ একাত্তরকে জানান, গত ২৪ ঘণ্টার নমুনা পরীক্ষায় ৫৪ জন নতুনভাবে আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছেন। এইদিন নমুনা পরীক্ষা করা হয় ৯৭১টি। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে নগরীর ৩৬ জন এবং উপজেলার বাসিন্দা ১৮ জন।
ইপিজেড মাইলের মাথায় আগুনে পুড়লো ৪টি দোকান ২টি ঘর
০৮সেপ্টেম্বর,মঙ্গলবার,রাজিব দাশ,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: নগরের ইপিজেড থানাধীন ২ নম্বর মাইলের মাথা এলাকায় বৈদ্যুতিক গোলযোগ থেকে আগুন লেগে ৪টি কাঁচা দোকান ও ২টি কাঁচা বসতঘর পুড়ে গেছে। মঙ্গলবার (৮ সেপ্টেম্বর) ভোররাত তিনটার দিকে এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। একজন প্রত্যক্ষদর্শী নিউজ একাত্তরকে জানান, রাতে হঠাৎ করে আগুন ধরে যাওয়ায় নতুন মসজিদ এলাকার দোকানগুলো এবং সবুর কলোনির ২টি বাসা থেকে কোনো কিছুই বের করা সম্ভব হয়নি। ফায়ার সার্ভিসের আগ্রাবাদ নিয়ন্ত্রণ কক্ষ থেকে বলা হয়েছে, আগুন লাগার খবর পেয়ে ইপিজেড ফায়ার স্টেশন থেকে সিনিয়র স্টেশন অফিসার আবদুল মান্নানের নেতৃত্বে ২টি গাড়ি ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়। দেড় ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নেভানো সম্ভব হয়। ফায়ার সার্ভিসের হিসাবে এ অগ্নিকাণ্ডে ৬ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। তবে কেউ হতাহত হননি।
পেঁয়াজের দামের ঝাঁঝ কমাতে এবার খুচরা বাজারে অভিযান
০৭সেপ্টেম্বর,সোমবার,শারমিন আকতার,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: পাইকারি বাজারের পর পেঁয়াজের দামের ঝাঁঝ কমাতে এবার খুচরা বাজারে অভিযান চালিয়েছে জেলা প্রশাসন। সোমবার (৭ সেপ্টেম্বর) দুপুর থেকে বিকাল পর্যন্ত এ অভিযান চলে। নগরীর আগ্রাবাদের চৌমুহনী বাজার ও ২ নম্বর গেইটের কর্ণফুলী মার্কেটে চালানো চালানো এ অভিযানে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে ৯ জন খুচরা ব্যবসায়ীকে বেশি দামে পেঁয়াজ বিক্রির অপরাধে বিভিন্ন অংকের আর্থিক জরিমানা করা হয়। এর আগে সকাল থেকে গতকাল রোববার (৬ সেপ্টেম্বর) ১০ আড়তদারকে জরিমানার প্রতিবাদে সড়ক অবরোধ করে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘট করছে ব্যবসায়ীরা। সন্ধ্যায় ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি-সম্পাদকের সাথে বসে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেয়ার কথা রয়েছে তাদের। জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শিরিন আক্তার ও মো. ওমর ফারুক অভিযানে নেতৃত্বে দেন। অভিযানের বিষয়টি নিউজ একাত্তরকে দুই নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিশ্চিত করেন। ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্রে জানা যায়, অতিরিক্ত দামে পেঁয়াজ বিক্রির দায়ে কর্ণফুলী মার্কেটের খাজা স্টোরকে ২ হাজার টাকা, নিউ বিসমিল্লাহ স্টোরকে ২ হাজার টাকা, কাশেম স্টোরকে ২ হাজার টাকা ও হাজী স্টোরকে ১ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। অন্যদিকে চোমুহনী মার্কেটের নুরে মদীনা স্টোরকে ২ হাজার টাকা, সাগর স্টোরকে ২ হাজার টাকা, মিলন স্টোরকে ১ হাজার টাকা, আরিফুল স্টোরকে ১ হাজার টাকা ও আলাউদ্দিন স্টোরকে ১ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ওমর ফারুক বলেন, কেজি প্রতি পেঁয়াজের মূল্য ১০ থেকে ১৫ টাকা বেশি রাখছিলেন আগ্রাবাদের চৌমুহনী মার্কেট ও কর্ণফুলী মার্কেটের খুচরা ব্যবসায়ীরা। অভিযানে গিয়ে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যায়। একপর্যায়ে দায়ী ৯ জন ব্যবসায়ীকে বিভিন্ন অংকের জরিমানা করে সতর্ক করা হয়। উল্লেখ্য, গত কয়েকদিন ধরে পাইকারি ও খুচরা বাজারে হঠাৎ করে পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধি পেয়েছে। বর্তমানে প্রতি কেজি পেঁয়াজের মূল্য ৫০ থেকে ৬০ টাকা। অথচ গত ১ সপ্তাহ আগেও খোলাবাজারে প্রতি কেজি পেঁয়াজ ২৫ থেকে ৩০ টাকায় বিক্রি হয়েছিল। এমন পর্যায়ে বিভিন্ন মহল থেকে অভিযোগ পেয়ে গত ৬ সেপ্টেম্বর নগরীর পাইকারি বাজার খাতুনগঞ্জে অভিযান চালিয়ে ১০ জন ব্যবসায়ীকে জরিমানা করে জেলা প্রশাসন।
জাহাজের হ্যাজে পড়ে বন্দরে ফিলিপাইন নাবিকের মৃত্যু
০৭সেপ্টেম্বর,সোমবার,রাজিব দাশ,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম বন্দরে নোঙর ফেলা এমভি তালিয়া এইচ জাহাজের হ্যাজে পরে এক নাবিকের মৃত্যু হয়েছে। জোয়েল ডি ব্রেন্ডা (৩৫) নামের এ নাবিক ফিলিপাইনের বাসিন্দা। সোমবার (৭ সেপ্টেম্বর) দুপুরে জাহাজের হ্যাজ কভার বন্ধ করতে গিয়ে পা পিছলে পড়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে। জাহাজটির লোকাল এজেন্ট রেণু শিপিং লাইনের ব্যবস্থাপক মো. এরফান জানান, জোয়েল ডি ব্রেন্ডা (৩৫) নামের ওই নাবিক জাহাজের হ্যাজ কাভার বন্ধ করার সময় পা পিছলে নিচে পড়ে যায়। গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে চমেক হাসপাতালে নেওয়ার পথে তিনি মারা যান। জাহাজটির প্রিন্সিপালের (মালিকপক্ষ) নির্দেশনা অনুযায়ী নাবিকের মরদেহ নিজ দেশে ফেরত বা এখানে ধর্মীয় রীতি অনুযায়ী সৎকার করা হবে।
চসিককে ১ কোটি ২০ লাখ টাকা গৃহকর দিল চমেক
০৬সেপ্টেম্বর,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: বকেয়া গৃহকর বাবদ চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনকে (চসিক) ১ কোটি ২০ লাখ টাকা পরিশোধ করেছে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। রোববার (৬ সেপ্টেম্বর) চমেক হাসপাতালের উপপরিচালক ডা. আফতাবুল ইসলাম চসিক প্রশাসক খোরশেদ আলম সুজনের হাতে চেকটি তুলে দেন। এ সময় চসিকের সচিব আবু সাহেদ চৌধুরী, প্রশাসকের একান্ত সচিব মোহাম্মদ আবুল হাশেম, চমেক হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা মো. শাহজাহান, চসিকের এস্টেট অফিসার মোহাম্মদ কামরুল ইসলাম চৌধুরী, উপ-কর কর্মকর্তা আবদুল মজিদ উপস্থিত ছিলেন। চসিক প্রশাসক বলেন, করোনাকালে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের অনেক অবদান রয়েছে। চট্টগ্রাম বিভাগে এ হাসপাতালটি সাধারণ ও মুমূর্ষু রোগীদের যে চিকিৎসাসেবা দিয়ে যাচ্ছে তা অতুলনীয়। তিনি চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের সেবার মান আরও উন্নত এবং দালালদের দৌরাত্ম্য বন্ধ করার জন্য আহ্বান জানান। প্রশাসক চট্টগ্রামে আরও কয়েকটি বিশেষায়িত সরকারি হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা কামনা করেন।
মিতু হত্যা মামলা: শাহজাহান দুইদিনের রিমান্ডে
০৬সেপ্টেম্বর,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সাবেক পুলিশ সুপার বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু হত্যা মামলায় শাহজাহান মিয়া নামে এক আসামিকে দুই দিনের রিমান্ড দিয়েছেন আদালত। অপর দুই আসামি মোতালেব মিয়া প্রকাশ ওয়াসিম ও আনোয়ার হোসেনকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। রোববার (৬ সেপ্টেম্বর) মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট শফি উদ্দীনের আদালত এ আদেশ দেন। আসামি মোতালেব মিয়া প্রকাশ ওয়াসিম রাঙ্গুনিয়া উপজেলার দক্ষিণ রাজানগর এলাকার আবদুন নবীর ছেলে, আনোয়ার হোসেন ফটিকছড়ি উপজেলার পাইড্রালিকুল এলাকার সামছুল আলমের ছেলে ও শাহজাহান মিয়া রাঙ্গুনিয়া উপজেলার রানীরহাট এলাকার কবির আহমদের ছেলে। মিতু হত্যা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) চট্টগ্রাম মেট্রোর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মঈন উদ্দিন আসামিদের পাঁচদিনের রিমান্ড আবেদন করেন। চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের সহকারী কমিশনার (প্রসিকিউশন) কাজী শাহাবুদ্দীন আহমেদ বলেন, মাহমুদা খানম মিতু হত্যা মামলায় আসামি শাহজাহানের একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। দুই আসামিকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদের নির্দেশ দিয়েছেন। ২০১৬ সালের ৫ জুন সকালে নগরের ওআর নিজাম রোডে ছেলেকে স্কুলবাসে তুলে দিতে যাওয়ার পথে গুলি ও ছুরিকাঘাতে নিহত হন তৎকালীন পুলিশ সুপার বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু। এ ঘটনায় বাবুল আক্তার বাদি হয়ে পাঁচলাইশ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এই মামলায় সন্দেহভাজন হিসেবে আবু নসুর গুন্নু, শাহ জামান ওরফে রবিন, সাইদুল আলম শিকদার ওরফে সাক্কু ও শাহজাহান, মো. আনোয়ার ও মোতালেব মিয়া প্রকাশ ওয়াসিম নামে কয়েকজনকে আটক করে পুলিশ। এই হত্যায় অস্ত্র সরবরাহকারী হিসেবে আটক হন এহেতেশামুল হক ভোলা ও তার সহযোগী মো. মনির। তাদের কাছ থেকে পয়েন্ট ৩২ বোরের একটি পিস্তল উদ্ধার করা হয় যেটি মিতু হত্যায় ব্যবহৃত হয়েছে বলে পুলিশ দাবি করেছিল তখন। গ্রেফতার আনোয়ার ও মোতালেব মিতু হত্যায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দেন। তাদের স্বীকারোক্তিতে মিতু হত্যার পরিকল্পনাকারী হিসেবে নাম আসে বাবুল আক্তারের সোর্স হিসেবে পরিচিত মো. মূছার। মিতুর বাবা পুলিশের সাবেক পরিদর্শক মোশারফ হোসেন মিতু হত্যায় বাবুল আক্তারকে দায়ী করেন। তিনি তদন্ত কর্মকর্তাকে অভিযোগের সাপেক্ষে বেশ কিছু ক্লু দেন বলে জানান মোশারফ হোসেন। ২০১৭ সালের ২৪ জুন রাতে ঢাকার বনশ্রীর শ্বশুরবাড়ি থেকে ঢাকা গোয়েন্দা পুলিশের কার্যালয়ে নিয়ে প্রায় ১৪ ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় বাবুল আক্তারকে। সাবেক পুলিশ সুপার বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু হত্যার চার বছর পার হলেও এ চার্জশিট দিতে ব্যর্থ হয়েছে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি)। চাঞ্চল্যকর এই মামলার কোনো কূল কিনারাও করতে পারেনি তারা। শেষ পর্যন্ত মামলাটির তদন্তভার 'আদালতের নির্দেশে' গত জানুয়ারিতে চলে যায় পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনে।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর