দুই রিকশা চালককে নতুন রিকশা দিলেন নওফেল
৩১আগস্ট,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: সামাজিক সংগঠন হাসি-র উদ্যোগে নগরের আমিন কলোনির রিপন ও হারুন নামে দুই রিকশা চালককে দুটি নতুন রিকশা তুলে দেওয়া হয়েছে। সোমবার (৩১ আগস্ট) দুপুরে নগরের চশমা হিল এলাকায় শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল দুই রিকশা চালককে নতুন রিকশা দুটি হস্তান্তর করেন। সামাজিক সংগঠন হাসি-র উদ্যোগে দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে নিয়ে স্বাবলম্বীকরণ প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়। এ প্রকল্পের উদ্বোধনও করেন নওফেল। এ সময় নওফেল বলেন, সমাজের প্রতিটি স্তরের মানুষ নিজ নিজ স্থান থেকে এই দেশকে গড়ার ক্ষেত্রে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভূমিকা রাখছে। খেটে-খাওয়া মানুষের শ্রম-ঘামে এই দেশ আজ সমৃদ্ধি অর্জন করছে একের পর এক। তাই তাদের কথা আমাদের সবসময় স্মরণ করতে হবে। তাদের পাশে দাঁড়াতে হবে। সামাজিক সংগঠন হাসি খেটে-খাওয়া মানুষদের স্বাবলম্বী করার যে উদ্যোগ নিয়েছে তা অত্যন্ত সময়োপযোগী ও প্রশংসার দাবিদার। হাসি'র সহ-সভাপতি ও এমইএস কলেজ ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ফয়সাল আহমেদ বলেন, হাসির পক্ষ থেকে ৫ জন রিকশা চালককে স্বাবলম্বী করে তুলতে রিকশা প্রদান করা হয়েছে। হাসি দারিদ্রতামুক্ত সমাজ বিনির্মাণে কাজ করছে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক আবু তাহের, সাবেক কাউন্সিলর মোহাম্মদ হোসেন, আবু তাহের, পেয়ার মোহাম্মদ, জাহাঙ্গীর আলম, ফয়েজ আহমেদ, আলী বক্স, নগর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ফরিদ মাহমুদ প্রমুখ।
চট্টগ্রামে তাজিয়া মিছিল নিষিদ্ধ ঘোষণা
২৯আগস্ট,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে চট্টগ্রাম মহানগর এলাকায় পবিত্র আশুরার তাজিয়া মিছিল নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি)। একই সঙ্গে দা, ছোরা, কাঁচি, বর্শা, বল্লম, তরবারি, লাঠি বহন এবং আতশবাজি ও পটকা ফোটানো সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। শনিবার (২৯ আগস্ট) সিএমপি কমিশনার মো. মাহাবুবর রহমান এ আদেশ দেন। সিএমপির পক্ষ থেকে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য জানানো হয়। সিএমপির পক্ষ থেকে বলা হয়, পবিত্র আশুরা উদযাপন উপলক্ষে চট্টগ্রাম মহানগরী এলাকায় সকল ধরনের তাজিয়া মিছিল বা শোক মিছিল নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তবে ধর্মপ্রাণ নগরবাসী স্বাস্থ্যবিধি মেনে অভ্যন্তরীণভাবে ধর্মীয় অনুষ্ঠান পালন করতে পারবেন। এক্ষেত্রে পুলিশ প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা দেবে। তবে অনুষ্ঠানস্থলে দা, ছোরা, কাঁচি, বর্শা, বল্লম, তরবারি, লাঠি বহন এবং আতশবাজি ও পটকা ফোটানো সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ থাকবে।
হালিশহর মসজিদ মার্কেটে আগুন, দুই দোকান পুড়ে ছাই
২৮আগস্ট,শুক্রবার,রাজিব দাশ,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: নগরীর হালিশহর বি ব্লকের মসজিদ মার্কেটের বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। শুক্রবার (২৮ আগস্ট) ভোর সাড়ে ৪ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। অগ্নিকাণ্ডে দুইটি দোকান পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। বন্দর ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার মোঃ রুবেল এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। আগুনে মসজিদ মার্কেটের মোহাম্মদ আব্বাস ও জাহাঙ্গীরের দুটি মুদির দোকান পুড়ে যায় বলে জানিয়েছেন তিনি। তিনি আরো বলেন, হালিশহর বি ব্লক এর মসজিদ মার্কেটে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট ঘণ্টাব্যাপী চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। এতে দুইটি মুদির দোকান পুড়ে গেছে। ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ১০ লক্ষ টাকা হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
পটিয়ায় শিশু নির্যাতনকারী সেই সৎ মা গ্রেফতার
২৬আগস্ট,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: পটিয়ায় ব্লেড দিয়ে এঁকে ও হাতুড়ী দিয়ে পিটিয়ে শিশু নির্যাতনের ঘটনায় পটিয়া থানা পুলিশ সৎ মা নিশু আকতারকে (২৬) গ্রেফতার করেছেন। সে উপজেলার শোভনদন্ডী ইউনিয়নের রশিদাবাদ গ্রামের রিক্সাচালক মো. নাজিম উদ্দিনের দ্বিতীয় স্ত্রী। মঙ্গলবার রাতে পুলিশ সৎ মা নিশুর বাপের বাড়ি (একই এলাকা) থেকে গ্রেফতার করেন। অমানবিকভাবে শিশু নির্যাতনের ঘটনায় থানায় শিশুটির পিতা নাজিম উদ্দিন বাদী হয়ে একটি মামলা করেন। এর প্রেক্ষিতে অতিরিক্ত পুরিশ সুপার (পটিয়া সার্কেল) মো. তারিক রহমানের নেতৃত্বে একদল পুলিশ সৎ মাকে গ্রেফতার করেন। পুলিশ জানান, উপজেলার শোভনদন্ডী ইউনিয়নের রশিদাবাদ গ্রামের রিক্সা চালক নাজিম উদ্দিনের প্রথম স্ত্রীর মারা যায়। প্রথম সংসারে একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। রিক্সা চালকের দ্বিতীয় স্ত্রী প্রায় সময় শিশু মায়শা আকতারকে শারীরিকভাবে নির্যাতন করতেন। দিন কয়েক আগে শিশুটির সৎমা মা মাথা ফাটিয়ে দেয় । এ ব্যাপারে অতিরিক্ত পুরিশ সুপার (পটিয়া সার্কেল) মো. তারিক রহমান নিউজ একাত্তরকে জানিয়েছেন, শিশুকে ব্লেড দিয়ে এঁকে ও হাতুড়ী দিয়ে পিটিয়ে নির্যাতনের ঘটনায় থানায় একটি মামলা রেডর্ক করা হয়েছে। পুলিশ অভিযান চালিয়ে সৎ মা নিশুকে গ্রেফতার করে আদালতে প্রেরণ করেছে।
প্লাজমা দিতে ঢাকায় গেলেন সিএমপির ৩০ সদস্য
২৬আগস্ট,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনাভাইরাসে আক্রান্ত পুলিশ সদস্যদের প্লাজমা দিতে ঢাকায় গেলেন চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) ৩০ জন সদস্য। বুধবার (২৬ আগস্ট) সকালে নগরীর দামপাড়ার পুলিশ লাইন থেকে রাজারবাগ কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালের উদ্দেশ্যে তারা যাত্রা করেন। সাধারণ জনগনকে সেবা দিতে গিয়েই সিএমপির এ ৩০ জন সদস্য করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন এবং দীর্ঘ চিকিৎসার পর তারা করোনা জয় করেন। বিষয়টি নিউজ একাত্তরকে নিশ্চিত করেন নগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার ও জনসংযোগ কমকর্তা মির্জা সায়েম মাহমুদ। তিনি বলেন, ৩০ জন সদস্য স্বেচ্ছায় প্লাজমা দিতে আগ্রহ প্রকাশ করলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। এরই ধারাবাহিকতায় বুধবার সকালে বাসযোগে তারা ঢাকার রাজারবাগ পুলিশ লাইনের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেন। এ সময় সিএমপি কমিশনার স্যারের পক্ষ থেকে তাদের ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানানো হয়। উল্লেখ্য, করোনাকালে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ, হাসপাতাল স্থাপন ও করোনা প্রতিরোধে জনসচেতনতা সৃষ্টিসহ নানা কার্যক্রম গ্রহণ করে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি)।
মুক্তিযোদ্ধাদের উপর হামলা, এমপি মোস্তাফিজের এপিএস কারাগারে
২৫আগস্ট,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: নগরের প্রেস ক্লাবের সামনে মুক্তিযোদ্ধাদের উপর হামলার ঘটনায় বাশঁখালীর এমপি মোস্তাফিজুর রহমানের এপিএস একেএম মুস্তাফিজুর রহমান রাসেল ও তার সহযোগী এনামুল হককে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার ২৫ আগস্ট দুপুরে মহানগর হাকিম আবু সালেহ মোহাম্মদ নোমানের আদালত এ আদেশ দেন। গ্রেফতার চারজনের মধ্যে আবুল কালাম ও মিজানুর রহমান নামে অন্য দুই আসামির জামিন মঞ্জুর করেন আদালত। এর আগে গতকাল সোমবার (২৪ আগষ্ট) দুপুরে নগরীর প্রেস ক্লাবের সামনে থেকে ও কোতোয়ালি মোড় থেকে গ্রেফতার হওয়া বাঁশখালীর সাংসদের এপিএস মুস্তাফিজুর রহমান রাসেল সহ চারজনকে আদালতে আনে কোতোয়ালি থানা পুলিশ। বিষয়টি নিশ্চিত করে নগর পুলিশের সহকারী কমিশনার (প্রসিকিউশন) শাহাবুদ্দিন আহমদ বলেন, চার আসামিকে আদালতে উপস্থাপন করলে আদালত দুই আসামিকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়ে আইনজীবীর আবেদনের প্রেক্ষিতে অন্য দুই আসামিকে জামিনে মুক্তি দেন। প্রসঙ্গত গতকাল সোমবার সকালে মুক্তিযোদ্ধা ডা. আলী আশরাফের মৃত্যুর পর বাঁশখালীতে মুক্তিযুদ্ধ হয়নি দাবি করে বক্তব্য দেওয়ার প্রতিবাদে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সামনে মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ও মুক্তিযোদ্ধাদের মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়। একপর্যায়ে মানববন্ধনে হামলার ঘটনা ঘটে। হামলায় বেশ কজন মুক্তিযুদ্ধা ও সাংবাদিক আহত হয়।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর