টেকসই উন্নয়নের জন্য গুণগত শিক্ষার বিকল্প নেই
১৯ফেব্রুয়ারী,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ নিশ্চিত করতে চিটাগং ইন্ডিপেন্ডেন্ট ইউনিভার্সিটি (সিআইইউ) সুদূরপ্রসারি পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করছে বলে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়টির উপাচার্য অধ্যাপক ড. মাহফজুল হক চৌধুরী। তিনি বলেছেন, গুণগত শিক্ষা বাস্তবায়নের জন্য প্রয়োজন মানসম্মত শিক্ষক, শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করতে গুণগত শিক্ষা নিশ্চিত করার কোনো বিকল্প নেই। গত ১৭ ফেব্রুয়ারি নগরের জামালখানের সিআইইউ ক্যাম্পাসের কনফারেন্স কক্ষে অনুষ্ঠিত অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলের বৈঠকে সভাপতির বক্তব্যে এসব কথা বলেন উপাচার্য। এই সময় বৈঠকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য, ডিন, অধ্যাপক ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। উপাচার্য অধ্যাপক ড. মাহফজুল হক চৌধুরী বলেন, সিআইইউ সময়ের আগে এগিয়ে যেতে চায়। তাই শিক্ষার্থীদের দক্ষ করে গড়ে তুলতে আরও কিছু সার্টিফিকেট কোর্স ও প্রোগ্রাম চালু করার উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, আমি দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই এই বিশ্ববিদ্যালয়কে মডেল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করার চেষ্টা করছি। শিক্ষার্থী, দক্ষ শিক্ষকমণ্ডলী, পাঠ্যক্রম, পাঠ্যসূচি, ল্যাব সুবিধা, প্রশাসনিক কাজে স্বচ্ছতা, গতিশীলতা, উপযুক্ত মূল্যায়নসহ গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলোর দিকে অধিক মনোযোগ দিয়েছি। উপাচার্য বলেন, শিক্ষার গুণগত মানোন্নয়নে সর্বাগ্রে দক্ষ ও মেধাবী শিক্ষকের ওপর গুরুত্ব দিয়ে আসছি আমরা। মানবিক মূল্যবোধ, নৈতিকতার উৎকর্ষ ও মেধার বিকাশ ঘটানোর মাধ্যমে শিক্ষাকে সবার কাছে পৌঁছে দিতে তিনি নানামুখী উদ্যোগের কথা বৈঠকে তুলে ধরেন। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে আরও বক্তব্য দেন ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য সৈয়দ মাহমুদুল হক, সাফিয়া রহমান, লুৎফে এম আইয়ুব, সিন্ডিকেট সদস্য অধ্যাপক মাহমুদুল হক, অধ্যাপক ড. এম আইয়ুব ইসলাম, অ্যাকাডেমিক কাউন্সিলের সদস্য সচিব ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার আনুজুমান বানু লিমা প্রমুখ। বৈঠকে ২০১৯ সালের অ্যাকাডেমিক ক্যালেন্ডার অনুমোদন, টিউশন ফি, সিলেবাস আপডেট, মাঠ পর্যায়ে শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণ বৃদ্ধি, স্কলারস ডে, ক্রিয়েটিভ রাইটারস ক্লাব গঠনসহ নানা বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হয়। ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য সৈয়দ মাহমুদুল হক বলেন, চট্টগ্রামে গুণগত মান নিশ্চিত করা বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা হাতে গোনা। সিআইইউ তার অন্যতম। তাই অভিভাবকদের আস্থা ধরে রাখতে আগামিতে নিজেদের সেরা শিক্ষাটা ছড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করতে হবে। সাফিয়া রহমান বলেন, কর্মমুখী সিলেবাসের কার্যক্রম হিসেবে ক্লাস রুমের বাইরে অংশগ্রহণ বাড়াতে হবে। তবেই মেধার বিকাশ ঘটবে শিক্ষার্থীদের। লুৎফে এম আইয়ুব বলেন, আমরা এখন দেশের গন্ডি পেরিয়ে আন্তর্জাতিকমানের শিক্ষার দিকে ধাবিত হচ্ছি। বিষয়টি নিঃসন্দেহে আনন্দের, গৌরবের। সিআইইউ এই ধারাবাহিকতা বজায় রাখবে এমনটা চাওয়া আমার। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে মোস্তফা হাকিম ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশনের ত্রাণ
১৯ফেব্রুয়ারী,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: আলহাজ্ব মোস্তফা-হাকিম ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে গতকাল ১৮ ফেব্রুয়ারি সোমবার চাক্তাই ভেড়া মার্কেট বস্তিতে ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ত্রাণসামগ্রি বিতরণ করা হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে ত্রাণ বিতরণ করেন ফাউন্ডেশন’র নির্বাহী পরিচালক ও সাবেক মেয়র এম মনজুর আলম। ত্রাণ বিতরণকালে মনজুর আলম বলেন, মোস্তফা-হাকিম ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশন সব সময় মানব সেবায় নিয়োজিত। এভাবে আর্তমানবতার সেবা ও অসহায়-ক্ষতিগ্রস্তদের সাহায্য-সহযোগিতা করা সমাজের সকল বিত্তবানদের দায়িত্ব। ক্ষতিগ্রস্তদের সহযোগিতায় সমাজের সকলে এগিয়ে এলে এই ক্ষতিগ্রস্ত মানুষগুলোর দুঃখ-দুর্দশা কিছুটা লাঘব হতে পারে। এ সময় মনজুর আলম ক্ষতিগ্রস্ত পুরা এলাকা ঘুরে দেখেন ও এই ভয়াবহ অগ্নিকান্ডের কবলে পড়া অসহায় পরিবারগুলোর খোঁজখবর নেন এবং তাদেরকে সান্ত্বনা দেন। এতে উপস্থিত ছিলেন কাউন্সিলর হাজী মোহাম্মদ নুরুল হক, কাউন্সিলর লুৎফুন্নেছা দোভাস, সাবেক কাউন্সিলর মোহাম্মদ জামাল আহাম্মদ, বঙিরহাট আওয়ামী লীগ সভাপতি নুরুল আলম, জাহাঙ্গির আলম, লিটন রায় চৌধুরী, মামুনুর রশিদ, শান্ত দাস গুপ্ত, আক্তার হোসেন প্রমুখ। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে কাভার্ড ভ্যান- সিএনজিচালিত অটোরিকসার মুখোমুখি সংঘর্ষে,নিহত 2
১৫ ফেব্রুয়ারী,শুক্রবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম জেলার বাঁশখালীতে কাভার্ড ভ্যানের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষে সিএনজিচালিত অটোরিকসার আরোহী খালা ও ভাগনি নিহত হয়েছেন। শুক্রবার দুপুরের দিকে সাধনপুর ইউনিয়নের বাণীগ্রামে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন- বাহারচড়া ইউনিয়নের ইলশা গ্রামের মারুফ হোসেনের স্ত্রী রহিমা বেগম (৪৮) এবং একই এলাকার জমির হোসেনের মেয়ে সুমাইয়া আক্তার (১৩)। স্থানীয়রা জানান, কাভার্ড ভ্যানটি চট্টগ্রাম শহরে যাওয়ার পথে অটোরিকসাটির সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে দুজন ঘটনাস্থলে প্রাণ হারান। গুরুতর আহত হন অটোরিকসার চালকসহ দুজন। বাঁশখালী থানার ওসি কামাল হোসেন জানান, কাভার্ড ভ্যানটি আটক করা হয়েছে। তবে চালক পালিয়ে গেছেন।
চিটাগাং সিনিয়রস ক্লাবে ভ্যালেন্টাইনস ডে উদযাপন
১৫ ফেব্রুয়ারী,শুক্রবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: প্রতি বছরের ন্যায় এবারও সিনিয়রস ক্লাবে উদযাপিত হল ভ্যালেনটাইনস ডে। ফুলেল শুভেচ্ছার ভেতর দিয়ে অনুষ্ঠানে উদ্বোধনী বক্তা হিসেবে সিনিয়রস ক্লাবের প্রেসিডেন্ট ডা. সেলিম আকতার চৌধুরী বলেন, ভ্যালেনটাইনস ডে নিয়ে অনেক গল্প ও ইতিহাস প্রচারিত থাকলেও একটা গল্প আমাকে উজ্জীবিত করেছে। সম্রাট দ্বিতীয় ক্লডিয়াম ২০০ খ্রিস্টাব্দে দেশে বিয়ে প্রথা নিষিদ্ধ করেন। তিনি ঘোষণা দেন যুবকরা শুধু যুদ্ধে যাবে। তার বিরোধিতা করেন সেন্ট ভ্যালেন্টাইন নামে এক যাজক। তিনি সেই স্বৈরাচার রাজার কথা অমান্য করে যুবক যুবতীদের বিয়ে পড়ান। সম্রাট ক্ষুব্ধ হয়ে তাকে মৃত্যুদণ্ড দেন। সেই দিনটি ছিল ১৪ ফেব্রুয়ারি। সুতরাং আজকের দিনটি যেমন ভালবাসার দিন তেমনি দ্রোহেরও দিন। অন্যায়কে প্রতিবাদ করার দিন। যারা এককভাবে সব কিছুকে শাসন করতে চায় তাদেরকে ভালবাসা ও সহমর্মিতার মাধ্যমে প্রেমের আহ্বান জানাই। সেই সাথে আমরা উচ্চারণ করতে পারি, দেশপ্রেম সবার মাঝে ছড়িয়ে পড়ুক। প্রকৃতি ও পরিবেশকে মানুষ ভালো জানুক। পরিহার করি পরনিন্দা ও পরচর্চা। আসুন বলি সহজ মানুষ ভজে দেখ না মন দিব্যজ্ঞানে। অনুষ্ঠানে কেক কাটেন সাবেক মন্ত্রী ও ক্লাবের সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশারফ হোসেন, ক্যাপ্টেন সাফায়েত আহম্মদ খান, প্রেসিডেন্ট ডা. সেলিম আকতার চৌধুরী ও প্রেসিডেন্টের সহধর্মিণী জেব উননেসা চৌধুরী লিজা, ভাইস প্রেসিডেন্ট বেলায়েত হোসেন ও তাঁর সহধর্মিণী সানজিদা নাসরিন, ক্লাবের সদস্যা রুখসানা খান, ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য যথাক্রমে মোহাম্মদ আব্বাস, এম এ কবির মিল্কি, মোহাম্মদ মহিউদ্দিন, গোপাল কৃষ্ণ লালা এবং ওয়ালিউল আবেদীন সাকিল। মেম্বারদের মধ্যে আরও উপস্থিত ছিলেন, অ্যাডভোকেট রফিকুল আনোয়ার চৌধুরী, গোলাম মোস্তফা কাঞ্চন, পরিমল কান্তি চৌধুরী, এম আর দে এফসিএ, সামশুল আলম চৌধুরী, আবু বকর চৌধুরী, খায়রুল ইসলাম খান, আবুল বশর, নোয়েল জি. ম্যান্ডিস, ইঞ্জিনিয়ার আবুল কাশেম, প্রদীপ পাল এফসিএ. ডা. সরফরাজ খান চৌধুরী, লিয়াকত আলী খান, সমশের তসলিম, মোহা. মানিক বাবলু, মো. শাহ্ আলম, মোহাম্মদ খান, মো. মোরশেদ, মির্জা শওকত আলী চৌধুরী (মামুন), মো. রেজাউল হায়দার (রিজু), মোহাম্মদ ছৈয়দ, মো. শাহ্জাহান, মো. আবু তাহের, ডা. শ্রীপ্রকাশ বিশ্বাস, মো. শফি, সিরাজুল হক আনসারী, অশোক কুমার সাহা, অ্যাডভোকেট আবুল কাশেম চৌধুরী, ডা. শেখ মো. শফিউল আজম, মো. মফিজুর রহমান, ইঞ্জিনিয়ার বিজয় কৃষাণ চৌধুরী, জাহেদুল ইসলাম (মিরাজ), অ্যাডভোকেট মনতোষ বড়ুয়া, অঞ্জন শেখর দাশ, শেখ মোহাম্মদ ইয়াকুব, ডা. ভাগ্যধন বড়ুয়া, ডা. ইমাম হোসেন রানা, ডা. রেজাউল করিম, মো. মুহিতুল আলম, মো. রফিকুল আলম, মো. ছগির চৌধুরী, অমর কৃষ্ণ ভট্টচার্য্য, শহিদুল আনাম চৌধুরী, আমিনুল ইসলাম, পান্না লাল সেনগুপ্ত, ডা. সেলিম, জাহাঙ্গীর খালেদ, খালেদ এস. আহম্মদ সান্টু, মোঃ এয়াকুব চৌধুরী, মো. মুছা, সিরাজুল ইসলাম, সৌরিন দত্ত, অশেষ কুমার উকিল, আবছার মিয়া, মোশারফ্ফ হোসেন মিন্টু, ডা. জসিম উদ্দিন, মোহাম্মদ ফজলুল করিম ভূঁইয়া (টিপু), মোরশেদুল আনোয়ার চৌধুরী, ডা. নাছির উদ্দিন মাহমুদ, সালাউদ্দিন আহম্মদ, ডা. নেজাম উদ্দিন প্রমুখ। সম্মানিত অতিথিদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন হাসিনা মহিউদ্দিন ও বোরহানুল হাসান চৌধুরী সালেহীন এবং তাঁদের পরিবারবর্গ। পরে মনোমুগ্ধকর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়। সেসাথে ছিল নৈশভোজ। সাংস্কৃতিক সন্ধ্যায় গান পরিবেশন করেন শিল্পীবৃন্দ হাসান, বৃষ্টি, রেখা ও সুপ্রিয়া। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের পৃষ্ঠপোষকতা করেন ক্লাবের সদস্য এম এ তাহের। অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করেন লুবাবা ফেরদৌসী সায়কা। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন কমপ্লেক্স করবে চিটাগং খুলশী ক্লাব
১৫ ফেব্রুয়ারী,শুক্রবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: দি চিটাগাং খুলশী ক্লাব লিমিটেডের ৫ম বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টা থেকে ৬টা পর্যন্ত নগরীর ফয়স লেকস্থ নিজস্ব জায়গায় এ সভার আয়োজন করা হয়। এবারের সাধারণ সভায় কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এর মধ্যে অন্যতম ছিল খুলশী ক্লাব কমপ্লেক্স স্থাপন করে ক্লাব সদস্যদের জন্য বিভিন্ন সুযোগ সুবিধার ব্যবস্থা করা। তার মধ্যে কনভেনশন হল, সুইমিংপুল, বার, স্পোর্টস জোন এবং একটি উন্নতমানের রেস্টুরেন্ট করা। এ সময় গত অর্থ বছরের সকল আয় ব্যয়ের হিসেব সম্পন্ন করা হয়। সাধারণ সভায় নতুন সদস্য অন্তর্ভুক্তির বিষয়টি আলোকপাত করা হয়। ক্লাব উন্নয়নের জন্য সর্বসম্মতি ক্রমে ১২শ থেকে ১৩শ নতুন সদস্য নেয়ার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হয়। এর আগে ক্লাবের বার্ষিক প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা ভাইস প্রেসিডেন্ট রফিক উদ্দিন বাবুল ভূঁইয়া। এ সময় তিনি ক্লাবের ভবিষ্যত উন্নয়ন কর্মপরিকল্পনা তুলে ধরেন। পরে প্রতিষ্ঠাতা প্রেসিডেন্ট নিয়াজ মোর্শেদ এলিটের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন মিজানুর রহমান মজুমদার, আর্কিটেক্ট আলী আহসান মো. মুজাহিদ বেগ, কার্যনির্বাহী ও আপ্যায়ন কমিটির সদস্য আবু হাসনাত চৌধুরী প্রমুখ। হিমাদ্রী রাহার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত বার্ষিক সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, অবসরপ্রাপ্ত কমোডর শওকত ইমরান, ওয়াহিদা মাসুক, হোসনে আরা নাজ, ওয়াহিদুজ্জামান বাবু, জাকির হোসেন, জসিম উদ্দিন আহমেদ, হোসাইন মো. শোয়াইব, আনোয়ার সাজ্জাদ লিপন, রাইসুল উদ্দিন, জাহাঙ্গীর আলম, শিহাব মালেক, মিজানুর রহমান, এমদাদুল হক চৌধুরী, আলমাস শিমুল, আবু সাদাত মো. ফয়সাল, হাসনাত চৌধুরী প্রমুখ।-প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
পাথরঘাটা চসিক কলেজের নবনির্মিত ভবন উদ্বোধন
১২ ফেব্রুয়ারী,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: পাথরঘাটা সিটি কর্পোরেশন মহাবিদ্যালয়ের নবনির্মিত ভবনের উদ্বোধন করা হয়েছে। সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন ফলক উন্মোচনের মাধ্যমে এ ভবনের উদ্বোধন করেন। শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের অর্থায়নে পাথরঘাটা সিটি কর্পোরেশন মহাবিদ্যালয়ের এ ভবন নির্মিত হয়। ৫ তলা বিশিষ্ট ৩৩ শত বর্গফুট বিশিষ্ট এই একাডেমিক ভবন নির্মাণে ব্যয় হয় ৩ কোটি ২০ লক্ষ টাকা। এতে সমৃদ্ধ আইসিটি সুবিধাসহ ক্লাসরুম স্বতন্ত্র ফিজিঙ, ক্যামিস্ট্রি, বায়োলজি, কম্পিউটার ল্যাব, লাইব্রেরী, মাল্টিপারপাস হল রুম, গালর্স কমন রুম, মেডিকেল রুম, মিটিং রুম, শিক্ষক রুম, টিচার্স কমন রুম, এডমিশন ও একাউন্ট সেকশন, ক্যান্টিন ও বাথরুম ব্লক রয়েছে। গতকাল সোমবার ভবন উদ্বোধন উপলক্ষে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিটি মেয়র বলেন, ঝরেপড়া শিক্ষার্থী রোধে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন তাঁর শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রতি বছর প্রায় সাত হাজার শিক্ষার্থীকে বিনা বেতনে পড়ার সুযোগ দিচ্ছে। বর্তমান সরকারের ২০২১ ও ২০৪১ রূপকল্প বাস্তবায়নে শিক্ষার্থীদের সৃজনশীল, সৃস্টিশীল, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সমৃদ্ধ বিশ্বমানের নাগরিক গড়ে তোলাই এর উদ্দেশ্য। নগরে সরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আছে মাত্র ৯টি। এই সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়ম বহির্ভুত কোনো শিক্ষার্থী ভর্তি হওয়ার সুযোগ নেই । ভর্তি হতে না পারলে একজন শিক্ষার্থী শিক্ষা জীবন থেকে ঝরেপড়ার সম্ভাবনা থাকে। সেই ক্ষেত্রে শিক্ষার আলোকবর্তিকা নিয়ে এগিয়ে এসেছে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন। বর্তমানে এই প্রতিষ্ঠানটি প্রায় ৯০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করছে। এই সমস্ত প্রতিষ্ঠানে প্রায় ৬০ হাজার শিক্ষার্র্থী লেখাপড়ার সুযোগ পাচ্ছে। মেয়র বলেন, সরকারের বই বিতরণ কার্যক্রম ঝরে পড়া রোধে একটি বিরাট সাফল্য। আগে বাবা-মা কবে বই কিনে দেবে, সেজন্য শিক্ষার্থীদের স্কুলে যাওয়ায় বিলম্ব হতো। আর এখন বছরে প্রথম দিনেই সব শিক্ষার্থী বই পাচ্ছে। বইয়ের জন্য এখন আর চিন্তা করতে হচ্ছে না। শিক্ষার্থী ঝরেপড়া রোধে এখন প্রয়োজন শিক্ষক, অভিভাবক ও স্কুল পরিচালনা পর্ষদের আন্তরিকতা। শিক্ষকগণ যথাসময়ে বিদ্যালয়ে উপস্থিত হন, পাঠ পরিকল্পনা ও উপকরণ নিয়ে শ্রেণিকক্ষে যান এবং আকর্ষণীয়ভাবে পাঠদান করেন তাহলে শিক্ষার্থী ঝরে পড়া অনেকাংশে কমে যাবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। মেয়র বলেন, আলোকিত সমাজ গড়তে শিক্ষার কোন বিকল্প নেই। শিক্ষিত জাতি গঠনে রাষ্ট্রের পাশাপাশি শিক্ষক সমাজসহ অভিভাবকদের ভূমিকাও গুরুত্বপূর্ণ। প্রত্যেক অভিভাবক চান, তাদের সন্তান সুশিক্ষায় শিক্ষিত হোক। দেশ ও সমাজের কল্যাণে ভূমিকা রাখুক। জাতির এই প্রত্যাশা পূরণে ছাত্র শিক্ষক ও অভিভাবকের সম্মিলিত প্রয়াস প্রয়োজন। কাউন্সিলর মো. ইসমাইল বালীর সভাপতিত্বে সভায় কাউন্সিলর লুৎফুনন্নেছা দোভাষ বেবী, চসিকের প্রধান শিক্ষা কর্মকর্তা সুমন বড়ুয়া, মো. জালাল উদ্দিন ইকবাল, পরিচালনা পর্ষদ সদস্য ফজলে আজিজ বাবুল বিশেষ অতিথি ছিলেন। অনুষ্ঠানে কলেজের অধ্যক্ষ মো. ফরহাদুর রহমান চৌধুরী শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন। এসময় সফিকুর রহমান সিকদার, আবছার আহমদ, আশফাক আহমদ, আনিসুল হক, পুলক খাস্তগীর, সুমন, প্রকৌশলী মো. দিলদার হোসেন ও রবীন্দ্র-নজরুল একাডেমীর অধ্যক্ষ উপস্থিত ছিলেন। ভবন উদ্বোধন শেষে দেশ জাতির সমৃদ্ধি কামনায় বিশেষ দোয়া ও মুনাজাত করা হয়। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
চট্টগ্রাম সাংস্কৃতিক পরিষদের মিলন মেলা
১২ ফেব্রুয়ারী,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম সাংস্কৃতিক পরিষদের সদস্যদের মিলনমেলা সম্পন্ন হয়েছে। কর্ণফুলী পেপার মিলস্থ অডিটরিয়ামে মিলনমেলা উপলক্ষ্যে বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করা হয়েছে। গত ৮ ফেব্রুয়ারি মিলন মেলা উপলক্ষ্যে পেপার মিলের মতিউর রহমান মঞ্চে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন পরিষদের সভাপতি এসএম ফরিদুল হক। পরিষদের সাধারণ সম্পাদক শহীদ ফারুকীর সঞ্চলনায় অনুষ্ঠানে সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে স্ব স্ব ক্ষেত্রে অবদানের জন্য গুণীদের পরিষদের মনোগ্রাম খচিত ক্রেস্ট দিয়ে সংবর্ধিত করা হয়। সংবর্ধিতরা হলেন, নুরুল ইসলাম নুরু, উত্তম কুমার আচার্য্য, চিত্রনায়ক রোকন, এসএম. ফরিদুল হক, এসজিএস জহির উদ্দিন, মহসিন চৌধুরী, সরোজ আহমেদ, মোহাম্মদ আনিসুর রহমান, বিশ্বজিৎ পাল, মিজানুর রহমান চৌধুরী বাবু, সাহাব উদ্দিন রাশেদ, সাইফ আজাদ, শাকিল আরাফাত। বক্তব্য দেন, পরিষদের কর্মকর্তা ও সংবর্ধিত গুণীজনরা। এরপর পরিষদের সদস্য বেতার টেলিভিশনের নিয়মিত শিল্পীরা সংগীত পরিবেশন করেন। এর আগে পরিষদের পুরুষ ও মহিলা সদস্যদের চেয়ার খেলা প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। শেষে র;্যাফেল ড্রয়ে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘটে। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
চট্টগ্রাম উইম্যান চেম্বারের বসন্ত মেলা ২৪ ফেব্রুয়ারি শুরু
১২ ফেব্রুয়ারী,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: আগামী ২৪ ফেব্রুয়ারি থেকে চট্টগ্রাম উইম্যান চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির উদ্যোগে আগ্রাবাদস্থ উইম্যান চেম্বারের সেমিনার হল ও চেম্বার আঙিনায় আয়োজন করা হচ্ছে ৩ দিনব্যাপী বসন্ত মেলা। মেলা আয়োজন উপলক্ষ্যে গতকাল সোমবার চট্টগ্রাম উইম্যান চেম্বার কার্যালয়ে সভা অনুষ্ঠিত হয়। চট্টগ্রাম উইম্যান চেম্বারের সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট আবিদা মোস্তফার সভাপতিত্বে সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন, চট্টগ্রাম উইম্যান চেম্বারের সদস্য সাবিহা নাহার বেগম এমপি। বিশেষ অতিথি ছিলেন মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী হাসিনা মহিউদ্দিন। মেলা আয়োজনের বিভিন্ন দিক তুলে ধরে বক্তব্য দেন, মেলা কমিটির চেয়ারপার্সন ও চট্টগ্রাম উইম্যান চেম্বারের পরিচালক রেবেকা নাসরিন। সভায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম উইম্যান চেম্বারের ভাইস প্রেসিডেন্ট জেসমিন আক্তার, পরিচালক কাজী তুহিনা আক্তার, নিশাত ইমরান, নূজহাত নূয়েরী কৃষ্টি, আমেনা ইসলাম কচি, রোজিনা আক্তার লিপি, মোস্তারী মোর্শেদ স্মৃতি প্রমুখ। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
মানব সেবার মানসিকতা নিয়ে কাজ করতে হবে : লতিফ
১১ ফেব্রুয়ারী ,সোমবার,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম : স্বাধীনতা আন্ত:জেলা ঐক্য পরিষদের অঞ্চল ভিত্তিক কমিটি গঠনকল্পে মতবিনিময় সভা গত ৯ ফেব্রুয়ারি ইপিজেডস্থ আন্তঃজেলা ঐক্য পরিষদ প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন স্বাধীনতা আন্তঃজেলা ঐক্য পরিষদের চেয়ারম্যান এম এ লতিফ এম পি। স্বাধীনতা আন্তঃজেলা ঐক্য পরিষদের উপদেষ্টা ও চট্টগ্রাম লবণ শ্রমিক লীগের সভাপতি আব্দুল মতিন মাস্টারের সভাপতিত্বে ও যুগ্ম আহ্বায়ক আমিনুল হক শাহীনের সঞ্চালনায় এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগের শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক মাহাবুবুল হক মিয়া, ৩৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর গোলাম মোহাম্মদ চৌধুরী, ইপিজেড থানা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক হাজী হারুন অর রশিদ, ৩৮ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী শফিউল আলম, সাবেক কাউন্সিলর হাজী আসলাম, ইমতিয়াজ মেম্বার, আওয়ামী লীগ নেতা জাহেদুল ইসলাম মিন্টু, মোহাম্মদ সোহেল, ৪০নং ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি নজরুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ সালাউদ্দিন, ৪১নং ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি মাইনুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক জামাল উদ্দীন রাজু। বক্তব্য রাখেন স্বাধীনতা আন্ত:জেলা ঐক্য পরিষদের আহ্বায়ক মোস্তাফিজুর রহমান, যুগ্ম আহ্বায়ক মো: খবির উদ্দীন মাষ্টার, মো: শফিকুল ইসলাম, ফজলুল সরকার, হায়দার আলী, মো: নিজাম খান, পরিচালক আরিফুর রহমান সোহাগ, ফারুক আহমেদ ঢালি, শহিদুল ইসলাম লিটন, এস এম শাহজাহান, সদস্য সচিব মনিরুজ্জামান সরদার, সদস্য কাঞ্চন মোল্লা, আবু সাঈদ, মঞ্জুরুল আলম মঞ্জু। এম.পি লতিফ বলেন, চট্টগ্রামে বসবাসরত ৬৩ জেলার সমপ্রীতি ও ভ্রাতৃত্বের সংগঠন স্বাধীনতা আন্ত:জেলা ঐক্য পরিষদ। এ সংগঠনের মূল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য মানুষের সেবায় কল্যাণমূলক কাজ করা। মানব সেবার মানসিকতা নিয়ে কাজ করা সংগঠনের মূল কার্যক্রম। সংগঠনের সদস্যরা সাংগঠনিক দক্ষতা দিয়ে সেবামূলক উক্ত প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে মানবসেবার সুযোগ গ্রহণ করবেন। ৩৮নং ওয়ার্ড ও ৩৯নং ওয়ার্ডের অঞ্চলভিত্তিক কমিটি গঠন প্রকল্পে উক্ত সভায় সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। অনুষ্ঠান শেষে ফজলুল সরকারের উপস্থাপনায় লোকজ সংস্কৃতির অংশ পালা ও কবি গান পরিবেশন করেন ঢাকা থেকে আগত বাউল শিল্পী কল্পনা সরকার ও অন্যান্য শিল্পীবৃন্দ। প্রেস বিজ্ঞপ্তি

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর