শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২০
সাংবাদিকরা রাষ্ট্র ও সমাজের চোখ- পটিয়ার নবাগত ইউএনও ফয়সল
২১আগস্ট,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: পটিয়ার নবাগত ইউএনও ফয়সল আহমদ জুয়েল বলেছেন, সততা,নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার সাথে দায়িত্ব পালনের অঙ্গীকার নিয়ে সিভিল সার্ভিসে যোগ দিয়েছি। পটিয়ায় দায়িত্ব পালন কালে তার ব্যত্যয় হবেনা। তিনি মঙ্গলবার তার অফিসে পটিয়ায় কর্মরত গণমাধ্যম কর্মীদের সাথে এক সৌজন্য সাক্ষাৎ ও মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখছিলেন। তিনি বলেন, সাংবাদিকরা রাষ্ট্র ও সমাজের চোখ। তাদের মাধ্যমে যুগে যুগে সমাজ পরিবর্তন হয়েছে। সমাজের অসঙ্গতি তুলে ধরে তারা সমাজকে সচেতন করেন। তিনি পটিয়ায় দায়িত্ব পালন কালে গণমাধ্যম কর্মীদের সহযোগিতা প্রত্যাশা করে বলেন, পটিয়ার ঐতিহ্য ও উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রাখা হবে। তিনি বৈশ্বিক দুর্যোগ করোনা মোকাবেলায় সচেতনভাবে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলার আহবান জানান। মতবিনিময় সভায় পূর্বকোণ ও ইত্তেফাকের প্রতিনিধি হারুনুর রশিদ সিদ্দিকী, দ্যা ডেইলি অবজারভার ও পটিয়া নিউজ.নেট সাংবাদিক এ,টি,এম,তোহা, চট্টগ্রাম মঞ্চ ও ৭১ বাংলার সাংবাদিক আবদুল হাকিম রানা, ভোরের কাগজের এসএম জাহাঙ্গীর, ইনকিলাবের নুর হোসেন, জনকণ্ঠ ও সুপ্রভাত বাংলাদেশের বিকাশ চৌধুরী, নুরুল ইসলাম, আজাদীর শফিউল আজম, পূর্বদেশ ও যুগান্তরের আবেদুজ্জামান আমিরী, নয়া দিগন্তের এস এম রহমান, দৈনিক জনতার সেলিম চৌধুরী, বৈশাখী টিভির রবিউল আলম ছোটন, মানব কণ্ঠের মহিউদ্দিন, ভোরের ডাকের সঞ্জয় সেন প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন। সাংবাদিকরা নবাগত ইউএনও ফয়সল আহমদ জুয়েলকে বলেন, যতদিন জনস্বার্থে কাজ করবেন ততদিন সার্বিক সহযোগিতা পাবেন। কেউ যাতে অযথা হয়রানি না হয়, দুর্নীতি না করে সে ব্যাপারে প্রশাসনকে সতর্ক থাকতে হবে। সাংবাদিকদের প্রয়োজনীয় তথ্য প্রদান করার পরামর্শ দিয়ে তারা বলেন,পটিয়ার উন্নয়নের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে অতীতের মত নবাগত ইউএনওকেও সার্বিক সহযোগিতা করা হবে।- পটিয়া নিউজ
গ্রেনেড হামলায় নিহতদের স্মরণে আলোচনা সভা
২১আগস্ট,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: ২১ আগস্ট নিহতদের স্মরণে বিনামূল্যে চিকিৎসা ক্যাম্প এবং আলোচনা সভা করেছে সরাইপাড়া ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ। শুক্রবার (২১ আগস্ট) অনুষ্ঠিত এই সভায় সভাপতিত্ব করেন, ১২নং সরাইপাড়া ওয়ার্ডের কাউন্সিল পদপ্রার্থী নুরুল আমিন। প্রধান অতিথি ছিলেন, সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী রেজাউল করিম চৌধুরী। এ সময় উপস্থিত ছিলেন নগর আওয়ামী লীগের উপ-দফতর সম্পাদক জহর লাল হাজারী, শওকত আলী, এবিএম লুৎফুর হক খুশি, নুরুল ইসলাম, আমিনুল হক সওদাগর, বদিরুল হক কোম্পানি, আলমগীর আলম, মুজিবুর রহমান মুজিব, আলী হোসেন, আবু তৈয়ব খান, আলী আকবর, ফোরকান রানা, নোয়াব আলী, মো. ফারুক। এম শাহজাহান সাজু, মো. সাইফুল, নুরুল আলম, ইব্রাহীম রিফাত, আবদুল হালিম, মো. আশ্রাদ, মো. এমরান হোসেন, নুরুল আজিম, তাজুল ইসলাম, নুরুদ্দিন রাশেদ, হোসেন মারজুক জুয়েল, আব্দুল হান্নান ফরমান, আবদুল কাদের সূজন, মো. ইমন হোসেন, ইরফান কাদরী প্রমুখ কর্মসূচিতে অংশ নেন। চিকিৎসা সেবা প্রদান করেন- ডা. সজীব তালুকদার, ডা. রায়হান, ডা. লাকী চৌধুরী, ডা. নিতু বনিক, ডা. বিদ্যুৎ ভূষণ দাশগুপ্ত, ডা. শ্যামল সেন, ডা. মো. জহির উদ্দিন।
গ্রেনেড হামলায় নিহতদের স্মরণে প্রদীপ প্রজ্জ্বলন
২০আগস্ট,বৃহস্পতিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের পাদদেশে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের উপ-অর্থ বিষয়ক সম্পাদক ইমরান আলী মাসুদের সভাপতিত্বে ও মহানগর ছাত্রলীগের উপ-বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক নাছির উদ্দিন কুতুবীর পরিচালনায় চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের আওতাধীন কলেজ, থানা, ওয়ার্ড সমূহের উদ্যোগে আলোচনা সভা ও শহীদদের স্মরণে প্রদীপ প্রজ্জ্বলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি মিথুন মল্লিক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ওয়াহেদ রাসেল, সহ-সম্পাদক অরভিন সাবিক ইভান, ওসমান গণি, মহানগর ছাত্রলীগের সদস্য সুজয়মান বড়ুয়া জিতু, সৈকত দাশ, ফাহাদ আনিস, নেওয়াজ খান, ওমর ফারুক সুমন, শাখাওয়াত হোসেন পেয়ারু, শিবু দাশ গুপ্ত, ইফতেখার সায়ান। আরও উপস্থিত ছিলেন সনজয়ীতা দত্ত পিংকি, আফিয়া আঁখি, আফিয়া আনজুমান বৃষ্টি, সাবিহা সুলতানা রক্সি, ইশরাত জাহান, মনীষা আকতার, ও চট্টগ্রাম কমার্স কলেজ, চট্টগ্রাম কলেজ, চট্টগ্রাম আইন কলেজ, চট্টগ্রাম পলিটেনিক ইনষ্টিটিউট, বাকলিয়া সরকারি কলেজ, প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়, মহসিন কলেজ ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দগণ উপস্থিত ছিলেন।
২২ আগস্ট খুলছে চট্টগ্রামের সব বিনোদনকেন্দ্র
১৯,আগস্ট,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে দীর্ঘদিন বন্ধ থাকা চট্টগ্রামের সব বিনোদনকেন্দ্র ২২ আগস্ট থেকে খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জেলা প্রশাসন। বুধবার (১৯ আগস্ট) জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক মো. ইলিয়াস হোসেন। তিনি জানান, দর্শনার্থীদের সার্বক্ষণিক মাস্ক পরিধানসহ ১৭টি শর্তে চট্টগ্রামের সব বিনোদনকেন্দ্র খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। শর্ত মেনে ২২ তারিখ থেকে সরকারি, বেসরকারি সব বিনোদনকেন্দ্রের পাশাপাশি পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত উন্মুক্ত থাকবে। এর আগে গত ১৯ মার্চ করোনা পরিস্থিতিতে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে একটি গণবিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়। জেলা প্রশাসক মো. ইলিয়াস হোসেনের সই করা ওই গণবিজ্ঞপ্তিতে চট্টগ্রাম জেলার সব পিকনিক স্পট, বিনোদন পার্ক পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত বন্ধ রাখার নির্দেশনা দেওয়া হয়। জেলা প্রশাসনের এই নির্দেশনার পর পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত, ফয়েস লেক, চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানা, স্বাধীনতা পার্কসহ চট্টগ্রামের সরকারি, বেসরকারি সব বিনোদনকেন্দ্র বন্ধ রাখা হয়। দীর্ঘ পাঁচ মাস পর ২২ আগস্ট শনিবার থেকে এইসব বিনোদনকেন্দ্র দর্শনার্থীদের জন্য খুলে দেওয়া হচ্ছে।
পটিয়া একটি আধুনিক ও সুন্দর উপজেলায় পরিণত হবে: হুইপ সামশুল হক চৌধুরী
১৯,আগস্ট,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: জাতীয় সংসদের হুইপ আলহাজ্ব সামশুল হক চৌধুরী এমপি মঙ্গলবার পটিয়ার বিভিন্ন এলাকায় সরকারের উন্নয়ন কাজ পরিদর্শন ও উদ্বোধন করেন। এসময় সমবেত জনতার উদ্দেশ্যেে তিনি বিগত দিনে পটিয়ায় উন্নয়ন কর্মকাণ্ড তুলে ধরেন। তিনি বলেন, পটিয়া হবে দেশের উন্নয়নের মডেল। সকালে তিনি জিরি মাদ্রাসার প্রয়াত মহাপরিচালক আল্লামা শাহ মোঃ তৈয়ব এর নামে ১ কোটি ১৭ লাখ টাকায় একটি সড়কের উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন করেন। তৈয়বশাহ (রঃ) সড়কের উদ্বোধন করছেন হুইপ সামশুল হক চৌধুরী এমপি এসময় এলাকাবাসীর উদ্দেশ্যে পথসভায় বক্তৃতাকালে তিনি বলেন, গত ১২ বছরে পটিয়ায় তিন হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন করা হয়েছে। তার মধ্যে শুধুমাত্র জিরি ইউনিয়নে ৭০ কোটি টাকায় বেড়িবাঁধ, ৪৪ কোটি টাকার কৈয়গ্রাম সেতু, বড় গার্ডার সেতু, সাইক্লোন সেন্টার, প্রাথমিক বিদ্যালয়, মাধ্যমিক বিদ্যালয়, কলেজসহ বিভিন্ন রাস্তাঘাটসহ প্রায় ২ শত কোটি টাকার কাজ হয়েছে। পরে তিনি পটিয়া পৌরসভার ডাকবাংলোর উন্নয়ন কাজের অগ্রগতি সরজমিন পরিদর্শন করেন। ২ কোটি টাকা ব্যয়ে জেলা পরিষদ ডাকবাংলো আধুনিকায়ন ও সম্প্রসারনের কাজ দ্রুত শেষ করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন। পরিদর্শনকালে তাঁর সাথে উপস্থিত ছিলেন-পটিয়া উপজেলা উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আ.ক.ম সামশুজ্জামান চৌধুরী, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফয়সাল আহমেদ, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক প্রদীপ দাশ, জেলা পরিষদের সদস্য দেবব্রত দাশ দেবু, সহকারী কমিশনার (ভুমি) ইনামুল হাসান প্রমূখ আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ। তিনি পটিয়ায় উন্নয়নের ধারা অব্যহত রাখতে জননেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দলীয় কর্মী ও এলাকাবাসীকে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহবান জানান। তিনি বলেন, চলমান উন্নয়নকাজ শেষ হলে পটিয়া একটি আধুনিক ও সুন্দর উপজেলায় পরিণত হবে। পটিয়া পৌরসভা হবে আধুনিক শহর। গ্রাম হবে শহর প্রধানমন্ত্রীর এই নির্বাচনীী প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে গ্রামীন রাস্তায় বসানো হয়েছে নিয়নবাতি, সুপেয় পানি সরবরাহ করা হয়েছে। তিনি তাঁর উপর আস্থা রাখায় পটিয়াবাসীকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, আপনারা আমাকে একটানা তিনবার বিজয়ী করেছেন, আগামীতেও পটিয়ার উন্নয়নেে আমি আপনাদের সহযোগিতা ও সমর্থন প্রত্যাশা করি।- পটিয়া নিউজ
চট্টগ্রামের সংসদ সদস্য এবিএম ফজলে করিম করোনায় আক্রান্ত
১৮,আগস্ট,মঙ্গলবার,রাউজান প্রতিনিধি,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম-৬ (রাউজান) আসনের সংসদ সদস্য এবং রেলপথ মন্ত্রণালয় বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন। করোনা সংক্রমণের উপসর্গ দেখা দেয়ায় সোমবার (১৭ আগস্ট) সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মাধ্যমে নমুনা দেন তিনি। পরে সন্ধ্যায় পাওয়া নমুনা পরীক্ষার ফলাফলে তার করোনাভাইরাস পজিটিভ আসে। করোনা আক্রান্তের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সংসদ সদস্য এবিএম ফজলে করিম চৌধুরীর ব্যক্তিগত সহকারী সুমন দে। তিনি বলেন, এমপি স্যার শারীরিকভাবে সুস্থ আছেন। তার সামান্য সর্দি ছিল। সোমবার সকালে নমুনা পরীক্ষার জন্য দিয়েছিলেন। সন্ধ্যায় পাওয়া রিপোর্টে তার পজিটিভি আসে। তিনি এখন তার শহরের বাসায় আইসোলেশনে রয়েছেন। উল্লেখ্য, ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে উপজেলা প্রশাসন ও উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভা ও অসহায়দের মধ্যে খাবার বিতরণসহ বিভিন্ন কর্মসূচিতে অংশ নিয়েছিলেন তিনি।
পটিয়া থেকে ধরে নিয়ে চকরিয়ায় হত্যা; ওসির বিরুদ্ধে মামলা
১৭আগস্ট,সোমবার,পটিয়া প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: এক থানার পুলিশ অন্য থানায় অভিযান চালাতে গেলে সংশ্লিষ্ট থানার সহযোগিতা বা অবহিত করার নিয়ম থাকলেও কক্সবাজার জেলার চকরিয়া থানার পুলিশ পটিয়া থানা এলাকা থেকে কথিত আসামি ধরে নিয়ে গেলেও জানায়নি পটিয়া থানাকে। এমনটাই জানালেন পটিয়া থানার ওসি বোরহান উদ্দিন । এমনকি আসামী ধরার পর পটিয়া থানায় ধৃত আসামির অতীত বা বর্তমান অপরাধের কোন রেকর্ডও জানতে চায়নি চকোরিয়া থানা। এমন পরিস্থিতিতে পটিয়ার মো. জাফর (৩৫) নামের এক প্রবাসীকে তুলে নিয়ে ক্রসফায়ার দেয়ার অভিযোগে চকরিয়া থানার ওসিসহ দুই পুলিশের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা হয়েছে। গতকাল রোববার সকালে পটিয়ার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট বিশ্বেস্বর সিংহের আদালতে মামলাটি দায়ের করেন প্রবাসী জাফরের মামা বোয়ালখালীর বাসিন্দা মুক্তিযোদ্ধা আহমদ নবী। শুনানি শেষে বিচারক মামলাটি আমলে নিয়ে চট্টগ্রামের সিআইডি পুলিশকে তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন। গত ২৯ জুলাই সকালে পটিয়ার কচুয়াই এলাকাস্থ নিজ বাড়ি থেকে তাঁকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। ৩১ জুলাই রাতে প্রবাসী জাফরকে ক্রসফায়ারে হত্যা করা হয় বলে মামলার আরজিতে উল্লেখ করা হয়। চকরিয়ার হারবাং পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ আমিনুল ইসলাম ও চকরিয়া থানার ওসি মো. হাবিবুর রহমানসহ অজ্ঞাতনামা ১০/১৫জন পুলিশের বিরুদ্ধে উক্ত মামলাটি করা হয়। আদালত সূত্রে জানা গেছে, পটিয়া উপজেলার কচুয়াই ইউনিয়নের কথা মৌজা গ্রামের মো. আবদুল আজিজের পুত্র মো. জাফর দীর্ঘদিন ধরে ওমানে প্রবাসে ছিলেন। দেশে করোনা ভাইরাস শুরুর আগে ওমান থেকে জাফর দেশে ফিরেন। কিন্তু লকডাউনের কারণে জাফর আর বিদেশে যেতে পারেননি। গত ২৯ জুলাই রাতে ওমান প্রবাসী জাফরকে পটিয়ার বাড়ি থেকে সাদা পোষাকধারীরা নিজেদের উল্লেখিত থানা ও ফাঁড়ির পুলিশ পরিচয় দিয়ে তুলে নিয়ে যান। পরবর্তীতে ক্রসফায়ারের ভয় দেখিয়ে প্রবাসীর কাছ থেকে হারবাং পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ আমিনুল ইসলাম ৫০ লাখ টাকা দাবি করেন। কিন্তু প্রবাসীর পরিবার ওই টাকা দিতে পারেননি। ফলে ২ দিন পর প্রবাসীর পরিবারের কাছে চকরিয়া থানা পুলিশ ফোন করে জাফরের লাশ নিয়ে যাওয়ার জন্য সংবাদ দেয়। প্রবাসীর পরিবার ও আত্মীয়-স্বজন চকরিয়া থানা থেকে লাশ গ্রহণ করে গত ৩১ জুলাই পটিয়ায় গ্রামের বাড়িতে দাফন করেন। মামলার বাদী পক্ষের আইনজীবি নূর মিয়া জানিয়েছেন, ক্রসফায়ারের নামে ওমান প্রবাসীকে চকরিয়ায় নিয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে পরিবারের দাবি। প্রবাসী জাফরের মামা বাদী হয়ে আদালতে মামলাটি করেন। এ মামলায় সাক্ষী রয়েছেন ৯ জন। এবিষয়ে জানতে চকরিয়া থানার ওসি মো. হাবিববুর রহমানকে একাধিকবার তাঁর মুঠোফোনে ফোন করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।সূত্র: পটিয়া নিউজ
জঙ্গিদের নেটওয়ার্ক ভেঙে দিয়েছে আ. লীগ সরকার: তথ্যমন্ত্রী
১৭আগস্ট,সোমবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার ক্ষমতায় থাকাকালীন বিভিন্নভাবে জঙ্গিদের আশ্রয়-প্রশ্রয় দিয়েছে। এখনো দিচ্ছে। জঙ্গিরা এখনো তাদের জোটে রয়েছে। রাজনৈতিক আশ্রয়-প্রশ্রয় না পেলে জঙ্গি দমন পুরোপুরিভাবে সম্ভব হতো। সোমবার (১৭ আগস্ট) চট্টগ্রামের ইম্পেরিয়াল হাসপাতালের কোভিড ব্লক উদ্বোধনকালে ২০০৫ সালের দেশব্যাপী সিরিজ বোমা হামলার বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী এসব কথা বলেন। তথ্যমন্ত্রী বলেন, ২০০৫ সালের ক্ষমতাসীন সরকারের সমর্থনে জঙ্গিরা দেশব্যাপী শাখা-প্রশাখা বিস্তার করেছিলো। শক্তি অর্জন করেছিলো। সে শক্তির মহড়া তারা দিয়েছে ২০০৫ সালের আজকের দিনে ৬৩ জেলায় একযোগে বোমা হামলা করে। এর মাধ্যমে সারা বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি মারাত্মকভাবে ক্ষুন্ন হয়েছে। তিনি বলেন, ক্ষমতায় আসার পর থেকেই বর্তমান সরকার জঙ্গি দমনে সচেষ্ট রয়েছে। বিভিন্ন সময় জঙ্গিদের আটক করা হচ্ছে। তাদের নেটওয়ার্ক ভেঙ্গে দেওয়া হয়েছে। তবে পুরোপুরি নির্মুল করা যায়নি। এখনো সুযোগ পেলে তারা মাথাচড়া দিয়ে ওঠে। ড. হাছান মাহমুদ বলেন, কোভিড শুরুর দিকে চট্টগ্রামে চিকিৎসা ব্যবস্থায় কিছুটা সংকট থাকলেও এখন সংকট পুরোপুরি কেটে গেছে। সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান এগিয়ে আসায় কোভিড চিকিৎসা সহজতর হয়েছে। বর্তমানে আইসিইউ বেড ও কোভিডের জেনারেল বেড অর্ধেকের মতো খালি রয়েছে। চট্টগ্রামে বিশ্বমানের চিকিৎসাকেন্দ্র চালু করায় ইম্পেরিয়াল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ দিয়ে মন্ত্রী বলেন, এ হাসপাতাল চালু হওয়ায় রোগীদের বিদেশ গমনের প্রবণতা কমে আসবে। ফলে দেশের টাকা দেশে থাকবে। দেশের অর্থনৈতিক ব্যবস্থা আরও শক্তিশালী হবে। মন্ত্রী বলেন, ইম্পেরিয়াল হাসপাতাল নির্মাণের জন্য বর্তমান সরকার ন্যুনতম দামে জমি দান করেছে। পাশাপাশি পরামর্শসহ অন্যান্য সমর্থন দিয়ে যাচ্ছে। সম্পূর্ণ মানবসেবার উদ্দেশ্যে নির্মিত এ হাসপাতাল তাদের অঙ্গীকার অটুট রাখবে বলে আমি আশা করি। অনুষ্ঠানে দৈনিক আজাদী সম্পাদক ও ইম্পেরিয়াল হাসপাতালের বোর্ড অব ডাইরেক্টর্স সদস্য এম এ মালেক, বোর্ড সদস্য ডা. রবিউল হোসেন বক্তব্য দেন। এর আগে তথ্যমন্ত্রী ইম্পেরিয়াল হাসপাতালের কোভিড ব্লক উদ্বোধন ও পরিদর্শন করেন। কোভিড চিকিৎসায় চট্টগ্রামে প্রথমদিকে যে কয়টি বেসরকারি হাসপাতাল এগিয়ে আসে ইম্পেরিয়াল হাসপাতাল তাদের অন্যতম। এখানে ৫০ শয্যার কোভিড ডেডিকেটেড ইউনিট রয়েছে। এর ১৭ শয্যা আইসিইউ ও এইচডিইউর জন্য সংরক্ষিত। অপেক্ষাকৃত কম জটিল রোগীদের জন্য ১৭টি কেবিন রয়েছে। সংক্রমণ রোধের জন্য আলাদা বহিঃবিভাগ, ল্যাবরেটরি, এক্সরে প্রভৃতির ব্যবস্থা রয়েছে। এছাড়া সাধারণ রোগীদের চিকিৎসা সেবা যথারীতি চালু রয়েছে।
প্রতিবন্ধীদের ঘর-দোকান উপহার ফারাজ করিমের
১৭আগস্ট,সোমবার,রাউজান প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: রাউজানের সংসদ সদস্য এ বি এম ফজলে করিম চৌধুরী ফাউন্ডেশনের ব্যবস্থাপনায় ও তরুণ রাজনীতিক ফারাজ করিম চৌধুরীর উদ্যোগে ৫ প্রতিবন্ধী ও দিনমজুরকে সেমিপাকা বাড়ি ও মালামালসহ দোকান উপহার দেওয়া হয়েছে। জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে রোববার (১৬ আগস্ট) বিকেলে এসব ঘর ও দোকান হস্তান্তর করেন ফারাজ করিম চৌধুরী। রাউজান পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের জলদাশ পাড়ার সবুজ জলদাশ ও মুহাম্মদ মহিউদ্দিনকে সেমিপাকা ঘর নির্মাণ করে দেওয়া হয়। এছাড়া ফকির হাট বাজারে সেকান্দর হোসেনকে সবজির দোকান, হাসান খীল এলাকার জামাল উদ্দিন ও পটিয়া পাড়া এলাকার আনোয়ার হোসেন পলাশকে মুদির দোকান তৈরি করে দেওয়া হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন- রাউজান উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সদস্য এস এ এম হোসাইন, রাউজান পৌরসভার প্যনেল মেয়র ও উপজেলা যুবলীগ সভাপতি জমির উদ্দিন পারভেজ, রাউজান উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জানে আলম জনি, ডাবুয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুর রহমান চৌধুরী, চিকদাইর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রিয়তোষ চৌধুরী। উপস্থিত ছিলেন- সুমন দে, জাহাঙ্গীর আলম, সাইফুদ্দিন চৌধুরী, জিল্লুর রহমান মাসুদ, সাখাওয়াত হোসেন চৌধুরী পিবলু, বদরুল হায়দার চৌধুরী হারু, নুরুল আবছার, মৃদুল দাশ গুপ্ত, সিরাজুল মুনির শাওন, সাবের হোসেন, মো. আসিফ, আরমান সিকদার, ফয়সাল মাহমুদ, মো. সাইদুল ইসলাম, ইমতিয়াজ জামাল নকিব, মইনুদ্দিন জামাল চিশতী, লিটন দেবনাথ, মোহাম্মদ এরশাদ, আজাদ হোসেন সিকদার, সাজ্জাদ মাহমুদ, নাসির উদ্দিন প্রমুখ।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর