২৩ বছরে এটিএন বাংলা নানা আয়োজনে পালন
১৬জুলাই২০১৯,মঙ্গলবার,নিউজ একাত্তর ডট কম: নানা শ্রেণি পেশার মানুষের ফুলেল শুভেচ্ছা আর ভালোবাসায় গতকাল সোমবার ২৩ বছরে পদার্পণ করলো দেশের প্রথম স্যাটেলাইট টিভি চ্যানেল এটিএন বাংলা। এ উপলক্ষে চট্টগ্রামে আয়োজন করা হয় কোরানখানি, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল। এটিএন বাংলার চট্টগ্রাম স্টুডিওতে কেক কেটে বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠানের সুচনা করেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন, সিডিএর চেয়ারম্যান মো. জহিরুল আলম দোভাষ। বিশেষ অতিথি ছিলেন, ভারপ্রাপ্ত বিভাগীয় কমিশনার মো. নূরুল আলম নিজামী। প্রেসক্লাব ভবনে এটিএন বাংলার চট্টগ্রাম অফিসে অতিথিদের স্বাগত জানান চট্টগ্রাম বিভাগীয় প্রধান আলী আব্বাস। এটিএন বাংলার সিনিয়র রিপোর্টার আবুল হাসনাতের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে দক্ষিণ জেলা বিএনপি সভাপতি জাফরুল ইসলাম চৌধুরী, বিএফইউজে সহ-সভাপতি রিয়াজ হায়দার চৌধুরী, সিইউজে সভাপতি নাজিমুদ্দীন শ্যামল, সাধারণ সম্পাদক হাসান ফেরদৌস, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ, কাউন্সিলর শৈবাল দাশ সুমন, স্থপতি আশিক ইমরান, বিএফইউজের সাবেক সহ সভাপতি শহীদ উল আলম, সাংবাদিক এম নাসিরুল হক, সাংবাদিক জাহিদুল করিম কচি, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সিনিয়র সহসভাপতি ও ইত্তেফাকের বুরো প্রধান সালাহউদ্দিন মো. রেজা, বৈশাখী টিভির ব্যুরো প্রধান মহসিন চৌধুরী, পূর্বকোণের সিনিয়র সহ সম্পাদক মোরশেদ আলম, মহানগর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড সভাপতি মোজাফ্ফর আহমদ, ব্য্;সায়ী নেতা মোহাম্মদ শাহাবউদ্দিন, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে সহ সভাপতি ও এটিএন বাংলার ডেপুটি প্রধান মনজুর কাদের মঞ্জু, সিইউজের ভাইস প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ আলী, চট্টগ্রাম রিপোর্টাস ফোরামের সভাপতি কাজী আবুল মনছুর, সাধারণ সম্পাদক আলিউর রহমান, টিভি জার্নালিস্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি নাসির উদ্দিন তোতা, সাধারণ সম্পাদক লতিফা আনসারী রুনা, গাজী টিভি ব্যুরা প্রধান অনিন্দ্য টিটো, টিভি জার্নালিস্টস এসোসিয়েশনের যুগ্ম সম্পাদক মাসুদুল হক, জয় নিউজের যুগ্ম সম্পাদক বিপ্লব পার্থ সহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন। দিনভর বিভিন্ন সামাজিক ও রাজনৈতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে এটিএন বাংলাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। এর আগে এটিএন বাংলা, দেশ ও জাতির কল্যাণ কামনা করে মিলাদ ও দোয়া পরিচালনা করেন মাওলানা সদরুদ্দিন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধার পরিবারকে মুক্তি ভবন এর চাবি তুলে দিলেন মেয়র
১৫জুলাই২০১৯,সোমবার,নিউজ একাত্তর ডট কম: উত্তর কাট্টলীর মাওলানা তমিজুর রহমান বাড়ির প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ ইলিয়াছের পরিবারের নিকট নবনির্মিত ঘরের চাবি হস্তান্তর করেছেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। চসিকের অর্থায়নে এ ঘর নির্মিত হয়। এ উপলক্ষে গতকাল রোববার দুপুরে সিটি করপোরেশনের কনফারেন্স রুমে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রাণের মেলা বসে। অনুষ্ঠানে প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ ইলিয়াছের স্ত্রী মিসেস খোরশেদা বেগমের নিকট মুক্তি ভবন এর চাবি হন্তান্তর করেন মেয়র। করপোরেশন ২০১৭ সালে নগরের জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধাদের বসতভিটায় পাকা বাড়ি তৈরি করার বিশেষ উদ্যোগ নেয়। নগরীর ৫০ জন অস্বচ্ছল মুক্তিযোদ্ধার গৃহ নির্মাণের ব্যয় ধরা হয় ১৫ কোটি টাকা। এরই ধারাবাহিকতায় ১০ নম্বর উত্তর কাট্টলী ওয়ার্ডের প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ ইলিয়াছ, ৪১ নম্বর দক্ষিণ পতেঙ্গা ওয়ার্ডের মুক্তিযোদ্ধা আলাউদ্দিন, ২৫ নম্বর রামপুর ওয়ার্ডের মুক্তিযোদ্ধা আবদুস সালাম, ৩০ নম্বর পূর্ব মাদারবাড়ী ওয়ার্ডের মুক্তিযোদ্ধা নুর আহম্মদ এবং ৪ নম্বর চান্দগাঁও ওয়ার্ডের মুক্তিযোদ্ধা কুতুব উদ্দিনের গৃহ নির্মাণের কাজ শুরু করে চসিক। ইতোমধ্যে মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ ইলিয়াছের গৃহ নির্মাণের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। সাড়ে ৯শ বর্গফুট বিশিষ্ট এ মুক্তি ভবন নির্মাণ করতে চসিকের ব্যয় হয়েছে ২৬ লাখ ৫৪ হাজার টাকা। এটাই চট্টগ্রাম শহরের মুক্তিযোদ্ধাদের প্রথম মুক্তি ভবন। এতে থাকছে ২টি বেডরুম, ১টি কিচেন, ১টি ডাইনিং, ২টি টয়লেট এবং ১টি ড্রইনিং রুম। বাকি মুক্তিযোদ্ধাদের গৃহ নির্মাণ কাজ চলমান রয়েছে। চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামসুদ্দোহার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিটি মেয়র বলেন, মুক্তিযোদ্ধারা জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান। তারা দেশ স্বাধীনতার জন্য জীবন বাজি রেখে যুদ্ধ করেছেন। তাদের কারণেই আজ আমরা স্বাধীনভাবে চলার ও বলার অধিকার লাভ করেছি। জাতিকে সেই শ্রেষ্ঠ সন্তানদের ঋণ অবশ্যই শোধ করতে হবে। তাই অস্বচ্ছল মুক্তিযোদ্ধাদের গৃহ নির্মাণ করে দিয়ে তাদের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ দেখার দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছে চসিক। অনুষ্ঠানে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ মহানগর ইউনিট কমান্ডার মোজাফফর আহমদ স্বাগত বক্তব্য রাখেন। মেয়রের কাছ থেকে মুক্তি ভবনের চাবি পেয়ে যারপরনাই খুশি প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ ইলিয়াছের পরিবার। মরহুমের পুত্র হুমায়ুন মোহাম্মদ বাবর বলেন, ৪ বছর আগে আমার পিতা মারা যান। মৃত্যুকালে তিনি ২ গণ্ডার চেয়ে কম বসত ভিটে রেখে যেতে পেরেছেন। এই ভিটার উপর একটি বেড়ার ঘর ছিল। সেখানে আমি, মা ও বোন কষ্টে দিন কাটাচ্ছিলাম। মুক্তিযোদ্ধা সংসদের প্রস্তাবে সিটি করপোরেশন এই মুক্তি ভবন নির্মাণ করে দিয়েছে। এজন্য চসিক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের নিকট আমাদের পরিবার কৃতজ্ঞ। এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, চসিক প্যানেল মেয়র ড. নিছার উদ্দিন আহমেদ মঞ্জু, কাউন্সিলর সাইয়েদ গোলাম হায়দার মিন্টু, মো. জহুরুল আলম জসিম, সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর আবিদা আজাদ, সচিব আবু সাহেদ চৌধুরী, ডেপুটি কমান্ডার শহীদুল হক সৈয়দ, সহকারী কমান্ডার সাধন চন্দ্র বিশ্বাস, খোরশেদ আলম (যুদ্ধাহত), এফ এফ আকবর খান, কোতোয়ালী থানা কমান্ডার সৌরিন্দ্রনাথ সেন, আকবরশাহ থানা কমান্ডার মো. সেলিমউল্লাহ, পাহাড়তলী থানা কমান্ডার হাজী জাফর আহামদ, খুলশী থানা কমান্ডার মো. ইউসুফ, বন্দর থানা কমান্ডার কামরুল আলম, বাকলিয়া থানা কমান্ডার মো. আলী হোসেন, সদরঘাট থানা কমান্ডার মো. জাহাঙ্গীর আলম, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের সাক্ষী কাজী নুরুল আবছার প্রমুখ। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।
খুন, ধর্ষণ, মাদকের বিরুদ্ধে সীতাকুণ্ডে সমাবেশ ও মানববন্ধন
১৪জুলাই২০১৯,রবিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম:বন্ধ হোক খুন, ধর্ষণ ও মাদকের আগ্রাসন, অপরাধ করব না, অপরাধ সইব নাএ শ্লোগানে সীতাকুণ্ড প্রেসক্লাবের আয়োজনে এক মানববন্ধন গতকাল শনিবার অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধনে অংশ নেয় জন প্রতিনিধি, অর্ধ শতাধিক সংগঠনসহ সাধারণ মানুষ। বৃষ্টি উপেক্ষা করেও খুন, ধর্ষণ, মাদকের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে রাস্তায় নেমে আসে সীতাকুণ্ডের হাজারো মানুষ। সীতাকুণ্ড পৌর সদরে মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন, সীতাকুণ্ডের সাংসদ আলহাজ্ব দিদারুল আলম। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, সীতাকুণ্ডের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শম্পা রানী সাহা, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মিল্টন রায়।স্বাগত বক্তব্য রাখেন, প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি সৈয়দ ফোরকান আবু। সীতাকুণ্ড প্রেসক্লাবের সভাপতি এম সেকান্দর হোসাইনের সভাপতিত্বে এবং প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সৌমিত্র চক্রবর্তীর সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন, বাড়বকুন্ড ইউপি চেয়ারম্যান ছাদাকাত উল্লাহ মিয়াজী, সৈয়দপুর ইউপি চেয়ারম্যান তাজুল ইসলাম নিজামী, এম হেদায়েত, সীতাকুণ্ড পৌর বাজার কমিটির সাধারন সম্পাদক মো. বেলাল উদ্দিন, রনজিত সাহা, সীতাকুণ্ড বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক দিদারুল আলম, চট্টগ্রামস্থ সীতাকুণ্ড সমিতির সাধারণ সম্পাদক নাছির উদ্দিন মানিক, সীতাকুণ্ড উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক প্রদীপ ভট্টাচার্য, সীতাকুণ্ড সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক দীপক ভট্টাচার্য, সুরাঙ্গন খেলাঘর আসরের সভাপতি দেবাশিস ভট্টাচার্য, সীতাকু্ন্ড জাতীয় পার্টির সভাপতি রেজাউল করিম বাহার, মেঘমল্লার খেলাঘর আসরের সভাপতি তপন মজুমদার, সীতাকুণ্ড সাংস্কৃতিক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক আমজাদ হোসেন, বালামখানার সভাপতি নাজমুজ্জামান নাহিদ, ব্লাড ডোনেট গ্রুপের পরিচালক রুমন, নাছির উদ্দিন অনিক প্রমুখ। সাংসদ দিদারুল আলম বলেন, বর্তমান সরকার মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি হাতে নিয়েছে। ধর্ষনের বিরুদ্ধে আরও কঠোর আইন হচ্ছে। সুতরাং কোন অপরাধীই অপরাধ করে পার পাবে না।উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মিল্টন রায় বলেন, প্রেসক্লাবের এই উদ্যোগকে আমরা স্বাগত জানাচ্ছি। খুন, ধর্ষণ ও মাদকের বিরুদ্ধে আগে স্থানীয় জনগণকে সচেতন হতে হবে।অপরাধ কোথাও সংঘটিত হতে দেখলে প্রতিরোধ করতে হবে। পাশাপাশি আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও প্রশাসনকে জানাতে হবে।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
সৃষ্টিশীল ও স্মরণ রাখার মত গানের রাজা শিল্পী সুবীর নন্দী :ড. অনুপম সেন
১৩ জুলাই২০১৯,শনিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম:সৃষ্টিশীল গানের জন্য শিল্পী সুবীর নন্দী সংগীত প্রেমীদের হৃদয়ে বেঁচে থাকবেন উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, আকাশ সংস্কৃতিতে সংগীত নিয়ে বিকৃত ও অবমাননাকর সংস্কৃতি চর্চা চলছে। এ অনিয়ম থেকে দেশীয় সংগীতশিল্পী ও গীতিকারদের রুখে দাঁড়াতে হবে। তিনি বলেন, সংগীত যারা ভালোবাসেন না তারা মানুষ খুন করতেও দ্বিধাবোধ করেনা। তিনি আরো বলেন সুবীর নন্দী শুধু দেশের সম্পদ নন তিনি উপমহাদেশের সম্পদ উল্লেখ করে তিনি বলেন এদেশের শিল্পীদের শিল্পী ছিলেন সুবীর নন্দী। তাঁর গানগুলো বাংলাদেশের ইতিহাসে স্মরণীয় হয়ে থাকবে। শিল্পী সুবীর নন্দীর সৃষ্টিশীল গানগুলো সরকারিভাবে সংরক্ষণের আহ্বান জানান। চট্টগ্রাম বিনোদন সাংবাদিক সংস্থা (চবিসাস) আয়োজিত দেশবরেণ্য প্রখ্যাত সংগীতশিল্পী সুবীর নন্দীর স্মরণে শোকসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. অনুপম সেন এসব কথা বলেন। চট্টগ্রাম বিনোদন সাংবাদিক সংস্থা চবিসাস সভাপতি সাংবাদিক সৈয়দ দিদার আশরাফীর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক নাসির হোসাইন জীবনের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন- বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট চট্টগ্রাম জেলা কমিটির সভাপতি চিত্রনায়ক পংকজ বৈদ্য সুজন, বাংলাদেশ গীতিকবি সংসদ চট্টগ্রাম শাখার সভাপতি গীতিকার লিয়াকত হোসেন খোকন, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা মহিলা আওয়ামীলীগ সহ-সভাপতি সংগীতশিল্পী কল্পনা লালা, লজাস্টিস ফাউন্ডেশন চেয়ারম্যান সাংবাদিক আলী আহমেদ শাহিন, বঙ্গবন্ধু একাডেমির সিনিয়র সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা ফজল আহমেদ, চট্টগ্রাম প্রতিবন্ধী ফোরাম সংগঠনের সভাপতি এম এ সবুর, সাহিত্য পত্রিকা কথন সম্পাদক ফারুক হাসান, সাংবাদিক কাঞ্চন মহাজন, যুবলীগ নেতা শহীদুর রহমান খোকন, শ্রমিকনেতা ছিদ্দিকুল ইসলাম, ১৪ দলীয় নেতা স্বপন সেন। বক্তব্য রাখেন-শিশু সাহিত্যিক রমজান আলী মামুন, নাগরিক ঐক্যের আবদুল মাবুদ, আবৃত্তিশিল্পী সোমা মুৎসুদ্দী, মুক্তিযোদ্ধা দয়াল হরি দে, মুক্তিযোদ্ধা মো: নাসির, মাওলানা মাহবুবুর রহমান, আশিক বন্ধু, আব্দুল্লাহ মজুমদার, ইকবাল ভূঁইয়া, রোজী চৌধুরী, জামাল উদ্দিন কান্টু, এনপি সাগর, মো: আলী সিকদার, হারুন রশিদ, আকাশ ইকবাল, কামাল হোসেন, মো: তিতাস, মো: তরিকুল্লাহ, সাইদুল ইসলাম মাসুম, সরোয়ারুল আলম, শিল্পী সমীরন পাল, শিল্পী কাজল দত্ত, শিল্পী নারায়ন দাশ, মো: নাজমুল, মোহাম্মদ হোসেন মিন্টু প্রমুখ। পরে শিল্পী সুবীর নন্দী স্মরণে সংগীত পরিবেশনের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়। প্রেস বিজ্ঞপ্তি
মিষ্টি কুমড়া প্রতীকের নির্বাচনী কার্যালয় উদ্বোধন
১৩ জুলাই২০১৯,শনিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম:ডা. শাহাদাত হোসেন বলেন, দেশে আজ আইনরে শাসন, গনতান্ত্রিক পরিবেশ কিছুই নেই। সরকার আজ ব্যাংক লুটকারী, দূর্নীতিবাজ, খুনি, ধর্ষণকারীদের অবোধ চলাফেরা করার সুযোগ করে দিয়েছে। অন্যদিকে গণতন্ত্রের মা দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে অন্যায়ভাবে কারাগারে আটকে রেখেছে। তিনি আরও বলেন, দেশের মানুষ আজ নিরাপদ নেই। শিশু থেকে বৃদ্ধা আজ কেউ তাদের হাতে নিরাপদ নয়। তিনি সকল প্রকার অন্যায় জুলুম ও দেশমাতার মুক্তির সংগ্রামে সকলকে অংশগ্রহণের আহ্বান জানিয়ে আগামী ২৫ জুলাই ১৭ নং পশ্চিম বাকলিয়া ওয়ার্ডের কাউন্সিলর উপনির্বাচনে সকলকে মিষ্টি কুমড়া মার্কায় ভোট দেয়ার আহ্বান জানান। তিনি আজ বিএনপি মনোনিত ১৭ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী এ.কে.এম আরিফুল ইসলামের নির্বাচনী কার্যালয় উদ্বোধনকালে উপরোক্ত কথা বলেন। ১৭নং ওয়ার্ড বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সেকান্দরের সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন, সামশুল হক, কামরুল ইসলাম, ইব্রাহীম বাচ্চু, আমিন মাহমুদ, অধ্যক্ষ খোরশেদ আলম, মো: মহসিন, হাজী এমরান, হাজী ইউছুপ, গোলজার হোসেন লেদু, আবদুল কাদের, আইয়ুব খান, এস.এম. পারভেজ, হোসেন সওদাগর, হাছি মিয়া, নুর মোহাম্মদ, রাজা মিয়া, মেহেদী, গিয়াস উদ্দীন, ইসমাইল হোসেন লেদু, মো: সেলিম, শাহেদা বেগম, রেজিয়া বেগম মুন্নি, কানিজ ফাতেমা, জাহাঙ্গীর আলম, ওয়াসিম, গাজী শওকত, আনিছ, মাহীর, ওসমান, সাব্বির, রকি, আলাউদ্দীন, টিপু, রণি। উল্লেখ্য যে, আগামী ২৫ জুলাই ১৭ নং ওয়ার্ডে উপনির্বাচনে বিএনপির মনোনীত প্রার্থী এ.কে.এম আরিফুল ইসলাম মিষ্টি কুমড়ার সমর্থনে মোস্তফা আবাসিক ইউনুছ রোড ও কে.বি আমান আলী রোডে প্রচারণা চালান। এ সময় বিএনপি যুবদল মহিলাদল, ছাত্রদল ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
পটিয়ায় চিকিৎসকসহ ৫ জনকে অনুপস্থিত পেলেন স্বাস্থ্য পরিচালক
১৩ জুলাই২০১৯,শনিবার,নিউজ একাত্তর ডট কম:শনিবার দুপুর দেড়টায় বিভাগীয় পরিচালক ডা: হাসান শাহরিয়ার কবীর আকস্মিক পরিদর্শনে চট্টগ্রাম জেলার পটিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ২ চিকিৎসক সহ ৫ কর্মচারীকে বিনানুমতিতে কর্মস্থলে অনুপস্থিত পান।অনুপস্থিত ২ জন চিকিৎসক, প্রধান সহকারী জাকির হোসেন, অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর জাকির হোসেন এবং গাড়ী চালক আাতাউর রহমান এর বিরুদ্ধে কারণ দর্শানোসহ প্রয়োজনীয় প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য তিনি চট্টগ্রাম জেলার সিভিল সার্জন ডাঃ আজিজুর রহমান সিদ্দিকীকে তৎক্ষণাৎ টেলিফোনে নির্দেশনা প্রদান করেন। এ বিষয়ে সত্যতা নিশ্চিত করে বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডাঃ হাসান শাহরিয়ার কবীর টেলিফোনে বলেন চট্টগ্রাম-কক্সবাজার হাইওয়েতে পটিয়া অংশে সড়ক দূর্ঘটনার হার অত্যন্ত বেশী। তাছাড়া, চলমান ভারী বর্ষণের কারণে ডায়রিয়া, সাপে কাঁটাসহ অন্যান্য পানিবাহিত রোগীর চিকিৎসা সেবায় এই উপজেলার চিকিৎসক কর্মকর্তাগণের সার্বক্ষণিক উপস্থিতি অত্যন্ত জরুরী। এরকম গুরুত্বপূর্ণ একটি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মকর্তা/ কর্মচারীগণের অননুমোদিত অনুপস্থিতির বিষয়টি অত্যন্ত দুঃখজনক।বিনানুমতিতে কর্মস্থলে অনুপস্থিতির হার কমানোর বিষয়ে কারণ দর্শানো ছাড়াও বিকল্প পদক্ষেপ গ্রহণ জরুরি বলে সচেতন মহল মনে করেন।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
দক্ষিণ চট্টগ্রামে কয়েকটি গ্রাম প্লাবিত
১৩ জুলাই২০১৯,শনিবার,স্টাফ রিপোর্টার,নিউজ একাত্তর ডট কম: বর্ষণ ও পাহাড়ি ঢলে দক্ষিণ চট্টগ্রামের লোহাগাড়া, সাতকানিয়া, বাঁশখালী, আনোয়ারা, পটিয়া, চন্দনাইশ ও বোয়ালখালী উপজেলায় বন্যা পরিস্থিতি অপরিবর্তিত রয়েছে। কিছু এলাকায় পানি উঠে যাওয়ায় বানভাসি মানুষের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ছয় লাখে। এসব উপজেলার সবকটি নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। সাতকানিয়ার বাজালিয়া মীরেরপাড়া এলাকায় শঙ্খ নদের বাঁধ ভেঙে তীব্র স্রোতে পানি ঢুকে পড়ছে। দ্রুত অবনতি হচ্ছে বন্যা পরিস্থিতির। বড়হাতিয়া, আমিরাবাদ, সুখছড়ি, কলাউজান, পুটিবিলা, আধুনগরসহ উপজেলার বহু গ্রামের সড়ক পানিতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। আধুনগরে ডলু নদীর ভাঙনে খালপাড়ে বহু কাঁচা বসতঘরে পানি ঢুকেছে। পটিয়া উপজেলার কেলিশহর, হাইদগাঁও, কচুয়াই, খরনা, ভাটিখাইন, ছনহরা, ধলঘাট, হাবিলাসদ্বীপ, জিরি, কুসুমপুরা, আশিয়া, কোলাগাঁও ছাড়াও পৌরসভার কয়েকটি ওয়ার্ড ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। প্রবল বর্ষণ ও ঢলের পানিতে উপজেলার কচুয়াই, ছনহরা ও ভাটিখাইন এলাকায় বেড়িবাঁধ ভেঙে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। আনোয়ারার বরুমচড়া, বারখাইন, হাইলধর, বৈরাগ, চাতরী ও পরৈকোড়া ইউনিয়নের ওষখাইন, কৈখাইন, শিলালিয়াসহ বিভিন্ন এলাকার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। রায়পুর ও জুঁইদণ্ডী ইউনিয়নসহ উপজেলার নিম্নাঞ্চল তলিয়ে গেছে। জোয়ারের পানির অস্বাভাবিক বৃদ্ধি ও ভারি বৃষ্টিপাতে দুই উপকূলীয় ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।
চট্টগ্রামে গুজব ছড়ানো যুবক আটক
১২জুলাই২০১৯,শুক্রবার,স্টাফ রিপোর্টার,নিউজ একাত্তর ডট কম:পদ্মাসেতুর জন্য মানুষের মাথা ও রক্ত লাগবে বলে ফেসবুকে গুজব ছড়ানোর অভিযোগে এক যুবককে আটক করেছে RAB।বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) রাত দেড়টার দিকে চট্টগ্রামের আনোয়ারা উপজেলার তৈলারদ্বীপ গ্রাম থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।গ্রেফতার যুবকের নাম মো. আরমান (২০)। তৈলারদ্বীপ গ্রামে তার পোল্ট্রি ফার্মের ব্যবসা আছে বলে জানিয়েছেন RAB এর চট্টগ্রাম জোনের উপপরিচালক মেজর মেহেদী হাসান।মেজর মেহেদী বলেন, গত এক সপ্তাহ ধরে ফেসবুকে ক্রমাগতভাবে আরমান গুজব ও আতঙ্ক ছড়িয়ে আসছিল। টেলিভিশনের স্ক্রলের মতো করে এইমাত্র পাওয়া লিখে সে গুজব ছড়াচ্ছিল। চার শিশু গায়েব, আতঙ্কে গ্রামছাড়া এলাকাবাসী,এই ধরনের নানা মিথ্যা তথ্য সে পরিবেশন করছিল।গুজব ছড়ানোর অভিযোগে আরমানের বিরুদ্ধে তথ্যপ্রযুক্তি আইনে মামলা দায়ের করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন RAB এর এই কর্মকর্তা।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর