সাতকানিয়ায় ইয়াবাসহ আটক ২
১৫,ডিসেম্বর,মঙ্গলবার,সাতকানিয়া প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: সাতকানিয়ার রাস্তায় চট্টগ্রামগামী একটি ডাম্পার গাড়ী থেকে ১৩ হাজার ৫শ পিস ইয়াবাসহ ২ জনকে আটক করেছে পুলিশ। ব্যবহৃত গাড়ীটি জব্দ করা হয়েছে। মঙ্গলবার (১৫ ডিসেম্বর) দিবাগত রাতে কক্সবাজার থেকে চট্টগ্রামগামী আসা একটি ডাম্পারের হাইড্রোলিক বক্স থেকে এই বিপুল পরিমাণ ইয়াবা ও বহনকারী ২ জনকে আটক করেন সাতকানিয়া থানা পুলিশ। গ্রেফতারকৃতরা হলেন- গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার বরমী ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের মৃত রমজান আলীর ছেলে মোঃ রুবেল(২৬) ও একই এলাকার আব্দুল মান্নানের ছেলে মোঃ আফতাব (৩৪)। সাতকানিয়া থানার ওসি আনোয়ার হোসেন জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কক্সবাজার থেকে ইয়াবা নিয়ে ডাম্পার যোগে চট্টগ্রামে যাওয়ার পথে ১৩ হাজার ৫শ পিস ইয়াবাসহ দুজন ও তাদের ব্যবহৃত গাড়ীটি জব্দ করা হয়। গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য আইনে মামলা দায়ের করে তাদেরকে কোর্টে প্রেরণ করা হয়েছে।
অপরাধ বর্জনে নিজেদেরকে সচেতন হতে হবে: কক্সবাজার জেলা পুলিশের এএসপি
১৪,ডিসেম্বর,সোমবার,কক্সবাজার জেলা প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: কক্সবাজার জেলা পুলিশের এএসপি (মহেশখালী সার্কেল) জাহেদুল ইসলাম বলেছেন, সমাজের নিত্য নৈমিত্তিক অপরাধ বর্জনে নিজেদেরকে সেচতন হতে হবে। মহেশখালী থানা পুলিশ অপরাধ নিয়ন্ত্রণে আপনাদের পাশে থাকবে। নিজেরা কখনো আইন হাতে তুলে নিবেন না। সমাজে অপরাধের সাথে জড়িত ব্যক্তিদের কেহ প্রশ্রয় দেবেন না।পুলিশকে সঠিক তথ্যদিন। আইন আপনাদের পাশে থাকবে। আপনারা পুলিশকে ভালোবাসা দিন। তারপর দেখুন আমরা তার প্রতিদান কিভাবে দিই। আপনারা ২৫ ভাগ ভালবাসা পুলিশকে দিন,পুলিশ বিনিময়ে মহেশখালীবাসীকে শতভাগ ফেরত দিবো আমরা। পুলিশ জনতা, জনতাই পুলিশ। সাধারণ মানুষ পুলিশ থেকে দূরে থাকলে পুলিশ মানুষের সাথে মিলেমিশে কাজ করতে পারবেনা। সাধারণ মানুষকে সর্বোচ্চ পুলিশী সেবা দিতে মহেশখালী থানা পুলিশ বদ্ধ পরিকর। ঠিক তেমনি দুষ্টুদের দমনে পুলিশ তার সর্বোচ্চ শক্তি ব্যবহার করবে আর দালালদের থানা থেকে বয়কট করা হবে। মহেশখালীর কালারছড়ায় কমিউনিটি সচেতনতায় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দানকালে এএসপি (সার্কেল) জাহেদুল ইসলাম এ কথা বলেন। ১৪ নভেম্বর বিকেল ৩টায় কালারমারছড়া ইউনিয়ন পরিষদ হলরুমে ইউপি চেয়ারম্যান তারেক বিন ওসমান শরীফের সভাপত্বিত্বে এ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত সভায় এসময় বক্তব্য দিতে গিয়ে মহেশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মুহাম্মদ আবদুল হাই বলেন- কক্সবাজার জেলায় বর্তমানে পুলিশের কনস্টেবল থেকে শুরু করে পুলিশ সুপার পর্যন্ত সকলেই বদলী হয়ে সম্পূর্ণ নতুন পুলিশ যোগদান করেছেন। আমি সেবার মনমানসিকতা নিয়ে মহেশখালীতে নিজের সর্বোচ্চটা দিয়ে যাবো। আমি এরকম একটি থানার ওসি হতে চাই, যে থানার মানুষ দরজা খুলে নির্ভয়ে ঘুমাবেন। অপরদিকে কালারমারছড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তারেক বিন ওসমান শরীফ বলেন- দুরত্বের কারণে মহেশখালীর উত্তর প্রান্তে আরো একটি থানার প্রয়োজনীয়তা বেড়েছে। থানার কার্যক্রম স্থাপনের জন্য ইতিমধ্যে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান হোসাইন মুহাম্মদ ইব্রাহীম জমি দান করেছেন। অপরদিকে কালারমারছড়ার সকল মানুষ শান্তি চায়। শান্তি পেতে হলে প্রতিটি পাড়ায়, সমাজে, প্রতিটি ঘরে অপকর্মের বিরুদ্ধে আওয়াজ তুলুন। পুলিশকে সঠিক তথ্য দিয়ে সমাজ পরিবর্তনে ভূমিকা রাখুন। তবেই কালারমারছড়া শান্ত হবে নিশ্চিত। উক্ত অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সম্পাদক মুহাম্মদ রুহুল আমিন, মাষ্টার বশির আহমদ, জেলা বৌদ্ধ সমিতির সাধারণ সম্পাদক জেএমসেন বড়ুয়া, কালারমারছড়া বাজার কমিটির সভাপতি হাজ্বী রশিদ আহমদ, কালারমারছড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা বদরুল আলম আনসারী, আবুল কাশেম মেম্বার, সৈকত কেন্দ্রীয় বৌদ্ধ বিহারের সুমন প্রিয় ভিক্ষু, নোনাছড়ি বাজার কমিটির সভাপতি মনজুরুল আলম, শরীফ মেম্বার।এসময় অনুষ্ঠানে কালারমারছড়া ইউনিয়নের বিভিন্ন শ্রেণী পেশার প্রায় হাজারো জনসাধারণ উপস্থিত ছিলেন।
ভাস্কর্য অবমাননার প্রতিবাদে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সমাবেশ
১২,ডিসেম্বর,শনিবার,কক্সবাজার প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য অবমাননার প্রতিবাদে কক্সবাজারে জেলার সর্বস্তরের সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উদ্যোগে আয়োজিত প্রতিবাদ অনুষ্ঠিত হয়েছে। জাতির পিতার সম্মান রাখবো মোরা অম্লান এই প্রতিপাদ্যকে ধারণ করে শনিবার সকালে ভিত্তিপ্রস্থর হওয়া শিশু হাসপাতাল মাঠে জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত প্রতিবাদ অনুষ্ঠিত হয়। এতে জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাঈল, শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার শাহ রেজওয়ান হায়াত, পুলিশ সুপার মো. হাসানুজ্জামান, ট্যুরিস্ট পুলিশের পুলিশ সুপার মো. জিল্লুর রহমান, সভা পরিচালনা করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. আমিন আল পারভেজ, সিভিল সার্জন ডা. মাহবুবুর রহমান, আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের পুলিশ সুপার আশেকুর রহমান, কক্সবাজার ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপ-পরিচালক ফাহমিদা বেগম, মুক্তিযোদ্ধা কামাল হোসেন চৌধুরী, মুক্তিযোদ্ধা সাবেক পৌর চেয়ারম্যান নুরুল আবছার,সরকারি কর্মচারী পরিষদের সভাপতি স্বপন কান্তি পাল বক্তব্য রাখেন। সভায় বাংলাদেশ এ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ সার্ভিস এসোসিয়েশন কক্সবাজারসহ, বিভিন্ন সরকারি গদপ্তরের পদস্থ কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন। এসময় বক্তারা বলেন,বঙ্গবন্ধু, বাঙ্গালী ও বাংলাদেশ এক অবিচ্ছেদ্য অংশ যাকে কোনোভাবেই আলাদা করা যাবেনা। জাতির উন্নয়ন অগ্রযাত্রাকে থামিয়ে দিতে একটি গোষ্ঠী ষড়যন্ত্র চালাচ্ছে যা সকলকে সম্মিলিতভাবে প্রতিহত করা দরকার বলে মনে করছেন বক্তরা। এর আগে জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মাধ্যমে সভার সূচনা হয়।
বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙ্গচুরের প্রতিবাদে বাগেরহাটে মানববন্ধন
১২,ডিসেম্বর,শনিবার,বাগেরহাট প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: কুষ্টিয়ায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্মাণাধীন ভাস্কর্য ভাঙ্গচুরের প্রতিবাদে বাগেরহাটে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা হয়েছে। শনিবার (১২ ডিসেম্বর) সকাল সাড়ে দশটায় জেলার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার চত্বরে সরকারি কর্মকর্তারা এই প্রতিবাদ সভার আয়োজন করেন। জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশীদের সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, বাগেরহাট জেলা ও দায়রা জজ গাজী রহমান, পুলিশ সুপার পঙ্কজ চন্দ্র রায়, জেলা মৎস্য কর্মকর্তা ড. মো. খালেদ কনক, বাগেরহাট সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মোছাব্বেরুল ইসলাম, বাগেরহাট সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. প্রদীপ কুমার বকসী প্রমুখ। এছাড়া বাগেরহাটে কর্মরত সকল সরকারি দপ্তরের দপ্তর প্রধান ও প্রথম শ্রেণির কর্মকর্তারা মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে অংশ নেন। বক্তারা বলেন, বঙ্গবন্ধুর সম্মান মানে বাংলাদেশের সম্মান, বঙ্গবন্ধুকে অপমান করা মানে বাংলাদেশকে অপমান করা। বঙ্গবন্ধুর অপমান বাংলাদেশের মানুষ সহ্য করবে না। আপনারা যারা বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙ্গার মতো দুঃসাহস দেখিয়েছেন তাদেরকে বলছি, এটা শাস্তিযোগ্য অপরাধ। আপনারা এসব অন্যায় কাজ থেকে বিরত থাকুন। বাংলাদেশের আপামর জনতা এসব মৌলবাদী শক্তিকে সহ্য করবে না। আপনাদের যদি এ ধরনের দুর্বৃত্তায়ন করতে হয়, তাহলে ওই নির্দিষ্ট জায়গায় গিয়ে করুন।
চা শ্রমিক পোষ্যদের শিক্ষাবৃত্তি ২০২০ হস্তান্তর
১১ডিসেম্বর,শুক্রবার,মৌলভীবাজার প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: দেশের চা বাগানের শ্রমিক পোষ্যদের চা শ্রমিক শিক্ষা ট্রাস্ট থেকে প্রায় সাড়ে দশ লাখ টাকার শিক্ষা বৃত্তি ২০২০ প্রদান করেছে বাংলাদেশ চা বোর্ড। শিক্ষা গ্রহণে উৎসাহ প্রদান ও শিক্ষার মানোন্নয়নে প্রাথমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের ১৮০৩ জন মেধাবী শিক্ষার্থীকে এ বছর বৃত্তি দেয়া হচ্ছে। ১০ ডিসেম্বর ২০২০ রাজঘাট চা বাগানে শিক্ষাবৃত্তির চেক হস্তান্তর অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ চা বোর্ডের প্রকল্প উন্নয়ন ইউনিট (পিডিইউ)-এর ভারপ্রাপ্ত পরিচালক ড. এ কে এম রফিকুল হক এসব কথা জানান। ড. এ কে এম রফিকুল হক আরও জানান, ২০১৯ সালের বার্ষিক পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে যাচাই বাছাই পূর্বক ৯২ টি বাগানের ২য় থেকে ৮ম শ্রেণি পর্যন্ত মেধাবী শ্রমিক পোষ্যদের এ বছর বৃত্তি দেয়া হচ্ছে। ইতোমধ্যে বাগানগুলোতে বৃত্তির চেক বিতরণ করা হয়েছে। উল্লেখ্য, ২০০১ সালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা-এর সানুগ্রহ অনুদানের প্রেক্ষিতে চা বাগানের শ্রমিক পোষ্যদের শিক্ষার মান উন্নয়নে বাংলাদেশ চা বাগান শ্রমিক শিক্ষা ট্রাস্ট গঠিত হয়। ট্রাস্ট গঠনের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত ২৪ হাজারের অধিক শ্রমিক সন্তানদের বৃত্তি প্রদান করা হয়েছে। এছাড়া বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবন, ডুয়েল লেট্রিন ও পতাকা স্তম্ভ নির্মাণ, শিক্ষকদের পিটিআইতে প্রশিক্ষণ কোর্স করানো এবং বিদ্যালয়ে শিক্ষা উপকরণ ও খেলাধুলা সামগ্রীও ট্রাস্ট হতে বিতরণ করা হয়। বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে পিডিইউ-এর সহকারী উন্নয়ন কর্মকর্তা মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান আকন্দ, রাজঘাট বাগানের মহাব্যবস্থাপক এ কে এম মাইনূল আহসান, সহকারী ব্যবস্থাপক, পঞ্চায়েত সভাপতি, বিদ্যালয়ের শিক্ষকবৃন্দ, বৃত্তি প্রাপ্ত শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা উপস্থিত ছিলেন।
শ্রেষ্ঠ জয়িতা- সম্মাননা পেলেন রাজশাহীর সেই খুকি
১০ডিসেম্বর,বৃহস্পতিবার,রাজশাহী প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: রাজশাহীর আলোচিত খবরের কাগজ বিক্রেতা দিল আফরোজ খুকিকে শ্রেষ্ঠ জয়িতা সংবর্ধনা দেয়া হয়েছে। খুকি ছাড়াও বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে আরও সাত জনকে জয়িতা সংবর্ধনা দেয়া হয়। বুধবার (৯ ডিসেম্বর) রাজশাহী মানবসম্পদ প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে এ সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ ও বেগম রোকেয়া দিবস উপলক্ষে রাজশাহীর শ্রেষ্ঠ জয়িতাদের সংবর্ধনা দেয়া হয়েছে। নগর ও মহানগর পর্যায়ে ৫টি ক্যাটাগরিতে আটজন নারীকে জয়িতা সংবর্ধনা দেয়া হয়। জেলা প্রশাসন ও মহিলা বিষয়ক অধিদফতরের আয়োজনে অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন রাজশাহী অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শরিফুল হক। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন- রাজশাহী জেলা প্রশাসক আব্দুল জলিল। অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজকর্ম বিভাগের প্রফেসর ড. তানজিমা জোহরা হাবিব, নগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শাহীন আখতর রেণী, মহিলা বিষয়ক অধিদফতর উপপরিচালক শবনম শিরিন, জাতীয় মহিলা সংস্থার চেয়ারম্যান বেগম মর্জিনা পারভিন। সম্মাননা পাওয়া শ্রেষ্ঠ জয়িতারা হলেন- মহানগর পর্যায় থেকে নির্যাতনের বিভীষিকা মুছে ফেলে নতুন উদ্যেমে জীবন শুরু করা নারী হিসেবে দিল আফরোজ খুকি, শিক্ষা ও চাকুরী ক্ষেত্রে সাফল্য অর্জনকারী নারী ড. হোসনে আরা আরজু, অর্থনৈতিক সাফল্য অর্জনকারী নারী নিলুফা ইয়াসমিন, সফল জননী নারী কানন রায়, সমাজ উন্নয়নে অসামান্য অবদান রাখা নারী শাহীনা লাইজু। এছাড়াও জেলা পর্যায়ে অর্থনৈতিক সাফল্য অর্জনকারী নারী নিলুফা ইয়াসমিন, সফল জননী নারী নুরুন্নাহার, সমাজ উন্নয়নে অসামান্য অবদান রাখায় লক্ষী মারডিকে জয়িতা সম্মাননায় ভূষিত করা হয়েছে।
জয়পুরহাটে রোকেয়া দিবস পালিত
০৯ডিসেম্বর,বুধবার,জয়পুরহাট প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: কমলা রঙের বিশ্বে নারী, বাধার পথ দেবেই পাড়ী, এই পতিপাদ্যকে সামনে রেখে জয়পুরহাটে আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন পক্ষ উদযাপন ও বেগম রোকেয়া দিবস পালিত হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে আজ বুধবার সকালে জেলা প্রশাসন ও মহিলা বিষয়ক কার্যালয়ের আয়োজনে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। এতে বক্তব্য রাখেন, জয়পুরহাট-১ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাড. সামছুল আলম দুদু, জেলা প্রশাসক শরীফুল ইসলাম ও মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সাবিনা সুলতানা। পরে জেলার নির্বাচিত ৯ জন শ্রেষ্ঠ জয়ীতার হাতে সম্মাননা স্মারক তুলে দেওয়া হয়।
ভাস্কর্য ভাঙচুর: মাদ্রাসার ২ ছাত্র ও ২ শিক্ষক রিমান্ডে
০৮ডিসেম্বর,মঙ্গলবার,ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট,কুষ্টিয়া,নিউজ একাত্তর ডট কম: কুষ্টিয়ায় ভাস্কর্য ভাঙচুরের ঘটনায় পুলিশের দায়ের করা মামলায় গ্রেফতারকৃত মাদ্রাসার দুই ছাত্রের পাঁচদিন করে এবং দুই শিক্ষকের চারদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। মঙ্গলবার (৮ ডিসেম্বর) বেলা সাড়ে ১১টায় কুষ্টিয়ার চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এনামুল হকের আদালত শুনানি শেষে এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এর আগে আটক চারজনকে সোমবার (০৭ ডিসেম্বর) আদালতে সোপর্দ করে ছাত্রদ্বয়ের ১০ দিন এবং শিক্ষকদ্বয়ের সাতদিন করে রিমান্ড আবেদন করে কুষ্টিয়া মডেল থানা পুলিশ। দুপুর দেড়টায় কুষ্টিয়ার অতিরিক্ত চিফ জুডিসিয়াল আমলি আদালতের বিচারক রেজাউল করীমের আদালতে আসামিদের উপস্থিত করে পুলিশ রিমান্ড আবেদন করলে আদালত তাদের রিমান্ড শুনানির দিন মঙ্গলবার (০৮ ডিসেম্বর) ধার্য করে আসামিদের জেল হাজতে পাঠানোর আদেশ দেন। পাঁচদিনের রিমান্ডপ্রাপ্তরা হলেন-কুষ্টিয়ার জুগিয়া এলাকার মাদ্রাসা ইবনে মাসউদ (রা.) এর হেফজ বিভাগের ছাত্র ও মিরপুর উপজেলার শিংপুর গ্রামের সমশের মৃধার ছেলে আবু বক্কর ওরফে মিঠুন (১৯) এবং দৌলতপুর উপজেলার ফিলিফনগর গ্রামের সামছুল আলমের ছেলে সবুজ ইসলাম ওরফে নাহিদ (২০)। চারদিনের রিমান্ডপ্রাপ্তরা হলেন-একই মাদ্রাসার শিক্ষক ও মিরপুর উপজেলার ধুবইল গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে মো. আল আমীন (২৭) এবং পাবনা জেলার দিয়াড় বামুন্দি গ্রামের আজিজুল মণ্ডলের ছেলে মো. ইউসুফ আলী (২৭)। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কুষ্টিয়ার সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি, তদন্ত) নিশিকান্ত সরকার জানান, শহরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্মাণাধীন ভাস্কর্য ভাঙচুরের ঘটনায় গ্রেফতারকৃত চারজনকে ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনের ১৫(৩) তৎসহ ৪২৭/৩৪ ধারার মামলায় আদালতে সোপর্দ করে রিমান্ড আবেদন করা হয়। আদালত মঙ্গলবার রিমান্ড শুনানি শেষে দুই মাদ্রাসা ছাত্রের পাঁচদিন এবং দুই শিক্ষকের চারদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন। শুক্রবার (৪ ডিসেম্বর) দিনগত রাত ২টার দিকে দুর্বৃত্তরা বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙচুর করেন। পরে ঘটনাস্থলে থাকা সিসিটিভির ফুটেজ সংগ্রহ করে পুলিশ। ফুটেজ দেখে ভাঙচুরকারীদের শনাক্ত করা হয়। পরদিন শনিবার (০৫ ডিসেম্বর) রাতে কুষ্টিয়ার জুগিয়া এলাকার ওই মাদ্রাসার দুই ছাত্র এবং তাদের সহযোগিতা করার অভিযোগে দুই শিক্ষককে গ্রেফতার করে পুলিশ।
মৌলভীবাজারে আমনের বাম্পার ফলনে কৃষকের মুখে হাসি
০৮ডিসেম্বর,মঙ্গলবার,মৌলভীবাজার প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: দিগন্তবিস্তৃত মাঠ, হাওড়জুড়ে সোনালী আমন ধানের হাসি। যেদিকে চোখ যায় শুধুই এখন পাকা সোনালী ধান। আবহমান বাংলার গ্রামীণ প্রেক্ষাপটে এই সৌন্দর্য অনন্য। সোমবার (৭ ডিসেম্বর) শ্রীমঙ্গল উপজেলার কয়েকটি গ্রাম ঘুরে দেখা গেছে, কষ্টের ফসল ঘরে তুলতে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষক। গত বছরের তুলনায় এ বছর বাম্পার ফলন হয়েছে রোপা আমনের। তাই চোখে-মুখে সার্থকতার হাসি ফুটেছে কৃষকদের। মৌলভীবাজার জেলার মৌলভীবাজার সদর, রাজনগর, কুলাউড়া, জুড়ী, বড়লেখা, কমলগঞ্জ এবং শ্রীমঙ্গল উপজেলাতে এবাব বাম্পার ফলন হয়েছে। জেলায় আবাদযোগ্য জমির পরিমাণ এক লাখ ৪৬ হাজার ৭৪০ একর এবং অনাবাদী জমির পরিমাণ ১০ হাজার ৬৯৫ হেক্টর। এ বিষয়ে মৌলভীবাজার কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক (ডিডি) কাজী লুৎফুল বারী বলেন, মৌলভীবাজারে গত বছরের তুলনায় চলতি রোপা আমনের বাম্পার ফলন হতে চলেছে। ২০১৯ সালে আমাদের আবাদ ছিল এক লাখ ১৫০ হেক্টর। চলতি বছর আমাদের আবাদ হয়েছে এক লাখ এক হাজার ৪৮০ হেক্টর। তিনি জানান, ধান থেকে চাল উৎপাদনে ২০১৯ সালে ফলন ছিল দুই দশমিক ৮৫ টন প্রতি হেক্টর। সে তুলনায় চালে উৎপাদন ছিল দুই লাখ ৮৫ হাজার ৪২৮ মেট্রিক টন। চলতি বছর ধারণা করা হচ্ছে ফলন দুই দশমিক নয় টন প্রতি হেক্টরে গিয়ে দাঁড়াবে। সে হিসেবে চলতি মৌসুমে চাল উৎপাদন হবে দুই লাখ ৯৪ হাজার ২৯২ টন। উৎপাদনের বিবেচনায় আট হাজার ৮৬৪ মেট্রিক টন বাড়তি উৎপাদন পাওয়া যাবে, যা অত্যন্ত ইতিবাচক। এই সাফল্যের নেপথ্যের কারণ হিসেবে তিনি বলেন, এবারই প্রথম হাওড় এলাকায় রোপা আমন ধান চাষ হয়েছে যেটা আগে হয়নি। ধানের দাম বেশি থাকায় কৃষকরা ধান উৎপাদনে আগ্রহী হয়েছেন। আগে ধানের দাম ছিল ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা মণ। এখন তো মণ প্রতি ৮০০ থেকে এক হাজার টাকা। স্বাধীনতার পরে কৃষকরা কখনো ধানের এতো দাম পায়নি। এটি একটি বিশাল অর্জন।

সারা দেশ পাতার আরো খবর