ইয়াবাসহ আটক ইউপি চেয়ারম্যানের কারাদণ্ড লক্ষ্মীপুরে
লক্ষ্মীপুরে মাদকবিরোধী অভিযানে ইয়াবাসহ ইউপি চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন মুশু পাটওয়ারীকে আটক করেছে র‌্যাব। রোববার রাতে সদরের জকসিন বাজারের ব্যক্তিগত কার্যালয় থেকে তাকে আটক করা হয়। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতে তার ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়। তিনি সদর উপজেলার লাহারকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি। র‌্যাব জানায়, অভিযানকালে মাদক সেবন করা অবস্থায় নিজ কার্যালয় থেকে ইউপি চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন মুশু পাটওয়ারীকে আটক করা হয়। এসময় তার কাছ থেকে ৫ পিস ইয়াবা ও সেবন সামগ্রী উদ্ধার করা হয়। পরে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. খবিরুল আহসান ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন। এসময় র‌্যাব -১১ এর লক্ষ্মীপুর ক্যাম্পের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নরেশ চাকমা উপস্থিত ছিলেন। এ ব্যাপারে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. খবিরুল আহসান বলেন, দেড় বছর ধরে তিনি ইয়াবা সেবন করে বলে স্বীকার করেন। পরে তাকে ৬ মাসের কারাদণ্ডাদেশ দিয়ে জেলা কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে বলে জানান তিনি।
৪৩ লাখ টাকার ইয়াবা উদ্ধার মোটরসাইকেলের ট্যাঙ্কি থেকে
কক্সবাজার-টেকনাফ সড়কে মোটরসাইকেলের তেলের ট্যাঙ্কিতে অভিনব কৌশলে লুকিয়ে পাচারকালে প্রায় ৪৩ লাখ টাকার ইয়াবা উদ্ধার করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)। তবে মোটরসাইকেল আরোহী পালিয়ে গেছে। টেকনাফ-২ বিজিবি’র ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক অতিরিক্ত পরিচালক কাজী মনজুরুল ইসলাম পরিবর্তন ডটকমকে জানান ‘বিশ্বস্ত গোয়েন্দা তথ্যের মাধ্যমে জানা যায়, শীলখালী মেরিন ড্রাইভ সড়ক দিয়ে ইয়াবার একটি চালান টেকনাফ হতে কক্সবাজারে পাচার হতে পারে। উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে ১৩ মে সন্ধ্যা ৭ টার সময় ২ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের অধীনস্থ শীলখালী অস্থায়ী চেকপোস্টে কর্মরত হাবিলদার মো. বাচ্চু মৃধার নেতৃত্বে একটি বিশেষ টহল দল শীলখালী অস্থায়ী চেকপোস্টে যানবাহন তল্লাশি কার্যক্রম পরিচালনা করে। এসময় টেকনাফ থেকে কক্সবাজারগামী একটি মোটরসাইকেল চেকপোস্টের পাশাপাশি আসলে বিজিবি টহল দল মোটরসাইকেলটি থামানোর জন্য সিগন্যাল দেয়। সিগন্যাল পাওয়া মাত্রই মোটরসাইকেল আরোহী মোটরসাইকেলটি রাস্তার পাশে ফেলে দৌড়ে পালিয়ে যায় চালক। পরবর্তীতে বিজিবি টহল দল মোটরসাইকেলটি তল্লাশি করে মোটরসাইকেলের তেলের ট্যাঙ্কির ভিতরে ফিটিং অবস্থায় ইয়াবা ভর্তি প্যাকেট উদ্ধার করে। উক্ত প্যাকেটগুলোতে ১৪ হাজার ৬০০ পিস ইয়াবা পাওয়া যায়। নাম্বার প্লেট বিহীন আটককৃত মোটরসাইকেলটির সিজার মূল্য ২ লাখ টাকা। আটককৃত মোটরসাইকেলটি টেকনাফ শুল্ক গুদামে জমা দেওয়া হবে। উদ্ধাকৃত ইয়াবাগুলো টেকনাফ সদর ব্যাটালিয়নে জমা রাখা হয়েছে। যা পরবর্তীতে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, বেসামরিক প্রশাসন, মাদকদ্রব্য অধিদপ্তরের প্রতিনিধি, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও মিডিয়া কর্মীদের উপস্থিতিতে ধ্বংস করা হবে।
বিনা ধান-১৪ এর মাঠ দিবস অনুষ্ঠিত কসবায়
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্তৃক এসআরএসডি প্রকল্পের অর্থায়নে বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট উদ্ভাবিত উন্নত জাত বিনা ধান-১৪ এর প্রচার ও সম্প্রসারণে মাঠ দিবস অনষ্ঠিত হয়েছে। রোববার বিকেলে কসবা উপজেলার আলমপুর গ্রামে কৃষক আবুল হাশেমের সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি ছিলেন কুমিল্লা বিনা উপকেন্দ্রের ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা সিফাতে রাব্বানা খানম। বিশেষ অতিথি ছিলেন কসবা উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মো. কবির হোসেন, কৃষক মো. আব্দুল ওয়াদুদ। এসময় উপস্থিত কর্মকর্তা ও কৃষকরা জানান, বিনা ধান-১৪ কম সময়ে উন্নতমানের ধান। ধান ও চাল ব্রিধান-২৮ লম্বা ও চিকন। ফেব্রুয়ারি মাসে সরিষা কাটার পর দ্বিতীয় সপ্তাহ হতে চতুর্থ সপ্তাহের মধ্যে রোপন করেও মে মাসে মধ্যভাগে ফসল কাটা যায়। উৎপাদন বেশী ও লাভবান হওয়ায় বোরো ধান চাষের আওতায় বিনা ধান-১৪ উৎপাদনে কৃষকরা উৎসাহিত হচ্ছে।
বাংলাদেশে করের পরিমাণ বেশি উন্নত দেশের চেয়ে : গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী
গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, ‘উন্নত দেশের চেয়ে বাংলাদেশে করের পরিমাণ বেশি। উন্নত দেশে ৬ থেকে ৭ শতাংশ কর ধার্য করা হয়। কিন্তু বাংলাদেশে ১৫ শতাংশ কর ধার্য করা হয়েছে। করের পরিমাণ কমলে আদায়ের হার বাড়বে। উদ্যোক্তরা আরো বেশি কলকারখানা গড়ে তুলবে। সৃষ্টি হবে নতুন নতুন কর্মসংস্থান। চট্টগ্রামের জোরারগঞ্জ ইউনিয়নের নোপাহাড় এলাকায় নাহার এগ্রো গ্রুপের ভাসমান ফিস ফিড মিলস উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। আগামী বাজেটের আগে কর কমানোর জন্য অর্থমন্ত্রী বরাবর প্রস্তাব করা হবে বলেও মন্ত্রী জানান। নাহার এগ্রো গ্রুপের চেয়ারম্যান চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক প্রফেসর ড. সামসুদ্দৌহার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, বিশিষ্ট আইটি বিশেষজ্ঞ ইঞ্জিনিয়ার মাহবুবুর রহমান রুহেল, চট্টগ্রাম জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা রেজাউল হক, মন্ত্রীর একান্ত সচিব ফয়েজ আহম্মদ, নাহার এগ্রো গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রাকিবুর রহমান টুটুল। এসময় উপস্থিত ছিলেন মিরসরাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরী, সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ফেরদৌস হোসেন আরিফ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এনায়েত হোসেন নয়ন, করেরহাট ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি সুলতান গিয়াস উদ্দিন জসিম, সাধারণ সম্পাদক শেখ সেলিম, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক এসএম আবুল হোসেন, পল্লী বিদ্যুতের পরিচালক আলী আহসানসহ আরো অনেকে। এর আগে নাহার এগ্রো গ্রুপ নির্মিত সোনাপাহাড় এলাকায় বায়তুল আমান জামে মসজিদের উদ্বোধন করেন মন্ত্রী। এদিকে স্বেচ্ছাসেবী সমাজ উন্নয়ন সংস্থা শান্তিনীড়ের ১১তম শিক্ষোন্নয়ন বৃত্তির সনদ ও পুরষ্কার বিতরণ করা হয়েছে। গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন এমপি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে কৃতি শিক্ষার্থীদের হাতে সনদ ও পুরুস্কার তুলে দেন। জেলা পরিষদ অডিটরিয়াম মিরসরাইয়ে অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংস্থার সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার আশরাফ উদ্দিন সোহেল। অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন সমাজসেবা অধিদফতরের চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিচালক ড. নাজনীন কাউসার চৌধুরী। মো. আরিফ ও এম. মাঈন উদ্দিনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, বিজিএমইএর সাবেক পরিচালক ও ক্লিফটন গ্রুপের সিইও লায়ন এমডি.এম. মহিউদ্দিন চৌধুরী। অনুষ্ঠানে ১১তম শান্তিনীড় শিক্ষোন্নয়ন বৃত্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ মিরসরাই, সীতাকু- ও ছাগলনাইয়া উপজেলার ১ম থেকে ১০ম শ্রেণির ১‘শ ২১ জন মেধাবী শিক্ষার্থীর হাতে প্লাটিনাম, গোল্ড, সিলভার ও ব্রোঞ্জ চার ক্যাটাগরিতে সনদ, ক্রেস্ট, মগ, ব্যাগ ও শিক্ষা উপকরণ তুলে দেয়া হয়।
সাংবাদিক-সম্পাদক শহীদুল্লাহ খানের মৃত্যুতে চট্টগ্রামে শোক সভা
দৈনিক যুগরবির সম্পাদক, বিশিষ্ট সাংবাদিক শহীদুল্লাহ খানের মৃত্যুতে শনিবার সন্ধ্যায় নূর আহমদ সড়কস্থ অফিসে নিউজ পেপার এমপ্লয়ীজ ওয়েলফেয়ার সোসাইটি (নিউজ), চট্টগ্রাম এর উদ্যোগে এক শোকসভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। সংগঠনের সভাপতি মোহাম্মদ জসীম উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন বিশ্ব প্রেস কাউন্সিল নির্বাহী পরিষদ ও বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল সাবেক সদস্য, সাংবাদিক-মুক্তিযোদ্ধা, নিউজ র প্রতিষ্ঠাকালীন উপদেষ্টা মইনুদ্দীন কাদেরী শওকত। নিউজ র সাধারণ সম্পাদক আনোয়ার সাদাত মুরাদের সঞ্চালনে অনুষ্ঠিত শোকসভায় সাংবাদিক মরহুম শহীদুল্লাহ খানের জীবনের বিভিন্ন দিক আলোকপাত করে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক সুজিত কুমার দাশ, সাবেক সভাপতি আবদুস শুক্কুর, সাবেক সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম, কলেজ শিক্ষক সমিতি নেতা আবু তাহের চৌধুরী, সিএম রফিক উল্লাহ, সিনিয়র সহ-সভাপতি নুরুল হুদা, মরহুম শহীদুল্লাহ খানের পুত্র সানাউল্লাহ নূরী খান প্রমুখ। প্রধান অতিথির বক্তব্যে সাংবাদিক-সম্পাদক-মুক্তিযোদ্ধা মইনুদ্দীন কাদেরী শওকত বলেন, মরহুম শহীদুল্লাহ খান মূলতঃ পাহাড়ী জনপদে ঝুঁকি নিয়ে সাংবাদিকতা শুরু করেছিলেন। তার পিতা সম্পাদক মরহুম আশরাফ আলী খান ইন্তেকালের পর দেশের অন্যতম প্রাচীন পত্রিকা দৈনিক যুগরবির সম্পাদকের দায়িত্ব তিনি গ্রহণ করেন। সংবাদপত্র পরিষদ, সম্পাদক পরিষদ, মানবাধিকার সাংবাদিক সংস্থা, নিউজসহ সংবাদপত্র সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সংগঠনের সাথে সম্পৃক্ত থেকে শহীদুল্লাহ খান অগ্রজ, সহকর্মী, অনুবর্তী সকলের খেদমত করেছেন- নিঃস্বার্থভাবে। বর্তমানে শহীদুল্লাহ খানের মত নিঃস্বার্থ মানুষ সংবাদ মাধ্যমে খুঁজে পাওয়া বিরল। মানুষের উপকার করা এবং এই উপকার করতে গিয়ে অক্লান্ত শ্রম দেয়া শহীদুল্লাহ খানের জীবনের অন্যতম ব্রত হয়ে উঠেছিল। শোকসভায় শহীদুল্লাহ খানের রুহের মাগফিরাত কামনা করে দোয়া ও মুনাজাত করা হয়। প্রেস বিজ্ঞপ্তি
মোপলেস-র উদ্যোগে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৫৭তম জন্মজয়ন্তী উদ্যাপিত
মোরা পত্র লেখক সমাজ (মোপলেস) চট্টগ্রাম এর উদ্যোগে ১২ মে ২০১৮ শনিবার কদম মোবারক এম.ওয়াই উচ্চ বালক-বালিকা বিদ্যালয়ে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৫৭তম জন্মজয়ন্তী উৎসব উপলক্ষে বিকেল ৪টায় শিশু-কিশোর চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা ও সন্ধ্যায় আলোচনা সভা, পুরস্কার বিতরণ এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন সজল দাশ ও রতন ঘোষ। অনুষ্ঠানে রবীন্দ্র সংগীত পরিবেশন করেন বিশিষ্ট শিল্পী অধ্যক্ষ উত্তম কুমার আচার্য্য ও শিল্পী নারায়ণ দাশ। সন্ধ্যায় আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে মোপলেস সভাপতি সজল দাশের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির আসন অলংকিত করেন সাবেক সিনিয়র সহকারী জজ, প্রবীণ রাজনীতিবিদ ও সমাজসেবক এডভোকেট মনজুর মাহমুদ খান। উদ্বোধক হিসেবে ছিলেন বিশিষ্ট সমাজসেবক শিক্ষা ও সংস্কৃতি অনুরাগী এম.এ. সবুর। প্রধান আলোচক ছিলেন শিক্ষাবিদ অধ্যক্ষ উত্তম কুমার আচার্য্য। এতে আরো বক্তব্য রাখেন রাজনীতিবিদ স্বপন সেন, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট চট্টগ্রাম জেলার সাধারণ সম্পাদক খোরশেদ আলম, সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক শিল্পী অচিন্ত্য কুমার দাশ। স্বাগত বক্তব্য রাখেন শিল্পী নারায়ণ দাশ। এতে আরো উপস্থিত ছিলেন কবরী চৌধুরী, রুনা চৌধুরী, সুমি কারণ, সীমি চৌধুরী, মুক্তা চৌধুরী, সবিতা বনিক, তুলা রায়, নিপা বনিক, রতন ভট্টাচার্য, দেবেন্দ্র দাশ দেবু ও মো: জাফর আলম প্রমুখ। প্রধান অতিথি এড. মনজুর মাহমুদ খান বলেন, বাঙালি জাতীয় জীবনে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের অবদান অনন্য ও অনস্বীকার্য। আমাদের হাসি-আনন্দ-বিরহ-ব্যথা ও বেদনায় তাঁর গান শান্তির পরশ বুলিয়ে দেয়। তাঁর লেখা গান তিনটি দেশের জাতীয় সংগীত। তিনি নোবেল প্রাপ্তির টাকাও কৃষকের উন্নয়নে দান করেছেন। যতদিন বাংলাদেশ, বাংলাভাষা ও বাঙালি সংস্কৃতি থাকবে ততদিন রবীন্দ্রনাথ বিশ্ব সাহিত্যাকাশে উজ্জ্বল ধ্রুবতারা হয়ে জ্বলবে। উদ্বোধক সমাজসেবক এম.এ. সবুর বলেন, রবীন্দ্রনাথ আমাদের প্রাত্যিহিক জীবনের সঙ্গী। তাঁর জীবন দর্শন আমাদের উজ্জীবিত করে। বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরই বাঙালিকে প্রথম বিশ্বসভায় পরিচয় করিয়ে দিয়েছেন। তাই বাঙালি জাতি তাঁর কাছে চিরঋণী হয়ে থাকবে। তাঁর দেশপ্রেম আমাদের কাছে অনুপ্রেরণার উৎস হয়ে থাকবে। প্রধান আলোচক অধ্যক্ষ উত্তম কুমার আচার্য বলেন, বিশ্বকবি আমাদের অহংকার। তিনি নতুন প্রজন্মকে রবীন্দ্রচর্চায় ব্রত হওয়ার আহ্বান জানান। সভার সভাপতি সজল দাশ বলেন, মোপলেস প্রতিষ্ঠাকাল থেকে সৃজনশীল কাজকর্ম পরিচালনা করে আস্ছে। আজকের অনুষ্ঠান স্বল্প পরিসরে হলেও এর তাৎপর্য বিশাল। পরে প্রধান অতিথি উদ্বোধকও অতিথিদের সাথে নিয়ে প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের পুরস্কার বিতরণ করেন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি
কাপাসগোলা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে ময়লা আবর্জনার ভাগাড়
রাজীব চক্রবর্তী : নগরীর চকবাজার কাপাসগোলা প্রাথমিক বিদ্যালয় এর সামনে ময়লা-আবর্জনার ভাগাড়ে পরিণত হয়েছে। সেই স্কুলে পড়ালেখা করছে কচিকাঁচা শিশুরা। সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে স্কুল গেটের সামনে ও পাশে ময়লা-আবর্জনার স্তুপ পড়ে আছে। সেই ময়লা-আবর্জনা পরিবেশ দূষণ করছে এবং দূর্গন্ধ ছড়াচ্ছে পাশাপাশি দেখতেও দৃষ্টিকটু লাগছে। পথচারীরা এবং স্কুল শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা নাক চেপে চলাচল করছে। এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে স্কুলের সহকারী শিক্ষক রহিম উদ্দিন বলেন, এ ব্যাপারে আমরা চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনকে অনেকবার মৌখিকভাবে ও লিখিতভাবে জানিয়েছি কিন্তু কোনো সুফল মেলেনি। এব্যাপারে স্থানীয় লোকজনদের সাথে কথা বললে তারা জানান, দীর্ঘদিন ধরে এ সমস্যা চলছে কিন্তু এ নিয়ে প্রশাসনের কোনো উদ্যোগ নেই। অতি দ্রুত এ সমস্যা থেকে মুক্তি চায় ভুক্তভোগীরা।
নিজেদের অপকর্ম লুকাতে বিএনপির এমন অপপ্রচার: রাজ্জাক
আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ড. আবদুর রাজ্জাক বলেছেন, বিএনপির অপপ্রচার ও মিথ্যাচারের রাজনীতি নতুন নয়। তারা তাদের অতীত অপকর্ম লুকাতে চিরাচরিত অপপ্রচারের আশ্রয় নিয়েছে দলটি নেতারা। আমরা দেখেছি গত কয়েকদিন বাংলাদেশের বিভিন্ন অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে নির্লজ্জ মিথ্যাচার চালিয়ে যাচ্ছে বিএনপি। এ ধরনের মিথ্যাচারের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। তাছাড়া, দুর্নীতিপরায়ণ লোকেদের উজ্বল উদাহরণ হচ্ছে বিএনপি নেতারা। কেননা, দুর্নীতি দমন কমিশন কর্তৃক তদন্তাধীন ও বিচারাধীন প্রায় ৩২টি পাচার সংক্রান্ত মানিলন্ডারিং মামলার মধ্যে বেশিরভাগই বিএনপি নেতাদের বিরুদ্ধে। শনিবার আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ধানমন্ডিস্থ রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন। তিনি বলেন, বর্তমানে দুর্নীতি দমন কমিশন কর্তৃক তদন্তাধীন ও বিচারাধীন প্রায় ৩২টি পাচার সংক্রান্ত মানিলন্ডারিং মামলা রয়েছে যার মধ্যে বেশিরভাগই বিএনপি নেতাদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ। এখানে যেসব উল্লেখযোগ্য নেতা রয়েছেন তাদের মধ্যে তারেক জিয়া, গিয়াস উদ্দিন আল মামুন, মোর্শেদ খান ও খন্দকার মোশাররফ হোসেনের বিরুদ্ধে ইতোমধ্যে দুদক কর্তৃক দায়েরকৃত বিদেশে অর্থপাচার ও মানিলন্ডারিং মামলা চলমান রয়েছে এবং লুৎফজ্জামান বাবর, আলী আসগর লবী, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ ও তার স্ত্রীসহ অনেক বিএনপি নেতাদের বিদেশে অর্থ পাচারের বিষয়টি তদন্তাধীন রয়েছে। বিএনপির শাসনামলে ব্যাংকের টাকা চুরির সংস্কৃতি শুরু হয়। শুরু হয় ঋণ খেলাপী সংস্কৃতি। তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার ভাই সাঈদ ইস্কান্দার, তার পুত্র তারেক রহমান ও আরাফাত রহমান কোকো এবং তাদের ব্যবসায়িক পার্টনার গিয়াস উদ্দিন আল মামুন ড্যান্ডি ডায়িং, খাম্বা লিমিটেড, ওয়ান স্পিনিংসহ ১৫টি প্রতিষ্ঠানের নামে ভুয়া সম্পত্তি দেখিয়ে ৯৮০ কোটি টাকা ঋণ গ্রহণ করে। স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী পরিবার ভুয়া সম্পত্তি দেখিয়ে এভাবে ঋণ গ্রহণ ও ঋণ মওকুফের নজির পৃথিবীর আর কোথাও নেই। রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা ব্যবহার করে বিএনপি নেতাদের দুর্নীতি করার বিষয়টি দেশীয় এবং আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে প্রকাশ পেয়েছে। বিএনপি নিজেদের লুটপাটের ও দুর্নীতির রাজনীতি ঢাকতে গিয়ে আজ বর্তমান সরকারের বিরুদ্ধে নানা ধরনের অপপ্রচার চালাচ্ছে। আ'লীগের এই নেতা বলেন, বর্তমান সরকারের বিরুদ্ধে বিএনপি দুই লাখ কোটি টাকা লুটের তথ্য ও অভিযোগ সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। আমরা এ ধরনের মিথ্যা ও বিভ্রান্তিমূলক বক্তব্য প্রত্যাহারের দাবি জানাচ্ছি। বর্তমান সরকার আর্থিক খাতসহ দেশ পরিচালনার সর্বক্ষেত্রেই স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতায় বিশ্বাসী। রাজ্জাক বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃক ফার্মার্স ব্যাংক লিমিটেডকে ২০১৩ সালে লাইসেন্স প্রদান করা হয়। পরবর্তীতে ব্যাংকিং কার্যক্রম পরিচালনাকালে নানাবিধ অনিয়মের বিষয়টি কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নজরে আসলে কেন্দ্রীয় ব্যাংক কর্তৃক যথাযথ প্রক্রিয়া অনুসরণ করে ব্যাংকটির কার্যক্রম নিয়মিত পর্যবেক্ষণের আওতায় নিয়ে আসা হয়। এছাড়াও একজন বিদ্যমান সাংসদসহ ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের প্রভাবশালী সদস্যদেরকে পদত্যাগে বাধ্য করা হয়। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাগণ ও জড়িত পরিচালকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বিষয়টি দুদকের তদন্তাধীন রয়েছে। একই সাথে ব্যাংকটির ব্যবস্থাপনা পরিচালককে কেন্দ্রীয় ব্যাংক অপসারণ করেছে, মামলাও করেছে। তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশ ইসলামী ব্যাংক লিঃ এর মালিকানা পরিবর্তনের ফলে ব্যাংকটিতে আর্থিক সংকটের সৃষ্টি হয়েছে এ ধরনের তথ্য ভিত্তিহীন এবং বিভ্রান্তিকর। সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ড. আবদুস সোবাহান গোলাপ প্রমুখ।
ডাবল মার্ডারের আসামিদের গ্রেফতার দাবিতে মানববন্ধন নোয়াখালীতে
নোয়খালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার একলাশপুরে চাঞ্চল্যকর ডাবল মার্ডারের আসামি সুমন এবং তার সহযোগী খুনিদের গ্রেফতার ও ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন করেছে একলাশপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ও এলাকাবাসী। একলাশপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের উদ্যোগে রোববার দুপুর ১২টায় নোয়াখালী প্রেসক্লাব প্রাঙ্গণে ঘণ্টাব্যাপী এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়। মানববন্ধন কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখেন- বেগমগঞ্জ উপজেলা কৃষকলীগের দপ্তর সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, উপজেলা যুবলীগ নেতা আবদুল ওহাব, শরীফপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা মন্নান, শরীফপুর ইউনিয়ন যুবলীগের আহ্বায়ক মিজানুর রহমান মিশন, নিহত মোহাম্মদ আলীর বাবা সোলায়মান, ভাই ও হত্যা মামলার বাদী শরাফত আলী প্রমুখ। বক্তারা জানান, স্থানীয় সন্ত্রাসী খালাসি সুমন ও তার বাহিনীর অপ্রতিরোধ্য অত্যাচারের শিকার হয়ে বেগমগঞ্জ উপজেলার অসহায় বিভিন্ন পরিবারসহ অসংখ্য ব্যবসায়ী নিরুপায় হয়ে প্রাণভয়ে তাদের বাড়িঘর ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ফেলে রেখে জীবন রক্ষার্থে অন্যত্র চলে যায়। আত্মগোপনে থাকার কারণে এখন প্রশাসনের সামনে দিয়ে দিব্যি চলাফেরা করছে আসামিরা। মানববন্ধনে অংশ নেওয়া শত শত মানুষের একটাই দাবি সন্ত্রাস চাঁদাবাজ ও সীমাহীন অপকর্মের নায়ক একাধিক হত্যা মামলার আসামি খালাসী সুমনকে অবিলম্বে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে ফাঁসি কার্যকর করতে হবে। উল্লেখ্য, গত ১০ মার্চ নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলায় মোহাম্মদ আলী ও মোহাম্মদ রবিন নামে দু’জনকে কুপিয়ে ও গুলি হত্যা করেছে সন্ত্রাসীরা। উপজেলার এখলাসপুরের ভিআইপি রোডে এ ঘটনা ঘটে। নিহত দুজন সম্পর্কে চাচা-ভাতিজা ছিলেন। এ ঘটনায় সুমনকে আসামি করে মামলা করা হয়েছে। এছাড়াও সুমনের বিরুদ্ধে বেগমগঞ্জ থানায় ১০/১২টি মামলা রয়েছে বলে জানান মানববন্ধনে অংশগ্রহনকারী এলাকাবাসীরা।

সারা দেশ পাতার আরো খবর