গণতান্ত্রিক ও জবাবদিহিমূলক সরকার গঠন করা হবে :এম কিউ বদরুদ্দোজা চৌধুর
গত ২৭ জুলাই বিকেলে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জে এস ডি'র উদ্যোগে যুক্তফ্রন্টের গণসমাবেশ চট্টগ্রাম নগরীর পলোগ্রাউন্ড রেলওয়ে অফিসে অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত গণসমাবেশে সভাপতি করেন,চট্টগ্রাম মহানগর জেএসডি সভাপতি গোলাম জিলানী চৌধুরী প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন,বিকল্পধারা বাংলাদেশের সভাপতি ও যুক্তফ্রন্টের চেয়ারম্যান সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রফেসর ডাক্তার এম কিউ বদরুদ্দোজা চৌধুরী ।প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন, জেএসডির সভাপতি স্বাধীনতার প্রথম পতাকা উত্তোলক যুক্তফ্রন্টের নেতা আ স ম আব্দুর রব, বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন,নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক ও ডাকসুর সাবেক ভিপি মাহমুদুর রহমান মান্না ও বিকল্পধারার মহাসচিব মেজর অবঃ আবদুল মান্নান। আরো বক্তব্য রাখেন,জেএসডি কেন্দ্রীয় যুগ্ন সাধারন সম্পাদক শহিদ উদ্দিন মাহমুদ স্বপন, এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন আব্দুল বাতেন বিপ্লব, এয়ার আহমদ, আব্দুল মালিক গাজী অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন, অধ্যাপক ইসহাক উদ্দিন চৌধুরী সরওয়ার আজম আরজু। প্রধান বক্তার বক্তব্যে আ স ম আব্দুর রব বলেন, স্বাধীনতার যুদ্ধ যে স্বপ্ন নিয়ে করেছিলাম, তা আজ ভেস্তে গেছে। সংবিধানের উল্লেখ থাকলেও জনগণ সকল ক্ষমতার মালিক নয়, সরকারই সকল ক্ষমতার মালিক । বর্তমান সরকার জনগণকে কোন সম্মান দিচ্ছে না, লুটে নিচ্ছে সবক্ষেত্রে রাষ্ট্রের সকল প্রতিষ্ঠান ভেঙে গেছে। ঘুষ ছাড়া কোন চাকরি হয় না। হাজার কোটি টাকার লুটপাট দুর্নীতি হলো তার বিচার হয় না, রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম জিয়াকে মাত্র তিন কোটি টাকার জন্য জেল হয়। দীর্ঘদিন জেলে বন্দী রাখা হয়েছে। এটা একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে এ সংস্কৃতি দিয়ে চলতে পারে না, অবিলম্বে সংসদ ভেঙ্গে দিয়ে এবং প্রধানমন্ত্রীকে পদত্যাগ করে সেনাবাহিনীকে ম্যাজিস্ট্রেটি ক্ষমতা দিয়ে আগামী নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করার দাবি জানান। যুক্তফ্রন্ট সকল স্বৈরাচারের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে নির্বাচন করবে। সমাবেশ করা জনগণের নাগরিকের সাংবিধানিক অধিকার আগামীতে আমরা জনগণকে নিয়ে সমাবেশ করবো। আমাদের এই এ সমাবেশ করতে ,বর্তমান সরকারের প্রশাসন বাঁধা দিয়েছে, এটা গণতান্ত্রিক ব্যবস্থার পরিপন্থী। তিনি আরো বলেন.আজ মানুষের নিরাপত্তা নাই ছোট্ট শিশু ধর্ষণের শিকার হচ্ছে ঘরের ভিতরে থাকলে খুন হচ্ছে, বাইরে গেলে ধরে নিয়ে ক্রসফায়ারে দেওয়া হচ্ছে। অনেক মানুষকে গুম করা হয়েছে। মানুষ হত্যা কোন ধর্মে অনুমোদন নাই। আমাদের সংবিধানে ক্রসফায়ারে মানুষ মারার বিষয় উল্লেখ নাই। অন্যায় অবিচার করে বেশিদিন টিকে থাকা যায়। না গণ আন্দোলন মুখে পালিয়ে যাওয়ার আগে নিরপেক্ষ অবাধ নির্বাচন দিন বা জাতীয় সংলাপে সবাইকে ডাকুন। প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে তিনি আরও বলেন, আজ আপনার চারপাশের লোকেদের কথায় আপনি অন্ধ হয়ে গেছেন, আপনার জনপ্রিয় শূন্যের কোটায় এখনো সময় আছে সংশোধন হোন। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, দেশে কোন উন্নয়ন নাই সবকিছু হচ্ছে লুটপাটের জন্য পদ্মা সেতু করার ক্ষেত্রে বড় দুর্নীতির আশ্রয় নিয়েছে সরকার। দেশের কয়লা সম্পদ যারা চুরি করেছে তাদেরকেও বিদেশ পালিয়ে যাবার সুযোগ করে দেওয়া হয়েছে। আজ গণতন্ত্র হাতুড়িতন্ত্রে পরিণত করেছে, সরকার কোটাবিরোধী আন্দোলনকে যে ভাবে দমন করা হয়েছে, তা সভ্য সমাজের অংশ হতে পারে না। হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর করা এবং হাসপাতাল থেকে বের করে দেওয়া, এটা অত্যন্ত অমানবিক। এ সরকার চরম স্বৈরাচারী সরকার। শিগগিরই এর বিরুদ্ধে গণআন্দোলন গড়ে তোলা হবে। যুক্তফ্রন্টে যারা আছেন তারা দুর্নীতি উর্ধ্বে, তাদের রাজনীতিক জীবনে কোন কলঙ্ক নেই, যেমন ডা.বদরুদ্দোজা, আ স ম আব্দুর রব. মেজর মান্নান। প্রধান অতিথির বক্তব্যে ডাঃ বি চৌধুরী বলেন, যুক্তফ্রন্টের মাধ্যমে আগামী নির্বাচনে সারাদেশে সংসদ নির্বাচন করা হবে। অবশ্যই আমরা দুর্নীতি সন্ত্রাসীদেব বিচার করবো, ব্যাংক লুটপাটকারীদের বিচার করা হবে। অবাধ গণতান্ত্রিক ও জবাবদিহিমূলক সরকার গঠন করা হবে, যুক্তফ্রন্ট সরকার গঠন করলে, সকল দ্রব্যমূল্যের নাগরিক সামর্থের ভিতর আনা হবে এবং ওষুধের দাম অর্ধেকের চেয়ে কমিয়ে আনা হবে ।এটা যুক্তফ্রন্টের মাধ্যমেই সম্ভব।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
বঙ্গবন্ধু ছাত্র-যুব উন্নয়ন পরিষদ চট্টগ্রাম মহানগর শাখার উদ্যোগে বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক
২৭ জুলাই ২০১৮ইং রোজ শুক্রবার বঙ্গবন্ধু ছাত্র-যুব উন্নয়ন পরিষদ চট্টগ্রাম মহানগর শাখার উদ্যোগে বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের ২৪তম প্রতিষ্ঠা বাষির্কী উদযাপন করা হয়। সংগঠনের প্রতিষ্ঠা সভাপতি ওয়েল গ্র“পের পরিচালক ও চট্টগ্রাম সংসদীয়-৮ আসনের তরুন সমাজের প্রিয়মূখ সৈয়দ আলহাজ্ব নজরুল ইসলাম প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। উক্ত অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন আমিরুল ইসলাম শাহনুর, এডভোকেট মোঃ ইলিয়াছ, আবু মোঃ মোরশেদ, আবিব বাবুজী, বিভূতি দাশ বিভুু, জাহাঙ্গীর আলম শুক্কুর, বিজয় আইচ, আলহাজ্ব আবদুল মন্নান, মোঃ জাফর, মোঃ রফিকুল আলম বাপ্পী, মোঃ ফারুক, মোঃ হোসেন, যিশু দাশ, মোস্তাফিজুর রহমান রনি, মোঃ গিয়াসুদ্দীন, মোঃ দিদার, যুবলীগ নেতা জসীম উদ্দিন, কাজী মামুন, তসলিম উদ্দীন, মোঃ শফি, মোঃ সরোওয়ার, মোহাম্মদ সান, ছৈয়দ আরিফ, হারুনরুর রশিদ, জীম ও কামাল, ছাত্রলীগ নেতা মহিম গাজী, সাইফুল, শাকিব, আরাফাত, সৈৗরভ, সাইমন, শাহেদ রনি, সাজ্জাদ, নাঈম প্রমুখ ।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর আলোচনা সভায় সিটি মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দিন, জঙ্গি-সন্ত্রাসবাদ ও মাদকমুক্ত অসা
বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ চট্টগ্রাম মহানগরের উদ্যোগে সংগঠনের ২৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বর্ণাঢ্য কর্মসূচী পালন করা হয়েছে। নগরীর মুসলিম হল প্রাঙ্গণে কর্মসূচী বেলুন ও স্বেতকপোত উড়িয়ে উদ্বোধন করা হয়। পরবর্তীতে আলোচনা সভা চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক এড. এ.এইচ.এম জিয়া উদ্দীনের সভাপতিত্বে ও যুগ্ম আহ্বায়ক মো: সালাউদ্দিনের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সিটি মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দিন। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন মহানগর আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ ও সিডিএ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আবদুচ ছালাম। বক্তব্য রাখেন মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক ও চউক এর বোর্ড সদস্য কে.বি.এম শাহজাহান, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য নুরুল কবির, সত্যজিৎ চক্রবর্ত্তী সুজন, আনোয়ারুল ইসলাম বাপ্পী, পংকজ চৌধুরী কঙ্কন, জিয়া আমানত মোরশেদ হায়াৎ নয়ন ও মহানগর আওতাধীন বিভিন্ন থানা ও ওয়ার্ডের সভাপতি/সম্পাদকবৃন্দ। প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিটি মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দিন বলেন, চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ মহানগর রাজনীতিতে একটি স্বচ্ছ ও সুসংগঠিত সংগঠন। এ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ চট্টগ্রামে পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদ হিসেবে নিজেদের প্রতিষ্ঠিত করেছে। তিনি বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা ও গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, বিশ্বশান্তির অগ্রদূত, মানবতাবাদী নেত্রী, ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার রূপকার জননেত্রী শেখ হাসিনা ঘোষিত ভিশন-২০২১ বাস্তবানে স্বেচ্ছাসেবক লীগকে ভ্যানগার্ডের ভূমিকা পালন করতে হবে। প্রিয়নেত্রী ঘোষিত যে কোন কর্মসূচী তথা আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে যাকে মনোনয়ন দেবেন তার পক্ষে মাঠ পর্যায়ে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে হবে। বর্তমানে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হয়েছে। আগামীতে আওয়ামী লীগ পুনরায় দেশ পরিচালনার দায়িত্বে আসলে বাংলাদেশ একটি উন্নত রাষ্ট্রে পরিণত হবে। তিনি আরো বলেন, চট্টগ্রামের উন্নয়নও আজ গতিশীল রয়েছে, অচিরেই চট্টগ্রামের চেহেরা পাল্টে যাবে। আগামী নির্বাচন নিয়ে বিএনপি ও স্বাধীনতা বিরোধী চক্র ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে, তাদের চক্রান্তের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর জন্য তিনি নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার উদাত্ত আহ্বান জানান। আলোচনা সভাশেষে কেক কেটে এক বর্ণাঢ্য রcলী নগরীর গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে। প্রেস বিজ্ঞপ্তি
বঙ্গবন্ধু জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে স্কুলভিত্তিক কর্মসূচীর মাধ্যমে ছাত্র-ছাত্রীদেরকে বঙ্গবন্
২০২০ সালে বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী উদ্যাপন করা হবে, ২০২১ সালে স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী পালন করার প্রস্তুতি চলছে। এ উপলক্ষে আমাদের প্রিয় নেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ২০২০, ২০২১ সালকে বঙ্গবন্ধু বর্ষ ঘোষণা করেছেন। আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে কৃতজ্ঞতা জানাই, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু না হলে এদেশ স্বাধীন হতো না। আমরা স্বাধীন হয়েছি, কিন্তু জাতির পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে পারিনি এখনো। আমাদের প্রিয় নেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অবদান চট্টগ্রামে আলোড়ন সৃষ্টি করেছে তাঁর হাত শক্তিশালী করার শপথ নিতে হবে। চট্টল ইয়ূথ কয়ার এর উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে স্কুলভিত্তিক কর্মসূচীর মাধ্যমে ছাত্র-ছাত্রীদেরকে জাতির পিতা সম্পর্কে ধারণা দিতে হবে। ২৭ জুলাই ২০১৮ইং সকাল সাড়ে ৯টায় সিডিএ গার্লস্ স্কুল এন্ড কলেজে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক উৎসব ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের মাননীয় চেয়ারম্যান কর্মবীর আলহাজ্ব আবদুচ ছালাম উপরোক্ত বক্তব্য রাখেন। প্রধান শিক্ষক গাজীউল হকের সভাপতিত্বে স্বাগত বক্তব্য রাখেন কয়ার মহাসচিব অরুণ চন্দ্র বনিক। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন এম. লোকমান হাকিম, প্রণব রাজ বড়–য়া, সুজিত দাশ অপু, আবদুল্লাহ আল মামুন, রনি গোমেজ, শিউলী চৌধুরী, রিয়াজুল হক, সমীরণ দাশ ও ফটোসাংবাদিক সমীরণ পাল প্রমুখ। অনুষ্ঠানে কয়ার হাটহাজারী শাখার পক্ষ থেকে লোকমান হাকিম, মির্জা আহমেদ ইস্পাহানী স্মৃতি বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে আবদুল্লাহ আল মামুন, চান্দগাঁও থানা পূজা উদ্যাপনের পক্ষ থেকে সমীরণ দাশ, চান্দগাঁও থানা প্রজন্ম থেকে রিয়াজুল হক পৃথক পৃথক ভাবে চেয়ারম্যান মহোদয়কে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে কর্মবীর আলহাজ্ব আবদুচ ছালামকে চট্টল ইয়ূথ কয়ার ও চান্দগাঁও থানা পূর্জা উদ্যাপন পরিষদের পক্ষ থেকে সংবর্ধনা জ্ঞাপন করা হয়। প্রেস বিজ্ঞপ্তি
নাটোরের সিংড়ায় ইয়াবাসহ আটক যুবলীগ নেতা বহিষ্কার
অনলাইন ডেস্ক: নৈতিকতা ও সমাজবিরোধী অপরাধমূলক কর্মকান্ডে লিপ্ত থাকার অপরাধে নাটোরের সিংড়া উপজেলা যুবলীগের অর্থ সম্পাদক আঃ রউফকে বহিষ্কার করেছে উপজেলা যুবলীগ। শুক্রবার রাতে উপজেলা যুবলীগের সভাপতি শরিফুল ইসলাম শরিফ ও সাধারণ সম্পাদক কামরুল হাসান কামরান সাক্ষরিত এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেন তারা। যুবলীগের গঠনতন্ত্রের ২২ এর ক ধারা মোতাবেক উপজেলা যুবলীগের এ নেতাকে বহিষ্কার করে করা হয়। উল্লেখ্য, শুক্রবার ভোররাতে ১৭৫ পিস ইয়াবাসহ যুবলীগ নেতা আঃ রউফকে গ্রেফতার করে জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর। তারই প্রেক্ষিতে তাকে বহিষ্কার করা হয়েছে বলে সূত্রে জানা যায়।
মধ্যরাত থেকে বন্ধ হচ্ছে তিন সিটি নির্বাচনের প্রচার
অনলাইন ডেস্ক: রাজশাহী, বরিশাল ও সিলেট- এই তিন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে সব ধরনের প্রচার শনিবার (২৮ জুলাই) মধ্যরাত থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে বন্ধ হচ্ছে। দায়িত্বপ্রাপ্ত নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিবালয়ের যুগ্মসচিব ফরহাদ আহম্মদ খান জানান, ওই তিন সিটির ভোটার নন এমন বহিরাগতদের শুক্রবার মধ্যরাত থেকে সিটি কর্পোরেশন এলাকায় অবস্থান নিষিদ্ধ করা হয়েছে। আওয়ামী লীগ, বিএনপিসহ অন্যান্য দলের মনোনীত প্রার্থীসহ স্বতন্ত্র প্রার্থীরা নেতাকর্মীদের নিয়ে আজ শেষবারের মতো সিটি কর্পোরেশন এলাকায় প্রচার চালাচ্ছেন। রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে চারজন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এঁরা হলেন- আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন (নৌকা), বিএনপির মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন (ধানের শীষ), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর মো. শফিকুল ইসলাম (হাতপাখা) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. মুরাদ মোর্শেদ (হাতী)। বরিশাল সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে ছয়জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এঁরা হলেন- আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সেরনিয়াবাত সাদেক আবদুল্লাহ (নৌকা), বিএনপির মো. মজিবুর রহমান সরোয়ার (ধানের শীষ), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর ওবায়দুর রহমান মাহবুব (হাতপাখা), বাংলাদেশ কমিউনিস্ট পার্টির আবুল কালাম আজাদ (কাস্তে), বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দলের মনীষা চক্রবর্তী (মই) ও জাতীয় পার্টির প্রার্থী মো. ইকবাল হোসেন (লাঙ্গল)। সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে সাতজন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এঁরা হলেন- আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বদর উদ্দীন আহম্মদ কামরান (নৌকা), বিএনপির আরিফুল হক চৌধুরী (ধানের শীষ), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর ডা. মো. মোয়াজ্জেম হোসেন খান (হাতপাখা), বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দলের-বাসদ মো. আবু জাফর (মই) এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী এহসান মাহবুব জোবায়ের (টেবিল ঘড়ি), মো. এহসানুল হক তাহের (হরিণ) ও মো. বদরুজ্জামান সেলিম (বাস)। তিন সিটিতে ৫৩০ জন কাউন্সিলর প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। রাজশাহী সিটিতে ৩০টি সাধারণ ও ১০টি সংরক্ষিত ওয়ার্ড রয়েছে। এখানে ১৩৮টি ভোটকেন্দ্র ও ১ হাজার ২৬টি ভোটকক্ষ রয়েছে। বরিশাল সিটিতে ৩০টি সাধারণ ও ১০টি সংরক্ষিত ওয়ার্ড রয়েছে। এখানে ১২৩টি ভোটকেন্দ্র ও ৭৫০টি ভোটকক্ষ রয়েছে এবং সিলেট সিটিতে ২৭টি সাধারণ ও ৯টি সংরক্ষিত ওয়ার্ড রয়েছে। এখানে ১৩৪টি ভোটকেন্দ্র ও ৯২৬টি ভোটকক্ষ রয়েছে। নির্বাচনের নিরাপত্তায় ভোটগ্রহণের দুদিন আগে থেকে তিন সিটি কর্পোরেশনের প্রতিটি ওয়ার্ডে র‌্যাবের একটি টিম এবং প্রতি দুটি ওয়ার্ডে এক প্লাটুন করে ১৫ প্লাটুন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে। এরা নির্বাচনের পরদিন পর্যন্ত এলাকায় দায়িত্ব পালন করবেন। আরো ৪ প্লাটুন করে বিজিবি রিজার্ভ রাখা হয়েছে বলেও তিনি জানান। আচরণবিধি দেখভাল করতে নির্বাচনী এলাকায় নির্বাহী ও জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোতায়েন করা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ১৪ জুন থেকে ৯ জুলাই পর্যন্ত ২৪ দিন ১০ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তিন সিটিতে আচরণবিধি প্রতিপালন নিশ্চিত করতে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেছে। ১০ জুলাই থেকে ১ আগস্ট এই ২৩ দিন ১০ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট তিন সিটিতে আচরণবিধি প্রতিপালন নিশ্চিত করতে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করবে। এছাড়া নির্বাচনের দুদিন আগে থেকে পরদিন পর্যন্ত আচরণবিধি প্রতিপালন ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় প্রতি সিটিতে ২০ জন করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এবং আজ থেকে পরবর্তী চার দিন রাজশাহী ও বরিশালে ১০ জন করে এবং সিলেটে ৯ জন জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োজিত থাকবে। রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনে ৩ লাখ ১৮ হাজার ১৩৮ জন ভোটার রয়েছে। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৫৬ হাজার ৮৫ জন ও নারী ভোটার ১ লাখ ৬২ হাজার ৫৩ জন। বরিশাল সিটি কর্পোরেশনে ২ লাখ ৪২ হাজার ৬৬৬ জন ভোটার রয়েছে। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ২১ হাজার ৪৩৬ জন ও নারী ভোটার ১ লাখ ২০ হাজার ৭৩০ জন। সিলেট সিটি কর্পোরেশনে ৩ লাখ ২১ হাজার ৭৩২ জন ভোটার রয়েছে। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ৭১ হাজার ৪৪৪ জন ও নারী ভোটার ১ লাখ ৫০ হাজার ২৮৮ জন। কমিশন সূত্র জানায়, তিন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে তিন স্তরের নিরাপত্তা বলয় গড়ে তোলা হবে। এ নির্বাচনে ভোটের আগের দু’দিন থেকে ভোটের পরদিন পর্যন্ত মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্স পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবি মোতায়েন থাকছে। প্রতিটি সাধারণ ওয়ার্ডে পুলিশ, এপিবিএন ও ব্যাটালিয়ন আনসারের সমন্বয়ে একটি করে মোবাইল ফোর্স এবং প্রতি তিন ওয়ার্ডের জন্য একটি স্ট্রাইকিং ফোর্স থাকবে। গুরুত্বপূর্ণ ভোটকেন্দ্র পাহারায় ২৪ জন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হবে। বাকি সাধারণ ভোটকেন্দ্রে ২২ জন করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েনের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। ইসি সচিবালয়ের সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, তিন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বরিশালে ১০টি, রাজশাহীতে দুটি ও সিলেটে দুটি কেন্দ্রে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ব্যবহার করা হবে। রাজশাহী সিটিতে সৈয়দ আমিরুল ইসলাম, বরিশালে মুজিবুর রহমান ও সিলেটে মো. আলিমুজ্জামন রিটার্নিং কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করছেন।
কুমিল্লার চান্দিনায় সড়ক দুর্ঘটনায় ২ শ্রমিক নিহত
অনলাইন ডেস্ক: কুমিল্লার চান্দিনায় সড়ক দুর্ঘটনায় দুই শ্রমিক নিহত হয়েছে। এ সময় আহত হয়েছেন আরও দুজন। শনিবার (২৮ জুলাই) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের জেলার চান্দিনা উপজেলার নুরীতলা এলাকা এ দুর্ঘটনা ঘটে। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ঢাকা থেকে চট্টগ্রামগামী একটি কাভার্ডভ্যান নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে নুরীতলা এলাকার একটি দোকানে ঢুকে পড়লে সবুজ (৩০) ও মহসিন (২৩) নামে দুই শ্রমিক ঘটনাস্থলে মারা যায়। আহত অপর দুজনকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। নিহতদের মধ্যে সবুজ নাটোর জেলার সিংড়া থানার কালীনগর গ্রামের খৈয়ামের ছেলে এবং মহসিন একই গ্রামের হাফিজ উদ্দিনের ছেলে। নিহত দুই শ্রমিক ওই এলাকায় আশা জুট মিলে কাজ করত। ইলিয়টগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ও পরিদর্শক মো. মনিরুল ইসলাম জানান, বৃষ্টির জন্য শ্রমিক দুজন একটি দোকানের নিচে দাঁড়িয়েছিল। এ সময় একটি কাভার্ডভ্যান নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে তাদের ধাক্কা দিলে ঘটনাস্থলেই তারা মারা যান। দুর্ঘটনাকবলিত কাভার্ডভ্যানটি আটক করা হয়েছে। আলোকিত বাংলাদেশ
নবজাতক কন্যা শিশু উদ্ধার
অনলাইন ডেস্ক: পিরোজপুরের কৃষ্ণনগর এলাকা থেকে এক নবজাতক কন্যা শিশুকে উদ্ধার করেছে পুলিশ। শনিবার ভোররাতে সদর উপজেলার কৃষ্ণনগর এলাকার মন্দিরের সামনে থেকে শিশুটিকে উদ্ধার করা হয়। শিশুটি বর্তমানে পিরোজপুর সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। স্থানীয় সবিতা রায় জানান, গতকাল রাত সাড়ে তিনটায় একটি শিশুর কান্নায় তার ঘুম ভাঙ্গে। স্বামীসহ তিনি ঘর থেকে বের হলে মন্দিরের গেটে শপিং ব্যাগের ভিতরে একটি নবজাতক কন্যা শিশুকে দেখতে পান। সে সময় তিনি বিষয়টি প্রতিবেশী এবং পুলিশকে খবর দেন। খবর পেয়ে পুলিশ এসে শিশুটিকে উদ্ধার করে। সদর হাসপাতালে আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. ননী গোপাল রায় জানান, শিশুটির বয়স একদিন হবে। জন্মের পরপরই তাকে ওই খানে ফেলে রাখা হয়েছিল এবং শিশুটির নাভী থেকে রক্ত পড়ছিল। তবে বর্তমানে শিশুটি সুস্থ আছে এবং তার চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। সদর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম জিয়াউল হক বলেন, শিশুটিকে উদ্ধারের পরে তার চিকিৎসার জন্য সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পরবর্তিতে আইনানুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
সবচেয়ে দীর্ঘতম চন্দ্রগ্রহণ আজ
অনলাইন ডেস্ক: হতে চলেছে একবিংশ শতাব্দীর সবচেয়ে দীর্ঘতম চন্দ্রগ্রহণ। আজ শুক্রবার দিবাগত রাতে চাঁদ ঘুরতে ঘুরতে প্রবেশ করবে একেবারে পৃথিবীর ছায়ার মধ্যে। যার স্থায়িত্ব হবে ১ ঘণ্টা ৪৩ মিনিট। যা সময়ের দিক থেকে এই শতাব্দীর সবচেয়ে দীর্ঘতম চন্দ্রগ্রহণ। বাংলাদেশের শুধু গ্রহণ হওয়াই নয়, চাঁদ সূর্যের আলো বিকিরণ করে লাল হয়ে যাবে। অর্থাৎ ব্লাড মুনও দেখা যাবে একইসঙ্গে। নাসা এমন তথ্য জানায়। খবর ইয়াহু নিউজ। বাংলাদেশের মানুষও দেখতে পাবেন এই চন্দ্রগ্রহণ। আবহাওয়া অধিদপ্তরের তথ্য মতে, বাংলাদেশ সময় শুক্রবার রাত ১১টা ১৩ মিনিট ৬ সেকেন্ড থেকে শনিবার ভোর ৫টা ৩০ মিনিট ২৪ সেকেন্ড পর্যন্ত চন্দ্রগ্রহণের পুরো ঘটনাটি ঘটবে। এর মধ্যে পূর্ণগ্রহণ শুরু হবে রাত ১টা ৩০ মিনিটে; আর পূর্ণগ্রহণ শেষ হবে রাত ৩টা ১৩ মিনিট ৩৬ সেকেন্ডে। আকাশ মেঘমুক্ত থাকলে দেশের সব বিভাগ থেকেই গ্রহণটি পুরোপুরি দেখা যাবে। পৃথিবীর সব জায়গা থেকে এই চন্দ্রগ্রহণ দেখা যাবে না। উত্তর ও দক্ষিণ আমেরিকার মানুষ এই গ্রহণ দেখতে পাবেন না। আফ্রিকা, মধ্যপ্রাচ্য, ভারত, বাংলাদেশ, অস্ট্রেলিয়া ও ইউরোপের কিছু দেশ থেকে চন্দ্রগ্রহণ দেখা যাবে। এর আগে এত বেশিক্ষণ ধরে চন্দ্রগ্রহণ এই শতাব্দীতে কোনও দিন হয়নি। দেড় ঘণ্টার বেশি সময় চন্দ্রগ্রহণ হয়েছে এমনটা নিশ্চয়ই দেখা গিয়েছে। এবার আরও বেশি সময় লাগবে। ফলে এবারের গ্রহণ নিঃসন্দেহে অভিনব ঘটনা হতে চলেছে। এর আগের চন্দ্রগ্রহণ হয় ২০১১ সালের ১৫ জুন । সেটা ১০০ মিনিট স্থায়ী হয়েছিল। ২০০০ সালের ১৬ জুলাই মাসে চন্দ্রগ্রহণ হয় ১০৭ মিনিট স্থায়ী। ১৯৮২ সালে চন্দ্রগ্রহণ হয় ১০৭ মিনিট ও ১৯৩৫ সালে চন্দ্রগ্রহণ হয় ১০১ মিনিট স্থায়ী। এবারে চন্দ্রগ্রহণ ১ ঘণ্টা ৪৩ মিনিট স্থায়ী হতে চলেছে। নতুন আকর্ষণ নতুন শতাব্দীতে এটাই হতে চলেছে সবচেয়ে বড় চন্দ্রগ্রহণ। এর আগে সুপার ব্লাড ও ব্লু মুন একসঙ্গে দেখেছে পৃথিবীর মানুষ। এবারের চন্দ্রগ্রহণও একইরকমের আকর্ষণ হতে চলেছে। বিশেষ করে এবার ভারতে ভালো করে চন্দ্রগ্রহণ দেখা যাবে। বিশেষ তাৎপর্য এতক্ষণ ধরে চন্দ্রগ্রহণের কারণ চাঁদ পৃথিবীর মধ্যভাগের ছায়ার মধ্যে দিয়ে বেরিয়ে যাবে। এটাকে বলা হচ্ছে উমব্রা। এক্ষেত্রে পৃথিবী ও চাঁদের অবস্থান গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। পৃথিবী সূর্য থেকে সবচেয়ে দূরে অবস্থান করবে। আর চাঁদ পৃথিবী থেকে সবচেয়ে দূরে অবস্থান করবে। উল্লেখ্য, সাধারণত পৃথিবী থেকে চাঁদের গড় দূরত্ব তিন লাখ ৮৪ হাজার কিলোমিটার। চাঁদ যেহেতু একটি উপবৃত্তাকার কক্ষপথে ঘোরে, তাই ঘুরতে ঘুরতে কোনও সময় পৃথিবীর কাছে চলে আসে আবার দূরেও চলে যায়। চাঁদ পৃথিবীর সর্বাধিক কাছে তিন লাখ ৫৬ হাজার কিলোমিটারে চলে আসে। আবার দূরে গেলে সর্বাধিক চার লাখ ছয় হাজার কিলোমিটার দূরে চলে যায়। আগামী ২৭ জুলাই পৃথিবী থেকে চাঁদের দূরত্বও প্রায় ৪ লাখ ৬ কিলোমিটারের কাছাকাছি থাকবে।

সারা দেশ পাতার আরো খবর