রাজশাহীতে আনসার-আল ইসলামের সদস্য গ্রেফতার
২৮আগস্ট,শুক্রবার,রাজশাহী প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: রাজশাহীতে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন আনসার-আল ইসলামের এক সদস্যকে গ্রেফতার করেছে Rab। বৃহস্পতিবার (২৭ আগস্ট) দিবাগত রাত ১০টার দিকে জেলার পুঠিয়া উপজেলার রঘুরামপুর গ্রামে অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়। আজ শুক্রবার দুপুরে Rab এর এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। গ্রেফতার ইসমাইল হোসেন (২৪) খাগড়াছড়ি জেলার মাটিরাঙ্গা থানার পলাশপুর গ্রামের গোলাম মোস্তফার ছেলে। Rab-5 এর জনসংযোগ দপ্তর থেকে ই-মেইলে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, রাজশাহী Rab এর মোল্লাপাড়া ক্যাম্পের একটি দল বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১০টার দিকে জেলার পুঠিয়া উপজেলার রঘুরামপুর গ্রামে অভিযান চালিয়ে ইসমাইলকে গ্রেফতার করে। এ সময় তার কাছ থেকে সাতটি উগ্রবাদী বই ও একটি লিফলেট উদ্ধার করা হয়। শুক্রবার সকালে তার বিরুদ্ধে পুঠিয়া থানায় সন্ত্রাসবিরোধী আইনে একটি মামলা হয়েছে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।
রাজবাড়ীতে বটম ক্লিন রেসওয়ে পদ্ধতিতে হচ্ছে মাছ চাষ
২৬আগস্ট,বুধবার,মো.ইমামুল হোসেন,রাজবাড়ী প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: অল্প জমিতে বেশি উৎপাদনের লক্ষ্যে রাজবাড়ীতে বটম ক্লিন রেসওয়ে পদ্ধতিতে করা হচ্ছে মাছ চাষ। এ পদ্ধতিতে স্বাভাবিকের চেয়ে চার গুণ বেশি মাছ উৎপাদন সম্ভব বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। কম সময়ে বেশি লাভ হওয়ায় দিন দিন জনপ্রিয় হয়ে উঠছে বটম ক্লিন রেসওয়ে পদ্ধতি। প্রতিদিন দূরদূরান্ত থেকে পরামর্শ নিতে আসছেন নতুন উদ্যোক্তারা। রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দ পৌরসভার মেয়র শেখ মো. নিজাম, রিয়াজউদ্দিনপাড়ায় ২৫০ বিঘা জমিতে তৈরি করেছেন গোয়ালন্দ হ্যাচারি অ্যান্ড ফিশারিজ। এতদিন সনাতন পদ্ধতিতে এখানে মাছ চাষ করেছেন তিনি। গত বছরের মাঝামাঝি সময়ে এক বন্ধুর পরামর্শ নিয়ে এখানে সংযোজন করেন মাছ চাষের আধুনিক ও নতুন এক পদ্ধতি, যার নাম বটম ক্লিন রেসওয়ে। এ পদ্ধতিতে পুকুরের তলদেশে জমে থাকা আবর্জনা পরিষ্কার হবে। আবার রেসওয়ে মাধ্যমে তৈরি হবে অক্সিজেন, যা মাছকে দ্রুত বৃদ্ধি করতে সহায়তা করবে। পরীক্ষামূলকভাবে একটি পুকুরে চাষ করে লাভবান হওয়ায় আরো তিনটি পুকুরে এ পদ্ধতিতে শুরু করেছেন মাছ চাষ। গত সোমবার সকালে গোয়ালন্দ উপজেলার রিয়াজউদ্দিনপাড়া এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, সেখানে চলছে বিশাল কর্মযজ্ঞ। পৃথকভাবে প্রত্যেকটি পুকুরের যত্ন নিচ্ছেন শ্রমিকরা। কেউ খাবার দিচ্ছেন আবার কেউ রেসওয়ে মেশিন পরিচালনা করছেন। এ সময় গোয়ালন্দ ফিশারিজ ও হ্যাচারির সার্বিক তত্ত্বাবধানে থাকা মো. নুরুল ইসলাম জানান, সনাতন পদ্ধতিতে মাছ চাষে লোকসানের সম্ভাবনা রয়েছে। কিন্তু আধুনিক এ পদ্ধতিতে লাভের সম্ভাবনা শতভাগ। বর্তমানে কার্পজাতীয় মাছের পাশাপাশি দেশীয় প্রজাতির, টেংরা, শিং, বাইন ও পাবদা মাছের চাষ করা হচ্ছে এখানে। আর মাছের রোগবালাই নিয়ন্ত্রণে রয়েছে সার্বক্ষণিক নজরদারি। এখানে প্রতিটি পুকুরের জন্য আলাদাভাবে শ্রমিক নিয়োগ করা আছে। সব মিলিয়ে প্রতিদিন ১০০ শ্রমিক কাজ করেন এখানে। এদিকে গোয়ালন্দ ফিশারিজ অ্যান্ড গোয়ালন্দ হ্যাচারিকে গোয়ালন্দ এগ্রি ট্যুরিজম হিসেবে রূপ দিতে চলমান রয়েছে কাজ। এ কাজের দায়িত্বে থাকা কুদ্দুস আলম জানান, গোয়ালন্দ পৌরসভার মেয়রের ইচ্ছা শুধু ব্যবসা নয়। পাশাপাশি এলাকার মানুষকে বিনোদন দেয়া। মানুষ যাতে একটু ভালো পরিবেশে হাঁটাচলা করতে পারে, দূর থেকে মানুষ এসে একটু বিনোদন উপভোগ করতে পারে, সেজন্যই গোয়ালন্দ ফিশারিজকে গোয়ালন্দ এগ্রি ট্যুরিজম হিসেবে রূপ দেয়ার কাজ চলছে। এছাড়া গোয়ালন্দ ফিশারিজের নতুন নতুন পদ্ধতি অবলম্বন করায় এলাকার শতাধিক মানুষের কর্মসংস্থান হয়েছে। গোয়ালন্দ পৌরসভার মেয়র ও গোয়ালন্দ ফিশারিজ অ্যান্ড হ্যাচারির মালিক শেখ মো. নিজাম বলেন, রিয়াজউদ্দিনপাড়ার ২৫০ বিঘা জমিতে আমাদের হ্যাচারি ও ফিশারির ব্যবসা চলছিল। ফিশারিজ সেক্টরের পরিবর্তন আনতে আমি প্রথমে ১০০ শতাংশের একটি পুকুরে বটম ক্লিন রেসওয়ে পদ্ধতিতে মাছ চাষ শুরু করি। পুকুর তৈরিতে একটু বেশি খরচ হলেও সেটি করতে হয় একবারই। তবে এ পদ্ধতিতে লাভ হওয়ার সম্ভাবনা শতভাগ। সফলতা পাওয়ায় আমি এখন চারটি পুকুরে এ পদ্ধতি অবলম্বন করছি। এতে মেশিনের সাহায্যে পুকুরের তলদেশের ময়লা-আবর্জনা পরিষ্কার করছি। আবার পানির উপরে রেসওয়ে পদ্ধতির কারণে প্রতিনিয়ত অক্সিজেন তৈরি হচ্ছে, যে কারণে মাছের বৃদ্ধি হচ্ছে দ্রুত। তিনি আরো বলেন, গোয়ালন্দ ফিশারিজকে আমি এগ্রো ট্যুরিজম সেন্টারে রূপ দেব। সেই জন্য এখানে সাড়ে চার কিলোমিটার এলাকায় রাবার বট গাছ লাগানো হয়েছে। এখানে সড়কের দুই পাশে থাকবে দৃষ্টিনন্দন ফুলের গাছ। প্রতিদিন সকালে ও বিকালে বয়স্করা হাঁটার সুযোগ পাবেন। থাকবে বসার ব্যবস্থা ও ক্যান্টিন।
ভালুকায় যুবলীগের উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবস পালন
২৫আগস্ট,মঙ্গলবার,মামুন সরকার,ভালুকা,নিউজ একাত্তর ডট কম: ময়মনসিংহের ভালুকায় জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের সকল শহীদদের ৪৫তম শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে কোরআন খতম, আলোচনা সভা, দোয়া মাহফিল ও তবারক বিতরণ করা হয়েছে। ২৫ আগস্ট মঙ্গলবার দুপুরে ডাকাতিয়া ইউনিয়ন যুবলীগের আয়োজনে আংগারগাড়া বাজারে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। ডাকাতিয়া ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি হারুন অর রশিদের সভাপতিত্বে ও সাধারন সম্পাদক আবদুল্লাহ আল বাবুলের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, স্থানীয় সাংসদ আলহাজ্ব কাজিম উদ্দিন আহাম্মেদ ধনু। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক সাবেক উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব গোলাম মোস্তফা, উপজেলা যুবলীগের সাধারন সম্পাদক এজাদুল হক পারুল, পৌর যুবলীগের সভাপতি আলমগীর হোসেন সোহেল, ডাকাতিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব সাইফুল ইসলাম। এসময় অন্যান্নদের মাঝে আরও উপস্থিত ছিলেন, ডাকাতিয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সাধারন সম্পাদক শামছুল হক মনি, উপজেলা যুবলীগ সহ-সভাপতি মশিউর রহমান রুবেল, পলাশ মানিক, মকবুল হোসেন পাঠান, প্রচার সম্পাদক জনম মিস্ত্রি, সোনার বাংলা ডিগ্রী কলেজের প্রভাষক আতাউর রহমান কামাল, ডাকাতিয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আবুল কালাম আজাদ লেবু, যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক নূরে আলম জিকু, বীর মুক্তিযোদ্ধা হাজ্বী বিল্লাল হোসেন, ইউনিয়ন শ্রমিকলীগ সভাপতি আসাদুজ্জামান খান দুদু, ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি মিনহাজুল আবেদিন, ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি আল আমিন মন্ডল, সাধারন সম্পাদক শরিফ হাসান কাকন প্রমুখ।
ফমেকে হাই-ফ্লো মেশিন দিল ইউনিগ্যাস
২৫আগস্ট,মঙ্গলবার,মো.ইনজামুল হক,ফরিদপুর প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: চলমান করোনা পরিস্থিতিতে মানবসেবায় অবদান হিসেবে ইউনিটেক্স এলপি গ্যাসের পক্ষ থেকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে হাই-ফ্লো হিটেড রেসপিটরি হিউমিডিফায়ার মেশিন হস্তান্তর করা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার দুপুরে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল অডিটোরিয়ামে এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ইউনিটেক্স এলপি গ্যাসের ডিরেক্টর (অপারেশন) মো. জোবাইদুল ইসলাম চৌধুরী ফমেক হাসপাতালের পরিচালক ডা. মো. সাইফুর রহমানের কাছে এ মেশিন হস্তান্তর করেন। এ সময় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, ইউনিটেক্সের প্রজেক্ট ডিরেক্টর আবদুর রহমান, চিফ মার্কেটিং অফিসার মো. মাসুদুজ্জামান, বিএমর সাধারণ সম্পাদক ডা. মাহফুজুর রহমানসহ ফমেক হাসপাতালের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ।
মৌলভীবাজারে অগ্নিকাণ্ডে বসতবাড়িসহ ১৬ দোকান পুড়ে ছাই
২৪আগস্ট,সোমবার,মো.জুনাইয়েদ বিল্লাহ,মৌলভীবাজার প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে আকস্মিকভাবে সৃষ্ট অগ্নিকান্ডে ১৬টি দোকানঘর ও ১টি বসতবাড়ি পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। ফায়ার সার্ভিসের পাম্প নষ্ট থাকায় অগ্নিকান্ডে দেড় কোটি টাকার ক্ষতি সাধন হয়েছে বলে ক্ষতিগ্রস্তরা দাবি করেন। সোমবার ভোর ৫টায় মুন্সিবাজার ইউনিয়নের ঠাকুর বাজারে একটি মুদি দোকান থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়। পরে তা ছড়িয়ে পড়ে আসে পাশের দোকানে ও একটি বসতগৃহে। আগুন দেখে বাসুদেবপুর মসজিদের মোয়াজ্জিন আরজু মিয়া মসজিদের মাইকে এলাউন্স করে বিষয়টি এলাকাবাসীকে অবহিত করেন। এলাকাবাসী এসে কমলগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসকে কয়েকদফা ফোন করলে কেউ ফোন রিসিভ হয়নি। পরে স্থানীয় শুকুর মোল্লা নামে একব্যাক্তি ফায়ার ষ্টেশনে জানালে, অগ্নি নির্বাপক দল ঘটনাস্থলে যায়। ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা প্রায় আধাঘন্টা অতিবাহিত করেও পানির পাম্প চালু করতে না পারায় আগুনের লেলিহান শিখা দ্রুত গতিতে বৃদ্ধি পেতে থাকে। পরে অবস্থা বেগতিক দেখে শ্রীমঙ্গল ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেয়া হয়। আরও প্রায় এক ঘন্টা পর পার্শ্ববর্তী উপজেলা শ্রীমঙ্গল থেকে অগ্নি নির্বাপক দলের কর্মীরা এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন বলে জানান, সুব্রত দেব রায় নামে এক গণমাধ্যমকর্মী।তবে ততক্ষণে অগ্নিকান্ডে নান্নু স্টোর, দেওয়ান চালের দোকান, সাহবাগ ধানের দোকান, মামনি কনফেকশনারি, শাহজালাল ভেরাটিজ স্টোর, কে এম মেডিকেল হল, জননী মেডিকেল সেন্টার, মহিউদ্দিন কম্পিউটার, হাসিম টি স্টল, নকুল সেলুন, মকসন স্টোর, বাছির ফার্নিচার, মহসিন ভেরাইটিজ স্টোর, জুয়েল মিয়ার বসত বাড়ি, চন্দন সেলুন, হাফিজ ভেরাইটিজ স্টোর ও নজরুল মিয়ার গুদাম ঘর পুড়ে ছাই হয়ে যায়। এসময় উল্লেখিত দোকানের প্রায় দেড় কোটি টাকার ক্ষতি হয় বলে জানান তিনি। ঠাকুর বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মো.জইনউদ্দিন, ব্যবসায়ী মো: সালাউদ্দিন, রফিক মিয়া, আব্দুল্লা মিয়া জানান, কমলগঞ্জ নির্বাপক দলের এমন গাফিলতিতে ক্ষুব্ধ হয়ে উঠে উপস্থিত জনতা। তারা আগুন নিয়ন্ত্রণের পর দীর্ঘসময় কমলগঞ্জ অগ্নি নির্বাপক দলের গাড়ি আটকে রাখে। পরে কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশেকুল হক এর আশ্বাসে সাংবাদিক সুব্রত দেবরায় সঞ্জয় ও কমলগঞ্জ থানা পুলিশের এর মধ্যস্থতায় অগ্নি নির্বাপক দলের গাড়িটিকে ছেড়ে দেয় বিক্ষুদ্ধ জনতা। এ বিষয়ে শ্রীমঙ্গল ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার আজিজুল হক রাজন জানান, আমরা ঘটনার খবর পেয়ে শ্রীমঙ্গল থেকে এসে প্রায় একঘন্টার প্রচেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রনে আনতে পেরেছি। আমাদের আরও কিছুক্ষণ জানালে আগুনের ক্ষয়ক্ষতির পরিমান আরো কমানো যেত। তিনি জানান, কমলগঞ্জের পাম্পের ভিতরে কাঁদা প্রবেশ করায় প্রথমে পানি আসেনি। পরে তা পরিস্কার করার পর শ্রীমঙ্গল-কমলগঞ্জ দুই ইউনিট মিলেই আগুন নিয়ন্ত্রনে আনেন। কমলগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের লিডার আব্দুল কাদির জানান, আমরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করার চেষ্টা করেছি। আমাদের পানি পাম্পটি নষ্ট হওয়ায় কাজ করতে বিলম্ব হয়। কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: আশেকুল হক জানান, ফায়ার সার্ভিসের গাফিলতির কারণে এই অগ্নিকান্ডে ক্ষয়ক্ষতির পরিমান বৃদ্ধি পেয়েছে এটি তদন্তক্রমে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে যতাযত বিহিত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এ সময় তিনি আরো জানান, মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসক মহোদয়ের সাথে কথা বলে ক্ষতিগ্রস্থরা যাতে যতাযত ক্ষতিপূরণ পায় সে ব্যবস্থা করা হবে। আগুনের সূত্রপাত ও ফায়ার সার্ভিসের গাফিলতির কারণ অনুসন্ধানে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করার দাবী জানিয়েছেন ভুক্তভোগী এলাকাবাসী।
নোয়াখালীতে নদী ভাঙ্গন রোধে মানববন্ধন
২৩আগস্ট,রবিবার,মো.ইসমাইল,নোয়াখালি প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: নোয়াখালীর উপকূলীয় এলাকা কোম্পানীগঞ্জ, সুবর্ণচর ও হাতিয়া উপজেলার বিস্তীর্ণ এলাকা নদী ভাঙ্গনের হাত থেকে রক্ষায় সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা করে মানববন্ধন করেছে কয়েকশ মানুষ। গতকাল শনিবার শহরের মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের সৈয়দপুর বাজারে মানববন্ধন করে ভুক্তভোগীরা। একই সময় নদী ভাঙ্গন এলাকা পরিদর্শন করেন জেলা প্রশাসক খোরশেদ আলম। এ সময় তিনি বলেন, নদী ভাঙ্গন রোধে সরকার স্বল্প ও দীর্ঘ মেয়াদি পরিকল্পনা গ্রহণ করবে। মেঘনা নদীর ১০ কিলোমিটার তীরে বাঁধ নির্মাণ করা হবে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. জিয়াউল হক মীর, সুবর্ণচর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইবনুল হাসান ইভান, হাতিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার রেজাউল করিম, চর এলাহী ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক, মোহাম্মদপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ, চানন্দী ইউপি প্রশাসক আব্দুর রহিম।
ভালুকায় বাস-প্রাইভেটকার সংঘর্ষে নিহত ৬
২২আগস্ট,শনিবার,ময়মনসিংহ প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: ময়মনসিংহের ভালুকার সরকারী কলেজ এলাকায় প্রাইভেটকার ও বাসের সংঘর্ষে ২ নারী ও ১ শিশুসহ ৬জন নিহত হয়েছে। এ সময় আহত হন আরও দুইজন। শনিবার সকাল সাড়ে ৮ টার দিকে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে এই দুর্ঘটনা ঘটে। পুলিশ জানায়, ঢাকা থেকে ময়মনসিংহগামী প্রাইভেটকারের সাথে বিপরিত দিক থেকে আসা ইমাম পরিবহনের একটি বাসের সাথে সংঘর্ষ হয়। এতে প্রাইভেটকারে ৬ যাত্রী ঘটনারস্থলেই মারা যায়। আহত হন বাসের দুই যাত্রী। ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনাস্থল গিয়ে হতাহতদের উদ্ধার করে। বাসের চালকের বেপরোয়া গতি কারণেই এই দুর্ঘটনা ঘটেছে বলে জানান স্থানীয়রা।
মিরসরাইয়ে গ্রেনেড হামলা দিবসে আলোচনা ও দোয়া
২১আগস্ট,শুক্রবার,মিরসরাই প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম উত্তর জেলা ও মিরসরাই উপেজলা আওয়ামী লীগ কর্তৃক পৃথকভাবে ২১ আগস্টের ভয়াবহ গ্রেনেড হামলা দিবসের আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার ২১ আগস্ট সকালে চট্টগ্রাম নগরীর দোস্ত বিল্ডিং দলীয় কার্যালয়ে এই আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন,২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলা মূলত ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের ধারাবাহিকতা, সেদিন খুনীদের মূল লক্ষ্য ছিল বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনাকে হত্যা করা। আল্লাহর অশেষ রহমত ও মানুষের ভালোবাসার কারণে তিনি প্রাণে বেঁচে ফিরেছেন। কিন্তু নারী নেত্রী আইভি রহমানসহ অনেককে আমরা হারিয়েছি। বক্তারা অবিলম্বে খুনী চক্রের মূল হোতা তারেক জিয়াসহ খুনীদের ফাঁসির দাবী জানান। আজ সকালে দোস্ত বিল্ডিংস্থ কার্যালয়ে সংগঠনের প্রস্তবিত কমিটির সহ-সভাপতি ও মিরসরাই উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব জসিম উদ্দিনের সভাপতিত্বে এবং যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র দেবাশীষ পালিতের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় অন্যানদের মধ্যে আলোচনায় অংশ নেন প্রস্তাবিত কমিটির সহ সভাপতি আবুল কাশেম চিশতি, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক নুরুল আনোয়ার চৌধুরী বাহার,জসিম উদ্দিন শাহ, সাগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম তালুকদার,ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক জাফর আহমেদ, সাংস্কৃতিক সম্পাদক আলাউদ্দিন সাবেরী, কার্যনিবাহী সদস্য এস এম গোলাম রববানী, মো: সেলিম উদ্দিন, বখতেয়ার সাঈদ ইরান, উত্তর জেলা মহিলা আওয়ামী লীগ সাধারন সম্পাদিকা এড বাসন্তী প্রভা পালিত, জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি তানভীর হোসেন তপু ও সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম প্রমূখ। উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি জাহাঙ্গীর কবির চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও যুগ্ন সম্পাদক আবুল হোসেনের সঞ্চালনায় উপজেলা দলীয় কার্যালয়ে সকাল ১১টায় দোয়া ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। অন্যান্যের মধ্যে আলোচনায় সভায় বক্তব্য রাখেন সহ-সভাপতি সাহাব উদ্দিন আক্রমী, শাখাওয়াত উল্লাহ রিপন,মো.সরোয়ার হোসেন, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক নুজরুল ইসলাম, প্রচার সম্পাদক কামরুল ইসলাম, যুগ্ন সম্পাদক সাইফুল্লা দিদার, সাংগঠনিক সম্পাদক আনোয়ার হোসেন ইমন, দপ্তর সম্পাদক সৈয়দ মো. আলতাফ হোসেন, সদস্য আনোয়ার হোসেন সুজন প্রমুখ। পরর্বতী সময়ে ২১ আগস্ট নিহতদের আত্মার মাগফেরাত কামনায় দোয়া ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।
ফরিদপুরে দুই হাজার বন্যার্ত পরিবারে জেলা আওয়ামী লীগের খাদ্য সহায়তা
১৯,আগস্ট,বুধবার,জুবাইদা রহমান,ফরিদপুর প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: ফরিদপুরে দুই হাজার বন্যার্ত পরিবারের মাঝে খাদ্য সহায়তা প্রদান করেছে জেলা আওয়ামী লীগ। বুধবার সকাল ১১টায় সদর উপজেলার ডিক্রিরচর, নর্থচ্যানেল, চরমাধবদিয়া ও আলিয়াবাদ ইউনিয়নের বিভিন্নস্থানে বানভাসী মানুষের মাঝে এসব খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দেয়া হয়। এ সময় জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শামীম হকের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মাসুদ হোসেন, শামসুল হক ভোলা মাস্টার, জেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ঝর্না হাসান, যুবলীগের সাবেক প্রেসিডিয়াম মেম্বার ফারুক হোসেন, জেলা মহিলা লীগের সদস্য সচিব আইভি মাসুদ, মাহবুবুর রহমান খান, খলিফা কামালউদ্দিন, জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক স্বপন পাল, জেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি আক্কাস হোসেন, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম সাংগঠনিক সম্পাদক শামীম তালুকদার প্রমুখ। জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মাসুদ হোসেন জানান, ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে জেলা আওয়ামী লীগের নেয়া কর্মসূচির অংশ হিসেবে সদর উপজেলার চারটি ইউনিয়নে বন্যার্ত দুই হাজার পরিবারের মাঝে ১০ কেজি চাল, দুই কেজি আলু, এক কেজি করে ডাল, চিনি ও লবনসহ স্যালাইন ও পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট দেয়া হয়।

সারা দেশ পাতার আরো খবর