গাজীপুরের শ্রীপুরে বিদ্যুৎ বন্ধ হয়ে যায় আকাশে মেঘ দেখলেই
গাজীপুরের শ্রীপুরের ৭০ হাজার বিদ্যুৎ গ্রাহক নিয়মিত লোডশেডিংয়ে অভ্যস্ত হয়ে থাকলেও বৈশাখী হাওয়ায় দুর্ভোগ যেন মাত্রা ছাড়িয়ে যাচ্ছে। আকাশে মেঘের ঘনঘটা দেখা দিলেই বন্ধ করে দেওয়া হয় বিদ্যুৎ, যার প্রভাবে বিভ্রাটে পড়ে কষ্ট পোহাতে হচ্ছে সাধারণ মানুষের। পল্লীবিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষের তথ্যমতে, ময়মনসিংহ পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির-২ এর মাওনা জোনাল অফিস ও শ্রীপুর জোনাল অফিসের অধীনে শ্রীপুরে বিদ্যুৎ সঞ্চালন করা হয়। এই এলাকায় বিদ্যুৎ লাইন রয়েছে ১৬ কিলোমিটার এবং গ্রাহক রয়েছে ৭০ হাজার। ২৩টি ফিডারের মাধ্যমে দীর্ঘ এলাকার বিতরণব্যবস্থার জন্য রয়েছে ২২ জন লাইনম্যান। প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময় স্বল্পসংখ্যক জনবল দিয়ে কাজ করতে গিয়ে নানা ধরনের সমস্যা হয়। বিশেষ করে কালবৈশাখী ঝড়ের আশংকায় গ্রামীণ এলাকায় বিদ্যুৎ বন্ধ করা হয়। পরে তা চালু করতে অনেক সময় লেগে যায়। এভাবে প্রতিদিনই শ্রীপুরের বিভিন্ন এলাকায় ঝড় হওয়ায় বিভ্রাটে পড়ছে সাধারণ লোকজন। মাওনা উত্তরপাড়া গ্রামের দিদারুজ্জামান অভিযোগ করেন, প্রতি বছর ঝড় বৃষ্টির মৌসুম এলেই আমাদের এই সমস্যা দেখা দেয়। যা চলে পুরো বর্ষাকাল জুড়েই। এবারও গত এক সপ্তাহ ধরে এই সমস্যা তৈরি হচ্ছে। দীর্ঘদিনের এই সমস্যা হতে মুক্তির কোনো লক্ষণ দেখা যাচ্ছে না। একই এলাকার স্কুল শিক্ষক আজাহারুল ইসলাম জানান, আমাদের এলাকাটি শিল্প এলাকায় হওয়ায় সবাই বিদ্যুৎ ব্যবস্থার মাধ্যমে খাবারের পানি উত্তোলন করে থাকে। কিন্তু ঘণ্টার পর ঘণ্টা বিদ্যুৎ না থাকায় আমাদের অনেক কষ্ট করতে হয়। বিদ্যুতের ওপর নির্ভরশীল থাকায় শ্রীপুরের এলাকাগুলোতে এখন টিউবওয়েলের ব্যবহার নেই। আকাশের মেঘের ঘনঘটনায় ব্যবসা বাণিজ্যের অন্যতম স্থান মাওনা চৌরাস্তায় বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যবস্থা খুবই অপ্রতুল। এই এলাকার ব্যবসায়ীরাও বিকল্প বিদ্যুৎ ব্যবস্থা জেনারেটরের সাহায্য নিচ্ছেন। মোবাইল মার্কেটের ব্যবসায়ী শেখ সোহাগ জানান, গত কয়েকদিন ধরে বিদ্যুতের সরবরাহ ভালো না থাকায় তিনি মোবাইল মেরামত করতে পারছেন না, এতে তার আয়ে ঘাটতি দেখা দিয়েছে। শ্রীপুর সড়কের টিউবওয়েল স্থাপনকারী প্রতিষ্ঠানের পরিচালক সোহেল মিয়া জানান, তিনি উপজেলার গাজীপুর গ্রামের মফিজউদ্দিন নামের এক গ্রাহকের কাছে একটি টিউবওয়েল বিক্রি করছেন। গত দুই দিন বিদ্যুৎ ব্যবস্থা খারাপ থাকায় তার কারিগর ফিরে এসেছে। মাওনা সিটি হাসপাতালের ল্যাব ইনচার্জ দেলোয়ার হোসেন জানান, গত কয়েকদিনের বিদ্যুতের এই অবস্থার জন্য তার ল্যাবের মেশিনের চরম ক্ষতি হয়েছে। অনেক জরুরি রোগীকেও ফেরত দিতে হয়েছে। লোহাগাছ গ্রামের তাজউদ্দিন আহমেদ জানান, রাতে বিদ্যুৎ যায় সকালে আসে, আবার দুপুরে যায় পরদিন আসে এই আমাদের বিদ্যুৎ ব্যবস্থা। তবে দীর্ঘসময় বিদ্যুৎ না থাকলেও বিল ঠিকই আসে। আসলে আমাদের বলার মতো কোনো জায়গা নেই। মাওনা জোনাল অফিসের উপমহাব্যবস্থাপক কামাল পাশা জানান, প্রাকৃতিক দুর্যোগের ওপর কারো হাত নেই। ঝড়ে বিভিন্ন বিদ্যুৎ লাইন ক্ষতিগ্রস্ত থাকায় তা চালু করতে সময় ব্যয় হয়ে যায়। এজন্য হয়ত কারো সমস্যা হতে পারে তবে কর্তৃপক্ষের কোনো ধরনের গাফিলতি নেই।
টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলায় একটি ব্রিজের অপেক্ষা শেষ হয়নি ৪৭ বছরেও
টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলার কাউলজানী ও ফুলকি ইউনিয়নের সীমান্তবর্তী লাংগুলিয়া নদীর খাটরা এলাকায় প্রায় অর্ধ লাখ মানুষের যাতায়াতের একমাত্র ভরসা কাঠের সাঁকো। নদীটির ওপর নির্মিত কাঠের সাঁকোটিও এখন ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। স্থানীয়দের দীর্ঘদিনের দাবি থাকলেও স্বাধীনতার ৪৭ বছরেও এই নদীর ওপর একটি ব্রিজ নির্মাণের জন্য কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি। বিষয়টি নিয়ে প্রশাসনের কোনো মাথা ব্যথা নেই বললেই চলে। উপজেলার ফুলকি ইউনিয়নের ফুলকি ও খাটরাসহ কয়েকটি গ্রামের মানুষের উপজেলা সদরে পৌঁছানোর একমাত্র সড়ক এটি। এছাড়াও কাউলজানী বোর্ড বাজার এলাকায় সরকারি প্রাথমকি বিদ্যালয়, লুৎফা শান্তা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও কাউলজানী নওশেরিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের হাজারও শিক্ষার্থীসহ অর্ধ লাখ মানুষ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাঠের সাঁকো দিয়ে প্রতিনিয়ত যাতায়াত করছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছাড়াও কয়েকটি ব্যাংক রয়েছে কাউলজানী বোর্ড বাজারে। এছাড়াও কালিহাতী উপজেলার কয়েক হাজার মানুষ এ সড়কটি দিয়ে যাতায়াত করে। প্রায় ছয় বছর আগে নদীটির ওপর স্থানীয় সংসদ সদস্য ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের সহযোগিতায় গ্রামবাসীরা কাঠের সাঁকোটি স্থাপন করেন। কাঠগুলো পঁচে গিয়ে বর্তমানে সাঁকোটি একেবারেই নড়বড়ে অবস্থা। বিগত দিনে জনপ্রতিনিধিরা ব্রিজ নির্মাণের আশ্বাস দিলেও এ পর্যন্ত এলাকাবাসীর ভাগ্যে দুর্ভোগ ছাড়া আর কিছুই জোটেনি। সাঁকো দিয়ে কোনো রকমে পায়ে হেঁটে পারাপার সম্ভব হলেও যানবাহন চলাচল করা সম্ভব হচ্ছে না। এছাড়াও উৎপাদিত খাদ্যশস্য, কৃষিপণ্যসহ বিভিন্ন কাঁচামাল বাজারজাতকরণে ব্যাপক দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। ফলে এ এলাকার মানুষের প্রায় পাঁচ কিলোমিটার এলাকা ঘুরে যানবাহন নিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে। ভুক্তভোগী আনিসুর রহমান, আবুল খায়ের, আব্দুল্লাহ, রাশেদ মিয়া ও শুকুর মামুদ ঢাকাটাইমসকে বলেন, কয়েকটি এলাকার মানুষের উপজেলা সদর ও কাউলজানী বোর্ড বাজারে অবস্থিত বিভিন্ন ব্যাংক ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যাতায়াতের একমাত্র পথ এটি। গ্রামবাসীদের উদ্যোগে কাঠের সাঁকোটি স্থাপন করা হয়েছে। এটিও এখন ঝুঁকিপূর্ণ। গ্রামবাসীদের দীর্ঘদিনের দাবি থাকলেও দুর্ভোগ নিরসনের জন্য ব্রিজ নির্মাণের কোনো উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে না। অতি দ্রুত ব্রিজটি নির্মাণের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে জোর দাবি জানান স্থানীয়রা। কাউলজানী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান চৌধুরী ঢাকাটাইমসকে বলেন, এই নদীর ওপর ব্রিজ নির্মাণের দাবি দীর্ঘদিনের। প্রায়াত সংসদ সদস্য শওকত মোমেন শাহজাহানের সহযোগিতায় কাঠের সাঁকো স্থাপন করা হয়। তা এখন প্রায়ই চলাচলের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। ব্রিজ নির্মাণের জন্য সংশ্লিষ্ট দপ্তরে আবেদন করা হয়েছে। উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কাজী শহীদুল ইসলাম এ এলাকার মানুষের চরম দুর্ভোগের কথা স্বীকার করে ঢাকাটাইমসকে বলেন, ব্রিজটি নির্মাণের জন্য পরীক্ষা-নীরিক্ষা ও পরিমাপ করে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানো হয়েছে। উপজেলা প্রকৌশলী আমজাদ হোসেন ঢাকাটাইমসকে বলেন, খাটরা নদীর ওপর ব্রিজ নির্মাণের জন্য প্রস্তাবনা পাঠানো হয়েছে।
ফেনীতে ফুটওভার ব্রিজের সঙ্গে ধাক্কা লেগে চলন্ত ট্রেনের ছাদে ২ শিশুর মৃত্যু
ফেনীতে ফুটওভার ব্রিজের সঙ্গে ধাক্কা লেগে চলন্ত ট্রেনের ছাদে থাকা দুই শিশুর মৃত্যু হয়েছে। এ সময় আহত হয় আরো এক শিশু। মঙ্গলবার ১১টার দিকে ট্রেনটি চট্টগ্রাম স্টেশনে পৌঁছানোর পর ছাদ থেকে তাদের লাশ উদ্ধার করা হয়। রেলওয়ে পুলিশ জানায়, মঙ্গলবার বিকেলে ঢাকার বিমানবন্দর স্টেশন থেকে চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাওয়া সুবর্ণ এক্সপ্রেস ট্রেনের ছাদে ওঠে পাঁচ পথশিশু। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, ফেনী স্টেশন অতিক্রম করার সময় ফুটওভার ব্রিজের সঙ্গে ধাক্কা লেগে ট্রেনের ছাদে থাকা দুই শিশুর ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয়। আহত অপর শিশুকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। তাদের সঙ্গে থাকা অপর ২ শিশু চট্টগ্রামে পৌঁছানোর আগেই ট্রেন থেকে নেমে যায়। এদিকে নিহত দুই শিশুর লাশ ময়নাতদন্তের জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। আহত এক শিশু জানান, আমরা এয়াপোর্ট থেকে ওঠেছি। আমি সামনে বসা ছিলাম। তারা পিছনে নাচতে ছিল। তাদেরকে বলছি বসার জন্য তারা বসেনি। এরপর ব্রিজ আসলে তারা বসেনি। পরে ধাক্কা খেয়ে নিচে পড়ে যায়। আমিও নিচে পড়ে গিয়ে আহত হয়েছি।
২০২১ সামনে রেখে দেশের প্রধান সমুদ্রবন্দরকে ব্যবহারকারী বান্ধব হিসেবে গড়ে তোলা হচ্ছে
সরকারের রপকল্প-২০২১ সামনে রেখে দেশের প্রধান সমুদ্রবন্দরকে ব্যবহারকারী বান্ধব হিসেবে গড়ে তোলা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান কমডোর জুলফিকার আজিজ। চট্টগ্রাম বন্দরের ১৩১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী (বন্দর দিবস) উপলক্ষে মঙ্গলবার (২৪ এপ্রিল) সকালে শহীদ ফজলুর রহমান মুন্সী অডিটোরিয়ামে ‘প্রচার মাধ্যম প্রতিনিধিদের সাথে মতবিনিময় সভা’য় তিনি এসব কথা বলেন বন্দর চেয়ারম্যান বলেন, খোলা পণ্য (কার্গো), কনটেইনার ও জাহাজ হ্যান্ডলিংয়ের ক্রমবর্ধমান প্রবৃদ্ধি সামাল দেওয়া চট্টগ্রাম বন্দরের জন্য একটি চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। রপকল্প সামনে রেখে স্ট্র্যাটেজিক মাস্টারপ্ল্যানের ভিত্তিতে স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা নিয়েছি। তিনি বলেন, সরকারের দিকনির্দেশনায় নিউমুরিং কনটেইনার টার্মিনালের (এনসিটি) জন্য হ্যান্ডলিং ইক্যুইপমেন্ট সংগ্রহ করে পূর্ণাঙ্গভাবে চালুর উদ্যোগ নিয়েছি। ইতিমধ্যে ৯টি রাবার টায়ার গ্যান্ট্রি ক্রেন, ৪টি স্ট্র্যাডেল কেরিয়ার, ৫টি কনটেইনার মুভার, ১টি রেল মাউন্টেড গ্যান্ট্রি ক্রেন সংগ্রহ করে বন্দরের ইক্যুইপমেন্ট ফ্লিটে সংযুক্ত করেছি। ৩টি স্ট্র্যাডেল কেরিয়ার শিপমেন্ট করা হয়েছে, শিগগির বন্দরে পৌঁছবে। তিনি জানান, ৬টি শিপ টু শোর গ্যান্ট্রি ক্রেন, ২টি আরটিজি, ১টি মোবাইল হারবার ক্রেন সংগ্রহের আমদানি ঋণপত্র (এলসি) খোলা হয়েছে। ৪টি শিপ টু শোর গ্যান্ট্রি ক্রেন সংগ্রহের দরপত্র মূল্যায়ন শেষ পর্যায়ে রয়েছে। ৬টি আরটিজির এলসি খোলা প্রক্রিয়াধীন ও ৩টি আরটিজির দরপত্র মূল্যায়নাধীন আছে। ৩টি স্ট্র্যাডেল কেরিয়ার সংগ্রহের জন্য শিগগির চুক্তি সম্পাদন হবে। বন্দর চেয়ারম্যান বলেন, ব্রিটিশ-ইন্ডিয়া সরকার ১৮৮৭ সালে পোর্ট কমিশনার্স অ্যাক্ট প্রণয়ন করে যা ২৫ এপ্রিল ১৮৮৮ সালে কার্যকর হয়। তখন থেকে চট্টগ্রাম বন্দর আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু করে। তাই প্রতি বছর ২৫ এপ্রিল বন্দর দিবস উদযাপন করে আসছে। এছাড়া ও চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ গৃহীত ক্যাপিটেল ড্রেজিং, জেটি নির্মাণ, বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর মাধ্যমে পতেঙ্গা কন্টেইনার সার্ভিস নির্মাণ কার্যক্রম , লালদিয়া মাল্টি-পারপাস টার্মিনাল নির্মাণ প্রভৃতি কার্যক্রম সম্পন্ন হচ্ছে বলে জানান বন্দর চেয়ারম্যান। বে-টার্মিনাল নির্মাণে সরকারি গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প হিসেবে তালিকাভুক্ত হয়েছে বলে জানান। ভূমি সংক্রান্ত ডেলিভারি ইয়ার্ডনির্মাণের জন্য ৬৮ একর জমি ৩০মে এর মধ্যেই চট্টগ্রাম বন্দর কতৃপক্ষের নিকট হস্তান্তর হচ্ছে বলে জানান। এবার বন্দর দিবসে অবসর নেওয়া কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সংবর্ধনা দেওয়া হবে। সভায় বন্দরের সদস্য কমডোর শাহিন রহমান, ক্যাপ্টেন খন্দকার আকতার হোসেন ও কামরুল আমিন, বন্দর সচিব ওমর ফারুক প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে বন্দুকযুদ্ধে ধর্ষণ মামলার আসামি নিহত
চট্টগ্রামের বাঁশখালী-পেকুয়া এলাকায় র‌্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে আব্দুল হাকিম মিন্টু (৩০) নামে ধর্ষণ মামলার এক আসামি নিহত হয়েছে। সোমবার দিবাগত রাতে এ ঘটনা ঘটে। পরে ঘটনাস্থল থেকে আব্দুল হাকিমের লাশ উদ্ধার করা হয়। র‌্যাবের সিনিয়র সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) মিমতানুর রহমান এ তথ্য জানিয়েছেন। মিমতানুর রহমান বলেন, ‘সোমবার রাতে বাঁশখালী-পেকুয়া এলাকায় সন্ত্রাসীদের সঙ্গে র‌্যাবের গুলি বিনিময় হয়। পরে ঘটনাস্থলে আব্দুল হাকিমের লাশ পাওয়া যায়। সে ধর্ষণ মামলার আসামি।’ ঘটনাস্থল থেকে একটি ওয়ান শুটার গান, ৫ রাউন্ড গুলি ও ২টি গুলির খোসা উদ্ধার করা হয়েছে বলে তিনি জানান। ১৮ এপ্রিল আব্দুল হাকিম শেখেরখীল ইউনিয়নের টেকপাড়া এলাকায় ১০ বছর বয়সী এক শিশুকে ধর্ষণ করে বলে অভিযোগ পাওয়া যায়। ধর্ষণের শিকার ওই শিশুটি তৃতীয় শ্রেণিতে পড়তো। এ ঘটনায় ২১ এপ্রিল শিশুটির বাবা বাঁশখালী থানায় মামলা দায়ের করেন। এজহারে উল্লেখ করা হয, গত ১৮ এপ্রিল মাদ্রাসা থেকে এসে বিকালে ওই ছাত্রী বাড়ির পাশের জমিতে ঘাস কাটতে যায়। এসময় একা পেয়ে আব্দুল হাকিম জোর করে মেয়েটিকে ধান ক্ষেতে নিয়ে ধর্ষণ করে। পরে মেয়েটির চিৎকার শুনে লোকজন জড়ো হলে ধর্ষক হাকিম পালিয়ে যায়।
৩৫ হাজার অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন বারো দিনে তিতাসের
ঢাকার সাভারের আশুলিয়ায় আঞ্চলিক তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির চলমান অভিযানে গত ১২ দিনে প্রায় সাড়ে ৩৫ হাজার আবাসিক অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। এ ঘটনায় বিভিন্ন এলাকায় অবৈধ সংযোগ প্রদান ও ব্যবহারের অভিযোগে প্রায় চারশ জনের নাম উল্লেখসহ প্রায় পনেরশ জনের বিরুদ্ধে এ পর্যন্ত ১০টি মামলা করেছে তিতাস কর্তৃপক্ষ। চলতি মাসের ৪ তারিখ থেকে শুরু ১৮ তারিখ পর্যন্ত বিভিন্ন সময় আশুলিয়া থানায় এসব মামলা করেন সাভার আঞ্চলিক তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির ব্যবস্থাপক (বিপণন) সিদ্দিকুর রহমান। সিদ্দিকুর রহমান বলেন, আশুলিয়া শিল্পাঞ্চল ঘনবসতিপূর্ণ হওয়ায় এখানে অবৈধ গ্যাস সংযোগের সংখ্যাটাও অনেক বেশি। দীর্ঘদিন ধরে এসব এলাকায় অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন অভিযান পরিচালনা করে আসছেন তারা। এরই ধারাবাহিকতায় গত ৪ এপ্রিল থেকে আশুলিয়ার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান শুরু করেন তারা। বারো দিন অভিযান পরিচালনা করে প্রায় সাড়ে ৩৫ হাজার আবাসিক অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়। এসময় জব্দ করা হয় বিপুলসংখ্যক রাইজার, চুলা ও নানা উপকরণ। এছাড়া অবৈধ সংযোগ প্রদানে ব্যবহৃত এক ইঞ্চি, দেড় ইঞ্চি, দুই ইঞ্চি ও আড়াই ইঞ্চি ব্যাসের নিম্নমানের পাইপ উঠানো হয়েছে। তিনি আরো জানান, অবৈধ সংযোগ প্রদান ও ব্যবহারকারীদের বিরুদ্ধে এ পর্যন্ত ১০টি মামলা করা হয়েছে। যেসব মামলায় প্রায় ৪শ জনের নাম উল্লেখসহ প্রায় পনেরশ জনকে আসামি করা হয়েছে বলেও জানান তিনি। এ ব্যাপারে আশুলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবদুল আউয়াল জানান, বিভিন্ন সময় অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্নের ঘটনায় এ পর্যন্ত তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষ দশটি মামলা করেছে।
ডাকাতের গুলিতে যুবক নিহত সিলেটে
সিলেটের কানাইঘাটে এক প্রবাসীর বাড়িতে ডাকাতের ছোড়া গুলিতে এক যুবক নিহত হয়েছেন। তার নাম ইফজাল হোসেন। বুধবার রাতে উপজেলার ছোটফৌদ গ্রামে এ ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছেন কানাইঘাট থানার ভারপ্ররপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল আহাদ। ৩৩ বছর বয়সী নিহত ইফজাল ছোটফৌদ গ্রামের জালাল মিয়ার ছেলে। ইফজালের পরিবার স্পেনে থাকেন। তিনি স্পেন থেকে বাড়িতে এসে ৩-৪ বছর ধরে থাকছেন। ওসি আহাদ জানান, রাত তিনটার দিকে একদল ডাকাত ইফজালদের বাড়িতে হানা দিয়ে পরিবারের সবাইকে বেঁধে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে। ওই সময় বাড়ির বাহিরে থাকা ইফজাল ফিরে এসে পরিবারের লোকজনকে বেঁধে রাখা দেখতে পায়। পরে ডাকাতদের সঙ্গে ধস্তাধস্তি শুরু হলে ডাকাতরা তাকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। এতে তিনি গুরুতর আহত হন। দ্রুত উদ্ধার করে ইফজালকে কানাইঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ডাকাতরা ঘরে থাকা স্বর্ণালঙ্কার ও নগদ অর্থসহ প্রায় চার লাখ টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে যায় বলে জানা গেছে।
চাঁদপুরের সিভিল সার্জনসহ আহত ৬ সড়ক দুর্ঘটনায়
লক্ষ্মীপুরের চন্দ্রগঞ্জে ট্রাকের সঙ্গে মাইক্রোবাসের সংঘর্ষে চাঁদপুরের সিভিল সার্জন সায়েদুজ্জামানসহ ছয়জন আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে আরও চার চিকিৎসক আছেন। বুধবার রাতে এই দুর্ঘটনা ঘটে। আহতদের লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, লক্ষ্মীপুর থেকে ছেড়ে আসা একটি ট্রাক ঘটনাস্থলে পৌঁছলে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি মাইক্রোবাসের সঙ্গে ট্রাকটির মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এ সময় মাইক্রোবাসে থাকা চাঁদপুর জেলার সিভিল সার্জন সায়েদুজ্জামান, চিকিৎসক আনোয়ারুল আজিম, মাহবুবা আলম, জাকির হোসেন, তাহমিনা রহমান ও মনির আহমদ আহত হন। পরে তাদের উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তারা সবাই চট্টগ্রাম থেকে কর্মস্থলে ফিরছিলেন। চন্দ্রগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) মো. শাহজাহান খান দুর্ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, দুর্ঘটনা কবলিত ট্রাকটি আটক করা হয়েছে।

সারা দেশ পাতার আরো খবর