চন্দনাইশে ১৩ টন পেঁয়াজ বোঝাই ট্রাক উল্টে ডোবায়
১২নভেম্বর,মঙ্গলবার,চন্দনাইশ প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাড়কের চন্দনাইশে পেঁয়াজ বোঝাই ট্রাক খাদে পড়ে ব্যবসায়ী গুরুতর আহত হয়েছে। মঙ্গলবার (১২ নভেম্বর) সকালে উপজেলার বাগিচাহাট দিঘীরপাড় এলাকায় চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের বিপদজনক বাঁকে ট্রাকের চালক নিয়ন্ত্রণ হারালে পেয়াঁজ বোঝাই ট্রাকটি পার্শ্ববর্তী খাদে পড়ে এই দূর্ঘটনা ঘটে। দোহাজারী হাইওয়ে থানার এ.এস.আই মোহরম আলী ও প্রত্যক্ষদর্শী কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, চট্টগ্রাম নগরীর চাকতাই মেসার্স আলী ষ্টোর নামের একটি পাইকারী দোকানের সাড়ে ১৩ টন পেঁয়াজ বোঝাই ট্রাক (ঢাকা মেট্রো-ট ২০-৬৬৮০) টেকনাফ থেকে চট্টগ্রাম যাওয়ার সময় বাগিচাহাট দিঘীর পাড় এলাকায় বিপদজনক বাঁকে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পার্শ্ববর্তী খাদে পড়ে যায়। এতে চালক ও হেলপার মৃদু আঘাতপ্রাপ্ত হলেও ভেতরে থাকা ব্যবসায়ী কক্সবাজার এলাকার ভুট্টো (৪০) গুরুতর আহত হয়। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে বিজিসি ট্রাস্ট হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ভুট্টোকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। চাকতাই মেসার্স আলী ষ্টোরের ম্যানেজার মাহফুজ বলেন, দূর্ঘটনার সংবাদ পেয়ে চট্টগ্রাম থেকে বাগিচাহাট এলাকায় ঘটনাস্থলে এসে দেখি বেশিরভাগ পেঁয়াজ ডোবার পানিতে নষ্ট হয়ে গেছে। ডোবা থেকে পেঁয়াজের বস্তাগুলো উত্তোলন করে আরেকটি ট্রাক ভাড়া করে চট্টগ্রামে নিয়ে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছি। দূর্ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে দোহাজারী হাইওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আহসান হাবীব বলেন, পেঁয়াজগুলো সংশ্লিষ্ট ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধির হাতে তুলে দিয়ে ট্রাকটি উদ্ধার করে থানায় আনা হয়েছে। চালক ও হেলপার পলাতক রয়েছে।
ট্রেন দুর্ঘটনা: হাসপাতালে কাঁদছে আহত শিশুটি, খোঁজ মিলছে না মা-দাদির
১২নভেম্বর,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: হাসপাতালে শুয়ে কাঁদছে শিশুটি। কেউ একজন তাকে সান্ত্বনা দেওয়ার চেষ্টা করছে। কিন্তু কান্না যেন কিছুতেই থামছে না। সে সময় আতঙ্কগ্রস্ত শিশুটি তার নামও বলতে পারছিল না। পরে অবশ্য তার নাম জানা যায়। তবে এখন পর্যন্ত শিশুটির সঙ্গে থাকা তার মা ও দাদির খোঁজ পাওয়া যায়নি। আজ মঙ্গলবার সকাল পৌনে ১০টার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে দেখা গেছে এমন চিত্র। দুর্ঘটনার পর ওই মেয়ে শিশুটিকে উদয়ন এক্সপ্রেস থেকে উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে উদ্ধারকারীরা। তবে হাসপাতালে ভর্তির পর শিশুটি নাম বলতে পারছিল না। পরে এ নিয়ে সংবাদমাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশের পর তার অভিভাবকের সন্ধান পাওয়া গেছে। জানা গেছে, শিশুটির নাম নাইমা। শিশুটির চাচা মানিক জানিয়েছেন, তিনি ঢাকা থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার উদ্দেশে রওনা হয়েছেন। শিশু নাইমাকে নিয়ে সিলেট থেকে তার মা কাকলী ও দাদী উদয়ন এক্সপ্রেসে করে চাঁদপুরে ফিরছিলেন। পথে দুর্ঘটনার শিকার হয় তাদের ট্রেন। মানিক আরও জানান, মাইমার বাবা মাইনুদ্দিনও দুর্ঘটনার খবর পেয়ে চাঁদপুর থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রওনা দিয়েছেন। কিন্তু তারা কেউই নাইমার মায়ের মোবাইলে যোগাযোগ করতে পারছেন না। তারা কী অবস্থায় আছেন কিছুই জানতে পারছেন না তারা। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলায় দুটি ট্রেনের মুখোমুখি সংঘর্ষে অন্তত ১৭ জন নিহত হয়েছেন। দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন কমপক্ষে অর্ধশতাধিক যাত্রী। গতকাল সোমবার দিবাগত রাত পৌনে ৩টার দিকে কসবার মন্দবাগ নামক স্থানে তূর্ণা নিশীথা ও উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনের মধ্যে এ সংঘর্ষ হয়। তাৎক্ষণিকভাবে হতাহতদের নাম-পরিচয় জানা যায়নি।-আলোকিত বাংলাদেশ
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দুই ট্রেন দুর্ঘটনায় নিহত বেড়ে ১৬
১২নভেম্বর,মঙ্গলবার,ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার মন্দবাগ রেলস্টেশনে তূর্ণা নিশীথা ও উদয়ন এক্সপ্রেসের মধ্যে মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৬। এ ঘটনায় আহত হয়েছে আরো শতাধিক এবং বহু হতাহতের আশঙ্কা করা হচ্ছে। গতকাল সোমবার (১১ নভেম্বর) দিনগত রাত পৌনে ৩টার দিকে কসবার মন্দবাগ নামক স্থানে এ সংঘর্ষ হয়। আখাউড়া রেলওয়ে থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শ্যামল কান্তি দাস দুর্ঘটনার বিষয়টি নিশ্চিত করে তিনি জানান, এখন পর্যন্ত ১৬ জনের মরদেহ পাওয়া গেছে। হতাহতদের উদ্ধার কাজ চলছে। দুমড়ে-মুচড়ে যাওয়া বগির নিচে আরও মরদেহ থাকতে পারে। তিনি জানান, মন্দভাগ রেলওয়ে স্টেশনে সিলেট থেকে ছেড়ে আসা চট্টগ্রামগামী আন্তঃনগর উদয়ন এক্সপ্রেস ও চট্টগ্রামগামী আন্তঃনগর তুর্ণা নীশিতা এক্সপ্রেস ট্রেনের সংঘর্ষ হয়। দুটি ট্রেনের কয়েকটি বগি লাইনচ্যুত হয়েছে। দুর্ঘটনার পর থেকে ঢাকা-চট্টগ্রাম ও চট্টগ্রাম-সিলেট রুটে ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে বলেও জানান তিনি।
তিন বিঘা জমির বাঁধাকপি কেটে নষ্ট করেছে দুর্বৃত্তরা
১১নভেম্বর,সোমবার,ঝিনাইদহ প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: ঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপা উপজেলায় কৃষকের তিন বিঘা জমির ক্ষেতে বাঁধাকপি কেটে নষ্ট করে দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। আজ সোমবার সকালে উপজেলার ২নং মির্জাপুর ইউনিয়নের আনিপুর গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। এরপর দুপুরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে পুলিশ। গ্রামবাসী জানায়, দীর্ঘদিন যাবত আনিপুর গ্রামে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে তালেব মন্ডল ও দবির মন্ডলের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। সালামত মন্ডল কয়েকদিন আগে তালেব মন্ডলের পক্ষ ত্যাগ করে দবিরের পক্ষে যোগ দেন। এ ঘটনাকে কন্দ্রে করে রোববার সকালে উভয় পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। আর এ কারণেই প্রতিপক্ষের লোকজন কপি কেটে নষ্ট করা হয়েছে বলে মনে করছেন গ্রামবাসী। এ বিষয়ে জানতে অভিযুক্ত দবিরের মা জমেলা খাতুন বলেন, তার ছেলে এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত না। তালেব মন্ডলের সমর্থকরাই তাদের বাড়িঘরে হামলা চালায়। শৈলকুপা থানার এসআই হারুন জানান, তিনি আনিপুর গ্রামের নষ্ট হওয়া সবজি ক্ষেত পরিদর্শন করেছেন। ক্ষতিগ্রস্তরা অভিযোগ দিলে তদন্ত করে দোষিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
চুলের কাট খারাপ দেখলে আটক করবে পুলিশ!
১১নভেম্বর,সোমবার,সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: চুলের কাট খারাপ দেখলে কমবয়সী ছেলেদের আটক করবে পুলিশ। অভিভাবককে করা হবে তলব । মুচলেকা দিয়ে মিলবে মুক্তি। এছাড়া কমবয়সী ছেলে কিংবা শিক্ষার্থীদের মোটরসাইকেল চালাতে অভিভাকদের সতর্কতাও করে দিয়েছেন সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান। মিজানুর রহমান বলেন, শহরে কমবয়সী ছেলেদের মধ্যে যারা মোটরসাইকেল চালায় তাদের বেশিরভাগ ড্রাইভিং লাইসেন্স বা গাড়ির কাগজ নেই। আপনার টাকা হলো ছেলেদের মোটরসাইকেল কিনে দিবেন তা ঠিক না। রবিবার দুপুরে পুলিশ সুপার মিলনায়তনে এক মতবিনিময় সভায় তিনি আরও বলেন, কমবয়সী যারা রাস্তায় মোটরসাইকেল চালাবে তাদের পরিবারকে পুলিশ তলব করবে। আমার একশন হবে জনগনের স্বার্থে। রাত ৯টার পর রাস্তায় আড্ডা দেয়া যাবে না। চায়ের স্টলে আড্ডা দেয়া যাবে না। ফার্মেসি, বিপনীবিতান, মুদি দোকান খোলা থাকবে। কোনো অবৈধ জিনিস বা অবৈধ যানবাহন না থাকলে গভীর রাতে চলাচল করতে পারবে পথচারী। কেবল সন্দেহভাজনদের চেক করা হবে। আতঙ্কিত না হয়ে পুলিশকে সহযোগিতা করার আহবান জানান পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান।
জয়পুরহাটের কিডনি বিক্রির অভিযোগে স্বামী-স্ত্রী আটক
০৭নভেম্বর,বৃহস্পতিবার,জয়পুরহাট প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: জয়পুরহাটের কালাই উপজেলার উলিপুর গ্রাম থেকে কিডনি বিক্রির অভিযোগে এক দম্পতিকে আটক করেছে পুলিশ। বুধবার (৬ নভেম্বর) রাতে অভিযুক্তদের নিজ বাড়ি থেকে আটক করা হয়। আটকরা হলেন- ওই গ্রামের মৃত আবু সাইদের ছেলে খাজা মইনুদ্দিন ও খাজা মইনুদ্দিনের স্ত্রী মোছা: নাজমা বেগম। কালাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল লতিফ খান বলেন, এক বছর আগে খাজা মইনুদ্দিন তার স্ত্রী নাজমাকে কিডনি বিক্রি করতে প্রলুব্ধ করলে নাজমাও নিজ ইচ্ছায় তার একটি কিডনি বিক্রি করেন। কিডনি বিক্রি যে আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ সে ব্যাপারে এর আগে থেকেই ওই এলাকায় মাইকিং, জনসভা, লিফলেট বিতরণ, পোস্টারিং করাসহ বিভিন্নভাবে পুলিশ গণসচেতনতামূলক প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে আসছে। এরপরও মইনুদ্দিন ও নাজমা জেনে শুনে কিডনি বিক্রি করেছেন এমন খবর পেয়ে পুলিশ তাদের আটক করে থানায় নিয়ে আসে। পরে পরীক্ষা-নিরীক্ষায় ঘটনার সত্যতা পাওয়া গেলে পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা কিডনি বিক্রির কথা স্বীকার করেন। তিনি বলেন, অবৈধভাবে কিডনি বিক্রির জন্য তাদের বিরুদ্ধে প্রচলিত আইনে মামলা করা হয়েছে।
অধ্যক্ষকে পুকুরে ফেলে দেয়ার ঘটনায় আটক ২৫
০৩নভেম্বর,রবিবার,রাজশাহী প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: রাজশাহী পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের অধ্যক্ষ প্রকৌশলী ফরিদ উদ্দীন আহম্মেদকে পুকুরে ফেলে দেয়ার ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে শনিবার মধ্যরাত পর্যন্ত ২৫ জনকে আটক নগরীর চন্দ্রিমা থানা পুলিশ। পলিটেকনিট ছাত্রাবাসের বিভিন্ন কক্ষ থেকে তাদের আটক করা হয়। এর আগে রাত ৯টার দিকে ৫০ জনকে আসামি করে মামলা করেন অধ্যক্ষ প্রকৌশলী ফরিদ উদ্দীন আহম্মেদ। তবে মামলার এজাহারে কারও নাম উল্লেখ করা হয়নি। এর আগে প্রয়োজনীয় সংখ্যক ক্লাসে উপস্থিত না থাকা এবং মধ্যপর্ব পরীক্ষায় অংশ না নেয়ায় দু জন শিক্ষার্থীকে ফাইনাল পরীক্ষার ফরম ফিলাপের সুযোগ না দেয়ায় শনিবার সকাল ১১টার দিকে অধ্যক্ষ প্রকৌশলী ফরিদ উদ্দিন আহম্মেদকে পুকুরে ফেলে দেয়ার অভিযোগ ওঠে ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে। পরে ইনস্টিটিউটের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা গিয়ে অধ্যক্ষকে পুকুর থেকে উদ্ধার করেন। সিসিটিভি ফুটেজে দেখা যায়, পরীক্ষার ফরমপূরণের জন্য অধ্যক্ষের সঙ্গে তদবির নিয়ে আসেন ছাত্রলীগ নেতারা। তাদের কথায় রাজি না হওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা অধ্যক্ষকে পুকুরের পানিতে ফেলে দেয়। পরে পুকুর থেকে সাঁতরে কিনারে এলে আশপাশের কয়েক ব্যক্তি অধ্যক্ষকে উদ্ধার করেন। জানা যায়, অযোগ্য শিক্ষার্থীকে পরীক্ষা দেয়ার সুযোগ না দেয়ায় অধ্যক্ষের সঙ্গে এমন ঘটনা ঘটায় সপ্তম পর্বের শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগ নেতা কামাল হোসেন সৌরভ। তিনি রাজশাহী পলিটেকনিক শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক এবং শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি মেহেদী হাসান গ্রুপের নেতা। অবশ্য এ ঘটনায় কামাল হোসেন সৌরভকে বহিষ্কার করা হয়েছে। শনিবার রাতে মহানগর ছাত্রলীগের এক সভায় সৌরভকে বহিষ্কারের এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। রাজশাহী মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি রকি কুমার ঘোষ জানান, সৌরভকে বহিষ্কারের সুপারিশ কেন্দ্রীয় কমিটির কাছে রাতেই পাঠানো হয়েছে। সেই সঙ্গে রাজশাহী পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট ছাত্রলীগের কার্যক্রমও স্থগিত ঘোষণা করা হয়েছে বলেও জানান তিনি। এছাড়া ঘটনা তদন্তে ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে ছয় সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। আগামী তিন দিনের মধ্যে কমিটিকে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। এ বিষয়ে নগরীর চন্দ্রিমা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ গোলাম মোস্তাফা বলেন, ক্যাম্পাস থেকে সিসি টিভি ফুটেজ সংগ্রহ করা হয়েছে। আসামিদের শনাক্ত করে আইনের আওতায় আনা হবে।
মিয়ানমার থেকে আমদানিকৃত ১ হাজার ৩৩৮ মেট্রিকটন পেঁয়াজ টেকনাফে খালাস
৩১অক্টোবর,বৃহষ্পতিবার,টেকনাফ প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: কক্সবাজারের টেকনাফ স্থলবন্দর দিয়ে মিয়ানমার থেকে একদিনে ১৩টি ট্রলারে ১ হাজার ৩৩৮মেট্রিক টন পেঁয়াজ আমদানি করা হয়েছে। চলতি মাসের ৩০ অক্টোবর পর্যন্ত ২২ হাজার ৯৫৮ মেট্রিক টন পেঁয়াজ আমদানি করা হয়েছিল। বুধবার ১৩টি ট্রলারে মিয়ানমার থেকে আমদানি করা ১ হাজার ৩৩৮ মেট্রিকটনের পেঁয়াজের চালান ট্রলার থেকে খালাস করা হয়েছে। আরো ১৫ থেকে ২০টি ট্রলারে পেঁয়াজ খালাসের অপেক্ষায় রয়েছে । (প্রতি বস্তায় ৪০ কেজি)। মিয়ানমার থেকে ১ হাজার ৩৩৮ মেট্রিকটন পেঁয়াজ নাফনদীর টেকনাফ স্থলবন্দরের জেটিতে এসে পৌঁছে। শ্রমিকেরা পেঁয়াজগুলো ১৩টি ট্রলার থেকে খালাস করে ট্রাকে বোঝাই করেছেন। প্রতিটি বস্তায় ৪০ কেজি করে পেঁয়াজ রয়েছে। সন্ধ্যার পর থেকে এসব পেঁয়াজ ভর্তি ট্রাকগুলো দেশের বিভিন্ন প্রান্তে রওনা দেয়। পৌর শহরের বাজার ও বিভিন্ন দোকানে সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, স্থানীয় বাজারের অসাধু ব্যবসায়ীরা কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি এবং বাজার মনিটরিং ও ভ্রাম্যমাণ আদালত না থাকার সুযোগে ভোক্তাদের কাছ থেকে হাতিয়ে নিচ্ছে অতিরিক্ত টাকা। প্রতিদিন শত শত টন পেঁয়াজ আমদানি করা হলেও স্থানীয় বাজারে প্রতি কেজি ১১০ থেকে ১২০ টাকা দামে বিক্রি করা হচ্ছে। স্থলবন্দর সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক এহতেশামুল হক বাহাদুর বলেন, একদিনে মিয়ানমার থেকে ১ হাজার ৩৩৮ মেট্রিক টন পেঁয়াজ স্থলবন্দরে এসেছে। বন্দরে পর্যাপ্ত শ্রমিক ও অবকাঠামো ঠিক থাকলে আরো বেশি পেঁয়াজ আমদানি করা সম্ভব হত। তবে ভারতে পেঁয়াজ রফতানি বন্ধের খবরে মিয়ানমারেও পেঁয়াজের দাম বাড়িায়ে ফেলেছে। তারপরও ব্যবসায়ীরা মিয়ানমার থেকে পেঁয়াজ আমদানি অব্যাহত রেখেছে। টেকনাফ স্থলবন্দরের শুল্ক কর্মকর্তা আবছার উদ্দিন বলেন, মিয়ানমার থেকে স্থল বন্দরে প্রচুর পরিমান পেঁয়াজ আমদানি করছে ব্যবসায়ীরা। বুধবার ১ হাজার ৩৩৮ মেট্রিক টন পেঁয়াজ খালাস করা হয়েছে। খালাসের অপেক্ষায় রয়েছে আরো ১৫ থেকে ২০টি ট্রলার। জেটিতে পৌঁছানো পেঁয়াজের ট্রলারগুলো দ্রুত খালাস প্রক্রিয়া শেষ করে দেশের বিভিন্ন জেলায় পৌঁছাতে চালান করা হচ্ছে। তবে দেশের স্বার্থে সংকট মোকাবিলায় ব্যবসায়ীদের পেঁয়াজ আমদানি বাড়াতে আরো বেশি উৎসাহিত করা হচ্ছে।
এবার দিনাজপুর ডিসির অনৈতিক সম্পর্কের তথ্য ফাঁস, ভিডিও ভাইরাল
৩০অক্টোবর,বুধবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: জামালপুরের পর এবার দিনাজপুরের জেলা প্রশাসক (ডিসি) মাহমুদুল আলমের বিরুদ্ধে নারী কেলেঙ্কারিতে জড়ানোর অভিযোগ উঠেছে। সম্প্রতি এক ভিডিও বার্তায় ডিসির সঙ্গে নিজের অনৈতিক সম্পর্কের তথ্য ফাঁস করেছেন এক নারী। তার সেই ভিডিওটি ইতিমধ্যেই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। ভিডিও বার্তায় ওই নারী দাবি করেছেন, পরিচয় হওয়ার পর ডিসি মাহমুদুল আলম নানা প্রলোভন দেখিয়ে তার সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে তুলেছিলেন। সেই ফাঁদে পা দিয়ে সংসার ভেঙেছে তার। ওই নারী আরও দাবি করেন, জামালপুরের ডিসির নারী কেলেঙ্কারী ফাঁস হওয়ার পর তার সঙ্গে যোগাযোগ বন্ধ করে দেন দিনাজপুরের জেলা প্রশাসক। ঘটনা জানাজানি করলে, হত্যার হুমকিও দেওয়া হয় বলে অভিযোগ তার। জানা গেছে, দিনাজপুরে একটি স্কুলে শিক্ষকতা করেন ওই নারী। তার সঙ্গে যোগযোগ করা হলে এ বিষয়ে কথা বলতে রাজি হননি তিনি। কথা বলতে চাননি তার পরিবারের সদস্যরাও। এদিকে ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ততা নেই বলে দাবি করেছেন জেলা প্রশাসক মাহমুদুল আলম। তিনি বলেন,আমার ঊর্ধ্বতনরা তদন্ত করতে গেছেন, তারাই এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিবেন। অন্যদিকে ঘটনাটি তদন্ত করে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছে স্থানীয়রা। একই সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধাকে অবমাননার ঘটনায় দিনাজপুরের ডিসির বিরুদ্ধে চলছে নানা কর্মসূচি। উল্লেখ্য, এর আগে জামালপুরের ডিসির একটি আপত্তিকর ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়। ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়া ৪ মিনিট ৫৮ সেকেন্ড এবং ২৪ মিনিট ৫৮ সেকেন্ডের দুটি ভিডিওতে জামালপুরের জেলা প্রশাসক আহমেদ কবীরকে তার নারী অফিস সহকারীর সঙ্গে বেশ অন্তরঙ্গ অবস্থায় দেখা গেছে। ভিডিও দুটি ভাইরাল হওয়ার পর সমালোচনার মুখে তাকে ওএসডি করে একটি প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়।- আলোকিত বাংলাদেশ

সারা দেশ পাতার আরো খবর