শনিবার, মার্চ ৬, ২০২১
চকরিয়া পৌরসভার মেয়র পদে দলীয় মনোনয়ন সংগ্রহ করেন সাবেক ছাত্রনেতা জামাল উদ্দিন জয়নাল
৬,মার্চ,শনিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চকরিয়া পৌরসভা আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেন ৮০ ও ৯০ দশকের মেধাবী ছাত্রনেতা,চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক,ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি -সাধারণ সম্পাদক,স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রতিষ্ঠাতা আহবায়ক,হাজার হাজার নেতা বানানোর কারিগর, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশ্বস্থ সিপাহাশালা জামাল উদ্দিন জয়নাল। সাথে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ তথ্য ও গবেষণা উপ কমিটির সদস্য ও ছাত্রলীগের সাবেক ধর্ম সম্পাদক তাজ উদ্দিন,বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ উপকমিটির সাবেক সদস্য এম এ রাশেদ,মাতামুহুরি সাংগঠনিক উপজেলার যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক খলিল উল্লাহ চৌধুরী,চকরিয়া ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আমির উদ্দিন বুলবুল,আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল আজিজ খান,রফিকুল আলম সোহান,উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আরহান মাহামুদ রুবেল,যুবনেতা শওকত ওসমান,ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের নেতা আবসার উদ্দিন রানা,আতিকুর রহমান,ছাত্রনেতা ইশতিয়াক মাহামুদ রিদোয়াম প্রমুখ।
নোয়াখালী চালাই আমি, বললেন একরামুল করিম চৌধুরী
৫,মার্চ,শুক্রবার,নোয়াখালী প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: আবদুল কাদের মির্জাকে ইঙ্গিত করে নোয়াখালীর ৪ (সদর-সুবর্ণচর) আসনের সংসদ সদস্য মোহাম্মদ একরামুল করিম চৌধুরী বলেছেন, সে প্রথম আমাকে দিয়ে শুরু করেছে। যাইতে যাইতে সে তার ভাবি এবং ওয়ায়দুল কাদেরসহ দেশের কোনো নেতাকে বাদ দেয়নি। লাস্ট পর্যন্ত নেত্রীকে নিয়েও বলছে। সেই পাগলকে সামলাইতে যাইয়া কারণবশত কারো কারো সঙ্গে টেলিফোনে কথা হইতেই পারে। শুক্রবার (৫ ফেব্রুয়ারি) দুপুর সাড়ে ১২টায় সুবর্ণচর উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় তিনি এ কথা বলেন। একরামুল করিম বলেন, গত ছয় দিন আমি ঢাকায় ছিলাম। আমি নেত্রীকে কতগুলো ম্যাসেজ পাঠিয়েছি, উনি সেগুলো দেখছেন। ঢাকায় যাওয়ার পর নেত্রীর সঙ্গে যিনি সব সময় থাকেন। তিনি আমাকে বললেন, নেত্রী আপনাকে এতো ভালো জানেন। আপনি কেন ঢাকায় ঘুরতেছেন। আমি বলি যে আমাদের কমিটিটা দরকার। তিনি বলেন, নোয়াখালী চালায় কে। আমি কই নোয়াখালী চালাই আমি। নেত্রী কী আপনাকে না চালাতে বলছে। আমি বলি না। নেত্রী জানে যে আপনিই চালাবেন নোয়াখালী। আপনি যাই নোয়াখালী চালাতে থাকেন। তিনি আরও বলেন, যারা অর্থের বিনিময়ে নমিনেশনের আশা করতেছেন। বিএনপি যেহেতু ভোটে আসবে না। এদিক-ওদিক যদি নৌকা চলেও যায়। আমি কিন্তু বেঠিক লোককে আমার জনগণকে আমি ভোট দিতে দেব না। যারা সঠিক লোক তাদের পক্ষে আমার অবস্থান থাকবে। একদম খারাপ লোক অর্থের বিনিময়ে নমিনেশন পাবে, তাকে ভোট দিবে এরকম দরকার নেই। কারা মানুষের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেছিল। এটা মানুষ ভুলে যায়নি। দুর্ব্যবহারকারীদের ভোট দেক, এটা এমপি হিসেবে আমি হতে দিতে পারি না। আমাদের দরকার জনগণের চেয়ারম্যান। আমাদের দরকার যে জনগণের পাশে থেকে আওয়ামী লীগকে সুসংগঠিত করতে পারবে। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীকে আপন করে নিতে পারবে। এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন, সুবর্ণচর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট ওমর ফারুক, চর আমান উল্যাহ ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যাপক বেলায়েত হোসেন, চর ক্লার্ক ইউপি চেয়ারম্যান আবুল বাসার আজাদ, সুবর্ণচর উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক আমিরুল ইসলাম রাজীব, উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক আবদুল্লাহ আল মামুন জাবেদ প্রমুখ।
চাঁদপুরে কিশোর গ্যাংয়ের ৪৭ সদস্য আটক
৩,মার্চ,বুধবার,চাঁদপুর প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: চাঁদপুর শহরের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে কিশোর গ্যাংয়ের ৪৭ জন সদস্যকে আটক করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার (২ মার্চ) বিকেল থেকে রাত পর্যন্ত চাঁদপুর সদর মডেল থানা পুলিশ কয়েকটি দলে বিভক্ত হয়ে অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করে। চাঁদপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মুহাম্মদ আব্দুর রশিদের নেতৃত্বে শহরের চাঁদপুর প্রেসক্লাব ঘাট থেকে অভিযান শুরু হয়ে ৫ নম্বর কয়লা ঘাট, স্ট্যান্ড রোড, বেদে পল্লী, ছায়াবানী রোড, নতুন আলিম পাড়া, প্রতাপসাহা রোড, মিশন রোড বালুর মাঠ, ট্রাক রোড অভিযান চালানো হয়। ওসি আব্দুর রশিদ বলেন, সন্ধ্যার পর পাড়া-মহল্লার রাস্তায় কোনো শিক্ষার্থী পেলেই আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আমাদের এ চলমান অভিযান অব্যাহত থাকবে। চাঁদপুরবাসীকে কিশোর গ্যাংমুক্ত একটি শহর উপহার দিতে চাই। তিনি আরও বলেন, আমরা মিডিয়ার মাধ্যমে অভিভাবকদের জানাতে চাই আপনার সন্তানের ওপর নজর রাখুন। কোনো অবস্থাতেই তারা যেন অকারণে সন্ধ্যার পর বাইরে বের না হয়। মাদক ও কিশোর গ্যাং বিষয়ে কোনো ধরনের অপরাধ সংগঠিত হওয়ার লক্ষণ দেখা মাত্রই চাঁদপুর সদর মডেল থানা পুলিশকে জানানোর অনুরোধ জানান তিনি। আটকদের যাচাই-বাছাইয়ের পর অভিবাবকদের থানায় ঢেকে এনে সতর্ক করে দেওয়া হবে। অভিযানকালে চাঁদপুর মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (ইন্টিলিজেন্স) মনির আহম্মেদসহ পুলিশ সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।
মাদারীপুরে জমে উঠেছে নির্বাচনী প্রচারণা
২৫,ফেব্রুয়ারী,বৃহস্পতিবার,আব্দুল্লাহ আল,মামুন,মাদারীপুর,নিউজ একাত্তর ডট কম: মাদারীপুর পৌরসভার নির্বাচনের প্রচার প্রচারণা জমে উঠেছে। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ভোটারদের ঘরে ঘরে যাচ্ছেন ও গণসংযোগ চালাচ্ছেন মেয়র প্রার্থী থেকে শুরু করে কাউন্সিলর পদপ্রার্থীরা। প্রতীক বরাদ্দ দেওয়ার পর থেকেই তারা প্রচার প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। এসময় ভোটারদের মন জয় করতে দেওয়া হচ্ছে নানা প্রতিশ্রুতি। প্রার্থীদের প্রচারণার ব্যানার-পোস্টারে ছেয়ে গেছে শহরের অলি গলিতে। একইসঙ্গে বিভিন্ন প্রতিশ্রুতি নিয়ে তৈরি গানে মাইকে চলছে প্রচারণা। বুহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারী) মাদারীপুর শহরের পৌরসভার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে এ চিত্র। পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে ৪ জন প্রার্থী থাকলেও মূলত লড়াইটা হবে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী জনাব খালিদ হোসেন ইয়াদ ও বিএনপি মনোনীত ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী জাহান্দার আলী জাহানের মাঝে এটাই বিরাজ করছে জনমনে । তবে সৎ, আদর্শবান ও উন্নয়নমুখী প্রার্থীকে বেঁছে নেয়ার লক্ষ্য ভোটারদের। এদিকে নির্বাচন অবাধ ও শান্তিপূর্ণ করতে নানামুখী পদক্ষেপ নেয়ার কথা জানায় রিটার্নিং কর্মকর্তা। শুক্রবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) রাত ৮টা থেকে মাইকিং ও রাত ১২টার পর থেকে ভোট প্রার্থনার সময় শেষ হচ্ছে। জেলা নির্বাচন কমিশন অফিস সূত্র জানায়, আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে মাদারীপুর পৌরসভার নির্বাচন। নির্বাচনে ৯টি ভোটকেন্দ্রে ৫১ হাজার ৭৭৮ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। এর মধ্যে পুরুশ ভোটার ২৪ হাজার ৭২৩ জন ও নারী ভোটারের সংখ্যা ২৬ হাজার ৭৫৫ জন। মাদারীপুর পৌরসভার ৯ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মোঃ আজাদ খান বলেন, আমরা চাই সুন্দর একটা পৌরসভা। রাস্তার পাশে জমে থাকা কোন ময়লা আবর্জনা চাই না এবং পুরান বাজারের এলাকায় যানজট মুক্ত চাই । কথা হয় ৩ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা গিয়াস উদ্দিন হাওলাদার সঙ্গে। তিনি বলেন, যোগ্য ও সৎ প্রার্থীকেই আমরা ভোট দেবো। তাকেই আমরা নির্বাচিত করবো যে সুখে দুঃখে মানুষের পাশে থাকবেন। এছাড়া শহরের জনগনের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। এদিকে আজ বৃহস্পতিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১১ টায় আলীগের মনোনিত নৌকার প্রার্থী মোঃ খালিদ হোসেন ইয়াদ এর নিজ বাসভবনে আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচনী ইশতেহার ঘোষণা করলেন সাংবাদিক ও নেতা-কর্মিদের উপস্থিতিতে। ইশতেহার অনুষ্ঠানে প্রধান আতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আলীগের কেন্দ্রিয় কমিটির যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক কৃষিবিদ আফম বাহাউদ্দিন নাসিম। অনুষ্ঠানে প্রার্থী মো.খালিদ হোসেন ইয়াদ বলেন, এই ইশতেহারে মাদারীপুর শহরের জলাবদ্ধতা নিরসনে টেকসই ও কার্যকরী ড্রেনেজ ব্যবস্থা ও পানি সরবরাহ এবং আধুনিক ও টেকসই বর্জ্য অপসারণ ব্যাবস্থার উপরে গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। বিগত দিনে সততা ও বিশ্বস্ততার সাথে মাদারীপুর পৌরসভাকে উন্নয়নের পথে এগিয়ে নিয়েছি। আর এজন্য পৌর এলাকার সর্বস্থরের মানুষের আকুন্ঠ সমর্থন, অক্লান্ত শ্রম-ঘাম, মেধা, আন্তরিকতা এবং জনগণের সক্রিয় অংশগ্রহণের ফলেই তা সম্ভব হয়েছে। মাদারীপুর পৌরসভার উন্নয়নের রূপকল্পকে বাস্তবতায় রূপদানের লক্ষে তৃতীয় মেয়াদের জন্য সুনিদিষ্ট এ কর্মসূচি ঘোষণা করলাম। তিনি আরও বলেন, গত দুইবারে পৌরবাসীর যে সমর্থন পেয়ে আমি নির্বাচিত হয়েছি এবং পৌরসভার যে উন্নয়ন করেছি তাতে এবার আমি আপনাদের আরও বেশী সমর্থন নিয়ে মেয়র নির্বাচিত হব ইনশাল্লাহ। এসময় অন্যন্যদের মধ্যে আলীগের কেন্দ্রিয় নির্বাহী কমিটির সদস্য শাহাবুদ্দিন ফরাজী, জেলা আলীগের সাধারণ সম্পাদক বাবু কাজল কৃষ্ণ দে সহ জেলা, সদর উপজেলা ও মাদারীপুর পৌর আলীগের নেতৃবৃন্দ ও জেলার সাংবাদিক বৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। মাদারীপুর জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. মনিরুজ্জামান জানান, শুক্রবার মধ্যরাত থেকে নির্বাচনের প্রচারণা শেষ হচ্ছে। নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ করতে সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। প্রতিটি কেন্দ্রে বিপুলসংখ্যক আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সদস্যদের সঙ্গে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করবেন। এ ছাড়া মোতায়েন থাকছে দুই প্লাটুন বিজিবি।
টিকা গ্রহণের আহ্বান শামীম ওসমানের
২৫,ফেব্রুয়ারী,বৃহস্পতিবার,মুশফিক চৌধুরী,নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: করোনার ভ্যাকসিন সম্পূর্ণ নিরাপদ জানিয়ে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সবাইকে টিকা গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান। বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে নগরীর খানপুর এলাকায় করোনা ডেডিকেটেড ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে নিজের শরীরে ভ্যাকসিন গ্রহণ করে জেলাবাসীর উদ্দেশ্যে এ আহ্বান জানান তিনি। শামীম ওসমান বলেন, সারাবিশ্বে এখনো ১৩০টি দেশে করোনার ভ্যাকসিন পৌঁছায়নি। তবে ভ্যাকসিনপ্রাপ্ত মাত্র ২৫টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশও রয়েছে। এটা আমাদের জন্য অত্যন্ত গৌরবের ব্যাপার। এটা আওয়ামী লীগ সরকারের বিরাট সাফল্য এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ অবদান। তিনি জানান, জেলায় এ পর্যন্ত ৪০ হাজার মানুষ ভ্যাকসিন গ্রহণ করেছেন এবং নারায়ণগঞ্জসহ সারা দেশের কোথাও কারো পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হয়নি। তাই নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সবাইকে এই টিকা গ্রহণ করার তাগিদ দিয়ে পাশাপাশি মাস্ক ব্যবহারসহ সকল স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে সবার প্রতি অনুরোধ জানান তিনি। এছাড়া মহামারি করোনাকালীন সময় থেকে এখন পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জের এই হাসপাতালে যেসব অস্থায়ী স্বাস্থ্যকর্মী জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সেবা প্রদান করে যাচ্ছেন তাদের চাকরি স্থায়ীকরণের ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে সুপারিশ করবেন বলেও আশ্বাস দেন শামীম ওসমান।
খাগড়াছড়িতে সাংবাদিকদের মানববন্ধন
২৪,ফেব্রুয়ারী,বুধবার,খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: নোয়াখালীর বসুরহাটে নিহত সাংবাদিক বোরহান উদ্দিন মোজাক্কিরের হত্যাকারীদের চিহ্নিত করে দ্রুত বিচারের দাবিতে খাগড়াছড়িতে মানববন্ধন করেছে জেলায় কর্মরত সাংবাদিকরা। খাগড়াছড়ি প্রেসক্লাব, সাংবাদিক ইউনিয়ন ও টিভি জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন আয়োজিত মানববন্ধন আজ বুধবার সকালে খাগড়াছড়ি প্রেসক্লাবের সামনে অনুষ্ঠিত হয়। খাগড়াছড়ি সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি প্রদীপ চৌধুরীর সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আবু তাহের মাহমুদ, সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সৈকত দেওয়ান, টিভি জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক এইচ এম প্রফুল্ল। এ সময় বক্তারা অভিযোগ করে বলেন, পুলিশ বিভিন্ন জায়গা থেকে সাংবাদিক মোজাক্কিরের হত্যার সময়কার সিসিটিভি ফুটেজ সংগ্রহ করলেও এখন পর্যন্ত হত্যার সঙ্গে জড়িতদের কাউকেই আটক করতে পারেনি। হত্যাকারিদের দ্রুত গ্রেপ্তারে পুলিশের জোরালো ভূমিকা রাখার দাবি জানান। সেইসঙ্গে সাগর রুনিসহ সকল সাংবাদিক হত্যা নির্যাতনের রহস্য দ্রুত উদঘাটনে প্রশাসনকে তৎপর হওয়ার আহ্বান জানান।
সুনামগঞ্জে সাজার বদলে ৫৪ পরিবারকে সম্প্রীতির বন্ধন গড়ে দিল আদালত
২২,ফেব্রুয়ারী,সোমবার,সাবরীন জেরীন,মাদারীপুর,নিউজ একাত্তর ডট কম: স্বামীর সাজার বদলে সংসারে ভাঙ্গন থেকে রক্ষা পেলো ৫৪টি পরিবার। নিরাপদ আশ্রয় পেলো সন্তানরা। বিচারক তার রায়ে বলেছেন, শুধু শাস্তি নয় আদালত মানুষের মাঝে শান্তির সুবাতাস, সম্প্রীতির বন্ধন গড়ে দেয়। আদালতের এমন ব্যতিক্রমী উদ্যোগে খুশি পরিবারগুলো। পারিবারিক কলহে গেল দু বছর ধরে আদালতে যাওয়া-আসা করেছেন ফয়সাল আহমদ ও আকলিমা দম্পতি। এ মামলায় আসামি ফয়সালের সাজাও হতে পারতো তিন বছরের। কিন্তু আদালতের ব্যতিক্রমী রায়ে টিকে গেলো সংসার। বাবা-মাকে একসাথে ফিরে পেলো একমাত্র সন্তান। তিন মাস পর সুনামগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনালে ফের ব্যতিক্রমী রায়। ৬৫ টি পারিবারিক মামলার মধ্যে ৫৪ টি পরিবারকে কোন শাস্তি না দিয়ে দেয়া হলো ফুল। তবে ১১ আসামিকে দেয়া হয় সাজা। এর আগে ৪৭টি পরিবারকে ভাঙনের হাত থেকে রক্ষা করেছেন, বিচারক মোঃ জাকির হোসেন। এ রায়ে উদ্বুদ্ধ হয়ে অন্যান্য পরিবারের মাঝেও একে অপরের প্রতি শ্রদ্ধা, মর্যাদা আর ভালোবাসা বাড়বে বলে আশা সবার।
কাদের মির্জা-বাদলের পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি, বসুরহাটে ১৪৪ ধারা জারি
২২,ফেব্রুয়ারী,সোমবার,প্রতিনিধি নোয়াখালী,নিউজ একাত্তর ডট কম: নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান বাদল পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি ঘোষণা করেছেন। সেখানে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশঙ্কায় সোমবার (২২ ফেব্রুয়ারি) সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। রোববার (২১ ফেব্রুয়ারি) রাতে কোম্পানীগঞ্জের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জিয়াউল হক মীর সাংবাদিকদের এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। ইউএনও জানান, সাংবাদিক বোরহান উদ্দিন মুজাক্কির হত্যার বিচার দাবিতে বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা রুপালি চত্ত্বরে সোমবার বিকেল ৩টায় বিক্ষোভ সমাবেশের ঘোষণা দেন। একই সময় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান বাদলও কাদের মির্জার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ সমাবেশের ঘোষণা দিয়েছেন। সংঘাত এড়াতে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর জাহেদুল হক বলেন, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি যেন না হয় সেজন্য ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। পৌরসভাজুড়ে পুলিশ, Rab ও গোয়েন্দা পুলিশের টহল জোরদার করা হয়েছে। জানা গেছে, সাম্প্রতি কোম্পানিগঞ্জে একক সভা-সমাবেশ করে বিভিন্ন বক্তব্য-বিবৃতি দিয়ে আলোচিত হয়ে ওঠেন কাদের মির্জা। গত শুক্রবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) তার বিরুদ্ধে মাঠে নামেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান বাদলও। ওই দিন উপজেলার চরফকিরা ইউনিয়নের চাপরাশীরহাট বাজারে কাদের মির্জা ও বাদলের অনুসারীদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে অর্ধশতাধিক মানুষ আহত হন। গুলিবিদ্ধ হন তিন সাংবাদিকও। এর মধ্যে বোরহান উদ্দিন মুজাক্কির নামে একজন সাংবাদিক চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান। শুক্রবারের সংঘর্ষের পর ফেসবুক লাইভে এসে কাদের মির্জা বলেছিলেন, একরামুল করিম চৌধুরীর সন্ত্রাসী বাহিনী, নিজাম হাজারীর সন্ত্রাসী বাহিনী আমার চাপ্রাশিরহাটের চরফকিরার মানুষের ওপর গুলিবর্ষণ করেছে পুলিশের সহযোগিতায়। পুলিশের সামনে থেকে আমার লোকদের ওপর গুলি করেছে। ইতোমধ্যে প্রায় ৫০ জনের মতো আহত হয়েছে। অনেকে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে। এই এলাকার কি অভিভাবক নাই? আজকে যদি একটা মায়ের বুক খালি হয় এটার জন্য ওবায়দুল কাদের, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান সাহাব উদ্দিন এবং প্রশাসনকে দায়ী থাকতে হবে। তবে পরদিন শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) নিজের অবস্থান পরিবর্তন করেন মির্জা কাদের। ফের ফেসবুক লাইভে এসে তিনি সকল কর্মসূচি প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন। তিনি বলেন, নোয়াখালীর রাজনীতির চলমান সংকট নিরসনে আমাদের সকলের আস্থার শেষ ঠিকানা জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা। তার সিদ্ধান্তের প্রতি শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করে আমাদের পূর্বঘোষিত সকল কর্মসূচি প্রত্যাহার করে নিলাম। আমার দাবি- দলের ত্যাগী নেতাদের মূল্যায়ণ করা হোক। জননেত্রী শেখ হাসিনা ও আমাদের নেতা ওবায়দুল কাদের সাহেবের হস্তক্ষেপে সকল সমস্যার সমাধান অতি শিগগিরই হবে। এর একদিন পরই আবার কর্মসূচি ঘোষণা করলেন আবদুল কাদের মির্জা। মূলত সাংবাদিক মুজাক্কির হত্যায় বাদল ও তার অনুসারীদের দায়ী করে বিচারের দাবিতে সমাবেশ কর্মসূচি ঘোষণা করেন কাদের মির্জা।
ভাষা শহীদদের স্মরণে এক লাখ মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্জ্বলন নড়াইলে
২২,ফেব্রুয়ারী,সোমবার,নড়াইল প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: অন্ধকার থেকে মুক্ত করুক একুশের আলো এই শ্লোগান নিয়ে প্রতি বছরের ন্যায় এবারো নড়াইলের সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজের কুড়িরডোব মাঠে ভাষা শহীদদের স্মরণে প্রজ্জ্বলন করা হয়েছে এক লাখ মঙ্গল প্রদীপ। রোববার (২১ ফেব্রুয়ারি) স্কয়ারের আর্থিক সহযোগিতায় নড়াইল একুশের আলো উদযাপন পর্ষদ-২০২১ একুশের ভাষা শহীদদের স্মরণে ২১শের সন্ধ্যায় এ মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্জ্বলন অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। ১৯৯৮ সাল থেকে নড়াইলে একুশে ফেব্রুয়ারি পালন করছে মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের মাধ্যমে। ভাষা শহীদদের স্মরণে এবারের লাখো মোমবাতি প্রজ্জ্বলন অনুষ্ঠান হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে তাঁর নামে উৎসর্গ করা হয়। সূর্যাস্তের সাথে সাথে ২১শের সন্ধ্যায় শুরু হয় এক লাখ মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্জ্বলন। সন্ধ্যা ঠিক ৬টার সময় নড়াইলের সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের শিল্পীরা আমার ভায়ের রক্তে রাঙ্গানো একুশে ফেব্রুয়ারি, আমি কি ভুলিতে পারি এই গান পরিবেশনের সাথে সাথে মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন নড়াইলের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান। নড়াইল একুশের আলো উদযাপন পর্ষদের আহবায়ক প্রফেসর মুন্সী হাফিজুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন নড়াইলের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন নড়াইল সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মোঃ রবিউল ইসলাম, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন পিপিএম, সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নিজাম উদ্দিন খান নিলু, নড়াইল পৌরসভার নব নির্বাচিত মেয়র আঞ্জুমান আরা, একুশের আলো উদযাপন পর্ষদের সহ সভাপতি আ্যাড. ওমর ফারুক, সাধারণ সম্পাদক কচি খন্দকারসহ অনেকে।

সারা দেশ পাতার আরো খবর