হাজারো নেতাকর্মী নিয়ে সীতাকুণ্ড ছাত্রলীগের আনন্দ মিছিল
২২নভেম্বর,রবিবার,সীতাকুণ্ড প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: সীতাকুণ্ড উপজেলা ছাত্রলীগের নতুন কমিটিতে শিহাব উদ্দিনকে সভাপতি ও এস.এম রিয়াদ জিলানীকে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করায় হাজারো নেতাকর্মী নিয়ে বিশাল আনন্দ মিছিল করেছে উপজেলা ছাত্রলীগ। মিছিল শেষে উপজেলা চত্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে শ্রদ্ধা জানান কমিটির নবনির্বাচিত নেতাকর্মীরা। শনিবার (২১ নভেম্বর) বিকালে পৌরসভার উত্তর বাজার থেকে উক্ত মিছিলটি শুরু হয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক প্রদক্ষিণ করে। মিছিলে সীতাকুণ্ড উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের ছাত্রলীগের হাজার হাজার নেতাকর্মী অংশ নেয়। এসময় সংক্ষিপ্ত এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তব্য রাখেন নবনির্বাচিত সভাপতি শিহাব উদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক এস.এম রিয়াদ জিলানী। বক্তব্য রাখেন যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান জীবন, সাংগঠনিক সম্পাদক অমল দেবনাথ, সাবেক ছাত্রনেতা সামি আল মুজতবা শুভ, জাহেদ আল ফয়সাল, সৈয়দপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি রানা, পৌরসভা ছাত্রলীগের সভাপতি বাবুল, সাংগঠনিক সম্পাদক আশরাফ শোভন, মুরাদপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি রেহান, সাধারন সম্পাদক বাপ্পি, বাড়বকুণ্ড ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি মিনহাজ, সাধারন সম্পাদক নিশাত, বাঁশবাড়িয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি কামরুল, সাধারন সম্পাদক আদিল, কুমিরা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি টিপু, সাধারন সম্পাদক মিল্কি সোনাইছড়ি ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি নাজিম, সাধারন সম্পাদক নাইম, ভাটিয়ারী ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি শাহিন, সাধারন সম্পাদক সাইফুল, সলিমপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক রহমান। প্রসঙ্গত, গত মঙ্গলবার চট্টগ্রাম উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি তানভীর হোসেন চৌধুরী তপু ও সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ রেজাউল করিম স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয় ছাত্রলীগ চট্টগ্রাম উত্তর জেলা শাখার এক জরুরি সিদ্ধান্ত মোতাবেক সীতাকুণ্ড উপজেলা ছাত্রলীগের মেয়াদ উত্তীর্ণ আহ্বায়ক কমিটি বিলুপ্ত করে সীতাকুণ্ড উপজেলা ছাত্রলীগের নতুন কমিটি ঘোষনা করা হয়। এতে শিহাব উদ্দিনকে সভাপতি ও এস এম রিয়াদ জিলানীকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়।
ভোলায় গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে নিহত ২
২১নভেম্বর,শনিবার,ভোলা প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: বোরহানউদ্দিন উপজেলায় বেলুনে গ্যাস ভর্তি করার সময় সিলিন্ডার বিস্ফোরণে কলেজছাত্রসহ দুজন নিহত হয়েছেন। সেই সাথে আহত হয়েছেন আরও নয়জন। তাদের মধ্যে একজনের অবস্থা গুরুতর। উপজেলার বড় মানিকা ইউনিয়নের বাটামারা পীরগঞ্জ এলাকায় ঘটনাটি ঘটে শুক্রবার রাত পৌনে ৯টার দিকে। নিহতরা হলেন বেলুন বিক্রেতা নীরব এবং স্থানীয় বাসিন্দা কলেজছাত্র মো. হাসনাইন। বোরহানউদ্দিন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মাজহারুল আমিন এ তথ্য জানিয়েছেন। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বাটামারা পীরগঞ্জের নসু বেপারির মোড় এলাকায় সিলিন্ডারের গ্যাস ব্যবহার করে এক ব্যক্তি বেলুন বিক্রি করছিলেন। এক পর্যায়ে সিলিন্ডারটি থেকে ধোঁয়া বের হওয়া শুরু হয়। তখন আশপাশের লোকজন বেলুন বিক্রেতাকে সতর্ক করলে তিনি সিলিন্ডারে পানি দেন। তার কিছুক্ষণ পর এটি বিস্ফোরিত হলে ঘটনাস্থলেই দুজন মারা যান। স্থানীয়রা জানান, দুর্ঘটনার জায়গা থেকে প্রায় আধা কিলোমিটার দূরে ওয়াজ মাহফিল চলছিল। সেখানে অনেকেই আসা-যাওয়া করছিলেন। যার ফলে বিস্ফোরণে পথচারীসহ আশপাশের অন্তত নয়জন আহত হন। তাদের স্থানীয়রা দ্রুত উদ্ধার করে বোরহানউদ্দিন ও সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। সেখান থেকে নান্নু নামে এক যুবককে আশঙ্কাজনক অবস্থায় রাতেই বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। বোরহানউদ্দিন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সাইফুর রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে সাংবাদিকদের জানান, নিহতদের পরিবারকে ১০ হাজার টাকাসহ অন্যান্য প্রয়োজনীয় সহায়তা দেয়া হবে।
সিরাজগঞ্জে প্রশিক্ষণ কার্যক্রম চালাতেই ঘাঁটি গড়ে জেএমবিরা
২০নভেম্বর,শুক্রবার,সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর পৌর সদরে শেরখালী উকিলপাড়া ফজলুর রহমানের বাড়ি থেকে ৪ জেএমবি সদস্যকে আটক করেছে Rab। এদের মধ্যে একজন পাবনা-সিরাজগঞ্জের আঞ্চলিক আমির। শুক্রবার ভোর রাতে Rab এ অভিযান শুরু করে। সকাল ১১টায় জঙ্গিরা Rab এর কাছে আত্মসমর্পণ করে। আটককৃত জঙ্গিরা হচ্ছে, পাবনা-সিরাজগঞ্জ আঞ্চলিক আমির কিরণ (২২) ওরফে শামিম ওরফে হামিম। সে জেএমবির রাজশাহী বিভাগীয় কমান্ডার মাহমুদের সেকেন্ড ইন কমান্ড। আটক হামিমের অপর ৩ সহযোগী পাবনার সাঁথিয়ার নাঈমুল ইসলাম (২২), দিনাজপুরের আতিয়ার রহমান ওরফে কলম সৈনিক (৩৩) ও সাতক্ষীরার আমিনুল ইসলাম শান্ত (২২)। অভিযানে জঙ্গিদের আত্মসমর্পণ শেষে Rab এর অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশন) কর্নেল তোফায়েল মোস্তফা সরোয়ার ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের জানান, বৃহস্পতিবার রাত ১১টায় রাজশাহী শাহ মখদুম থানা এলাকায় জেএমবির রাজশাহী বিভাগীয় আঞ্চলিক সভা চলাকালীন সময়ে Rab অভিযান চালিয়ে রাজশাহী বিভাগীয় আঞ্চলিক আমির মাহমুদ ওরফে জুয়েল (২৪) সহ চার জঙ্গিকে গ্রেফতার করে। তাদের দেয়া তথ্য মতে, শাহজাদপুরের শেরখালী উকিলপাড়া অস্থায়ী আস্তানায় অভিযান চালায় Rab। তিনি জানান, শুক্রবার ভোর রাতে জঙ্গিরা Rab এর উপস্থিতি টের পেয়ে ৪ থেকে ৫ রাউন্ড গুলি বর্ষণ করে। এ সময় কৌশল অবলম্বর করে Rab তাদের আত্মসমর্পণের আহ্বান জানালে সকাল সাড়ে ১০টায় ৪ জঙ্গি আত্মসমর্পন করে। জঙ্গিদের আত্মসমর্পণকালে ওই আস্তানা থেকে গুলি ভরা দুটি বিদেশি পিস্তল, গুলির খোসা, গান পাউডার, বোমা তৈরির ডেটোনেটর, লোহার স্প্রিন্টার, জিহাদি বই, পতাকা ও জঙ্গি প্রশিক্ষণের বিভিন্ন সরঞ্জামাদি উদ্ধার করা হয়। Rab এর কর্মকর্তা আরও জানান, কোনভাবেই দেশে জঙ্গি, সন্ত্রাসীদের ঘাটি গড়তে দেয়া হবে না। উত্তরাঞ্চলের কিছু কিছু স্থানে যখনই জঙ্গিদের অবস্থানের আমরা সন্ধান পাচ্ছি, সেখানেই অভিযান চালাচ্ছি। গত ২৪ দিন ধরে শাহজাদপুরে মূলত জঙ্গিরা তাবলিগ জামাতের অন্তরালে প্রাথমিকভাবে তৎপরতা চালানোর চেষ্টা করছিল। অস্থায়ী এই আস্তানায় জেএমবি সদস্যদের প্রশিক্ষণ কার্যক্রম চলে আসছিল। এদিকে তাঁত শিল্প ও গো সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক অঞ্চল শাহজাদপুরে হঠাৎ করে জঙ্গিদের এমন তৎপরতা সকলকে আতঙ্কিত করেছে। তবে শেষমেষ রক্তপাতহীন সফল অভিযানের মধ্যেদিয়ে ৪ জঙ্গিকে আটকে Rab কে অভিনন্দন জানিয়েছে এলাকাবাসী।
সিরাজগঞ্জে জঙ্গি অভিযান : চারজনের আত্মসমর্পণ
২০নভেম্বর,শুক্রবার,সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: সিরাজগঞ্জের শাহাজাদপুরের উকিলপাড়ায় জঙ্গী আস্তানা সন্দেহে একটি বাড়ি ঘিরে অভিযান চালিয়েছে Rab-12র একটি দল। অভিযানে এখন পর্যন্ত ৪ জন আত্মসমপর্ণ করেছেন। এর মধ্যে একজনের নাম কিরণ। বাকিদের নাম পরিচয় এখনও জানা যায়নি। আজ শুক্রবার ভোর রাত থেকে উকিলপাড়া মহল্লার শিক্ষক ফজলুল হকের বাড়িতে চালাতে শুরু করে Rab-পুলিশ। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে Rab এর বোম ডিসপোজাল ইউনিট ওই ঘরে প্রবেশ করেছে। Rab-12 এর এএসপি মো. মহিউদ্দিন মিরাজ ও স্থানীয়রা জানান, শিক্ষক ফজলুল হকের বাড়িতে দীর্ঘ দিন ধরে একজন নারী ভাড়াটিয়া বসবাস করছিল। হঠাৎ গত কয়েক মাস আগে বগুড়া থেকে ২ জন অপরিচিত লোক এখানে এসে বাস করছিল। তাদের গতিবিধি সন্দেহজনক হওয়ায় Rab শুক্রবার ভোর রাতে পুরো উকিলপাড়া ঘিরে ফেলে। ভোর সাড়ে ৫টার দিকে শুরু হয় অভিযান। গোলাগুলির শব্দে ঘুম ভাঙ্গে স্থানীয়দের। উৎসুক জনতাও অবস্থান নেয় আশপাশে। তবে, এ ব্যাপারে আইনশঙ্খলনা বাহিনীর পক্ষ থেকে এখনও বিস্তারিত কিছু বলা হয়নি। অভিযান শেষে সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত জানানো হবে বলে জানিয়েছে Rab।
কালকিনিতে ব্যাপক গনসংযোগ: পৌর নির্বাচনে মনোনয়ন প্রত্যাশী শাহাদাত সরদার
১৯নভেম্বর,বৃহস্পতিবার,আব্দুল্লাহ আল মামুন,মাদারীপুর প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: মাদারীপুর কালকিনি পৌরসভা নির্বাচনে শাহাদাত সরদার মেয়র প্রার্থী হওয়ার লক্ষে তিনি ব্যাপক গনসংযোগ ও প্রচারনার পাশাপাশি দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার চেষ্টা করছেন। মেয়র পদ প্রার্থী শাহাদাত সরদার বলেন, আমি জনগনের উন্নয়নের স্বার্থে কাজ করে যাচ্ছি। আমি চাই জনগণ আমাকে ভালোবেসে ভোট দিবে। আশা করি দল থেকে যোগ্য প্রার্থী বাছাই করে মনোনয়ন দিবে। মেয়র প্রার্থী হিসেবে তিনি কালকিনি পৌর সভার সকল জনগনের কাছে দোয়া ও সমর্থন চান। উল্লেখ্য, শাহাদাত সরদার কালকিনি উপজেলার যুবলীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়া ও তিনি সমাজের বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের সাথে জড়িত রয়েছে।
চাঁপাইনবাবগঞ্জে মর্মান্তিক দুর্ঘটনায় বাবা-ছেলেসহ নিহত ৮, আহত ৪
১৯নভেম্বর,বৃহস্পতিবার,চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ উপজেলার দাইপুকুরিয়া ইউনিয়নের সোনাপুর-বারিকবাজার এলাকায় মর্মান্তিক সড়ক দুর্ঘটনায় বৃহস্পতিবার ভোরে বাবা-ছেলেসহ আটজন নিহত ও চারজন আহত হয়েছেন। নিহতরা হলেন- শিবগঞ্জ উপজেলার শাহবাজপুর ইউনিয়নের বালিয়াদিঘী গ্রামের এরফান আলীর ছেলে বাবু, একই এলাকার শেখ মোহাম্মদের ছেলে তাজেমুল হক ও তার ছেলে মিঠুন, কাবিল উদ্দিনের ছেলে করিম, আমানুলের ছেলে মিলু, নওশাদের ছেলে আবুল কাশেম, আজিজুল হকের ছেলে আহাদ আলী ও লাওঘাটা গ্রামের রেহমানের ছেলে আতাউর রহমান। স্থানীয়দের বরাত দিয়ে শিবগঞ্জ থানার ওসি মো. ফরিদ হোসেন জানান, বরেন্দ্র অঞ্চল থেকে ধান কেটে ১২ জন কৃষক ভটভটিতে করে ধান নিয়ে বাড়ি ফিরছিল। পথে শিবগঞ্জ উপজেলার দাইপুকুরিয়া ইউনিয়নের সোনাপুর-বারিকবাজার এলাকার ভাঙ্গাব্রিজে ভোর পৌনে ৫টার দিকে ভটভটিটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশের খাড়িতে পড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই সাতজন মারা যান এবং আহত হন পাঁচজন। খবর পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা আহতদের উদ্ধার করে শিবগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠায়। হাসপাতালে নেয়ার পথে আরেকজন মারা যান।
উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের শপথ গ্রহণ
১৮নভেম্বর,বুধবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: চাঁদপুর জেলার মতলব উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান এবং কুমিল্লা জেলার দাউদকান্দি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের শপথ গ্রহণ সম্পন্য হয়েছে। আজ ১৮ নভেম্বর বুধবার চট্টগ্রাম সার্কিট হাউজে চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার এবিএম আজাদ শপথবাক্য পাঠ করান। এসময় স্থানীয় সরকারের উপপরিচালক মো. দেলোয়ার হোসেনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে স্থানীয় সরকার পরিচালক ও অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার উন্নয়ন মোহাম্মদ মিজানুর রহমানসহ জেলা ও বিভাগীয় প্রশাসনের কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন। মতলব দক্ষিণ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বিএইচ এম কবির আহম্মদ মতলব উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। কুমিল্লা জেলার দাউদকান্দি উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী, ভাইস চেয়ারম্যান তরিকুল ইসলাম নয়ন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রুজিনা আক্তার শপথ গ্রহণ করেছেন। শপথ গ্রহণ শেষে বিভাগীয় কমিশনার চেয়ারম্যান, ভাইস চয়োরম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানদের ফুলের শুভেচ্ছা জানান। এসময় বিভাগীয় কমিশনার বলেন, জনগণের সেবা করার সুযোগ পাওয়া আল্লাহর বড় নেয়ামত। জনগণের আমানত আপনাদের উপর অর্পিত হয়েছে। এ নেয়ামত রক্ষা করে জনসেবা করতে হবে। উপস্থিত জনপ্রতিনিধিদের উদ্দেশে বিভাগীয় কমিশনার বলেন, সকলের প্রতি আইন অনুযায়ী সততা নিষ্ঠা ও বিশ্বস্থতার সাথে দায়িত্ব পালন করবেন। জনগণের কল্যাণ ও সরকারের উন্নয়ন করা স্থানীয় সরকারের মূল দায়িত্ব। ইউনিয়ন পরিষদ শক্তিশালী হয় চেয়ারম্যানের দক্ষতায়। স্থানীয় সরকার শক্তিশালী হলে দেশের উন্নয়ন সহজ হয় বলে তিনি মন্তব্য করেন। উপস্থিত চেযারম্যানদের উদ্দেশে তিনি আরো বলেন, সাধারণ মানুষ আপনাদের সেবার প্রত্যাশী। সরকারের সর্বোচ্চ মহলের আশা আপনাদের ওপর রয়েছে। জাতির জনকের স্বপ্ন বাস্তবায়নে আপনাদের কাজ শুরু হলো। সঠিকভাবে কাজ করলে বিভাগীয় কমিশনার তাদের সাথে থাকবেন বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
পাওয়ার গ্রিডের আগুনে ব্যাপক ক্ষতি, বিদ্যুৎ-বিচ্ছিন্ন পুরো সিলেট
১৭নভেম্বর,মঙ্গলবার,সিলেট প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: সিলেটের কুমারগাঁওয়ে ১৩২/৩৩ কেভির বিদ্যুৎকেন্দ্রের ভয়াবহ আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে। দমকলবাহিনীর সাতটি ইউনিট প্রায় পৌনে দুই ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। দুপুুর পৌনে একটার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। তবে আগুনে গ্রিডের বিভিন্ন যন্ত্রাংশ বিকট শব্দে বিস্ফোরিত হয়ে এদিক-ওদিক পড়ে আছে। আগুনে তেল সরবরাহের ইউনিটসহ বিদ্যুতের তিনটি ইউনিট পুড়ে গেছে। এতে বিপুল ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। অগ্নিকাণ্ডের কারণে পুরো সিলেটে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে। এদিকে, আগুন নিয়ন্ত্রণ করতে গিয়ে দমকলবাহিনীর জয়ন্ত কুমার নামের এক সদস্য আহত হয়েছেন। তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। দুপুর ১টায় সিলেটের সহকারী পরিচালক কুবাদ আলী সরকার এসব তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, বেলা ১১টায় আগুন লাগে। খবর পেয়ে দমকলবাহিনীর সাতটি ইউনিট একযোগে চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণ করেছে। এখন আমরা মেশিনগুলো ঠান্ডা করার জন্য পানি দিচ্ছি। তিনি আরও বলেন, ১৩২/৩৩ কেভির জাতীয় গ্রিড লাইনের বিদ্যুতের তিনটি ইউনিটে পুড়ে গেছে। এরমধ্যে সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে ওয়েল (তেল) সরবরাহ ইউনিটের। আগুন লাগার আগে বিকট শব্দ হয়েছে। আমরা ধারণা করছি, শর্টসার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হতে পারে। তবে তদন্তে আগুনের সঠিক কারণ জানা যাবে বলে মন্তব্য করেন তিনি। বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড সিলেটের নির্বাহী প্রকৌশলি ফজলুল হক বলেন, আগুনে বিদ্যুৎকেন্দ্রের বড় তিনটি ট্রান্সফরমার পুড়ে গেছে। এ অবস্থায় পুরো সিলেটে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে। আমরা দ্রুত বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক করতে কাজ করছি। তবে কতসময় লাগবে এটা এই মুহূর্তে বলা যাচ্ছে না। আগুনে বিশাল অঙ্কের ক্ষতি হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, এর পরিমাণ কত কোটি টাকা তা তদন্তের পরই বলা যাবে। কেন্দ্রটি মেরামতে ঢাকা থেকে বিশেষজ্ঞ দল আসছে বলেও জানান তিনি। এদিকে, কুমারগাঁও বিদ্যুৎ কেন্দ্রে ভয়াবহ আগুনের খবর পেয়ে দুপুর একটার দিকে ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যান সিলেটের জেলা প্রশাসক কাজী এম এমদাদুল ইসলাম। পরিদর্শন শেষে তিনি বলেন, আগুনের কারণে বিদ্যুৎকেন্দ্রের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এ ঘটনা তদন্তে একটি কমিটি গঠন করা হবে। বিদ্যুৎ বিভাগের প্রকৌশলীদের দিয়েই এ কমিটি গঠন করা হবে। তিনি বলেন, যতদ্রুত সম্ভব বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক করতে প্রকৌশলীদের একটি দল কাজ শুরু করেছে। তবে আগুনে ব্যাপক ক্ষতি হওয়ায় সবাইকে বিদ্যুতের জন্য একটু ধৈর্য ধরতে হবে।
সোনালী ব্যাংক উথলী শাখায় ডাকাতির ঘটনায় আটক ৩
১৭নভেম্বর,মঙ্গলবার,চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: চুয়াডাঙ্গার সোনালী ব্যাংক উথলী শাখায় ডাকাতির ঘটনায় সন্দেহভাজন তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ। গতকাল ভোরে তাদের নিজ নিজ বাড়ি থেকে আটক করা হয়।আটককৃতরা হলেন চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার আকুন্দবাড়ীয়া গ্রামের রহমানের ছেলে জনি (২৫), দেলবারের ছেলে কালু ও হাসমত আলীর ছেলে হূদয় (২৮)। জীবননগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম বলেন, সোনালী ব্যাংক উথলী শাখায় ডাকাতির প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তিনজনকে আটক করা হয়েছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওই শাখার গ্রাহকরা অভিযোগ করে বলেন, রাষ্ট্রায়ত্ত সোনালী ব্যাংকের উথলী শাখায় কোনো সিসিটিভি ক্যামেরা নেই। এছাড়া ব্যাংকে নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত থাকা দুজন নিরাপত্তা প্রহরীর হাতে একটা লাঠি পর্যন্ত ছিল না। ব্যাংকে লেনদেন চলাকালে অধিকাংশ সময় নিরাপত্তা প্রহরীরা চায়ের দোকানে আড্ডা দেন। আগে থেকেই ব্যাংকে নিরাপত্তার চরম ঘাটতি রয়েছে। সোনালী ব্যাংকে ডাকাতির ঘটনার পর উথলী বাজার এলাকায় বসবাসরত সাধারণ মানুষের মধ্যে চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে। উথলী বাজারপাড়ার স্থায়ী বাসিন্দা আব্দুল মান্নান পিল্টু বলেন, যেখানে রাষ্ট্রায়ত্ত সোনালী ব্যাংকের মতো প্রতিষ্ঠানে দিনে ডাকাতি সংঘটিত হতে পারে। সেখানে আমাদের মতো সাধারণ মানুষের নিরাপত্তা কোথায়? এদিকে ডাকাতি ঘটনার পর খুলনা রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি (ক্রাইম) একেএম নাহিদুল ইসলাম গত রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় ঘটনাস্থল সোনালী ব্যাংক উথলী শাখা পরিদর্শনে এসে ব্যাংকের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। তিনি বলেন, ব্যাংক চালানোর জন্য এ ভবন মোটেও উপযুক্ত নয়। এ ঘটনা অনাকাঙ্ক্ষিত। আমারা ধারণা করছি, এ জেলার মধ্যেই অপরাধীরা অবস্থান করছে। অল্প সময়ের মধ্যেই অপরাধীদের আটক করা সম্ভব হবে। তিনি আরো বলেন, ব্যাংক কর্তৃপক্ষের চরম গাফিলতি রয়েছে। ব্যাংকে কোনো সিসিটিভি ক্যামেরাও নেই। বর্তমান যুগে এটা ভাবা যায় না। গতকাল সকাল থেকে ডাকাতি ঘটনার ক্লু উদ্ধারের জন্য সাদা পোশাকে র্যাব, সিআইডি, ডিজিএফআই, পুলিশ ও ডিবি পুলিশের কর্মকর্তাদের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করতে দেখা গেছে।

সারা দেশ পাতার আরো খবর