বিশ্বজনীন মানবাধিকার মানব সভ্যতার সর্বশ্রেষ্ঠ অর্জন :আমিনুল হক বাবু
আগামীকাল ১০ ডিসেম্বর জাতিসংঘ ঘোষিত ৬৯ তম বিশ্ব মানবাধিকার দিবস। ১৯৪৮ সালের ১০ ডিসেম্বর জাতিসংঘের উদ্যোগে ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে জাতিসংঘ সদস্য রাষ্ট্রগুলোর সর্বসম্মতিক্রমে মানবাধিকারের শ্রেষ্ঠ সনদ সার্বজনীন মানবাধিকার ঘোষণা গৃহিত হয়। চট্টগ্রামে দিবসটি উদ্যাপনকল্পে বিভিন্ন কর্মসূচি অবহিতকরণ ও মানবাধিকার পরিস্থিতি পর্যালোচনায় চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে অদ্য ৯ ডিসেম্বর ১৭ দুপুরে বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন, বৃহত্তর চট্টগ্রাম অঞ্চলের উদ্যোগে এক সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সংগঠনের বিশেষ প্রতিনিধি ও বৃহত্তর চট্টগ্রাম অঞ্চলের সভাপতি, মানবাধিকার কর্মী আমিনুল হক বাবু। অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন, বৃহত্তর চট্টগ্রাম অঞ্চলের কার্যনির্বাহী সভাপতি সাগর দোভাষ, সহ-সভাপতিবৃন্দ আসাদুজ্জামান খান, তানভীর শাহরিয়ার রিমন, মঞ্জুরুল হক, নওশাদ চৌধুরী মিটু, যুগ্ম সম্পাদক মাসুদ পারভেজ, সাংগঠনিক সম্পাদক চৌধুরী কে.এন এম রিয়াদ, নোমান উল্লাহ বাহার, অর্থ সম্পাদক শেখ ওয়ালিদ হাসান, ডা. দীপক কান্তি বড়য়া, শহীদ সোহ্রাওয়ার্দী, আবদুর রউফ, আদনানুল ইসলাম, হাজী চান্দু মিয়া, কাইয়ুমুর রশীদ বাবু প্রমুখ। লিখিত বক্তব্যে আমিনুল হক বাবু বলেন, মানুষকে মানুষ হিসেবে বেঁচে থাকার জন্য যে সকল অধিকার দরকার তাই মানবাধিকার। মানবাধিকার মানুষের বেঁচে থাকার জন্য এবং সামাজিক জীব হিসেবে নিজের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে অপরিহার্য। অপ্রিয় হলেও সত্য যে, মানবাধিকার বিষয়টি কাগজে-কলমে সীমাবদ্ধ কিন্তু বাস্তবায়নের চিত্র ভিন্ন। দূর্বলের উপর সবলের অত্যাচার, ন্যায় বিচারের সংকট, সুশাসনের অভাব, বিভিন্নমূখী অত্যাচার নিপীড়ন চলছে পৃথিবীজুড়ে। মানবাধিকার লংঘন চলছে প্রতিনিয়ত। ১৯৮৭ সালে প্রতিষ্ঠাতা মহাসচিব ড. সাইফুল ইসলাম দিলদারের সুযোগ্য নেতৃত্বে মানবাধিকার উন্নয়ন, সংরক্ষণ, সর্বস্তরে শান্তি প্রতিষ্ঠা, আইনের শাসন বাস্তবায়নে নিবেদিত একটি অরাজনৈতিক, স্বেচ্ছাসেবী, মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় অঙ্গিকারবদ্ধ সংগঠন বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন এর যাত্রা শুরু করে। আমরা বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন, বৃৃহত্তর চট্টগ্রাম অঞ্চল এতদঞ্চলে মানবাধিকার সুরক্ষায় অসহায় মানুষদের বিনা মুল্যে আইনগত সহায়তা, প্রশাসনের মাধ্যমে মানবাধিকার লংঘন রোধ, দূর্যোগকালীন সময়ে দুর্গতদের পাশে দাঁড়ানো, শরণার্থীদের সহায়তা, শিক্ষার্থী নির্যাতন প্রতিরোধে ভূমিকা, মাদকমুক্ত সমাজ গঠনে বিভিন্ন পদক্ষেপ, স্বাবলম্বীতা আনয়নে কার্যকর সহায়তাসহ মানবাধিকার বিষয়ে জনসচেতনতা তৈরীতে বহুমাত্রিক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন, বৃহত্তর চট্টগ্রাম অঞ্চলের কর্মকান্ডের কিছু সংক্ষিপ্ত বিবরণ আপনাদের জ্ঞাতার্থে তুলে ধরছি। সাড়া জাগানো ৬ বছরের শেকলবন্দী মাধবীর নির্মমতার চিত্র ও মুক্তির আকাঙ্খা এবং পরিবারের অসহায়ত্ব থেকে পরিত্রাণে আমাদের সক্রিয় প্রচেষ্টায় তার শেকলবন্দীত্ব থেকে মুক্তি, তার সুচিকিৎসার ব্যবস্থা প্রদান, পরিবারের অর্থনৈতিক স্বচ্ছলতা আনয়নে রিক্সা প্রদান সহ বিভিন্ন সহায়তায় মাধবী সুস্থ ও মুক্ত জীবনে পদার্পণ করে। চট্টগ্রাম নগরীর ইপিজেড থানা এলাকার মানসিক ভারসাম্যহীন তরুণী বিলকিসকে আমরা দুই বছরাধীন শেকলবন্দীত্ব থেকে মুক্তি প্রদান সহ সুুুুচিকিৎসার ব্যবস্থার ফলে সে আজ সুস্থ ও সবল জীবন যাপন করছে। বাংলাদেশের অন্যতম আলোচিত ঘটনা চট্টগ্রামের মেহেদীবাগে শিশু গৃহকর্মী রিমাকে ঝুঁকিপূর্ণ শিশুশ্রম থেকে মুক্তিপূর্বক মানবিক সহায়তা সমেত তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। এছাড়াও, পটিয়ায় ধর্ষণের শিকার অসহায় নারীকে আইনি সহায়তা প্রদান, আনোয়ারায় খোকন কান্তি দাশের শিশু কন্যাকে ধর্ষণের আসামীকে গ্রেফতার পূর্বক দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি নিশ্চিতে আইনি সহায়তা প্রদান। ফটিকছড়ির ক্যান্সার আক্রান্ত ৪ বছর বয়সী ফাহমিদার চিকিৎসার ক্ষেত্রে সহায়তা সহ চট্টগ্রামের বিভিন্ন স্কুল শিক্ষার্থীদের প্রতি নির্যাতন প্রতিরোধে প্রতিবাদ সহ নানামূখী মানবাধিকার কর্মযজ্ঞ পালন করেছি। সাম্প্রতিক সময়ে বিশ্বের অন্যতম মানবাধিকার সংকট রোহিঙ্গাদের সহায়তায় আমরা প্রাথমিক পর্যায়ে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গুলিবিদ্ধদের চিকিৎসায় আর্থিক সহায়তা, পরবর্তীতে কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে ফ্রি ঔষধসহ মেডিকেল ক্যাম্প, পুষ্টিকর খাদ্য বিতরণ সহ নানাবিধ মানবিক কর্মকান্ড পরিচালনা করি। সংবাদ সম্মেলনে নেতৃবৃন্দ মানবাধিকার দিবস উদযাপনে কয়েকটি কর্মসূচির ঘোষণা করেন। কর্মসূচি সমূহ হচ্ছে- ১০ ডিসেম্বর বিকাল ৩.০০ টায় চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে বাংলাদেশ মানবাধিকার কমিশন, বৃহত্তর চট্টগ্রাম অঞ্চল, চট্টগ্রাম মহানগর ও চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন শাখার সম্মিলিত উদ্যোগে মানবাধিকার সমাবেশ ও শোভাযাত্রা চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব চত্বর পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে, ১২ ডিসেম্বর ফ্রি ব্লাড গ্রুপিং নির্ণয় ও রক্ত দান কর্মসূচী। ১৪ ডিসেম্বর অসহায় শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ, ১৬ ডিসেম্বর হতে পর্যায়ক্রমে ৫০ জন অসহায় ছানি রোগীদের ফ্রি অপারেশনের ব্যবস্থা করা প্রভৃতি।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
চামড়াগুদাম মাহফিলে বক্তারা, রাসূল কারীম (দ.)র অনুসরন-অনুকরণই মানবমুক্তির একমাত্র পথ
পবিত্র জশনে ঈদ-এ মিলাদুন্নবী (দ.) উপলক্ষে চামড়াগুদাম ঈদ-এ মিলাদুন্নবী (দ.) উদযাপন পরিষদের ব্যবস্থাপনায় গত ৪ ডিসেম্বর, সোমবার বাদে মাগরিব থেকে চামড়াগুদাম ব্রীজ চত্বরে আজিমুশশান মিলাদ মাহফিল অনুষ্টিত হয়। তৈয়্যবিয়া সোসাইটি বাংলাদেশের চেয়ারম্যান মুহাম্মদ সেলিম খান চাটগামীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠেয় মাহফিলে প্রধান মেহমান ছিলেন জমিয়তুল ফালাহ জাতীয় মসজিদের খতিব আল্লামা সৈয়দ মাওলানা আবু তালেব মুহাম্মদ আলাউদ্দিন। প্র্রধান বক্তার বক্তব্য রাখেন গোমদন্ডী ইসলামিয়া সিনিয়র মাদ্রাসার সিনিয়র শিক্ষক আলহাজ্ব মাওলানা সারোয়ার কামাল আলকাদেরী। বিশেষ বক্তার বক্তব্য রাখেন কাপাসগোলা সিটি কর্পোরেশন উচ্চ বিদ্যালয়ের হেড মাওলানা আল্লামা নুরুচ্ছফা নঈমী। শাহজাদা মফিজুল হকের সঞ্চালনে এতে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আলহাজ্ব আব্দুস সাত্তার মোল্লা, মুহাম্মদ বোরহান উদ্দিন, সেলিম উদ্দিন সেলু সওদাগর, মুহাম্মদ মুমিনুল হক, আলহাজ্ব মুহাম্মদ জাকের হোসেন, মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর, মুহাম্মদ মুনিরুল ইসলাম, মুহাম্মদ মঞ্জুর, মুহাম্মদ ইউসুফ সওদাগর, মুহাম্মদ করিম, মুহাম্মদ বাবুল সওদাগর প্রমুখ। মাহফিলে বক্তারা বলেন, বর্তমান অশান্তময় বিশ্বে রাসূল কারীম (দ.)র অনুসরণ-অনুকরণই মানবমুক্তির একমাত্র পথ। তাই সকল মুসলিম জনতাকে বাস্তবজীবনে প্রিয় নবীর (দ.) আদর্শ অনুসরণের আহবান জানান। প্রেস বিজ্ঞপ্তি
আগৈলঝাড়ায় আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ ও রোকেয়া দিবস উপলক্ষে ৫ জয়িতাকে সম্মাণনা প্
বরিশালের আগৈলঝাড়ায় আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ ও বেগম রোকেয়া দিবস উপলক্ষে সামাজিত ক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য উপজেলার বিভিন্ন এলাকার ৫ জয়িতাকে সংর্বধনা প্রদান করা হয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের আয়োজনে গতকাল শনিবার সকালে উপজেলা পরিষদ হলরুমে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশ্রাফ আহমেদ রাসেলের সভাপতিত্বে সম্মাণনা প্রদান সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা ভাইস চেয়াম্যান জসীম সরদার, জেলা পরিষদ সদস্য পিয়ারা বেগম, আওয়ামীলীগ নেতা আবুল বাশার হাওলাদার, গৈলা মডেল ইউপি সদস্য পবিত্র রানী বাড়ৈ, এনজিও প্রতিনিধি কাজল দাশগুপ্ত, স্কুল ছাত্রী ফারজানা ইসলাম মনি ও ফাতেমা তুজ-জোহরা প্রমুখ। নির্যাতনের বিভীষিকা মুছে নতুন উদ্যমে জীবন শুরুর অবদানের জন্য মায়া রানী দাস, অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে সাফল্যের জন্য সিসিলিয়া পারুল মন্ডল, শিক্ষা ও চাকুরীর ক্ষেত্রে অবদানের জন্য শামসুন নাহার, সফল জননী হিসেবে তীর্থ বালা সরকার ও সমাজ উন্নয়ণে আভা রানী মুখার্জীকে সংবর্ধনা শেষে ক্রেস্ট ও সনদপত্র প্রদান করা হয়েছে।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের সংগঠন বিজয়৭১-এর ৪র্থ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বক্তারা, মুক্তিযুদ্ধে
বিজয়৭১-এর ৪র্থ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ও বীর চট্টলা বিজয় উৎসব উদ্যাপন উপলক্ষে গত ৮ ডিসেম্বর শুক্রবার বিকাল ৩ ঘটিকায় রেলওয়ে সিআরবি শিরীষতলায় এক বর্ণাঢ্য সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, আলোচনা, সম্মাননা প্রদানসহ ব্যাপক কর্মসূচী পালিত হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে উদ্বোধক ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী। প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মাননীয় মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দীন। মুখ্য আলোচক ছিলেন চট্টগ্রামের রেঞ্জের ডিআইজি বীর মুক্তিযোদ্ধা ড. মনির-উজ-জামান। বিজয়৭১-এর সভাপতি এড. নিলু কান্তি দাশ নীলমনির সভাপতিত্বে সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক ডা: আর.কে রুবেলর সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন শ্রমিক লীগ কেন্দ্রীয় যুগ্ম সম্পাদক সফর আলী, মহানগর আওয়ামীলীগ উপদেষ্টা শেখ মো: ইসহাক, মেরিট বাংলাদেশ ফাউন্ডেশন চেয়ারম্যান ড. মো: সানাউল্লাহ, বীর চট্টলার বিজয় উৎসবের আহ্বায়ক মো: জসীম উদ্দিন চৌধুরী, জাসদ উত্তর জেলা সভাপতি ভানু রঞ্জন চক্রবর্ত্তী, জেলা পরিষদ সদস্য শাহেদা আক্তার জাহান, নজরুল গবেষক, ফুলকলি ফুড্ প্রোডাক্ট লি: এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম.এ. সবুর, চট্টগ্রাম রিপোটার্স ইউনিটির সভাপতি সাংবাদিক কিরণ শর্মা, বিজয়৭১-এর প্রধান সমন্বয়ক সজল চৌধুরী, মহানগর যুবলীগ সদস্য সুমন দেবনাথ, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট মহানগর সভাপতি আমিনুল হক বাবু, বিজয়৭১-এর পৃষ্ঠপোষক এড. মোস্তফা আনোয়ার ইসলাম প্রমুখ। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে আ.জ.ম নাছির উদ্দীন বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধেল ফসল স্বাধীনতা দীর্ঘ ৯ মাস সংগ্রামের মধ্য দিয়ে বিজয় সূচিত হয়েছে। আমরা স্বাধীনতার লাল সূর্যকে ছিনিয়ে এনেছি। আজ সেই গৌরব উজ্জ্বল মুহুর্তকে স্মরণীয় করার লক্ষ্যে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে সকলের মাঝে ছড়িয়ে দিতে হবে। উদ্বোধকের বক্তব্যে চবি উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, আমাদের এ অর্জন শুধু আনুষ্ঠানিকতার মাঝে সীমাবদ্ধ রাখলে চলবে না মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস চর্চার মাধ্যমে এ প্রজন্মকে চেতনায় শাণিত করতে হবে। এই বিজয়ের ধারাবাহিকতা রক্ষায় সকলকে আগামী নির্বাচনে একযোগে কাজ করে শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার আহ্বান জানান। মুখ্য আলোচকের বক্তব্যে চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইডি বীর মুক্তিযোদ্ধা ড. মনির-উজ-জামান বলেন, বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ স্বীকৃতি বাংলা ভাষাকে আন্তর্জাতিক ভাষায় স্বীকৃতিসহ সকল ক্ষেত্রেই সফলতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। তারই ধারাবাহিকতায় বঙ্গবন্ধু যে স্বপ্ন নিয়ে একটি সোনার বাংলা গড়ার প্রত্যয়ে আমাদেরকে একটি স্বাধীন-সার্বভৌমত্ব দেশ উপহার দিয়েছেন তা নতুন প্রজন্মদেরকে রক্ষা করে জননেত্রী শেখ হাসিনা যে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার শপথ নিয়েছেন তা বাস্তবায়নের জন্য ঐক্যবদ্ধভাবে সকলকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন অধ্যক্ষ দুলাল কান্তি চৌধুরী, পরিমল কান্তি দত্ত, রেবা বড়য়া, খোকন মহাজন রাজীব, এস.এম. নুরনবী জনি, অমর কান্তি দত্ত, ডা: সুভাষ চন্দ্র সেন, অধ্যক্ষ রতন দাশগুপ্ত, ডা: এস.এম. কামরুজ্জামান, ডা: শেখ মো: জাহেদ, সজল দাশ, শিক্ষিকা নীলা বোস, রিংকু ভট্টাচার্য, সৈয়দা শাহান আরা বেগম, শান্তা পাল, সংগীতশিল্পী রিতু দাশ, হাসিনা নাজিম বকুল, মহানগর সাধারণ সম্পাদক লিয়াকত আলী মাসুদ, প্রকৌশলী সৌমেন বড়য়া, মিলন কান্তি দেবনাথ, ডা: মো: আয়েস, ডা: এস.কে পাল সুজন, মো: আনিছ খোকন, মো: জকিউদ্দিন, বিজয়৭১-এর প্রচার সম্পাদক সমীরণ পাল প্রমুখ। আলোচনা শেষে বিশিষ্ট সংগীতশিল্পীদের পরিবেশনায় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠিত হয়।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
সাপাহারে বেগম রোকেয়া দিবস উদযাপন
নওগাঁর সাপাহারে আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষ ও বেগম রোকেয়া দিবস উদযাপন উপলক্ষে বর্ণাঢ্য রযালী, মানববন্ধন ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলা প্রশাসন ও মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উদ্যোগে শনিবার সকাল ১০টায় উপজেলা পরিষদ চত্ত্বর থেকে একটি বর্ণাঢ্য রযালী বের হয়ে সদরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে। রযালী শেষে জিরোপয়েন্টে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। বেলা ১১টায় উপজেলা পরিষদ হলরুমে উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সুলতান মাহমুদ এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় দিবসের তৎপর্য তুলে ধরে বক্তব্য প্রদান করেন উপজেলা ভাইস চেয়ারমান আলহাজ্ব ওয়াহেদ আলী, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মোরশেদা পারভীন, সদর ইউপি চেয়ারম্যান আকবর আলী, জেলা পরিষদের সদস্য ফাহিমা খাতুন, সৃষ্টি একাডেমীর প্রধান শিক্ষিক ইস্ফাত জেরিন মিনা প্রমুখ। আলোচনা শেষে উপজেলার ৫ জন জয়ীতাকে ক্রেষ্ট প্রদান করা হয়। এ সময় সেখানে উপজেলা পরিষদের বিভিন্ন দপ্তরের অফিসার, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক, শিক্ষার্থী সহ নারী নেত্রীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি
চট্টগ্রাম রিপোর্টারস ফোরাম (সিআরএফ) এর আত্মপ্রকাশ
চট্টগ্রামের বিভিন্ন প্রিন্ট, ইলেকট্রনিক ও অনলাইন মিডিয়ায় কর্মরত রির্পোটারদের স্বার্থ সংরক্ষণ ও পেশাগত মান উন্নয়নের লক্ষে চট্টগ্রাম রিপোর্টারস ফোরাম (সিআরএফ) আত্মপ্রকাশ করেছে। রবিবার রাতে স্থানীয় একটি রেষ্টুরেন্টে বিভিন্ন স্তরের সিনিয়র রিপোর্টারদের এক সভায় নতুন এ সংগঠনটি গঠিত হয়। চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সিনিয়র সহ সভাপতি ও প্রতিদিনের সংবাদের ডেপুটি এডিটর কাজী আবুল মনসুর আহবায়ক, দৈনিক কালেরকন্ঠের ব্যুরো প্রধান মুস্তাফা নইম ও দৈনিক সংবাদের ব্যুরো প্রধান নিরুপম দাশগুপ্ত যুগ্ম আহবায়ক, বৈশাখি টেলিভিশনের ব্যুরো প্রধান মহসিন চৌধুরীকে সদস্য সচিব করে ১১ সদস্য বিশিষ্ট এ কমিটি ঘোষণা করেন দৈনিক জনকন্ঠের ডেপুটি এডিটর মোয়াজ্জেমুল হক। কমিটির সদস্যরা হলেন, দৈনিক সমকালের সিনিয়র রিপোর্টার তৌফিকুল ইসলাম বাবর, দেশ টিভির ব্যুরো প্রধান আলমগীর সবুজ, দৈনিক আজাদির সিনিয়র রিপোর্টার সবুর শুভ, দৈনিক পূর্বকোনের সিনিয়র রিপোর্টার এস এম ইফতেখারুল ইসলাম, দৈনিক পূর্বদেশের সিনিয়র রিপোর্টার সাইফুল্লাহ চৌধুরী, দৈনিক সুপ্রভাত বাংলাদেশের সিনিয়র রিপোর্টার ভূইয়া নজরুল, পরিবর্তন ডট কম এর ব্যুরো প্রধান খোরশেদুল আলম শামিম। এ সময় অন্যন্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, চ্যানেল আই এর ব্যুরো প্রধান চৌধুরী ফরিদ, বাংলাদেশের খবর এর ব্যুরো প্রধান ম. শামসুল ইসলাম, চট্টগ্রাম সাংবাদিক হাউজিং সোসাইটির পরিচালক মহসিন কাজী, সিনিয়র সাংবাদিক গোলাম মাওলা মুরাদ, যমুনা টেলিভিশনের ব্যুরো প্রধান জামসেদ চৌধুরী, দৈনিক জনকন্ঠের সিনিয়র রিপোর্টার হাসান নাসির, এটিএন বাংলার সিনিয়র রিপোর্টার আবুল হাসনাত, জিটিভির ব্যুরো প্রধান অনিন্দ্য টিট, মাছরাঙ্গা টেলিভিশনের ব্যুরো প্রধান তাজুল ইসলাম, বাংলাদেশ প্রতিদিনের সিনিয়র রিপোর্টার মুহাম্মদ সেলিম, দৈনিক পূর্বদেশের সিনিয়র সাংবাদিক রাহুল দাশ নয়ন প্রমুখ। নবগঠিত কমিটি আগামি দেড় মাসের মধ্যে গঠনতন্ত্র, সদস্যপদ ও নির্বাচনের ব্যপারে সিদ্ধান্ত নেবেন।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
পল্লী বিদ্যুৎ আগৈলঝাড়া জোনাল অফিসের ডিজিএম রংগলাল কর্মকারের বিদায় সংবর্ধনা
বরিশাল পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২ এর আগৈলঝাড়া জোনাল অফিসের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার রংগলাল কর্মকারের চাকুরী থেকে অবসরজনিত বিদায় সংবর্ধনা প্রদান করা হয়েছে। তিনি পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির বিভিন্ন অফিসে ৩২ বছর ৭ মাস বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে গৈলাস্থ আগৈলঝাড়া জোনাল অফিস কার্যালয়ে গৌরনদী জোনাল অফিসের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার (ডিজিএম) একেএম ফজলুল হকের সভাপতিত্বে বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বিদায়ী ডিজিএম রংগলাল কর্মকার, আগৈলঝাড়ার এজিএম (কম) মো. দেলোয়ার হোসেন, গৌরনদীর এজিএম (কম) এসএম শাকিল হোসেন, আগৈলঝাড়ার জুনিয়র প্রকৌশলী মো. লুৎফর রহমান, গৌরনদীর জুনিয়র প্রকৌশলী দুর্যোধন বালা, ইসি আবু সালেহ মো. দিল মোহাম্মদ, লাইন টেকনিশিয়ান সৈয়দ জাকির হোসেন, বিলিং সুপারভাইজার কানন বালা, লাইনম্যান জিয়াউল ইসলাম, ফয়জুল হক, বিলিং সহকারী অঞ্জনা বসু, আমির হোসেন মোল্লা প্রমুখ। এনিয়ে ডিজিএম রংগলাল কর্মকার আগৈলঝাড়া জোনাল অফিসে দুদুবার সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন। বিদায় অনুষ্ঠানে তিনি সবাইকে ব্যক্তি স্বার্থ নয়, প্রতিষ্ঠানের স্বার্থ ও সুনাম রক্ষার জন্য নিবেদিত থাকার আহ্বাণ জানান। Press Release
শিশু বাগ শিক্ষা কেন্দ্রে মিলাদুন্নবী (সা.) মাহফিলে অধ্যক্ষ ড. আবু নোমান, আমাদের শিশুদেরকে মুহাম্ম
চট্টগ্রাম নগরীর কোতোয়ালী রহমতগঞ্জ এলাকার ঐতিহ্যবাহী শিশু বাগ আধুনিক শিশু শিক্ষা কেন্দ্রে যথাযথ মর্যাদা ও ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে আজ ৭ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টায় শিশু বাগ স্কুলের পরিচালক শামসুদ্দীন মুহাম্মদ নাসের টিপুর সভাপতিত্বে ও স্কুলের ধর্মীয় শিক্ষক মাওালানা কুতুব উদ্দীনের সঞ্চালনায় পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) মাহফিল উদযাপিত হয়। মিলাদুন্নবী (সা.) মাহফিলে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বায়তুশশরফ আদর্শ কামিল মাদরাসার অধ্যক্ষ আলহাজ্ব ড. মাওলানা সাইয়িদ আবু নোমান। বিশেষ অতিথি ছিলেন যথাক্রমে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সহ-সম্পাদক মো. আবদুল হান্নান, নিউজগার্ডেন টোয়েন্টি ফোর ডট কমের সম্পাদক কামরুল হুদা, সার্কিট হাউজ মসজিদের খতীব মাওলানা ছাবের আহমদ, আহমেদ ফয়সাল ইবনে ইসহাক, মাওরানা হাফিজুর রহমান, মোহাম্মদ সালাহ উদ্দিন, ছৈয়দ সাফওয়ান, প্রধান শিক্ষিকা মুসাররাত জাহান, সহকারী প্রধান শিক্ষিকা নুসরাত জাহান। সহকারী শিক্ষিকা জাহেদা বেগম, সেলিনা আফরোজ, সেলিনা আকতার, শামিমা আরা বেগম, জেবুন্নেসা বেগম, নওশিন আকতার, নুজহাত চৌধুরী, আরিফুল ইসলাম, ইমতিয়াজ হোসাইন প্রমুখ। প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. মাওলানা সাইয়িদ আবু নোমান বলেন, মাহে রবিউল আউয়াল হিজরি বছরের পুণ্যময় ও বরকতময় মাস। হিজরি বছরের বসন্তকাল বলা হয় এ বরকতময় মাসকে। যখন সারা বিশ্ব অন্ধকারের গভীর সাগরে নিমজ্জিত ছিল এবং সমগ্র মানবজাতি পথহারা ও বিভ্রান্ত ছিল তখন ষষ্ঠ শতাব্দীর এ বরকতময় মাসের মোবারক দিন ১২ রবিউল আউয়াল আল্লাহর হাবিব হজরত মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ সা: এ দুনিয়াতে আগমন করেন। বায়তুশ শরফ আদর্শ কামিল মাদরাসার অধ্যক্ষ ড. মাওলানা সাইয়েদ মুহাম্মদ আবু নোমান আরো বলেন, ইসলামী চিন্তাবিদ গবেষক অধ্যক্ষ শামসুদ্দীন মুহাম্মদ ইসহাক জ্ঞানী, গুণী ও দার্শনিক ছিলেন। তেমনি অধ্যক্ষ রেজাউল করিম চৌধুরী একই মাপের মানুষ ছিলেন। তারা দু’জনের মধ্যে আদর্শের মিল খুজে পাওয়া যায়। তিনি শিশুবাগ স্কুলের ছাত্রছাত্রীদেরকে অধ্যক্ষ শামসুদ্দীন মুহাম্মদ ইসহাকের জীবনী পড়ার আহবান জানান এবং তার মত জ্ঞানী গুণী মানুষ হয়ে সমাজে নিপীড়িত নির্যাতিত মানুষের সেবা করারও আহবান জানান। আজ অধ্যক্ষ শামসুদ্দীন মুহাম্মদ ইসহাক আমাদের মাঝে নেই, কিন্তু তার আদর্শ আমাদের কাছে রয়ে গেছে আমাদেরকে সে আদর্শ লালন করে এগিয়ে যেতে হবে। তাহলেই আমরা মানুষ হয়ে সমাজে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারবো। তিনি ইসলামী জ্ঞানে গুণান্বিত ছিলেন বিধায় আন্দরকিল্লাহ শাহী জামে মসজিদের খতীব সাইয়েদ আবুল আহাদ মাদানী তাকে মহব্বত করতেন। একজন ইংরেজী শিক্ষিত মানুষ কিভাবে এতগুলো ইসলামের জ্ঞান অর্জন করেছেন, তা সাইয়েদ সাহেবকে বিস্মিত করেছে। বায়তুশ শরফের পীর আবদুল জব্বার সাহেবের সাথেও তার নিবিড় সম্পর্ক ছিলো, একমাত্র কারণ তার ইসলামী জ্ঞানের ভান্ডার। তাই আমাদের আজকের এ শিশুদেরকে তার মত জ্ঞানী গুণী হওয়ার চেষ্টা চালাতে হবে। তিনি আরো বলেন বঞ্চিত বিক্ষুব্ধ সমাজকে বাঁচাতে হলে ইসলামের বিধিবিধান মেনে এবং ইসলামের সুশীতল ছায়াতলে আসতে হবে। Press Release
জননেতা আলহাজ্ব সোলায়মান আলম শেঠকে বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন চট্টগ্রামের সংবর্ধনা
জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও দক্ষিণ আফ্রিকার অনারারি কনসুল জননেতা আলহাজ্ব সোলায়মান আলম শেঠ বলেছেন, চট্টগ্রামের মানুষের জন্য আমি আমার জীবন উৎসর্গ করেছি। এই অঞ্চলে শিক্ষা-সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যকে বুকে ধারণ করে আমি দেশের সম্মান ও মর্যাদা বিদেশের মাটিতে বৃদ্ধিতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি। তিনি চট্টগ্রামের মেধাবী শিক্ষার্থীদের বিশেষ করে সাংবাদিকদের সন্তানদেরকে দক্ষিণ আফ্রিকার উচ্চ শিক্ষা গ্রহণে ও কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন। জননেতা সোলায়মান আলম শেঠ দক্ষিণ আফ্রিকার অনারারি কনসুল নিযুক্ত হওয়ায় বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন চট্টগ্রামের উদ্যোগে আয়োজিত সংবর্ধনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। উক্ত সংবর্ধনা সভা বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন চট্টগ্রামের সভাপতি মনজুরুল আলম মনজুর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমানের সঞ্চালনায় আরো উপস্থিত ছিলেন সহ-সভাপতি কুতুব উদ্দিন, যুগ্ম সম্পাদক মিয়া আলতাফ, সাংগঠনিক সম্পাদক মো: গোলাম মর্তুজা আলী, অর্থ সম্পাদক হেলাল উদ্দিন সিকদার, সহ-অর্থ সম্পাদক মো: হোসাইন, দপ্তর সম্পাদক মো: রাশেদ, সহ-দপ্তর সম্পাদক শেখ মোরশেদুল আলম, প্রচার সম্পাদক সাইদুল আজাদ, সহ-প্রচার সম্পাদক মো: আখতার হোসেন, ক্রীড়া সম্পাদক মিনহাজ উদ্দিন, কার্যনির্বাহী সদস্য হায়দার আলী, এরশাদ আলী, মাসুমুল ইসলাম, সদস্য এম.এ. হান্নান কাজল, মো: হানিফ, আকমাল হোসেন, আনোয়ারুল আজিম, ইমাম হোসেন রাজু, রাজু দীক্ষিত, মো: আবুল হাশেম, ইব্রাহিম মুরাদ, মো: জাহাঙ্গীর প্রমুখ Press Release