শুধু শিক্ষার হার বৃদ্ধি করা নয় আন্তর্জাতিক বিশ্বের সাথে সমন্বয় রেখে শিক্ষার মান উন্নয়ন করতে হবে
নর্দান ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস এন্ড টেকনোলজি খুলনা কর্তৃক প্রথম বারের মত খুলনাতে আয়োজিত দু’দিন (৩ ও ৪ ডিসেম্বর, ২০১৭) ব্যাপী আর্ন্তজাতিক শিক্ষা মেলা ২০১৭ এর উদ্বোধন কালে তিনি এ কথা বলেন। আজ দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের অডিটোরিয়ামে জমকালো এক উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি আরো বলেন এ মেলার মাধ্যামে খুলনা সহ দক্ষিন-পশ্চিমাঞ্চলের শিক্ষার্থীরা উচ্চ শিক্ষার জন্য বিভিন্ন আর্ন্তজাতিক বিশ্ববিদ্যালয়ে সাথে পরিচিত হতে পারবে। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার এ.এইচ.এম. মনজুর মোরশেদ, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক প্রফেসর মো: ইব্রাহীম, কম্পিউটার সাইন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের বিভাগীয় প্রধান রবিউল ইসলাম, ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান জনাব এস.এম. মনিরুল ইসলাম, সহ বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা। মেলায় বাংলাদেশী শিক্ষার্থীদের জন্য ন্যানটং কলেজ অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি (চীন), ইউনিভাসিটি অব পাহাং (মালয়েশিয়া) এবং ইউনিভার্সিটি অব হার্টফোর্ডশায়ার (ইউকে) দিচ্ছে ১০০% সরকারী স্কলারশিপ সহ অনার্স, মাস্টার্স, কলেজ ডিপ্লোমা ও এসোসিয়েট ডিগ্রি। এছাড়াও ৩ বছরের ডিগ্রি সম্পন্ন হওয়ার পরে, গ্র্যাজুয়েটসরা বিশেষ করে চীনে পাবেন কাজের নিশ্চিয়তা ও নাগরিকত্বের সুবিধা।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
ঝিনাইদহের বিভিন্ন গ্রামের গাছিদের খেজুর গাছ কাটা শুরু
ঝিনাইদহের জেলার বিভিন্ন গ্রামের গাছিরা এখন খেজুর গাছ কাটতে শুরু করেছেন। ঝিনাইদহের আসাননগর, বোড়াই ও রাঙ্গিয়ারপোতা, কালীগঞ্জের মহেশ্বরচান্দা, কেয়াবাগান, কোলা, নিয়ামতপুরসহ বিভিন্ন গ্রাম ঘুরলে এখন খেজুর গাছ ছাঁটার দৃশ্য চোখে পড়ে। আগাম গুড় ও পাটালি উঠলে লাভও বেশ ভালোই হয়। সেই আশাতেই চলতি বছরও গুড় তৈরির দিকে ঝুঁকছে গাছিরা। সদর উপজেলার সাধুহাটি ইউনিয়নের আশাননগন গ্রামের কৃষক সামছুল হক জানান, তিনি অনেক বছর থেকেই খেজুর গাছ থেকে রস সংগ্রহ করছেন। এ রস থেকে তিনি গুড় ও পাটালি তৈরি করে কালীগঞ্জ ও ঢাকায় নিয়ে বিক্রি করে থাকেন। আগাম গুড় ও পাটালির দাম ভাল পাওয়া যায়। গত বছর তিনি ১০ কেজি ওজনের এক ঠিলা গুড় ৭০০ থেকে এক হাজার টাকায় বিক্রি করেছেন। একই গ্রামের খেজুর গাছি সামেদ জানান, চলতি বছর তিনি ৫০টি খেজুর গাছ কেটেছেন। আশা করছেন আগামী এক সপ্তাহ পর থেকেই প্রতিটি গাছ থেকে রস পাওয়া যাবে। গত বছর তিনি খেজুরের গুড় ও পাটালি বিক্রি করে প্রায় ৫৫ হাজার টাকা লাভ করেন। চলতি বছর আরও বেশি দামে গুড় বিক্রির আশা করছেন। ঝিনাইদহে আনুমানিক তিন লাখ খেজুর গাছ রয়েছে। এর মধ্যে সদরের ১৭টি ইউনিয়নেই রয়েছে ৫০ হাজারের বেশি। সদর ইউনিয়নের কৃষকরা শীত মৌসুমে এসব গাছ থেকে প্রায় পাঁচ লাখ কেজি গুড় উৎপাদন করে থাকেন। একই এলাকার খেজুর গাছি আঃ রহিম জানান, গত বছর ১০ কেজি ওজনের এক কলস গুড় উৎপাদন করতে খরচ হয়েছিল ৪০০ টাকা। আর বিক্রি করেছেন ৭০০ টাকায়। তবে জ্বালানির দামসহ আনুসাঙ্গিক ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় চলতি বছর খরচ আরও কিছু বেশি হতে পারে। এরই মধ্যে অনেক কৃষক গুড় তৈরির সরঞ্জাম এমনকি জ্বালানিও সংগ্রহ করে ফেলেছেন। আব্দুল মিয়া জানান, খেজুর রস থেকে গুড় তৈরির কাজ শুরু করতে প্রাথমিক সরঞ্জাম কলস ও জ্বালানি সংগ্রহ হয়ে গেছে। সরজমিনে গিয়ে সদর উপজেলার সাধুহাটি ইউনিয়নের আসাননগর, বোড়াই ও রাঙ্গিয়ারপোতা, গ্রাম ও তার আশপাশের কয়েকটি গ্রাম ঘুরে দেখা গেছে, সকাল থেকেই ব্যস্ত গাছিরা দা, ঠুঙি, দড়ি ও মাটির কলস (ভাড়) নিয়ে ছুটে চলেছেন নির্দিষ্ট গন্তব্যে। গাছিদের প্রক্রিয়াজাত করা খেজুরের গুড়, পাটালি বা রস দিয়েই কয়েকদিন পরেই মুখরোচক পিঠা, পুলি, পায়েস তৈরির ধুম পড়বে গ্রামের গৃহস্থ বাড়িতে। শুধু কি তাই? খেজুরের গুড় বা রস দিয়ে তৈরি মুড়ি, চিড়ার মোয়া লেপমুড়ি দেওয়া শীতের সকালে খাওয়ার মজা তো উপভোগ করেন আবাল বৃদ্ধ বনিতা সবাই। ঝিনাইদহের বন কর্মকর্তা জানান, বৃহত্তর যশোর জীব বৈচিত্র সংরক্ষণ প্রকল্পের আওতায় ১১ বছর আগে ঝিনাইদহে প্রায় লক্ষাধিক সৌদি খেজুর গাছের চারা রোপন করা হয়। এখন সেসব গাছ থেকেও রস উৎপাদন করছেন খেজুর। ইদানিং অন্যান্য চাষের পাশাপাশি কৃষকরা এবং স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরাও ব্যক্তিগত উদ্যোগে খেজুর গাছের কিছু চারা রোপন করেছেন।
চট্টগ্রামে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবীর জশনে জুলুস সম্পন্ন
নিজেস্ব সংবাদদাতা :দেশ ও জাতির কল্যাণে মোনাজাতের মধ্য দিয়ে মুসলমান সম্প্রদায়ের অন্যতম বড় ধর্মীয় অনুষ্ঠান চট্টগ্রামে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবীর জশনে জুলুস সম্পন্ন হয়েছে। মহানবীর বংশধর আল্লামা সৈয়্যদ মুহাম্মদ তাহের শাহ’র নেতৃত্বে ২ ডিসেম্বর সকাল সাড়ে ৯টায় নগরীর ষোলশহরে জামেয়া আহম্মদিয়া সুন্নিয়া মাদ্রাসা থেকে এ জুলুস বের হয়। আনজুমান-এ-রহমানিয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া ট্রাস্টের ব্যবস্থাপনায় জুলুসে আরও রয়েছেন শাহজাদা সৈয়্যদ মুহাম্মদ কাসেম শাহ ও সৈয়্যদ মুহাম্মদ হামেদ শাহ। জামেয়া আহম্মদিয়া সুন্নিয়া মাদ্রাসা থেকে জুলুশটি শুরু হয়ে বিবিরহাট, মুরাদপুর, মির্জারপুল, কাতালগঞ্জ হয়ে অলিখাঁ মসজিদ চকবাজার, প্যারেড ময়দানের পূর্বপাশ, চন্দনপুরা, সিরাজুদ্দৌলা সড়ক, দিদার মার্কেট, দেওয়ান বাজার, আন্দরকিল্লা, মোমিন রোড, কদম মোবারক, চেরাগি পাহাড়, জামালখান, প্রেসক্লাব, খাস্তগীর স্কুল, গণি বেকারি, চট্টগ্রাম কলেজ, প্যারেড ময়দানের পশ্চিম পাশ হয়ে পুনরায় কাতালগঞ্জ, মুরাদপুর, বিবিরহাট প্রদক্ষিণ পূর্বক জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে ফিরে আসে। জামেয়া ময়দানে দুপুর ১২টায় মাহফিল এবং মাহফিল শেষে জোহর নামাজ ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। এদিকে জশনে জুলুস উপলক্ষে শনিবার সকাল থেকেই বিভিন্ন এলাকা থেকে লাখ লাখ মানুষ রাস্তার দুপ্রান্তে হুজুর কেবলাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানাতে অপেক্ষা করেছেন দুপুর পর্যন্ত।
চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে আনন্দ রযালি ও সমাবেশ
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ভাষণ ইউনেস্কোর মেমোরি অব দ্যা ওয়ার্ল্ড ইন্টারন্যাশনাল রেজিস্টারএ অন্তর্ভুক্তির মাধ্যমে বিশ্বপ্রামাণ্য ঐতিহ্যর স্বীকৃতি অর্জনে আজ(৩০ নভেম্বর'১৭) চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে আনন্দ রযালি ও সমাবেশের আয়োজন করা হয়। আনন্দ রযালি পরবর্তী সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন প্রেসক্লাব সভাপতি কলিম সরওয়ার। প্রেসক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক ফরিদ উদ্দিন চৌধুরীর সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তব্য দেন সাধারণ সম্পাদক শুকলাল দাশ। বক্তব্য দেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) সহ-সভাপতি শহীদ উল আলম, যুগ্ম মহাসচিব তপন চক্রবর্তী, চট্টগ্রাম সাংবাদিক কো-অপারেটিভ হাউজিং সোসাইটির চেয়ারম্যান স্বপন কুমার মল্লিক। সমাবেশ ও আনন্দ রযালি কর্মসূচিতে চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের (সিইউজে) সিনিয়র সহ-সভাপতি রতন কান্তি দেবাশীষ, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সহসভাপতি মনজুর কাদের মনজু, চট্টগ্রাম সাংবাদিক কো-অপারেটিভ হাউজিং সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক হাসান ফেরদৌস, ক্লাবের আজীবন দাতা সদস্য ফরিদ মাহমুদ ও হাজী সাহাবুদ্দিন, ক্লাবের অর্থ সম্পাদক দেবদুলাল ভৌমিক, সাংস্কৃতিক সম্পাদক শহীদুল্লাহ শাহরিয়ার, ক্রীড়া সম্পাদক নজরুল ইসলাম, গ্রন্থাগার সম্পাদক রাশেদ মাহমুদ, সমাজসেবা ও আপ্যায়ন সম্পাদক রোকসারুল ইসলাম, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মিন্টু চৌধুরী, কার্যকরী সদস্য ম. শামসুল ইসলাম, সিইউজের যুগ্ম সম্পাদক স্বরূপ ভট্টাচার্য, প্রেস ক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মহসিন চৌধুরী, বিএফইউজের কার্যকরী সদস্য আসিফ সিরাজ, ক্লাবের স্থায়ী সদস্য এস এম আতিকুর রহমান, মইনুদ্দিন কাদেরী শওকত, নির্মল চন্দ্র দাশ, মাখন লাল সরকার, শাহীন আরা বেগম, মিহরাজ উদ্দিন মোঃ রায়হান, আলমগীর সবুজ, খোরশেদুল আলম শামীম, হামিদ উল্লাহ, মুজাহিদুল ইসলাম, রনজিৎ কুমার দে, বিশ্বজিৎ বড়ুয়া, মো. আইয়ুব আলী, বিপুল বড়ুয়া, আবুল কালাম বেলাল, কুতুব উদ্দিন চৌধুরী, সুভাষ কারণ, নাসির উদ্দিন চৌধুরী, প্রভাত বড়ুয়া, ফারুক তাহের, রাজেশ চক্রবর্তী, আরিফ রায়হান, জসীম সিদ্দিকী, শাহ আজম, সান্টু কুমার দাশ, সহিদুল ইসলাম সহিদ, বশির আহমদ, টিভি জার্নালিস্ট এসোসিয়েশনের যুগ্ম সম্পাদক লতিফা আনসারী রুনা, পুলক সরকার, আহছানুল কবির রিটন, মোহাম্মদ জহির, মোরশেদ তালুকদার, রাহুল দাশ নয়ন, সরওয়ার আমিন বাবু ,অনিন্দ্য টিটো, বাবুল চৌধুরী, আবু মোশারফ রাসেল, অমিত বড়ুয়া,তমাল চৌধুরী, মাহবুব উর রহমান, তাজুল ইসলাম, এসএম আজিজুল কদির, মোঃ ফরিদ উদ্দিন, মোরশেদ তালুকদার, রাহুল দাশ নয়ন, মিঠুন চৌধুরী, উত্তম দাশ গুপ্ত, প্রীতম দাশ, মানস চৌধুরীসহ ক্লাবের স্থায়ী-অস্থায়ী সদস্য ও বিভিন্ন গণমাধ্যমে কর্মরত সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। আনন্দ রযালি ও সমাবেশের আগে প্রেসক্লাব ব্যবস্থাপনা কমিটির কর্মকর্তা ও সদস্যরা ক্লাব প্রাঙ্গণে স্থাপিত জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ম্যুরালে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান।
ঝিনাইদহে মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে বৃত্তি প্রদাণ
ঝিনাইদহে মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে বৃত্তি প্রদাণ করা হয়েছে। জেলা পরিষদের অর্থায়নে বুধবার বিকেলে জেলা পরিষদ চত্বরে এ বৃত্তি প্রদাণ করা হয়। জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কনক কান্তি দাস এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা পরিষদের সচিব রেজাই রাফিন সরকার। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সহকারী প্রকৌশলী আতিয়ার রহমান, জেলা পরিষদের সদস্য মুনতাকিম মনির, কে এম হিলারিং, পাপিয়া সমাদ্দার, শামীম আরা হ্যাপী। অন্যান্যদের মধ্যে শেখ শফিউদ্দিন, আলমগীর হোসেন, আনোয়ারুল আলম সহ শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। পরে জেলার ৬০ টি কিন্ডার গার্ডেণ স্কুলের ১১ জন শিক্ষার্থীকে শিক্ষাবৃত্তি প্রদাণ করা হয়। এর আগে জেলার ৭৫ জন শিক্ষার্থীকে ৩ হাজার টাকা করে শিক্ষাবৃত্তি প্রদাণ করা হয়। এছাড়াও জেলার এস এস সি পরীক্ষায় গোল্ডেন এ প্লাস পাওয়া ৬৭ জন শিক্ষার্থীকে সংবর্ধণা প্রদাণ করা হয়।Press Release
ঝিনাইদহের দোগাছী ইউনিয়নে কৃষকদের মাঝে বিনামুল্যে ধান বীজ বিতরণ
ঝিনাইদহের দৌগাছী ইউনিয়নে সাড়ে আড়াইশ কৃষকদের মাঝে বিনামুল্যে জিংক সমৃদ্ধ (ব্রি-ধান-৬২ ও ৭৪ )ধান বীজ বিতরণ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে সদর উপজেলার দোগাছী ইউনিয়ন পরিষদে এ ধান বীজ বিতরণ উপলক্ষে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। দোগাছী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইছাহাক আলী জোয়ার্দ্দার এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত উপ-পরিচালক শংকর কুমার মজুমদার। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ড.খান মোঃ মনিরুজ্জামান। এসময় উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিক সাজ্জাদ আহমেদ,উন্নয়ন ধারার প্রকল্প পরিচালক প্রফুল্ল কুমার, হারভেস্ট প্লাস বাংলাদেশ এর ডাটা ম্যানেজমেন্ট অফিসার তানভীর আহম্মেদ রনি। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন উন্নয়ন ধারার কো-অর্ডিনেটর সাইফুল ইসলাম। পরে হারভেস্ট প্লাস বাংলাদেশ এর সহযোগিতায় উন্নয়ন ধারার আয়োজনে ওই এলাকার আড়াইশ কৃষকদের মাঝে ৩ কেজি করে জিংক সমৃদ্ধ ব্রি-ধান-৬২ ও ৭৪ এর বীজ বিতরণ করা হয়।Press Release
আগৈলঝাড়ায় মহান বিজয় দিবস উদযাপনের প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত
আগৈলঝাড়া ,বরিশাল :বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে মহান বিজয় দিবস উদযাপনের প্রস্তুতি সভা মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলা পরিষদ সভাকক্ষে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আশ্র্রাফ আহম্মেদ রাসেলের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান গোলাম মোর্তুজা খান। অন্যান্যদের মধ্যে আরও বক্তব্য রাখেন প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সিরাজুল হক তালুকদার, জেলা মুক্তিযোদ্ধা ডেপুটি কমান্ডার আব্দুর রইচ সেরনিয়াবাত, বরিশাল জেলা পরিষদ সদস্য পেয়ারা বেগম, ভাইস চেয়ারম্যান জসীম সরদার, ওসি (তদন্ত) আব্দুর রহমান, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা ডেপুটি কমান্ডার আবু তাহের মিয়া, মুক্তিযোদ্ধা আ. রশিদ সিকদার আওয়ামীলীগ নেতা গিয়াস মোল্লা, মুক্তিযোদ্ধা সন্তান আবদুল্লাহ লিটন প্রমুখ। সভায় উপজেলার বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। সভায় মহান বিজয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে বিস্তারিত কর্মসূচি গ্রহণ ও তা সুষ্ঠভাবে পালনের উপর গুরুত্বারোপ করে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
বন্দুকযুদ্ধে নগরীর শীর্ষ সন্ত্রাসী মহিন নিহত
নিজেস্ব সংবাদদাতা :চট্টগ্রামে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (র‍্যাব) সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নগরীর শীর্ষ সন্ত্রাসী মহিম ওরফে মহিন নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার ভোরে পাঁচলাইশ থানার রাজগঞ্জ এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। র‍্যাব-৭-এর সিপিসি-৩ কোম্পানির অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কমান্ডার আশেকুর রহমান গণমাধ্যমকে দাবি করেন, রূপগঞ্জ এলাকায় র‍্যাবের একটি টহল দলের সঙ্গে গুলিবিনিময়ে নগরীর শীর্ষ সন্ত্রাসী মহিম নিহত হন। তাঁর বিরুদ্ধে নগরীর বিভিন্ন থানায় ১৮টি মামলা রয়েছে। র‍্যাব সদস্যরা এ সময় ঘটনাস্থল থেকে একটি একে-২২ এসএমজি, দুটি পিস্তল ও গোলাবারুদ উদ্ধার করেছে।মহিমের বাড়ি নগরীর বায়েজিদ থানার হাজীপাড়া এলাকায়।মহিম নিহতের মধ্য দিয়ে অস্ত্রধারী এক ভয়ঙ্কর সন্ত্রাসী পতন হয়েছে বলে মনে করছেন চট্টগ্রামের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তারা।
চট্টগ্রামের অলংকার মোড় আবারো হকারদের দখলে
নিজেস্ব প্রতিবেদক : যানজট নিরসন ও সাধারণ মানুষের যাতায়ত সুবিধা শহরের সোর্ন্ধয্য বর্ধনের জন্য এবং হকারদের শৃংক্ষলিত করার উদ্দেশ্যে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়ন আ.জ.ম নাজির উদ্দিন নগরীর ফুটপাত গুলো হকার মুক্ত রাখতে বিভিন্ন উদ্যেগ নেয়, হকারদের তালিকাভুক্তকরন, আইডি কার্ড বিতরন, অফিস সময় ব্যতীত অন্যান্য সময়ে ব্যবসা করার সময়বৃদ্ধি নির্ধারন, পূর্ণবাসন সহ বিভিন্ন প্রকল্প গ্রহণ করে। যার ফলশ্রুতিতে নগরীর গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলো এখন প্রায় হকারমুক্ত থাকে। এতে যানজট ও অনেকটা হ্রাস পেয়েছে। কিন্তু কিছুদিন যাতে না যেতেই চট্টগ্রামের গুরুত্বপূর্ণ এলাকা অলংকার মোড় আবারো হকারদের দখলে নিয়ে যায় চট্টগ্রাম হইতে ঢাকা, নোয়াখালী, রাজশাহী, সিলেট, কুমিল্লা সহ সকল এলাকার গাড়ীর যাতায়ত ও টিকেট কাউন্টার ও সাগরিকা শিল্প এলাকার অবস্থান সহ গুরুত্বপূর্ণ স্থান এই অলংকার মোড়, চসিকের নিয়ম না মেনে স্থানীয় স্থাপন নিমার্ণ করে হকারেরা ফুটপাত দখল করে এই অলংকার মোড়ে তাদের ব্যবসা পরিচালনার কারনে একাদিকে যেমন প্রচুর যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে তেমনী অন্যদিকে বিভিন্ন অপরাধিরা নির্বিঘে তাহাদের অপরাধী কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছে। সেইসাথে বিগ্ন হচ্ছে নগরীর সুন্দরের বর্ধনের উদ্দ্যেগ, ক্ষমতাসীন সরকারের নাম ভাংগীয়ে কিছু ব্যক্তি ও স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন ট্রাফিক পুলিশ বিভাগের ক্ষতিপয় কিছু অসাদু ব্যক্তির সহায়তা হকারেরা আবার ফুটপাত দখল করে বলে অভিযোগ রয়েছে। নগরীর কয়েকজন ভুক্ত ভোগী ও বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠনের নেতী বৃন্দরা এই হকারদের দ্রুত উচ্ছেদ পূর্বক ফুটপাত দখলমুক্ত করিতে চসিকের মেয়র সহ সকলের প্রতি অনুরোধ জানান।