ডাকাতের গুলিতে যুবক নিহত সিলেটে
সিলেটের কানাইঘাটে এক প্রবাসীর বাড়িতে ডাকাতের ছোড়া গুলিতে এক যুবক নিহত হয়েছেন। তার নাম ইফজাল হোসেন। বুধবার রাতে উপজেলার ছোটফৌদ গ্রামে এ ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছেন কানাইঘাট থানার ভারপ্ররপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল আহাদ। ৩৩ বছর বয়সী নিহত ইফজাল ছোটফৌদ গ্রামের জালাল মিয়ার ছেলে। ইফজালের পরিবার স্পেনে থাকেন। তিনি স্পেন থেকে বাড়িতে এসে ৩-৪ বছর ধরে থাকছেন। ওসি আহাদ জানান, রাত তিনটার দিকে একদল ডাকাত ইফজালদের বাড়িতে হানা দিয়ে পরিবারের সবাইকে বেঁধে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে। ওই সময় বাড়ির বাহিরে থাকা ইফজাল ফিরে এসে পরিবারের লোকজনকে বেঁধে রাখা দেখতে পায়। পরে ডাকাতদের সঙ্গে ধস্তাধস্তি শুরু হলে ডাকাতরা তাকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে। এতে তিনি গুরুতর আহত হন। দ্রুত উদ্ধার করে ইফজালকে কানাইঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ডাকাতরা ঘরে থাকা স্বর্ণালঙ্কার ও নগদ অর্থসহ প্রায় চার লাখ টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে যায় বলে জানা গেছে।
চাঁদপুরের সিভিল সার্জনসহ আহত ৬ সড়ক দুর্ঘটনায়
লক্ষ্মীপুরের চন্দ্রগঞ্জে ট্রাকের সঙ্গে মাইক্রোবাসের সংঘর্ষে চাঁদপুরের সিভিল সার্জন সায়েদুজ্জামানসহ ছয়জন আহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে আরও চার চিকিৎসক আছেন। বুধবার রাতে এই দুর্ঘটনা ঘটে। আহতদের লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, লক্ষ্মীপুর থেকে ছেড়ে আসা একটি ট্রাক ঘটনাস্থলে পৌঁছলে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি মাইক্রোবাসের সঙ্গে ট্রাকটির মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এ সময় মাইক্রোবাসে থাকা চাঁদপুর জেলার সিভিল সার্জন সায়েদুজ্জামান, চিকিৎসক আনোয়ারুল আজিম, মাহবুবা আলম, জাকির হোসেন, তাহমিনা রহমান ও মনির আহমদ আহত হন। পরে তাদের উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তারা সবাই চট্টগ্রাম থেকে কর্মস্থলে ফিরছিলেন। চন্দ্রগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) মো. শাহজাহান খান দুর্ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, দুর্ঘটনা কবলিত ট্রাকটি আটক করা হয়েছে।
হাঁটু পানি চমেকের প্রধান ফটকে
হঠাৎ দেখে যে কারো মনে হতে পারে বর্ষায় আবারো ডুবেছে চট্টগ্রাম নগর। না কিন্তু বিষয়টি এমন নয়। এটি অপরিকল্পিত উন্নয়নের আরো একটি উদাহারণ মাত্র। রাস্তা উঁচু করার জন্য ফেলা ইট আর বালিতেই এই জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। অপরিকল্পিতভাবে কাজ শুরু করায় বন্ধ হয়ে গেছে পাশের ড্রেনের মুখও। তাই গেটের নিচু অংশে পানি জমে এ দুর্ভোগের সৃষ্টি হয়েছে। চমেকের পূর্ব গেটের অবস্থাও কাদায় মাখামাখি। বুধবার (১৮ এপ্রিল) সকালে সরেজমিনে দেখা যায়, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের প্রধান ফটকে জমে আছে হাঁটু পানি। নোংরা ওই পানি থেকে চরম দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। সেই পানি মাড়িয়েই রোগী ও তাদের স্বজনদের করতে হচ্ছে চলাফেরা। মাঝে মাঝে আটকা পড়ছে সিএনজি অটোরিকশাসহ নানা যানবাহন। হাসপাতালে আসা রোগী ও তাদের স্বজন ছাড়াও চমেকের শিক্ষার্থীদেরও বিব্রত অবস্থায় পড়তে হচ্ছে এই নোংরা পানি মাড়াতে গিয়ে। কলেজের ইন্টার্ন চিকিৎসক মারিয়া মনসুর বলেন,গত কয়েক দিন ধরে এই ফটকে পানি জমে বিচ্ছিরি একটা অবস্থা। পাশের গেটেও তালা। তাই বাধ্য হয়ে নোংরা পানি মাড়িয়েই যাতায়াত করতে হচ্ছে সন্দ্বীপ থেকে বৃদ্ধ মাকে নিয়ে হাসপাতালে এসেছেন মিজান। টেম্পো থেকে নেমে বেশ কিছুক্ষণ দাঁড়িয়ে আছেন তিনি। কীভাবে হাসপাতালে প্রবেশ করবেন বুঝতে পারছেন না। বৃদ্ধা মাকে কীভাবে এই পানি দিয়ে নিয়ে যাবেন তা ভাবছেন। শেষমেষ আবারও রিকশায় উঠে চমেকের পূর্ব গেট দিয়ে প্রবেশ করেন তিনি।
একে-৪৭সহ বিপুল অস্ত্র উদ্ধার,পাহাড়ে অস্থিরতা সৃষ্ঠিতে অস্ত্রের মজুদ
পার্বত্য চট্টগ্রামে সাম্প্রদায়িক সংঘাতসহ অপহরণ-চাঁদাবাজি, গুম-খুন ও সশস্ত্র তৎপরতা বৃদ্ধিতে অত্যাধুনিক ভারী মারনাস্ত্র সংগ্রহে নেমেছে পাহাড়ের সন্ত্রাসীরা। আঞ্চলিকদলের ছত্রছায়ায় এই সকল সন্ত্রাসী নিজেদের আধিপত্য বিস্তারে মরিয়া হয়ে উঠে বর্তমান সময়ে প্রতিদিনই সশস্ত্র সংঘাতে লিপ্ত হচ্ছে। পাহাড়ে বিরাজমান এই সকল সশস্ত্র সন্ত্রাসী কার্যকলাপে ব্যবহারের উদ্দেশ্যে বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠনগুলোর কাছ থেকে অস্ত্র ক্রয় করে পার্বত্যাঞ্চলের গহীন অরণ্যে অবস্থানরত এই সকল সন্ত্রাসীদের কাছে পৌছে দিচ্ছে পার্বত্য চট্টগ্রামের আঞ্চলিক দলগুলো। বিগত কয়েকমাস ধরেই এই চক্রটি পাহাড়ে সশস্ত্র তৎপরতার মাধ্যমে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টির লক্ষ্যে অত্রাঞ্চলে বিদেশী ভারী ভারী অস্ত্র-শস্ত্র মজুদ করছে এই ধরনের সুনির্দিষ্ট্য তথ্য নিরাপত্তা বাহিনীর সংশ্লিষ্ট্য দায়িত্বশীল সূত্রগুলো জানতে পারে। এই ধরনের তথ্য পাওয়ার পরপরই রাঙামাটি সদরের কাপ্তাই হ্রদের ওপারে বালুখালী ইউনিয়নের কাইন্দারমুখ এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে রাঙামাটি সেনা রিজিয়নের একটি দল। এসময় সেনা সদস্যদের উপস্থিতি টের পেয়ে সন্ত্রাসীরা কাপ্তাই হ্রদের পানিতে ঝাঁপ দিয়ে পালিয়ে যেতে সক্ষম হলেও তাদের আস্তানা থেকে অত্যাধুনিক পাঁচটি ভারী অস্ত্র ও ১৬ রাউন্ড তাজাগুলি উদ্ধার করে সেনাবাহিনীর টিম। সেনাবাহিনীর রাঙামাটি রিজিয়নের দায়িত্বশীল সূত্র ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানিয়েছেন, উদ্ধারকৃত অস্ত্রের মধ্যে ০২টি ৭.৬২ মিঃমিঃ এসএমজি, ০১টি এ্যাসল্ট রাইফেল, ০২টি পিস্তল, ১৬ রাউন্ড এ্যামোনিশন, ০২টি এসএমজির ম্যাগাজিন, ০১টি এ্যাসল্ট রাইফেলের ম্যাগাজিন, ০২টি পিস্তলের ম্যাগাজিন ও ০১ টি সিলিং উদ্ধার করা হয়। রাঙামাটির কোতয়ালী থানার অফিসার সত্যজিৎ বড়ুয়া অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান সেনাবাহিনী অভিযান চালিয়ে অস্ত্রগুলো উদ্ধার করে আমাদের কাছে দিয়েছে, আমরা এগুলোর ব্যাপারে প্রয়োজনীয় আইনী পদক্ষেপ গ্রহণ করবো। নিরাপত্তা বাহিনীর দায়িত্বশীল সূত্র জানিয়েছে, রাঙামাটিসহ বান্দরবান ও খাগড়াছড়ির ভারত ও মায়ানমার সীমান্তবর্তী এলাকাগুলো দিয়ে উলফা ও আরাকান আর্মির মতো বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠনগুলোর সাথে আঁতাত করে পার্বত্য চট্টগ্রামের আঞ্চলিক দলগুলো ভারী ভারী বিদেশী অস্ত্র সংগ্রহ করছে। পাহাড়ের বিভিন্ন স্তর থেকে আদায় করা চাঁদাবাজির কোটি কোটি টাকা খরছ করেই এইসব অস্ত্র সংগ্রহ করছে পাহাড়ের সন্ত্রাসীরা। সম্প্রতি পাহাড়ের সাপে-নেউলে থাকা দুটি আঞ্চলিক দল সন্ধিচুক্তিতে আবদ্ধ হয়ে নিজেদের বিভিন্ন সোর্সকে কাজে লাগিয়ে পাহাড়ে অবৈধ অস্ত্রের মজুদ করছে। মূলতঃ পাহাড়ে আইনশৃঙ্খলায় নিয়োজিত নিরাপত্তা বাহিনীসহ স্থানীয় সরকারদলীয়দের বিরুদ্ধে আগামী নির্বাচনে ব্যবহারের উদ্দেশ্যেই এই সকল অস্ত্রের মজুদ করা হচ্ছে বলে জানতে পারে গোয়েন্দা সংস্থাগুলো। চাঁদা আদায়ে নিজেদের আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সংস্থাগুলো ইতিমধ্যেই সংশ্লিষ্ট্য উদ্বর্তন কতৃপক্ষের নিকট তাদের রিপোর্ট পেশ করেছে বলে জানাগেছে সংশ্লিষ্ট্য সূত্রে। সম্প্রতি গত এক সপ্তাহে রাঙামাটি-খাগড়াছড়ির বিভিন্ন স্থানে আধিপত্য বিস্তারে আঞ্চলিক দলগুলোর সশস্ত্র সংঘাতে বেশ কয়েকজন নিহত হওয়ার ঘটনা গোয়েন্দা সংস্থার রিপোর্টই সত্যি প্রমানিত হয়েছে জানিয়েছে নিরাপত্তা বাহিনীর দায়িত্বশীল একজন উদ্বর্তন অফিসার জানিয়েছেন, যে আগামী নির্বাচনে নিজেদের একক আধিপত্য নিশ্চিত করতে চুক্তির পক্ষের একটি আঞ্চলিক রাজনৈতিক দল পাহাড়ে অস্ত্রের মজুদ করছে এবং ইউপিডিএফ এর সাথে আঁতাত করে তাদেরকে দিয়েই প্রতিপক্ষগ্রুপ গুলোর(এমএনলারমা সমর্থিত জেএসএস ও গনতান্ত্রিক ইউপিডিএফ) নেতাদেরকে বেছে বেছে হত্যা করাচ্ছে। কারন হিসেবে উক্ত কর্মকর্তা জানান, নির্বাচনে নিজেদের মাঠ পরিস্কার করে রাখছে যাতে করে সরকারদল আওয়ামীলীগ ছাড়া উক্ত চুক্তির পক্ষের দলটির সাথে আর কোনো প্রতিপক্ষ নাথাকে। এই লক্ষ্যে পাহাড়ে বর্তমানে সশস্ত্র তৎপরতা বৃদ্ধি করা হয়েছে। এই ধরনের অবস্থায় বেশ চিন্তিতও হয়ে পড়েছে সরকারের বিভিন্ন সংস্থাগুলো। এরই মধ্যে পাহাড়ে বৃদ্ধি করা হয়েছে গোয়েন্দা তৎপরতা। বিভিন্ন ক্যাম্প, থানাসহ ফাঁিড়গুলোতে তাদের ফোর্সদের সর্বোচ্চ সতর্কাবস্থায় রাখা হয়েছে। রাঙামাটির পুলিশ সুপার আলমগীর কবির জানিয়েছেন, অস্ত্রের রাজনীতিতে বিশ্বাসী এই সকল আঞ্চলিকদলীয় সন্ত্রাসীদের ব্যাপারে আমরা সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থায় রয়েছি। সন্ত্রাসীদের ব্যাপারে এক চুলও ছাড় দেওয়া হবেনা উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমরা বিভিন্ন বাহিনীর সাথে যোগাযোগ করে রেইট দেওয়ার ব্যাপারেও চিন্তা করছি।
পিরোজপুরের নেছারাবাদে ইয়াবাসহ এইচএসসি পরীক্ষার্থী গ্রেফতার
পিরোজপুরের নেছারাবাদে জয়ন্ত বড়াল (১৮) নামে এক এইচএসসি পরীক্ষার্থীকে আট পিচ ইয়াবাসহ গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এসময় সহযোগী মোটরসাইকেল চালক তাপস সমদ্দার (২৫) নামে আরও একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মঙ্গলবার সোহাগদল গ্রাম থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। আটককৃতদের ব্যপারে থানায় মাদক আইনে মামলা দিয়ে বুধবার দুপুরে পিরোজপুর কোর্টে চালান করা হয়েছে। স্থানীয়রা জানান, মোটরসাইকেলটি দৈহারী গ্রামের কিশোর মন্ডলের ছেলে তম্ময় মন্ডলের। তম্ময়ের প্রলোভনে পড়ে তার গাড়ি নিয়ে গ্রেফতারকৃতরা ওই ইয়াবা নিয়ে আসছিল। তম্ময় এলাকার একজন নিয়মিত মাদকসেবী। তবে পুলিশের ভাষ্য, জব্দকৃত ওই মোটরসাইকেলটি তারা (পুলিশ) পরিত্যক্ত অবস্থায় পেয়েছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে। ইয়াবা বহনকারী জয়ন্ত উপজেলার দৈহারী গ্রামের জয়দেব বড়ালের ছেলে। জয়ন্ত পাশ্ববর্তী নাজিরপুর উপজেলার ঘোষকাঠি কলেজ থেকে এবছর কারিগরী বিভাগ থেকে দ্বিতীয় সেমিস্টারের বোর্ড ফাইনাল পরীক্ষা দিচ্ছিল। গ্রেফতারকৃত জয়ন্তের পিতা জয়দেব বড়াল একটি মিষ্টি দোকানের কর্মচারী হিসাবে কাজ করে। অপরজন গয়েশকাঠি গ্রামের কৃষ্ণকান্ত সমদ্দারের ছেলে।
ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে সন্তানসহ মায়ের আত্মহত্যা
ময়মনসিংহ জেলার গফরগাঁওয়ের ধামাইল এলাকায় দু' বছরের সন্তানসহ ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে কোলের সন্তানকে নিয়ে আত্মহত্যা করেছেন এক মা। তারা হলেন- লিজা আক্তার (২৫) ও তার দুই বছর বয়সী সন্তান ইয়াসির। গফরগাঁও ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শামছুল আলম খোকন জানান, পারিবারিক কলহের জের ধরে মঙ্গলবার (১৭ এপ্রিল) সকাল সাড়ে ৭টার দিকে ঢাকা অভিমুখী যমুনা এক্সপ্রেস ট্রেনের নিচে সন্তানকে নিয়ে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেন লিজা আক্তার। গফরগাঁও থানার ওসি আব্দুল আহাদ জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে। এলাকাবাসী জানান, প্রায় ৫ বছর আগে উপজেলার সালটিয়া ইউনিয়নের ধামাইল এলাকার রাজিব ঢালীর সঙ্গে বিয়ে হয় স্থানীয় গফরগাঁও ইউনিয়নের মির্ধা বাড়ির শাহজাহান মির্ধার মেয়ে লিজা আক্তারের। তাদের সংসারে ইয়াসিন ঢালী নামে দুই বছর বয়সী এক শিশু সন্তান ছিল। তারা আরও জানায়, প্রায়ই শাশুড়ির সঙ্গে লিজা আক্তারের ঝগড়া হতো। সোমবারও একমাত্র সন্তান ইয়াসিন ঢালীর হাতকাটা নিয়ে শাশুড়ি-বউয়ের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। এরই জের ধরে মঙ্গলবার সকালে শিশু সন্তানসহ ট্রেনের নিচে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেন লিজা আক্তার। এ বিষয়ে স্থানীয় গফরগাঁও ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শামসুল আলম খোকন জানান, মেয়ের বাবা শাহজাহান আমাদের জানিয়েছেন তার মেয়ের মানসিক সমস্যা ছিল। হয়তো এ কারণেই সে আত্মহত্যা করে থাকতে পারে। এমনটাই জানিয়েছেন স্থানীয় সালটিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান নাজমুল হক ঢালী। তিনি জানান, মেয়েটি মানসিক ভারসাম্যহীন ছিল বলে জেনেছি। পারিবারিক কলহ থেকেই মেয়েটি আত্মহত্যা করে থাকতে পারে।
চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় ২ নারী নিহত
পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় চট্টগ্রামের মিরসরাই উপজেলার নিজামপুর ও বড়তাকিয়ায় দুই নারী নিহত হয়েছেন। নিজামপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের উপপরিদর্শক (এসআই) আবুল হাসেম জানান, নিজামপুরের ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে মঙ্গলবার (১৭ এপ্রিল) সকাল আটটার দিকে দ্রুতগতির গাড়ির চাকায় পিষ্ট হয়ে সাজেদা বেগম (৪২) নামের এক পথচারী নিহত হয়েছেন। নিহত সাজেদা মধ্যম ওয়াহেদপুরের আকতার হোসেনের স্ত্রী। অন্যদিকে, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের মিরসরাইয়ের বড়তাকিয়া এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় আনুমানিক ৪২ বছরের অজ্ঞাত নারী নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার (১৭ এপ্রিল) ভোরে জোরারগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশ মরদেহটি উদ্ধার করে থানায় নিয়ে গেছে। জোরারগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশের ইনচার্জ সোহেল সরকার বলেন, বড়তাকিয়া চক্ষু হাসপাতালের সামনে সড়কের মাঝখানে একটি মরদেহ পড়ে থাকার খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে ছুটে যাই। সেখান থেকে তার ছিন্নভিন্ন মরদেহটি উদ্ধার করি। এখনো নিহতের পরিচয় জানা যায়নি। এলাকাবাসীর ধারণা, ওই নারী মানসিক ভারসাম্যহীন বা ভবঘুরে। তিনি আরও জানান, বড়তাকিয়া চক্ষু হাসপাতালের সামনে মহাসড়কের চট্টগ্রাম-ঢাকা লেনের মাঝখানে ওই নারীর মরদেহটি পাওয়া যায়।
দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে ট্রাক চাপায় কলেজছাত্রী নিহত
সোমবার (১৬ এপ্রিল) রাতে দিনাজপুর-ফুলবাড়ী মহাসড়কের দিনাজপুরের ফুলবাড়ীর ঢাকা মোড় সংলগ্ন এলাকায় ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে ফাতেমা খাতুন (২১) নামে এক কলেজছাত্রী নিহত হয়েছেন। নিহত ফাতেমা উপজেলার পলিপাড়া গ্রামের আবুল কাশেমের মেয়ে ও ফুলবাড়ী মহিলা কলেজের স্নাতক শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী। পুলিশ জানায়, ফাতেমা রাতে বৈশাখী মেলা দেখে মোটরসাইকেলযোগে বাড়ি ফেরার সময় একটি ট্রাক তাকে ধাক্কা দেয়। এতে তিনি ছিটকে পড়ে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হয়ে গুরুতর আহত হন। তাৎক্ষণিকভাবে তাকে উদ্ধার করে ঢামেক হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ফাতেমাকে মৃত ঘোষণা করেন। ট্রাকটিকে (ঢাকা মেট্রো-ট ১৪-২৪৫২) আটক করে থানায় আনা হয়েছে।

সারা দেশ পাতার আরো খবর