মঙ্গলবার, মার্চ ৯, ২০২১
সাতকানিয়ায় লরীর ধাক্কায় বন কর্মকর্তা নিহত
১২,অক্টোবর,সোমবার,সাতকানিয়া প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় তমা গ্রুপের লরীর ধাক্কায় বন কর্মকর্তা নিহত হয়েছেন। ১১ই অক্টোবর (রবিবার) বিকাল ৪টায় সাতকানিয়া উপজেলার কেরানীহাটের নয়াখাল এলাকায় এই দূর্ঘটনা ঘটে। নিহত ব্যক্তির নাম মোবারক হোসেন। তিনি পদুয়া রেন্জের বনকর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত। পেশাগত কাজ শেষে বাসায় ফেরার পথে মোটর সাইকেল নিয়ে কেরানীহাটের নয়াখালের মুখ এলাকায় পৌছাঁলেই তমা গ্রুপের একটি লরী বন কর্মকর্তাকে ধাক্কা দিলেই ঘটনাস্থলে তিনি প্রাণ হারান। এবিষয়ে হাইওয়ে থানার ওসি ইয়াসির আরাফাত নিউজ একাত্তরকে বলেন , এ বিষয়ে তমা গ্রুপের গাড়ীটি জব্দ করা হয়েছে, আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।
বর্তমান সরকার সবসময় জনগণের পাশে আছে: পরিবেশ মন্ত্রী
১১,অক্টোবর,রবিবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মো. শাহাব উদ্দিন এমপি বলেছেন, করোনাভাইরাসের মহামারীকালে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকার জনগণের পাশে দাঁড়িয়েছে। সব সময় জনগণের পাশে আছে। সেজন্য প্রাণঘাতি এই ভাইরাসের জন্য সারাবিশ্ব বিপর্যস্ত হলেও দেশের কোন লোক না খেয়ে মারা যায় নি। পরিবেশ মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিচক্ষণ নেতৃত্বের জন্যই এই মহামারী মোকাবেলা করা সম্ভব হয়েছে। সেজন্যই বিশ্বের নেতারা তাঁর নেতৃত্বের প্রশংসা করছেন। রোববার (১১ অক্টোবর) মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে শারদীয় দূর্গাপূজা উদযাপন উপলক্ষে ১২৯টি পূজামন্ডপে ৫শ কেজি করে মোট ৬৪ দশমিক ৫০ মেট্রিক টন জি আর চালের ছাড়পত্র (ডিও) প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন। শাহাব উদ্দিন বলেন, কুলাঙ্গার ধর্ষকদের সর্বোচ্চ শাস্তির ব্যবস্থা করলেই সমাজকে ধর্ষনমুক্ত করা যাবে না। ধর্ষকদের সামাজিকভাবে বয়কট করতে হবে। ধর্ষকদের পিতা-মাতা, আত্মীয়-স্বজনরা জনসম্মুখে ধর্ষকদের বর্জনের ঘোষনা না দিলে তাদেরকেও বয়কট করতে হবে। ধর্ষনের ঘটনায় তীব্র ক্ষোভ ও নিন্দা জানিয়ে পরিবেশ মন্ত্রী ধর্ষকদের নিজ নিজ এলাকায় ঢুকতে না দেয়ার জন্য জনপ্রতিনিধি এবং আইনি সহায়তা না দেয়ার জন্য আইনজীবীদের প্রতি আহবান জানান। বড়লেখা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামীম আল ইমরানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সোয়েব আহমেদ, বড়লেখা পৌরসভা মেয়র আবুল ইমাম মো. কামরান চৌধুরী, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান তাজউদ্দিন ও উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম সুন্দর। করোনাভাইরাসের বৈশ্বিক মহামারীকালে স্বাস্থ্যবিধি মেনে আসন্ন দূর্গোৎসব উদযাপনের জন্য তিনি সনাতন ধর্মাবলম্বীদের প্রতি আহবান জানিয়ে বলেন, আমাদের জীবন রক্ষা করেই সকল প্রকার কার্যক্রম চালাতে হবে।
নারায়ণগঞ্জে কিশোর গ্যাংয়ের ১১ সদস্য গ্রেফতার
১০,অক্টোবর,শনিবার,নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার চাঁনমারী মাউরাপট্টি সেকশনমাঠ এলাকায় অভিযান চালিয়ে এলাকায় ত্রাস ও জনমনে ভীতি সৃষ্টিকারী কিশোর গ্যাংয়ের ১১ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে Rab সদস্যরা। শুক্রবার রাতে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। এ বিষয়ে শনিবার বিকেল পৌনে ৩টায় Rab-11 এর সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মো. সুমিনুর রহমানের পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। গ্রেফতারকৃতরা হলেন- মো. রাসেল মিয়া ওরফে রাসেল (১৮), মো. জালাল (১৮), মো. আমিনুল ইসলাম (২৩), মো. জনি ওরেফ শফিকুল ইসলাম (১৮), মো. জাকির হোসেন ওরফে জাকির (১৮), মো. আনোয়ার (১৮), মো. জুয়েল রানা (২২), মো. আবু নাঈম (১৮), মো. ফেরদৌস ইসলাম (১৮), মো. আব্দুল্লাহ ওরফে শুভ (২৪) ও মো. সাইফুল ইসলাম ওরফে শান্ত (১৮)। Rabজানায়, বৃহস্পতিবার কিশোর গ্যাং গ্রুপের উক্ত সদস্যরা অপর এক কিশোরকে অপহরণ করে চাঁনমারী মাউরাপট্টি সেকশনমাঠ এলাকায় একটি পরিত্যক্ত ভবনে আটকে রাখে এবং মারধর করে তার কাছে থেকে ৩ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়। পরবর্তীতে ওই কিশোরের মায়ের কাছে ফোন করে ৪০ হাজার টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। ওই কিশোরের মা ১০ হাজার টাকা দিবে বলে জানায়। পরে অপহৃত কিশোরের মায়ের অভিযোগে ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়। Rab আরো জানায়, গ্রেফতাকৃতরা দুষ্কৃতিকারী ও কিশোর গ্যাং গ্রুপের সক্রিয় সদস্য। তারা দীর্ঘদিন ধরে রাস্তা ঘাটে পরিকল্পিতভাবে দলবদ্ধ হয়ে সংঘাত সৃষ্টি ও জনমনে ভয়ভীতি দেখিয়ে এলাকায় ত্রাস সৃষ্টি করে আসছিল। এছাড়াও ওই এলাকায় কোন অপরিচিত লোক আসলে জিম্মি করে মূল্যবান জিনিসপত্র জোরপূর্বক ছিনিয়ে নেয়। গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে ফতুল্লা থানায় আইনানুগ কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে তিনি জানান।
বিয়ের প্রলোভন দিয়ে কলেজছাত্রীকে ধর্ষন, ধর্ষক গ্রেফতার
০৮,অক্টোবর,বৃহস্পতিবার,আব্দুল্লাহ আল মামুন,মাদারীপুর,নিউজ একাত্তর ডট কম: মাদারীপুরের কালকিনিতে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে এক দরিদ্র কলেজছাত্রীকে ধর্ষনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ধর্ষনের ঘটনায় থানায় একটি ধর্ষন মামলা দায়ের করেছেন ভূক্তভোগীর বাবা। পরে থানা পুলিশ ধর্ষক বিশ্বজিৎ বৈদ্যকে গ্রেফতার করেন। ওই কলেজছাত্রী কালকিনি সৈয়দ আবুল হোসেন কলেজের এইচ.এস.সির প্রথম বর্ষের ছাত্রী। আজ বৃহস্পতিবার সকালে গ্রেফতারকৃতকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। মামলা ও ভুক্তভোগী পরিবার সুত্রে জানাগেছে,্ উপজেলার বালিগ্রাম এলাকার ঘুঈগাকুল গ্রামের ওই কলেজছাত্রীর সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে গোপালগঞ্জ জেলার কোটালীপাড়া উপজেলার দাসুল্লাপুর ইউনিয়নের পিড়ারবাড়ি গ্রামের উপানন্দ বৈদ্যের লম্পট ছেলে বিশ্বজিৎ বৈদ্যের প্রথমে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। এরপর লম্পট বিশ্বজিৎ ওই কলেজছাত্রীকে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে আসছে। পরে গত মঙ্গলবার দিবাগত রাতে ওই কলেজছাত্রীর বাড়িতে দেখা করতে আসেন লম্পট বিশ্বজিৎ। এসময় ওই কলেজছাত্রীর বাড়িতে কোন লোকজন না থাকায় বিশ্বজিৎ তাকে জোরপূর্বক ধর্ষন করে। এরপর সকালে ওই কলেজছাত্রী এ ঘটনা বাড়ির লোকজনকে যানালে প্রতিবেশিরা এগিয়ে এসে ধর্ষক বিশ্বজিৎকে আটক করে বৃহস্পতিার রাতে থানা পুলিশের কাছে সোর্পদ করেন। পরে ওই ধর্ষিত কলেজছাত্রীর বাবা বাদি হয়ে ডাসার থানায় একটি ধর্ষন মামলা দায়ের করেন। পরে থানা পুলিশ ধর্ষক বিশ্বজিৎকে রাতে গ্রেফতার করেন। ভুক্তভোগী কলেজছাত্রীর বাবা অভিযোগ করে বলেন, আমার মেয়ের সরলতার সুযোগনিয়ে বিশ্বজিৎ জোরপূর্বক ধর্ষন করেছে। তাই আমি তার বিরুদ্ধে মামলা করেছি। আমি তার বিচার চাই। এ ব্যাপারে ডাসার থানার ওসি মুহাম্মদ আবদুল ওহাব বলেন, ওই কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় তার বাবা বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন। আজ সকালে নির্যাতিতা ছাত্রীর মেডিক্যাল পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে ও গ্রেফতারকৃতকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।
বগুড়ায় ২০০ কিলোমিটার সড়ক সংস্কার করছে এলজিইডি
০৮,অক্টোবর,বৃহস্পতিবার,বগুড়া প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: গ্রামীণ সড়ক রক্ষণাবেক্ষণ মাস উপলক্ষে বগুড়ায় মেরামতকাজ শুরু করেছে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি)। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মবার্ষিকীতে মুজিব বর্ষের অঙ্গীকার সড়ক হবে সংস্কার স্লোগান সামনে নিয়ে দেশব্যাপী মেরামত কার্যক্রম চলছে। এরই ধারাবাহিকতায় বগুড়া জেলার ২০০ কিলোমিটার রাস্তার পোটহোলসহ অন্যান্য মেরামতকাজ সম্পন্ন করতে পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। বগুড়ায় এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন বগুড়া অঞ্চলের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী আবু সৈয়দ মো. সাইফুল ইসলাম। এ সময় এলজিইডি বগুড়ার নির্বাহী প্রকৌশলী কাজী সাইফুল কবীরসহ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এলজিইডি বগুড়া কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, জেলার ১২ উপজেলায় এ মেরামতকাজ করা হবে। রাস্তার মধ্যে থাকা খানাখন্দক, ভাঙা রাস্তা সংস্কার করা হচ্ছে। এলজিইডি বগুড়ার নির্বাহী প্রকৌশলী কাজী সাইফুল কবীর জানান, বগুড়া জেলায় ২০০ কিলোমিটার রাস্তায় খানাখন্দকসহ অন্যান্য ছোটখাটো মেরামতকাজ মোবাইল মেইনটেন্যান্সের মাধ্যমে শুরু হয়েছে। বগুড়া সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আবু সুফিয়ান সফিক জানান, সদর উপজেলায় যেসব রাস্তায় খানাখন্দক বা ভেঙে গেছে তার তালিকা করে মেরামতকাজ প্রক্রিয়াধীন।
ধর্ষকদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে রাঙ্গামাটিতে জেলা ছাত্রলীগের আলোক প্রজ্জ্বলন
০৭,অক্টোবর,বুধবার,প্রেস বিজ্ঞপ্তি,নিউজ একাত্তর ডট কম: বেগমগঞ্জে গৃহবধূকে বিবস্ত্র করে বর্বর নির্যাতনের ঘটনাসহ সারাদেশে ঘটে যাওয়া একের পর এক ধর্ষণ নারী নিপীড়নের ঘটনায় সম্পৃক্ত ও পৃষ্ঠপোষকদের গ্রেপ্তার করে এর বিচার এবং নারীর প্রতি সহিংসতার স্থায়ী অবসানের দাবিতে রাঙ্গামাটিতে আলোক প্রজ্জ্বলন করেছে রাঙ্গামাটি জেলা ছাত্রলীগ। বুধবার (৭ অক্টোবর) সন্ধ্যায় রাঙ্গামাটি শহরের পুরাতন বাস স্টেশন সংলগ্ন দোয়েল চত্বরে জেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে এই কর্মসূচি পালিত হয়। এতে রাঙ্গামাটি জেলা যুব মহিলা লীগের সভাপতি রোকেয়া আক্তার, সাধারণ সম্পাদক লেখিকা চাকমা, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আব্দুল জব্বার সুজন ও সাধারণ সম্পাদক প্রকাশ চাকমা, সাংগঠনিক সম্পাদক সাল্লাউদ্দিন টিপুসহ বিভিন্ন স্তরের নেতৃবৃন্দ এবং সংগঠনটির বিভিন্ন ইউনিটের নেতাকর্মীরা অংশগ্রহণ করেন। এসময় কর্মসূচিতে অংশ নেয়া প্রত্যেকের হাতে একটি করে মোমবাতি ছিল। আলোক প্রজ্জ্বলনে আব্দুল জব্বার সুজন বলেন, সকল ধর্ষককে দ্রুত আইনের আওতায় এনে সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করা হোক। যারা ধর্ষক বা এর সাথে যারা সংশ্লিষ্ট তাদের যেন দ্রুত আইনের আওতায় এনে সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড নিশ্চিত করা হয়। একই সাথে তিনি আরো বলেন, ধর্ষকের কোন দল-মত নেই। সে যেই হোক না কেন আমরা তার কঠোর শাস্তি চাই। আজকে আমরা আঁধারের বিরুদ্ধে আলোক মিছিল করে সেই বার্তাটি দিতে চাই। ধর্ষকদের সর্বোচ্চ শাস্তি চাই।
মহেশপুর সীমান্ত থেকে ভারতীয় নাগরিকসহ আটক ৪৩
০৭,অক্টোবর,বুধবার,ঝিনাইদহ প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: ঝিনাইদহের মহেশপুর সীমান্ত দিয়ে অবৈধভাবে বাংলাদেশ থেকে ভারতে প্রবেশের চেষ্টাকালে পাঁচ ভারতীয় নাগরিকসহ ৪৩ জনকে আটক করেছে বিজিবি। গত সোমবার রাতে উপজেলার বাঘাডাঙ্গা, মাটিলা, লড়াইঘাট ও শ্যামকুড় সীমান্ত থেকে তাদের আটক করা হয়। বিজিবি-৫৮ ব্যাটালিয়নের কমান্ডিং অফিসার লে. কর্নেল কামরুল আহসান জানান, অনুপ্রবেশের সংবাদ পেয়ে রাতে সীমান্তের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালায় বিজিবি। এ সময় বাঘাডাঙ্গা বিওপির আওতাধীন এলাকা কাঞ্চনপুর থেকে নারী ও শিশুসহ ১৬ জন, মাটিলা এলাকা থেকে তিন নারী ও শ্যামকুড় এলাকা থেকে পাঁচজনকে আটক করা হয়। এছাড়া অবৈধভাবে বাংলাদেশ হতে ভারতে যাওয়ার সময় পাঁচ ভারতীয় নাগরিকসহ ১৫ জন, মাটিলা থেকে তিনজন ও লড়াইঘাট এলাকা থেকে একজনকে আটক করা হয়। আটককৃত বাংলাদেশীদের বাড়ি ঝিনাইদহ, খুলনা, মাগুরা, বাগেরহাট, মানিকগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে। আর ভারতীয় পাঁচ নাগরিকের বাড়ি ভারতের বেঙ্গালুর ও নিগড়ী জেলায়। বিকালে মহেশপুর থানায় সোপর্দ করা হলে তাদের আদালতে পাঠানো হয়।
গৃহবধূকে বিবস্ত্র করে নির্যাতন: জেলায় জেলায় প্রতিবাদ, মানববন্ধন
০৬,অক্টোবর,মঙ্গলবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার একলাশপুর ইউনিয়নের একটি বাড়িতে গৃহবধূকে সংঘবদ্ধ দুর্বৃত্ত কর্তৃক বিবস্ত্র করে নির্যাতনের ঘটনায় প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে সারা দেশে। নোয়াখালীসহ বিভিন্ন জেলায় মানববন্ধন ও প্রতিবাদসভা হয়েছে। নোয়াখালী জেলার বেগমগঞ্জে মধ্যযুগীয় কায়দায় স্বামীকে বেঁধে রেখে গৃহবধূকে নিজ ঘরে সংঘবদ্ধভাবে বিবস্ত্র করে নির্যাতন এবং দেশব্যাপী ধর্ষণ ও নারীর প্রতি সহিংসতার প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে নোয়াখালী নারী অধিকার জোট ও ফ্যামিলি প্ল্যানিং অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ নোয়াখালী ইউনিট (এফপিএবি)। সোমবার (৫ অক্টোবর) বেলা সাড়ে ১১টায় জেলা শহর মাইজদীর মুজিব চত্বরে নোয়াখালী নারী অধিকার জোট ও জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে এই প্রতিবাদ ও মাবনবন্ধন হয়। একই প্রতিবাদে এফপিএবি নোয়াখালী শাখা মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করে। এছাড়া আরডিএন (রয়েল ডিস্ট্রিক্ট নোয়াখালী), সুবর্ণচর ছাত্র ও যুব সমাজ এবং বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন একই দাবিতে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করে। নোয়াখালীতে নারীকে বিবস্ত্র করে নির্যাাতনসহ সারাদেশে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের ঘটনায় জড়িতদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি জানিয়েছে চট্টগ্রামের সচেতন নাগরিকরা। তাদের দাবি, দেশে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের ঘটনার বিচার না হওয়ায় বিচারহীনতার সংস্কৃতি গড়ে উঠেছে। এ কারণে একের পর এক বর্বরোচিত ঘটনা ঘটে চলেছে। সোমবার (৫ অক্টোবর) বিকেলে চট্টগ্রাম নগরীর চেরাগী পাহাড় মোড় এলাকায় আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে তারা এই দাবি জানান। সর্বস্তরের সচেতন নাগরিকবৃন্দর ব্যানারে এই বিক্ষোভ সমাবেশের আয়োজন করা হয়। সাংবাদিক প্রীতম দাশের সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন কবি ও সাংবাদিক কামরুল হাসান বাদল, গণজাগরণ মঞ্চের সমন্বয়ক শরীফ চৌহান, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সিতারা শামীম, সাংবাদিক আহমেদ মুনীর, সৌমেন ধর, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে প্রচার সম্পাদক মিন্টু চৌধুরী, আবৃত্তি শিল্পী প্রণব চৌধুরী, নারী শ্রমিক নেত্রী বাপ্পী দেব বর্মণ, সাবেক ছাত্রনেতা নাজিম উদ্দিন, সাংবাদিক মহররম হোসাইন, লতিফা আনসারী রুনা, হিউম্যানিটি ফার্স্ট মুভমেন্টের মিলন রায় প্রমুখ। বেগমগঞ্জে নারীকে বিবস্ত্র করে নির্যাাতনসহ সারাদেশে অব্যাহত ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের প্রতিবাদে ফেনীতে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছে বিভিন্ন সংঘটন। সোমবার বিকালে ফেনী শহরের ট্রাংক রোড় শহীদ মিনার প্রাঙ্গনে প্রতিবাদ সমাবেশসহ শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করেন বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দল (বাসদ), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ, ছাত্র-যুব ঐক্য, বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন, বাংলাদেশ নারী মুক্তি কেন্দ্র ও চারণ সাংস্কৃতিক কেন্দ্রসহ বিভিন্ন সংগঠন। বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দলের (বাসদ) বক্তারা বলেন, দ্রুত এসব ধর্ষণের ঘটনার বিচার করা না গেলে বাংলাদেশ ধর্ষণের অভয়ারণ্যে পরিণত হবে। কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন, নয়ন পাশা, আহবায়ক, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট, ফেনী শহর শাখার আহবায়ক নয়ন পাশা, সাধারণ সম্পবদক পংকজনাথ সূর্য। ইসলামী আন্দোলনের ফেনী জেলা সাধারণ সম্পাদক মাওলানা একরামু্র হক বলেন, সারা দেশে ধর্ষকরা বেপোরোয়া হয়ে গেছে। অধিকাংশ ধর্ষণের ঘটনায় সরকার দলের লোকজন জড়িত। বেগমগঞ্জে গৃহবধূকে বিবস্ত্র করে বর্বর নির্যাতন, ধর্ষণ চেষ্টা ও শ্লীলতাহানি ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করেছে কুমিল্লার কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা। এ সময় তারা সিলেটের এমসি কলেজে স্বামীকে বেঁধে স্ত্রীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণসহ ঘটে যাওয়া প্রত্যেকটি ধর্ষণের বিচার দাবি করেন। সোমবার সকাল সাড়ে ১০টায় কুমিল্লা নগরীর কান্দিপাড় টাউনহল গেটে ছোট ছোট ফেস্টুন ও প্লে-কার্ড নিয়ে দেশে মহামারিতে রূপ নেওয়া ধর্ষণের প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করেন শিক্ষার্থীরা। মানববন্ধনে নেতৃত্ব দেন বাংলাদেশ ছাত্র ঐক্য সংগ্রাম পরিষদের কুমিল্লা শাখা। এ সময় বক্তব্য রাখেন, পরিষদের সহ-সভাপতি এম এ হামজা, সাধারণ সম্পাদক মহিউদ্দিন আকাশ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শরীফ খান, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী তরিকুল ইসলাম, সাইফ হোসেন, সোলতান আহম্মেদ, কুমিল্লা মহিলা কলেজের ছাত্রী সামিয়া হক, মারুফা মজুমদার এবং ভিক্টোরিয়া কলেজের ছাত্র নাহিদুল ইসলাম। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায়ও মানববন্ধন ও প্রতিবাদ কর্মসূচি পালিত হয়েছে। সোমবার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সচেতন যুবকবৃন্দর ব্যানারে এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিভিন্ন বয়সী যুবকসহ মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করেন। মানববন্ধনে মাওলানা ইউসুফ ভূইয়া বলেন, আমরা সুনিদিষ্টভাবে প্রস্তাব রাখতে চাই আগামী এক বছরের জন্য বাংলাদেশে যত ধর্ষণ হবে আসামিদের ক্রসফায়ার অথবা ফাঁসির রায় দিতে হবে। বেগমগঞ্জে নারীকে বিবস্ত্র করে বর্বর নির্যাতনের সঙ্গে জড়িতদের দ্রুত বিচার সম্পন্ন করে সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত এবং দেশে অব্যাহত ধর্ষণ ও নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে। সোমবার দুপুরে সমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরাম বগুড়া জেলা শাখার উদ্যোগে শহরের সাতমাথায় এ কর্মসূচি পালন করা হয়। ফোরামের জেলা আহ্বায়ক দিলরুবা নূরীর সভাপতিত্বে মানববন্ধনে অন্যদের মধ্যে বাসদ বগুড়া জেলা আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট সাইফুল ইসলাম পল্টু, সমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরাম বগুড়া জেলা সদস্য রাধা রানী বর্মন, তাহমিনা আক্তার অ্যানি, নিয়তি সরকার নিতু, মুক্তা আক্তার মীম প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।- ভয়েস বাংলা

সারা দেশ পাতার আরো খবর