বুধবার, এপ্রিল ১, ২০২০
ফেনীতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৭
১৫ আগস্ট,বৃহস্পতিবার,ফেনী প্রতিনিধি ,নিউজ একাত্তর ডট কম:কক্সবাজারগামী একটি পিকনিকের বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সঙ্গে ধাক্কা লেগে ৭ জন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন অন্তত ২১ জন যাত্রী। আজ বৃহস্পতিবার সকালে সদর উপজেলার লেমুয়া ইউনিয়নে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে এই দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতদের মধ্যে তাৎক্ষনিক দুজনের পরিচয় নিশ্চিত করেছে পুলিশ। ফেনীর মহিপাল হাইওয়ে থানার ইনচার্জ (ওসি) মো. শাহজাহান খান জানান, ঢাকার মিরপুর থেকে পিকনিকের উদ্দেশে কক্সবাজার যাচ্ছিল প্রাইম প্লাস পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস (ঢাকা মেট্রো-ব-১৪-৭৫৭৮)। আজ বৃহস্পতিবার সকালে মহাসড়কের ফেনীর লেমুয়া অংশে পৌঁছলে বাসটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সঙ্গে ধাক্কা লেগে দুমডে-মুচড়ে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস ঘটনাস্থলে পৌঁছে উদ্ধার কাজ শুরু করে। দুর্ঘটনায় ঘটনাস্থলে ৬ জন বাসযাত্রী নিহত হয়েছেন। আহতদের মধ্যে অন্তত ২১ জনকে উদ্ধার করে ফেনীর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ফেনীর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল পুলিশ ক্যাম্পের নায়েক মাইদুল হক জানান, ঘটনাস্থলে ৬ জন মারা যায়। আহতদের মধ্যে হাসপাতালে নেয়ার পর শাহাদাত হোসেন নামে আরও একজন নিহত হন। নিহত বাসযাত্রী শাহাদাত ফেনীর ছাগলনাইয়ার বাসিন্দা। নিহত অপর ৬ জনের মধ্যে ঢাকার বিক্রমপুরের সুজন মিয়া নামে একজনের পরিচয় নিশ্চিত করা গেছে। নিহত ৭ জনের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ফেনীর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।
হামলার শিকার হলেন ভিপি নূর
১৪ আগস্ট,বুধবার,পটুয়াখালী প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: ডাকসু ভিপি নূর এবার হামলার শিকার হলেন নিজ শহরে পটুয়াখালীর গলাচিপায়। আজ সকাল ১১টার দিকে গলাচিপার উলানিয়া বাজারে এ হামলার শিকার হন তিনি। স্থানীয়রা জানান, গলাচিপার চরবিশ্বাস ইউনিয়নের নিজ বাড়িতে ঈদুল আজহা উদযাপন করেন ভিপি নুর। আজ সকালে দশমিনা উপজেলার এক অনুষ্ঠানে যোগ দিতে যাচ্ছিলেন তিনি। উলানিয়াবাজার থেকে মোটরসাইকেলে করে যাওয়ার পথে কিছু দুষ্কৃতকারী ভিপি নুরের মোটরসাইকেল আটক করে। এ সময় তাকে একটি স্টিলের দোকানে নিয়ে বেধড়ক মারধর করে। খবর পেয়ে পুলিশ ফাঁড়ি থেকে পুলিশ সদস্যরা এসে তাকে উদ্ধার করে। পরে তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়।
আওয়ামী লীগ কর্মী নিহত
১৪ আগস্ট,বুধবার,মাগুরা প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম:মাগুরা সদর উপজেলার সিংহডাঙ্গা গ্রামে প্রতিপক্ষের হামলায় কবির হোসেন মীর (৫৫) নামে স্থানীয় এক আওয়ামী লীগ কর্মী নিহত হয়েছেন। নিহত কবির হোসেন পেশায় একজন কৃষক। আজ বুধবার বিকালে গ্রাম্য দলাদলি নিয়ে এ ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে উভয়পক্ষের ১৬ জন আহত হয়। এরা হলেন- আবেদ আলী মীর (৫৫), মাজেদ মীর (৫০), হাসান (৪০), বিল্লাহ (৫২), বাবলু মীর (৪০), হাদেক আলী মীর (৪২), আরজ আলী (৩২), নায়েব আলী (৪০), আবেদ আলী (৪৫), ওলিয়ার (৩৫) ও জাকির (৪৬)। আহতদের মাগুরা ২৫০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। আহতদের মধ্যে আশঙ্কাজনক অবস্থায় আবেদ আলী মীর ও মাজেদ মীরকে ফরিদপুর মেডিকেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সিরাজুল ইসলাম জানান, গ্রামীণ সামাজিক দলাদলি নিয়ে ওই গ্রামের বিল্লাল হোসেনের সঙ্গে প্রতিপক্ষ খোরশেদ মীর গ্রুপের দীর্ঘদিন দন্দ্ব চলছে। এরই জের ধরে আজ বুধবার বিকালে খোরশেদ মীরের ছোট ভাই কবির হোসেন মীরকে প্রতিপক্ষ বিল্লাল হোসেন ও তার সমর্থকরা কুপিয়ে জখম করে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে মাগুরা সদর হাসপাতালে আনা হলে বিকাল ৫ টার দিকে তার মৃত্যু হয়। ঘটনার সময় কবির হোসেন অন্যদের সঙ্গে একটি জলাশয়ে পাট ধোয়ার কাজ করছিল। পরবর্তী সহিংসতা এড়াতে এলাকায় পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।
শিমুলিয়া রুটে স্পিডবোট ডুবি, শিশু নিখোঁজ
১৩আগস্ট,মঙ্গলবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম:কাঁঠালবাড়ী-শিমুলিয়া নৌরুটের ১৬ যাত্রী নিয়ে একটি স্পিডবোট ডুবে গেছে। এতে দ্বীন ইসলাম (৮) নামের এক শিশু নিখোঁজ রয়েছে। তীব্র স্রোতের কারণে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনার পর নৌরুটটিতে বন্ধ রাখা হয়েছে লঞ্চ ও স্পিডবোট চলাচল। তবে সীমিত আকারে ফেরি চলাচল করছে। এদিকে বিআইডব্লিউটিসির কাঁঠালবাড়ী ঘাট সূত্র জানায়, সকালে শিমুলিয়া ঘাট থেকে ১৬ যাত্রী নিয়ে একটি স্পিডবোট কাঁঠালবাড়ী ঘাটের উদ্দেশে ছেড়ে আসে। স্পিডবোটটি মাঝ পদ্মায় এলে ঢেউয়ের ধাক্কায় উল্টে যায়। এ সময় স্পিডবোটের ১৬ জন যাত্রী পানিতে ডুবে যান। ঘাট থেকে অন্য স্পিডবোট গিয়ে উদ্ধার কার্যক্রম চালায়। বিআইডব্লিউটিসির কাঁঠালবাড়ী ঘাটের ট্রাফিক ইন্সপেক্টর আক্তার হোসেন বলেন, সকাল সাড়ে ৮টার দিকে শিমুলিয়া থেকে আসা স্পিডবোটটি মাঝ পদ্মায় ডুবে যায়। এতে স্পিডবোটে থাকা এক যাত্রী নিঁখোজ রয়েছেন বলে জানতে পেরেছি। বৈরী আবহাওয়ার কারণে সকাল পৌনে ৯টা থেকে লঞ্চ ও স্পিডবোট চলাচল বন্ধ রয়েছে।
বাসের ধাক্কায় সাংবাদিক দম্পতি নিহত
১১আগস্ট,রবিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম:সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জে যাত্রীবাহী বাসের ধাক্কায় ব্যাটারি চালিত অটোভ্যানযাত্রী স্বামী-স্ত্রী নিহত ও এক যাত্রী গুরুতর আহত হয়েছে। আহতকে উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। নিহতরা হলেন রায়গঞ্জ উপজেলার পুর্বলক্ষিকোলা বাজারের বাসিন্দা সাংবাদিক রফিকুল ইসলাম ও তার স্ত্রী মোর্শেদা খাতুন। নিহত সাংবাদিক রফিকুল ইসলাম বগুড়া থেকে প্রকাশিত দৈনিক সাতমাথা পত্রিকায় কাজ করতেন। রবিবার ভোরে রহমতগঞ্জ-চান্দাইকোনা সড়কের কামালের চক এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। রায়গঞ্জের ষোল মাইল ফায়ার সার্ভিসের ইনচার্জ সিরাজুল ইসলাম জানান, ঢাকা থেকে সাকলাইন পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস সিরাজগঞ্জ শহর হয়ে রায়গঞ্জের ভিতর দিয়ে ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কে উঠার সময় কামালের চক নামক স্থানে ব্যাটারি চালিত একটি অটোভ্যানকে ধাক্কা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই মোর্শেদা মারা যায়। এসময় মোর্শেদার স্বামী সাংবাদিক রফিকুল ইসলামসহ দুজন গুরুতর আহত হয়। তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।
যুবককে জবাই করে হত্যার চেষ্টা, গ্রেপ্তার দুই
১১আগস্ট,রবিবার,বরগুনা প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম:বরগুনার বামনা উপজেলার রামনা ইউনিয়নের গোলাঘাটা কড়ইতলা গ্রামের আবদুর রউফের ছেলে মো. হাবিব (২২) গতকাল রাত আটটার দিকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে পার্শ্ববর্তী ধানক্ষেতে জবাই করে হত্যার চেষ্টা করে একদল দুর্বৃত্ত। এ ঘটনায় শনিবার গভীর রাতে অভিযান চালিয়ে দুজনকে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃতরা হলেন, বামনা উপজেলার রামনা ইউনিয়নের গোলাঘাটা কড়ইতলা গ্রামের মোসলেমের স্ত্রী আছিয়া (৫০), বামনা উপজেলার রামনা ইউনিয়নের পূর্ব বলইবুনিয়া গ্রামের মো. খলিলুর রহমানের ছেলে মো. হাবিবুর রহমান (২২)। হাবিবের গলায় ছুরি চালানোর সময় তার চিৎকার শুনে এলাকাবাসী ঘটনাস্থলে গেলে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায়। এলাকাবাসী আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে বামনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে এলে চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শেরে ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মূমুর্ষ অবস্থায় প্রেরণ করেন। এ ব্যাপারে বামনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ভুপেন চন্দ্র মন্ডল জানান, হাবিবের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাকে জবাই করে হত্যা করার চেষ্টা করা হয়েছে। তার গলায় মারাত্মক জখম হয়েছে, অনেকগুলো শিরা কেটে যাওয়ায় অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হয়েছে। তার অবস্থার অবনতি দেখে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শেরে ই বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। হাবিবের মা ফতেমা বেগম জানান, সে শনিবার বিকালে ঢাকা থেকে বাড়িতে কোরবানীর ঈদ করতে আসে। হাবিবের বড় ভাইয়ের সঙ্গে শত্রুতার জের ধরে প্রতিবেশী মোসলেম মল্লিকের ছেলে ধলু ও তার সহযোগীরা তাকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে জবাই করে হত্যার চেষ্টা করে। বামনা থানার ওসি মো. মাসুদুজ্জামান বলেন, এ ঘটনায় রাতে পাচঁজনকে আসামী করে মামলা দায়ের করা হয়েছে। এদের মধ্যে দুজনকে গভীর রাতে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকি আসামীদের গ্রেফতার করতে পুলিশ সদস্যরা মাঠে রয়েছে।
পটুয়াখালীতে ৩০ মামলার পলাতক আসামি বন্দুকযুদ্ধে নিহত
১০আগস্ট,শনিবার,পটুয়াখালী প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: পটুয়াখালীতে পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে চাঁন মিয়া হাওলাদার নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। শনিবার রাত আড়াইটার দিকে সদর উপজেলার পটুয়াখালী-কুয়াকাটা মহাসড়কের করমজাতলা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। সদর থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান জানান, নিহত ব্যক্তি ডাকাত সর্দার। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় খুন, ধর্ষণ, ডাকাতিসহ অন্তত ৩০টি মামলা রয়েছে। পুলিশ জানায়, গতরাতে করমজাতলা এলাকায় অভিযানে গেলে পুলিশের ওপর হামলা চালায় চাঁনমিয়া ও তার দলবল। আত্মরক্ষার্থে তখন পুলিশও পাল্টা গুলি করে। পরে ঘটনাস্থল থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এসময় একটি পাইপগানসহ দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়।
সিরাজগঞ্জের সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২
০৮আগস্ট,বৃহস্পতিবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম:সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় গাড়ির চাপায় মোটরসাইকেলের ২ আরোহী নিহত হয়েছে। এরা হলো, রায়গঞ্জ উপজেলার আবু তাহেরের ছেলে তানভীর (২০) ও সলঙ্গার গোপিনাথপুরের সাখাওয়াত হোসেনের ছেলে আজিম (১৭)। উল্লাপাড়া উপজেলার পাচলিয়া বাজার এলাকায় নলকা-সিরাজগঞ্জ সড়কে বুধবার রাতে এ দুর্ঘটনা ঘটে। হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার ওসি আক্তারুজ্জামান সাংবাদিকদের জানান, বুধবার রাত ১০টার দিকে তানভীর ও আজিম মোটরসাইকেলে নলকা থেকে রায়গঞ্জে যাচ্ছিলো। তারা পাঁচলিয়া বাজার এলাকায় পৌঁছলে অজ্ঞাত একটি গাড়ি তাদের মোটরসাইকেলটিকে চাপা দিয়ে দ্রুত পালিয়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই তারা মারা যায়। তিনি আরও জানান, পুলিশ গাড়িটি সনাক্তের চেষ্টা করছে। নিহতদের লাশ তাদের স্বজনরা নিয়ে গেছেন।
খুলনার সেই ওসি-এসআই প্রত্যাহার
০৭আগস্ট,বুধবার,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: থানা হাজতে এক নারীকে গণধর্ষণ ও পরে ফেনসিডিল মামলায় আদালতে চালানের অভিযোগ ওঠার পরিপ্রেক্ষিতে খুলনা জিআরপি (রেলওয়ে) থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওসমান গণি পাঠান ও উপপরিদর্শক (এসআই) নাজমুল হককে প্রত্যাহার করা হয়েছে। আজ বুধবার সকালে তাদের প্রত্যাহার করা হয়। গণধর্ষণের ঘটনা তদন্তে গঠিত কমিটির প্রধান কুষ্টিয়া সার্কেলের এএসপি ফিরোজ আহমেদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন,আমরা এখনো আদালতের কোনো কিছু পাইনি। এমনকি ভিকটিমের পরিবারের সদস্যদের সঙ্গেও কথা বলা হয়নি। এর আগে গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে রেলওয়ে পুলিশের কুষ্টিয়া সার্কেলের সিনিয়র এএসপি ফিরোজ আহমেদের নেতৃত্বে তিন সদস্যের কমিটি তদন্ত শুরু করে। কমিটির অন্য দুই সদস্য হলেন- কুষ্টিয়া রেলওয়ে সার্কেলের ডিআইও-১ পুলিশ পরিদর্শক (নিরস্ত্র) শ ম কামাল হোসেইন ও দর্শনা রেলওয়ে ইমিগ্রেশন ক্যাম্পের পুলিশ পরিদর্শক (নিরস্ত্র) মো. বাহারুল ইসলাম। উল্লেখ্য, গত ২ আগস্ট ঘটনার রাতে খুলনা জিআরপি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওসমান গণি পাঠানসহ পাঁচ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে ধর্ষণ ও মারধরের অভিযোগ করেছেন এক নারী। তার অভিযোগ, সেদিন যশোর থেকে ট্রেনে আসার সময় ফুলতলা এলাকায় জিআরপি পুলিশ প্রথমে তাকে মোবাইল চুরির অপরাধে থানায় ধরে নিয়ে যায়। পরে গভীর রাতে জিআরপি পুলিশের ওসি ওসমান গণি পাঠান তাকে ধর্ষণ করেন। এর পর আরও ৪ জন পুলিশ সদস্য পালাক্রমে ধর্ষণ করেন। পরদিন ৩ আগস্ট ৫ বোতল ফেনসিডিলসহ মামলা দিয়ে তাকে আদালতে সোপর্দ করেন। তবে বিচারকের সামনে নেওয়ার পর সেই নারী জিআরপি থানায় তাকে গণধর্ষণের বিষয়টি আদালতের সামনে তুলে ধরেন। এর পর আদালতের বিচারক জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট তার মেডিকেল পরীক্ষার নির্দেশ দেন।

সারা দেশ পাতার আরো খবর