ওয়াসার বোর্ড সদস্য হলেন সাংবাদিক মহসীন কাজী
অনলাইন ডেস্ক :চট্টগ্রাম ওয়াসার বোর্ড সদস্য হয়েছেন বাংলাদেশের সাংবাদিকদের সর্বোচ্চ এবং সর্ববৃহৎ সংগঠন বাংলাদেশ ফেডারেশন সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) যুগ্ম মহাসচিব মহসীন কাজী। বিএফইউজের মনোনয়নে চট্টগ্রাম ওয়াসার বোর্ড সদস্য মনোনীত হয়েছেন তিনি। ৭ নভেম্বর, বুধবার স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-সচিব মোহাম্মদ সাঈদ-উর-রহমান স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে এ বিষয়ে জানানো হয়। প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, পানি সরবরাহ ও পয়ঃনিষ্কাশন কর্তৃপক্ষ আইন ১৯৯৬ এর ৬ (১) (ঝ) ও ৬ (৩) ধারার প্রদত্ত ক্ষমতাবলে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে), চট্টগ্রাম বিভাগের নব-নির্বাচিত যুগ্ম মহাসচিব মহসীন কাজীকে চট্টগ্রাম ওয়াসা বোর্ডের সদস্য হিসেবে নিয়োগ প্রদান করা হলো। জনস্বার্থে জারি করা এ আদেশ অবিলম্বে কার্যকর হবে বলেও প্রজ্ঞাপনে জানানো হয়। আরও পড়ুন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে নিঃশর্ত দিনঃ জাফরুল ইসলাম জাপান-বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স এর সেমিনার অনুষ্ঠিত একনেকে চসিকের খাল খনন ও কসাইখানা প্রকল্প অনুমোদন ছাত্রজীবনে লেখাপড়ার পাশাপাশি সাংবাদিকতায় হাতেখড়ি মহসীন কাজীর। পেশাজীবন শুরু আজকের সূর্যোদয়ে। দুই যুগেরও বেশি সময় ধরে সাংবাদিকতা জীবনে অনেক বাধা বিপত্তি ডিঙ্গিয়ে এগিয়ে যেতে হয়েছে। তবে আদর্শ বিচ্যুত হননি কখনো। পেশা জীবনে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব ব্যবস্থাপনা কমিটির যুগ্ম সম্পাদক এবং প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক পদে দায়িত্ব পালন করেছেন সফলতার সাথে। তাঁর দায়িত্ব পালনকালেই চট্টগ্রাম প্রেসক্লাব প্রাঙ্গনে স্থাপন করা হয় জাতির জনকের ম্যুরাল। যা দেশে কোনো প্রেসক্লাবের মধ্যে সর্বপ্রথম। চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি উপজেলার হারুয়ালছড়ি গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সমাজসেবক মরহুম কাজী আবদুস সাত্তার এবং আলম আরা বেগম চৌধুরীর পুত্র মহসীন কাজী। বর্তমানে তিনি চট্টগ্রাম সাংবাদিক হাউজিং কো-অপারেটিভ সোসাইটির নির্বাচিত পরিচালক। সারাদেশে সাংবাদিকদের সর্ববৃহৎ একক সংগঠন বিএফইউজের নির্বাচনে যুগ্ম মহাসচিব পদে নির্বাচিত হয়েছেন বলিষ্ঠ কন্ঠস্বর মহসীন কাজী। পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে লব্দ অভিজ্ঞতা নিয়ে রচনা করেছেন প্রবন্ধ সংকলন সময়ের কাটাছেঁড়া। গ্রন্থে তিনি সাংবাদিকতা জীবনে দেখা নানা ঘটনার বিশ্লেষণ করেছেন নির্মোহ দৃষ্টিতে।
প্রধান শিক্ষক নেই ফটিকছড়ির ৮১টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে
সজল চক্রবর্ত্তী, ফটিকছড়ি :চট্টগ্রামে বৃহত্তম ফটিকছড়িতে প্রধান শিক্ষক ছাড়াই চলছে ৮১ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়। এতে বিদ্যালয়ের পাঠদান ব্যাহতের পাশাপাশি প্রশাসনিক কর্মকান্ডেও নানা সমস্যা হচ্ছে। অতিরিক্ত ক্লাস নিতে গিয়ে হিমশিম খেতে হচ্ছে বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের। মানসম্মত শিক্ষাব্যবস্থা নিশ্চিত করতে শূন্যপদগুলো দ্রুত পূরণ করার দাবি জানিয়েছেন শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা। উপজেলা শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার ১৭ ইউনিয়ন, ২টি পৌরসভায় ২২৯ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৮১ টি বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক নেই। কোন বিদ্যালয়ে ৪-৫ বছর, কোন কোন বিদ্যালয়ে ৫-৭ বছর ধরে প্রধান শিক্ষক না থাকার কারণে উক্ত বিদ্যালয় গুলোতে শিক্ষা কার্যক্রম চরমভাবে ব্যাহত হচ্ছে। ৮১ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক না থাকলেও তন্মধ্যে ১৮ বিদ্যালয়ে মামলা জটিলার কারণে শূণ্য পদে প্রধান শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া যাচ্ছেনা বলে জানাগেছে। দীর্ঘদিন ধরে উক্ত স্কুলগুলোতে প্রধান শিক্ষক না থাকায় সহকারী শিক্ষকরা পাঠদান দিয়ে থাকলেও দপ্তরিক কাজ পরিচালনা করতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। উত্তর ফটিকছড়ির একাধিক শিক্ষকের সাথে কথা জানা গেছে, প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর শিক্ষা কার্যক্রমের দশা একেবারেই বেহাল। উত্তর ফটিকছড়ির স্কুলগুলোতে মাত্র দুই থেকে তিন জন শিক্ষক দিয়ে কোন রকম চলছে পাঠদান কার্যক্রম। দূর্গম হওয়ায় ওই ইউনিয়নগুলোতে অবস্থিত স্কুলে যোগদান করতে চায় না কোন শিক্ষক। আবার যোগদান করলেও কিছুদিন পরে শিক্ষা অফিসে তদবির করে বদলী হয়ে যায়। কেউ কেউ আবার খুঁজেন ডেপুটেশনে অন্যত্র যাওয়ার পথ। শিক্ষক সংকটে খন্ডকালিন শিক্ষক দিয়ে ক্লাস চালানো হয় বলে জানা যায়। উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আজিমেল কদর বলেন, উপজেলার ৮১ টি বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষকের শূণ্য পদের তালিকা করে উধ্বর্তন কর্মকর্তাকে পাঠানো হয়েছে। ২০১৩ সালের ২৬ হাজার স্কুল জাতীয়করণ করা হয় তখন প্রধান শিক্ষককের দায়িত্ব থাকার কিছু প্রধান শিক্ষককের যোগ্যতা থাকায় তাঁরা প্রধান শিক্ষকের স্কেল পেয়েছে। কিছু প্রধান শিক্ষকের যোগ্যতা ছিলনা, প্রধান শিক্ষককের দায়িত্ব পালন করে তাদের মধ্যে থেকে ১৮ জন রিট মামলা করে। মামলা জটিলতার আইনগত ভাবে ১৮ টি বিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হচ্ছেনা, অবশিষ্ট বিদ্যালয় গুলোতে দ্রুত শিক্ষক নিয়োগ বা প্রমোশন হতে পারে হবে বলে জানায়।
নয়া মেরুকরণে জটিল সমিকরণ ফটিকছড়িতে
সজল চক্রবর্ত্তী, ফটিকছড়ি:চট্টগ্রাম-২ (ফটিকছড়ি) আসনে সরকারীদলের মনোনয়ন প্রত্যাশিদের নতুন মেরুকরণে সৃষ্টি হচ্ছে জটিল সমিকরণ। এ আসনে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন প্রত্যাশির সংখ্যা অন্তত অর্ধডজন হলেও জোটের প্রার্থী ছিলেন একজন। তবে, নির্বাচন সন্নিকটে আসার সাথে সাথে জোটের প্রার্থীর সংখ্যাও ক্রমশ: বাড়ছে। এতে করে আওয়ামীলীগের নৌকার টিকেট প্রত্যাশিদের দুঃচিন্তায় কেবল বাড়ছে না, জোট প্রার্থীদের মনোনয়ন পাওয়া দুষ্কর হয়ে দাড়াঁচ্ছে। ফটিকছড়ির বর্তমান সংসদ সদস্য সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভান্ডারী ১৪ দলীয় জোটের শরিক দল তরিকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান। একাদশ সংসদ নির্বাচনে তিনি পুনরায় নৌকার মাঝি হতে আগ্রহী। তবে এবার আওয়ামী লীগ জোটের মনোনয়ন চায়তে পারেন মাইজভান্ডার দরবারের মঈনিয়া মঞ্জিলের শাহজাদা হযরত সাইফুদ্দীন আহমদ মাইজভান্ডারী। তিনি গত ৬ নভেম্বর গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে অনুষ্ঠিত ত্বরিকাপন্থি ইসলামী দলগুলোর সংলাপে অংশ নিয়ে চট্টগ্রাম-২ (ফটিকছড়ি) আসন থেকে নির্বাচন করার আগ্রহ দেখিয়েছেন বলে সূত্র প্রকাশ। এছাড়াও, সম্প্রতি বাংলাদেশের বিকল্পধারায় যোগ দিয়ে নতুন করে আলোচনায় এসেছেন ফটিকছড়ির সাবেক এমপি ও চাকসুর সাবেক ভিপি মজহারুল হক শাহ্ চৌধুরী। তিনি জাসদ, জাসদ (সিরাজ), বিএনপি, জাতীয় পার্টি (এরশাদ) ও জাতীয় পার্টি (জাফর) দল পরিবর্তন শেষে সর্বশেষ বি চৌধুরীর বিকল্পধারায় যোগ দিয়ে ফটিকছড়ি থেকে নির্বাচন করতে প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে শোনা যাচ্ছে। সূত্রমতে, সরকারের সাথে বিকল্পধারার সমঝোতা হলে মহাজোটে যোগ দিবে সাবেক রাষ্ট্রপতি বি চৌধুরীর দলটি। মহাজোটে বিকল্পধারা যোগ দিলে মজহারুল হক শাহ চৌধুরীও নৌকা নিয়ে নির্বাচন করতে চায়বেন। অন্যদিকে, এ আসন থেকে নির্বাচন করতে চান ইসলামী ফ্রন্টের মহাসচিব আল্লামা এম এ মতিন। জাতীয় পার্টি (এরশাদ) নেতৃত্বাধীন সম্মিলিত জাতীয় জোটের অন্যতম শীর্ষনেতা মতিন। বিএনপি নির্বাচনে অংশ নিলে জাতীয় পার্টি (এরশাদ) সরকারের সাথে মহাজোটে থাকবে। সেক্ষেত্রে, সম্মিলিত জাতীয় জোট নেতা ও ইসলামী ফ্রন্টের মহাসচিব এম এ মতিন ফটিকছড়ি থেকে নিজের দলীয় প্রতীক মোমবাতির বিকল্প হিসেবে নাঙ্গল বা নৌকা নিয়ে ভোটে লড়তে চায়বেন। সবমিলিয়ে নয়া মেরুকরণে জটিল সমিকরণ সৃষ্টি হচ্ছে এ আসনে। জোটজট ও দলীয় প্রার্থীর ছড়াছড়িতে সমঝোতার প্রার্থী হিসেবে স্থানীয় আওয়ামীলীগ পরিবারের এক সন্তানের নাম প্রধানমন্ত্রীর টেবিলে রয়েছে বলে সূত্রে প্রকাশ।
জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের আলোচনা সভায় বক্তারা, ৭ নভেম্বর ছিল আধিপত্যবাদ ও প্রভাব বিরোধী সিপা
৭ নভেম্বর ঐতিহাসিক জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষে অদ্য ৭ নভেম্বর ২০১৮ইং তারিখ বেলা ৩ ঘটিকার সময় জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম চট্টগ্রামের উদ্যোগে চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির অডিটরিয়ামে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরাম চট্টগ্রামের সভাপতি এড. মো: দেলোয়ার হোসেন চৌধুরী’র সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক এড. মো: জহুরুল আলমের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের সাবেক সদস্য ও চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এড. মো: কবির চৌধুরী। প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাবেক সভাপতি অধ্যাপক ড. আবুল কালাম আজাদ। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক এড. নাজিম উদ্দিন চৌধুরী। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আইনজীবী ফোরামের সিনিয়র সহ-সভাপতি এড. এস.ইউ. এম নুরুল ইসলাম, সিনিয়র আইনজীবী এড. এ.এস.এম. বদরুল আনোয়ার, মহানগর বিএনপি’র সহ-সভাপতি এড. মফিজুল হক ভূঁইয়া, এড. আবদুস সাত্তার সরওয়ার, এড. রফিক আহমেদ, এড. আজমল হক, এড. হাদী মোহাম্মদ খোরশেদ, এড. সেকান্দর বাদশা, এড. আহমেদুর রহমান খান, এড. হায়দার মো: সোলায়মান, কর আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক এড. ওমর ফারুক, এড. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, এড. শামসুল আলম, এড. আবদুল খালেক শাহজাহান, আইনজীবী ফোরামের সহ-সভাপতি এড. আজিজুল হক চৌধুরী, এড. রওশান আরা বেগম, এড. আকবর আলী, এড. কাজী মো: সিরাজ, এড. সেলিমা খানম, এড. মো: কাশেম চৌধুরী, এড. এইচ.এস. আবুল হাসান, এড. আবুল হাসান শাহাবুদ্দিন, এড. আশফাক আহমেদ, এড. শাহদাত হোসেন, এড. আফাজুর রহমান, এড. আবু তাহের, এড. মাঈনুদ্দিন, এড. নাসিম আক্তার চৌধুরী, এড. মাহফুজুর রহমান মিল্লাত, এড. হাসান মাহমুদ চৌধুরী, এড. আবদুস সবুর, এড. এরশাদুর রহমান রিটু, এড. মুরশিদ আলম, এড. শওকত আউয়াল, এড. তাজুল ইসলাম, এড. শফিউল হক চৌধুরী সেলিম, এড. সেলিম উদ্দিন শাহীন, এড. নেজাম উদ্দিন, এড. নিলুফার ইয়াসমিন লাভলী, এড. হাসনাহেনা, এড. নুরুল করিম এরফান, এড. আবছার উদ্দিন হেলাল, এড. ইসকান্দর সোহেল, এড. আশরাফী বিনতে মোতালেব, এড. মশকুরা বেগম মেরী, এড. মোকাররম হোসেন, এড. সানজিদ আকবর, এড. জেড এম মিনার, এড. দেলোয়ার হোসেন, এড. রেজাউল করিম রনি, এড. অলি আহমদ, এড. নাসির উদ্দিন, এড. হাবিবুল্লাহ রুমী, এড. তৌহিদুল ইসলাম, এড. তৌহিদ হোসাইন সিকদার, এড. রবিউল হোসেন, এড. লোকমান, এড. সোহ্রাওয়ার্দ্দী প্রমুখ আইনজীবী নেতৃবৃন্দ। প্রধান অতিথি এড. কবির চৌধুরী বলেন, ৭ নভেম্বর ছিল সিপাহী জনতার স্বতঃস্ফূর্ত বিপ্লব। জাতীয় চেতনা বোধে উদ্বুদ্ধ হয়ে সেদিন রাজপথে এক হয়েছিল সিপাহী জনতা। রচিত হয়েছিল ঐক্য ও সংহতির অপূর্ব উদাহরণ। প্রধান আলোচক ড. আবুল কালাম আজাদ বলেন, ঐতিহাসিক ৭ নভেম্বর ছিল আধিপত্যবাদ ও প্রভাব বিরোধী গণতন্ত্রপ্রিয় জাতীয়তাবাদে অনুপ্রাণিত সিপাহী জনতার ঐক্যবদ্ধ বিপ্লব। এর মাধ্যমে বাংলাদেশ একনায়কত্ব, নিয়ন্ত্রণবাদী ও কর্তৃত্ববাদী শাসনের বিরুদ্ধে জনগণের শাসনের দ্বার উন্মোচিত হয়েছে। ৩ নভেম্বর সেনাবাহিনীর উপ-প্রধান খালেদ মোশাররফের নেতৃত্বে প্রতিক্রিয়াশীল চক্রের অভূত্থানে তৎকালীন সেনা প্রধান মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমানকে বন্দী করা হয়। সেই চক্রের বিরুদ্ধে দেশপ্রেমী সেনা নৌ-বিমান বাহিনীর যওয়ানরা অভূতপূর্ব ঐক্য গঠন করে ষড়যন্ত্রের জাল ছিন্ন করে বন্দীদশা থেকে সেনা প্রধান জেনারেল জিয়াউর রহমানকে মুক্ত করেছিলেন। সাধারণ সৈনিকদের সাথে ঢাকার রাজপথের সর্বস্তরের জনতা ঐক্যবদ্ধ হয়ে নতুন বাংলাদেশের অভ্যূদয় ঘটিয়েছিল। ৭ নভেম্বর সিপাহী জনতার বিপ্লবকে সাম্প্রতিক অতীতে ভিন্ন ব্যাখ্যার মাধ্যমে বিতর্কিত করার চেষ্টা করা হলেও এদেশের গণতন্ত্রপ্রিয় মানুষের কাছে ৭ নভেম্বর সিপাহী জনতার বিপ্লবের দিনটির মর্যাদা ও মহিমা আজও উজ্জ্বল, অম্লান। বক্তারা ৭ নভেম্বরের এই দিনে গণতান্ত্রিক সংগ্রামের আপোষহীন কারাবন্দী দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবী করেন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি
নারীর উন্নয়ন ছাড়া দেশের সামগ্রিক উন্নয়ন সম্ভব নয় :খোরশেদ আলম সুজন
নারীর উন্নয়ন ছাড়া দেশের সামগ্রিক উন্নয়ন সম্ভব নয় বলে মত প্রকাশ করেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম সুজন। তিনি আজ ৭ নভেম্বর বুধবার বিকাল ৫ ঘটিকায় ইপিজেড অঞ্চলে ৫০০ শয্যা বিশিষ্ট একটি আধুনিক মাতৃসদন হাসপাতাল, স্থায়ী ডে-কেয়ার সেন্টার স্থাপন ও পতেঙ্গা থেকে বহদ্দারহাট পর্যন্ত নারীদের জন্য স্বতন্ত্র গণপরিবহন চালুর দাবীতে আগামী ৯ নভেম্বর রোজ শুক্রবার বিকাল ৩ ঘটিকায় বন্দর, ইপিজেড ও পতেঙ্গা থানা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে সিইপিজেড চত্বরের বিশাল নারী সমাবেশকে সফল করার লক্ষ্যে ৩৮নং ওয়ার্ড কলসী দিঘীর পাড়স্থ কাউন্সিলর গোলাম মোহাম্মদ চৌধুরীর বাসভবনে অনুষ্টিত ৩৮, ৩৯, ৪০ ও ৪১নং ওয়ার্ড মহিলা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দের এক প্রতিনিধি সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত বক্তব্য রাখছিলেন। ৩৮নং ওয়ার্ড মহিলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ফারজানা শিরীন মুন্নীর সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক সুইটি দে ঝুমু’র সঞ্চালনায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মহানগর আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সদস্য কাউন্সিলর গোলাম মোহাম্মদ চৌধুরী, ইপিজেড থানা আওয়ামী লীগের আহবায়ক হাজী হারুনুর রশীদ, যুগ্ম-আহবায়ক মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আবু তাহের, পতেঙ্গা থানা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-আহবায়ক এ.এম.এন ইসলাম, ৩৯নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাজী শফিউল আলম, ৪০নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীন চৌধুরী আজাদ, ৪১নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নূরুল আলম, ডা. ফজলুল হাজেরা বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ এর সহযোগী অধ্যাপক মিসেস তাহমিনা বেগম, চট্টগ্রাম মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের মা ও শিশু বিষয়ক সম্পাদক শারমিন সুলতানা ফারুক, ইপিজেড থানা মহিলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি রুখসানা বেগম, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক নিলুফা ইয়াসমিন, সাংগঠনিক সম্পাদক কাবুন নেছা, মনজুর কাদের, কামাল উদ্দিন মেম্বার, মোরশেদ আলম, অধ্যক্ষ কামরুল হোসেন, সালাউদ্দিন বাদশা, ৩৯নং ওয়ার্ড মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নাছিমা আকতার, সাধারণ সম্পাদক রুমানা আকতার রুমা, ৪০নং ওয়ার্ড মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আফরোজা খানম, সাধারণ সম্পাদক নাছিমা আকতার, ৪১নং ওয়ার্ড মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফারজানা আকতার, সাধারণ সম্পাদক স্বপ্না বেগম, সরওয়ার জাহান চৌধুরী, কামরুল হুদা চৌধুরী, মোজাম্মেল হোসেন চৌধুরী, মোজাম্মেল মেম্বার, সফি আলম বাদশা, টিপু মেম্বার, আসমানী ঝুমুর, জান্নাতুর নূর, জিন্নাত আরা, তাহমিনা বেগম, আফসানা বেগম, তানিয়া বেগম প্রমূখ। সভায় জনাব সুজন আরো বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার পর নারী সমাজের উন্নয়নে পদক্ষেপ নেন। তিনি আমাদের উপহার দেন বাহাত্তরের অনন্য সংবিধান। জাতির পিতা জাতীয় সংসদে সর্বপ্রথম নারীদের জন্য ১৫টি আসন সংরক্ষিত করেন। এটাই বাংলাদেশের ইতিহাসে নারীর ক্ষমতায়নের লক্ষ্যে প্রথম বলিষ্ঠ পদক্ষেপ। যার ফলে স্বাধীনতা উত্তর বাংলাদেশের প্রথম সংসদেই নারীরা প্রতিনিধিত্ব করার সুযোগ পায়। এরই ধারাবাহিকতায় আওয়ামী লীগ যখনই সরকার গঠন করেছে তখনই দেশের নারীসমাজের উন্নয়নে কাজ করেছে। বর্তমান সরকার নারীর অর্থনৈতিক, সামাজিক ও রাজনৈতিক ক্ষমতায়নে কাজ করে যাচ্ছে। নারীর সামর্থ্য উন্নীতকরণ, নারীর অর্থনৈতিক প্রাপ্তি বৃদ্ধিকরণ, নারীর মতপ্রকাশ ও মতপ্রকাশের মাধ্যম সম্প্রসারণ এবং নারীর উন্নয়নে একটি সক্রিয় পরিবেশ সৃষ্টি করার জন্য কাজ করে যাচ্ছে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকার। নারীর ক্ষমতায়নে বাংলাদেশ সরকার এবং সরকার প্রধান হিসেবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বিভিন্ন আর্ন্তজাতিক পুরস্কারপ্রাাপ্তির কথা উল্লেখ করে জনাব সুজন বলেন, নারী সমাজের অর্জিত সাফল্যে নারীরা আজ সমাজ আলোকিত করেছে। তাদের প্রচেষ্টায় বাংলাদেশ আজ বিশ্বের বুকে একটি উন্নত সমৃদ্ধশালী দেশ হিসেবে প্রতিষ্টিত হতে চলছে। এ অবদান সমগ্র নারী সমাজের। সভায় আগামী ৯ তারিখের বিশাল নারী সমাবেশকে সফল করার লক্ষ্যে পাড়ায় মহল্লায় গিয়ে সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ডের চিত্র নারী সমাজের নিকট তুলে ধরার জন্য জনাব সুজন উপস্থিত নারী নেতৃবৃন্দের নিকট আহবান জানান। প্রেস বিজ্ঞপ্তি
বাঁশখালী পূর্ব শেখেরখীল নাথ পাড়ায সরকারের উন্নয়ন শীর্ষক আলোচনা সভায় শাহিদা আকতার জাহান, বাঁশখা
বাঁশখালীর পুর্ব শেখেরখীল নাথ পাড়া মা সৎ সংঘের আয়োজিত বর্তমান সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ড নিয়ে এক উঠান বৈঠক বাশখালী উপজেলা শ্রমিকলীগ সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ মোহাম্মদ শাওন মেম্বারের সভাপতিত্বে গত শনিবার অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন দক্ষিণ জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ সভাপতি ও জেলা পরিষদ সদস্য আলহাজ্ব শাহিদা আকতার জাহান। শাহিদা আকতার জাহান বলেন, বাঁশখালীতে নৌকা প্রতীকের প্রার্র্থীকে আগামী নির্বাচনে আবার বিজয় করাতে হবে। আওয়ামী লীগ মানে সকল ধর্মেও মানুষের কাছে নিরাপদ সরকার। বক্তব্য রাখেন ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আবুল হোছাইন (ভুট্টো), বাশখালী উপজেলা কৃষকলীগের যুগ্ন সম্পাদক আরিফুর রহমান সুজন, বাশখালী উপজেলা শিক্ষক সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক মুহাম্মদ ইদ্রিছ, বাশখালী উপজেলা যুবলীগ নেতা জাকের, দক্ষিন জেলা কৃষকলীগ নেতা ছরওয়ার, দক্ষিন জেলা যুবলীগ নেতা হুমায়ন, উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা ওবাইদুলসহ আরো অনেকে বক্তব্য রাখেন। প্রধান অতিথির বক্তব্যে শাহিদা আকতার জাহান আরো বলেন বর্তমান সরকার হচ্ছে একটি অসাম্প্রদায়িক সরকার, জাতির জনকের সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা সকল ধর্মের মানুষের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা বিধান করে জোট সরকারের আমলের তলা বিহীন ঝুড়ি নামক এই বাংলাদেশ কে আজকে মধ্যম আয়ের দেশে রুপান্তরিত করেছেন ।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
অস্ত্রসহ ছিনতাইকারী গ্রেফতার
অনলাইন ডেস্ক :চট্টগ্রাম নগরে ছিনতাইয়ের সময় ফজর আলী (১৯) নামে এক যুবককে হাতেনাতে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার দিবাগত রাতে সিগন্যাল কলোনি জামে মসজিদ এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃত ফজর আলী বন্দরনগরীর আকবর শাহ নিউ শহীদ লেইনের আইয়ূব আলীর ছেলে। পাহাড়তলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সদীপ কুমার দাশ জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সিগন্যাল কলোনি জামে মসজিদের সামনে অভিযান চালিয়ে ফজর আলীকে গ্রেফতার করা হয়। তার কাছ থেকে কার্তুজভর্তি একটি এলজি উদ্ধার করা হয়েছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সে জানিয়েছে, ছিনতাইয়ের উদ্দেশ্যে অস্ত্রসহ সে সিগন্যাল কলোনি জামে মসজিদের সামনে অবস্থান নিয়েছিল।
চমেবি-র সিন্ডিকেট সদস্য হলেন রিয়াজ হায়দার
অনলাইন ডেস্ক: চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (চমেবি) সিন্ডিকেট সদস্য মনোনীত হয়েছেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) সহ-সভাপতি রিয়াজ হায়দার চৌধুরী। চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের (সিইউজে) সাবেক সভাপতি এবং দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিনের চট্টগ্রাম ব্যুরো প্রধান রিয়াজ হায়দার চৌধুরী এর আগে কাজ করেছেন দৈনিক পূর্বকোণ, দৈনিক রূপালী, দৈনিক বাংলাদেশের স্বাধীনতা, সাপ্তাহিক আজকের সূর্যোদয়সহ বিভিন্ন কাগজে। এছাড়া একুশে টেলিভিশন, যমুনা টিভি, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র কেন্দ্রিক বাংলা এসটিভি ইউএস ও নিউজ টুয়েন্টি ফোরেও কাজ করেন চট্টগ্রাম প্রধান হিসেবে। রিয়াজ হায়দার চৌধুরী পেশাজীবী সমন্বয় পরিষদ চট্টগ্রামের সাধারণ সম্পাদক এবং চট্টগ্রাম নাগরিক উদ্যেগের আহবায়ক। বিএফইউজের মনোনয়নে তিনি চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেট সদস্য মনোনীত হওয়ায় তাকে অভিনন্দন জানিয়েছেন চট্টগ্রাম মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ডা. মো. ইসমাইল খান, পেশাজীবী সমন্বয় পরিষদ চট্টগ্রামের সভাপতি প্রফেসর ডা. একিউএম সিরাজুল ইসলামসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতারা।
কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলায় মাদক কারবারি-র মরদেহ উদ্ধার
অনলাইন ডেস্ক: কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলায় এক মাদক কারবারির মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তার নাম আলী হোসেন প্রকাশ সোনা আলী। বুধবার ভোরে উপজেলার বাহারছড়া ইউনিয়ন পাহাড় এলাকা থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। নিহত আলী হোসেন টেকনাফের হোয়াইক্যং ইউনিয়নের পশ্চিম সাতঘড়িয়া পাড়া এলাকার মোবারক আলীর ছেলে। টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ জানান, বুধবার ভোরে বাহারছড়া পাহাড় এলাকায় মরদেহটি পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয় লোকজন পুলিশকে খবর দিলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী মরদেহটি উদ্ধার করে। পরে স্থানীয় লোকজন নিহত ব্যক্তি পরিচয় নিশ্চিত করে। ওসি আরও জানান, আলী হোসেন একজন চিহ্নিত মাদক কারবারি। তার বিরুদ্ধে কয়েকটি মাদক মামলা রয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহটি কক্সবাজার সদর হাসপাতালে মর্গে পাঠায় পুলিশ।

সারা দেশ পাতার আরো খবর