রবিবার, নভেম্বর ১৮, ২০১৮
শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনায় দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ আজ
অনলাইন ডেস্ক: কুর্মিটোলায় বাস চাপায় দুই শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনায় সৃষ্ট পরিস্থিতিতে শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার স্বার্থে দেশের সব স্কুল, কলেজ, মাদরাসা ও বিশ্ববিদ্যালয় আজ বৃহস্পতিবার বন্ধ থাকবে। নিরাপদ সড়কের দাবিতে টানা তিন দিন ধরে বিক্ষোভের প্রেক্ষাপটে শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার কারণ দেখিয়ে বুধবার রাতে এই সিদ্ধান্তের কথা জানায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। বুধবার সন্ধ্যায় শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এ কথা জানিয়ে শোকার্ত শিক্ষার্থীদের ধৈর্য ধরার আহ্বান জানান। মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব সোহরাব হোসাইন এই তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে বৃহস্পতিবার দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এর আগে বুধবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত এক সভায় শিক্ষামন্ত্রী দুই শিক্ষার্থীর নিহত ও কয়েকজন শিক্ষার্থীর আহত হওয়ার ঘটনায় গভীর শোক ও সমবেদনা প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, ওই দুর্ঘটনার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত ও সড়ক পরিবহন নিরাপদ করার লক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী ইতিমধ্যে নির্দেশ দিয়েছেন। সে অনুযায়ী স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় যথাযথ উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। গত রবিবার রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে বাসচাপায় শহীদ রমিজ উদ্দিন স্কুল ও কলেজের দুই শিক্ষার্থীর নিহতের ঘটনায় গত তিন ধরে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করছে শিক্ষার্থীরা। দুর্ঘটনার জন্য দায়ী চালকদের ফাঁসি, ফিটনেসবিহীন গাড়ি চলাচল এবং লাইসেন্স ছাড়া চালকদের গাড়ি চালনা বন্ধ করাসহ বিভিন্ন দাবিতে বুধবারও সারা দিন রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় বিক্ষোভ করে শিক্ষার্থীরা। বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে দেশের বেশ কয়েকটি জেলাতেও। ঢাকায় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা গাড়ি থামিয়ে থামিয়ে চালকদের লাইসেন্স পরীক্ষা করে। বাংলামোটর এলাকায় উল্টোপথে যাওয়ার সময় বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের গাড়ি আটকায় শিক্ষার্থীরা। এমন পরিস্থিতিতে সচিবালয়ে পরিবহন মালিক ও শ্রমিক প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। পরে তিনি সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে সব ধরনের পদক্ষেপ নেওয়ার আশ্বাস দিয়ে শিক্ষার্থীদের ক্লাসে ফিরে যাওয়ার আহ্বান জানান। কিন্তু মন্ত্রীর আহ্বানে সাড়া না দিয়ে বৃহস্পতিবার সকালে আবার রাস্তায় নামার ঘোষণা দেয় শিক্ষার্থীরা। এমন পরিস্থিতিতে শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার স্বার্থে বৃহস্পতিবার দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বৃহস্পতিবার বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়।
১ কেজি স্বর্ণসহ চট্টগ্রাম শাহ আমান বিমানবন্দর থেকে আটক ১
অনলাইন ডেস্ক: চট্টগ্রামের শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে শারজাহ থেকে আসা এক যাত্রীর মলদ্বারে লুকানো ৮টি স্বর্ণের বার জব্দ করেছে বিমানবন্দর কাস্টম। বুধবার (১ আগস্ট) কাস্টম হাউসের কর্মকর্তারা জানান, শারজাহ থেকে এয়ার এরাবিয়ার সকাল সাড়ে নয়টার ফ্রাইটে ফটিকছড়ির সুমন দাশ আসেন। তার গতিবিধি সন্দেহজনক হলে কাস্টম হাউসের কর্মকর্তারা চ্যালেঞ্জ করেন। একপর্যায়ে মলদ্বারে স্বর্ণ থাকার বিষয়টি স্বীকার করেন। এরপর সুমন দাশকে আটক করে স্বর্ণের আটটি বার বের করা হয়। যার ওজন ৯৩৬ গ্রাম। এ ঘটনায় পতেঙ্গা থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানান কাস্টম কর্মকর্তারা। কাস্টম হাউসের সহকারী কমিশনার উত্তম বিশ্বাস জানান, আটক স্বর্ণের দাম ৪৫ লাখ টাকা।
বাসায় ইয়াবা পাওয়ায় এসআই সাইফুদ্দিন বরখাস্ত
অনলাইন ডেস্ক: র‌াবের অভিযানে তালাবদ্ধ বাসা থেকে ইয়াবা উদ্ধারের ঘটনায় চট্টগ্রাম মহানগরের বাকলিয়া থানার সেই উপ-পরিদর্শক (এসআই) খন্দকার সাইফুদ্দিনকে পুলিশ বাহিনী থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে। একই সঙ্গে তার বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে সিএমপি বাকলিয়া থানায়। তবে র‌্যাবের অভিযানে ইয়াবা উদ্ধারের খবর জানার পরপরই সোমবার রাত থেকে আত্মগোপনে চলে গেছেন পুলিশের এই কর্মকর্তা। চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন পুলিশ-সিএমপির উপ-পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) এসএম মোস্তাইন হোসাইন এই খবর নিশ্চিত করেছেন। এসএম মোস্তাইন হোসাইন বলেন, ইয়াবা উদ্ধারের ঘটনায় সিএমপি বাকলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক খন্দকার সাইফুদ্দিনকে পুলিশ বাহিনী থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। শপথ ভঙ্গ ও পুলিশের সম্মানহানীর ঘটনায় তার বিরুদ্ধে পৃথকভাবে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। এদিকে ইয়াবা উদ্ধারের ঘটনায় চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশ- সিএমপির পক্ষ থেকে তিন সদস্যের একটি বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। ওই কমিটির প্রধান হলেন সিএমপি চকবাজার জোনের সহকারী কমিশনার নোবেল চাকমা। অন্য দুই সদস্য হলেন সিএমপি চকবাজার থানার পরিদর্শক (তদন্ত) ও সদরঘাট থানার পরিদর্শক (তদন্ত)। এর আগে সোমবার দিনগত মধ্যরাতে নগরের বাকলিয়া হাফেজনগর এলাকায় এসআই খন্দকার সাইফুদ্দিনের ভাড়া বাসা থেকে ১৪ হাজার ১০০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করে র‌্যাব। ওই সময় এসআই খন্দকার সাইফুদ্দিনের ইয়াবা পাহারাদার নাজিম উদ্দিন মিল্লাত (৩০) নামে একজনকে আটক করা হয়। এছাড়াও ওই বাসা থেকে ইয়াবা বিক্রির নগদ ২ লাখ ৩১ হাজার ৬৩০ টাকা, ৪টি মোবাইল ফোন, ৩টি ট্যাব ও পুলিশের কিছু ইউনিফর্ম (পোশাক) উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে র‌্যাব এব প্রেস বার্তায় গণমাধ্যমকে জানায়। পরিবর্তন ডট কম
বরিশালে আ.লীগের ১৫ বিএনপির পাঁচসহ ২২ কাউন্সিলর নির্বাচিত
অনলাইন ডেস্ক: বরিশাল সিটি কর্পোরেশন (বিসিসি) নির্বাচনে সাধারণ ৩০ ওয়ার্ডের মধ্যে ২২ জন কাউন্সিলরকে বেসরকারিভাবে বিজয়ী ঘোষণা করেছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা। এর মধ্যে তিনজনের প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় তারা আগেই বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী হন। অপর ১৯ জন সোমবার অনুষ্ঠিত নির্বাচনে জয়ী হয়েছেন। অনিয়মের অভিযোগে ১টি কেন্দ্রের ভোট বাতিল এবং ১৫টি কেন্দ্রের ফল স্থগিত করায় সংশ্লিষ্ট ৮ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থীদের ফল স্থগিত রাখা হয়েছে। একই কারণে সংরক্ষিত ৫টি ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থীদের ফলও আটকে গেছে। তবে ১০টি সংরক্ষিত কাউন্সিলরদের মধ্যে পাঁচজনকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়েছে। সাধারণ কাউন্সিলদের মধ্যে ১৫ জন আওয়ামী লীগ দলীয়, পাঁচজন বিএনপির, একজন জাতীয় পার্টি ও একজন স্বতন্ত্রভাবে জয়ী হন। পাঁচজন সংরক্ষিত কাউন্সিলরদের মধ্যে তিনজন আওয়ামী লীগের ও দুইজন বিএনপির। রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. মুজিবুর রহমান বলেন, ফল স্থগিত থাকা ওয়ার্ডগুলোর কাউন্সিলর প্রার্থীদের প্রাপ্ত ভোটের সংখ্যা এবং স্থগিত কেন্দ্রের মোট ভোটার সংখ্যা নির্বাচন কমিশনে (ইসি) পাঠনো হবে। ইসি থেকে পরবর্তী সিদ্ধান্তের পর নির্ভর করবে সাধারণ ৮ ওয়ার্ড ও সংরক্ষিত ৫ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থীদের ফল। সাধারণ ওয়ার্ডে বিজয়ী কাউন্সিলররা হলেন- ১ নম্বর ওয়ার্ডে আমীর হোসেন বিশ্বাস (আওয়ামী লীগ), ২ নম্বর ওয়ার্ডে মুরতজা আবেদীন (জাপা), ৩ নম্বর ওয়ার্ডে মো. হাবিবুর রহমান ফারুক (বিএনপি), ৪ নম্বর ওয়ার্ডে তৌহিদুর রহমান বাদশা (আওয়ামী লীগ), ৫ নম্বর ওয়ার্ডে কেফায়েত হোসেন রণি (স্বতন্ত্র), ৬ নম্বর ওয়ার্ডে খান মো. জামাল হোসেন (বিএনপি), ৭ নম্বর ওয়ার্ডে রফিকুল ইসলাম খোকন (বিএনপি), ৮ নম্বর ওয়ার্ডে মো. সেলিম হাওলাদার (বিএনপি), ৯ নম্বর ওয়ার্ডে হারুন অর রসিদ (বিএনপি), ১১ নম্বর ওয়ার্ডে মজিবর রহমান (আওয়ামী লীগ), ১২ নম্বর ওয়ার্ডে জাকির হোসেন ভুলু (আওয়ামী লীগ), ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে মেহেদি পারভেজ আবীর (আওয়ামী লীগ), ১৫ নম্বর ওয়ার্ডে লিয়াকত হোসেন খান (আওয়ামী লীগ), ১৬ নম্বর ওয়ার্ডে মোশারফ আলী খান বাদশা (আওয়ামী লীগ) ১৮ নম্বর ওয়ার্ডে মীর জাহিদুল কবির (বিএনপি), ১৯ নম্বর ওয়ার্ডে গাজী নাইমুল হোসেন লিটু (আওয়ামী লীগ), ২১ নম্বর ওয়ার্ডে শেখ সাইয়েদ আহম্মেদ মান্ন (আওয়ামী লীগ), ২৪ নম্বর ওয়ার্ডে আনিছুর রহমান শরীফ (আওয়ামী লীগ), ২৬ নম্বর ওয়ার্ডে মো. হুমায়ুন কবীর (আওয়ামী লীগ), ২৮ নম্বর ওয়ার্ডে মো. জাহাঙ্গীর হোসেন(আওয়ামী লীগ), ২৯ নম্বর ওয়ার্ডে ফরিদ আহম্মেদ (আওয়ামী লীগ) ও ৩০ নম্বর ওয়ার্ডে আজাদ হোসেন মোল্ল কালাম (আওয়ামী লীগ)। ১৫টি কেন্দ্রের ফলাফল স্থগিত রাখার কারণে যেসব ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থীদের ফল ঘোষণা হয়নি সে ওয়ার্ডগুলো হচ্ছে- ১০, ১৪, ১৭, ২০, ২২, ২৩, ২৫ ও ২৭। সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে বিজয়ীরা হলেন- ১ নম্বর ওয়ার্ডে (সাধারণ ১, ২ ও ৩) মিনু রহমান, ২ নম্বর ওয়ার্ডে (সাধারণ (৪, ৫ ও ৬) জাহানারা বেগম, ৩ নম্বর ওয়ার্ডে (সাধারণ ৭, ৮ ও ৯) কোহিনুর বেগম, ৪ নম্বর ওয়ার্ডে (সাধারণ ১০, ১১ ও ১২) আয়েশা তৌহিদা লুনা (বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায়) এবং ১০ নম্বর ওয়ার্ডে (সাধারণ ২৮, ২৯ ও ৩০) রাশিদা পারভীন। এছাড়া ১৫ কেন্দ্রের ফলাফল স্থগিত থাকার কারণে সংরক্ষিত ৫, ৬, ৭, ৮ ও ৯ নম্বর ওয়ার্ডের ফলাফল ঘোষণা করেননি রিটার্নিং কর্মকর্তা।
সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে নিহত ৮
অনলাইন ডেস্ক: সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে একই পরিবারের তিনজনসহ ৮ জন নিহত ও অন্তত তিনজন আহত হয়েছেন। মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে উপজেলার কাদাই এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন, কাদাই গ্রামের মেঘা শেখের ছেলে আব্দুস সাত্তার (৫০), তার ভাতিজা আব্দুল হামিদের ছেলে ছানোয়ার হোসেন (২৫), আবু তাহেরের ছেলে আব্দুল্লাহ (১৩), কাসেমের ছেলে মমিন (৩০), আব্দুল আলীমের ছেলে সজীব (১৩), আমিনুলের ছেলে রাজু (১৪), আবুল হোসেনের ছেলে হাবিব (২৪) ও মৃত হাবিবুর রহমানের ছেলে রফিকুল (৩০)। সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ফরিদুল ইসলাম এসব তথ্য জানিয়েছেন। তিনি আরও জানান, লাশগুলো হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। আর আহতদের চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, কাদাই গ্রামে বর্ষার পানিতে একটি টিনের ঘর (দোকান) বৃষ্টির পানিতে ডুবে যায়। দুপুরে স্থানীয় ১০-১২ জন দোকানটি উঠিয়ে অন্য স্থানে সরিয়ে নেয়ার সময় পল্লী বিদ্যুতের একটি তার ঘরের টিনের ওপর পড়লে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে সবাই পানিতে পড়ে যান। পরে তারটি কেটে তাদের উদ্ধার করে সিরাজগঞ্জ সদর হাসপাতালে নিলে একে একে ৬ জনকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক। অপর দু’জনকে মেডিনোভা হাসপাতালে নিয়ে গেলে তাদেরও মৃত ঘোষণা করেন ডা. আকরামুজ্জামান। নিহতদের মধ্যে চারজন তাঁত শ্রমিক, একজন ব্যবসায়ী ও তিনজন ছাত্র রয়েছেন। জেলা প্রশাসক কামরুন নাহার সিদ্দিকা নিহত প্রত্যেকের পরিবারকে ২৫ হাজার করে টাকা দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন।
ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা
অনলাইন ডেস্ক: লালমনিরহাটের কালীগঞ্জে গোলাম হোসেন (৫৭) নামে এক সার ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। মঙ্গলবার সকালে উপজেলার চলবলা ইউনিয়নের নিথক অচিনতলা গ্রামে নিজ শয়নকক্ষে তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। নিহত গোলাম হোসেন ওই গ্রামের বাসিন্দা এবং স্থানীয় সীমান্ত সিনেমা হল মার্কেটের সার ব্যবসায়ী ছিলেন। পুলিশ জানায়, সোমবার রাতে প্রতিদিনের মত খাবার খেয়ে নিজ শয়নকক্ষে ঘুমিয়ে পড়েন গোলাম হোসেন। রাতের কোনো একসময় দুর্বৃত্তরা ঘরে প্রবেশ করে তাকে কুপিয়ে হত্যা করে পালিয়ে যায়। মঙ্গলবার সকালে বিছানায় রক্তাক্ত লাশ দেখে এলাকাবাসী পুলিশে খবর দিলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। নিহত গোলাম হোসেনের দুই মানসিক প্রতিবন্ধী ছেলে রয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য একজনকে আটক করেছে পুলিশ। তবে তার নামপরিচয় যায়নি। লালমনিরহাটের সহকারী পুলিশ সুপার হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী জানান, ধারণা করা হচ্ছে, পূর্বশত্রুতার জের ধরে তাকে হত্যা করা হয়েছে। তবে সব বিষয় গুরুত্ব দিয়ে তদন্ত করা হচ্ছে বলেও জানান ঘটনাস্থল পরিদর্শনে আসা ওই পুলিশ কর্মকর্তা।
পুলিশ কর্মকর্তার বাসা থেকে ইয়াবা উদ্ধার-পাহারাদার আটক
অনলাইন ডেস্ক: চট্টগ্রাম নগরের বাকলিয়া হাফেজনগর এলাকায় এক পুলিশ কর্মকর্তার বাসা থেকে প্রায় ১৫ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়েছে। এসময় পু্লিশ কর্মকতার ইয়াবা পাহারাদার নাজিম উদ্দিন মিল্লাত (৩০) নামে একজনকে আটক করেছে র‌্যাব। র‌্যাবের কর্মকতারা জানান, সোমবার (৩০ জু্লাই) দিবাগত রাত ১২ টার দিকে এসব ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। এছাড়াও বেশ কয়েকটি মোবাইল ফোন ও অন্যান্য মাদক উদ্ধার করা হয়েছে। র‌্যাবের কর্মকতারা আরও জানান, গোপন সূত্রে খবর পেয়ে পশ্চিম বাকলিয়ার হাফেজ নগর এলাকার হাজী গোফরান উদ্দিন মুন্সীর বাড়ির একটি ভাড়া বাসা থেকে ১৫ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। বাকলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক খন্দকার সাইফুদ্দিন বাসায় বিক্রির উদ্দেশে ইয়াবাগুলো মজুদ করেছিলেন। বাসাটি তিনি ভাড়া নিয়েছিলেন। র‌্যাব-৭ এর সিনিয়র সহকারী পরিচালক (গণমাধ্যম) মিমতানুর রহমান বলেন, গোপন সূত্রে খবর পেয়ে পুলিশ কর্মকর্তার বাসাটিতে অভিযান চালানো হয়। তার পরিবারের সদস্যরা এই বাসায় থাকেন না। ইয়াবা ব্যবসার জন্য সাইফুদ্দিন বাসাটি ভাড়া নিয়েছেন বলে জানতে পেরেছি। অভিযানের সময় সাইফুদ্দিন বাসাটিতে ছিলেন তিনি বলেন, নাজিম উদ্দিন মিল্লাত নামে একজনকে আটক করা হয়েছে। তার দেখানো মতে আমরা আরও একটি বদ্ধ বাসার সন্ধান পেয়েছি। সেখানে অভিযান চলছে। অালোকিত বাংলাদেশ
চবিতে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষ
অনলাইন ডেস্ক: পূর্ব-শত্রুতার জেরে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) ছাত্রলীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে ৮ ছাত্রলীগ কর্মী আহত হয়েছেন। গুরুতর অবস্থায় ৩ জনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে (চমেক) পাঠানো হয়েছে। বাকিদের চবি মেডিকেল সেন্টারে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। সোমবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে শাহ আমানত ও এ এফ রহমান হলে এ সংঘর্ষের সূত্রপাত হয়। বিবাদমান দুটি পক্ষ কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের অনুসারী ‘বিজয়’ ও ‘সিএফসি’ গ্রুপ। আহতরা হলেন- বিজয় গ্রুপের লোক প্রশাসন বিভাগের ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের আজিজুল হক মামুন, আরবি বিভাগের ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের জোবায়ের আহমেদ, রাজনীতি বিজ্ঞান ২০১২-১৩ শিক্ষাবর্ষের সাইমুন ইসলাম ও ইতিহাস বিভাগের ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের ইমাম। সিএফসির ইতিহাস বিভাগের ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষের আপন ইসলাম মেঘ, মৃত্তিকা বিজ্ঞান বিভাগের ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের সাহাদাত হোসেন প্রদীপ, আইন বিভাগের ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের হাবিব ও স্পোর্টস সায়েন্স বিভাগের ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের রিংকু দাশ। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, পূর্ব-শত্রুতার জেরে চাকসুর সামনে সিএফসি গ্রুপের কর্মী রিংকু দাশকে বিজয় গ্রুপের কর্মীরা চড়-থাপ্পড় মারে। এর সূত্র ধরে এএফ রহমান হলে বিজয় গ্রুপের কর্মীদের ওপর চড়াও হয় সিএফসি গ্রুপের কর্মীরা। এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে ইট-পাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে। এছাড়া হলের দোতলার ৩টি কক্ষ ভাঙচুর করা হয়। এ ঘটনার রেশ ধরে শাহ আমানত হলেও সংঘর্ষ হয়। পরে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও পুলিশ ঘটনাস্থলে ছুটে এলে পরিস্থিতি শান্ত হয়। বর্তমানে ক্যম্পাসে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। এ বিষয়ে বিজয় গ্রুপের নেতা ও সাবেক কমিটির যুগ্ম সম্পাদক আবু সাঈদ বলেন, জুনিয়রদের মধ্যে একটু ঝামেলা হয়ছে। আমরা সিনিয়ররা বসে মীমাংসা করে ফেলব। একই সুরে কথা বলেন সিএফসি গ্রুপের নেতা ও চবি ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি নাসির উদ্দীন সুমন। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর আলী আজগর চৌধুরী বলেন, চাকসুর সামনে থেকে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষের সূত্রপাত হয়। পরে দুইটি হল তা ছড়িয়ে পড়ে। আমরা পরে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনি। হাটহাজারি মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বেলাল উদ্দীন জাহাংগীর বলেন, ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। কয়েকজন আহত হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আছে। যেকোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে আমরা প্রস্তুত। ওয়ান নিউজ বিডি
আরিফের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব গ্রেফতার
অনলাইন ডেস্ক :সিলেট সিটি কর্পোরেশন (সিসিক) নির্বাচনে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট সমর্থিত মেয়র প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরীর নির্বাচন পরিচালনা কমিটির সদস্য সচিব এবং বিএনপির কেন্দ্রীয় সহ-ক্ষুদ্র ও ঋণ বিষয়ক সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রাজ্জাককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শনিবার রাত ৯টার দিকে নগরীর মিরবক্সটুলা এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারের বিষয়টি জানিয়ে বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক কলিম উদ্দিন আহমদ মিলন বলেন, রাতের প্রধান নির্বাচনী কার্যালয়ে জরুরী সংবাদ সম্মেলন আহ্বান করেছেন মেয়র প্রার্থী আরিফ। সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (মিডিয়া) মুহম্মদ আবদুল ওয়াহাব বলেন, আব্দুর রাজ্জাকের নামে একাধিক মামলা রয়েছে। এছাড়া একটি মামলায় পরোয়ানাভুক্ত আসামীও তিনি। এ কারণে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। উল্লেখ্য, গত ২৪ জুলাই আব্দুর রাজ্জাকের বাসায় পুলিশ তল্লাশী করে তার ছেলে রুমান রাজ্জাককে আটক করে নিয়ে যায়।

সারা দেশ পাতার আরো খবর