মঙ্গলবার, নভেম্বর ১২, ২০১৯
নওগাঁয় ধর্ষণের অপমানে চিকিৎসকের নারী সহকারীর আত্মহত্যা
২৭ জানুয়ারি,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: নওগাঁয় ধর্ষণের 'অপমানে' আত্মহত্যা করেছেন এক চিকিৎসকের নারী সহকারী। এ ঘটনায় অভিযুক্ত চিকিৎসক হেলাল উদ্দিনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পুলিশ জানায়, শহরের পাটালি মোড় এলাকায় পাইলস কিউর সেন্টার নামে একটি ক্লিনিকে রোগী দেখেন ডাক্তার হেলাল উদ্দিন। তার সহকারী হিসেবে এক সন্তানের জননী খাদিজা বেগমকে নিয়োগ দেন তিনি। গত ১৮ জানুয়ারি নারী সহকারীকে ধর্ষণ করেন ডাক্তার হেলাল উদ্দিন। অপমান সইতে না পেরে ঘটনার দিন রাতে বিষপানে আত্মহত্যা করেন খাদিজা। মোবাইল কলের রেকর্ডের সূত্রধরে শনিবার বিকেলে অভিযুক্ত হেলাল উদ্দিনকে আটক করে পুলিশ। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছে সে। এ ঘটনায় নিহতের বাবা বাদী হয়ে সদর থানায় একটি মামলা করেছেন। নওগাঁ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আবদুল হাই বলেন, অভিযুক্ত চিকিৎসককে আটক করা হয়েছে। এ বিষয়ে তদন্ত করা হচ্ছে। তদন্ত অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
গাইবান্ধা-৩ আসনে ভোটগ্রহণ চলছে
২৭ জানুয়ারি,অনলাইন ডেক্স,নিউজ একাত্তর ডট কম: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থীর মৃত্যুতে স্থগিত হওয়া গাইবান্ধা-৩ (পলাশবাড়ী-সাদুল্যাপুর) আসনে ভোটগ্রহণ চলছে। রোববার (২৭ জানুয়ারি) সকাল ৮টা থেকে এই সংসদীয় আসনের মোট ১৩২ কেন্দ্রে একযোগে ভোট শুরু হয়। মোট চার লাখ ১১ হাজার ৮৫৪ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। নির্বাচনে মোট পাঁচজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তারা হলেন মহাজোটভুক্ত আওয়ামী লীগ প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য ডা. ইউনুস আলী সরকার (নৌকা), জাতীয় পার্টির (এরশাদ) প্রার্থী দিলারা খন্দকার (লাঙ্গল), জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ-ইনু) প্রার্থী এস এম খাদেমুল ইসলাম খুদি (মশাল), ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) মিজানুর রহমান তিতু (আম) এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু জাফর মো. জাহিদ (সিংহ)। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) নেতা ডা. টি আই এম ফজলে রাব্বী চৌধুরীর মৃত্যুতে গত ২০ ডিসেম্বর এ আসনের একাদশ সংসদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ স্থগিত করেন নির্বাচন কমিশন। পরে তফসিল ঘোষণা করে আজকের দিনে ভোটগ্রহণের দিন ঠিক করে নির্বাচন কমিশন।
বন্দুকযুদ্ধে মাদক ব্যবসায়ী নিহত কুষ্টিয়ায়
২৬ জানুয়ারী,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: কুষ্টিয়া সদর উপজেলায় কথিত বন্দুকযুদ্ধে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন বলে দাবি করেছে পুলিশ। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর দাবি, ওই ব্যক্তি মাদক ব্যবসায়ী। গতকাল শুক্রবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে উপজেলার মোল্লাতেঘরিয়া ক্যানেলপাড়া আমবাগানে এই বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে বলে আজ শনিবার সকালে দাবি করেছেন কুষ্টিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাসির উদ্দিন। নিহত ব্যক্তির নাম হাবিবুর রহমান হুব্বা (৫০)। তিনি শহরের আড়ুয়াপাড়া ছোট ওয়ারলেস এলাকার বাসিন্দা। বন্দুকযুদ্ধের ব্যাপারে ওসির ভাষ্য হচ্ছে, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ জানতে পারে ক্যানেলপাড়ায় একদল মাদক ব্যবসায়ী অস্ত্র ও মাদকসহ অবস্থান করছে। এ সংবাদ পেয়ে পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে যায়। তখন দুপাশ থেকে মাদক ব্যবসায়ীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়ে। আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি করলে মাদক ব্যবসায়ীরা পালিয়ে যায়। পরে ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ গুরুতর আহত অবস্থায় একজনকে উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে হাবিবুরের পরিচয় নিশ্চিত করা হয়। ওসির আরো দাবি, এ সময় পুলিশের চার সদস্য আহত হন। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ ৮০০ ইয়াবা, একটি বিদেশি পিস্তল, দুটি পিস্তলের গুলি ও দুটি ম্যাগাজিন উদ্ধার করেছে। হাবিবুর রহমান হুব্বা শহরের ‘শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী’ দাবি করে পুলিশ জানিয়েছে, তাঁর বিরুদ্ধে মডেল থানায় একাধিক মামলা রয়েছে।
বন্দুকযুদ্ধে মাদক ব্যবসায়ী নিহত কুষ্টিয়ায়
২৬ জানুয়ারী,অনলাইন ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: কুষ্টিয়া সদর উপজেলায় কথিত বন্দুকযুদ্ধে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন বলে দাবি করেছে পুলিশ। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর দাবি, ওই ব্যক্তি মাদক ব্যবসায়ী। গতকাল শুক্রবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে উপজেলার মোল্লাতেঘরিয়া ক্যানেলপাড়া আমবাগানে এই বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে বলে আজ শনিবার সকালে দাবি করেছেন কুষ্টিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাসির উদ্দিন। নিহত ব্যক্তির নাম হাবিবুর রহমান হুব্বা (৫০)। তিনি শহরের আড়ুয়াপাড়া ছোট ওয়ারলেস এলাকার বাসিন্দা। বন্দুকযুদ্ধের ব্যাপারে ওসির ভাষ্য হচ্ছে, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ জানতে পারে ক্যানেলপাড়ায় একদল মাদক ব্যবসায়ী অস্ত্র ও মাদকসহ অবস্থান করছে। এ সংবাদ পেয়ে পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে যায়। তখন দুপাশ থেকে মাদক ব্যবসায়ীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি ছুড়ে। আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি করলে মাদক ব্যবসায়ীরা পালিয়ে যায়। পরে ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ গুরুতর আহত অবস্থায় একজনকে উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে হাবিবুরের পরিচয় নিশ্চিত করা হয়। ওসির আরো দাবি, এ সময় পুলিশের চার সদস্য আহত হন। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ ৮০০ ইয়াবা, একটি বিদেশি পিস্তল, দুটি পিস্তলের গুলি ও দুটি ম্যাগাজিন উদ্ধার করেছে। হাবিবুর রহমান হুব্বা শহরের ‘শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী’ দাবি করে পুলিশ জানিয়েছে, তাঁর বিরুদ্ধে মডেল থানায় একাধিক মামলা রয়েছে।
কুমিল্লায় ট্রাক উল্টে ১৩ শ্রমিক নিহত
২৫ জানুয়ারী,অনলাইন ডেক্স,(নিউজ একাত্তর ডট কম) :কুমিল্লায় কয়লাবাহী ট্রাক উল্টে ইটভাটার ১৩ ঘুমন্ত শ্রমিক নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও পাঁচজন। শুক্রবার ভোরে চৌদ্দগ্রাম উপজেলার গোলপাশা ইউনিয়নের নারায়ণপুর এলাকায় একটি ইটভাটার পাশে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেন- নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলার নিজপাড়া গ্রামের সুরেশ চন্দ্র রায়ের ছেলে রঞ্জিত চন্দ্র রায় (৩০), মানিক চন্দ্র রায়ের ছেলে তরুণ চন্দ্র রায় (২৫), কৃষর চন্দ্র রায়ের ছেলে সংকর চন্দ্র রায় (২২), অমল চন্দ্র রায়ের ছেলে দিপু চন্দ্র রায় (১৯), কামাক্ষা রায়ের ছেলে অমিত চন্দ্র রায় (২০), জাহাঙ্গির আলমের ছেলে মো. সেলিম (২৮), পাঠানপাড়া গ্রামের নূর আলমের ছেলে মো. মোরচালিন (১৮), ফজলুল করিমের ছেলে মো. মাসুম (১৮), রামপ্রসাদের ছেলে বিল্লব (১৯), শিমুল বাড়ি গ্রামের মনোরঞ্জন রায় (১৯), দিনেশ চন্দ্র রায়ের ছেলে মিনাল চন্দ্র রায় (২১), রাজবাড়ি গ্রামের খোকা চন্দ্র রায়ের ছেলে বিকাশ চন্দ্র রায় (২৮) ও ধলু রায়ের ছেলে কনক চন্দ্র রায় (৩৪)। তারা মেসার্স কাজী এন্ড কোং ইটভাটায় কাজ করতেন। দুর্ঘটনায় সময় কয়লার স্তুপের পাশে একটি ঘরে তারা ঘুমিয়ে ছিলেন। চৌদ্দগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল্লাহ আল মাহফুজ জানান, ওই ট্রাকে করে ইটভাটার জন্য কয়লা আনা হয়েছিল। ভোর সাড়ে ৫টার দিকে ট্রাকের চালক কয়লা নামানোর জন্য গাড়িটি পেছন দিকে নেয়ার চেষ্টা করলে তা নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পাশের শেডে ঘুমিয়ে থাকা শ্রমিকদের ওপর উল্টে পড়ে। এতে চাপা পড়ে ঘুমন্ত অবস্থায় ১২ শ্রমিকের ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয়। গুরুতর আহত হয় আরও ছয় জন। খবর পেয়ে স্থানীয় লোকজন, ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে উদ্ধার অভিযান শুরু করে। এ সময় মারাত্মক আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়ার পর আরও একজনের মৃত্যু হয়। এদিকে দুর্ঘটনার পর থেকে ওই ট্রাকের চালক ও তার সহকারী পলাতক রয়েছে। কুমিল্লা জেলা প্রশাসক মো. আবুল ফজল মীর ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবদুল্লাহ আল মামুন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। কুমিল্লা জেলা প্রশাসক নিহত শ্রমিকদের পরিবারকে ২০ হাজার এবং ইটভাটা মালিক ১০ হাজার টাকা করে অনুদান দিয়েছেন।
বন্দুকযুদ্ধে এক রাতে কক্সবাজারে তিনজন নিহত
অনলাইন ডেস্ক: কক্সবাজারের টেকনাফ ও মহেশখালী উপজেলায় তথাকথিত বন্দুকযুদ্ধে তিনজন নিহত হয়েছেন। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর দাবি, এদের মধ্যে দুজন মাদক ব্যবসায়ী আর একজন ডাকাত। আজ বৃহস্পতিবার ভোরে টেকনাফ উপজেলার সাবরাং ইউনিয়নের বাহারছড়াঘাট এলাকায় এবং মহেশখালী উপজেলার মাতারবাড়ী ইউনিয়নের শামলাপুর ঢালায় এ দুটি কথিত বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। এর মধ্যে র;্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের (Rab সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন দুই মাদক ব্যবসায়ী আর পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন এক ডাকাত। নিহতদের মধ্যে শুধু মহেশখালী উপজেলার মাতারবাড়ী ইউনিয়নের হংসু মিয়াজিপাড়া এলাকার বাসিন্দা হেলাল উদ্দিনের পরিচয় জানা গেছে। পুলিশ দাবি করেছে, তিনি একজন চিহ্নিত ডাকাত। টেকনাফ উপজেলার কথিত বন্দুকযুদ্ধ সম্পর্কে সেখানকার Rab-৭ কার্যালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট মীর্জা সাহেদ দাবি করেন, ইয়াবা পাচারের গোপন সংবাদের ভিত্তিতে Rab সদস্যরা উপজেলার বাহারছড়াঘাট এলাকায় অভিযান চালান। এ সময় Rabর উপস্থিতি টের পেয়ে ইয়াবা ব্যবসায়ীরা গুলি করে। আত্মরক্ষার্থে Rab ও পাল্টা গুলি চালালে মাদক ব্যবসায়ীরা পিছু হটে। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে দুই যুবককে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। তাঁদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। পরে তাঁদের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। তাঁদের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়নি। Rab কর্মকর্তা আরো দাবি করেন, ঘটনাস্থল থেকে ৫০ হাজার ইয়াবা, দুটি বিদেশি পিস্তল, একটি ওয়ান শুটারগান ও ১৪টি গুলি উদ্ধার করেছে Rab। অন্যদিকে মহেশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রভাষ চন্দ্র ধর দাবি করেছেন, ডাকাতির প্রস্তুতির খবর পেয়ে পুলিশ উপজেলার শামলাপুর ঢালায় অভিযানে যায়। সেখানে পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে হেলাল উদ্দিন আহত হন। আজ ভোর সাড়ে ৪টায় এ ঘটনা ঘটে। প্রায় এক ঘণ্টা বন্দুকযুদ্ধ চলে। ওসি আরো দাবি করেন, আহত হেলালকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি দেশে তৈরি পাইপগান, একটি লম্বা বন্দুক ও ১২টি খালি খোসা উদ্ধার করেছে। মৃতদেহটি ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। হেলালের বিরুদ্ধে হত্যাসহ ১৪টি মামলা রয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।
ট্রাক-সিএনজি মুখোমুখি সংঘর্ষে লক্ষ্মীপুরে নিহত ৭
অনলাইন ডেস্ক: লক্ষ্মীপুরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আহত ছাত্রলীগ নেতাকে দেখতে গিয়ে ট্রাক সিএনজি মুখোমুখি সংঘর্ষে একই পরিবারের ৬ জনসহ ৭ জন নিহত হয়েছে। বুধবার ভোরে ঢাকা-রায়পুর মহাসড়কের রতনপুর এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতদের মরদেহ উদ্ধার করে লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। নিহতরা হলেন, চন্দ্রগঞ্জ বসুদুহিতা এলাকার ছাত্রলীগ নেতা অন্তরের বাবা শাহ আলম ও তার (শাহ আলম) স্ত্রী নাসিমা, অন্তরের নানী শামছুন্নাহার, খালা রোকেয়া ও তার ছেলে রুবেল, অন্তরের ৮ বছর বয়সী ভাই অমিত এবং সিএনজিচালক নূর হোসেন সোহাগ। চন্দ্রগঞ্জ হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. শাহজাহান জানান, ভোর রাতে লক্ষ্মীপুর থেকে ছেড়ে যাওয়া একটি মালবাহী ট্রাক (ঢাকা মেট্রো-ট ১৪-০৬৭৭৭) ঘন কুয়াশার ভেতরে দ্রুতগতিতে চট্টগ্রাম যাচ্ছিল। ঘটনাস্থলে পৌঁছালে বিপরীত দিক থেকে আসা সিএনজিচালিত অটোরিকশার সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে সিএনজিটির চালকসহ ওই সিএনজিতে থাকা সকল যাত্রী নিহত হন। প্রসঙ্গত, এর আগে মধ্যরাতে স্থানীয় ছাত্রলীগ নেতা অন্তরকে পিটিয়ে আহত করে দুর্বৃত্তরা। তাকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অন্তরের স্বজনরা তাকে দেখতে হাসপাতালে এলে এ ঘটনা ঘটে বলে জানা যায়।
বাস-ট্রাক মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ৩ বাগেরহাটে
অনলাইন ডেস্ক: বাগেরহাটের ফকিরহাটে বাস-ট্রাক মুখোমুখি সংঘর্ষে ঘটনাস্থলে ৩ জন নিহত হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে খুলনা-মাওয়া মহাসড়কের ফকিরহাট উপজেলার কলমের দোকান নামক স্থানে এই দুর্ঘটনা ঘটে। এসময় আহত হয়েছেন কমপক্ষে আরও ২৫ জন। নিহতদের মধ্যে একজন বালুবাহী জাম্পার ট্রাকের চালক। তার নাম কামরুজ্জামান বলে জানা গেছে। তবে অপর দুইজনের নাম জানা যায়নি। হতাহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে প্রত্যক্ষদর্শী স্থানীয়রা জানিয়েছেন। আহতদের উদ্ধার করে ফকিরহাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তাদের মধ্যে কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। প্রত্যক্ষদর্শী ও ফকিরহাট থানা পুলিশ জানায়, দুপুর ১টার দিকে খুলনা থেকে ছেড়ে আসা টুঙ্গীপাড়া এক্সপ্রেসের একটি যাত্রীবাহী বাস ঘটনাস্থলে পৌছালে বিপরীত দিক থেকে আসা বালুবাহী একটি জাম্পার ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে বিকট শব্দ হলে আশপাশের লোকজন ছুটে আসে। স্থানীয়রা খবর দিলে থানা পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস এসে উদ্ধার কাজ শুরু করে। বাগেরহাট ফায়ার সার্ভিসের উপ-সহকারী পরিচালক (ডিএডি) মাসুদ সরদার ঘটনাস্থল থেকে জানান, খবর পেয়ে বাগেরহাট ফায়ার সার্ভিসের দুটি ও খুলনা ফায়ার সার্ভিসের ৪টি ইউনিট ঘটনাস্থলে পৌছে উদ্ধার কাজে অংশ নেয়। আহতদের উদ্ধার করে ফকিরহাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
কুমিল্লার দেবিদ্বারে খালাকে কুপিয়ে হত্যা,কারাগারে ভাগনি
অনলাইন ডেস্ক: কুমিল্লার দেবিদ্বারে ভাগনিকে ডাকাডাকি করায় বৃদ্ধা খালাকে (৮০) কুপিয়ে হত্যার অভিযোগে রুবি আক্তার (৪০) নামে এক নারীকে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। সোমবার আদালতের মাধ্যমে তাকে কুমিল্লা কারাগারে পাঠানো হয়। এর আগে রবিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে উপজেলার ভানী ইউনিয়নের সাহারপাড় গ্রামে ওই হত্যাকা- ঘটে। এ ঘটনায় ওই রাতেই অভিযুক্ত রুবি আক্তারকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। নিহত ওই বৃদ্ধার নাম দুধ মেহের বিবি। তিনি উপজেলার ভানী ইউনিয়নের সাহারপাড় গ্রামের বাসিন্দা। এছাড়া অভিযুক্ত রুবি আক্তার উপজেলার বরকামতা ইউনিয়নের নবীয়াবাদ গ্রামের মৃত আজিজ সরকারের মেয়ে। এ ঘটনায় নিহতের ছেলে মো. গিয়াস কামাল দেবিদ্বার থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলার বিবরণ সূত্রে জানা যায়, রুবি আক্তারের স্বামী সন্তান না থাকায় গত চার থেকে পাঁচ বছর ধরে খালা দুধ মেহের বিবির বাড়িতে থেকে তাকে দেখাশোনা করে আসছিলেন। ঘটনার দিন অসুস্থ দুধ মেহের বিবি বিছানায় শুয়ে রুবি আক্তারকে একাধিকবার ডাকাডাকি করছিলেন। এতে রুবি আক্তার বিরক্ত হয়ে রান্না ঘর থেকে দা এনে তাকে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে জখম করেন। পরে ঘটনাস্থলেই মারা যান দুধ মেহের। প্রত্যাক্ষদর্শীরা থানায় খবর দিলে পুলিশ গিয়ে লাশ উদ্ধার করে এবং রুবি আক্তারকে আটক করেন। মামলার বাদী নিহতের ছেলে গিয়াস জানান, রুবি আক্তার মানসিক রোগী। তিনি প্রায় সময়ই উত্তেজিত হয়ে আবোল তাবোল বকাঝকা করেন। বৃদ্ধা মাকে দেখাশোনা করার জন্য তাকে বাড়িতে রাখা হয়েছিল। দেবিদ্বার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জহিরুল আনোয়ার জানান, নিহত দুধ মেহের বিবির শরীর ও মাথায় একাধিক দায়ের কোপের চিহ্ন পাওয়া গেছে। লাশ উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ (কুমেক) হাসপাতালে ময়নাতদতন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। রুবি আক্তারকে গ্রেফতার করে কুমিল্লা জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

সারা দেশ পাতার আরো খবর