সোমবার, মার্চ ৮, ২০২১
দৈনিক ভোরের পাতা ভালুকা অফিসে চুরি,জড়িতদের গ্রেফতারের দাবী সর্বত্র
০৮,জুলাই,বুধবার,কামরুজ্জামান মিন্টু, ময়মনসিংহ,নিউজ একাত্তর ডট কম: ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক সংলগ্ন ভালুকার আমতলী মোড়ে দৈনিক ভোরের পাতা পত্রিকার উপজেলা প্রতিনিধির বাক্তিগত অফিস ছিল। গতকাল মঙ্গলবার দিবাগত রাতে একটি মোবাইল, ১০টি মেমোরী কার্ড, একটি পেনড্রাইভ, নগদ ২০ হাজার টাকা ও পত্রিকার পরিচয়পত্র চুরি করে নিয়েছে দুষ্কৃতিকারীরা। দৈনিক ভোরের পাতার ভালুকা প্রতিনিধি তোফাজ্জল হোসেন জানান, সংবাদ সংগ্রহের কাজ শেষে মঙ্গলবার রাতে ব্যক্তিগত অফিস বন্ধ করে বাসায় চলে যাই। ওই রাতে চুরেরা অফিসের সাটারের তালা ভেঙ্গে থাই গ্লাস খুলে ভিতরে প্রবেশ করে। এ ঘটনায় ভালুকা মডেল থানা পুলিশকে অবহিত করলে পুলিশ সকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। তিনি জানান, মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। অাজকের বিজনেস বাংলাদেশ পত্রিকার ভালুকা প্রতিনিধি মামুন সরকার জানান, সাংবাদিক তোফাজ্জল হোসেন সবসময় বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন করে। সকলে তাকে ভালো মানুষ হিসেবে জানে।এমন ঘটনা অপ্রত্যাশিত। দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিনের সাংবাদিক অাসাদুজ্জামান সুমন এ ঘটনায় ত্রিব্য ক্ষোব প্রকাশ করেছেন। অনতিবিলম্বে ঘটনার সাথে সংশ্লিষ্টদের দ্রুত অাইনের অাওতায় নিয়ে অাসার জোর দাবী জানান তিনি। এসএ টিভির ময়মনসিংহ প্রতিনিধি, ময়মনসিংহ টেলিভিশন রিপোর্টার্স ইউনিটির সহ সাধারণ সম্পাদক অাওলাদ হোসেন রুবেল জানান, সাংবাদিক তোফাজ্জল হোসেন দীর্ঘদিন যাবত অামাদের সহকর্মী হিসেবে সুনামের সাথে সাংবাদিকতা করে অাসছেন। অামাদের জানা মতে তার কোন শত্রু নেই। এটি অত্যান্ত দুঃখজনক ঘটনা। পুলিশ দ্রুত ঘটনার সাথে জড়িতদের অাইনের অাওতায় নিয়ে অাসার দাবী জানান। ভালুকা মডেল থানার এস.অাই রুহুল আমিন জানান, সাংবাদিকের অফিসে রাতে এই ঘটনা ঘটেছিল। খবর পেয়ে অামরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। অাইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ বিষয়ে ভালুকা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ মাইন উদ্দিন জানান, সাংবাদিক অফিসে চুরির ঘটনায় তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
সরাইলে দু দফা সংঘর্ষে ৩ পুলিশসহ আহত শতাধিক, আটক ১২
০৮,জুলাই,বুধবার,মো.মির জামান উদ্দিন,ব্রাহ্মণবাড়িয়া,নিউজ একাত্তর ডট কম: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে আধিপত্য বিস্তার ও পূর্ব শত্রুতার জের ধরে মঙ্গলবার রাতের পর আজ বুধবার সকালেও দুই গোষ্ঠীর মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। মঙ্গলবার রাতের ঘটনায় পুলিশসহ অর্ধশতাধিক আহত হয়। আজ বুধবার সকালে এক বৃদ্ধা মারা গেছেন বলে খবর পাওয়া গেছে। তবে কেউ বিষয়টি নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার নোঁয়াগাও ইউনিয়নের কাটানিশার গ্রামের বজলু গোষ্ঠী ও ওলি গোষ্ঠীর লোকজনের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। স্থানীরা জানায়, গতরাত সাড়ে ৮টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত মিজান মিয়া মেম্বার এবং অলি মেম্বারের লোকজনের সংঘর্ষ হয়েছিল। বুধবার সকাল ১০টার সময় দ্বিতীয় দফায় মিজান মিয়া মেম্বারের এক ভাই আবদুল আমিন দুলালের সঙ্গে অলি মেম্বারের লোকজনের কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে অলি মেম্বারের লোকজন দেশীয় অস্ত্রসজ্জিত হয়ে মিজান মিয়া মেম্বারের লোকজনের অতর্কিত হামলায় সংঘর্ষ বাধে। এর আগে, মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৭টার দিকে দুই পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটির ঘটনাকে কেন্দ্র করে উভয়পক্ষের লোকজন দেশীয় অস্ত্র শস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ২০ রাউন্ড রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। সংঘর্ষে ৩ পুলিশসহ উভয়পক্ষের অন্তত ৫০ জন আহত হয়। এসময় বেশ কয়েকটি ঘরবাড়িতে হামলা ও ভাংচুর করা হয়। আহতরা সরাইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতাল ও আশপাশের হাসপাতালে চিকিৎসা নেয়। বুধবার সকালে ফের উভয় পক্ষের লোকজন সংঘর্ষে জড়ায়। নোয়াগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত আসনের সদস্য আকলিমা বেগম বুধবার বেলা ১১টার দিকে জানান, পূর্ব বিরোধের জের ধরেই দ্বিতীয় দফায় সংঘর্ষ হয়। এতে একজন মারা গেছেন বলে জানতে পেরেছি। তবে বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যাচ্ছে না। নোয়াগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কাজল চৌধুরী জানান, মঙ্গলবার রাতের পর বুধবার সকালেও দুই পক্ষ সংঘর্ষে জড়ায়। এতে আবুল কাশেমের বৃদ্ধ স্ত্রী মারা গেছেন বলে জানতে পেরেছি। ওই নারী মারা যাওয়ার খবরে সংঘর্ষ থেমে যায়। সরাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আল মামুন-মোহাম্মদ নাজমুল আহমেদ জানান, বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। সংঘর্ষের ঘটনায় এখন পর্যন্ত ১২ জনকে আটক করা হয়েছে। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে।
বান্দরবানে দু-পক্ষের বন্দুকযুদ্ধে ৬ জন নিহত
০৭জুলাই,মঙ্গলবার,দিপেন চাকমা,বান্দরবান,নিউজ একাত্তর ডট কম: বান্দরবানের রাজবিলার বাঘমারা এলাকায় পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (জেএসএস) দু-গ্রুপের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধে জেএসএস সংস্কারের ছয় জন নিহত হয়েছেন। এসময় গুলিবিদ্ধ হয়েছেন আর অন্তত তিন জন। মঙ্গলবার (৭ জুলাই) ভোরে এ বন্দুকযুদ্ধ হয়। আহতদের বান্দরবান সদর হাসপাতালে আনা হয়েছে। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ভোর রাতে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (জেএসএস) মূল ও সংস্কার গ্রুপের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধ হয়। এ ঘটনায় ঘটনাস্থলেই জেএসএস সংস্কার গ্রুপের ছয় জন নিহত হয়েছে। এসময় গুলিবিদ্ধ হয়েছে আরও তিন জন। নিহতরা হলেন- রতন তংচঙ্গ্যা, প্রজিত চাকমা, ডেবিড, মিলন চাকমা, জয় ত্রিপুরা ও দিপেন ত্রিপুরা। আহতরা হলেন- বিদ্যুৎ ত্রিপুরা, নিরু চাকমা অপরজনের নাম জানা যায়নি। বান্দরবানের পুলিশ সুপার জেরিন আখতার জানান, দুই পক্ষের বন্দুকযুদ্ধে ছয় জন ঘটনাস্থলেই নিহত হয়েছে এবং গুলিবিদ্ধ হয়েছে আরও তিন জন। ঘটনা তদন্তে পুলিশের একটি টিম কাজ শুরু করেছে বলে জানান তিনি।
রক্তাক্ত সাংবাদিক শরীফের অবস্থা আশংকাজনক দূর্বৃত্তদের গ্রেপ্তারের দাবি বিএমএসএফর
০৪জুলাই,শনিবার,কুমিল্লা প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: সংবাদ প্রকাশের জের ধরে কুমিল্লার মুরাদনগরে চেয়্যারম্যান শাহজাহান তার বাহিনী কর্তৃক সমকাল প্রতিনিধি শরিফুল ইসলামকে বাড়িতে ঢুকে কুপিয়ে রক্তাক্ত করেছে। দূর্বৃত্তরা তাকে কুপিয়ে হাত পা ভেঙ্গেই ক্ষান্ত হয়নি এসময় তার বাগার উঠানে ফেলে মুক্তিযোদ্ধা পিতা এবং বৃদ্ধা মাকে কুপিয়ে আহত ও লাঞ্ছিত করা হয়েছে। এ ঘটনায় স্থানীয় সাংবাদিকদের মাঝে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। ঘটনার পরপরই পুলিশ শাহজাহান চেয়ারম্যানকে আটক করলেও সাঙ্গপাঙ্গরা ধরাছোয়ার বাইরে রয়ে গেছে। এদিকে নৃশংস হামলার এ ঘটনায় তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে দৃষ্টান্তমূলক বিচারের দাবি করেছে বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম। শনিবার রাতে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে বিএমএসএফর কেন্দ্রিয় সভাপতি শহীদুল ইসলাম পাইলট ও সাধারণ সম্পাদক আহমেদ আবু জাফর স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনের নিকট হামলাকারীদের গ্রেফতার দাবি করেন। বিএমএসএফ নেতৃবৃন্দ বলেন, দেশে যেন সাংবাদিক নির্যাতনের মহোৎসব চলছে। যেমন খুশি প্রভাবশালীরা হামলা মামলা চালিয়েই যাচ্ছে। অথচ রাষ্ট্রযন্ত্র সাংবাদিকদের নিরাপত্তায় চরম উদাসীন। দ্রুত সাংবাদিক নির্যাতন বন্ধে আইন প্রণয়নেরও দাবি করেন নেতৃবৃন্দ। পাশাপাশি সাংবাদিকদের নিরাপত্তায় জেলা-উপজেলায় সাংবাদিক নির্যাতন প্রতিরোধ কমিটি গঠনের ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়।
ফটিকছড়ি প্রেসক্লাব ভবন নির্মাণে দুই লাখ টাকা অনুদান দিল মানারাত
০৪জুলাই,শনিবার,সজল চক্রবর্তী,ফটিকছড়ি,চট্টগ্রাম,নিউজ একাত্তর ডট কম: চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি প্রেসক্লাব ভবন নির্মাণে দুই লাখ টাকা অনুদান দিলেন তরুণ শিল্পপতি ও মানারাত ইন্টারন্যাশনাল প্রাইভেট লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাহমুদুল হাসান রনি। শনিবার (৪ জুলাই) ফটিকছড়ি প্রেসক্লাব সভাপতি জাহেদ কুরাইশীর হাতে এ অনুদানের চেক হস্তান্তরে উপস্থিত ছিলেন প্রতিষ্ঠানটির পরিচালক জামাল হোসেন টিপু। মানারাত ইন্টারন্যাশনাল প্রাইভেট লিমিটেডের ব্যবস্থপনা পরিচালক মাহমুদুল হাসান রনি এ বিষয়ে বলেন, মফস্বল পর্যায়ে উন্নয়ন তরান্বিত করতে গণমাধ্যম কর্মীদের ভূমিকা অনস্বীকার্য। প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর সমস্যা, সম্ভাবনা ও শৃঙখলা প্রতিষ্ঠায় পত্রিকার মফস্বল প্রতিনিধিরা কাজ করছে। ফটিকছড়ি প্রেসক্লাব এ উপজেলার সাংবাদিকদের একটি শক্তিশালী প্লাটফর্ম। এ সংগঠনটির সদস্যরা এ উপজেলার মানুষের কথা তুলে ধরছে রাষ্ট্রের সামনে। ফটিকছড়ির সংবাদকর্মীদের কল্যাণে মানারাত ইন্টারন্যাশনাল সব সময় পাশে থাকবে।
যশোরে ১ লাখ ইউএস ডলারসহ ৩ হুন্ডি ব্যবসায়ী আটক
০৪জুলাই,শনিবার,মো.ইনজামুল ইসলাম,যশোর প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: বেনাপোল থেকে প্রাইভেট কারে করে ঢাকায় পাচার করার সময় যশোরের খাজুরা বাসস্ট্যান্ড হতে এক লাখ ১৫ হাজার ইউএস ডলারসহ বেনাপোল-শার্শার তিন হুন্ডি ব্যবসায়ীকে আটক করেছে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্যরা। যা বাংলাদেশী টাকায় এক কোটি বাইশ লাখ ছাপ্পান্ন হাজার ছয়শত টাকা সমপরিমাণ। এ সময় হুন্ডির টাকা পাচারে ব্যবহৃত একটি প্রাইভেট কারও জব্দ করে বিজিবি। শুক্রবার (৩ জুলাই) বেলা ৩টার দিকে তাদের আটক করা হলেও বিজিবি রাত সাড়ে ৯টায় প্রেসনোটের মাধ্যমে সাংবাদিকদের জানায়। আটক হুন্ডি ব্যবসায়ীরা হলো, বেনাপোল পোর্ট থানার গাজিপুর গ্রামের আব্দুল বারীর ছেলে জাকির হোসেন (৩৬), একই থানার পুটখালি বালুন্ডা গ্রামের ইয়াছিন সরকারের ছেলে শাহ আলম (৩৫) ও শার্শা উপজেলার রামচন্দ্রপুর গ্রামের আব্দুস সালামের ছেলে মাসুদ রানা (২৮)। যশোর ৪৯ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল মোঃ সেলিম রেজা নিউজ একাত্তরকে জানান, নিজস্ব গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে জানা যায়, বেশ কয়েকটি হুন্ডি চোরাকারবারী চক্র দীর্ঘদিন যাবত যশোর বেনাপোল রোডে চোরাচালানী কার্যক্রম পরিচালনা করছে। শুক্রবার বেলা ৩টার দিকে যশোরের খাজুরা বাসস্ট্যান্ডে যশোর বিজিবির বিশেষ দল বেনাপোল সীমান্ত হতে ঢাকাগামী একটি প্রাইভেটকার (ঢাকা মেট্রো-গ-২৩-৭৯৫৯) আটক করে। পরে প্রাইভেট কারে থাকা জাকির হোসেন, শাহ আলম ও মাসুদ রানা নামে তিন হুন্ডি ব্যবসায়ীকে আটক করে শরীর তল্লাশি চালিয়ে এক লাখ ১৫ হাজার ইউএস ডলার (যা বাংলাদেশী টাকায় এক কোটি ২২ লাখ ৫৬ হাজার ছয়শত) উদ্ধার করা হয়। এ সময় প্রাইভেট কারও জব্দ করা হয়। আটককারীরা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে হুন্ডি ও স্বর্ণ চোরাকারবারীর সাথে দীর্ঘদিন যাবত জড়িত বলে স্বীকার করে। মাদক, চোরাচালান, হুন্ডি ও স্বর্ণ পাচারের বিরেদ্ধে সীমান্তে কঠোর নজরধারী জারী রয়েছে। উদ্ধারকৃত হুন্ডির টাকাসহ আসামীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানান ওই বিজিবি কর্মকর্তা।
উখিয়ায় ইয়াবাসহ Rab-15 এর হাতে যুবক আটক
০৩,জুলাই,শুক্রবার,কক্সবাজার প্রতিনিধি,নিউজ একাত্তর ডট কম: কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলায় পালংখালী ইউনিয়নের থাইংখালী বাজার থেকে অভিযান চালিয়ে ১৬ হাজার পিস ইয়াবাসহ একজন মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করেছে Rab-15 এর সদস্যরা। শুক্রবার সকাল তাকে আটক করে টেকনাফ থানা পুলিশের কাছে সোর্পদ করা হয় বলে Rab-15 জানিয়েছেন। কক্সবাজার ক্যাম্পের সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) আবদুল্লাহ মোহাম্মদ শেখ সাদী নিউজ একাত্তরকে জানান, উখিয়া থানাধীন থাইংখালী বাজার থেকে মাদক ব্যবসায়ী ইয়াবা বেচাকেনার উদ্দেশ্য অবস্থান করছিল, এমন তথ্যের ভিত্তিতে Rabর একটি দল ওই এলাকায় অভিযান চালায়। Rab এর উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যাওয়ার সময় এক মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করা হয়। পরে উপস্থিত লোকজনের সামনে তাদের হাতে থাকা ব্যাগ ও দেহ তল্লাশি করে ১৬ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। তিনি আরও বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে আটককৃত স্বীকারোক্তিতে জানা যায়, পলাতক আসামিরাসহ তারা দীর্ঘদিন যাবৎ সীমান্তবর্তী এলাকা থেকে ইয়াবা সংগ্রহ করে দেশের বিভিন্ন জায়গায় বিক্রি করে আসছে। পলাতক আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।
ভুয়া সাংবাদিককে গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ, মুচলেকায় মুক্তি
০৩,জুলাই,শুক্রবার,নিজস্ব প্রতিবেদক,নিউজ একাত্তর ডট কম: লোহাগাড়ায় মো. সেলিম উদ্দিন (৪৫) ওরফে বাটোয়ার সেলিম নামের এক প্রতারক সাংবাদিক পরিচয়ে থ্রী স্টার অটো পার্টস নামের একটি দোকানে ২০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করতে গিয়ে গণধোলাইয়ে শিকার হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২ জুলাই) বিকেলে লোহাগাড়া উপজেলার আমিরাবাদ পুরান বিওসি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। গণধোলাই দিয়ে তাকে পুলিশে সোপর্দ করেছে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। পাঁচ ঘণ্টা থানা হাজতে থাকার পর রাত সাড়ে ১১টার দিকে স্থানীয় আমিরাবাদ ইউনিয়ন পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান এস এম ইউনুছের জিম্মায় মুচলেকা নিয়ে তাকে মুক্তি দেয়া হয়। সেলিম উদ্দিন আমিরাবাদ মল্লিক ছোবহান বেপারী পাড়ার আলী আহমদের পুত্র। তিনি নিজেকে বাংলা টাইমস নামের একটি অনলাইন পোর্টালের সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে বেশ দাপটের সঙ্গে চলাফেরা করতেন। ভুক্তভোগী থ্রী স্টার অটো পার্টসের মালিক মো. জিয়া উদ্দিন জানান, বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টার দিকে উপজেলার আমিরাবাদ পুরান বিওসি এলাকায় তার মালিকানাধীন থ্রী স্টার অটো পার্টস দোকান থেকে কোন কারণ ছাড়াই ২০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে তার সঙ্গে তর্কাতর্কি শুরু করে কথিত সাংবাদিক সেলিম উদ্দিন। তার অযাচিত এমন আচরণে এসময় দোকানের আশ-পাশের ব্যবসায়ীসহ অনেক লোক জড়ো হলে সেলিম দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করলে তাকে ধরে উত্তেজিত ব্যবসায়ীরা গণধোলাই দেয়। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে তাকে উদ্ধার করে থানা হেফাজতে নিয়ে যায়। লোহাগাড়া থানার ওসি জাকের হোসাইন মাহমুদ জানান, জিয়া উদ্দিন নামের এক ব্যবসায়ীর মৌখিকভাবে চাঁদা দাবির অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ ফোর্স পাঠিয়ে সেলিম নামের ওই প্রতারককে থানায় নিয়ে আসা হয়। পরে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের জিম্মায় মুচলেকা নিয়ে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়। লোহাগাড়া প্রেস ক্লাবের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম জানান, সেলিম উদ্দিন নামের কোনও সাংবাদিককে তিনি চিনেন না। আর এ নামের কেউ লোহাগাড়া প্রেস ক্লাবের সদস্য নেই। সেলিম নামের এক প্রতারকের সাংবাদিক পরিচয়ে চাঁদাবাজির বিষয়টি তিনি শুনেছেন। তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে প্রশাসনের প্রতি অনুরোধ জানান তিনি।- বাংলা নিউজ
মাদারীপুরে স্কুলছাত্রীকে অপহরণের অভিযোগ
০২,জুলাই,বৃহস্পতিবার,সাবরীন জেরীন,মাদারীপুর,নিউজ একাত্তর ডট কম: মাদারীপুর সদর উপজেলার খোয়াজপুর ইউনিয়নের রাজারচর গ্রামের অষ্টম শ্রেণীর এক স্কুল ছাত্রী অপহরণের ঘটনায় বৃহস্পতিবার (২ জুলাই) সকালে থানায় মোঃ আজিজুল ফকির (২২) সহ অজ্ঞাত ৪/৫ জনের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। স্কুল ছাত্রীর মা শাহিনুর বেগম জানান, মাদারীপুর সদর উপজেলার কুনিয়া বাজিতপুর ইউনিয়নের মাহমুদসী গ্রামের কুদ্দুস ফকির এর ছেলে মোঃ আজিজুল ফকির (২২) গত বুধবার ১ জুলাই রাত আনুমানিক ২ টা ৩০ ঘটিকার সময় আমার মেয়ের প্রকৃতির ডাকে সাড়া দেওয়ার লক্ষে ঘর হইতে বাহির হইয়া বসত ঘরের পুর্বকোনায় পৌছালে পূর্ব থেকে ওত পাতিয়া থাকা মোঃ আজিজুল ফকির (২২) সহ অজ্ঞাত ৪/৫ জন মুখ চাপিয়া ধরিয়া আমার মেয়েকে পাজা কোলে করিয়া আমাদের বাড়ির সামনের রাস্তায় পূর্ব হইতে অবস্থানরত একটি সিলভার কালারের মাইক্রো বাসে উঠাইয়া নিয়া যাইতে থাকে। ওই সময় আমার মেয়ে অনেক চেষ্টা করিয়া তাহার মুখ হইতে হাত সরাইয়া ডাক চিৎকার দিলে আমি আমার মেয়ের চিৎকার শুনিয়া ঘর হইতে বাহিরে বাহির হইয়া দেখতে পাই আমার মেয়েকে তাহাদের হাত হইতে বাচানোর আগেই তাহারা আমার মেয়েকে জোড়পুর্বক মাইক্রোবাসে উঠাইয়া অপহরন করিয়া উত্তর দিকে চলিয়া যায়। এই ঘটনায় বৃহস্পতিবার মাদারীপুর সদর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।মাদারীপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল ইসলাম বলেন,এবিষয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত পুর্বক আইনানুক ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে।

সারা দেশ পাতার আরো খবর