২০ ডিসেম্বর চট্টগ্রাম অটোরিকশা-অটোটেম্পো শ্রমিক ইউনিয়নের আহুত ধর্মঘট স্থগিত
১২ দফা দাবী আদায়ের লক্ষ্যে আগামী ২০ ডিসেম্বর চট্টগ্রাম অটোরিকশা-অটোটেম্পো শ্রমিক ইউনিয়ন (রেজিঃ নং চট্ট-১৪৪১) এর আহ্বানে আহুত সকাল সন্ধ্যা সিএনজি অটোরিকশা-অটোটেম্পো ধর্মঘট স্থগিত করা হয়েছে। সিএমপি কমিশনারের সম্মেলন কক্ষে অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (অর্থ প্রশাসন ট্রাফিক) মাসুদ উল হাসানের সভাপতিত্বে ধর্মঘট আহ্বানকারী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন চট্টগ্রাম আঞ্চলিক কমিটির নেতৃবৃন্দের সাথে বৈঠকে ধর্মঘট স্থগিত করা হয়। আলোচনা সভায় ১২ দফা দাবীর উল্লেখযোগ্য দাবী বাস্তবায়ন নিয়ে বিস্তারিতভাবে আলোচনা করেন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন পূর্বাঞ্চল কমিটির সভাপতি মৃণাল চৌধুরী। সভায় ১২ দফা দাবীর মধ্যে যে সমস্ত দাবী সিএমপি ট্রাফিক বিভাগের আওতাধীন, তাহা বাস্তবায়নের সিএমপি’র পক্ষ থেকে পদক্ষেপ গ্রহণ করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। অন্যান্যদাবী বিশেষ করে যৌক্তিকতার ভিত্তিতে জনস্বার্থে নতুন সিএনজি ট্যাক্সি রেজিষ্ট্রেশন প্রদান, শাহ আমানত সেতু, তৈলারদ্বীর সেতু, কালুরঘাট রেলওয়ের সেতু টোল আদয়ের বৈষম্য দূরীকরণ, জাতীয় ও আঞ্চলিক মহাসড়ক অযথা হয়রানি বন্ধ করা ও সিএনজি চালিত অটোরিকশার জন্য আলাদা লেইন এর বিষয়ে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় কর্তৃপক্ষকে ব্যবস্থা নেওয়ার ব্যাপারে সুপারিশ করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। সিএনজি চালকদের হয়রানিমূলক মামলা না দেওয়া ও লাইসেন্স জটিলতা দূরীকরণ সহ নো-পার্কিং মামলা দেওয়ার বিষয়ে সর্তকর্তার সহিত আইন প্রয়োগ করার জন্য সভায় অংশগ্রহনকারী ট্রাফিক বিভাগের কর্মকর্তাদের নির্দেশ প্রদান করা হয়। বাস্তবসম্মত দাবীদাওয়া পূরণে আন্তরিক ও সৌহার্দ্যপূর্ণ আলোচনার পরিপ্রেক্ষিতে ২০ ডিসেম্বর চট্টগ্রাম মহানগরী ও জেলায় সিএনজি অটোরিকশা ও অটোটেম্পো ধর্মঘট স্থগিত ঘোষণা করেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মোঃ হারুনুর রশিদ। আলোচনা বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন উপ পুলিশ কমিশনার (উত্তর) যানবাহন (পদোন্নতি প্রাপ্ত) অতিরিক্ত ডিআইজি সুযায়েতুল ইসলাম, উপ-পুলিশ কমিশনার (বন্দর) যানবাহন মো: আবু সায়েম, অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (উত্তর)যানবাহন ওয়াহিদুল হক চৌধুরী, অতিরিক্ত উপ পুলিশ কমিশনার (পশ্চিম)যানবাহন চত্রধর ত্রিপুরা, এসি ট্রাফিক বন্দর মোশারফ হোসেন, ট্রাফিক ইন্সপেক্টর প্রশাসন (উত্তর) মো: মহিউদ্দিন খান, ট্রাফিক ইন্সপেক্টর প্রশাসন (বন্দর) মো: আবুল কাশেম সহ পুলিশ প্রশাসনের কর্মকর্তাবৃন্দ। শ্রমিক প্রতিনিধিদের পক্ষে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন আঞ্চলিক কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ মুছা, সাধারণ সম্পাদক অলি আহমদ, চট্টগ্রাম অটোরিকশা অটোটেম্পো শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি হাজী মো: কামাল উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশিদ, সহ সম্পাদক মো: ওমর ফারুক, তাজুল ইসলাম, প্রমুখ। সড়ক পরিবহন শ্রমিক নেতৃবৃন্দ।
বিএনপি নেতা মোহাম্মদ আলীর জানাযা ও দাফন সম্পন্ন
চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সহ সভাপতি ও নগর ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলীর জানাযা সোমবার বাদ যোহর জমিয়াতুল ফালাহ মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। জানাযায় বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। তৎমধ্যে বিএনপির সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী এম মোরশেদ খান, সাবেক মন্ত্রী ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সভাপতি ডা: শাহাদাত হোসেন, দক্ষিণ জেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক মন্ত্রী আলহাজ্ব জাফরুল ইসলাম চৌধুরী, চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সিনি: সহ সভাপতি আবু সুফিয়ান, সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর সহ নগর বিএনপির সহ সভাপতি যুগ্ম সম্পাদক সহ বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী জানাযায় অংশ নেন। এর পূর্বে মরহুমের মরদেহ দলীয় নেতাকর্মীদের শ্রদ্ধা জানানোর জন্য দলীয় কার্যালয়ে রাখা হয়। জানাযা শেষে মরহুমকে গরীবুল্লাহ শাহ মাজারে দাফন করা হয়।
বোয়ালখালীতে শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ
মহান বিজয় দিবস ও বিশিষ্ট জনহিতৈষী ও দানবীর মরহুম হাজী নুরুল হক সওদাগরের ১ম মৃত্যু বাষির্কী উপলক্ষে গত ১৬ ডিসেম্বর রোজ শনিবার বোয়ালখালী চরখিজিরপুরে মরহুম হাজী নুরুল হক সওদাগর স্মৃতি সংসদের আয়োজনে ও তারুণ্য নির্ভর আত্মোন্নয়ন ও আত্মশুদ্ধি মুলক সংগঠন তাজকিয়ার সার্বিক সহযোগিতায় রক্তের গ্রুপ নির্ণয় ও শীতবস্ত্র বিতরণ'১৭ অনুষ্ঠিত হয়। বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজ সেবক হাজী মুহাম্মদ আলমগীরের সভাপতিত্বে তাজকিয়ার সাধারণ সম্পাদক আরেফিন রিয়াদের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক লিমিটেড এর এক্সিকিউটিভ চেয়ারম্যান, চট্টগ্রাম চেম্বার অব কমার্সের পরিচালক জনাব জাহেদুল হক। উদ্বোধক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্ট সমাজ সেবক ও ব্যবসায়ী হাজী ইউসুফ মিয়া, প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন তারুণ্যের দীপ্তময় দৃষ্টান্ত, প্রেষনার বাতিঘর, সাবেক সাউদার্ণ ইউনিভার্সিটির প্রভাষক, স্যামসাং বাংলাদেশ চট্টগ্রাম বিভাগীয় এরিয়া ম্যানেজার এম কপিল উদ্দিন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আমিন শরীফ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা আলহাজ্ব মীর হোসাইন, হাজী রুস্তম আলি, মাওলানা মুহাম্মদ ইদ্রিস, তরুণ সংগঠক নুর হোসাইন, ফরিদ আহমদ, মঞ্জুরুল ইসলাম, আহমদ সাফা, সেলিম উদ্দিন, জাফর আহমদ, শফিউল আযম, নাসির উদ্দিন, শহিদুল ইসলাম, আমির হোসেন, তাজকিয়ার অর্থ ও দপ্তর সম্পাদক সাজ্জাদ হোসাইন, তাজকিয়া কার্যকরি সদস্য সৈয়দ শরফ উদ্দিন রাসেল, তাজকিয়ান মনসুর আলি ফয়েজুল শেখ মহিউদ্দিন হাসান, নেজাম উদ্দিন, বেলাল হোসেন বাদশা, হান্নান, রিমন প্রমুখ। শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ ও রক্তের গ্রুপ নির্ণয় করা শেষে অনুষ্ঠান সমাপ্ত হয়।
মহিউদ্দিন চৌধুরীর কুলখানিতে পদদলিত হয়ে ১৪ জনের মৃত্যু। মৃতের সংখ্যা বাড়তে পাড়ে
বন্দরনগরীর আশকারদীঘির পাড়ে রিমা কমিউনিটি সেন্টারে আয়োজিত সদ্য প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা মহিউদ্দিন চৌধুরীর কুলখানিতে পদদলিত হয়ে ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন আরও অনেকে। সোমবার (১৮ ডিসেম্বর) দুপুরে এ দুর্ঘটনা ঘটে। কুলখানি উপলক্ষে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের জন্য রিমা কমিউনিটি সেন্টারে মেজবানের আয়োজন করা হয়। নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। এদিকে ঘটনার পরই রিমা কমিউনিটি সেন্টারে ছুটে যান চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের কমিশনার ইকবাল বাহার।এদের প্রত্যেকের পরিবারকে ১ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ হিসেবে দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে প্রশাসন। সাংবাদিকদের তিনি আরো বলেন, অতিরিক্ত মানুষের চাপে এ দুর্ঘটনা ঘটে। গেটটি ছোট হওয়ায় হুড়োহুড়ি করে অনেকেই এক সঙ্গে ভেতরে ঢুকছিলেন। এ সময় পড়ে গেলে পদদলিত হয়ে ১০ জন মারা যান। রিমা কমিউনিটি সেন্টারের পাশাপাশি নগরীর আরও ১৪টি কমিউনিটি সেন্টারে কুলখানি ও মেজবানের আয়োজন করা হয়। এগুলো হচ্ছে- কিং অব চিটাগাং,স্কয়ার, কিশলয়, সুইস পার্ক, স্মরণিকা, এন মোহাম্মদ, কে বি কনভেনশন হল, ভিআইপি ব্যাংকুয়েট, গোল্ডেন টাচ, স্মরণিকা, সাগরিকা কমিউনিটি সেন্টার। গত ১৪ ডিসেম্বর দিনগত রাত ৩টার দিকে বন্দরনগরীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন চট্টল বীর এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী। ১৯৯৪ সাল থেকে টানা তিনবার চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন মহিউদ্দিন চৌধুরী। জনপ্রিয় এই সাবেক মেয়রের বাড়ি চট্টগ্রামের ষোলশহরে।
নগরীর আরও ১৪টি কমিউনিটি সেন্টারে কুলখানি ও মেজবান অনুষ্ঠিত
নগরীর আরও ১৪টি কমিউনিটি সেন্টারে কুলখানি ও মেজবানের আয়োজন করা হয়। এগুলো হচ্ছে- কিং অব চিটাগাং,স্কয়ার, কিশলয়, সুইস পার্ক, স্মরণিকা, এন মোহাম্মদ, কে বি কনভেনশন হল, ভিআইপি ব্যাংকুয়েট, গোল্ডেন টাচ, স্মরণিকা, সাগরিকা কমিউনিটি সেন্টার। গত ১৪ ডিসেম্বর দিনগত রাত ৩টার দিকে বন্দরনগরীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন চট্টল বীর এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী। ১৯৯৪ সাল থেকে টানা তিনবার চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন মহিউদ্দিন চৌধুরী। জনপ্রিয় এই সাবেক মেয়রের বাড়ি চট্টগ্রামের ষোলশহরে।
বিজয় দিবসের আলোচনা সভায় মেয়র নাছির ও ব্যারিস্টার নওফেল
চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সিটি মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দীন বলেছেন, বাঙালির মুক্তিযুদ্ধের বিজয় অর্জিত হলেও এখনো অর্থনৈতিক মুক্তি অর্জিত হয়নি। বঙ্গবন্ধু দ্বিতীয় বিপ্লবের ডাক দিয়ে অর্থনৈতিক মুক্তির দিকনির্দেশনা দিয়েছিলেন। কিন্তু প্রতিক্রিয়াশীল শিবির তাঁকে সপরিবারে হত্যা করে বাংলাদেশে অর্থনৈতিক দুর্বৃত্তায়নের সূচনা করে। তিনি মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামীলীগের উদ্যোগে শহীদ মিনার চত্বরে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় এ কথা বলেন। তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশকে অর্থনৈতিক দুর্বৃত্তায়ন থেকে রক্ষা করেছেন। বাঙালির মুক্তিযুদ্ধের বিজয়কে অর্থবহ করার জন্য দেশে নজিরবিহীন উন্নয়ন কর্মকা- অব্যাহত রেখেছেন যার সুফল এদেশের সাধারণ মানুষ পেতে শুরু করেছে। প্রধান অতিথির ভাষণে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শের নেতাকর্মীদের অধিকতর ভাবে দেশ ও জাতির জন্য ত্যাগ স্বীকার করতে হবে। মনে রাখতে হবে ভোগবাদিতা ব্যক্তি স্বার্থকেই প্রাধান্য দেয়। রাজনীতিক হিসেবে এই মানুসিকতা থাকা আমাদের উচিত নয়। তিনি দলকে সংগঠিত করে আগামীদিনে আবারও নৌকার বিজয় নিশ্চিত করতে হবে। আমাদের মনে রাখতে হবে অর্থনৈতিক মুক্তিই মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের শক্তিকে বার বার বিজয়ী করবে। তিনি তাঁর প্রয়াত পিতা আলহাজ্ব এ.বি.এম মহিউদ্দিন চৌধুরী’র প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে বলেন, তিনি গণমানুষের রাজনীতি করেছেন। আমৃত্যু তিনি লোভ-লালসার উর্ধ্বে থেকেছেন। তাঁর জানাজায় অভূতপূর্বভাবে চট্টগ্রামের সর্বস্তরের শ্রেণী পেশার মানুষ যোগ দেয়ায় আমি অবিভূত হয়েছি। এ জন্য আমি জানাজায় শরিক হওয়ায় লাখো লাখো চট্টগ্রামবাসীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই। চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামীলীগের অন্যতম সহ-সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী’র সভাপতিত্বে সাংগঠনিক সম্পাদক নোমান আল মাহামুদের সঞ্চালনায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সহ-সভাপতি আলহাজ্ব খোরশেদ আলম সুজন, জহিরুল আলম দোভাষ, আলতাফ হোসেন বাচ্চু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব বদিউল আলম, উপ প্রচার সম্পাদক শহিদুল আলম, দপ্তর সম্পাদক জহরলাল হাজারী, নির্বাহী সদস্য ও কোতোয়ালী থানা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল মনসুর, পশ্চিম মাদারবাড়ী ওয়ার্ড সভাপতি আলহাজ্ব আলী বক্স, মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুল আজিম রনি। এছাড়া সভামঞ্চে উপস্থিত ছিলেন আলহাজ্ব নঈম উদ্দিন চৌধুরী, এড. ইব্রাহিম হোসেন চৌধুরী বাবুল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এম.এ. রশিদ, মহানগরের উপদেষ্টা আলহাজ্ব শফর আলী, শেখ মো: ইসহাক, সম্পাদকমন্ডলীর সদস্য শফিক আদনান, শফিকুল ইসলাম ফারুক, এড. ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, চন্দন ধর, মশিউর রহমান চৌধুরী, মো: হোসেন, হাজী জহুর আহমেদ, দেবাশীষ গুহ বুলবুল, আবদুল আহাদ, আবু তাহের, জোবায়দা নার্গিস খান, ডা: ফয়সাল ইকবাল চৌধুরী, নির্বাহী সদস্য নুরুল আবছার মিয়া, নজরুল ইসলাম বাহাদুর, গাজী শফিউল আজিম, বখতিয়ার উদ্দিন খান, সাইফুদ্দিন খালেদ বাহার, জাফর আলম চৌধুরী, মোহব্বত আলী খান, নেছার উদ্দিন মনজু, গৌরাঙ্গ চন্দ্র ঘোষ, মো: ইলিয়াছ, বিজয় কিষান চৌধুরী, থানা আওয়ামীলীগের আলহাজ্ব সাহাব উদ্দিন আহমেদ, সিদ্দিক আলম, আনসারুল হক, ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের মোজাহেরুল ইসলাম, আবুল হাশেম বাবুল, জামাল উদ্দিন, হাজী ইউনুছ কোম্পানী, ইকবাল চৌধুরী, আবদুল মান্নান, মো: ইসকান্দর মিয়া, আবদুর শুক্কুর ফারুকী, মোরশেদুল আলম, শেখ সরওয়ারদী, নিজাম উদ্দিন নিঝু, এরশাদ মামুন প্রমুখ। মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে দারুল ফজল মার্কেট দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন, জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে মাল্যদান এবং সকাল সাড়ে ৬টায় কেন্দ্রীয় শহীদ শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করা হয়।
নেতাকর্মী সৃষ্টির নিপুণ কারিগর ছিলেন মহিউদ্দিন চৌধুরী
বীর চট্টলার গণ মানুষের নেতা, চট্টগ্রামবাসীর প্রাণপ্রিয় অবিভাবক, অধিকার আদায়ের আপোষহীন নেতা, নগর আওয়ামী লীগের সংগ্রামী সভাপতি, বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব এ.বি.এম মহিউদ্দিন চৌধুরীর মৃত্যুতে লালদিঘী মাঠে জানাযায় লক্ষ লক্ষ মানুষের উপস্থিতিতে বুঝা যায় চট্টগ্রামবাসীর হৃদয়ের মণিকৌটায় ছিলেন এ.বি.এম মহিউদ্দিন চৌধুরী। ছাত্রলীগ, শ্রমিকলীগ, যুবলীগ, মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ, ৭৫‘এ বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিশোধে রাজনীতি, পরবর্তীতে নগর আওয়ামী লীগের দায়িত্বে এবং সর্বোপরি নাগরকি সেবায় চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের টানা তিনবার মেয়র নির্বাচিত। এসব দায়িত্বগুলো তিনি নিষ্ঠার সাথে পালন করেন। একটি উদাহরণস্বরূপ নগরীতে পোর্ট কানেক্টিং রোড, আগ্রাবাদ এক্সসেস রোড, জাকির হোসেন রোড এ তিনটি রাস্তা প্রশস্থকরণে নগরীতে ৬০% যানজটমুক্ত শহর হিসেবে পরিচিতি লাভ করে। তিনি শিক্ষা, স্বাস্থ্যে অভূতপূর্ব সাফল্যে নগরবসী আলহাজ্ব এ.বি.এম মহিউদ্দিন চৌধুরীকে চিরদিন স্মরণ করবে। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত নগরবাসীর খেদমতে খাজা গরীবউল্লাহ শাহ (রহ.) মাজার এবং মসজিদ আধুনিকায়ন, চকবাজার অলি খাঁ বেগ মসজিদ আধুনিকায়ন, চশমা হিল শেখ ফরিদ জামে মসজিদ আধুনিকায়ন, মেয়র হজ্ব কাফেলায় হাজ্বী সাহেবদের খেদমতে উল্লেখযোগ ভূমিকা রাখেন। রাজনৈতিক এর পাশাপাশি তিনি সমাজসেবায় সাফল্যে বর্তমানে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা উজ্জীবিত প্রিয় নেতার পথ অনুসরণ করে আজ অনেক নেতাকর্মী সমাজসেবায় অবদান রাখছেন। মহিউদ্দিন চৌধুরীর কর্মপ্রন্থাগুলো সাফল্যের শিক্ষা নিতে পারলে নেতাকর্মীরা সমাজ বা রাষ্ট্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। বঙ্গবন্ধুর স্নেহভাজন হিসেবে মহিউদ্দিন চৌধুরী অত্যন্ত সফলতার সাথে রণাঙ্গনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা, ১৯৮১ সালে বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনাকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী হিসেবে ঘোষণার পর থেকে দেশী-বিদেশী রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রকারীদের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে শেখ হাসিনাকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দায়িত্বে পালনে মহিউদ্দিন চৌধুরীর ভূমিকা ছিল প্রশংসনীয়। আজ নগরীর কাজির দেউড়ীস্থ সমাদর কমিউনিটি সেন্টারে নগর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক আলহাজ্ব এ.বি.এম মহিউদ্দিন চৌধুরীর আস্থার প্রতীক, বিশিষ্ট কলামিষ্ট, সমাজসেবক ফরিদ মাহমুদের নির্দেশনায় আলহাজ্ব এ.বি.এম মহিউদ্দিন চৌধুরীর রুহের মাগফেরাত কামনায় পবিত্র খতমে কোরআন ও মিলাদ মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত মন্তব্য করেন। সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন চট্টগ্রাম মহানগর নগর যুবলীগের সদস্য শেখ নাছির আহমেদ। উপস্থিত ছিলেন নগর যুবলীগ সদস্য নেছার আহমদ, এস এম সাঈদ সুমন, ওয়াহিদ হাসান, মহানগর যুবলীগ নেতা আশরাফুল গণি, বখতেয়ার ফারুক, নগর যুবলীগ সদস্য দেলোয়ার হোসেন দেলু, হাজী মো: ইব্রাহিম, কাজী রাজেশ ইমরান, হোসেন সরওয়ার্দী, মুক্তিযোদ্ধার সন্তান সরওয়ার আলম মনি, সাহেদ মুরাদ সাকু, ১৮নং ওয়ার্ড যুবলীগ আহ্বায়ক মো: সেলিম উদ্দিন, যুগ্ম আহ্বায়ক কামরুল ইসলাম, ২১নং জামালখান ওয়ার্ড যুগ্ম আহ্বায়ক আবদুল হান্নান, মহানগর যুবলীগ নেতা জহির উদ্দিন সুমন, শেখ বশির আহমেদ, এম এ হাসেম বাবু, আলহাজ্ব জাবেদ হোসেন, দুলাল আবরাহ, নজরুল ইসলাম, হারুন অর রশিদ আলম, রাশেদ চৌধুরী, মো: দেলোয়ার, রহিমদাদ খান বাদশা, ইমরান আলী রাজু, জাহিদুল ইসলাম সুমন, আশরাফ উদ্দিন টিটু, ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সদস্য নাজমুস সাকিব, নগর ছাত্রলীগ সহ সভাপতি নাজমুল হাসান রুমি, ছাত্রনেতা শহিদুল ইসলম শহিদ, যুবনেতা ইয়াছিন ভূইয়া, মো: সালাউদ্দিন, মঞ্জুরুল আলম রিমু, আমিনুল ইসলাম আজাদ, মো: আলমগীর, মো: নুরুজ্জামান, আবু বক্কর সিদ্দিকী পলাশ, মাকসুদ জামিল মারুফ, শেখ মহিউদ্দিন, এস এম তানভীর হাসান, রিমন পাটান, আশরাফুল আলম সিদ্দিকী, আবদুল মুকিত, ওমর ফারুক ফয়সাল, বন্ধন সেন, আশেক ইলাহী , মো: রকি, মো: রুবেল, এনামুল হক। বাদ মাগরিব হইতে ১১ জন হাফেজগণের মাধ্যমে পবিত্র খতমে কোরআন এবং মিলাদ মাহফিল ও মুনাজাত পরিচালনা করেন জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলী মাদ্রাসার মেধাবী ছাত্র ঝাউতলা রেলওয়ে জামে মসজিদের পেশ ইমাম মাওলানা আলহাজ্ব আবুল হাসান।
বোয়ালখালীতে আশেকানে আউলিয়া মহাসম্মেলন অনুষ্ঠিত
বোয়ালখালী উপজেলার খিতাপচর রহমানিয়া দরবার শরীফের উদ্যোগে পবিত্র ঈদে মিল্লাদুন্নবী (সা.) ও আশেকানে আউলিয়া মহা সম্মেলন, খিতাপচর হযরত ইমাম হোসাইন (রা.) রহমানিয়া ইসলামিয়া হেফজখানা এবং এতিম খানার সালনা জলসা অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার বাদে এশা খিতাপচর রহমানিয়া দরবার শরীফের সাজ্জাদানশীন শাহ্ ছুফি সৈয়দ শাহ্ নজরুল ইসলাম খিতাপচরী আল্ হাছানী আল্ মাইজভান্ডারী (ম.) এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মাহফিলে প্রধান অতিথি ছিলেন গোমদন্ডী সিনিয়র মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মুফতি জসিম উদ্দিন আলকাদেরী। প্রধান বক্তা ছিলেন জমিয়াতুল ফালাহ জাতীয় মসজিদের সহকারি পেশ ইমাম মাওলানা আহমদ রেজা আলকাদেরী। সৈয়দ নুরুল আবচারের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, পীরজাদা মাওলানা মুফতি সৈয়দ আসহাব উদ্দিন খিতাপচরী আল্ হাছানী ওয়াল হোছাইনী, মো. শাহেদুল ইসলাম আলকাদেরী, মৌলানা আবদুল খালেক, মৌলানা ইলিয়াছ আমেরী, মৌলানা সোহরাব, মৌলানা শোয়াইব, মৌলানা সাখাওয়াত হোসেন গরিবী, মৌলানা ফরিদ উদ্দিন রুহানী। বক্তারা বলেন, যুগে যুগে মানব কল্যাণে আউলিয়া কেরামগণ কাজ করে যাচ্ছেন। নবী করিম (সা.)র নির্দেশিত পথই হচ্ছে আউলিয়া কেরামগণের পথ। এর আগে সকালে পবিত্র মিল্লাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে এক বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা উপজেলার গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে।
চট্টল বীর আলহাজ্ব এ.বি.এম. মহিউদ্দিন চৌধুরীর কবরে চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগের শ্রদ্ধাঞ্জলি
চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি, সাবেক মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব এ.বি.এম. মহিউদ্দিন চৌধুরীর কবরে চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন ও মরহুমের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে জিয়ারত এবং মুনাজাত করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মুহাম্মদ বদিউল আলম, চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক মো: মহিউদ্দিন বাচ্চু, কেন্দ্রীয় যুবলীগের উপ-সমবায় বিষয়ক সম্পাদক আবদুল্লাহ আল মামুন চৌধুরী, চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক দেলোয়ার হোসেন খোকা, ফরিদ মাহমুদ, মাহবুবুল হক সুমন, চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগের সদস্য এড. আনোয়ার হোসেন আজাদ, আকবর হোসেন, সাইফুল ইসলাম, একরাম হোসেন, মাহাবুব আলম আজাদ, আবু সাঈদ জন, হেলাল উদ্দিন, নুরুল আলম, আসহাব রসুল জাহেদ, সোহেল রানা, শেখ নাছির আহমেদ, ওয়াসিম উদ্দিন চৌধুরী, নাজমুল হাসান সাইফুল, সনত বড়য়া, হাজী ইব্রাহিম, আলমগীর আলম, আজিজ উদ্দিন, ইকবাল ইকরাম শামীম, সরওয়ার খান, কাজী রাজেশ ইমরান, কফিল উদ্দিন, হোসেন সরওয়ারদী প্রমুখ।

সারা দেশ পাতার আরো খবর