রাবিতে আন্তঃকলেজ অ্যাথলেটিক্স প্রতিযোগিতা শুরু
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) ৪০তম আন্তঃকলেজ অ্যাথলেটিক্স প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে। বুধবার সকাল ৯টায় বিশ্ববিদ্যালয় স্টেডিয়ামে বেলুন-ফেস্টুন ও কবুতর উড়িয়ে দুদিনব্যাপী এ প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর এম আব্দুস সোবহান। বাংলাদেশ বেতারের উপস্থাপক মো. আব্দুর রোকনের সঞ্চালনায় এবং অ্যাথলেটিকস্ ও অ্যাকুয়াটিকস্ সাবকমিটির সভাপতি, বিজনেস স্টাডিজ অনুষদের অধিকর্তা প্রফেসর শিবলী সাদিকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপ-উপাচার্য প্রফেসর আনন্দ কুমার সাহা। বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃতি এ্যাথলেট শিরিন ও মাহফুজ মশালসহ মাঠ প্রদক্ষিণ ও অগ্নি প্রজ্বলন করেন। উল্লেখ্য, দুদিনব্যাপী এই প্রতিযোগিতায় ৪১টি ইভিন্টে এবং প্রায় ২৬০ জন খেলোয়াড় অংশ নিচ্ছে। প্রেস বিজ্ঞপ্তি
৬দফা দাবিতে বড়পুকুরিয়া কয়লাখনির ক্ষতিগ্রস্ত গ্রামবাসীদের মানববন্ধন
দিনাজপুরের ফুলবাড়ীর পার্শ্ববর্তী বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি এলাকার ক্ষতিগ্রস্ত গ্রামবাসীরা ৬দফা দাবিতে গতকাল বুধবার দুই ঘন্টা ব্যাপী খনি এলাকায় মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে। আগামী ৪৮ঘন্টার মধ্যে দাবি পূরণ না হলে কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলার আল্টিমেটাম দেওয়া হয়েছে মানববন্ধন থেকে। কয়লাখনি এলাকার ক্ষতিগ্রস্ত ১৩গ্রাম সমন্বয়ক কমিটির উদ্যোগে সকাল ১০টা থেকে বেলা ১২টা পর্যন্ত দুই ঘন্টাব্যাপী ফুলবাড়ি-বড়পুকুরিয়া সড়কের দুই পার্শ্বে সহ¯্রাধিক নারী-পুরুষ ও যুবক-যুবতিরা ৬দফা দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে। ৬দফা দাবির মধ্যে রয়েছে ভূগর্ভ থেকে কয়লা উত্তোলনের ফলে ফাটল ধরা ঘরবাড়ির উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ প্রদান, ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলো থেকে যোগ্যতা অনুসারে কয়লাখনিতে চাকরির ব্যবস্থা করা, চাকরির ক্ষেত্রে ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য কোঠা প্রথা চালু করা, ফুলবাড়ী থেকে খয়েরপুকুরহাট ও চৌহাটি হয়ে ধূলা উদাল পর্যন্ত রাস্তাটি চলাচলের উপযোগী করা, বড়পুকুরিয়া বাজার সংলগ্ন রাস্তার বিকল্প রাস্তা নির্মাণ করা, মসজিদ, কবরস্থান, ঈদগাহ মাঠসহ পূর্বে অধিগ্রহণকৃত ৬২৭ একর জমির সকল বকেয়া পরিশোধ করা, ২০০৭ সালের মে সরকার কর্তৃক নির্দেশিত পেট্রোবাংলা কয়লাখনি ও ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাবাসীর মধ্যে স্বাক্ষরিত ১০দফা চুক্তি বাস্তবায়ন করা এবং আন্দোলনকারি নেতাকর্মী নামে দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহার করা। মানববন্ধন কর্মসূচি চলাকালে দাবির সমর্থনে বক্তব্য রাখেন ক্ষতিগ্রস্ত ১৩গ্রাম সমন্বয় কমিটির আহবায়ক মশিউর রহমান বুলবুল, বীর মুক্তিযোদ্ধা নূরল ইসলাম, গোলাম মোস্তফা, আনোয়ারুল ইসলাম, লুৎফর রহমান, জাহিদুল ইসলাম রতন, আলী হোসেন, গোলজার হোসেন পান্না প্রমূখ। ক্ষতিগ্রস্ত ১৩গ্রাম সমন্বয় কমিটির আহবায়ক মশিউর রহমান বলেন, খনিতে ভূগর্ভ থেকে কয়লা উত্তোলনের ফলে ভূকম্পন ও ভূমি ধ্বসের কারণে খনি সংলগ্ন মোবারকপুর, বৈগ্রাম, কাশিয়াডাঙ্গা, রসুলপুর, কালুপাড়া, মহেশপুর, পাতরাপাড়া, বাঁশপুকুর, বৈদ্যনাথপুর, কাজিপাড়া, হামিদপুর, চৌহাটি ও জব্বরপাড়া গ্রামের প্রায় প্রতিটি ঘরবাড়িতে ফাটলসহ মাটি ফেটে ও দেবে গেছে। এতে ব্যাপক ক্ষতির মধ্যে পরেছেন গ্রামবাসী। ঘরবাড়িতে ফাটলের কারণে আতংক আর উৎকন্ঠার মধ্যে পরিবার পরিজন নিয়ে বসবাস করতে হচ্ছে গ্রামবাসিকে। ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতির বিষয় নিয়ে ক্ষতি কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন নিবেদন করা হলেও তারা বিষয়টি কোন কর্ণপাত করছেন না। ফলে আন্দোলন সংগ্রাম ছাড়া দাবি আদায়ের বিকল্প পথ নেই এলাকাবাসী। তবে দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন সংগ্রাম চালিয়ে যাবেন গ্রামবাসী।
আগৈলঝাড়ায় কারিতাসের সুফল-২ প্রকল্পের আমন ধান কর্তন ও মাঠ দিবস উদযাপিত
বরিশালের আগৈলঝাড়ায় আমন ধান কর্তন ও মাঠ দিবস উদযাপিত হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সকাল ১০টায় উপজেলার বাকাল ইউনিয়নের নওপাড়া কিশোর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে কারিতাস এনজিওর স্থায়ীত্ব খাদ্য ও জীবিকায়ন নিরাপত্তা (সুফল-২) প্রকল্পের আমন ধান কর্তন ও মাঠ দিবস অনুষ্ঠানে কারিতাস বরিশাল অঞ্চল পরিচালক ফ্রান্সিস বেপারীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ভাইস চেয়ারম্যান জসীম সরদার। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা দোলন চন্দ্র রায়, আন্তর্জাতিক ধান গবেষণা ইন্সটিটিউট কর্মকর্তা ওয়াসিক ফয়সাল, সিআরএস প্রকল্পের টেকনিক্যাল এডভাইজার ড. কমল, কারিতাসের সিনিয়র প্রোগ্রাম অফিসার সঞ্জিত কুমার মন্ডল। আমন ধান কর্তন ও মাঠ দিবসের উপর বক্তব্য রাখেন নওপাড়া কিশোর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শোভা রানী মন্ডল, নওপাড়া গ্রামের কৃষক শংকর রায়, কৃষাণী পুতুল রায় প্রমুখ। পরে অতিথিবৃন্দ সুফল-২ প্রকল্পের আওতায় আমন ধান কর্তন উদ্বোধন ও মাড়াই পরিদর্শন করেন।Press Release
ঝিনাইদহে অটিজম বিষয়ক সচেতনতা ও ক্রীড়া আনন্দ উৎসব
ঝিনাইদহে অটিজম বিষয়ক সচেতনতা ও ক্রীড়া আনন্দ উৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার বিকেলে শহরের ফজর আলী স্কুল এন্ড কলেজ মাঠে এ উৎসবের আয়োজন করে জেলা ক্রীড়া অফিস। ক্রীড়া পরিদপ্তরের বার্ষিক ক্রীড়া কর্মসূচীর আওতায় অনুষ্ঠিত এ উৎসবে ফজর আলী স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ জয়া রানী চন্দর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আছাদুজ্জামান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা আয়ুব হোসেন, মুসা মিয়া বুদ্ধি বিকাশ (অটিস্টিক) বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আমিনুর রহমান টুকু, সুইড বাংলাদেশ জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক ডা: মুন্সী রেজা সেকেন্দার। অনুষ্ঠানের স্বাগত বক্তব্য রাখেন জেলা ক্রীড়া অফিসার সুমন কুমার মিত্র। আলোচনা সভার শুরুতে ৩০ জন প্রতিবন্ধি শিশু গান, নাচ পরিবেশন করে। পরে শিশুদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।
বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে ফুলবাড়ীতে হানাদার মুক্ত দিবস পালিত
প্লাবন শুভ, ফুলবাড়ী ,দিনাজপুর :দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে গতকাল সোমবার ফুলবাড়ী হানাদার মুক্ত দিবস পালন করা হয়েছে। স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধাদের উদ্যোগে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার এমপির নেতৃত্বে উপজেলা পরিষদ চত্বর থেকে ফুলবাড়ী মুক্ত দিবসের এক বর্ণাঢ্য বিজয় শোভাযাত্রা পৌর শহরে বের করা হয়। শোভাযাত্রা শেষে স্থানীয় সুজাপুর মডেল উচ্চ বিদ্যালয়স্থ শহীদ মিনার চত্বরে আয়োজিত মুক্তিযোদ্ধাদের পুনর্মিলনী ও আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন সাবেক উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বীর মুক্তি যোদ্ধা মো. মোকছেদ আলী শাহ। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার এমপি। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আব্দুস সালাম চৌধুরী, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মো. হায়দার আলী শাহ, সাধারণ সম্পাদক মো. মুশফিকুর রহমান বাবুল, যূগ্ম-সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মো. মাসুদুর রহমান মাসুদ, জেলা পরিষদ সদস্য আলহাজ্ব মো. কামরুজ্জামান শাহ, থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ নাসিম হাবীব, বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে সাবেক ডেপুটি কমান্ডার মো. এছার উদ্দিন, মো. মোসাদ্দেক আলী শাহ, মো. আব্দুস সামাদ, সাবেক বিডিআর কর্মকর্তা মো. মাহাবুব রহমান, মো. সাইফুল হক, মো. আবুল কাশেম, মো. তোজাম্মেল হক, মো. সাইফুল ইসলাম প্রমূখ। শেষে উপজেলার বীর মুক্তিযোদ্ধাদেরকে সংবর্ধনা জ্ঞাপনসহ সম্মাননা স্মারক হিসেবে ক্রেস্ট তুলে দেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার এমপি। অনুষ্ঠানে উপজেলার বীর মুক্তিযোদ্ধারা স্বপরিবারে এবং শহীদ ও মৃত্যুবরণকারি মুক্তিযোদ্ধাদের স্ত্রী ও সন্তানরাসহ বিভিন্ন শ্রেণি ও পেশার সুধিজন উপস্থিত ছিলেন। প্রধান অতিথি’র বক্তব্যে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার এমপি বলেন, ৭৫ এর ১৫ আগস্টে জাতির পিতাকে হত্যার পর জাতির পিতার হত্যাকারি ও এর সুবিধাভোগীরা মুক্তিযুদ্ধকে স্বীকার করলেও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে, জয়বাংলাকে ও আওয়ামীলীগকে স্বীকার না করে স্বাধীনতার ইতিহাস বিকৃত করার হীনষড়যন্ত্রে লিপ্ত ছিল। যারা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে, জয়বাংলাকে ও আওয়ামীলীগকে স্বীকার করে না তারা কোনদিনও মুক্তিযোদ্ধা কিংবা মুক্তিযুদ্ধের শক্তি হতে পারে না। জাতির পিতাকে ক্রমাগত অশ্রদ্ধা এ জাতিকে অধঃপতনে নিয়ে গেছে। এসবগুলো করেছে ৭৫এর পরবর্তী সরকারগুলো। ইতিহাস বদলে ফেলার জন্য জিয়াকে স্বাধীনতার ঘোষক বানানোর অপচেষ্টা চালানো হয়েছে। কিন্তু সবকিছুই ব্যর্থ হয়ে গেছে। ইতিহাস সত্য হয়ে বের হয়ে গেছে। জাতির পিতার ৭মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ আজ আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত হয়েছে। কেউ বাজাক আর না বাজাক গোটা বিশ্বজুড়ে এখন জাতির পিতার সেই কালজীয় ভাষণ বাজবে। আগামীর জাতীয় নির্বাচনে জাতির পিতার নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার মাধ্যমে এগিয়ে চলা বাংলাদেশকে সামনে দিকে এগিয়ে নিতে সকল মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি আহবান জানান। প্রেস বিজ্ঞপ্তি
আগৈলঝাড়ায় আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী দিবস পালিত
অপূর্ব লাল সরকার ,আগৈলঝাড়া ,বরিশাল : সবার জন্য টেকসই ও সমৃদ্ধ সমাজ এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে বরিশালের আগৈলঝাড়ায় আন্তর্জাতিক প্রতিবন্ধী দিবস উপলক্ষে ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল রোববার সকালে উপজেলার গৈলা মডেল ইউনিয়ন পরিষদ হলরুমে কারিতাস বরিশাল অঞ্চল এসডিডিবি প্রকল্পের আয়োজনে প্রতিবন্ধী দিবস উপলক্ষে ইউনিয়ন পরিষদ চত্ত্বরে শেষ হয়ে পরিষদ হলরুমে ইউনিয়ন চেয়ারম্যান সোয়েব ইমতিয়াজ লিমনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশ্রাফ আহমেদ রাসেল, সমাজসেবা কর্মকর্তা সুশান্ত বালা, কারিতাসের প্রশাসনিক কর্মকর্তা খোকন চন্দ্র দে, আগৈলঝাড়া এনজিও সমন্বয় পরিষদের সাধারণ সম্পাদক কাজল দাশগুপ্ত, মাঠ কর্মকর্তা পিয়ুস গনজালভেস, রনজিত বেপারী, শ্যামল কান্তি হালদার, ইউপি সদস্য জামাল হোসেন, পবিত্র রানী বাড়ৈ প্রমুখ।
চট্টগ্রামে অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট শুরু
পুলিশের হয়রানি বন্ধসহ ১১ দফা দাবিতে চট্টগ্রামে অনির্দিষ্টকালের পরিবহন ধর্মঘট শুরু করেছে মেট্রোপলিটন গণপরিবহন বাস মালিক সংগ্রাম পরিষদ। রবিবার সকাল ৬টা থেকে শুরু হওয়া এ ধর্মঘটের কারণে চরম দুর্ভোগে পড়েছে যাত্রীরা। গণপরিবহন না পেয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে তাদের। অবিলম্বে পুলিশের হয়রানি বন্ধের দাবি জানিয়ে গণপরিবহন মালিক-শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি বেলায়েত হোসেন বেলাল জানান, গণপরিবহনের সাতটি সংগঠনের মধ্যে ছয়টি এ আন্দোলনের সঙ্গে আছে। লুসাই নামে একটি পরিবহন সমিতি আমাদের আন্দোলনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার চেষ্টা করছে। লুসাই পরিবহন সংগঠনকে অবৈধ দাবি করে পুলিশ তাদের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহারের চেষ্টা চলছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি। সংগ্রাম পরিষদের দাবির মধ্যে আরো রয়েছে, থানায় মাসোয়ারার নামে গাড়ি আটকের প্রতিবাদে, অবৈধ টমটম ও অযান্ত্রিক যানবাহন, ইঞ্জিনচালিত রিকশা করিমন-নছিমন বন্ধ করা, গণপরিবহন শ্রমিকদের ওপর পুলিশের নির্যাতন বন্ধ করা, গণপরিবহন চালকের লাইসেন্সের শর্ত শিথিল করা, যানজট নিরসনে ট্রাফিক ব্যবস্থা উন্নত করা, শহর এলাকায় গণপরিবহনের টার্মিনাল ও নির্ধারিত পার্কিং স্থাপন করা, বিআরটিতে দালালের উৎপাত ও যানবাহন চালক-মালিকদের হয়রানি বন্ধ করা।
শুধু শিক্ষার হার বৃদ্ধি করা নয় আন্তর্জাতিক বিশ্বের সাথে সমন্বয় রেখে শিক্ষার মান উন্নয়ন করতে হবে
নর্দান ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস এন্ড টেকনোলজি খুলনা কর্তৃক প্রথম বারের মত খুলনাতে আয়োজিত দু’দিন (৩ ও ৪ ডিসেম্বর, ২০১৭) ব্যাপী আর্ন্তজাতিক শিক্ষা মেলা ২০১৭ এর উদ্বোধন কালে তিনি এ কথা বলেন। আজ দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের অডিটোরিয়ামে জমকালো এক উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি আরো বলেন এ মেলার মাধ্যামে খুলনা সহ দক্ষিন-পশ্চিমাঞ্চলের শিক্ষার্থীরা উচ্চ শিক্ষার জন্য বিভিন্ন আর্ন্তজাতিক বিশ্ববিদ্যালয়ে সাথে পরিচিত হতে পারবে। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার এ.এইচ.এম. মনজুর মোরশেদ, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক প্রফেসর মো: ইব্রাহীম, কম্পিউটার সাইন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের বিভাগীয় প্রধান রবিউল ইসলাম, ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান জনাব এস.এম. মনিরুল ইসলাম, সহ বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা। মেলায় বাংলাদেশী শিক্ষার্থীদের জন্য ন্যানটং কলেজ অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি (চীন), ইউনিভাসিটি অব পাহাং (মালয়েশিয়া) এবং ইউনিভার্সিটি অব হার্টফোর্ডশায়ার (ইউকে) দিচ্ছে ১০০% সরকারী স্কলারশিপ সহ অনার্স, মাস্টার্স, কলেজ ডিপ্লোমা ও এসোসিয়েট ডিগ্রি। এছাড়াও ৩ বছরের ডিগ্রি সম্পন্ন হওয়ার পরে, গ্র্যাজুয়েটসরা বিশেষ করে চীনে পাবেন কাজের নিশ্চিয়তা ও নাগরিকত্বের সুবিধা।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
ঝিনাইদহের বিভিন্ন গ্রামের গাছিদের খেজুর গাছ কাটা শুরু
ঝিনাইদহের জেলার বিভিন্ন গ্রামের গাছিরা এখন খেজুর গাছ কাটতে শুরু করেছেন। ঝিনাইদহের আসাননগর, বোড়াই ও রাঙ্গিয়ারপোতা, কালীগঞ্জের মহেশ্বরচান্দা, কেয়াবাগান, কোলা, নিয়ামতপুরসহ বিভিন্ন গ্রাম ঘুরলে এখন খেজুর গাছ ছাঁটার দৃশ্য চোখে পড়ে। আগাম গুড় ও পাটালি উঠলে লাভও বেশ ভালোই হয়। সেই আশাতেই চলতি বছরও গুড় তৈরির দিকে ঝুঁকছে গাছিরা। সদর উপজেলার সাধুহাটি ইউনিয়নের আশাননগন গ্রামের কৃষক সামছুল হক জানান, তিনি অনেক বছর থেকেই খেজুর গাছ থেকে রস সংগ্রহ করছেন। এ রস থেকে তিনি গুড় ও পাটালি তৈরি করে কালীগঞ্জ ও ঢাকায় নিয়ে বিক্রি করে থাকেন। আগাম গুড় ও পাটালির দাম ভাল পাওয়া যায়। গত বছর তিনি ১০ কেজি ওজনের এক ঠিলা গুড় ৭০০ থেকে এক হাজার টাকায় বিক্রি করেছেন। একই গ্রামের খেজুর গাছি সামেদ জানান, চলতি বছর তিনি ৫০টি খেজুর গাছ কেটেছেন। আশা করছেন আগামী এক সপ্তাহ পর থেকেই প্রতিটি গাছ থেকে রস পাওয়া যাবে। গত বছর তিনি খেজুরের গুড় ও পাটালি বিক্রি করে প্রায় ৫৫ হাজার টাকা লাভ করেন। চলতি বছর আরও বেশি দামে গুড় বিক্রির আশা করছেন। ঝিনাইদহে আনুমানিক তিন লাখ খেজুর গাছ রয়েছে। এর মধ্যে সদরের ১৭টি ইউনিয়নেই রয়েছে ৫০ হাজারের বেশি। সদর ইউনিয়নের কৃষকরা শীত মৌসুমে এসব গাছ থেকে প্রায় পাঁচ লাখ কেজি গুড় উৎপাদন করে থাকেন। একই এলাকার খেজুর গাছি আঃ রহিম জানান, গত বছর ১০ কেজি ওজনের এক কলস গুড় উৎপাদন করতে খরচ হয়েছিল ৪০০ টাকা। আর বিক্রি করেছেন ৭০০ টাকায়। তবে জ্বালানির দামসহ আনুসাঙ্গিক ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় চলতি বছর খরচ আরও কিছু বেশি হতে পারে। এরই মধ্যে অনেক কৃষক গুড় তৈরির সরঞ্জাম এমনকি জ্বালানিও সংগ্রহ করে ফেলেছেন। আব্দুল মিয়া জানান, খেজুর রস থেকে গুড় তৈরির কাজ শুরু করতে প্রাথমিক সরঞ্জাম কলস ও জ্বালানি সংগ্রহ হয়ে গেছে। সরজমিনে গিয়ে সদর উপজেলার সাধুহাটি ইউনিয়নের আসাননগর, বোড়াই ও রাঙ্গিয়ারপোতা, গ্রাম ও তার আশপাশের কয়েকটি গ্রাম ঘুরে দেখা গেছে, সকাল থেকেই ব্যস্ত গাছিরা দা, ঠুঙি, দড়ি ও মাটির কলস (ভাড়) নিয়ে ছুটে চলেছেন নির্দিষ্ট গন্তব্যে। গাছিদের প্রক্রিয়াজাত করা খেজুরের গুড়, পাটালি বা রস দিয়েই কয়েকদিন পরেই মুখরোচক পিঠা, পুলি, পায়েস তৈরির ধুম পড়বে গ্রামের গৃহস্থ বাড়িতে। শুধু কি তাই? খেজুরের গুড় বা রস দিয়ে তৈরি মুড়ি, চিড়ার মোয়া লেপমুড়ি দেওয়া শীতের সকালে খাওয়ার মজা তো উপভোগ করেন আবাল বৃদ্ধ বনিতা সবাই। ঝিনাইদহের বন কর্মকর্তা জানান, বৃহত্তর যশোর জীব বৈচিত্র সংরক্ষণ প্রকল্পের আওতায় ১১ বছর আগে ঝিনাইদহে প্রায় লক্ষাধিক সৌদি খেজুর গাছের চারা রোপন করা হয়। এখন সেসব গাছ থেকেও রস উৎপাদন করছেন খেজুর। ইদানিং অন্যান্য চাষের পাশাপাশি কৃষকরা এবং স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরাও ব্যক্তিগত উদ্যোগে খেজুর গাছের কিছু চারা রোপন করেছেন।

সারা দেশ পাতার আরো খবর