২১ আগষ্ট গ্রেনেড হামলায় নিহতদের স্মরণে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভা
২১ আগস্ট জননেত্রী শেখ হাসিনার সমাবেশে গ্রেনেড হামলায় শহীদের স্মরণে চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের উদ্যোগে মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান আহম্মেদ ইমুর সভাপত্বিতে ও সাধারণ সম্পাদক জাকারিয়া দস্তগীরের সঞ্চালয়নে আজ দুপুরে দারুল ফজল মার্কেটনস্থ দলীয় কার্যালয়ে দোয়া মাহফিল ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এইসময় উপস্থিত ছিলেন মহানগর ছাত্রলীগের সহ সভাপতি নাজমুল হাসান রুমি, রাহুল বড়ুয়া রুমেল, মো: শাহীন মোল্লা, সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য মো: আবু তারেক রনি, মো: শাহরিয়ার হাসান, মুনীর চৌধুরী, সদস্য মাহমুদুর রশিদ বাবু, আরাফাত রুবেল, মো: জাকারিয়া হাবিব জাবির, ফাহাদ আনিছ, চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগ নেতা বিকাশ দাশ, সিটি কলেজ ছাত্রলীগ নেতা আশীষ সরকার, ইসলামিয়া কলেজ ছাত্রলীগ নেতা আশিষ দাশ, আরাফাত জাহেদ অনিক, এম ই এস কলেজ ছাত্রলীগ নেতা তোফায়েল আহম্মেদ মামুন, শরিফুল আলম জুয়েল, আবদুল আল নোমান, রাকিব হায়দার, সোহেল রানা, মাহফুজ হোসেন প্রমুখ। প্রেস বিজ্ঞপ্তি
রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে শেল্টার নির্মাণে আইআইআরও'র সাথে আল্লামা ফজলুল্লাহ ফাউন্ডেশনের চুক্ত
সৌদি আরবেরর জেদ্দাস্থ আন্তর্জাতিক দাতা সংস্থা ইন্টারন্যাশনাল ইসলামিক রিলিফ অর্গানাইজেশন (আইআইআরও) এর অর্থায়নে উখিয়া রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরে দেশের শীর্ষ স্থানীয় এনজিও সংস্থা আল্লামা ফজলুল্লাহ ফাউন্ডেশন ৫৭০টি শেল্টার নির্মাণ করবে। এ বিষয়ে আইআইআরও'র সাথে আল্লামা ফজলুল্লাহ ফাউন্ডেশনের সাথে গত ১৯ আগস্ট এক সমঝোতা চুক্তি সম্পাদিত হয়। আল্লামা ফজলুল্লাহ ফাউন্ডেশনের পক্ষে চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান, চট্টগ্রাম-১৫ সাতকানিয়া লোহাগাড়া আসনের সংসদ সদস্য প্রফেসর ড.আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভী। আইআইআরও'র পক্ষে চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন সংস্থার ঢাকাস্থ কান্ট্রি ডিরেক্টর শেখ গাজী মস্তুর আল উসাইনী। কক্সবাজার ডিভাইন রিসোর্টে উপরোক্ত চুক্তি সম্পাদিত হয়। রোহিঙ্গা শিবিরে ৫৭০টি শেল্টার নির্মাণ ছাড়াও থাকবে দু'টি মসজিদ, ওয়াটার প্ল্যানার ও স্বাস্থ্য সম্মত টয়লেট। উখিয়া বালুখালী রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরের ডব্লিউ-এইট এবং ডব্লিউ-টেন এর রোহিঙ্গা রিফিউজি রিলিফ কমিশন (আরআরআরসি) ক্যাম্পের ইনচার্জ ওবাইদুল্লাহ কর্তৃক স্থান নির্ধারন করার পরপরই উপরোক্ত প্রকল্পের নির্মাণ কাজ শুরু হবে। চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মাঝে উপস্থিত ছিলেন আইআইআরও'র জেদ্দাস্থ প্রজেক্ট ডাইরেক্টর ওমর মাহদী, আল্লামা ফজলুল্লাহ ফাউন্ডেশনের কার্য নির্বাহী সদস্য মোহাম্মদ ছালামত উল্লাহ, মোয়াজ্জেম হোসেন চৌধুরী শাওন, প্রজেক্ট ইঞ্জিনিয়ার শাহ এমরান,আব্দুর রহিম,মোহাম্মদ ওয়ায়েজ প্রমুখ। চুক্তি স্বাক্ষর শেষে আইআইআরও প্রতিনিধি এবং আল্লামা আল্লামা ফজলুল্লাহ প্রধান ও প্রতিনিধিবৃন্দ কক্সবাজারস্থ রোহিঙ্গা রিফিউজি রিলিফ কমিশনার আবুল কালামের সাথে সৌজন্য সাক্ষাতে মিলিত হন।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে মাদক ব্যবসায়ী সাজিয়ে আটকের চেষ্টা পুলিশকে আটকে বিক্ষোভ
অনলাইন ডেস্ক: জামালপুরের সরিষাবাড়ীতে গতকাল শনিবার রাতে পৌর এলাকার কোনাবাড়ী গ্রামের হাবুর মোড়ে পুলিশ মাদকের আসামি ধরতে গিয়ে স্থানীয় জনতার হাতে লাঞ্ছিত হয়েছে। পরে একটি ঘরে তাদেরকে অবরুদ্ধ করে রাখে জনতা। শনিবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে সোর্সের সংবাদে সরিষাবাড়ী থানা পুলিশ পৌর এলাকার কোনাবাড়ী গ্রামের হাবুর মোড়ে যায় মাদকের আসামি ধরতে। এ সময় স্থানীয় চাল ব্যবসায়ী মৃত রিয়াজ উদ্দিনের পুত্র বাবলু (৪০), সামছুল মিয়ার পুত্র মোস্তফা (২৫), মৃত মজিবর রহমানের পুত্র বাবলু (৩৫) ও চা-স্টলের কর্মচারী বেলাল হোসেনের পুত্র মামুনকে (১৪) মাদক ব্যবসায়ী সন্দেহে আটক করে তাদের হাতে হ্যান্ডক্যাপ পড়ায়। এ ঘটনায় এলাকার লোকজন প্রতিবাদী হয়ে পুলিশের সাথে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে পুলিশ আটককৃতদের ছেড়ে দিতে বাধ্য হয়। পুলিশ অবশেষে আত্মরক্ষায় ওই মোড়ের বাবুলের দোকান ঘরে ঢুকলে বিক্ষোভকারীরা ওই ঘরে তালা লাগিয়ে অবরুদ্ধ করে রাখে। পরে শর্ত সাপেক্ষে প্রায় ৩০ মিনিট পর তাদেরকে ছেড়ে দেয়া হয়। ওই রাতেই বিক্ষুদ্ধ জনতা রাস্তায় নেমে পুলিশের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল করেছে। এ ব্যাপারে পৌর ৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র মহাম্মদ আলী জানান, ‘পুলিশের হাতে আটক ৪ ব্যক্তিই আমার নিজস্ব গ্রামের প্রতিবেশী। এরা অত্যন্ত ভালো মানুষ। পুলিশ আটক ব্যক্তিদের পকেটে ইয়াবা ট্যাবলেট ঢুকিয়ে দিয়ে তাদেরকে অন্যায়ভাবে আটক করেছে।’ ৬নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুস ছালাম বলেন, ‘পুলিশ প্রতিনিয়ত কোনাবাড়ী গ্রামে ডুকে লোকজনদের ধরে এনে থানায় আটকে রেখে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়। প্রতিবাদ করলেই তাদের বিরুদ্ধে দেয়া হয় মাদকের মামলা।’ কোনাবাড়ী বাইতুন নুর জামে মসজিদের সভাপতি আলহাজ সামছুল হক জানান, পুলিশের হাতে আটক বাবলু একজন স্থানীয় চাল ব্যবসায়ী। বাকী দু’জন কৃষক ও একজন চায়ের দোকানের কর্মচারী। আমার জানামতে এরা সবাই ভালো মানুষ। হাবুর মোড়ের মনোহারী দোকানদার আল আমীন ও আমজাদ হোসেন জানান, ‘পুলিশ শনিবার রাতে চারজনকে অন্যায়ভাবে আটক করেছে। এলাকার লোকজন পুলিশের কাছে সুপারিশ করে কোনো কাজ না হওয়ায় তারা প্রতিবাদী হয়ে উঠেছে।’ এ ব্যাপারে সরিষাবাড়ী থানার ওসি মাজেদুর রহমানের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।
দেওদীঘি স্কুলের পুনর্মিলনীর প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত
চট্টগ্রামের সাতকানিয়ার ঐতিহ্যবাহী দেওদীঘি কে.এম. হাই স্কুলের ৬৪ বছর পূর্তি উদ্যাপন উপলক্ষে আগামী ৬ অক্টোবর অনুষ্ঠিতব্য পুনর্মিলনীর প্রস্তুতি সভা গত ২৪ আগস্ট অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম-১৫ (সাতকানিয়া-লোহাগাড়া) আসনের সংসদ সদস্য প্রফেসর ড. আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভী। স্কুল পরিচালনা কমিটি'র সভাপতি ও মাদার্শা ইউনিয়নের চেয়ারমান আ.ন.ম. সেলিম চৌধুরীর সভাপতিত্বে স্কুল মিলনায়তনে আয়োজিত প্রস্তুতি সভায় অন্যান্যের মাঝে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগ এর প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক নুরুল আবছার চৌধুরী, এওচিয়া ইউপি চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম মানিক, সাতকানিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মোহাম্মদ নেজাম উদ্দিন, এডভোকেট আমজাদ হোসেন চৌধুরী, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মো: আবু সুফিয়ান কামাল, মহানগর প্রভাবশালী আওয়ামীলীগ নেতা জাফর আহমদ (সিটি), বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মোস্তফা ইকবাল চৌধুরী মুকুল, পুনর্মিলনী কমিটির সদস্য মুরিদুল আলম চৌধুরী, এডভোকেট এরশাদুর রহমান রিটু, দিদারুল হাসান, তথ্য প্রযুক্তিবিদ মোহাম্মদ নাছির উদ্দীন, প্রকৌশলী হাছান আলী, ব্যাংকার নিজাম উদ্দিন, চুয়েটের সহকারী রেজিস্ট্রার ফজলুর রহমান, সাংবাদিক শংকর দাশ, স্কুল পরিচালনা পরিষদের সদস্য আবুল ফয়েজ প্রমুখ। সভায় সংসদ সদস্য অধ্যাপক ড. আবু রেজা মো: নিজামুদ্দীন নদভী বলেন, পুনর্মিলনী শেখড় ও আত্মপরিচয় সন্ধানের পাশাপাশি সম্প্রীতি বাড়ায়, আনন্দের পরশ বুলিয়ে দেয়"। তিনি ঐতিহ্যবাহী দেওদীঘি স্কুলের পুনর্মিলনী সফল করতে সংশ্লিষ্ট সকলকে নিজ নিজ অবস্থান থেকে ভূমিকা পালনের আহবান জানান। প্রস্তুতি সভা শেষে পরে ৬টি স্মারক ব্রক্ষরোপনের মাধ্যমে পুনর্মিলনী উদ্যাপন অভিমুখে যাত্রার সূচনা করা হয় হয়।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
ফের কাঁঠালবাড়ি-শিমুলিয়া রুটে ফেরি বন্ধ
অনলাইন ডেস্ক: ৮ ঘণ্টা পর পরীক্ষামূলক ফেরি চলাচল শুরু হলেও ফের তা বন্ধ হয়ে গেছে। নাব্যতা সংকটের কারণে পদ্মার কাঁঠালবাড়ি-শিমুলিয়া নৌরুটে এ সংকট তৈরি হয়েছে। এতে মাওয়াঘাটের দুপারে শ' শ' যাত্রীবাহী পরিবহন আটকে আছে। জানা গেছে, নাব্যতা সংকটের কারণে কাঁঠালবাড়ি-শিমুলিয়া নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ রয়েছে। এতে দুর্ভোগে পড়েছেন দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলার যাত্রী ও বাস চালকরা। তবে লঞ্চ ও স্পিডবোট চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। বিআইডব্লিউটিএর কাঁঠালবাড়ি ঘাটের ব্যবস্থাপক সালাম হোসেন জানান, নদীতে ড্রেজিং কাজ চলমান থাকায় এই নৌরুটে শনিবার রাত ১১টা থেকে রোববার সকাল ৭টা পর্যন্ত সব ধরনের ফেরি চলাচল বন্ধ রাখা হয়। দীর্ঘ সময় ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় ঘাটের উভয় পাড়ে আটকা পড়েছে ৮ শতাধিক যানবাহন। এদিকে, রোববার সকালে পরীক্ষামূলকভাবে কোনো যানবাহন ছাড়া শুধু ১ হাজারের বেশি যাত্রী নিয়ে কাঁঠালবাড়ি ফেরিঘাট থেকে শিমুলিয়ার উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়া 'কিশোরী' নামের একটি ফেরি লৌহজং টার্নিং পয়েন্টে ডুবোচরে আটকা পড়ে। এক ঘণ্টারও বেশি সময় চেষ্টা করে ডুবোচরের হাত থেকে রক্ষা পেলেও ফেরিটির ইঞ্জিন বিকল হয়ে যায়। এরপর মাঝ পদ্মায় ফেরিটিকে নোঙর করে রাখা হয়েছে। ফেরিটিকে উদ্ধারে টাগবোট চেষ্টা করছে বলে জানিয়েছেন ঘাট কর্তৃপক্ষ।
বঙ্গবন্ধুর শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে উত্তর কাট্টলী আওয়ামী লীগের আলোচনা সভা
জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব রহমানের শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ১০নং উত্তর কাট্টলী ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের উদ্যোগে এক আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। উত্তর কাট্টলী আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক প্যানেল মেয়র নিছার উদ্দিন আহম্মদ মঞ্জুর সভাপতিত্বে যুগ্ম আহ্বায়ক মো. ইকবাল চৌধুরীর সঞ্চালনায় এতে প্রধান অতিথি ছিলেন মহানগর আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আলহাজ্ব মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী। বিশেষ অতিথি ছিলেন মহানগর আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি নঈম উদ্দিন চৌধুরী, উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য মো. সফর আলী, শেখ মোহাম্মদ ইসহাক, আকবরশাহ থানা আওয়ামীলীগের সভাপতি সুলতান আহম্মদ চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক কাজী আলতাফ হোসেন। বক্তব্য রাখেন আওয়ামীলীগ নেতা আবদুল মন্নান সওদাগর, আলহাজ্ব সফিউল আলম চৌধুরী, লোকমান আলী, কাউন্সিলর আবিদা আজাদ, হাবিবুর রহমান, জহির উদ্দিন মো. বাবর, মো. আবুল কালাম আবু, জসিম উদ্দিন চৌধুরী, এডভোকেট আলী আশরাফ চৌধুরী, সাহিদুল আলম বাদল, কায়সার চৌধুরী, মাস্টার কামাল উদ্দিন, আবু সুফিয়ান, ছাইদুর রহমান পুতুল, হারুনুর রশিদ, আবদুল মন্নান, আবু তাহের চৌধুরী, তাজুল ইসলাম, মোসলেহ উদ্দিন বাবলু, মোঃ নুরুল আলম, যুবলীগ ও ছাত্রলীগ নেতা ছগিরুল আলম, রোকন উদ্দিন চৌধুরী, ফয়সল বিন নিজাম, চিন্ময় দত্ত, মোজাম্মেল হক রিয়াদ। প্রধান অতিথি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী বলেন– জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যে স্বপ্ন নিয়ে বাংলাদেশকে স্বাধীন করেছিলেন তারই কন্যা আওয়ামীলীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে দিনরাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন। সেই জন্য বাংলাদেশ আজ বিশ্বের দরবারে উন্নয়নের রোল মডেল। তিনি আগামী নির্বাচনে নৌকার প্রতীকের বিজয় সুনিশ্চিত করতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার আহ্বান জানান।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
আইভি রহমান স্মরণে দক্ষিণ জেলা মহিলা আ.লীগের দোয়া মাহফিল
চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাবেক মহিলা বিষয়ক সম্পাদিকা প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের সহধর্মিণী শহীদ আইভি রহমানের ১৪তম মৃত্যুবার্ষিকী স্মরণে খতমে কোরআন, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল গতকাল শুক্রবার বিকেল ৩টায় আন্দরকিল্লাস্থ দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক সাংসদ চেমন আরা তৈয়ব, সাধারণ সম্পাদিকা শামীমা হারুন লুবনা, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক মো. আবু জাফর, দক্ষিণ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সহ– সভাপতি দীপিকা বড়ুয়া, জান্নাত আরা মঞ্জু, শ্রমবিষয়ক সম্পাদিকা জীবন আরা, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদিকা নিলুফার জাহান বেবী, কৃষি বিষয়ক সম্পাদিকা তামান্না সুলতানা, দপ্তর সম্পাদিকা সঞ্চিতা বড়ুয়া, শিক্ষা ও সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদিকা অধ্যাপিকা ফাহমিদা জাহেদ, রুনু দাশ, যুব মহিলা লীগ নেত্রী এড. শ্যামলী চৌধুরী প্রমুখ। দোয়া, মিলাদ মাহফিল ও মোনাজাত পরিচালনা করেন লালদিঘি শাহে জামে মসজিদের পেশ ইমাম মাওলানা আবু নাছের আল কাদেরী। এ সময় সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে বক্তারা বলেন, সে দিন (২১ আগস্ট) বিএনপি–জামাত সরকারের মদদপুষ্টে ও সমর্থনে আওয়ামী লীগের সভানেত্রী বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ দলের শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দকে হত্যা করার উদ্দেশে আওয়ামী লীগের শান্তিপূর্ণ সমাবেশে এ হামলা চালানো হয়েছিল। আল্লাহর অশেষ রহমত: সেদিন শেখ হাসিনা বেঁচে গিয়েছিলেন নেতা কর্মীদের মানব প্রাচীরের বিনিময়ে। সেদিন আইভী রহমানসহ অসংখ্যা নেতা কর্মী জীবন দিয়েছিলেন। নেতৃবৃন্দ আইভি রহমানসহ নিহত সকল শহীদের আত্মার মাগফেরাত কামনা এবং বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দীর্ঘায়ু কামনা করেন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি
কলঙ্কের তিলক মুছে ফেলতে হবে: নওফেল
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেছেন, জাতি যুদ্ধাপরাধী ও বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনীদের ফাঁসির দড়িতে ঝুলতে দেখেছে। এবার ২১ আগস্টের গ্রেনেড হামলার মূল পরিকল্পনাকারী ও ঘাতকদের ফাঁসির দড়িতে ঝুলতে দেখতে চায়। তিনি আরো বলেন, আজ দিবালোকের মত সত্য দুর্নীতির মামলায় দন্ডিত ও পলাতক আসামী তারেক রহমানই ষড়যন্ত্র ও লুণ্ঠনের আস্তানা হাওয়া ভবনে বসেই বঙ্গবন্ধু তনয়া শেখ হাসিনাকে হত্যার উদ্দেশ্যে গ্রেনেড হামলার পরিকল্পনা করেছিলেন। এই গণহত্যাকান্ডের অপরাধের শাস্তি মৃত্যুদণ্ড ছাড়া আর কিছুই হতে পারে না। আগামী সেপ্টেম্বর মাসেই আদালতের রায়ে জাতি আরেকবার পাপ মোচনের সুযোগ পাবে। মনে রাখতে হবে– তারেক রহমান জাতির কলঙ্কের সবচেয়ে বড় তিলক, তা মুছে ফেলতে হবে। গতকাল ২৪ আগস্ট জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রাণনাশের উদ্দেশ্যে গ্রেনেড হামলার ১৩তম বার্ষিকী উপলক্ষে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের উদ্যোগে সংগঠনের দারুল ফজল মার্কেটস্থ কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় তিনি একথা বলেন। তিনি বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা পেছনের দিকে ঠেলে দিতে যারা ষড়যন্ত্র করছে তারা বার বার আগস্ট মাসকেই বেছে নেয়। এবারও একই ষড়যন্ত্র হয়েছে। কোমলমতি শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক আন্দোলনকে পূঁজি করে তথাকথিত সুজন সম্পাদক বদিউল আলমের বাসায় একজন বিদেশি রাষ্ট্রদূতকে দাওয়াত দিয়ে সরকার উৎখাতের জন্য বৈঠক করা হয়। এ ষড়যন্ত্র ফাঁস হয়েছে। ষড়যন্ত্রকারীদের মুখোশ উন্মোচিত হয়েছে। তাদের পরিকল্পনা ছিলো– সরকার উৎখাত করে ১৫ আগস্ট তারেক জিয়াকে বীরের বেশে দেশে ফিরিয়ে এনে উৎসব করার। তিনি আরো বলেন, এধরনের ষড়যন্ত্রের একমাত্র জবাব হলো আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে শেখ হাসিনার নৌকার বিজয় নিশ্চিত করা। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা নির্মাণের স্বপ্ন পূরণে আরেক ধাপ এগিয়ে যাওয়া। সভাপতির বক্তব্যে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী বলেন, বঙ্গবন্ধুর পরিবার বাঙালি জাতিসত্তার পবিত্র আমানত। আমাদের জীবন বাজি রেখে এ আমানত রক্ষা করতে হবে। তিনি আরো বলেন, চক্রান্তকারীরা বসে নেই। তারা নির্বাচনকে বানচাল করার জন্য ধ্বংসের খেলায় মেতে উঠতে পারে। তাই সময় থাকতে পাল্টা আঘাতের প্রস্তুতি নিতে হবে। ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক এম. রেজাউল করিম বলেন– উপমহাদেশে আওয়ামী লীগই একমাত্র গণসংগঠন, যা একটি বিশাল মহীরুহ। ভয়ংকর ঝড়–ঝাপটায় কখনো শিকড়চ্যুত হয়নি। যারা শিকড় উপড়ে ফেলতে চেয়েছে তারাই ধরাশারী হয়ে ইতিহাসের আঁস্তাকুড়ে নিক্ষিপ্ত হয়েছে। চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক শফিকুল ইসলাম ফারুকের সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন মোহরা ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক নাজিম উদ্দিন চৌধুরী, মো: জসিম উদ্দিন। উপস্থিত ছিলেন মহানগর আওয়ামীলীগের সহ–সভাপতি আলহাজ্ব নঈম উদ্দিন চৌধুরী, এড. সুনীল কুমার সরকার, আলতাফ হোসেন চৌধুরী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব বদিউল আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক নোমান আল মাহমুদ, শফিক আদনান, চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, সম্পাদকমন্ডলীর সদস্য হাসান মাহমুদ চৌধুরী শমসের, এড. ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, চন্দন ধর, মশিউর রহমান চৌধুরী, শহীদুল আলম, জহরলাল হাজারী, নির্বাহী সদস্য এম.এ. জাফর, গোলাম মোহাম্মদ চৌধুরী, আলহাজ্ব পেয়ার মোহাম্মদ, নজরুল ইসলাম বাহাদুর, গৌরাঙ্গ চন্দ্র ঘোষ, এড. কামাল উদ্দিন আহমদ, সাইফুদ্দিন খালেদ বাহার, অমল মিত্র, থানা আওয়ামীলীগের হাজী সিদ্দিক আলম, হারুনুর রশিদ, আলহাজ্ব ফিরোজ আহমদ, আলহাজ্ব জাহাঙ্গীর চৌধুরী, মো: আবু তাহের, হাজী শফিকুল ইসলাম, মো: ইলিয়াছ মিয়া, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের মোসলেম উদ্দিন, হাজী মোহাম্মদ ইউনুস, আবু মোহাম্মদ আবছার উদ্দিন চৌধুরী, ইসকান্দর মিয়া, সৈয়দ মো: জাকারিয়া, শামসুল আলম, আশফাক আহমেদ, এস.এম. আলমগীর, সলিম উল্লাহ বাচ্চু, কায়সার মালিক, আলী নেওয়াজ, নুর মোহাম্মদ, আবুল কাশেম, হাবিবুর রহমান চৌধুরী, আকবর আলী আকাশ প্রমুখ। এতে ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় নিহতদের স্মরণে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল পরিচালনা করেন কর্ণফুলী জামে মসজিদের খতিব মাওলানা আবদুর রহমান। প্রেস বিঞ্জপ্তি।

সারা দেশ পাতার আরো খবর