শীতে উত্তরে জনজীবন অচল দ্রুতই শীত পরিস্থিতির উন্নতির কোন সুখবর নেই।
দ্রুতই শীত পরিস্থিতির উন্নতির কোন সুখবর নেই। আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, বর্তমানের এই অবস্থা আরও কয়েকদিন বিরাজ করতে পারে। ধীরে ধীরে যেমন তাপমাত্রা বাড়ছে, শীতের মাত্রাও ধীরে ধীরেই কমে আসবে। বর্তমানে সারাদেশের ওপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। যশোরে টানা তিনদিন তাপমাত্রা সর্বনিম্নে অবস্থান করছে। শনিবার এ জেলায় সর্বনিম্ন ৭ ডিগ্রী সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। টানা শৈত্যপ্রবাহে উত্তরের মানুষ কার্যত ঘরবন্দী। জানুয়ারি শেষ নাগাদ আবারও শৈত্যপ্রবাহের আভাস দিয়েছেন তারা। গত ৪ জানুয়ারি থেকে দেশের ওপর দিয়ে বয়ে যাচ্ছে শৈত্যপ্রবাহ। তা তীব্র আকার ধারণ করে পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় অতীতের সব রেকর্ড ভেঙ্গে সর্বনিম্ন ২.৬ ডিগ্রীতে নেমে আসে। এরপর থেকে ধীরে ধীরে তাপমাত্রা বাড়তে থাকলেও শীত পরিস্থিতির কোন উন্নতি হয়নি। খোদ রাজধানীবাসীও এবার শীতে কাবু। আর উত্তরাঞ্চলের শীত উপস্থিতি হয়েছে ভয়াবহ দুর্যোগ হিসেবে। এক সপ্তাহ ধরে শীতে তারা কার্যত ঘরবন্দী হয়ে পড়ছে। বিশেষ প্রয়োজন এবং কাজের সন্ধ্যানে ঘর থেকে বের হতে পারছে না। কোন কোন এলাকা সূর্যের মুখটা দেখা পাওয়া যাচ্ছে না। কুয়াশায় ঢেকে থাকছে জনজীবন। দিনেরবেলায়ও কিছুই দেখা যাচ্ছে না। যানবাহনের জন্য বেশি সমস্যা হয়ে দেখা দিয়েছে শীতের সঙ্গে পড়া ঘন কুয়াশা। এই অবস্থায় আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, দ্রুত শীত পরিস্থিতির উন্নতির কোন সম্ভাবনা নেই। আবহাওয়াবিদ ওমর ফারুক জানান, আস্তে আস্তে তাপমাত্রা বাড়ছে। এভাবে আস্তে আস্তেই শীত পরিস্থিতির উন্নতি হবে। বর্তমানের অবস্থা আরও কয়েকদিন বিরাজ করবে। তাপমাত্রা আরও বাড়লেও শীত তখন কমে আসবে। তবে তিনি উল্লেখ করেন, জানুয়ারি শেষ নাগাদ আবারও শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যেতে পারে সারাদেশে। তখন শীত আবার বাড়তে পারে। তবে জানুয়ারি মাসজুড়েই শীতের আবহ থাকবে বলে জানান। আবহাওয়া অফিসের পর্যবেক্ষণে উল্লেখ করা হয়েছে মহাদেশীয় উচ্চচাপ বলয়ের বর্ধিতাংশ পশ্চিমবঙ্গ ও তৎসংলগ্ন এলাকা পর্যন্ত বিস্তৃত। মৌসুমের স্বাভাবিক লঘুচাপ দক্ষিণ বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করছে। অস্থায়ীভাবে আংশিক মেঘলা আকাশসহ সারাদেশের আবহাওয়া শুষ্ক থাকতে পারে। মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত সারাদেশে মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা পড়তে পারে। কোথাও কোথাও তা দুপুর পর্যন্ত অব্যাহত থাকতে পারে। তারা জানায় টাঙ্গাইল, ফরিদপুর, মাদারীপুর, গোপালগঞ্জ, যশোর, কুষ্টিয়া, সাতক্ষীরা, চুয়াডাঙ্গা, বরিশাল, সীতাকু- ও রঙ্গামাটি অঞ্চলসহ রংপুর, রাজশাহী ও ময়মনসিংহ বিভাগের ওপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। অব্যাহত শৈত্যপ্রবাহ দেশের কোন কোন এলাকা থেকে প্রশমিত হতে পারে। সারাদেশে রাতের তাপমাত্রা (১-২) ডিগ্রী সেঃ বৃদ্ধি পেতে পারে এবং দিনের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। এদিকে সারাদেশের ওপর দিয়ে বয়ে চলা শৈত্যপ্রবাহ অব্যাহত থাকায় বিভিন্ন অঞ্চলে জনজীবন স্থবির হয়ে পড়েছে। উত্তরের জনগণ এখন শীতে জবুথবু। ৫ থেকে ৭ ডিগ্রী তাপমাত্রার মধ্যে ১০দিন ধরেই জীবনযাপন করতে হচ্ছে তাদের। শীতের কারণে স্বাভাবিক কর্মকা- ব্যাহত হচ্ছে। হাড় কাঁপনো শীত মানুষকে অনেকটা ঘরবন্দী করে ফেলেছে। শৈত্যপ্রবাহ ও কুয়াশার চাদরে কাটছে তাদের জীবন। গরম কাপড়েও যেন শীত মানতে চাচ্ছে না। প্রাণীকুলের অবস্থা আরও খারাপ হচ্ছে দিন দিন। শীতে অভাবী মানুষের করুণ দশা যেন বেড়েই চলেছে। রাজশাহী# এবার প্রলম্বিত শীতের কবলে পড়েছে উত্তরের রাজশাহী অঞ্চল। শীতকালে সাধারণত কয়েকদিন শৈত্যপ্রবাহ স্থায়ী হলেও এবারের চিত্র পুরো পাল্টে গেছে। এক সপ্তাহের বেশি সময় ধরে শৈত্যপ্রবাহ স্থায়ী রয়েছে এ অঞ্চলে। ফলে সীমাহীন কষ্টের মধ্যে রয়েছে এ অঞ্চলের মানুষ। টানা শীতে প্রভাব পড়েছে কৃষিক্ষেত্রেও। দীর্ঘমেয়াদী শৈত্যপ্রবাহে এরইমধ্যে নষ্ট হয়ে গেছে লাখ লাখ টাকার পান। বোরোর বীজতলায় দেখা দিয়েছে কোল্ড ইনজুরি। এমন টানা শীত এর আগে পার করেনি এ অঞ্চলের মানুষ। টানা শীতে পুরো এলাকা যেন পরিণত হয়েছে হিমাগারে। যশোর# দশদিন ধরে শৈত্যপ্রবাহে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে যশোরের জনজীবন। কনকনে শীতে জবুথবু হয়ে পড়েছেন সাধারণ মানুষসহ প্রাণিকুল। প্রতিদিনই ৫ থেকে ৭ ডিগ্রী সেলসিয়াসের মধ্যে থাকছে তাপমাত্রা। শনিবার সকালেও যশোরে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়। এদিন সকালে যশোরে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৭ ডিগ্রী সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়। এ নিয়ে এই মৌসুমে তিনদিন দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা যশোরে রেকর্ড করা হলো। প্রচ- শীতের কারণে মানুষজনের স্বাভাবিক কর্মকা- ব্যাহত হচ্ছে। মোটা জ্যাকেট, মাফলারে ঢেকে মানুষজনকে জবুথবু হয়ে পথ চলতে দেখা যায়। হাড় কাঁপানো শীতে ঘর থেকে বের হননি অনেকে। খুব সকালে ক্ষেতে প্রতিদিনের মতো চাষির দেখা মেলেনি। বেশি দুর্ভোগে পড়তে হয়েছে দিন আনা দিন খাওয়া মানুষকে। কুড়িগ্রাম# টানা শৈত্যপ্রবাহে স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ব্যাহত হয়ে পড়েছে। অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার তাপমাত্রা বেশি নিম্নগামী ও শৈত্যপ্রবাহ দীর্ঘস্থায়ী হওয়ায় দুর্ভোগ বেড়েই চলেছে হতদরিদ্র ও ছিন্নমূল মানুষের। কনকনে ঠান্ডা আর হিমেল হাওয়ায় সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েছে শিশু ও বৃদ্ধরা। বাড়ছে শীত জনিত রোগের প্রকোপ। বিশেষ করে ডায়রিয়া, নিউমোনিয়া, হার্টের রোগীর সংখ্যা বাড়ছে হাসপাতালগুলোতে। দুপুরের পর সামান্য সময়ের জন্য সূর্যের দেখা মিললেও উত্তাপ ছড়াতে না পাড়ায় দিনেরবেলায়ও তাপমাত্রা বাড়ছে না। এ অবস্থায় সন্ধ্যার পর থেকে বৃষ্টির ফোঁটার মতো টপ টপ করে পড়ছে কুশায়া। কুয়াশার পানিতে ভিজে যাচ্ছে রাস্তাঘাট। কৃষি শ্রমিকরা কাজে যেতে না পারায় বিলম্বিত হচ্ছে চাষাবাদ। খাদ্য সঙ্কটে পড়ার উপক্রম হয়েছে শ্রমিকদেরও। চরম দুর্ভোগে রয়েছেন গত বন্যায় ঘরবাড়ি হারানো নদ-নদীর তীরবর্তী মানুষ। নীলফামারী# কনকনে ঠান্ডার কমতি নেই। শৈত্যপ্রবাহ ও কুয়াশার চাদরে কাটছে উত্তরের নীলফামারীসহ পার্শ¦বর্তী এলাকার জনজীবনের দিনরাত। গরম কাপড়ও যেন শীত নিবারণে ফেল মেরেছে। শুকনো পাতা, খড়কুটো জ্বালিয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা করে যাচ্ছে মানুষজন। পথঘাটে কমেছে চলাফেরা। পারদ যত নামছে ততই গুটিয়ে যাচ্ছে স্বাভাবিক জীবনযাপন। শনিবার ছিল প্রচ- ঘন কুয়াশা। শীত মহাসঙ্কটে ফেলে দিয়েছে সকলকে। ক্ষেতখামারে কাজ থমকে গেছে। হাত-পা জমে যাওয়ার মতো এমন শীত অচল করে রেখেছে জনজীবন। দিনরাত শৈত্যপ্রবাহ ও কুয়াশার চাদরে ঢাকা থাকছে প্রকৃতি। মাঝে দুপুরের পর একআধটু রোদের দেখা মিললেও তা নিমিষেই হারিয়ে যাচ্ছে। ১০দিন ধরে শৈত্যপ্রবাহ ছক্কা হাঁকিয়ে পারদ নামিয়ে কনকনে শীত এনেছে। সঙ্গে কুয়াশা ঘন মেঘলা আবহাওয়ায় ঠান্ডা বাতাস বইতে থাকায় কাঁপুনি বাড়তে থাকে। প্রচ- শীতে শহরের ভবঘুরেদের অবস্থা আরও শোচনীয় হয়েছে। দিনাজপুর # দিনাজপুরের রামসাগর জাতীয় উদ্যানের চিড়িয়াখানায় শীতের কারণে ৪৭টি চিত্রা হরিণের জীবনে নেমে এসেছে চরম দুর্ভোগ। জরুরী ভিত্তিতে ব্যবস্থা নেয়া না হলে হরিণগুলোর মৃত্যুও হতে পারে। এছাড়া ১২টি মা হরিণ যে কোন সময় নতুন শাবকের জন্ম দিতে পারে। সৈয়দপুর # চলমান তাপমাত্রা কিছুটা বাড়লেও শীতে আড়ষ্টতা কাটছে না সৈয়দপুরের প্রাণিকুলের। শীতের হিমেল হাওয়ায় আর ঘন কুয়াশায় বস্ত্রাভাবে কাহিল হয়ে পড়েছে অভাবী মানুষজন। ইরি-বোরো বীজতলা পড়েছে কোল্ড ইনজুরিতে। বাড়ছে শীত জনিত রোগ। সকল বয়সীই আক্রান্ত হচ্ছে শীত জনিত রোগে। তবে গতকালের বাড়ন্ত তাপমাত্রায় কিছুটা স্বস্তি ফিরেছে। উপজেলার প্রায় ২০ হাজার দরিদ্র মানুষের মধ্যে বস্ত্রের জন্য হাহাকার বিরাজ করছে।
এমজেএফ মানবাধিকার সংস্থা এর পক্ষ থেকে অসহায় শীতার্তের মাঝে কম্বল বিতরণ
অদ্য ১৩ জানুয়ারি আকবর শাহ্ থানার কর্ণেলহাটস্থ হাসেম নাজের মা ও শিশু হাসপাতালে মানবাধিকার সংস্থা মিলেনিয়াম হিউম্যান রাইটস এন্ড জার্নালিস্ট ফাউন্ডেশন (এমজেএফ) চট্টগ্রাম এর পক্ষ থেকে কম্বল বিতরণ করা হয়। উক্ত অনুষ্ঠান এমজেএফ মানবাধিকার সংস্থার চট্টগ্রাম জেলা কমিটির চেয়ারম্যান মোঃ লোকমান আলির সভাপতিত্বে ও এমজেএফ এর জেলা কমিটির সাংগঠনিক সচিব জুয়েল বড়ুয়ার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অথিতি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ১০ নং ওয়ার্ড এর দুই দুইবার সফল কাউন্সিলর চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র ও মহানগর আওয়ামীলীগের নেতা আলহাজ্ব নেছার উদ্দিন আহম্মেদ (প্রফেসর মঞ্জু),বিশেষ অতিথি ছিলেন এমজেএফ মানবাধিকার সংস্থার কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ন মহাসচিব ও নিউজ একাত্তর ডট কম,জাতীয় সাপ্তাহিক সংবাদের কাগজ এর সম্পাদক ও পপুলার মিডিয়া পাবলিকেশনস লিঃ এর সম্মানিত চেয়ারম্যান,বিশিষ্ট সংগঠক ও প্রবীন সাংবাদিক জনাব, মোঃ নাছির উদ্দিন চৌধুরী। এতে অন্যানের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মহানগর কমিটির চেয়ারম্যান সাংবাদিক জিয়া উদ্দিন কাদের, মহাসচিব মৃদুল মজুমদার,সাংগঠনিক সচিব তসলিম কাদের, যুগ্নমহাসচিব সোহাগ,নারী ও শিশু বিষয়ক সচিব মিলি চৌধুরী, উত্তর জেলার চেয়ারম্যান এম.এ নুরুন্নবী চৌধুরী,আকবর শাহ থানা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক কাজি আলতাব,সাবেক শিক্ষিকা সবিতা বিশ্বাস,সাংবাদিক আকবর হোসেন ভূইয়া,ফটো সাংবাদিক শান্তা তালুকদার,যুগ্ন মহাসচিব সাইফুল ইসলাম ,নিহার কান্তি দাশ, এম.এ. হক চৌধুরী রানা,মোহাম্মদ কামাল উদ্দিন, মোহাম্মদ রেজাউল করিম চৌধুরী, মোহাম্মদ ফারুক প্রমুখ।
চলমান শৈতপ্রবাহ থাকতেপারে আরো দুইদিন
চলমান শৈত্যপ্রবাহ আরও এক-দুই দিন থাকতে পারে। দেশের বেশির ভাগ এলাকায় গতকাল শুক্রবার রাত ও ভোরে তাপমাত্রা বাড়লেও দিনে কমেছে। দিনের তাপমাত্রা এক দিনের ব্যবধানে ৩ থেকে ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস কমে গেছে। ফলে দিনেও অনুভূত হচ্ছে তীব্র শীত। দিন-রাত ধরে চলা শৈত্যপ্রবাহ দেশের বেশির ভাগ মানুষকে পর্যুদস্ত করে ফেলেছে। ঘন কুয়াশার কারণে গত বৃহস্পতিবার রাত থেকে সাত ঘণ্টার জন্য বন্ধ ছিল রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ও মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া নৌপথ এবং মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া ও মাদারীপুরের কাঁঠালবাড়ী নৌপথে ফেরি চলাচল। গতকাল চট্টগ্রাম বিভাগের দু-একটি জেলা বাদে প্রায় পুরো দেশ হাড়কাঁপানো শীতে ছিল জবুথবু। আবহাওয়া অধিদপ্তরের পর্যবেক্ষণ বলছে, আরও দুই-এক দিন চলবে শৈত্যপ্রবাহ। আজ শনিবারও দেশের বেশির ভাগ নদীতীরবর্তী এলাকা ও অন্যান্য স্থানে ঘন কুয়াশা থাকতে পারে। দেশের মধ্য ও উত্তরাঞ্চলে কুয়াশা দুপুর পর্যন্ত চলতে পারে। ফলে যানবাহন চলাচল বিঘ্নিত হওয়ার পাশাপাশি মানুষের স্বাভাবিক চলাচলে সমস্যা হতে পারে। আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, শৈত্যপ্রবাহটি শুরু হয়েছিল মূলত জেট বায়ু নামে একটি শীতল বাতাসের প্রবাহ ও উপমহাদেশীয় উচ্চ চাপবলয় একসঙ্গে বাংলাদেশের ওপর সক্রিয় হয়ে পড়ায়। জেট বায়ুটি বাংলাদেশের ওপর থেকে সরে গেলেও উচ্চ চাপবলয়টি এখনো সক্রিয়। ফলে শৈত্যপ্রবাহটি সক্রিয় রয়েছে এবং এটি আরও এক-দুই দিন থাকতে পারে। আবহাওয়া অধিদপ্তরের পর্যবেক্ষণ অনুযায়ী, গত বৃহস্পতিবার দেশের উত্তর ও মধ্যাঞ্চলের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ১৮ থেকে ২০ ডিগ্রি সেলসিয়াস। গতকাল এক লাফে তা কমে ১২ ডিগ্রি সেলসিয়াস হয়েছে। অন্যদিকে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা কিছুটা বাড়লেও অনেক এলাকায় তা এখনো ৮ থেকে ১০ ডিগ্রির মধ্যে। একই সঙ্গে বেশির ভাগ এলাকার ওপর মাঝারি থেকে ঘন কুয়াশা ছিল। আর থেমে থেমে ঠান্ডা বাতাসও বয়ে গেছে। গতকাল দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল নওগাঁর বদলগাছিতে ৬ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। রাজধানীর সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১১ ডিগ্রি। দেশের অন্যান্য এলাকার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১০ ডিগ্রির নিচে ও সামান্য ওপরে। এসব এলাকায় আজও একই ধরনের তাপমাত্রা থাকতে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। কুয়াশায় বন্ধ ফেরি চলাচল ঘন কুয়াশার কারণে গতকাল ভোর থেকে ছয় ঘণ্টা রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ও মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া এবং মাদারীপুরের কাঁঠালবাড়ি ও মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া নৌপথে ফেরি চলাচল বন্ধ ছিল। এতে দুই নৌপথের উভয় পাশে আটকা পড়ে শত শত যানবাহন। মাদারীপুর # মাদারীপুরের কাঁঠালবাড়ি ফেরিঘাটের ব্যবস্থাপক মো. সালাম হোসেন জানান, এই নৌপথে ভোর চারটার দিকে কুয়াশার তীব্রতা বেড়ে গেলে দুর্ঘটনা এড়াতে ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। এর আগে ঘন কুয়াশার কারণে উভয় ঘাট থেকে ছেড়ে যাওয়া চারটি ফেরি মাঝনদীতে নোঙর করে। গতকাল সকাল ১০টার দিকে কুয়াশা কমে এলে নৌযান চলাচল স্বাভাবিক হয়। গোয়ালন্দ #বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন সংস্থা (বিআইডব্লিউটিসি) দৌলতদিয়া কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক শফিকুল ইসলাম বলেন, কুয়াশার মাত্রা বেড়ে যাওয়ায় ভোররাত সাড়ে তিনটা থেকে এই রুটে ফেরি চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এর আগে উভয় ঘাট থেকে ছেড়ে যাওয়া চারটি ফেরি মাঝনদীতে আটকা পড়ে। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ফেরি চলাচল শুরু হয়। মানিকগঞ্জ # বিআইডব্লিউটিসির আরিচা কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) তানভীর হোসেন বলেন, গতকাল ছয় ঘণ্টা ফেরি বন্ধ থাকায় পরিস্থিতি অস্বাভাবিক হয়ে পড়ে। তবে যাত্রীভোগান্তি কমাতে বাসগুলোকে আগে পারাপার করা হয়।
বঙ্গবন্ধু ও মহিউদ্দীন চৌধুরী- একটা ফটোও নাই এখন আমাদের কাছে
চট্টগ্রামে একটি মার্কেটের সামনে থেকে বঙ্গবন্ধু ও সাবেক সিটি মেয়র এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর নির্মাণাধীন ভাস্কর্য ভেঙে ফেলার অভিযোগ করেছেন ব্যবসায়ীরা। তবে, সিটি করপোরেশনের দাবি, ড্রেনের ওপর অবৈধ নির্মাণকাজ চলায় উচ্ছেদ করা হয়েছে। দুপুরে নগরীর জহুরা হকার্স মার্কেটের সামনে সিটি করপোরেশনের ড্রেনের ওপর নির্মাণাধীন অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান চালান স্পেশাল ম্যাজিস্ট্রেট জাহানারা ফেরদৌসের নেতৃত্বাধীন ভ্রাম্যমাণ আদালত। এ সময় মার্কেটের সামনের একটি একটি দেয়াল এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, সাবেক মেয়র মহিউদ্দিন চৌধুরী ও সাবেক শ্রমমন্ত্রী জহুর আহমেদের নির্মাণাধীন ভাস্কর্য ভেঙ্গে ফেলা হয় বলে অভিযোগ করেন ব্যবসায়ীরা। তবে, ড্রেনের ওপর অবৈধ নির্মাণকাজ চলায় উচ্ছেদ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন সিটি করপোরেশনের স্পেশাল ম্যাজিস্ট্রেট। প্রত্যক্ষদর্শী এক ব্যবসায়ী বলেন, ২০-২৫ জন পুলিশ আমাদেরকে ঢুকতে দেয়নি। সব ভেঙে ফেলেছে। ওদের যে ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের জিনিস ছিলো, সেগুলোও নিয়ে গেছে। জহুর হকার্স মার্কেট ব্যবসায়ী সমিতির সহ-সভাপতি মো. রফিক সওদাগর বলেন, অন্যায্যভাবে সন্ত্রাস চালিয়ে আমাদের দোকানদারদের পিটিয়ে সমস্ত ফটোগুলো নিয়ে গেছে। শেখ মুজিবর রহমান, মহিউদ্দীন চৌধুরী- একটা ফটোও নাই এখন আমাদের কাছে। চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের স্পেশাল ম্যাজিস্ট্রেট জাহানারা ফেরদৌস বলেন, ড্রেন কিন্তু সিটি করপোরেশনের। এটা তো মার্কেটের না। এরমধ্যে উনারা যদি বলেন, উনাদেরকে ড্রেনের উপর এটা করতে দেয়া হোক তাহলে, আপনারা মেয়রের সঙ্গে যোগাযোগ করেন, আমরা ভাঙবো না। এরপর উনারা কিন্তু কেউই যোগাযোগ করেননি, যোগাযোগের চেষ্টাও করেননি। পরে আমরা আমাদের দায়িত্ব পালন করে ওয়ালটা ভেঙে দিয়ে চলে এসেছি। ওখানে কোনো ম্যুরাল ছিলো না। যদি থেকে থাকে তাহলে উনারা ওটা পরে এনে ওখানে বসিয়েছে। এর দায়ভার সিটি করপোরেশন নেবে না।
শিক্ষা ব্যবস্থা জাতীয়করণের দাবিতে শিক্ষকদের আগৈলঝাড়ায় বিক্ষোভ মিছিল-মানববন্ধন
বরিশালের আগৈলঝাড়ায় মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষা ব্যবস্থা জাতীয়করণের দাবিতে কলেজ, স্কুল ও মাদ্রাসা শিক্ষকদের বিক্ষোভ মিছিল, মানববন্ধন, স্মরকলিপি প্রদান করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সকালে শিক্ষক কর্মচারী সংগ্রাম পরিষদের আয়োজনে উপজেলা সদরের বিক্ষোভ মিছিল শেষে উপজেলা চত্বরের নিবার্হী কর্মকর্তার অফিসের সামনে মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। শিক্ষক কর্মচারী সংগ্রাম পরিষদের আহবায়ক শিক্ষক সুনীল কুমার বাড়ৈর সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন মাধ্যমিক স্কুলের শিক্ষক যতীন্দ্রনাথ মিস্ত্রী, অমিয় লাল চৌধুরী, মোজাম্মেল হক হাওলাদার, অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান মিজান, নাসির ইকবাল, রনজিত কুমার মধু মোতালেব হোসেন, পদ্মাবতী হালদার প্রমুখ। সভা শেষে তারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি প্রদান করেন।
৫০ বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড
তীব্র শৈত্যপ্রবাহে গত ৫০ বছরের রেকর্ড ভেঙে দেশে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে এসেছে। দেশের উত্তরের শেষ প্রান্ত পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়া উপজেলায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে। এর আগে ১৯৬৮ সালে মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল উপজেলায় দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়। এত দিন পর্যন্ত সেটাই ছিল দেশের সবচেয়ে কম তাপমাত্রার রেকর্ড। আজ সোমবার আবহাওয়া অধিদপ্তর এ তথ্য জানিয়েছে। এ ছাড়া সৈয়দপুর জেলায় আজ দেশের দ্বিতীয় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২ দশমিক ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে। এরপরই রয়েছে নীলফামারীর ডিমলা উপজেলায় সর্বনিম্ন ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। রাজধানী ঢাকায় মাঝারি শৈত্যপ্রবাহ বয়ে চলেছে। এখানে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৯ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আরও দু-এক দিন এই শৈত্যপ্রবাহ থাকবে। আবহাওয়া অধিদপ্তর জানান সকাল ছয়টার দিকে সৈয়দপুরে দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২ দশমিক ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়। ভোরের পর আরেক দফা তাপমাত্রা কমে যায়। সকাল নয়টার দিকে তেঁতুলিয়ায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়। গত ৫০ বছরে এটা দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রার রেকর্ড। এর আগে ১৯৬৮ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি শ্রীমঙ্গলে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ২ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এরপর ২০১৩ সালের ১০ জানুয়ারি সৈয়দপুরে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়। সৈয়দপুরের পর নীলফামারীর ডিমলায় আজ সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে এসেছে। ঢাকায় ৯ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সারা দেশে আরও দু-এক দিন এমন পরিস্থিতি থাকবে। ১০ জানুয়ারির পর সারা দেশে তাপমাত্রা বাড়বে। গতকাল রোববার দেশে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল দিনাজপুরে ৫ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এরপরে রাজশাহীতে ঠান্ডা ছিল বেশি। সেখানকার তাপমাত্রা ছিল ৫ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। গতকাল দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল কক্সবাজারের টেকনাফে ২৫ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস।
আনসার ও ভিডিপি দিবসে নগরীতে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা
চট্টগ্রাম জেলা আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী গত ৫ জানুয়ারি ভিডিপি (গ্রাম প্রতিরক্ষা বহিনী) দিবস উদযাপন করেছে। দিবসটি উপলক্ষে এক বিশাল শোভাযাত্রাটি জেলা আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী কার্যালয় আসকারদিঘীর পশ্চিম পাড় হতে শুরু হয়ে সাইফুদ্দিন খালেদ রোড, জামালখান মোড়, প্রেস ক্লাব চট্টগ্রাম, চেরাগী পাহাড় মোড়, লাভলেইন কাজির দেউড়ী মোড় হয়ে পুনরায় আসকারদিঘী পাড়ে এসে শেষ হয়। শোভাযাত্রাতে চট্টগ্রাম ১২ আনসার ব্যাটলিয়ন জেলা কমান্ড্যার আশীষ কুমার ভট্টাচার্য, অধিনায়ক মোঃ আশরাফ হোসেন সিদ্দিক উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও শোভাযাত্রাতে সার্কেল এডজুট্যান্ট, চট্টগ্রাম মহানগর আনসার উত্তর ও দক্ষিন জোনে কর্মরত থানা আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা, উপজেলা পর্যায়ে কর্মরত আনসার ভিডিপি কর্মকর্তাম কর্মচারী এবং চট্টগ্রাম জেলার তৃণমূল পর্যায়ের প্রায় পাঁচ শতাধিক আনরসার ও ভিডিপি সদস্য অংশগ্রহণ করেন। বিশাল র্যাজলিটি চট্টগ্রাম জেলা আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর মিলন মেলায় পরিনত হয়। আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর সদস্যদের নিয়ে গঠিত বাদক দলের মনোজ্ঞ বাদ্য যন্ত্রের মাধ্যমে র্যারলিটি আরো আকর্ষনীয় ও উৎসবমুখর করে তোলেন।
গণতন্ত্রের মুক্তি দিবসে বাঁশখালীতে মহিলা যুবলীগের রেলী ও সমাবেশ
বাংলাদেশ আওয়ামী যুব মহিলালীগ বাঁশখালী উপজেলা শাখার উদ্যোগে ৫ জানুয়ারী গণতন্ত্রের মুক্তি দিবস উপলক্ষে র‍্যালী ও সমাবেশের আয়োজন করেন। শুক্রবার বিকেল তিনটায় বাঁশখালী উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে বাঁশখালী উপজেলা যুব মহিলা লীগের সভাপতি রোকসানা আক্তারের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের সদস্যা ও দক্ষিণ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ সভাপতি শাহিদা আকতার জাহান, র্যা লী ও সমাবেশ বক্তব্য রাখেন সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও কারা পরিদর্শক ইয়ামুন নাহার, বাঁশখালী পৌরসভা মহিলা কাউন্সিলর রোজিয়া সুলতানা, মহিলা আওয়ামী লীগ ও যুব মহিলা লীগের বাঁশখালী উপজেলার নেত্রী কহিনুর আকতার, নার্গিস সুলতানা, হাফসা বেগম, জেবুন নেচা, শাহিন আকতার, ফাতেমা বেগম, নাহিদা সুলতানা, রেহেনা আকতার, রেহেনা বেগম, কানিজ ফাতেম, বেবি আকতার, রুবি আকতার, ডেজি আকতার, মিনু আকতার, রোকেয়া বেগম, বুল বুল রানী প্রমুখ। র‍্যালী ও সমাবেশে বাঁশখালীর বিভিন্ন এলাকার কয়েক শতাধিক মহিলা উপস্থিত ছিলেন। প্রধান অতিথির বক্তব্যে চট্টগ্রাম জেলা পরিষদের সদস্য শাহিদা আকতার জাহান বলেন, বিএনপি-জামায়ত চক্র আন্দোলনের নামে হাজার হাজার নিরহ নারী পুরষকে হত্যা করেছে, এইদিন যদি আওয়ামী লীগ সরকার গঠন না করত তাহলে দেশকে তারা পাকিস্তানি পরিনত করত। পাকিস্তানের চিন্তা ধারায় বিএনপি এ দেশেকে পরিচারিত করতে চাই। পাকিস্তানি হানাদার বাহীনি এদেশের লক্ষ লক্ষ মানুষকে নির্মমভাবে মুক্তিযুদ্ধের সময় হত্যা করেছে।
সাতকানিয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে বই উৎসব ২০১৮ ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত
সাতকানিয়া বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে সরকার ঘোষিত ;বই উৎসব ২০১৮ইং; উপলক্ষে ১ জানুয়ারী সোমবার শিক্ষার্থীদের মাঝে নতুন বই বিতরণ ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয় সকাল ১০টায় স্কুল মিলনায়তনে। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন সাতকানিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মোবারেক হোসেন, প্রধান আলোচক ছিলেন কেন্দ্রীয় মহিলা আওয়ামীলীগের সদস্য, এমপি নদভী পতী মিসেস রিজিয়া রেজা চৌধুরী। বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও সাতকানিয়া উপজেলা বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি শফিউল ইসলাম শফির সভাপতিত্বে আলোচনা সভা ও বই বিতরণ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোহাম্মদ আজিম শরীফ, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আশিষ বরন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পরিমল কান্তি পাল। অন্যান্যের মাঝে বক্তব্য রাখেন, অভিবাবক সদস্য খোকন নন্দী, খালেদা বেগম, শিউলি দাশ, উত্তম কুমার দাশ, সাবেক শিক্ষক হারুনর রশিদ প্রমুখ।

সারা দেশ পাতার আরো খবর