চট্টগ্রাম রিপোর্টারস ফোরাম (সিআরএফ) এর আত্মপ্রকাশ
চট্টগ্রামের বিভিন্ন প্রিন্ট, ইলেকট্রনিক ও অনলাইন মিডিয়ায় কর্মরত রির্পোটারদের স্বার্থ সংরক্ষণ ও পেশাগত মান উন্নয়নের লক্ষে চট্টগ্রাম রিপোর্টারস ফোরাম (সিআরএফ) আত্মপ্রকাশ করেছে। রবিবার রাতে স্থানীয় একটি রেষ্টুরেন্টে বিভিন্ন স্তরের সিনিয়র রিপোর্টারদের এক সভায় নতুন এ সংগঠনটি গঠিত হয়। চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সিনিয়র সহ সভাপতি ও প্রতিদিনের সংবাদের ডেপুটি এডিটর কাজী আবুল মনসুর আহবায়ক, দৈনিক কালেরকন্ঠের ব্যুরো প্রধান মুস্তাফা নইম ও দৈনিক সংবাদের ব্যুরো প্রধান নিরুপম দাশগুপ্ত যুগ্ম আহবায়ক, বৈশাখি টেলিভিশনের ব্যুরো প্রধান মহসিন চৌধুরীকে সদস্য সচিব করে ১১ সদস্য বিশিষ্ট এ কমিটি ঘোষণা করেন দৈনিক জনকন্ঠের ডেপুটি এডিটর মোয়াজ্জেমুল হক। কমিটির সদস্যরা হলেন, দৈনিক সমকালের সিনিয়র রিপোর্টার তৌফিকুল ইসলাম বাবর, দেশ টিভির ব্যুরো প্রধান আলমগীর সবুজ, দৈনিক আজাদির সিনিয়র রিপোর্টার সবুর শুভ, দৈনিক পূর্বকোনের সিনিয়র রিপোর্টার এস এম ইফতেখারুল ইসলাম, দৈনিক পূর্বদেশের সিনিয়র রিপোর্টার সাইফুল্লাহ চৌধুরী, দৈনিক সুপ্রভাত বাংলাদেশের সিনিয়র রিপোর্টার ভূইয়া নজরুল, পরিবর্তন ডট কম এর ব্যুরো প্রধান খোরশেদুল আলম শামিম। এ সময় অন্যন্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, চ্যানেল আই এর ব্যুরো প্রধান চৌধুরী ফরিদ, বাংলাদেশের খবর এর ব্যুরো প্রধান ম. শামসুল ইসলাম, চট্টগ্রাম সাংবাদিক হাউজিং সোসাইটির পরিচালক মহসিন কাজী, সিনিয়র সাংবাদিক গোলাম মাওলা মুরাদ, যমুনা টেলিভিশনের ব্যুরো প্রধান জামসেদ চৌধুরী, দৈনিক জনকন্ঠের সিনিয়র রিপোর্টার হাসান নাসির, এটিএন বাংলার সিনিয়র রিপোর্টার আবুল হাসনাত, জিটিভির ব্যুরো প্রধান অনিন্দ্য টিট, মাছরাঙ্গা টেলিভিশনের ব্যুরো প্রধান তাজুল ইসলাম, বাংলাদেশ প্রতিদিনের সিনিয়র রিপোর্টার মুহাম্মদ সেলিম, দৈনিক পূর্বদেশের সিনিয়র সাংবাদিক রাহুল দাশ নয়ন প্রমুখ। নবগঠিত কমিটি আগামি দেড় মাসের মধ্যে গঠনতন্ত্র, সদস্যপদ ও নির্বাচনের ব্যপারে সিদ্ধান্ত নেবেন।প্রেস বিজ্ঞপ্তি
পল্লী বিদ্যুৎ আগৈলঝাড়া জোনাল অফিসের ডিজিএম রংগলাল কর্মকারের বিদায় সংবর্ধনা
বরিশাল পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২ এর আগৈলঝাড়া জোনাল অফিসের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার রংগলাল কর্মকারের চাকুরী থেকে অবসরজনিত বিদায় সংবর্ধনা প্রদান করা হয়েছে। তিনি পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির বিভিন্ন অফিসে ৩২ বছর ৭ মাস বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করেছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে গৈলাস্থ আগৈলঝাড়া জোনাল অফিস কার্যালয়ে গৌরনদী জোনাল অফিসের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার (ডিজিএম) একেএম ফজলুল হকের সভাপতিত্বে বিদায় সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বিদায়ী ডিজিএম রংগলাল কর্মকার, আগৈলঝাড়ার এজিএম (কম) মো. দেলোয়ার হোসেন, গৌরনদীর এজিএম (কম) এসএম শাকিল হোসেন, আগৈলঝাড়ার জুনিয়র প্রকৌশলী মো. লুৎফর রহমান, গৌরনদীর জুনিয়র প্রকৌশলী দুর্যোধন বালা, ইসি আবু সালেহ মো. দিল মোহাম্মদ, লাইন টেকনিশিয়ান সৈয়দ জাকির হোসেন, বিলিং সুপারভাইজার কানন বালা, লাইনম্যান জিয়াউল ইসলাম, ফয়জুল হক, বিলিং সহকারী অঞ্জনা বসু, আমির হোসেন মোল্লা প্রমুখ। এনিয়ে ডিজিএম রংগলাল কর্মকার আগৈলঝাড়া জোনাল অফিসে দুদুবার সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন। বিদায় অনুষ্ঠানে তিনি সবাইকে ব্যক্তি স্বার্থ নয়, প্রতিষ্ঠানের স্বার্থ ও সুনাম রক্ষার জন্য নিবেদিত থাকার আহ্বাণ জানান। Press Release
শিশু বাগ শিক্ষা কেন্দ্রে মিলাদুন্নবী (সা.) মাহফিলে অধ্যক্ষ ড. আবু নোমান, আমাদের শিশুদেরকে মুহাম্ম
চট্টগ্রাম নগরীর কোতোয়ালী রহমতগঞ্জ এলাকার ঐতিহ্যবাহী শিশু বাগ আধুনিক শিশু শিক্ষা কেন্দ্রে যথাযথ মর্যাদা ও ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে আজ ৭ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টায় শিশু বাগ স্কুলের পরিচালক শামসুদ্দীন মুহাম্মদ নাসের টিপুর সভাপতিত্বে ও স্কুলের ধর্মীয় শিক্ষক মাওালানা কুতুব উদ্দীনের সঞ্চালনায় পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) মাহফিল উদযাপিত হয়। মিলাদুন্নবী (সা.) মাহফিলে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বায়তুশশরফ আদর্শ কামিল মাদরাসার অধ্যক্ষ আলহাজ্ব ড. মাওলানা সাইয়িদ আবু নোমান। বিশেষ অতিথি ছিলেন যথাক্রমে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় উপ-কমিটির সহ-সম্পাদক মো. আবদুল হান্নান, নিউজগার্ডেন টোয়েন্টি ফোর ডট কমের সম্পাদক কামরুল হুদা, সার্কিট হাউজ মসজিদের খতীব মাওলানা ছাবের আহমদ, আহমেদ ফয়সাল ইবনে ইসহাক, মাওরানা হাফিজুর রহমান, মোহাম্মদ সালাহ উদ্দিন, ছৈয়দ সাফওয়ান, প্রধান শিক্ষিকা মুসাররাত জাহান, সহকারী প্রধান শিক্ষিকা নুসরাত জাহান। সহকারী শিক্ষিকা জাহেদা বেগম, সেলিনা আফরোজ, সেলিনা আকতার, শামিমা আরা বেগম, জেবুন্নেসা বেগম, নওশিন আকতার, নুজহাত চৌধুরী, আরিফুল ইসলাম, ইমতিয়াজ হোসাইন প্রমুখ। প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. মাওলানা সাইয়িদ আবু নোমান বলেন, মাহে রবিউল আউয়াল হিজরি বছরের পুণ্যময় ও বরকতময় মাস। হিজরি বছরের বসন্তকাল বলা হয় এ বরকতময় মাসকে। যখন সারা বিশ্ব অন্ধকারের গভীর সাগরে নিমজ্জিত ছিল এবং সমগ্র মানবজাতি পথহারা ও বিভ্রান্ত ছিল তখন ষষ্ঠ শতাব্দীর এ বরকতময় মাসের মোবারক দিন ১২ রবিউল আউয়াল আল্লাহর হাবিব হজরত মুহাম্মাদুর রাসূলুল্লাহ সা: এ দুনিয়াতে আগমন করেন। বায়তুশ শরফ আদর্শ কামিল মাদরাসার অধ্যক্ষ ড. মাওলানা সাইয়েদ মুহাম্মদ আবু নোমান আরো বলেন, ইসলামী চিন্তাবিদ গবেষক অধ্যক্ষ শামসুদ্দীন মুহাম্মদ ইসহাক জ্ঞানী, গুণী ও দার্শনিক ছিলেন। তেমনি অধ্যক্ষ রেজাউল করিম চৌধুরী একই মাপের মানুষ ছিলেন। তারা দু’জনের মধ্যে আদর্শের মিল খুজে পাওয়া যায়। তিনি শিশুবাগ স্কুলের ছাত্রছাত্রীদেরকে অধ্যক্ষ শামসুদ্দীন মুহাম্মদ ইসহাকের জীবনী পড়ার আহবান জানান এবং তার মত জ্ঞানী গুণী মানুষ হয়ে সমাজে নিপীড়িত নির্যাতিত মানুষের সেবা করারও আহবান জানান। আজ অধ্যক্ষ শামসুদ্দীন মুহাম্মদ ইসহাক আমাদের মাঝে নেই, কিন্তু তার আদর্শ আমাদের কাছে রয়ে গেছে আমাদেরকে সে আদর্শ লালন করে এগিয়ে যেতে হবে। তাহলেই আমরা মানুষ হয়ে সমাজে মাথা উঁচু করে দাঁড়াতে পারবো। তিনি ইসলামী জ্ঞানে গুণান্বিত ছিলেন বিধায় আন্দরকিল্লাহ শাহী জামে মসজিদের খতীব সাইয়েদ আবুল আহাদ মাদানী তাকে মহব্বত করতেন। একজন ইংরেজী শিক্ষিত মানুষ কিভাবে এতগুলো ইসলামের জ্ঞান অর্জন করেছেন, তা সাইয়েদ সাহেবকে বিস্মিত করেছে। বায়তুশ শরফের পীর আবদুল জব্বার সাহেবের সাথেও তার নিবিড় সম্পর্ক ছিলো, একমাত্র কারণ তার ইসলামী জ্ঞানের ভান্ডার। তাই আমাদের আজকের এ শিশুদেরকে তার মত জ্ঞানী গুণী হওয়ার চেষ্টা চালাতে হবে। তিনি আরো বলেন বঞ্চিত বিক্ষুব্ধ সমাজকে বাঁচাতে হলে ইসলামের বিধিবিধান মেনে এবং ইসলামের সুশীতল ছায়াতলে আসতে হবে। Press Release
জননেতা আলহাজ্ব সোলায়মান আলম শেঠকে বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন চট্টগ্রামের সংবর্ধনা
জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও দক্ষিণ আফ্রিকার অনারারি কনসুল জননেতা আলহাজ্ব সোলায়মান আলম শেঠ বলেছেন, চট্টগ্রামের মানুষের জন্য আমি আমার জীবন উৎসর্গ করেছি। এই অঞ্চলে শিক্ষা-সংস্কৃতি ও ঐতিহ্যকে বুকে ধারণ করে আমি দেশের সম্মান ও মর্যাদা বিদেশের মাটিতে বৃদ্ধিতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি। তিনি চট্টগ্রামের মেধাবী শিক্ষার্থীদের বিশেষ করে সাংবাদিকদের সন্তানদেরকে দক্ষিণ আফ্রিকার উচ্চ শিক্ষা গ্রহণে ও কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে সর্বাত্মক সহযোগিতার আশ্বাস প্রদান করেন। জননেতা সোলায়মান আলম শেঠ দক্ষিণ আফ্রিকার অনারারি কনসুল নিযুক্ত হওয়ায় বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন চট্টগ্রামের উদ্যোগে আয়োজিত সংবর্ধনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। উক্ত সংবর্ধনা সভা বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন চট্টগ্রামের সভাপতি মনজুরুল আলম মনজুর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমানের সঞ্চালনায় আরো উপস্থিত ছিলেন সহ-সভাপতি কুতুব উদ্দিন, যুগ্ম সম্পাদক মিয়া আলতাফ, সাংগঠনিক সম্পাদক মো: গোলাম মর্তুজা আলী, অর্থ সম্পাদক হেলাল উদ্দিন সিকদার, সহ-অর্থ সম্পাদক মো: হোসাইন, দপ্তর সম্পাদক মো: রাশেদ, সহ-দপ্তর সম্পাদক শেখ মোরশেদুল আলম, প্রচার সম্পাদক সাইদুল আজাদ, সহ-প্রচার সম্পাদক মো: আখতার হোসেন, ক্রীড়া সম্পাদক মিনহাজ উদ্দিন, কার্যনির্বাহী সদস্য হায়দার আলী, এরশাদ আলী, মাসুমুল ইসলাম, সদস্য এম.এ. হান্নান কাজল, মো: হানিফ, আকমাল হোসেন, আনোয়ারুল আজিম, ইমাম হোসেন রাজু, রাজু দীক্ষিত, মো: আবুল হাশেম, ইব্রাহিম মুরাদ, মো: জাহাঙ্গীর প্রমুখ Press Release
উপ-পুলিশ কমিশনার (উত্তর) মোঃ আবদুল ওয়ারীশ, কুরআনের আলোকে ও রাসুলের আদর্শে আমাদের সামগ্রিক জীবন প
গত ৬ ডিসেম্বর বুধবার বিকেল ৫টায় নগরীর সেগুনবাগান তালীমুল কুরআন মাদরাসায় দৈনিক পূর্বকোণ সম্পাদক, চট্টল দরদী, স্থপতি তসলিম উদ্দিন চৌধুরীর রূহের মাগফিরাত কামনা ও আন্তর্জাতিক কেরাত সম্মেলনের প্রস্তুতি সভায় মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মোঃ ইকবাল বাহার বিপিএম, পিপিএম-এর প্রতিনিধি উপ-পুলিশ কমিশনার (উত্তর) মোঃ আবদুল ওয়ারীশ বলেন পরিবার, সমাজ এমনকি গোটা বিশে^ শান্তি, সমৃদ্ধি ও স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠার জন্য কুরআনের আলোকে ও রাসুলুল্লাহর (সা.) আদর্শে আমাদের সামগ্রিক জীবন পরিচালিত করতে হবে। বিশ^নবী মুহাম্মদ সা. কেবল মুসলমানদের জন্য বা মানবজাতির জন্য নয় বরং পুরো সৃষ্টিজগতের জন্য রহমতস্বরূপ আবির্ভূত হয়েছেন। সিনিয়র সাংবাদিক, সমাজসেবক, চট্টল দরদী, পূর্বকোণ সম্পাদক, স্থপতি তসলিম উদ্দিন চৌধুরীর রূহের মাগফিরাত কামনা করে দোয়া ও মুনাজাত করেন অনুষ্ঠানের সভাপতি, তালীমুল কুরআন কমপ্লেক্সের চেয়ারম্যান ও আন্তর্জাতিক কেরাত সম্মেলন সংস্থার সভাপতি, আলহাজ্ব হাফেজ মুহাম্মদ তৈয়্যব। অতিথিবৃন্দ তাদের বক্তব্যে আগামী ২৮ ডিসেম্বর ২০১৭ থেকে ১৩ জানুয়ারি ২০১৮ পর্যন্ত চট্টগ্রাম আন্দরকিল্লা সহ দেশের বিভিন্ন জেলায় অনুষ্ঠিতব্য আন্তর্জাতিক কেরাত সম্মেলন সফল করার জন্য সর্বস্তরের মুসলমানদের আহ্বান জানান। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য পেশ করেন, চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র-১ আলহাজ চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, খুলশী থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ মুহাম্মদ নাছির উদ্দিন, মহানগর জাতীয় শ্রমিক লীগের সহসভাপতি, কামাল উদ্দিন চৌধুরী, মাওলানা ইসমাইল মনজুর আশরাফী। অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, আল্লামা আজিজুল হক আল মাদানী, মাওলানা কারী জহিরুল হক, মাওলানা আজিজুল হক ইসলামাবাদী, আলহাজ হায়দার হোসেন বাদল, সাবেক আরওআই নূর আহমদ, মুহাম্মদ জান্নাতুল ইসলাম, ইঞ্জিনিয়ার এম. এ জাহের, মাওলানা কারী সাইফুল্লাহ, এড. গোলাম কিবরিয়া, ইমাম ও খতিব ফাউন্ডেশনের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা মুফতি মোরশেদুল আলম, মাওলানা আলাউদ্দিন সাবেরী, আন্তর্জাতিক কেরাত সম্মেলনের সমন্বয়ক মাওলানা আজহার উদ্দিন, চিটাগাং প্রাইভেট মাদরাসা এসোসিয়েশন এর সাংগঠনিক সম্পাদক, মাওলানা হাফেজ এনামুল হক, মাওলানা মানযারুল হালিম বুখারী, হুফফাজুল কুরআন ফাউন্ডেশন চট্টগ্রাম বিভাগীয় সিনিয়র সহ-সভাপতি, মাওলানা হাফেজ মুহাম্মদ আলম, হাফেজ যাকারিয়া খালেদ, আলহাজ হাবিবুর রহমান, মাওলানা কারী ফজলুল করিম, মাওলানা ইউনুস, মাওলানা জুনাইদ জওহার, মাওলানা আবু তাহের, মাওলানা করিমুল ইসলাম প্রমুখ। অনুষ্ঠানে পুলিশ কমিশনারের পক্ষে সম্মাননা ক্রেস্ট গ্রহণ করেন, উপ-পুলিশ কমিশনার (উত্তর) মোঃ আবদুল ওয়ারীশ। সেগুনবাগান তালীমুল কুরআন মাদরাসার পরিচালক , চিটাগাং প্রাইভেট মাদরাসা এসোসিয়েশন, ইমাম ও খতিব ফাউন্ডেশন চট্টগ্রাম ও হুফফাজুল কুরআন ফাউন্ডেশন বাংলাদেশের পক্ষ থেকে সম্মাননা প্রদান করা হয়। Press Release
৪ হাজার গাড়ী রেজিষ্ট্রেশন ও পুলিশী হয়রানী বন্ধসহ ১২দফা দাবী বাস্তবায়নে ২০ডিসেম্বর সর্বাত্মক ধ
চট্টগ্রাম অটোরিকশা অটোটেম্পু শ্রমিক ইউনিয়ন-১৪৪১ এর সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদ বলেছেন, চট্টগ্রামের জন্য সিএনজি চালিত অটোরিকশা পরিচালনা সংক্রান্ত আলাদা নীতিমালা বা সার্ভিস রুলস প্রণয়ন করা, ৪হাজার নতুন গাড়ী রেজিষ্ট্রেশন প্রদান, পার্কিং ব্যবস্থা নিশ্চিত না করা পর্যন্ত নো-পার্কিং মামলা বন্ধ করা, সহজ শর্তে চালকদেরকে লাইসেন্স প্রদান, মালিকের জমা ৬০০টাকা ও মান সম্মত মিটার প্রদান করার মাধ্যমে নগরীতে যাত্রী সেবা নিশ্চিত করতে হবে। তিনি আরো বলেন, আমরা ১২ দফার দাবীতে ১বছর আগে পরিবহন ফেডারেশনের সাথে ধর্মঘটের ডাক দিয়েছিলাম প্রশাসনের আশ্বাসে আমরা ধর্মঘট স্থগিত করেছিলাম। দীর্ঘ ১বছর অতিবাহিত, ৬মাস আগে প্রশাসনকে স্মরকলিপি দিয়েছি তারপরও আমাদের দাবী বাস্তবায়ন করেনি। প্রশাসনের এ ব্যর্থতার জন্য আগামী ২০ডিসেম্বর চট্টগ্রাম নগরী ও জেলা গুলোতে সবার্ত্মক ধর্মঘট পালন করা হবে। তিনি বলেন, এই ধর্মঘটের মাধ্যমে যদি দাবী আদায় না হয়, তাহলে আমরা আরো কঠোর কর্মসূচী দিতে বাধ্য থাকব। অদ্য সকাল সাড়ে ১০টায় নগরীর অক্সেজেন মোড়ে এক বিশাল শ্রমিক সমাবেশে প্রধান বক্তার বক্তব্যে হারুনুর রশীদ উপরোক্ত কথা বলেন। বিশিষ্ট শ্রমিক নেতা অক্সিজেন শাখার সভাপতি মো: সাজ্জাদ হোসেনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক বেলাল হোসেনের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের চট্টগ্রাম অঞ্চলের সহ-সভাপতি ও ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আলহাজ্ব আবদুল নবী লেদু। শ্রমিক সমাবেশে প্রধান অতিথি বলেন, সিএনজি চালিত অটোরিকশা চালকদের করুন অবস্থা বিরাজ করছে। একদিকে মালিকে অতিরিক্তি দৈনিক জমা আদায় অন্যদিকে পুলিশের হয়রানী ও যত্রতত্র মামলার ভারে চালকরা দিশেহারা হয়ে পড়েছে। তিনি বলেন অটোরিকশা গুলোকে যে কোন মামলায় ৩০০টাকার বেশী জরিমানা করা যাবে না। মামলা হামলা দিয়ে চালকদের যেন তেন দমিয়ে রাখার চেষ্টা করা হলে তার পরিণতি হবে ভয়াবহ। তিনি দ্রুত ১২দফা দাবী বাস্তবায়ন করে শ্রমজীবী মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য প্রশাসনের প্রতি আহবান জানান। প্রধান বক্তা হারুনুর রশীদ আরো বলেন, আগামী ১৯ ডিসেম্বর শহীদ মিনার চত্তরে স্মরনকালে বিশাল শ্রমিক সমাবেশের ডাক দেয়া হয়েছে। এর আগে প্রতিটি থানা ও গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে শ্রমিকদের সমাবেশ করা হবে। তিনি বলেন, দীর্ঘদিন থেকে ২৬হাজার শ্রমিক ১৩হাজার গাড়ী সময় ভাগ করে চালিয়ে কোন মতে জীবন যাপন করছে। চট্টগ্রামের মতো একটি বাণিজ্যিক রাজধানীতে ২০০২সালে সর্বশেষ গাড়ীর রেজিষ্ট্রেশন দিলেও সেই গাড়ীর অনেক গুলো এখন অকেজো হয়ে পড়ে আছে। কিন্তু নগরীর পরিধি বৃদ্ধি পেয়েছে তারপরও সরকার চট্টগ্রামের জন্য নতুন করে গাড়ীর রেজিষ্ট্রেশন দিচ্ছে না। অথচ অনুমোদন দিয়ে ৪হাজার গাড়ী আন রেজিষ্ট্রেশন হিসেবে চলাচল করছিল দীর্ঘদিন বর্তমানে সেই গাড়ী গুলোও বন্ধ করে দিয়েছে। তিনি অবিলম্বে নগরীরতে ৪হাজার গাড়ীর অনুমোদনসহ অটোরিকশা শ্রমিক ইউনিয়নের ১২ দফা দাবী মেনে নেয়ার জন্য সরকারের প্রতি আহবান জানান। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন যুগ্ম সম্পাদক মোহাম্মদ ফারুক হোসেন, রফিকুল ইসলাম, কার্যকরী সভাপতি আনোয়ার হোসেন, আমান বাজার শাখা সভাপতি আলী আকবর, সেক্রেটারী মো: শাহীন, টেক্সটাইল সভাপতি মো: কবীর সেক্রেটারী মো: আজম, শেরশাহ সভাপতি হানিফ, সেক্রেটারী বেলাল, রুবী গেইট শাখার সভাপতি খোকন ও বাবুল, কাপ্তাই রাস্তার মাথা শাখার আজাদ, জাফর মেহেদী, চবি’র সভাপতি শামসু সেক্রেটারী হারুন ও খোরশেদ, মুরাদপুর সভাপতি মোধ সেলিম, কামরুল ও আলাউদ্দিন প্রমুখ |Press Release
প্রতিবারের ন্যায় এবারও বিজয় র;্যালী হবে সর্ববৃহৎ ও আকর্ষনীয়
মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা পরিষদের কার্যালয়ে ১৬ ডিসেম্বর সকাল ৯টায় বিজয় শিখার পাদদেশ থেকে বর্নাঢ্য বিজয় র-২০১৭ সফল করার জন্য বিজয় মেলা পরিষদের মহাসচিব মোহাম্মদ ইউনুছের সভাপতিত্বে ও র;্যালী উপ-পরিষদের আহবায়ক শেখ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরীর সঞ্চালনায় এক প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বক্তাগণ বলেন, মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলার ২৯ তম বিজয় র;্যালী জাতিকে উদ্দীপ্ত করবে এই লক্ষ্য অর্জনকে সরকারী ও বেসরকারী সংস্থা, প্রশাসন ও মুক্তিকামী বীর জনতার অংশগ্রহণে প্রদীপ্ত করতে হবে। বিশেষ করে শিশু-কিশোরদের এই বিজয় র;্যালীতে যুক্ত করে তাদের মনে দেশপ্রেমের শিখা প্রজ্জ্বলিত রাখতে হবে। বক্তারা বলেন, এবারের বিজয় র;্যালী ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকলের সহযোগে সুশৃংখলভাবে সম্পন্ন হবে। নির্দিষ্ট রোড ম্যাপ অনুযায়ী এই বিজয় র;্যালী এম.এ. আজিজ স্টেডিয়ামস্থ বিজয় শিখা প্রজ্জ্বলন চত্বর থেকে আরম্ভ হয়ে চট্টগ্রাম শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়কগুলো প্রদক্ষিণ করে বিজয় মঞ্চে এসে সমাপ্ত হবে। সভায় বক্তাগণ আরো বলেন, নতুন প্রজন্মকে বিজয় মেলার মধ্যে দিয়ে আমরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত করতে চাই, সেই লক্ষ্যে আমাদের এই প্রয়াস বিজয় র;্যালী। সভায় ১৬ ডিসেম্বর বিজয় র;্যালীতে সরকারী বাহিনী ও বেসরকারী সংস্থা, ছাত্র-যুব জনতা, শ্রমিক, মহিলা ও মুক্তিযোদ্ধাসহ সর্বমহলকে বিভিন্ন সাজে অংশগ্রহণ করার আহবান জানানো হয় । মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা পরিষদের কো-চেয়ারম্যান অমল মিত্র, মহাসচিব পান্টু লাল সাহা, মুক্তিযোদ্ধা ডা: ছালেহ আহমেদ, বিজয় মেলা পরিষদের কর্মকর্তা চন্দন ধর, মশিউর রহমান চৌধুরী, ফরিদ মাহমুদ, র;্যালী উপ-পরিষদের সদস্য সচিব অধ্যাপক মাহাবুবুল আলম, এস.এম. সাঈদ সুমন প্রমুখ। Press Release
কোন সৈরাচারের শেষ রক্ষা এই দেশে হয়নাই, এই স্বৈরাচারেরও শেষ রক্ষা হবে না:ডা. শাহাদাত হোসেন
চট্টগ্রাম মহানগর বিএনপির সভাপতি ও কেন্দ্রীয় বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. শাহাদাত হোসেন বলেছেন, এই সরকার নব্য স্বৈরাচার সরকারে পরিণত হয়েছে। এই নব্য স্বৈরাচার সরকারের নীপিড়ন নির্যাতন অতীতের স্বৈরাচার এরশাদ সরকারকেও হার মানিয়েছে। এই নব্য স্বৈরাচারের কবল থেকে মুক্তি পেতে হলে কঠিন আন্দোলনের প্রস্তুতি নিতে হবে। এই সরকার জনগণের ভোটে নির্বাচিত সরকার নয় বলেই তারা দেশের জনগণের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। তারা ফ্যাসিস্ট কায়দায় জনগণের উপর জুলুম-নির্যাতন, নীপিড়ন চালাচ্ছে। কিন্তু কোন সৈরাচার সরকারের শেষ রক্ষা এই দেশে হয়নাই তাই এই স্বৈরাচারেরও শেষ রক্ষা হবে না। ডা. শাহাদাত হোসেন আরো বলেন, আশির দশক শেষে স্বৈরাচার এরশাদ বিরোধী গণ আন্দোলনে শহীদ নুর হোসেন, শহীদ মোজাম্মেল, জিহাদ, ডা. মিলনের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত গণতন্ত্র আজ ভুলন্টিত। হারানো গণতন্ত্র পুনঃরুদ্ধারে আজ মহান বিজয় মাসে আমাদের শপথ নিতে হবে। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে আন্দোলন সংগ্রামে ঝাপিয়ে পড়ার প্রস্তুত থাকতে হবে। তিনি অদ্য ৬ ডিসেম্বর দলীয় কার্যালয় নাছিমন ভবন মাঠে নগর বিএনপির উদ্দ্যেগে স্বৈরাচার পতন দিবস উপলক্ষ্যে আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে উপরোক্ত কথা বলেন। নগর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি আলহাজ্ব আবু সুফিয়ান বলেন, ৯০এর স্বৈরাচার আন্দোলনে যেভাবে সরকারকে পালাতে হয়েছে ঠিক সেই ভাবেই এই স্বৈরাচার সরকারকেও পালাতে হবে। নেতাকর্মীদের আন্দোলনের জন্য এখন থেকে প্রস্তুতি গ্রহণ করতে হবে। এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন নগর বিএনপির সহ-সভাপতি আলহাজ্ব এম.এ আজিজ, মোহাম্মদ মিয়া ভোলা, আলাহাজ্ব মোহাম্মদ আলী, যুগ্ম সম্পাদক কাজী বেলাল উদ্দীন, ইসকান্দার মির্জা, আর.ইউ চৌধুরী শাহীন, ইয়াছিন চৌধুরী লিটন, জাহাঙ্গীর আলম দুলাল, গাজী মো: সিরাজ উল্লাহ, সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুল ইসলাম, থানা বিএনপির সভাপতির মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মঞ্জুরুর রহমান চৌধুরী, কমিশনার আজম উদ্দীন, থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব জাকির হোসেন, নুর হোসেন, নগর বিএনপির সহ-সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব জাকির হোসেন, প্রচার সম্পাদক শিহাব উদ্দীন মুবিন, সম্পাদক মোহাম্মদ আলী মিটু, ডা. সরোয়ার আলম, এ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম, সহ-সম্পাদক আব্দুল হালিম স্বপন, আরিফ মেহেদী, নগর মহিলাদলের সাধারণ সম্পাদিকা জেলি চৌধুরী, নগর ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক বেলায়েত হোসেন বুলু, প্রমুখ নেতৃবৃন্দ। Press Release
রাবিতে আন্তঃকলেজ অ্যাথলেটিক্স প্রতিযোগিতা শুরু
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) ৪০তম আন্তঃকলেজ অ্যাথলেটিক্স প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে। বুধবার সকাল ৯টায় বিশ্ববিদ্যালয় স্টেডিয়ামে বেলুন-ফেস্টুন ও কবুতর উড়িয়ে দুদিনব্যাপী এ প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর এম আব্দুস সোবহান। বাংলাদেশ বেতারের উপস্থাপক মো. আব্দুর রোকনের সঞ্চালনায় এবং অ্যাথলেটিকস্ ও অ্যাকুয়াটিকস্ সাবকমিটির সভাপতি, বিজনেস স্টাডিজ অনুষদের অধিকর্তা প্রফেসর শিবলী সাদিকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপ-উপাচার্য প্রফেসর আনন্দ কুমার সাহা। বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃতি এ্যাথলেট শিরিন ও মাহফুজ মশালসহ মাঠ প্রদক্ষিণ ও অগ্নি প্রজ্বলন করেন। উল্লেখ্য, দুদিনব্যাপী এই প্রতিযোগিতায় ৪১টি ইভিন্টে এবং প্রায় ২৬০ জন খেলোয়াড় অংশ নিচ্ছে। প্রেস বিজ্ঞপ্তি

সারা দেশ পাতার আরো খবর