ইউপি ভোট গ্রহণ চলছে
দেশের নয়টি পৌরসভা ও ১১৫টি ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) স্থগিত ও উপ-নির্বাচনের ভোটগ্রহণ চলছে। বৃহস্পতিবার (২৮ ডিসেম্বর) সকাল ৮টায় স্থানীয় সরকারের এসব প্রতিষ্ঠানে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। চলবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। ইসি সূত্র জানা গেছে, বন্যা, মামলাসহ বিভিন্ন জটিলতার কারণে এসব এলাকায় নির্বাচন হয়নি। সে নির্বাচনগুলোই এখন সম্পন্ন করা হচ্ছে। এদিকে এ ভোট সুষ্ঠুভাবে করতে সব ধরনের প্রস্তুতি নেয়ার কথা বলেছে কে এম নূরুল হুদা নেতৃত্বাধীন নির্বাচন কমিশন। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীও রয়েছে মাঠে। ইসির সিনিয়র সহকারী সচিব ফরহাদ হোসেন জানান, নয়টি পৌরসভা (ছয়টি সাধারণ, তিন উপনির্বাচন); ১১৫টি ইউপি (৩৭টি সাধারণ ও স্থগিত নির্বাচন, ৭৮টি উপনির্বাচন) এবং জেলা পরিষদের দুটি ওয়ার্ডে সাধারণ ও একটি উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে উপনির্বাচন হচ্ছে। যেসব জায়গায় ভোট হচ্ছে পৌরসভা: বোদা, বনপাড়া, আলফাডাঙ্গা, বকশিগঞ্জ, বাঘা ও বিরলে সাধারণ নির্বাচন হচ্ছে। মাধবদী, চুয়াডাঙ্গা ও শেরপুর পৌরসভায় হচ্ছে উপনির্বাচন। ইউনিয়ন পরিষদ: জোয়ারী, মাঝগাঁও, রাজারামপুর, ঘুরিদহ, উথলী, কেডিকে, মনোহরপুর, আলফাডাঙ্গা, বুড়াইচ, গোপালপুর, মূলনা, জিন্নাগড়, নীলকমল, আমিনাবাদ, রণগোপালদী, নূরপুর, ব্রাহ্মণডোরা, ফুলতলা, বাকই দক্ষিণ, মুদাফফরগঞ্জ উত্তর, দৌলখাড়া, রায়কোর্ট উত্তর, রায়কোর্ট দক্ষিণ, আদ্রা উত্তর, আদ্রা দক্ষিণ, জোড্ডা পূর্ব, জোড্ডা পশ্চিম, বটতলী, ইলিয়টগঞ্জ, বারপাড়া, দৌলতপুর, বাকই উত্তর, নোয়ান্নই, নোয়াখালী, ধর্মপুর, চর আলেকজান্ডারে হচ্ছে সাধারণ নির্বাচন। অপরদিকে উপনির্বাচন হচ্ছে পাঁচগাছী, উমরজিদ, বলদিয়া, রসুলপুর, পদুমশহর, গাড়াগ্রাম, মোহনপুর, রাইকালী, চারঘাট, ভারশো, মশিদপুর, ধারাবারিষা, পূর্ণিমাগাতী, নওগাঁ, তাড়াশ, লাহিড়ীপারা, গোবিন্দপুর, নশিপুর, জলমা, নাটুদহ, সিংহঝুলি, পলাশবাড়িয়া, পোরাহাটি, গাবুরা, নুরনগর, প্রতাপনগর, হামিদপুর, সাতলা, রানাপাশা, রামনা, বদলখালী, কুকুয়া, চিকনিকান্দি, স্বদেশী, রাঙ্গামাটিয়া, কাচিনা, কাদিরজঙ্গল, পূর্ব অষ্টগ্রাম, লোহাজুরী, ভাওড়া, পাইস্কা, অর্জুনা, চরশেরপুর, হাতিভাঙ্গা, নুরুন্দি, নায়েকপুর, দুওজ, স্বরমুশিয়া, বাহাদুরসাদী, কুমারভোগ, কোলা, মেহেরপারা, মুছাপুর, চরভদ্রাসন, বহুগ্রাম. নিজামকান্দি, বেথুড়ী, খানগঞ্জ, বোয়ালিয়া, রামপাশা, জলসুখা, নিজামপুর, করগাঁও, আলীনগর, পায়রগাছা, দোল্লাই, কেরণখাল, নবীপুর, বড়াইল, গোকর্ত, মহামায়া, দরবারপুর, আমিরাবাদ, সোনাপুর, মীরসরাই, রূপসীপাড়া ও পাইকগাছায়।
চট্টগ্রামে টেম্পো চলাচলের রুটের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্রকরে সংঘর্ষে আহত দুই
চট্টগ্রাম নগরীতে টেম্পো চলাচলের রুটের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে দুই সংগঠনের সংঘর্ষে দুজন শ্রমিক আহত হয়েছেন। গতকাল মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে হালিশহর থানার বিশ্বরোড নয়াবাজার হাক্কানি পেট্রোল পাম্পের সামনে চট্টগ্রাম-সীতাকুণ্ড অটো টেম্পো শ্রমিক ইউনিয়ন ও চট্টগ্রাম অটো রিকশা-অটো টেম্পো শ্রমিক লীগের শ্রমিকদের মধ্যে এ ঘটনা ঘটে। আহতরা হচ্ছেন চট্টগ্রাম-সীতাকুণ্ড অটো টেম্পো শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মো. হাসান এবং সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও মিলেনিয়াম হিউম্যান রাইটস্ এন্ড জার্নালিষ্ট ফাউন্ডেশন এর পাহাড়তলী থানার (প্রচার ও প্রকাশনা) সচিব মো. শফিক। মো. হাসানকে গুলি করা হয়েছে বলে দাবি করেছেন শ্রমিক ইউনিয়নের নেতারা। আহত দুজনকে মিলেনিয়াম হিউম্যান রাইটস্ এন্ড জার্নালিষ্ট ফাউন্ডেশন এর পক্ষ হতে গতকাল রাতে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে দেখতে যান মহানগর কমিটির মহা সচিব জনাব মৃদুল মজুমদার এবং সাংগঠনিক সচিব জনাব তসলিম কাদের চৌধুরী। ঘটনার প্রতিবাদে ধর্মঘট আহ্বান করেছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন। সংগঠনটির আহ্বানে আজ বুধববার নগরী ও জেলার সকল রুটে অটো টেম্পো চলাচল বন্ধ থাকবে। এছাড়া আগামীকাল বৃহস্পতিবার বৃহত্তর চট্টগ্রামের ৫ জেলায় (চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, বান্দরবান, রাঙামাটি ও খাগড়াছড়ি) সকল রুটে বাস, মিনিবাস, কোচ, অটো টেম্পো, অটো রিকশাসহ সকল যাত্রীবাহী গাড়ি চলাচল বন্ধ থাকবে বলে জানিয়েছেন সংগঠনটির নেতারা। তবে সকল পণ্যবাহী গাড়িকে ধর্মঘটের আওতামুক্ত রাখা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ১৩ নম্বর রুটের (বিশ্বরোড নিমতলী থেকে বড়পুল, সাগরিকা, অলংকার হয়ে সিটি গেট পর্যন্ত) নিয়ন্ত্রণ নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল দুই শ্রমিক সংগঠনের মধ্যে। এর মধ্যে চট্টগ্রাম-সীতাকুণ্ড অটো টেম্পো শ্রমিক ইউনিয়নের নেতাদের দাবি, ওই রুটে তাদের সংগঠনের যান চলাচলের অনুমতি রয়েছে। ওই রুটে সংগঠনটির সদস্যভুক্ত ১২০টি গাড়ি চলাচল করে। সংগঠনটি বিভিন্ন পরিবহনের বিপরীতে নির্ধারিত চাঁদাও আদায় করে থাকে। এদিকে একই রুটে নিয়ন্ত্রণ নিতে চায় চট্টগ্রাম অটো রিকশা-অটো টেম্পো শ্রমিক লীগ। সংগঠনটির দাবি, রুট সরকারের। কোনো সংগঠন রুটে যান চলাচলের অনুমতি দিতে পারে না। শ্রমিক ইউনিয়নের পক্ষে অভিযোগ করা হয়, শ্রমিক লীগের নেতারাও ১৩ নম্বর রুট থেকে চাঁদা দাবি করে। এদিকে গতকাল সকাল সাড়ে ১১টার দিকে হক্কানী পেট্রোল পাম্পের সামনে চট্টগ্রাম অটো রিকশা-অটো টেম্পো শ্রমিক লীগের নাম ভাঙিয়ে একদল যুবক শ্রমিকদের কাছ থেকে চাঁদা দাবি করছিল। এসময় শ্রমিক ইউনিয়নের প বাঁধা দেয়। তখন দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধে। সংঘর্ষে লাইনম্যানের দায়িত্ব পালনকারী চট্টগ্রাম-সীতাকুণ্ড অটো টেম্পো শ্রমিক ইউনিয়নের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. শফিককে ছুরিকাঘাত করা হয়। এদিকে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসার সময় সংগঠনের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক মো. হাসানকে গুলি করা হয় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। আহত দুজনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। চট্টগ্রাম-সীতাকুণ্ড অটো টেম্পো শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি খলিলুর রহমান বলেন, আমাদের সংগঠনটি রেজিস্ট্রার্ড সংগঠন। ১০, ১১, ১২ এবং ১৩ নম্বর রুটে চলাচলের রুট পারমিট আছে আমাদের। কিন্তু ১২ নম্বর রুটে এখনো আমরা সার্ভিস চালু করিনি। রুট পারমিট না থাকলেও ১৩ নম্বর রুট (আফতাব মোটর থেকে নিমতলী) গত দুই মাস ধরে দখলে নেওয়ার চেষ্টা করছে চট্টগ্রাম অটো রিকশা-অটো টেম্পু শ্রমিক লীগ। সকাল ১১টার দিকে তারা দলবদ্ধভাবে এসে নয়াবাজারে লাইনম্যান শফিকে মারধর করে। অন্যান্য শ্রমিকদেরও মারে। খবর পেয়ে হাসান একটি টেম্পোতে করে ঘটনাস্থলে যাওয়ার পথে গাড়ি থেকে নামিয়ে তার হাতে গুলি করে। হামলাকারীরা বিভিন্ন সময় চাঁদার দাবি করতেন। গত রাত সাড়ে ৯টায় এ প্রতিবেদন লেখার সময় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলে জানান তিনি। ঘটনার জন্য অভিযুক্ত সংগঠন চট্টগ্রাম অটো রিকশা-অটো টেম্পো শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম খোকন বলেন, আমি শুনেছি মারামারি হয়েছে। নিজেদের মধ্যে চাঁদাবাজির দ্বন্দ্বে ঘটনা ঘটেছে। এখন উল্টো আমাদের দায়ী করা হচ্ছে। ওরা শ্রমিক ইউনিয়নের নাম ভাঙিয়ে চাঁদা দাবি করছে। ওই রুটে আমারও ১৫০ শ্রমিক আছে। বিরোধকৃত ১৩ নম্বর রুটের পারমিট চট্টগ্রাম-সীতাকুণ্ড অটো টেম্পো শ্রমিক ইউনিয়নের কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, চট্টগ্রামে ১৬টি রুট আছে। রুটের মালিক সরকার। কেউ জোর করে তো রুটে চলাচলে বাধ্য করতে পারবে না বা সদস্যও করতে পারবে না। তাছাড়া সদস্যদের কাছ থেকে ১০ টাকার বেশি চাঁদা নেওয়ার নিয়ম নেই। ওরা আমাদের শ্রমিকদের কাছ থেকে ৬০ থেকে ৭০ টাকা পর্যন্ত নিয়েছে। এসব বিষয় নিয়ে শ্রম অধিদপ্তর, আকবর শাহ থানা এবং হালিশহর থানায় অভিযোগও আছে। ওসব অভিযোগেরও কোনো সুরাহা হয়নি। হালিশহর থানার ওসি মাহফুজুর রহমান বলেন, দুই পক্ষের মধ্যে গণ্ডগোল হয়েছে। একজন আহত আছেন। আহতরা মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছে। ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তার করা হবে। কোন দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, যতদূর শুনেছি মালিক এবং শ্রমিক পক্ষের মধ্যে হয়েছে। রুট নির্ধারণ নিয়েই এ ঘটনা ঘটেছে। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির নায়েক মো. হামিদ বলেন, সংঘর্ষে আহত দুজনকে হাসপাতালে আনা হয়েছে। আহতদের একজনের হাতে এবং অন্যজনের পেটে ছুরির আঘাত আছে। এদিকে ঘটনার প্রতিবাদে ঘর্মঘট আহ্বান করেছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন চট্টগ্রাম আঞ্চলিক কমিটি। সংগঠনটির সভাপতি মোহাম্মদ মুছা বলেন, চট্টগ্রাম-সীতাকুণ্ড রুট আছে। ওই রুটে অন্যান্য পরিবহনের পাশাপাশি অটোটেম্পোও চলে। ওই রুটে দলীয় ব্যানারে স্থানীয় কিছু যুবক দখলে নেওয়ার চেষ্টা করেছে। তারা অতর্কিত এসে হামলা চালায়। হামলাকারীরা শফিকুর রহমানকে ছুরিকাঘাত করে এবং মো. হাসানকে গুলি করে আহত করেছে। ঘটনার প্রতিবাদে ২৭ ডিসেম্বর চট্টগ্রাম মহানগরী ও জেলায় সকল রুটে অটো টেম্পো চলাচল বন্ধ থাকবে। ২৮ ডিসেম্বর বৃহত্তর চট্টগ্রামের ৫ জেলায় (চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, বান্দরবান, রাঙামাটি ও খাগড়াছড়ি) সকল রুটে বাস, মিনিবাস, কোচ, অটোটেম্পো, অটো রিকশাসহ সকল যাত্রীবাহী গাড়ি চলাচল বন্ধ থাকবে। হামলার জন্য দায়ী কারা? এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ওরা তো চিহ্নিত। ওরা দলের নাম ভাঙালেও দলের কেউ না। বহিরাগত। হামলাকারীরা কোন সংগঠনের ব্যানারে রুট দখল নিতে চায়? এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, আন রেজিস্ট্রার্ড সংগঠন। তাই একেক সময় একেক নাম দেয়। ওদের জন্য গাড়ি চালাতে পারে না। গাড়ি চালাতে গেলে চাঁদা দাবি করে। সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশনের সভা : ঘটনার প্রতিবাদে করণীয় নির্ধারণে গতকাল বিকাল ৪টায় বিআরটিসি মার্কেট সংগঠন কার্যালয়ে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন চট্টগ্রাম আঞ্চলিক কমিটি জরুরি সভা করে। এতে সভাপতিত্ব করেন ফেডারেশনের সভাপতি মোহাম্মদ মুছা। উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন পূর্বাঞ্চল কমিটির সভাপতি মৃণাল চৌধুরী, বিভাগীয় কমিটির সভাপতি হাজী রুহুল আমিন, আঞ্চলিক কমিটির কার্যকরী সভাপতি রবিউল মওলা, সাধারণ সম্পাদক অলি আহামদ, হাজী আবদুস ছবুর, শফিকুর রহমান, বোরহানুল হক, হারুনুর রশিদ, মো. ইউসুুফ, নুরুল হক, মো. হারুন, মো. শফি, নজরুল ইসলাম, মো. জাফর, নুর হোসেন, জাহেদ হোসেন, জানে আলম, নুরুল ইসলাম, মো. ইয়াসিন, মো. রফিক, নুর মোহাম্মদ, মো. ফরিদ, নাসির উদ্দিন, মো. বাবু, ওমর ফারুক, আবদুর রহিম প্রমুখ। সভায় পরিবহন শ্রমিক সংগঠন দখলবাজদের অবিলম্বে গ্রেপ্তারের দাবি জানানো হয়। এছাড়া ধর্মঘটের বিষয়টি চূড়ান্ত হয়।
ঢাকা উত্তরের মেয়র প্রার্থী শাফিন আহমেদ
আসন্ন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি) নির্বাচনে জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক আন্দোলনের (এনডিএম) সমর্থিত মেয়র প্রার্থী হিসেবে দলের উচ্চ পরিষদ সদস্য শাফিন আহমেদের নাম ঘোষণা করেছেন এনডিএম এর চেয়ারম্যান ববি হাজ্জাজ। মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবে কনফারেন্স লাউঞ্জে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন তিনি। ববি হাজ্জাজ তার রাজনৈতিক দল হিসেবে নির্বাচন কমিশনে জমা দেওয়া দলের নিবন্ধন আবেদন কার্যক্রম বর্ণনা করেন এবং আসন্ন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন উপনির্বাচনে এনডিএম সমর্থিত মেয়র প্রার্থী হিসেবে শাফিন আহমেদের নাম ঘোষণা করেন। বিখ্যাত ব্যান্ড মাইলসের অন্যতম প্রধান ভোকাল শাফিন আহমেদ। ববি হাজ্জাজ বলেন, আসন্ন ডিএনসিসি উপনির্বাচনে মেয়র পদে এনডিএম প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে চায়। আমরা বিশ্বাস করি একমাত্র নির্বাচনের মাধ্যমেই ক্ষমতার পালাবদল এবং জনগণের মতামতের প্রতিফলন ঘটা সম্ভব। তিনি বলেন, যেহেতু এই উপনির্বাচনের পরই আমরা নিবন্ধন সার্টিফিকেট পাবো, এজন্য এখন আমরা আমাদের সমর্থিত প্রার্থী হিসেবে এনডিএম সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারণী ফোরাম উচ্চ পরিষদের সদস্য শাফিন আহমেদের নাম ঘোষণা করছি। স্বপ্নের ঢাকা বাস্তবায়নের প্রতিশ্রুতি নিয়ে শাফিন আহমেদ ঢাকাবাসীর কাছে যাবেন এবং আমরা আশা করছি সচেতন ঢাকাবাসী এবং তরুণ প্রজন্ম তাকে অবস্থান নিবেন,যোগ করেন তিনি। ববি হাজ্জাজ আরো বলেন, একই সঙ্গে সরকারকে সতর্ক করব, জনগণের রায় পরিবর্তনের নীল নকশা করবেন না। নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার চেষ্টা করলে পায়ের তলার মাটি থাকবে না। সংবাদ সম্মেলনে গত ১ বছরে এনডিএম এর দেশব্যাপী বিস্তৃত সাংগঠনিক কার্যক্রম ভিডিও প্রেজেন্টেশনের মাধ্যেমে তুলে ধরেন মহাসচিব অধ্যাপক আব্দুল্লাহ মো. তাহের। এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক খোকন চৌধুরী,বিভাগীয় সম্পাদক জিসান খান, যুগ্ম সাংগঠানিক সম্পাদক হাওলাদার আবুল হোসেন, দপ্তর সম্পাদক হুমায়ন পারভেজ খান প্রমুখ।
রাজধানীর ৫৩টি স্থান গাড়ি পার্কিংয়ের জন্যে নির্ধারণ করেছে ডিএমপি
রাজধানীতে গাড়ি পার্কিংয়ের জন্যে ৫৩টি স্থান নির্দিষ্ট করে দিয়েছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)। নির্ধারিত ফি এর মাধ্যমে নির্ধারিত স্থানগুলোতে ২ হাজার ৬৮০টি গাড়ি পাকিং করা যাবে। আর এই ব্যবস্থার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে ঢাকার দুই সিটি করপোরেশনকে। ইজারাদার নিয়োগের মাধ্যমে শিগগিরই উদ্যোগের বাস্তবায়ন করা হবে। ঢাকার রাজপথে প্রতিদিন বাড়ছে গাড়ির সংখ্যা। তবে এ বিপুল পরিমাণের গাড়ি রাখার জন্যে তেমন কোনো পার্কিং ব্যবস্থা গড়ে উঠেনি। ফলে যার যেখানে ইচ্ছে গাড়ি রাখার ফলে যানযটের সৃষ্টি হয়ে বাড়ছে ভোগান্তি। তাই দীর্ঘদিনের পাকিংয়ের অব্যবস্থাপনাকে বদলে দিতে এবার ৫৩টি স্থান নির্দিষ্ট করে দিয়েছে ঢাকা মহানগর পুলিশের ট্রাফিক বিভাগ। ঢাকা মহানগর ট্রাফিক দক্ষিণ বিভাগের আওতায় নিউ মার্কেট, ধানমন্ডি, গ্রীন রোড, পলাশী ও বেইলী রোডে রাখা যাবে প্রায় ১ হাজার গাড়ি। অন্য দিকে ট্রাফিক উত্তর বিভাগের তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল, মহাখালি, গুলশান, বনানী ও উত্তরা মিলে মোট ২৫টি স্থানে পাকিং করা যাবে ৮৮৫টি গাড়ি। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি গাড়ি রাখা যাবে উত্তরার জসিম উদ্দিন সড়কের এক পাশে ৯০টি গাড়ি। ট্রাফিক পূর্ব বিভাগের নয়া পল্টন, মতিঝিল, কমলাপুর, দয়াগঞ্জ ও মাতুয়াইলসহ ১৩টি স্থানে রাখা যাবে ৬৭৮টি গাড়ি। এছাড়া ট্রাফিকের পশ্চিম বিভাগে শাহ্ আলী, মিরপুর, কচুক্ষেত ও ফার্মগেটসহ ৭টি স্থানে রাখা যাবে ১৬০টি গাড়ি। ঢাকা মহানগর পুলিশের যুগ্ম কমিশনার, ট্রাফিক (দক্ষিণ) মফিজ উদ্দিন আহম্মেদ বলেছেন, অবৈধ জাগায় গাড়ি পাকিং না করে পাকিংয়ের জন্যে যে নিদিষ্ট জায়গা নির্ধারণ করা হয়েছে সেখানে গাড়ি রাখার জন্যে আহ্বান জানাই সকলকে। নির্দিষ্ট ফি এর বিনিময়ে পার্কিংয়ের জায়গা দেখভাল করবেন ইজারাদাররা। গাড়ি পাকিংয়ের জন্যে এমন জায়গা আরো বাড়ানো হবে বলেও জানান তিনি।
দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকার ৬৫ তম প্রতিষ্ঠার বার্ষিকী পালন
আলোচনা সভা, কেক কাটা ও রযালীর মধ্যে দিয়ে নওগাঁয় দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকার ৬৫ তম প্রতিষ্ঠার বার্ষিকী পালন করা হয়েছে। এ উপলক্ষে আজ রোববার সকাল ১১ টায় শহরের ঐতিহ্যবাহী প্যারীমোহন সাধারণ গ্রন্থাগার হল রুমে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ও কেক কেটে পত্রিকার প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর উদ্বোধন করেন নওগাঁর সুযোগ্য পুলিশ সুপার ইকবাল হোসেন। নওগাঁ মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সদর উপজেলা কমান্ড বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম সামদানীর সভাপতিত্বে এতে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, অতিরিক্তি পুলিশ সুপার (সার্বিক) রাশেদুল হক, কবি ও সাহিত্যিক প্রাক্তন অধ্যাপক আতাউল হক সিদ্দিকী, জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব ও জেলার সভাপতি অ্যাডভোকেট তোফাজ্জল হোসেন খান, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব রোটারিয়ান চন্দন দেব। এ ছাড়াও বক্তব্য রাখেন, নওগাঁ সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) তোরিকুল ইসলাম, কলামিষ্ট ও প্রবীন সাংবাদিক এবিএম রফিকুল ইসলাম, সিনিয়র সাংবাদিক মাসুদুর রহমান রতন, জহির রায়হান চলচ্চিত্র সংসদ নওগাঁর সভাপতি হবিবর রহমান চৌধুরী, বরেন্দ্র রেডিওর চিফ পোগ্রাম ও সিনিয়র রিপোর্টার রিফাত হোসেন সবুজ, ইত্তেফাকের মহাদেবপুর সংবাদদাতা আজাদুল ইসলাম, মান্দার সংবাদদাতা হাবিবুর রহমান, নিয়ামতপুর সংবাদদাতা জনি আহমেদ। বক্তরা দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকার বর্ণাঢ্য কর্মপথ চলা এবং নানান দিক নিয়ে আলোচনা করেন। তারা এ সময় বলেন, সার্বভৌমত্ব, মানুষের অধিকার রক্ষা, সমাজে পিছিয়ে থাকা বা খেটে খাওয়া মানুষের অধিকার সুরক্ষা, দেশের স্বাধীনতা অর্জনের প্রশংনীয় ভূমিকার কথা তুলে ধরেন । এ ছাড়ার উপস্থিত ছিলেন বৈশাখীর টিভির প্রতিনিধি এবাদুল হক, বাংলা টিভির প্রতিনিধি আশরাফুল ইসলাম নয়ন, দৈনিক যুগান্তরের প্রতিনিধি আব্বাস আলী, তৃতীয় মাত্রার প্রতিনিধি আব্দুল মান্নান, প্রত্যাশা প্রতিদিনের প্রতিনিধি ফারমান আলী, যায়যায় দিনের প্রতিনিধি রুহুল আমিনসহ জেলার বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। অনুষ্ঠান সংঞ্চালন করেন জহির রায়হান চলচ্চিত্র সংসদ নওগাঁর সাধারন সম্পাদক রহমান রায়হান। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকা ও একাত্তর টেলিভিশনের জেলা প্রতিনিধি তন্ময় ভৌমিক। পরে একটি রযালী শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে।
পদদলিত হয়ে নিহত ১০ সংখ্যালঘুর পরিবারকে ৫ লাখ টাকা করে অনুদান দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী
চট্টগ্রামের রীমা কনভেনশন সেন্টারে মহিউদ্দিন চৌধুরীর জেয়াফত উপলক্ষে মেজবান খেতে গিয়ে ভিড়ের চাপে পদদলিত হয়ে নিহত ১০ সংখ্যালঘুর পরিবারকে ৫ লাখ টাকা করে অনুদান দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আজ রবিবার বিকালে নগরীর চশমা হিলের বাসায় মহিউদ্দিন পরিবারকে শান্তনা জানাতে এসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ অনুদানের ঘোষণা দেন। প্রসঙ্গত, প্রয়াত মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি ও সাবেক সিটি মেয়র এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীরর কুলখানি উপলক্ষে গত ১৮ ডিসেম্বর সোমবার দুপুরে নগরীর বিভিন্ন স্থানের ১২টি কমিউনিটি সেন্টারে অন্তত দেড় লাখ লোকের জন্য মেজবানের আয়োজন করা হয়। সকাল ১১ টা থেকে মেজবান খাওয়ানো শুরু হয়। নগরীরর এস এস খালেদ রোডস্থ (আসকার দীঘির পাড়) রীমা কনভেনশন সেন্টারে হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্ট্রান সহ সংখ্যালঘুদের জন্য খাবারের ব্যাবস্থা করা হয়। দুপুর দেড়টার দিকে, প্রচন্ড ভীড়ের চাপে পদদলিত হয়ে ১০ জন নিহত ও অন্তত ৪০ জন আহত হয়।
নির্বাচনে জয়ের পর প্রতিদন্দী প্রার্থিদের সঙ্গে সাক্ষাত মোস্তাফিজার
সাবেক মেয়র সরফুদ্দীন আহমেদ ঝন্টুর সঙ্গে তার বাসায় গিয়ে সাক্ষাত করেছেন রংপুর সিটি করপোরেশনের নব নির্বাচিত মেয়র মোস্তাফিজার রহমান। গতরাত (শুক্রবার) ৮টার দিকে দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে সরফুদ্দীন আহমেদ ঝন্টুর বাসায় গিয়ে সাক্ষাৎ করেন তিনি। এ সময় রংপুর সিটি করপোরেশনের নব নির্বাচিত মেয়রকে স্বাগত জানান সাবেক মেয়র ও প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা সরফুদ্দীন আহমেদ ঝন্টু। এ সময় সিটি করপোরেশনের উন্নয়নে সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দেন তিনি। এসময় মোস্তাফিজার রহমান বলেন, 'আগামী দিনে সিটি করপোরেশন চালানোর জন্য উনারও প্রয়োজন আছে সেজন্যই আমি উনার কাছে এসেছি। উনি দোয়া করেছেন। আগামী দিনে সহযোগিতা করবেন, সেটাও বলেছেন। এখানে যত রাজনৈতিক দল আছে তাদের সঙ্গে আমি সহযোগিতার ভিত্তিতে কাজ করবো। আমি বাবলা (বিএনপি মনোনীত প্রার্থী) সাহেবের কাছেও যাবো।'
এ সরকারের আমলে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব না সেটা আবারও প্রমাণ করেছে-বিএনপি
রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে চূড়ান্ত ফল ঘোষণার আগেই তা প্রত্যাখ্যান করলেন বিএনপি প্রার্থী কাওসার জামান বাবলা। বিভিন্ন কেন্দ্রে ব্যাপক হারে কারচুপি হয়েছে দাবি করে তিনি এই ফল প্রত্যাখ্যান করেন। বৃহস্পতিবার (২১ ডিসেম্বর) রাত ৯টার দিকে জেলা বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলন করেন কাওসার জামান বাবলা। এই সংবাদ সম্মেলনেই তিনি ফল প্রত্যাখ্যানসহ নির্বাচন নিয়ে বিভিন্ন অভিযোগ করেন। সংবাদ সম্মেলনে বাবলা অভিযোগ করে বলেন, ভোটারদের ভয় দেখিয়ে ভোটকেন্দ্রে যাওয়া থেকে বিরত রাখা হয়েছে। জীবনের ঝুঁকির কারণে অনেক মানুষই ভোট দিতে যায়নি। নির্বাচনে ৩৩নং ওয়ার্ডের একটি ভোটকেন্দ্রের অনিয়মের উদাহরণ তুলে ধরে বাবলা জানান, ওই কেন্দ্র থেকে তার এক কর্মী ফোন দিয়ে জানায়, সেখানকার ব্যালট পেপারে সিল বা সই- কিছুই নেই। সে সময় তিনি ওই কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসারের সঙ্গে কথা বলেন। দাবি করেন, এ বিষয়ে প্রিসাইডিং অফিসার ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিলেও এর এক ঘণ্টা পরও তিনি খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন, কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। বাবলা জানান, ইভিএম ব্যবহার করা একমাত্র ভোটকেন্দ্র সরকারি বেগম রোকেয়া কলেজ পরিদর্শনে গিয়েছিলেন তিনি। সেখানে রংপুরের জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের সঙ্গে তার কথা হয়। বাবলা বলেন, রংপুরের জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের সঙ্গে আমার কথা হলো। তাদের ওই কেন্দ্রের বিষয়ে অভিযোগের কথা জানালাম। তারা নোট করলেন, আমাকে আশ্বস্ত করলেন। আমি জেলা রিটার্নিং অফিসারকেও এ বিষয়ে জানিয়েছি। কিন্তু কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। বাবলা দাবি করেন, ৩৩নং ওয়ার্ডের মতো এই নির্বাচনে অনেক ভোটকেন্দ্রেই ব্যাপক অনিয়ম হয়েছে, ব্যাপক কারচুপি করা হয়েছে। আর সে কারণেই তিনি এই নির্বাচনের ফল প্রত্যাখ্যান করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে এক সাংবাদিক জানতে চান, ফল প্রত্যাখ্যানের এই সিদ্ধান্ত তার নিজের নাকি দলের কেন্দ্রের সিদ্ধান্তে তিনি ফল প্রত্যাখ্যান করছেন। এর জবাবে বাবলা বলেন, কেন্দ্রের সঙ্গে আমার কোনও আলাপ হয়নি। আমি এখানকার অবস্থা দেখে নিজে থেকেই ফল প্রত্যাখ্যান করছি।
মিলেনিয়াম হিউম্যান রাইটস এর পক্ষ থেকে চ.সি.ক ভারপ্রাপ্ত মেয়রকে ফুলেল শুভেচ্ছা
-নিজস্ব প্রতিনিধি, চট্টগ্রাম। চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র আলহাজ্ব নিছার উদ্দিন আহম্মেদ মঞ্জুকে, মিলেনিয়াম হিউম্যান রাইটস্ এন্ড জর্নালিস্ট ফাউন্ডেশন, চট্টগ্রাম এর সকল কমিটির পক্ষ থেকে জেলা কমিটির মহাসচিব ফয়সাল হাসান এর নেতৃত্বে অদ্য নগর ভবনে ফুলেল শুভেচ্ছা প্রধান করা হয়। এতে আরো উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম জেলা কমিটির চেয়ারম্যান লোকমান আলী, মহারগর কমিটির চেয়ারম্যান জিয়া উদ্দীন কাদের, মহাসচিব মৃদুল মজুমদার জেলার সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান এম.এ হক রানা, যুগ্ন-মহাসচিব সাইফুল ইসলাম, সমাজ কল্যান সচিব নিহার কান্তি দাশ। উত্তর জেলার চেয়ারম্যান নুর নবী চৌধুরী প্রমুখ। উপস্থিত সকলে একজন পরিচ্ছন্ন নিরপেক্ষ এবং সমাজসেবা ১০ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর নিছার উদ্দীন আহম্মেদ মঞ্জুর দীর্ঘায়ু কামনা এবং তাহার কর্মের সফলতায় সকলকে একযোগে কাজ করার জন্য আহব্বান জনান।

সারা দেশ পাতার আরো খবর