বুধবার, নভেম্বর ২১, ২০১৮
জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা শুরু ১ নভেম্বর
অনলাইন ডেস্ক: জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষা শুরু হতে যাচ্ছে আগামী ১ নভেম্বর থেকে। আজ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সূত্র থেকে এ তথ্য জানা গেছে। ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মু. জিয়াউল হক গণমাধ্যমকে জানান, জেএসসি-জেডিসি পরীক্ষা ১ নভেম্বর শুরু করার প্রস্তাব করা হয়েছে। চলবে ১৫ নভেম্বর পর্যন্ত। প্রথম দিন জেএসসিতে থাকবে বাংলা পরীক্ষা। তিনি বলেন, আগের মতোই সকাল ১০টা ও বিকাল ২টায় দুটি করে পরীক্ষা আয়োজন করা হবে। পরীক্ষা শুরুর ৩০ মিনিট আগে পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশ করতে হবে। মাদ্রাসা ও কারিগরি শিক্ষা বিভাগের উপসচিব মো. আবদুল খালেক স্বাক্ষরিত সূচিতে দেখা গেছে, প্রথম দিন জেডিসি অনুষ্ঠিত হবে কোরআন মজিদ ও তাজবিদ বিষয়ের পরীক্ষা দিয়ে।
প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা শুরু ১৮ নভেম্বর
অনলাইন ডেস্ক :চলতি বছর পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা শুরু হবে ১৮ নভেম্বর। চলতি বছর পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা শুরু হবে ১৮ নভেম্বর। বুধবার সচিবালয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান ফিজারের সভাপতিত্বে এ পরীক্ষা সংক্রান্ত জাতীয় স্টিয়ারিং কমিটির সভায় এ তারিখ চূড়ান্ত হয়। মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা রবীন্দ্রনাথ রায় জানান, ১৮ নভেম্বর পরীক্ষা শুরু হয়ে চলবে ২৬ নভেম্বর পর্যন্ত। তবে অন্যবার বেলা ১১টা থেকে এই পরীক্ষা শুরু হলেও এবার সকাল সাড়ে ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত পরীক্ষা হবে। পরীক্ষার সময় আগের মতো আড়াই ঘণ্টাই থাকছে বলে জানান তিনি। ডিসেম্বরের শেষ দিকে সারা দেশে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে একযোগে প্রাথমিক ও ইবদেতায়ি সমাপনী পরীক্ষা নেয়া হলেও পরীক্ষা শুরুর সুনির্দিষ্ট কোনো তারিখ নির্ধারণ করা থাকে না। রবীন্দ্রনাথ জানান, পরীক্ষায় বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন পরীক্ষার্থীদের আগে অতিরিক্ত ২০ মিনিট সময় দেয়া হলেও এবার থেকে তাদের ৩০ মিনিট অতিরিক্ত সময় দেয়া হবে।
মাদ্রাসা বোর্ডে পাসের হার বেড়েছে
অনলাইন ডেস্ক :মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের অধীনে আলিম পরীক্ষায় পাসের হার বেড়েছে। তবে জিপিএ-৫ কমেছে। মাদ্রাসা বোর্ডে পাসের হার ৭৮ দশমিক ৬৭ শতাংশ। গতবার পাসের হার ছিল ৭৭ দশমিক ২ শতাংশ। গতবারের চেয়ে বেড়েছে ১ দশমিক ৬৫ শতাংশ। জিপিএ-৫ পেয়েছে ১ হাজার ২৪৪ জন শিক্ষার্থী। গতবার জিপিএ-৫ পয়েছিল ১ হাজার ৮১৫ জন। জিপিএ-৫ কমেছে ৫৭১টি। মাদ্রাসা বোর্ডে পরীক্ষার্থী দিয়েছিল ১ লাখ ১২৭ জন শিক্ষার্থী। পাস করেছে ৭৬ হাজার ৯৩২ জন ।এর আগে সকাল ১০টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে ফল হস্তান্তর করা হয়। গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর হাতে ফলাফলের সারসংক্ষেপ তুলে দেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। এরপর দুপুর ১টায় সচিবালয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ সংবাদ সম্মেলনে ফল প্রকাশের ঘোষণা দেবেন। দুপুর দেড়টা থেকে পরীক্ষার্থীরা নিজেদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ছাড়াও শিক্ষা বোর্ডগুলোর ওয়েবসাইট (http://www.educationboard.gov.bd) থেকে ফল জানতে পারবে। এছাড়া এসএমএস ও অনলাইনে ফল জানা যাবে। এবার পরীক্ষা শেষ হওয়ার ৫৮ দিনে ফল প্রকাশ করা হচ্ছে। এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হয় গত ২ এপ্রিল। তত্ত্বীয় পরীক্ষা চলে ১৩ মে পর্যন্ত। আর ১৪ থেকে ২৩ মের মধ্যে অনুষ্ঠিত হয় ব্যবহারিক পরীক্ষা। সারা দেশে ১০টি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় এবার ১৩ লাখ ১১ হাজার ৪৫৭ জন শিক্ষার্থী অংশ নেয়। এর মধ্যে সাধারণ আট বোর্ডে শিক্ষার্থী ছিল ১০ লাখ ৯২ হাজার ৬০৭ জন। মাদ্রাসা বোর্ডে পরীক্ষার্থী ছিল ১ লাখ ১২৭ জন। কারিগরি বোর্ডের অধীনে ১ লাখ ১৭ হাজার ৭৫৪ পরীক্ষার্থী ছিল। যেভাবে জানা যাবে ফল আটটি সাধারণ বোর্ডের অধীনে এইচএসসির ফল জানাতে HSC লিখে স্পেস দিয়ে বোর্ডের প্রথম তিন অক্ষর স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে ২০১৮ লিখে ১৬২২২ নম্বরে এসএমএস পাঠাতে হবে। ফিরতি এসএমএসে ফল জানিয়ে দেওয়া হবে। আলিমের ফল জানতে Alim লিখে স্পেস দিয়ে Mad স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে ২০১৮ লিখে ১৬২২২ নম্বরে এসএমএস পাঠাতে হবে। ফিরতি এসএমএসে ফল পাওয়া যাবে। এছাড়া এইচএসসি ভোকেশনালের ফল জানতে HSC লিখে স্পেস দিয়ে Tec লিখে স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে ২০১৮ লিখে ১৬২২২ নম্বরে এসএমএস পাঠাতে হবে। ফিরতি এসএমএসে ফল জানিয়ে দেওয়া হবে।
আগামীকাল থেকে ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন করা যাবে
অনলাইন ডেস্ক :মাদরাসা, কারিগরিসহ সব শিক্ষা বোর্ডের অধীন উচ্চমাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) ও সমমানের পরীক্ষার ফল আজ প্রকাশিত হয়েছে। পাসের হার ৬৬ দশমিক ৬৪। আগামীকাল শুক্রবার থেকে এইচএসসি ও সমমানের ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন করা যাবে। ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক তপন কুমার সরকার জানিয়েছেন, আগামীকাল ২০ জুলাই থেকে এইচএসসির ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন শুরু হবে। আবেদনের সময় শেষ হবে ২৬ জুলাই বৃহস্পতিবার। ফল পুনঃনিরীক্ষণের আবেদন করতে RSC লিখে স্পেস দিয়ে বোর্ডের নামের প্রথম তিন অক্ষর লিখে স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে বিষয় কোড লিখে ১৬২২২ নম্বরে পাঠাতে হবে। ফিরতি এসএমএসে ফি বাবদ কত টাকা কেটে নেওয়া হবে তা জানিয়ে একটি পিন নম্বর (পার্সোনাল আইডেন্টিফিকেশন নম্বর-PIN) দেওয়া হবে। আবেদনে সম্মত থাকলে RSC লিখে স্পেস দিয়ে YES লিখে স্পেস দিয়ে পিন নম্বর লিখে স্পেস দিয়ে যোগাযোগের জন্য একটি মোবাইল নম্বর লিখে ১৬২২২ নম্বরে এসএমএস পাঠাতে হবে। প্রতিটি বিষয় ও প্রতি পত্রের জন্য দেড়শ টাকা হারে চার্জ কাটা হবে। যেসব বিষয়ের দুটি পত্র (প্রথম ও দ্বিতীয় পত্র) রয়েছে যেসব বিষয়ের ফল পুনঃনিরীক্ষার আবেদন করলে দুটি পত্রের জন্য মোট ৩০০ টাকা ফি কাটা হবে। একই এসএমএসে একাধিক বিষয়ের আবেদন করা যাবে, এক্ষেত্রে বিষয় কোড পর্যায়ক্রমে ‘কমা’ দিয়ে লিখতে হবে। তবে ম্যানুয়েল কোনো আবেদন গ্রহণ করা হবে না বলে ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।
এবার এইচএসসি ও সমমানে পাসের হার ৬৬.৬৪
অনলাইন ডেস্ক :মাদরাসা, কারিগরিসহ ১০টি শিক্ষা বোর্ডের অধীন উচ্চমাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) ও সমমানের পরীক্ষার পাসের হার ৬৬ দশমিক ৬৪। মোট জিপিএ-৫ পেয়েছে ২৯ হাজার ২৬২ জন শিক্ষার্থী। গত বছর ১০ বোর্ডের পাসের গড় হার ছিল ৬৮ দশমিক ৯১ শতাংশ। সে হিসেবে এবার পাসের হার কমেছে ২ দশমিক ২৭ শতাংশ। এ বছর মোট পাস করেছে ৮ লাখ ৫৮ হাজার ৮০১ জন শিক্ষার্থী। বৃহস্পতিবার সকালে প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে ফলাফলের অনুলিপি তুলে দেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। সেখানে তিনি ফলাফলের সংক্ষিপ্ত কিছু তথ্য তুলে ধরেন। চলতি বছর সারাদেশের দুই হাজার ৫৪১টি কেন্দ্রে এবার এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় ১৩ লাখ ১১ হাজার ৪৫৭ জন শিক্ষার্থী অংশ নেয়। এরমধ্যে সাধারণ আট বোর্ডে শিক্ষার্থী সংখ্যা ১০ লাখ ৯২ হাজার ৬০৭ জন। গত ২ এপ্রিল শুরু হয় এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা। তত্ত্বীয় পরীক্ষা চলে ১৩ মে পর্যন্ত। আর ১৪ থেকে ২৩ মের মধ্যে অনুষ্ঠিত হয় ব্যবহারিক পরীক্ষা।
আগামী সপ্তাহে এমপিওভুক্তির আবেদনের বিজ্ঞপ্তি
অনলাইন ডেস্ক :বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে এমপিও (মান্থলি পেমেন্ট অর্ডার) দিতে অনলাইনে আবেদনের জন্য আগামী সপ্তাহে বিজ্ঞপ্তি জারি করবে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করতে গঠন করা ও এমপিওভুক্তির জন্য বাছাই’ কমিটি‘ সদস্য ও মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের যুগ্ম সচিব (সরকারি মাধ্যমিক) সালমা জাহান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, অনলাইনের মধ্যে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করতে দ্রুত সময়ে আবেদনপত্র জমা দেওয়ার জন্য বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হবে। আগামী রবিবার বৈঠক অনলাইনে আবেদন ফরম চূড়ান্ত করা হবে। ওইদিনই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বিজ্ঞপ্তি দেওয়ার। আশাকরি সোমবার বা মঙ্গলবারের মধ্যে বিজ্ঞপ্তি দেওয়া সম্ভব হবে। বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিও দিতে গত ২০ জুন দু’টি কমিটি গঠন করে মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ। এর একটি শর্তপূরণ করা প্রতিষ্ঠানের তালিকা প্রস্তুতের জন্য ‘অনলাইন অ্যাপলিকেশন গ্রহণ ও ব্যবস্থাপনা’ কমিটি এবং অন্যটি‘এমপিওভুক্তির জন্য বাছাই’ কমিটি। এর আগে ‘এমপিওভুক্তির জন্য বাছাই’ কমিটির আহ্বায়ক জাবেদ আহমেদ জানিয়েছিলেন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির জন্য আগামী ১৫ জুলাইয়ের পর আবেদন গ্রহণের লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছে কমিটি। অনলাইন আবেদন ফরম সম্পন্ন হলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে আবেদন জানাতে বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হবে। সর্বশেষ ২০১০ সালে এক হাজার ৬২৪টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করা হয়। এরপর এমপিওভুক্তি সাময়িকভাবে বন্ধ রয়েছে।
নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান দ্রুত এমপিওভুক্তি করা হবে
অনলাইন ডেস্ক :নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো দ্রুত এমপিওভুক্তির চেষ্টা করা হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। তিনি বলেন, যে সব শিক্ষক এমপিওভুক্ত হবেন, তারা জুলাই মাস থেকেই বেতন প্রাপ্য হবেন। এজন্য মন্ত্রণালয়ে দুটি কমিটি কাজ করছে। শিক্ষামন্ত্রী আজ বুধবার সচিবালয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অফিসকক্ষে নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক প্রতিনিধি সদস্যদের একটি প্রতিনিধিদলের সাথে বৈঠকে এ কথা বলেন। নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয় শুরু থেকেই শিক্ষকদের কল্যাণে কাজ করছে। এবারও সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাব। বৈঠকে শিক্ষামন্ত্রী বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করতে সরকারের বিভিন্ন প্রচেষ্টা ও উদ্যোগ তুলে ধরেন। শিক্ষক প্রতিনিধিদলে উপস্থিত ছিলেন নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক-কর্মচারী ফেডারেশনের সভাপতি অধ্যক্ষ গোলাম মাহমুদুন্নবী, সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ ড. বিনয় ভূষণ রায়, সদস্য মো. শফিকুল ইসলাম, মো. আনোয়ার হোসেন এবং জহুরুল ইসলাম।
এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ ১৯ জুলাই
অনলাইন ডেস্ক :এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হবে আগামী ১৯ জুলাই। ওইদিন সকালে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ শিক্ষা বোর্ড চেয়ারম্যানদের সঙ্গে নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে ফলাফলের কপি তুলে দেবেন। এরপর দুপুরে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে শিক্ষামন্ত্রী সংবাদ সম্মেলনে আনুষ্ঠানিকভাবে ফলাফল ঘোষণা করবেন।বৃহস্পতিবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা আফরাজুর রহমান জাগো নিউজকে বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী ১৯ জুলাই এইচএসসির ফল প্রকাশের জন্য সময় দিয়েছেন।’ শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে জানা গেছে, আটটি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডের এইচএসসি, মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের আলিম ও কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের এইচএসসি (ভোকেশনাল) ও ডিআইবিএস পরীক্ষার ফল ১৯ জুলাই দুপুরে সংবাদ সম্মেলনের পর থেকে পাওয়া যাবে। দেশের শিক্ষা বোর্ডগুলোর ওয়েবসাইট, সংশ্লিষ্ট সকল পরীক্ষা কেন্দ্র/শিক্ষা প্রতিষ্ঠান (সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের ওয়েব মেইল) এবং এসএমএস এর মাধ্যমে একযোগে প্রকাশ করা হবে।এ বছর এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হয় গত ২ এপ্রিল। এবার ১০ বোর্ডে মোট ১৩ লাখ ১১ হাজার ৪৫৭ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিয়েছে। তত্ত্বীয় (লিখিত) পরীক্ষা শেষ হয় ১৪ মে।
দাওরায়ে হাদিসের ফলাফল প্রকাশ
অনলাইন ডেস্ক :আল-হাইআতুল উলয়া লিল-জামি‘আতিল কওমিয়া বাংলাদেশ-এর কেন্দ্রীয় পরীক্ষার ফলাফল বৃহস্পতিবার প্রকাশিত হয়েছে। পরীক্ষার গড় পাসের হার ৭৩.৩৪ শতাংশ। ছাত্রদের পাসের হার ৭৬ শতাংশ আর ছাত্রীদের পাশের হার ৬৬.৮৩ শতাংশ। আল-হাইআতুল উলয়া লিল-জামি‘আতিল কওমিয়ার কো-চেয়ারম্যান আল্লামা আশরাফ আলী। ফলাফল ঘোষণার আগে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক আল্লামা হাফেয মাওলানা ইসমাঈল ফলাফলের ফাইল কো-চেয়ারম্যানের কাছে হস্তান্তর করেন।বৃহস্পতিবার সকালে মতিঝিলস্থ কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ ফলাফল ঘোষণা করার সময় ছয়টি বোর্ডের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। প্রতিনিধিগণ আগামী পরীক্ষার ফলাফল রমযান মাসে প্রকাশ করার অনুরোধ জানান।আনুষ্ঠানিকভাবে ফল প্রকাশ করে আল্লামা আশরাফ আলী বলেন, দাওরায়ে হাদীসের মাস্টার্সের সমমান দেয়ার পর কেন্দ্রীয় পরীক্ষা শুরু হওয়ায় ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে মেধার প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে। এ প্রতিযোগিতার কারণে শিক্ষার্থীদের বেশি লেখাপড়া করতে হচ্ছে।। অভিন্ন প্রশ্নপত্রে দ্বিতীয়বারের মতো কেন্দ্রীয় পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হওয়ার পর অনেক সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও নির্ধারিত তারিখে ফলাফল ঘোষণা করা সম্ভব হয়েছে। উল্লেখ্য ২০১৭ সালের ১১ এপ্রিল গণভবনে প্রধানমন্ত্রী কওমী মাদরাসার দাওরায়ে হাদীসের সনদকে মাস্টার্স (ইসলামিক স্টাডিজ এবং আরবি) এর সমমান প্রদানের ঘোষণা দেন।)দিবিতীয়বারের পরীক্ষায় মোট পরীক্ষার্থী ছিল ২০ হাজার ৭৪৯ জন। এদের মধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে ১৪ হাজার ৫৩৪ জন। এর মধ্যে ছাত্র ১০ হাজার ৬৮৮ জন এবং ছাত্রী ৩ হাজার ৮৪৬ জন। পাসের হার ছাত্র ৭৬ শতাংশ, ছাত্রী ৬৬.৮৩ শতাংশ। মুমতায (স্টার মার্ক) পেয়েছে ছাত্র ৬৫৬ জন এবং ছাত্রী ৫৯ জন। জায়্যিদ জিদ্দান (১ম) বিভাগে উত্তীর্ণ হয়েছে ছাত্র ২ হাজার ৮৩৫ জন, ছাত্রী ৬৭২ জন। জায়্যিদ (২য়) বিভাগে উত্তীর্ণ হয়েছে ছাত্র ৪ হাজার ৩৪ জন, ছাত্রী ১ হাজার ৫৫২ জন এবং মাকবূল (৩য়) বিভাগে উত্তীর্ণ হয়েছে ছাত্র ৩ হাজার ১৬৩ জন, ছাত্রী ১ হাজার ৫৬৩ জন।ছাত্রদের মেধা তালিকায় শীর্ষে স্থান অর্জন করেছেন যৌথভাবে ২ জন। তারা হলেন, বগুড়া জেলার জামেয়া ইসলামিয়া কাছেমুল উলূম (জামিল মাদরাসা)-এর মুহাঃ শামসুল হক এবং ঢাকা জেলার জামিয়া আরাবিয়া ইমদাদুল উলূম ফরিদাবাদ মাদরাসার খলিল আহমদ নাদিম। মেধা তালিকায় ২য় স্থান অর্জন করেছেন যৌথভাবে ২ জন। তারা হল কিশোরগঞ্জ জেলার জামিয়া নূরানিয়া তারাপাশা মাদরাসার মুহাঃ নাসীরুদ্দীন এবং চট্টগ্রাম জেলার আল-জামিয়া আল-ইসলামিয়া পটিয়া মাদরাসার মোহাম্মদ খুবাইব রাজী। মেধা তালিকায় ৩য় স্থানও অর্জন করেছেন যৌথভাবে ২ জন পরীক্ষার্থী। তারা হলেন ঢাকা জেলার জামিয়াতুল উলুমিল ইসলামিয়া মাদরাসার জিহাদুল ইসলাম এবং চট্টগ্রাম জেলার আল-জামিয়া আল-ইসলামিয়া পটিয়া মাদরাসার আয়াতুল্লাহ।ছাত্রীদের মেধা তালিকায় শীষ স্থান অর্জন করেছেন, ঢাকা জেলার মাহমুদিয়া মহিলা মাদরাসার মুনজিয়া ইসলাম। মেধা তালিকায় ২য় স্থান অর্জন করেছেন নরসিংদী জেলার আয়েশা সিদ্দীকা মহিলা মাদরাসার মোসা: শামিমা এবং ৩য় স্থান লাভ করেছেন যৌথভাবে ৩ জন ছাত্রী। তারা হলেন চট্টগ্রাম জেলার আল হুদা মহিলা মাদরাসার রাহমা, ও ঢাকা জেলার আয়েশা সিদ্দীকা (রা.) ঢালকানগর মহিলা মাদরাসার হাফসা সুলতানা এবং ফাহিমা মুসাররাত।

শিক্ষা পাতার আরো খবর