১৯৫ রানেই অলআউট ইংল্যান্ড
১৭ বল আর ১০ রানে শেষ ৪ উইকেট হারিয়ে ব্রিসবেন টেস্টে দ্বিতীয় ইনিংসে ১৯৫ রানেই অলআউট হয়েছে ইংল্যান্ড। অ্যাশেজের প্রথম টেস্ট জিততে অস্ট্রেলিয়াকে করতে হবে ১৭০ রান। তৃতীয় দিনের ২ উইকেটে ৩৩ রান নিয়ে আজ চতুর্থ দিন শুরু করেছিল ইংল্যান্ড। মার্ক স্টোনম্যানকে (২৭) ফিরিয়ে অস্ট্রেলিয়াকে দিনের প্রথম সাফল্য এনে দেন স্পিনার নাথান লায়ন। ওই লায়নের বলেই দ্রুত ফেরেন ডেভিড মালানও (৪)। দুজনই ক্যাচ দেন স্টিভ স্মিথকে। ২ উইকেটে ৬২ থেকে ইংল্যান্ডের স্কোর তখন ৪ উইকেটে ৭৪! ৫ রান নিয়ে দিন শুরু করা জো রুট তুলে নিয়েছিলেন ফিফটি। কিন্তু এরপর আর ইনিংস বড় করতে পারেননি ইংলিশ অধিনায়ক। ৫১ রান করা রুটকে এলবিডব্লিউ করেন পেসার জশ হ্যাজেলউড। ষষ্ঠ উইকেটে ৪২ রানের জুটি গড়েছিলেন মঈন আলী ও জনি বেয়ারস্টো। লায়নের বলে টিম পাইনের হাতে মঈন (৪০) স্টাম্পড হয়ে গেলে ভাঙে এ জুটি। সপ্তম উইকেটে ক্রিস ওকসকে সঙ্গে নিয়ে ৩০ রানের জুটি গড়েন বেয়ারস্টো। কিন্তু এ জুটি ভাঙার পর ইংল্যান্ডের লেজ গুটিয়ে যেতে খুব একটা সময় লাগেনি। মিচেল স্টার্ক একই ওভারে ফিরিয়ে দেন বেয়ারস্টো (৪২) ও স্টুয়ার্ট ব্রডকে। পরের ওভারে জেক বলকে ফিরিয়ে সফরকারীদের ইনিংসের ইতি টানেন প্যাট কামিন্স। এর আগে ওকসকে (১৭) ফেরান স্টার্ক। চা বিরতির পর লক্ষ্য তাড়া করতে নেমেছে অস্ট্রেলিয়া। এর আগে প্রথম ইনিংসে ইংল্যান্ডের ৩০২ রানের জবাবে স্মিথের অপরাজিত সেঞ্চুরিতে অস্ট্রেলিয়া করেছিল ৩২৮।
২৪ নভেম্বর থেকে চট্টগ্রামে বিপিএল
সিলেটে-ঢাকা মাতিয়ে এবার বন্দর নগরী চট্টগ্রামে যাচ্ছে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) পঞ্চম আসর। সে জন্য ২২ এবং ২৩ নভেম্বর বিপিএলের কোনো খেলা মাঠে গড়াবে না। ২৪ নভেম্বর থেকে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে শুরু হবে বিপিএল তৃতীয় পর্ব। যাত্রা দিনের প্রথম ম্যাচে খুলনা টাইটানসের মুখোমুখি হবে রংপুর রাইডার্স। দ্বিতীয় ম্যাচে ঘরের দল চিটাগং ভাইকিংস খেলবে সিলেট সিক্সার্সের বিপক্ষে। ২৯ নভেম্বর পর্যন্ত খেলা চলবে চট্টগ্রামের মাটিতে। ২ ডিসেম্বর দ্বিতীয়বারের মতো ঢাকায় ফিরে ১২ ডিসেম্বর পর্দা নামবে বিপিএলের। দুই পর্ব শেষে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে আছে তামিম ইকবালের দল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ানস। তাদের পয়েন্ট ৬ ম্যাচে ১০। দুইয়ে আছে সাকিব আল হাসানের ঢাকা ডায়নামাইটস। ৮ ম্যাচে ৯ পয়েন্ট রয়েছে তাদের ঝুলিতে। তিন নম্বর জায়গাটা দখলে নিয়েছে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের খুলনা টাইটানস। ৭ ম্যাচে ৯ পয়েন্ট তাদের। চারে আছে নাসির হোসেনের সিলেট সিক্সার্স। তাদের নামের পাশে আছে ৭ পয়েন্ট। পাঁচ, ছয় এবং সাতে যথাক্রমে রংপুর রাইডার্স (৬ ম্যাচে ৬ পয়েন্ট), রাজশাহী কিংস ( ৭ ম্যাচে পয়েন্ট ৪), চিটাগং ভাইকিংস ( ৬ ম্যাচে ৩ পয়েন্ট)।
সুজনকে অন্তর্বর্তীকালীন কোচ নিয়োগ
চন্ডিকা হাথুরুসিংহে থাকবেন কী থাকবেন না- এখনও এ বিষয়ে অন্ধকারে রয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড। এখনও তারা আশা করছেন, হাথুরু ঢাকায় আসবেন এবং তার সঙ্গে সব বিষয়ে কথা-বার্তা বলার সুযোগ পাবেন তারা। তবে, আগামী মাসের শেষের দিকেই যেহেতু পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলার জন্য শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দল বাংলাদেশে আসছে, সে জন্য হাথুরু আসছে না ধরে নিয়েই খালেদ মাহমুদ সুজনকে অন্তর্বর্তীকালীন কোচ নিয়োগ দিয়েছে বিসিবি। সোমবার বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন নিজেই এক সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দিয়েছেন। চন্ডিকা হাথুরুসিংহে আর আসছেন না- এমন নিশ্চিত সংবাদ আগেও একাধিকবার প্রকাশ হয়েছে বিভিন্ন অনলাইনে। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড থেকে বারবার বলা হচ্ছিল, তারা হাথুরুর অপেক্ষায় রয়েছেন। তিনি ঢাকায় এসে তাদের (বিসিবির) সঙ্গে আলোচনা না করা পর্যন্ত আনুষ্ঠানিক কোনো ঘোষণাও দিতে পারছেন না তারা। এমনকি এটাও বলছিলেন, নির্দিষ্ট একটা সময় পর্যন্ত তারা অপেক্ষা করবেন। হাথুরু এর মধ্যে না আসলে ভিন্ন কোনো সিদ্ধান্ত নেবে বিসিবি।
কোহলির সেঞ্চুরির ফিফটিতে জয়ের হাতছানি ভারতের!
বিরাট কোহলির ক্যারিয়ার সাফল্যে মোড়া। তাঁর সাফল্যের মুকুটে প্রতিনিয়তই যোগ হচ্ছে নতুন নতুন রত্ন। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ইতিহাসের দ্রুততম সময়ে ৫০তম সেঞ্চুরি তুলে নিলেন ভারত-অধিনায়ক। সেঞ্চুরির ‘ফিফটি’ করতে তিনি খেলেছেন ৩৪৮টি ইনিংস। কোহলির সঙ্গে এখানে অবশ্য ‘খেলা’ অমীমাংসিতই থাকছে হাশিম আমলার। প্রোটিয়া ব্যাটসম্যানও নিজের আন্তর্জাতিক সেঞ্চুরির ‘ফিফটি’ করতে খেলেছেন ৩৪৮টি ইনিংস। কলকাতা টেস্টের পঞ্চম দিনে হঠাৎ করেই চালকের আসনে চলে এসেছে ভারত। সেটি যে অধিনায়ক কোহলির সেঞ্চুরির সুবাদেই, তা না বললেও চলছে। পঞ্চম দিনের উইকেটেও দারুণ স্বচ্ছন্দে ১১৯ বলে ১০৪ রানের ইনিংস খেলে অপরাজিত ছিলেন। এর আগে গতকাল দুই ওপেনার লোকেশ রাহুল (৭৯) ও শিখর ধাওয়ানের (৯৪) দ্রুতগতির দুটি ইনিংসেই ৩৫২ রানে ইনিংস ঘোষণা করতে পেরেছেন কোহলি। গতকাল দুই ওপেনারের গড়ে দেওয়া ভিত্তিটা আজ অবশ্য ভেস্তে যেতে বসেছিল। মাত্র ২১ রানের মধ্যে ৩ উইকেট হারিয়ে ফেলেছিল ভারত। আড়াই শ ছাড়ানোর আগেই পঞ্চম উইকেট হারিয়ে ফেলা ভারত তখন বেশ বিপদেই। অন্য প্রান্ত থেকে কোনো সহযোগিতা ছাড়াই একাই দলকে টেনে নিয়েছেন কোহলি। দলকে লিড এনে দিয়েছেন ২৩০ রানের। বোলাররাও মান রেখেছেন কোহলির এই ইনিংসে। এ টেস্ট ড্র করতে হলে কমপক্ষে ৪৭ ওভার ব্যাট করতে হবে শ্রীলঙ্কাকে। আর জিততে চাইলে এর মাঝেই তুলে নিতে হবে ২৩১ রান। নবম ওভারেই ১৪ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে ফেলা শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ১৮ ওভারে ৪ উইকেটে ৬২।