সহজ জয় অ্যাতলেটিকো মাদ্রিদের,শিরোপার পথ মসৃণ হলো য়্যুভেন্তাসের
ইতালিয়ান সিরি আ'য় এসি মিলানের সঙ্গে গোলশূন্য ড্র করেছে টেবিলের দুই'য়ে থাকা ন্যাপোলি। এতে শিরোপার পথ আরো মসৃণ হয়েছে য়্যুভেন্তাসের। লা লিগায় সহজ জয় পেয়েছে অ্যাতলেটিকো মাদ্রিদ। লেভান্তেকে তারা হারিয়েছে ৩-০ গোলে। সান সিরোতে বিগ ম্যাচের উত্তাপ ছাপিয়ে একটা সমীকরণ হয়ে উঠেছিলো বড়। এ ম্যাচে জিতলে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষদল য়্যুভেন্তাসের সঙ্গে পয়েন্ট ব্যবধান কমবে ন্যাপোলির। তবে, লিগ শিরোপার পথে দৌড়টা জমিয়ে তুলতে পারেনি তারা। পরবর্তী মৌসুমে চ্যাম্পিয়নস লিগে কোয়ালিফাই করার কঠিন সমীকরণে উতরে যেতে এসি মিলানের জন্যও জয়টা ছিলো জরুরি। এ ম্যাচের আগে মিলানের সবশেষ ১২টি লিগ গোল এসেছে দ্বিতীয়ার্ধে। আর শেষ ৯ গোলের ৮টিই ন্যাপোলি পেয়েছে বিরতির পর। তবে সান সিরোতে গোলশূন্য প্রথমার্ধের পর গোলের খোঁজে দ্বিতীয়ার্ধেও ব্যর্থ হয় দু'দল। মিলান গোলরক্ষক ডোনারুমার নৈপুণ্যে যোগ হওয়া সময়ে দারুণ আক্রমণ শানিয়েও গোল করতে পারেনি ন্যাপোলি। তাদের এই ড্রয়ে আসলে লাভ হয়েছে য়্যুভেন্তাসেরই। লা লিগায় প্রতিপক্ষ নিয়ে খুব একটা ভাবনায় হয়তো ছিলোনা অ্যাতলেটিকো মাদ্রিদ। লিগ শিরোপা জয় দূরের পথ। শীর্ষদল বার্সা যে এগিয়ে অনেকটাই। তবুও, নিজেদের চেষ্টায় কি ছাড় দেয়া চলে! আগের ম্যাচে ইউরোপা লিগে স্পোর্টিং লিসবনের কাছে অপ্রত্যাশিত হারের পর আরো বেশি সাবধানী দিয়েগো সিমিওনের দল। লেভান্তের বিপক্ষে ম্যাচ জিততে বেগ পেতে হয়নি অ্যাতলেটিকোর। প্রথমার্ধে কোরেয়ার গোলে এগিয়ে থাকা দলটা দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে লিড দ্বিগুণ করে। গোলমুখে নির্ভুল আতোয়াঁ গ্রিজম্যান। ওয়ান্ডা মেট্রোপলিটানোয় দু'একবার ঝলক দেখিয়ে ব্যর্থ হয়েছে লেভান্তে। কিন্তু, ৭৭ মিনিটে লিড বাড়াতে শতভাগ সফল রোজি ব্ল্যাঙ্কোরা। আর লা লিগায় নিজের শততম গোলটি করতে ভুল হয়নি ফার্নান্দো তোরেসের।
সাকিবকে ছেড়ে কী ভুল করেছে কলকাতা,বুঝিয়ে দিলেন সাকিব আল হাসান
আন্দ্রে রাসেলকে স্কোয়ারকাটে পয়েন্টের উপর দিয়ে হেলায় ছক্কা মারলেন সাকিব আল হাসান। শটটা যেন চাবুকের মতো কলকাতা নাইট রাইডার্সের সেই সব কর্তার উপর আছড়ে পড়ল, যারা তাকে ঢাকার প্রতিবেশি শহর থেকে চলে যেতে দিয়েছেন সানরাইজার্স হায়দরাবাদে। অন্যভাবে বললে বলা যায়, সাকিবই বুঝিয়ে দিলেন-তাকে ছেড়ে কি ভুল করেছে কলকাতা। ব্যাটে-বলে দুর্দান্ত এক সাকিবকেই দেখা গেল শাহরুখ খানের দলের বিপক্ষে। জবাব দেয়ার একটা তাড়না যেন কাজ করছিল বাংলাদেশি অলরাউন্ডারের মধ্যে। বল হাতে ৪ ওভার হাত ঘুরিয়ে ২১ রানে ২ উইকেট। এরপর ব্যাট হাতেও ২১ বলে ২৭ রানের এক ঝড়ো ইনিংস। টি-টোয়েন্টি ফরমেটে একজন অলরাউন্ডারের কাছ থেকে এর চেয়ে বেশি কি আশা করবে দল! সানরাইজার্স হায়দরাবাদ আশার চেয়েও যেন একটু বেশি পেলো, দলও তাতে জিতলো খুব সহজেই। প্রসঙ্গত, টানা সাত মৌসুম কাটিয়ে এবারই কলকাতার সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করে সানরাইজার্স হায়দরাবাদে পাড়ি জমান সাকিব। বাংলাদেশি অলরাউন্ডারকে নিয়ে দুইবার শিরোপা জিতলেও এবার তাকে ধরে রাখার প্রয়োজন বোধ করেনি শাহরুখ খানের দল।
আইসিসিতে বর্ষসেরা ওয়ানডে স্কোয়াডে ঠাই হলোনা টাইগারদের
২০১৭ সালের বর্ষসেরা ওয়ানডে স্কোয়াড ঘোষণা করেছে আইসিসি। তবে এই স্কোয়াডে ঠাই হয়নি বাংলাদেশের কোন ক্রিকেটারের। ১১ সদস্যের এই দলের অধিনায়ক করা হয়েছে বিরাট কোহলিকে। এছাড়াও ঠাই হয়েছে রোহিত শর্মা ও জাসপ্রিত বুমরার। দলে ওপেনার হিসেবে রাখা হয়েছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া থেকে এক বছরের জন্য নিষিদ্ধ ডেভিড ওয়ার্নারকে। দক্ষিণ আফ্রিকা, এবং পাকিস্তান থেকে ডাক পেয়েছেন দু জন করে ক্রিকেটার। তারা হলেন, ডি ভিলিয়ার্স, ডি কক, বাবর আজম ও হাসান আলি। স্কোয়াডের বাকি সদস্যরা হলেন ইংল্যান্ডের বেন স্টোকস, নিউজিল্যান্ডের ট্রেন্ট বোল্ট এবং আফগানিস্তানের রশিদ খান।
নাটকের কোনও কমতি থাকলো না সেমিফাইনালে রিয়াল মাদ্রিদ
নাটকের কোনও কমতি থাকলো না সান্তিয়াগো বার্নাব্যুর চ্যাম্পিয়নস লিগ কোয়ার্টার ফাইনালে। তবে দ্বিতীয়ার্ধের ইনজুরি টাইমে যা ঘটল, তা ফুটবল ইতিহাসেই বিরল ঘটনা। ৩-০ গোলে এগিয়ে থেকে নতুন রূপকথায় জন্ম দেওয়ার অপেক্ষায় থাকা জুভেন্টাসের বুকে ছুরি বসালো এক পেনাল্টি। যে পেনাল্টি থেকে গোল করে রিয়াল মাদ্রিদকে চ্যাম্পিয়নস লিগের সেমিফাইনালে তুলে দিলেন ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো। ম্যাচটি হেরেছে রিয়াল ৩-১ গোলে। তবে প্রথম লেগ ৩-০ গোলে জেতায় দুই লেগ মিলিয়ে ৪-৩ অগ্রগামিতায় শেষ চার নিশ্চিত করেছে জিনেদিন জিদানের দল। তাই দাপুটে ফুটবলে অসম্ভবকে সম্ভব করার যে উদাহরণ তৈরি করতে যাচ্ছিল জুভেন্টাস, তা আর হলো না। ঘরের মাঠে বড় হারের ধাক্কা কাটিয়ে বার্নাব্যুর দ্বিতীয় লেগে বুক চিতিয়ে লড়াই করেও যাওয়া হলো না তাদের সেমিফাইনালে। গোটা ম্যাচ জুড়েই ছিল উত্তেজনা। তবে সবকিছু ছাপিয়ে গেছে দ্বিতীয়ার্ধের ইনজুরি টাইমের তৃতীয় মিনিটে। জুভেন্টাস ৩-০ গোলে এগিয়ে থাকায় ম্যাচ অতিরিক্ত সময়ে গড়াচ্ছিল বলেই মনে হওয়ার কথা সবার। কিন্তু ওই সময় জুভেন্টাসের ছোট বক্সের ভেতর লুকাস ভাসকেস পড়ে গেলে রেফারি বাজান পেনাল্টির বাঁশি। টিভি রিপ্লেতে দেখা গেছে, জুভ ডিফেন্ডার মেদহি বেনাটিয়া হালকা ধাক্কা দিয়েছিলেন ভাসকেসকে, একই সঙ্গে পা-ও চালিয়েছিলেন স্প্যানিশ উইঙ্গারের সামনে দিয়ে। ভাসকেস একেবারে গোলমুখের সামনে ফাঁকায় থাকার কারণেই হয়তো পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। ওই মুহূর্তে যা হওয়ার তা-ই হলো। জুভেন্টাস খেলোয়াড়দের অভিযোগ করার সময় উত্তেজিত বুফনকে সরাসরি লাল কার্ড দেখে ছাড়তে হয় মাঠ। নতুন গোলরক্ষক হিসেবে মাঠে নামা ওইচিচ শেজনির হাতে ছিল ইতালিয়ান ক্লাবটির সব স্বপ্ন। বিপরীতে রিয়াল মাদ্রিদের কোটি ভক্তের আশা নিয়ে স্পট কিকের সামনে রোনালদো। চ্যাম্পিয়নস লিগে ফর্মের তুঙ্গে থাকা পতুর্গিজ যুবরাজ জিতে গেলেন কঠিন এই পরীক্ষা। তিনি বল জালে জড়ানোর সঙ্গে উৎসবে মাতোয়ারা বার্নাব্যুর গ্যালারি। রেফারির পেনাল্টির সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জুভেন্টাস খেলোয়াড়দেরএই পেনাল্টির আগে কোয়ার্টার ফাইনালের দ্বিতীয় লেগটা ছিল জুভেন্টাসময়। কঠিন মিশনে শুরুতেই ম্যাচ নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেয় ইতালিয়ান চ্যাম্পিয়নরা। নড়েচড়ে বসার আগেই গোল। সান্তিয়াগো বার্নাব্যুকে স্তব্দ করে রিয়ালের জালে বল জড়িয়ে দেন মারিও মানজুকিচ। ম্যাচের বয়স তখন মোটে ২ মিনিট। শুরুতেই গোল করে আত্মবিশ্বাসের পারদ আকাশ স্পর্শ করে জুভেন্টাসের। রিয়ালেরই সাবেক খেলোয়াড় সামি খেদিরার চমৎকার চিপ ছোট বক্সের ভেতর থেকে দুর্দান্ত এক হেডে লক্ষ্যভেদ করেন মানজুকিচ। ক্রোয়েট এই ফরোয়ার্ডের মাথাতেই আবারও সর্বনাশ রিয়ালের। দ্বিতীয় গোলটাও যে তারই এবং সেই হেড থেকে। ৩৭তম মিনিটের গোলটি ছিল আরও চমৎকার। স্টেফান লিচেনস্টেইনারের ক্রস থেকে করা মানজুকিচের হেড একেবারে পোস্ট ঘেঁষে জড়িয়ে যায় জালে। রিয়াল গোলরক্ষক কেইলর নাভাস ঝাঁপিয়েও শেষরক্ষা করতে পারেননি। এই গোলেই দুই লেগ মিলিয়ে সমতায় ফিরেছিল জুভেন্টাসএই নাভাসের ভুলেই ৬১ মিনিটে রিয়াল হজম করে তৃতীয় গোল। দগলাস কোস্তার দূরপাল্লার শট গ্রিপে জড়াতে পারেনি তিনি, হাত থেকে বল ছুটে যায়। কোস্টারিকান গোলরক্ষকের সামনেই থাকা মাতুইদির পায়ে ছোঁয়া লেগে বল যায় বেরিয়ে। এরপর ফাঁকা জালে বড় জড়াতে কোন অসুবিধাই হয়নি ফরাসি মিডফিল্ডারের। এমন দুর্দান্ত পারফরম্যান্সের পরও শেষরক্ষা হয়নি জুভেন্টাসের। হেরেও জিতে গেল রিয়াল মাদ্রিদ। যাতে চ্যাম্পিয়নস লিগের হ্যাটট্রিক শিরোপার পথে লস ব্লাঙ্কোস ফেলল বড় ধাপ।
দ্বিতীয় পদক এনে দিলেন বাংলাদেশকে শাকিল
কমনওয়েলথ গেমসে বাংলাদেশের নামের পাশে যোগ হল আরেকটি পদক। চলতি আসরের অষ্টম দিনে রৌপ্যপদক জিতে দেশকে গৌরবে ভাসালেন শাকিল আহমেদ। ৫০ মিটার এয়ার রাইফেলে পদকটি জিতেছেন এ শুটার। এ নিয়ে দুটি পদক বগলদাবা করল বাংলাদেশ। অবশ্য দুটিই রৌপ্য। এ রৌপ্য জয়ে পদক তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থান এখন ২৪তম। অস্ট্রেলিয়ার গোল্ডকোস্টে এবারের আসরে অংশ নিচ্ছে ৭১ দেশ। ২০১৩ সালে সেনাবাহিনীতে যোগ দেন শাকিল। ২০১৪ সালে শুটিং ক্যারিয়ারে পথচলা শুরু তার। মূলত ১০ মিটার এয়ার রাইফেল ইভেন্টে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন তিনি। চলমান আসরে ১০ মিটার এয়ার পিস্তল ইভেন্টের ফাইনালে ১৫০ দশমিক ১ স্কোর করে ষষ্ঠ হন এ সৈনিক। তবে ৫০ মিটার এয়ার রাইফেলে যে কম যান না, পদক জিতে যেন তারই প্রমাণ দিলেন শাকিল। এর আগে ১০ মিটার এয়ার রাইফেলে রৌপ্যপদক জেতে দেশবাসীকে আনন্দের জোয়ারে ভাসান দেশসেরা শুটার আব্দুল্লাহ হেল বাকি।
পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ৪ হাজার পুলিশ,তোপের মুখে কলকাতা-চেন্নাই ম্যাচ
সন্ধ্যায় তামিলনাড়ুতে গড়ানোর কথা এবারের আইপিএলের পঞ্চম ম্যাচ। ঘরের মাঠে কলকাতা নাইট রাইডার্সকে আতিথ্য দেবে চেন্নাই সুপার কিংস। তবে অশনিসংকেত হয়ে দেখা দিয়েছে কাভেরী নদীর পানির হিস্যা নিয়ে আন্দোলন। আরও এক দফা আন্দোলনে নেমেছেন তামিলনাড়ুর অধিবাসীরা। প্রাণকেন্দ্র চিপাউক স্টেডিয়ামের চারপাশ। শঙ্কা জেগেছে, এ আন্দোলনের মুখে ম্যাচটি নির্বিঘ্নে হবে তো? ম্যাচটি বাতিল বা স্থগিত করতে চাপ দিয়ে যাচ্ছেন আন্দোলনকারীরা। কাভেরী নদীর পানি নিয়ে কর্নাটক ও তামিলনাড়ুর মধ্যে দ্বন্দ্ব আছে। বারবার বৈঠকে বসেও এ সমস্যার সমাধান আসেনি। এতদিন এ জন্য কর্নাটকীদের দায়ী করে আসছিলেন তামিল বাসিন্দারা। এবার তাদের সঙ্গে কেন্দ্রীয় সরকারকে কাঠগড়ায় দাঁড় করালেন তারা। তাদের দাবি, উদ্ভূত সমস্যা সমাধানে কর্ণপাত করছে না সরকার। বহুল আলোচিত ও বিতর্কিত এ সমস্যা সমাধানে কেন্দ্র কাভেরী ব্যবস্থাপনা পর্ষদ গঠন না করা পর্যন্ত ম্যাচটি বাতিল বা স্থগিতের দাবি জানিয়েছেন রাজনৈতিক দল ও আন্দোলনকারীরা। দর্শকদের ম্যাচটি বয়কটের আহ্বানও জানিয়েছেন তারা। তাদের এমন দাবিতে ম্যাচ চলাকালীন অপ্রীতিকর পরিস্থিতির উদ্রেক ঘটতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এতে নড়েচড়ে বসেছে তামিলনাড়ু প্রশাসন। ম্যাচে অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি এড়াতে ৪ হাজার পুলিশ মোতায়েন করেছে তারা।
শুভ সূচনা কেকেআরের ব্যাঙ্গালুরুকে হারিয়ে
৮ বলে তখন বাকি আর মাত্র ৪ রান। তখনই গ্যালারিতে দাঁড়ানো শাহরুখ খানের দিকে তাক করলো ক্যামেরা। জায়ান্ট স্ক্রিনে নিজেকে দেখতে পেয়েই দু’হাত তুলে ধরলেন বলিউড বাদশাহ। সঙ্গে সঙ্গেই উল্লাসে ফেটে পড়লো পুরো ইডেন গার্ডেন। স্বপ্নের নায়ককে এত কাছ থেকে দেখার আনন্দের সঙ্গে কলকাতাবাসীর জন্য যোগ হলো বিজয়ের আনন্দও। বিরাট কোহলি, এবি ডি ভিলিয়ার্স আর ব্রেন্ডন ম্যাককালামদের নিয়ে গড়া শক্তিশালী রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরুকে ৪ উইকেটে হারিয়ে দিয়ে নিজেদের মাঠে একাদশতম আইপিএলে শুভ সূচনা করেছে শাহরুখ খানের দল কলকাতা নাইট রাইডার্স। হাতে তখনও বাকি ছিল ৭ বল। কলকাতার জয়ের মূলে শেষ পর্যন্ত অবদান রাখেন অধিনায়ক দিনেশ কার্তিক। মাত্রই কিছুদিন আগে শ্রীলঙ্কায় নিদাহাস ট্রফির ফাইনালে বাংলাদেশের বিপক্ষে শেষ বলে ছক্কা মেরে ভারতকে ট্রফি জিতিয়েছিলেন কার্তিক। সেই পারফরম্যান্সই যেন তিনি টেনে নিয়ে আসলেন ইডেন গার্ডেনে। যদিও ১৯তম ওভারের ৫ম বলে খেজরোলিয়াকে বাউন্ডারি মেরে কেকেআরের জয় নিশ্চিত করেন বিনয় কুমার। কিন্তু ২৯ বলে ৩৫ রান নিয়ে শেষ পর্যন্ত দলকে জিতিয়েই মাঠ ছাড়েন অধিনায়ক দিনেশ কার্তিক। জয়ের জন্য ১৭৭ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ক্রিস লিনের উইকেট হারিয়ে কিছুটা বিপদে পড়ে কেকেআর। তবে রীতিমত ওপেনারে পরিণত হওয়া সুনিল নারিন ঠিকই ঝড় তুলেছিলেন। ১৯ বলে তিনি ৫০ রানর টর্নেডো ইনিংস খেলে কেকেআরের জয় ত্বরান্বিত করে দিয়ে যান। রবিন উথাপ্পা ১২ বলে ১৩ রান করে বিদায় নেন। ২৫ বলে ৩৪ রান করে আউট হন নিতিশ রানা। ১১ নল খেলে আন্দ্রে রাসেল ১৫ রানের ঝড় তুলে বিদায় নিলেও কেকেআরের জয় ঠেকাতে পারেনি বিরাট কোহলিরা। এর আগে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ডি ভিলিয়ার্সের ৪৪ এবং ব্রেন্ডন ম্যাককালামের ৪৩ রানের ওপর ভর করে ৭ উইকেট হারিয়ে ১৭৬ রা করে রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু। মানদ্বীপ সিং করেন ৩৭ রান এবং বিরাট কোহলি করেন ৩১ রান।
যা বললেন ধোনি জয়ের নায়ক ব্র্যাভোকে নিয়ে
আইপিএলের এগারোতম আসরের প্রথম ম্যাচে শনিবার ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হয় মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স ও চেন্নাই সুপার কিংস। উত্তেজনাপূর্ণ এই ম্যাচে নির্বাসন কাটিয়ে ফেরা ধোনির চেন্নাই এক উইকেটে হারিয়েছে মুম্বাইকে। ৩০ বলে ৬৮ রানের বিধ্বংসী ইনিংস খেলে চেন্নাইয়ের ক্যারিবিয়ান অলরাউন্ডার ব্র্যাভো। আর এই তারকাকে প্রশংসায় ভাসাতে ভুল করেননি অধিনায়ক ধোনি। ম্যাচ শেষে ধোনি বলেন,যেভাবে ব্র্যাভো ব্যাট করেছে দারুণ। ওকে দায়িত্ব নিয়ে খেলতে দেখে সত্যি ভালো লাগছে। আমরা আরও ভালো ব্যাট করতে পারতাম। তবে এই মুহূর্তে ম্যাচের পজিটিভ দিকগুলোকেই গুরুত্ব দেবো আমি। এদিন ৩০ বলে ৬৮ রানের বিধ্বংসী ইনিংসে ধোনিদের নিশ্চিত হারতে বসা ম্যাচকে জয়ে বদলে দেন এই ক্যারিবিয়ান অলরাউন্ডার। ৭টি ছয়, ৩টি চারের সঙ্গে ৩০ বলে ৬৮ রানের ইনিংস খেলে ম্যাচ জেতার দোরগোড়ায় নিয়ে আসেন ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটার। উল্লেখ্য, ২০১১ থেকে ২০১৫ এই পাঁচ বছর চেন্নাই সুপার কিংসে ধোনির সতীর্থ ছিলেন ব্র্যাভো। ২০১৩ এবং ২০১৫ সালে চেন্নাইয়ের হয়ে সর্বোচ্চ উইকেট নিয়ে বেগুনি টুপি জিতেছিলেন এই ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটার। ২০১৫ সালে বেটিংয়ে জড়িয়ে চেন্নাই সুপার কিংস দলটি আইপিএল থেকে নির্বাসিত হলে গুজরাট লায়ন্সের হয়ে খেলেন এই ক্যারিবিয়ান ক্রিকেটার। ২০১৮ সালে আইপিএলে কাম ব্যাক করে ৬.৪০ কোটি টাকার বিনিময়ে ব্র্যাভোকে নিজেদের স্কোয়াডে ধরে রাখে চেন্নাই সুপার কিংস।
আফ্রিদিকে পেছনে ফেলার সুযোগ,অনন্য রেকর্ডের সামনে সাকিব
ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) কোলকাতা নাইট রাইডার্সের হয়ে সাত বছর খেলছেন বাংলাদেশের অন্যতম সেরা ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান। তবে চলতি আসরে তিনি খেলবেন সানরাইজার্স হায়দরাবাদের জার্সিতে। ৯ এপ্রিল প্রথম ম্যাচ খেলবেন তিনি। তবে আইপিএলের এই আসরে পাকিস্তানের অলরাউন্ডারের শহীদ আফ্রিদিকে ছাড়িয়ে যাওয়ার সুযোগ থাকছে সাকিবের সামনে। রাজস্থান রয়্যালসের বিপক্ষে আগামী ম্যাচটি হবে সাকিবের টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারের ২৫৫ নম্বর ম্যাচ। জাতীয় দল ও বিভিন্ন ফ্র্যাঞ্চাইজির হয়ে আগের ২৫৪ ম্যাচে তিনি উইকেট নিয়েছেন ২৯৪টি। অন্যদিকে পাকিস্তানি অলরাউন্ডার আফ্রিদি এখন পর্যন্ত ২৭৪ ম্যাচ খেলে ৩০০ উইকেট নিয়েছেন। তাই চলতি আইপিএল আসরে সাকিব ৭টি উইকেট নিতে পারলেই ছাড়িয়ে যাবেন শহীদ আফ্রিদিকে। আর ৬টি উইকেট নিতে পারলেই পঞ্চম কোনো বোলার হিসেবে টি-টোয়েন্টিতে ৩০০ উইকেট শিকারের মাইলফলক স্পর্শ করবেন। এই তালিকায় শীর্ষে আছেন ডোয়াইন ব্রাভো ৩৭৫ ম্যাচে ৪১৩ উইকেট নিয়েছেন তিনি। দ্বিতীয় অবস্থানে আছেন শ্রীলঙ্কার লাসিথ মালিঙ্গা। তিনি নিয়েছেন ২৫৬ ম্যাচে ৩৪৮ উইকেট। সুনীল নারিন ২৭১ ম্যাচে পেয়েছেন ৩১৭ উইকেট আর পাকিস্তানের শহীদ আফ্রিদি ২৭৪ ম্যাচে তুলে নিয়েছেন ৩০০ উইকেট। এর পরই বাংলাদেশের সাকিবের অবস্থান। তিনি ২৫৪ ম্যাচে ২৯৪ উইকেট পেয়েছেন।