রবিবার, জুলাই ১৫, ২০১৮
শাকিব-অপু থেকে শাকিব-বুবলী জুটি
শাকিব-অপু থেকে শাকিব-বুবলী জুটি। ঢালিউডে অন্যতম দুটি জনপ্রিয় জুটি। এই দুই জুটির মিল অমিলের একটি রসায়ন আছে। চলচ্চিত্রপাড়ার লোকজনের কথায় অমিলের চেয়ে মিলটিই বেশি দৃশ্যমান। যেমন শাকিব-অপু ক্যারিয়ারের শুরু থেকে একটানা জুটি বেঁধে কাজ করতে থাকেন। এই জুটির কাজ দর্শক গ্রহণও করেন। ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই তাদের নিয়ে প্রেম বিয়ের খবর বাতাসে চাউর হতে থাকে। যদিও তারা তা অস্বীকার করে তখন বলেছিলেন,সবই মিথ্যে, আমরা দুজন ভালো সহকর্মী আর বন্ধু। একসঙ্গে কাজ করতে গেলে এমন রটনা রটতেই পারে। পরের ঘটনা সবার জানা। ২০১৭ সালে শাকিব-অপু অধ্যায়ের পরিসমাপ্তি ও শাকিব-বুবলী জুটির সূচনা হলে একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটতে থাকে। এই জুটিকে নিয়েও শুরু থেকেই গোপন প্রেম বিয়ের খবর দুষ্টু বাতাস ছড়াতে থাকে। যদিও দুজনেই বলছেন,আরে ভাই সবই মিথ্যে, আমরা দুজন ভালো বন্ধু আর সহকর্মী। এখন সময়ই বলে দেবে দুষ্টু বাতাস সত্যি নাকি মিথ্যে বলেছে বলছেন চলচ্চিত্রপাড়ার লোকজন আর তাদের দর্শক ভক্তরা। ২০০৬ সালে শাকিব-অপু জুটি বেঁধে কাজ শুরু করেন। তাদের প্রথম ছবি ছিল কোটি টাকার কাবিন। প্রথম ছবিতেই দর্শক তাদের সাদরে গ্রহণ করেন। এরপর একে একে চাচ্চু, পিতার আসন, দাদীমা, মায়ের হাতে বেহেশতের চাবি ছবিগুলোতে টানা জুটি বাঁধেন তারা। সফলও হন। ২০১৭ সালে বসগিরি ছবি দিয়ে জুটিবদ্ধ হন শাকিব-বুবলী জুটি। এরপর একাধারে শুটার, রংবাজ, অহংকার, চিটাগাইঙ্গা পোয়া নোয়াখাইল্যা মাইয়া, সুপার হিরো, ক্যাপ্টেন খান, একটি প্রেম দরকার মাননীয় সরকার ছবিগুলো নিয়ে পথ চলতে থাকেন এই জুটি। এ পর্যন্ত বুবলী শুধু শাকিবের সঙ্গেই জুটি বেঁধেছেন। তাদেরকেও দর্শক মনে-প্রাণে গ্রহণ করেছেন। ২০০৬ সালে শাকিব-অপু জুটি বেঁধে কাজ করতে গিয়ে একে অপরের প্রেমে পড়ে যান। এরপর অল্প সময়ের মধ্যেই মানে মাত্র দুবছরের মাথায় ২০০৮ সালে গোপনে বিয়ের পিঁড়িতে বসেন তারা। এই গোপন খবরও দুষ্টু বাতাস রাখেনি গোপন। ছড়িয়ে দেয় আকাশ বাতাস আর কানে কানে। কিন্তু যথারীতি দুজনের অস্বীকার আরে যত্তসব মিথ্যে কথা, আপনারা কোথা থেকে যে এমন সব উদ্ভট খবর পান বুঝি না। তাদের এমন প্রতিবাদের সুরে বিশেষ করে উপযুক্তদ্ধ সাক্ষী-প্রমাণের অভাবে সবাই চুপসে গিয়েছিলেন তখন। এখনো আবার শাকিব-বুবলী জুটিকে নিয়ে দুষ্টু বাতাস একই গন্ধ ছড়াচ্ছে। আর যথারীতি দুজনের সেই পুরনো প্রতিবাদ আমরা দুজন ভালো বন্ধু আর সহকর্মী ছাড়া আর কিছুই নয়, সবই মিথ্যে। চলচ্চিত্র পাড়ার লোকজন এখন মুচকি হেসে বলছেন দেখা যাক দুষ্টু বাতাস এবার তার দায় এড়াতে পারে কি না? শাকিব আর অপু যখন জুটি বেঁধে কাজ শুরু করেন তখন নাকি কোনো নির্মাতা তার ছবিতে শাকিবকে কাস্ট করলে শাকিব সরাসরি শর্ত জুড়ে দিয়ে বলতেন নায়িকা হিসেবে ওই ছবিতে অপুকে না নিলে তিনি কাজ করবেন না। অগত্যা নির্মাতা শাকিবের কথাই মেনে নিতেন। এমন ঘটনা নাকি প্রয়াত চিত্রনির্মাতা চাষী নজরুলের ক্ষেত্রেও ঘটেছিল। চাষী নজরুলের দেবদাস ছবিতে পার্বতীর চরিত্রে নিতে চেয়েছিলেন পূর্ণিমাকে। শেষ পর্যন্ত শাকিবের আবদার রক্ষা করতে গিয়ে অপুকেই নিতে হয়েছিল। শাকিবের শর্তের কারণেই অপুর শতকরা ৯৮ ভাগ ছবির নায়ক শাকিব খান। অপু তখন বলতেন, যে কোনো নায়কের সঙ্গে কাজ করতে আমার আপত্তি নেই, তবে শাকিবের সঙ্গে কাজ করতেই বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি। শাকিবের কারণেই আজ আমি অভিনেত্রী অপু বিশ্বাস। ঘুরে-ফিরে শাকিবের ছবির নায়িকা মানেই অপু। এখন যেমন শাকিব মানেই বুবলী। শাকিবের সঙ্গে বিচ্ছেদের পর হাটে হাঁড়ি ভাঙেন অপু। তিনি জানান, শাকিবের আপত্তির কারণেই প্রচুর প্রস্তাব থাকা সত্ত্বেও অন্য নায়কের সঙ্গে কাজ করতে পারতেন না তিনি। না হলে তার ছবির সংখ্যা বর্তমানের চেয়ে দ্বিগুণ হতো। অর্থবিত্তের পরিমাণও বাড়ত। এখন অপুর সুরে বুবলী বলছেন,শাকিবের সঙ্গে কাজ করতে তিনি বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন। কারণ শাকিব ঢালিউডের শীর্ষ নায়ক। তবে অন্য নায়কের সঙ্গে কাজ করতে তার আপত্তি নেই। বুবলীর এমন কথায় চলচ্চিত্রপাড়ার লোকজন বলছেন শাকিব-অপুর সব ঘটনাই যখন শাকিব-বুবলীর সঙ্গে মিলে যাচ্ছে তখন বুবলীর কথার সত্যতা জানতে অবশ্যই অপেক্ষা করতে হবে।
বিয়ে করলেন বাপ্পা-তানিয়া
জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী বাপ্পা মজুমদার এবং অভিনয়শিল্পী-উপস্থাপিকা তানিয়া হোসাইন বিয়ে সম্পন্ন হয়েছে। শনিবার (২৩ জুন) রাতে ঢাকা ক্লাবে বিবাহোত্তর সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন সম্পন্ন হয়। এতে বাপ্পা ও তানিয়ার পরিবারের সদস্যরা ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন অভিনয় ও সংগীতজগতের ঘনিষ্ঠজনরা। গত ১৬ মে বাপ্পা মজুমদার ও তানিয়ার বাগদান হয়েছিল। উল্লেখ্য, এটি বাপ্পা-তানিয়া দুই জনেরই দ্বিতীয় বিয়ে।এর আগে ভালোবেসে ২০১০ সালের ৩০ মার্চ চলচ্চিত্র পরিচালক ও উপস্থাপক দেবাশীষ বিশ্বাসকে বিয়ে করেন তানিয়া। এক বছরের মাথায় সে বিয়ে ভেঙে যায়। আর বাপ্পা মজুমদার এর আগে বিয়ে করেছিলেন অভিনয়শিল্পী ও নৃত্যশিল্পী চাঁদনীকে। ২০০৮ সালের ২১ মার্চ বিয়ে করেন তারা। দীর্ঘ নয় বছর সংসারজীবনের পর ছাড়াছাড়ি হয় বাপ্পা-চাঁদনীর।
আমি শাকিবেই মগ্ন থাকতে চাই: বুবলী
এখন ঈদের ছবির নায়িকা মানেই বুবলী। কথাটি দর্শক-মন কাড়া এ নায়িকার। এ ঈদেও তার দুটি ছবি মুক্তি পেয়েছে। এ পর্যন্ত তার মুক্তি পাওয়া ছয়টি ছবির নায়কই শাকিব খান। আর বর্তমানে বুবলীর যে ছবি, মানে ক্যাপ্টেন খান-এর শুটিং চলছে তার নায়কও শাকিব। বুবলীর কথায় আপাতত আমি শাকিবেই মগ্ন থাকতে চাই। ২০১৩ সাল থেকে একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলের সংবাদ পাঠিকা শবনম ইয়াসমিন বুবলী বসগিরি শিরোনামের চলচ্চিত্রের মাধ্যমে বড় পর্দায় আলো ছড়ান। তার সৌভাগ্য, প্রথম ছবিতেই তার নায়ক ছিলেন ঢালিউডের শীর্ষ নায়ক শাকিব খান এবং এখন পর্যন্ত শাকিবের সঙ্গেই জুটি বেঁধে কাজ করছেন তিনি। এ জুটিকে দর্শক পরম মমতায় গ্রহণও করেছেন। ভাগ্যদেবী মনে হয় বুবলীর মাথার ওপর ছায়া হয়েই ছিলেন। শাকিবের সঙ্গে জুটি বাঁধতে গিয়ে তাকে নানা আলোচনা-সমালোচনা এবং মুখরোচক খবরের শিরোনাম হতে হয়েছে। এতে কিন্তু তার ফিল্ম ক্যারিয়ারের যোগফলে লাভের অঙ্কটাই যোগ হয়েছে বেশি। আলোচনা আর মুখরোচক গল্প দ্রুত তার পরিচিতি ও জনপ্রিয়তার পরিধি বাড়িয়ে দিয়েছে। মানে সবকিছুই ছিল তার জন্য শাপে বর। এবারের ঈদেও বুবলীর দুটি ছবি মুক্তি পেয়েছে এবং দর্শক আগ্রহ নিয়ে তার ছবি দেখতে ছুটে চলেছে। ছবি দুটি হচ্ছে সুপার হিরো এবং চিটাগাংইয়া পোয়া নোয়াখাইল্যা মাইয়া। এ দুটি ছবির মধ্যে সুপার হিরো ভিন্ন ট্র্যাকে নির্মাণ হওয়ায় ছবিটির প্রতি দর্শক আগ্রহ প্রবল। এ ছবিতে অ্যাকশন হিরো হিসেবে শাকিবের পাশাপাশি মারকুটে আর প্রেমময় তরুণী হিসেবে দ্বৈতরূপে বড় পর্দায় হাজির হওয়ায় ডাবল লুকের বুবলীকে দেখতে মুখিয়ে ওঠে দর্শক। সিনেমা হল মালিকরা বিষয়টি আঁচ করতে পেরে তাদেরও ছবিটির প্রতি আগ্রহ শতগুণে বেড়ে গিয়েছিল। কিন্তু বিধিবাম, নানা জটিলতায় ছবিটির গতিরোধ হতে বসেছিল। না, শেষ পর্যন্ত সব অশুভ শক্তি হারল আর অ্যাকশন গার্ল বুবলী বিজয় নিশান হাতে বড় পর্দায় এলেন। প্রথমে ১৬০টি সিনেমা হল বুকিং হয়ে গেলেও ছবিটির মুক্তি অনিশ্চিত হয়ে পড়ায় সিনেমা হল মালিকরা হতাশ হয়ে অন্য ছবি নিতে বাধ্য হলেন। ঈদের মাত্র একদিন আগে সুপার হিরো সেন্সর ছাড়ের আলো দেখলে ৮০টি সিনেমা হলে এটি মুক্তি পায়। যমুনা শপিং মলের ব্লক বাস্টার সিনেমাস সূত্রে জানা যায়, ঈদের দিন থেকে প্রচুর দর্শক বুবলীর অন্যরকম রসায়নের সুপার হিরো দেখতে এ সিনেমা হলে ভিড় জমাতে থাকে। কিন্তু ছবিটি মুক্তি নিয়ে অনিশ্চয়তার কারণে অন্য ছবি চালানোতে হতাশ হয়ে ফিরে গেছে বুবলীর ভক্তরা। এবারের ঈদের ছবির চিত্র হলো সারা দেশের দর্শক মারকুটে বুবলীকে দেখতে বারে বারে সুপার হিরোর কাছে ছুটে যাচ্ছে। আর দর্শকের এ আগ্রহের পারদ ঊর্ধ্বে লতিয়ে উঠায় দ্বিতীয় সপ্তাহে সুপার হিরো শতাধিক সিনেমা হলে দ্যুতি ছড়াচ্ছে। ঈদের আগে ইউটিউবে মুক্তির কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই সাড়া ফেলেছে শবনম বুবলী অভিনীত এ চলচ্চিত্রের একটি গান। এক দিনেই সুপার হিরো চলচ্চিত্রের বুম বুম গানটি সাড়ে ৬ লাখ বারের বেশি ভিউ হয়েছে। গানটিতে কণ্ঠ দিয়েছেন প্রতীক হাসান ও শাওরীন। ভাগ্যদেবীর আশীর্বাদপুস্ট রুপালি পর্দার ললনা বুবলী এমন সাফল্যে কি বলছেন। এরি মধ্যে কয়েকটি পত্র-পত্রিকায় দেওয়া সাক্ষাৎকারে শুধু ঈদের ছবি নয়, নানা বিষয়ে বেশ আমুদে কথাবার্তা বলেছেন তিনি। অনেক ধূম্রজালকে দূরে ঠেলতেও চেয়েছেন। এবার সেসব কথাই শোনা যাক। প্রথমেই ঈদের ছবির কথা বলতে গিয়ে আবেগাপ্লুত বুবলী বলেন, সৃষ্টিকর্তার অপার করুণায় আনন্দ উৎসবের ঈদে দর্শক আমার ছবি দেখতে উদগ্রীব হয়ে ওঠে। এর চেয়ে আর বেশি কোনো প্রাপ্তি নেই আমার। অনেকেই আমাকে ঈদের নায়িকার খেতাবও দিয়ে ফেলেছেন। এবারের ঈদেও আমার মুক্তি পাওয়া ছবিগুলো বেশ জমে উঠেছে। দুটো ছবিতেই আমার দুধরনের চরিত্র ছিল। বেলাশেষে দেখলাম অ্যাকশন বুবলীর জন্য দর্শক সুপার হিরো ছবির পেছনে একটু বেশিই ছুটছেন। আমি ঈদের দিন মধুমিতা আর চম্পাকলিতে দর্শকের সঙ্গে বসে ছবি দুটো দেখেছি এবং দর্শক প্রতিক্রিয়ায় মুগ্ধ হয়েছি। বুবলীর কথায় এবারের ঈদটি তার দারুণ কেটেছে। অন্য সময় ছবির কাজে বাসায় সময় দিতে পারি না। ঈদে বেশিরভাগ সময় বাসাতেই ছিলাম, নিজ হাতে মেহমানদারি করাটা বেশ উপভোগ করেছি। বুবলী বলেন, গত তিন বছরে তার ছয়টি ছবি মুক্তি পেয়েছে। এগুলো হলো- বসগিরি, শুটার, অহংকার, রংবাজ, সুপার হিরো এবং চিটাগাংইয়া পোয়া নোয়াখাইল্যা মাইয়া। বুবলীর কথায়-আমার সৌভাগ্য, নিজের ফিল্মি ক্যারিয়ারটা অভিষেক হলো ঢালিউডের শীর্ষ নায়ক নবাব শাকিব খানের সঙ্গে। আর এখন পর্যন্ত আমার সব ছবির নায়কই শাকিব খান। আর তাই অনেকে আমাদের পর্দা রসায়নের ভাঁজে ব্যক্তিগত প্রেমের রসায়ন খুঁজে ফেরেন। এ পর্যন্ত আমার সব ছবির নায়ক শাকিব এবং ঈদে আমাদের ছবি বেশি মুক্তি পায় বলে অনেকে হয়তো এমনটি ভেবে থাকেন। আসলে শাকিব আমার খুব ভালো একজন বন্ধু ছাড়া আর কিছু নন। যখন একটি জুটির বেশ কয়েকটি ছবি একাধারে ভালো যেতে থাকে তখন তাদের নিয়ে প্রেমের গল্প চাউর হয়। আমাদের ক্ষেত্রেও তাই হয়েছে। এখন আমরা ক্যাপ্টেন খান ছবিটিতে কাজ করছি। আপাতত আমি শাকিবেই মগ্ন থাকতে চাই।
ঈদে শাকিব বুবলির বুম বুম
মুক্তির কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই সাড়া ফেলেছে শাকিব খান আর শবনম বুবলি অভিনীতি আসন্ন চলচ্চিত্রের একটি গান। শুক্রবার ইউটিউবে প্রকাশের পর থেকে ‘সুপার হিরো’ চলচ্চিত্রের ‘বুম বুম’ গানটি এরই মধ্যে সাড়ে ৬ লাখ বারের বেশি ভিউ হয়েছে। বাংলাদেশ ও অস্ট্রেলিয়া মিলিয়ে শুটিং করা এ চলচ্চিত্রের প্রথম প্রকাশ হওয়া গানটিতে কণ্ঠ দিয়েছেন প্রতীক হাসান ও শাওরীন। সংগীত পরিচালনা করেছেন নাভেদ পারভেজ। গানটি প্রকাশ হয়ে সাড়া ফেললেও এখনও চলচ্চিত্র মুক্তির দিনক্ষণ চূড়ান্ত হয়নি। একাধিক সূত্র বলছে, আসন্ন ঈদে ছবিটি মুক্তির প্রস্তুতি চলছে। শাকিব-বুবলি জুুটির নতুন এ চলচ্চিত্রি নিয়ে ভীষণ আশাবাদী সংশ্লিষ্টরা। ‘সুপার হিরো’তে শাকিব খান বুবলী ছাড়া আরও অভিনয় করেছেন তারিক আনাম খান, শম্পা রেজা, তাসকিন রহমান।
বেবী নাজনীন এর ভালোবাসা মরে না গান এখন বাজারে
ব্লাক ডায়মন্ড বেবী নাজনীন এবং এই প্রজন্মের জনপ্রিয় শিল্পী ইমরানের একটি দ্বৈত গানের সিঙ্গেল ট্র্যাক মুক্তি পাচ্ছে এবার ঈদের গানের বাজারে। কবির বকুলের কথা এবং সুরে ‘ভালোবাসা মরে না… মরে যায় জীবন… শিরোনামের রোমান্টিক এই গানটি আজকালের মধ্যেই সাউন্ডটেক ইউটিউব চ্যানেলসহ ডিজিটাল সব মাধ্যমেই মুক্তি দেয়া হচ্ছে বলে জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানের কর্ণধার সুলতান মাহমুদ বাবুল। গানটি সব মহলের শ্রোতাকেই আকৃষ্ট করবে বলে আশাবাদ প্রকাশ করেন প্রকাশক এবং গানের গীতিকার ও সুরকার কবির বকুল। এর সঙ্গীত আয়োজন করেছেন ইয়ং ট্যালেন্ট সৈয়দ সুজন। উল্লেখ্য, বেবী নাজনীনের সাথে চলচ্চিত্র এবং অডিও মাধ্যমে একাধিক গান করেছেন ইমরান। এই প্রসঙ্গে বেবী নাজনীন বলেন, ইমরান অনেক ভালো গান করে । ওর জন্য শুভকামনা। এদিকে বেবী নাজনীন সাম্প্রতিক সময়ে বেশ কয়েকটি সিঙ্গেল ট্র্যাকে কণ্ঠ দিয়েছেন। তার নতুন এই গানগুলোর গীতিকার ও নির্মাতা জিয়া খান, নীহার আহমেদ, প্লাবন কোরেশী এবং জাহিদ বাশার পঙ্কজ ও আবু বকর। গানগুলো একটি একটি করে ডিজিটাল মাধ্যমে মুক্তি দেয়া হবে। গেল বৈশাখে আহমেদ রিজভীর লেখা নাজির মাহমুদের সুর এবং মুসফিক লিটুর সঙ্গীত আয়োজনে সাউন্ডটেক বেবী নাজনীনের শেষ সিঙ্গেল ট্র্যাকটি রিলিজ করে।
ডিজিটাল সময়ে আরমানের খবর নেই, টুম্পা হয়ে গেলেন তারকা!
ডিজিটাল সময়ে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে তারকা তৈরি হওয়া যেন ডালভাতের মতোই। তারকা বনে যাওয়ার জন্যে কত্ত কি যে করছে এই প্রজন্ম,তার ইয়ত্তা নেই। একটু কিছু হলেই সবাই তা মুড়ি-মুড়কির মতো গিলে খায়। অনেকে তো রাতারাতি হয়ে যান তারকা!এত সহজে তারকা হওয়ার দৃষ্টান্ত বোধহয় এ দেশেই সম্ভব। সম্প্রতি আরমান আলিফের গাওয়া অপরাধী গানের ক্ষেত্রেই আছে এর সবচেয়ে বড় উদাহরণ। গত ২৬ এপ্রিল ঈগল মিউজিকের ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশিত হয় অঙ্কুর মাহমুদ ফিচারিং আরমান আলিফের অপরাধী গানের ভিডিও। গানটি প্রকাশের পর থেকেই সামজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ঝড় তোলে। ভাইরাল হতে থাকে বাতাসের মতোই। ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে চোখের পলকে। গানটি বাংলা গানের সব রেকর্ড ভেঙে নতুন রেকর্ড গড়ে। এখন পর্যন্ত ইউটিউবে গানটি দেখা হয়েছে প্রায় সোয়া ৬ কোটি বার! গ্লোবাল ইউটিউব মিউজিক টপচার্টে গানটি ২৫ মে থেকে ৩১ মে পর্যন্ত সময়ে ৬০তম স্থানও দখল করে। সঙ্গীতশিল্পী আরমান আলিফ অপরাধী দিয়ে টেইলর সুইফটকেও পেছনে ফেলে দেন। এটি বাংলা গানে অনন্য এক রেকর্ড, যা কখনো ঘটেনি। গানটির মাধ্যমে সর্বজন পরিচিত হয় আরমান আলিফের নাম। কিন্তু মিডিয়া বা সংবাদ মাধ্যমগুলো আরমান আলিফের পাশে দাঁড়িয়েছে দায়সারাভাবে। অথচ আরমান আলিফের অপরাধী গানটি কাভার করে লাইমলাইটে আসেন টুম্পা খান নামে এক তরুণী। ফেসবুকে অপরাধী গান কাভার করে আরমান আলিফের চেয়েও বেশি জনপ্রিয় হয়েছে তিনি। মিডিয়াও যেন হুমড়ি খেয়ে টুম্পা খানকে সাপোর্ট দিচ্ছে। প্রকৃতশিল্পীর খোঁজ না নিয়ে গান কাভার করা ভাইরালশিল্পীর পেছনে যদি মিডিয়া এমনভাবে ছুঁটে চলে তাহলে প্রকৃত মেধার মূল্যায়ন কোথায়? ভাইরালম্যানদের দৌঁড়ে প্রকৃত শিল্পীরা নত হচ্ছেন বারবার। এতে করে শিল্পীকে শুধু অবমাননা করা হচ্ছে না,নষ্ট করে দেওয়া হচ্ছে প্রকৃত মেধাকে। এ সম্পর্কে খ্যাতিমান কণ্ঠশিল্পী কুমার বিশ্বজিত বলেন,এরকম অনেক গানই হয়েছে। দীর্ঘস্থায়িত্বের ব্যাপার হচ্ছে সবচেয়ে বড় বিষয়। হেল্টিকপ্টারে হিমালয়ের চূড়ায় ওঠা আর পায়ে হেঁটে ওঠার মধ্যে পার্থক্য আছে। যদি কোয়ালিটি থাকে, তবে একটা সিড়ি ব্যবহার করে ওপরে ওঠতে পারে। সেটাকে আমি সাধুবাদ জানাই। তারমধ্যে যদি ওইরকম যোগ্যতা থাকে অবশ্যই সাধুবাদ জানাই। এটা কোনো খারাপের কথা নয়। কিন্তু নিজের গান দিয়ে প্রতিষ্ঠা পাওয়া অনেক বেশি গর্বিত হওয়ার ব্যাপার থাকে। এরকম অনেক রিয়েলিটি শোতে আমার কাভার সং করে অনেকে অনেক লাইম লাইটে আসছে। সঙ্গীত এমন একটা জিনিস এটা সংযম, অনুশীলন, পরিশ্রম, সাধনা এই ব্যাপারগুলো ধরে রাখতে না পারলে দীর্ঘস্থায়িত্ব সহজেই আসে না। ধপ করে জ্বলে ওঠা আর ধপ করে নিভে যাওয়ার সময়ের ব্যাপারমাত্র। এ সম্পর্কে জনপ্রিয় সঙ্গীত তারকা বাপ্পা মজুমদার বলেন,গানটার মধ্যে এমন কোনো ইলিমেন্ট আছে, যা মানুষকে আকৃষ্ট করেছে। বিশেষ কিছুর জন্যই মানুষ এত বেশি গ্রহণ করেছে। তবে এখনকার সময়ে কে কখন ভাইরাল হয়ে যাবে এটা বলা যায় না। ভাইরাল হওয়াটা আটকে রাখাও যাবে না। অনেক সময় আমার গান কাভার করে অন্য কেউ জনপ্রিয় হয়ে যেতে পারে। কিন্তু মিডিয়ার দায়িত্ব হলো কাভার করা শিল্পীর পেছনে না ছুঁটে মুল শিল্পীর পাশে দাঁড়ানো। কারণ মূল শিল্পীর গানটাই যদি না থাকতো, তাহলে ভাইরাল হওয়ার বিষয়টি আসতো না। তাই প্রকৃত শিল্পীর পাশে থাকা উচিত সবার।
২০ জুলাই মুক্তি পেতে যাচ্ছে সিনেমা :মিস্টার বাংলাদেশ
জঙ্গিবাদ বাংলাদেশে খুবই আলোচিত বিষয় হলেও ঢালিউডে খুব একটা দেখা যায়নি এ ধরনের গল্প। খিজির হায়াত খান অভিনীত মিস্টার বাংলাদেশ-এর গল্প জঙ্গিবাদ নিয়ে। সম্প্রতি তিনি জানালেন, ২০ জুলাই মুক্তি পাবে সিনেমাটি। মিস্টার বাংলাদেশ পরিচালনা করছেন আবু আকতারুল ইমান। সিনেমাটিতে সাংবাদিক চরিত্রে অভিনয় করছেন খিজির হায়াত খান। একজন সাংবাদিক হয়ে কীভাবে জঙ্গি হামলার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ায় এবং কীভাবে তা প্রতিরোধ করেন তা এই চলচ্চিত্রে ফুটে উঠবে জানালেন এ অভিনেতা। ইতোমধ্যে সিনেমাটি টিজার ও একটি গান প্রকাশ হয়েছে। যা প্রশংসিত হয়েছে। মিস্টার বাংলাদেশ-এ খিজির হায়াত খানের বিপরীতে আছেন লাক্স তারকা শানারেই দেবী শানু। কেএইচকে প্রোডাকশনের ব্যানারে ছবিটিতে ভিলেন চরিত্রে অভিনয় করেছেন টাইগার রবি। সাথে আছেন ইউটিউব সেলিব্রিটি শামীম হাসান সরকার, শাহরিয়ার সজীব, মেরিয়ান, সোলাইমান সুখন, হামিদুর রহমান ও জুবায়ের জুনায়েদ।
বলিউডে অভিষেক শ্রীদেবী কন্যা জানভির
বলিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী শ্রীদেবী ও প্রযোজক বনি কাপুরের মেয়ে জানভি কাপুর। শশাঙ্ক খাইতান পরিচালিত ও করণ জোহর প্রযোজিত ধাড়াক ছবির মধ্য দিয়ে বলিউড অভিষেক হতে যাচ্ছে জানভির। আগামী ২০ জুলাই মুক্তি পাবে ধাড়াক। এতে তার সহশিল্পী হিসেবে দেখা যাবে বলিউড অভিনেতা শহিদ কাপুরের ভাই ইশান খাত্তারকে। করণের প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ধর্মা প্রোডাকশন থেকে এখন পর্যন্ত ধাড়াকর বেশ কয়েকটি পোস্টার শেয়ার করা হয়েছে। সোমবার (১১ জুন) ইউটিউবে প্রকাশ করা হবে ছবিটির ট্রেলার। কিন্তু বোনের জীবনের এতো বড় একটি দিনে তার পাশে থাকতে পারছেন না ভাই অর্জুন কাপুর। বাবা বনি কাপুর, বোন আনশুলা কাপুর, জানভি কাপুর ও খুশি কাপুরের সঙ্গে অর্জুন কাপুরতবে বোনের পাশে না থাকতে পারলেও তার জন্য শুভকামনা জানিয়ে ইনস্টাগ্রামে অর্জুন লিখেছেন, আজ থেকে তুমি সারাজীবনের জন্য দর্শকদের অংশ হতে যাচ্ছো। কারণ তোমার অভিনীত ছবির ট্রেলার প্রকাশ পাবে। প্রথমত দুঃখিত কারণ আমি মুম্বাইয়ে থাকতে পারছি না। তবে চিন্তা করো না আমি সবসময় তোমার পাশে আছি। আমি শুধু তোমাকে জানাতে চাই এই পেশাটি অনেক মজাদার যদি তুমি সৎ থেকে কঠোর পরিশ্রম করো। জানি এটি সহজ নয়, কিন্তু আমার বিশ্বাস তুমি সবসময় সবকিছুর জন্য প্রস্তুত থাকবে। এদিকে ভাইয়ের ম্যাসেজের জবাবে জানভি লিখেছেন, ওয়াদা করছি আমি তোমাকে অবশ্যই গর্বিত করবো।
উত্তাল নেটদুনিয়া, শাকিব-বুবলীর বুম বুমে
অ্যাকশন আর রোমান্সে ভরপুর ছিল শাকিব খান-বুবলী অভিনীত সুপার হিরো টিজার। ২৭ মে রাতে প্রকাশ করা হয়েছিল টিজারটি। অ্যাকশন নির্ভর এ ছবিতে জনপ্রিয় এই জুটির রোমান্স দর্শককে মুগ্ধ করেছে। এরই ধারাবাহিকতায় এবার প্রকাশ হল বোম বোম শিরোনামের গান। সুদীপ কুমার দীপের লেখা হিপহপ এই গানটি গেয়েছেন পথিক হাসান ও শুরিন। এতে অস্ট্রেলিয়ার মনোরম লোকেশনে শাকিব খান ও বিউটি কুইন বুবলীর রোমান্সে উত্তাল এখন নেটদুনিয়া। প্রকাশের মাত্র ১৮ ঘণ্টায় গানটি দেখেছে সাড়ে দশ লাখ দর্শক। গানটি লাইক দিয়েছে ১৭ হাজার মানুষ। সুপার হিরো সিনেমাটি পরিচালনা করেছেন আশিকুর রহমান। হার্ট বিট প্রোডাকশন প্রযোজিত এ ছবির গল্প ও চিত্রনাট্য লিখছেন দেলোয়ার হোসেন দিল। গানের সঙ্গীত পরিচালনা করেছেন নাভিদ পারভেজ। অ্যাকশন থ্রিলারধর্মী গল্পে শাকিব-বুবলী ছাড়াও ছবিতে অভিনয় করছেন তারেক এনাম খান, টাইগার রবি, সিন্ডি রোলিং, সাদেক বাচ্চু, বড়দা মিঠু, সাইফুল্লাহ সাদি, সালমান আরিফ, ওয়ারেন কুলটন ও আইগর ব্রেকেনব্যাক। বাংলাদেশের নামি প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান হার্টবিট কথাচিত্র ঈদে সিনেমাটি মুক্তি পাওয়ার কথা রয়েছে।