ঈদ চমক মিমের
লাক্স-চ্যানেল আই সুপারস্টার প্রতিযোগিতা থেকে বের হয়ে আসা সুন্দরীদের মধ্যে যে কয়েকজন মিডিয়ায় শক্ত অবস্থান গড়েছেন তাদের মধ্যে বিদ্যা সিনহা মিম অন্যতম। এ প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর পরই হুমায়ূন আহমেদের আমার আছে জল-এর মতো চলচ্চিত্রে অভিনয় করে সবার প্রশংসা কুড়িয়েছেন। এরপর ছোট পর্দায় মনোযোগী হন তিনি। খণ্ড ও ধারাবাহিক নাটকে ব্যাপক ব্যস্ত সময় পার করেন। পাশাপাশি বিভিন্ন বিজ্ঞাপনেও দেখা যায় তার সরব উপস্থিতি। এরপর শাকিব খানের সঙ্গে প্রিয়া আমার প্রিয়া ছবি দিয়ে চলচ্চিত্রে ফেরেন। ফের দীর্ঘ বিরতি দিয়ে ফেরেন ২০১৪ সালে। তবে গেল তিন বছর ধরে মিম আবার বড় পর্দায় ব্যাপকভাবে সরব হয়েছেন। আর তার জন্য ছোট পর্দার কাজ কমিয়ে দিয়েছেন তিনি। দুই বাংলার শীর্ষ নায়কদের সঙ্গে জুটি বেঁধে অভিনয় করছেন এ অভিনেত্রী। পরিচালক-প্রযোজকদের মতে নায়িকার এই খরার সময়ে মিম হয়ে উঠতে পারেন নির্ভরযোগ্য একজন নায়িকা। গ্ল্যামারনেস, উচ্চতা, অভিনয়, নাচ, স্মার্টনেস, ফ্যাশন- এসব দিক দিয়েই অন্য অনেক নায়িকার চেয়ে এগিয়ে তিনি। আর এ বিষয়টির ওপর ভর করেই সাম্প্রতিক সময়ে চলচ্চিত্রে ব্যস্ত সময় পার করছেন মিম। চলতি বছরের শুরু থেকেই এ অভিনেত্রীর বৃহস্পতি তুঙ্গে। বছরের শুরুর দিকেই দীর্ঘ আট বছর বিরতির পর শাকিব খানের বিপরীতে তার আমি নেতা হব ছবিটি মুক্তি পায়। এ ছবির রেশ কাটতে না কাটতেই মুক্তি পায় পাষাণ ছবিটি। এ ছবি দুটিতে বেশ প্রশংসিত হয়েছে মিমের অভিনয়। এদিকে চলতি বছরের তিন নম্বর ছবি মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছেন তিনি। সম্প্রতি মিম কাজ শেষ করেছেন সুলতান ছবির। যৌথ প্রযোজনার এ ছবিতে তিনি অভিনয় করেছেন ওপার বাংলার জনপ্রিয় নায়ক জিতের সঙ্গে। ছবির মাশাআল্লাহ শীর্ষক একটি গান সম্প্রতি প্রকাশ করা হয়েছে ইউটিউবে। গানটি বেশ প্রশংসিত হচ্ছে। জিতের পাশাপাশি প্রশংসিত হচ্ছে মিমের পারফরম্যান্সও। মিমের সুলতান ছবিটি আসছে ঈদে মুক্তির কথা রয়েছে। এ বিষয়ে তিনি বলেন, চলতি বছর দুটি ছবি মুক্তি পেয়েছে আমার। আমি নেতা হব আর পাষাণ শীর্ষক এ ছবি দুটি দর্শক ভালোভাবে গ্রহণ করেছে। এবার সুলতান -এর অপেক্ষায় আছি। এ ছবিতে ভারতের জিতের সঙ্গে অভিনয় করেছি প্রথমবারের মতো। বেশ ভালো অভিজ্ঞতা হয়েছে। ছবির গল্প, নির্মাণশৈলী, গান, লোকেশন, কাস্টিং- সব কিছুতেই চমক থাকবে। আমার বিশ্বাস ছবিটি ঈদে মুক্তি পেলে দর্শক সাদরে গ্রহণ করবেন।
ঈদের কাজে ব্যস্ত তিশা
জনপ্রিয় অভিনেত্রী নুসরাত ইমরোজ তিশা। গেল কয়েক বছর কোনো টিভি ধারাবাহিকে নেই তিনি। তবে বিশেষ দিবসের নাটক-টেলিছবিতে তাকে দেখা যায়। তারই ধারাবাহিকতায় বর্তমানে তিনি ঈদের কাজ নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন। আসছে ঈদের জন্য এরইমধ্যে কয়েকটি নাটকের শুটিং শেষ করেছেন। নাটকগুলো হলো জাকারিয়া সৌখিনের ‘শহরে নতুন প্রেমিক’। এটিতে তিনি জুটি বেঁধেছেন আফরান নিশোর সঙ্গে। সাগর জাহানের মাহিন সিরিজের ‘মাহিনের লাল ডায়েরি’ ও ‘মাছের দেশের মানুষ’। এই দুটি নাটকে তাকে দেখা যাবে জনপ্রিয় অভিনেতা মোশাররফ করিমের সঙ্গে। এছাড়া গোলাম সোহরাব দোদুলের ‘সুগন্ধি বোড়িং ও তুমি’ শিরোনামের একটি ঈদের নাটকে তিশা থাকছেন জনিপ্রয় অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরীর বিপরীতে। দীর্ঘ সাত বছর পর আবারও একসঙ্গে কাজ করলেন চঞ্চল চৌধুরী-তিশা ও নির্মাতা গোলাম সোহরাব দোদুল। সাত বছর পর একসঙ্গে কাজ করা প্রসঙ্গে নির্মাতা দোদুল বলেন, আমি তুমি ও সত্যজিৎ নাটক থেকে আজকের সুগন্ধি বোর্ডিং ও তুমি। খুব সম্ভবত তিশা-চঞ্চল জুটির সবচেয়ে বেশি কাহিনীচিত্র নির্মাণ হয়েছে আমার পরিচালনায়। আবারো ত্রয়ী কাজ করলাম ৭ বছর পর। অনুভূতি আগের মতোই আছে। বৃষ্টিভেজা দিনে বার বার পুরোনো দিনের কথাগুলো মনে করলাম সবাই মিলে। সত্যি, মানুষ স্মৃতির ঘোরে থাকতে ভালোবাসে। তিশা বলেন, চঞ্চল ভাইয়ের সঙ্গে অনেকদিন পর কাজ করলাম। টিভির জন্য ঈদের বিশেষ কাজ। খুব ভালো মানুষ, ভালো সহশিল্পী। উনার প্রথম কাজ তালপাতার সেপাই-তেও আমি ছিলাম। ছোট পর্দার বাইরে বড় পর্দায় এই অভিনেত্রীর এখন ব্যস্ততা। সম্প্রতি তৌকীর আহমেদ পরিচালিত ও ইমপ্রেস টেলিফিল্ম প্রযোজিত ‘ফাগুন হাওয়া’ ছবির শুটিং শেষ করেছেন। এটিতে তার বিপরীতে অভিনয় করছেন সিয়াম আহমেদ। এর আগে তৌকীর আহমেদের ‘হালদা’ ছবিতে অভিনয় করে ব্যাপক প্রশংসা পেয়েছেন এই অভিনেত্রী। ভাষা আন্দোলনের প্রেক্ষাপটে ‘ফাগুন হাওয়া’ ছবিটি। এদিকে তার হাতে আরো রয়েছে মোস্তফা সারওয়ার ফারুকীর ‘স্যাটারডে আফটারনুন’ বা ‘শনিবার বিকেল’ শিরোনামের ছবিটি। ওপার বাংলার অরিন্দম শীলের ‘বালিঘর’ শীর্ষক একটি ছবিতেও তিশাকে দেখা যাবে। কলকাতার প্রখ্যাত সাহিত্যিক সুচিত্রা ভট্টাচাযের্র ‘ঢেউ আসে ঢেউ যায়’ উপন্যাসের ছায়া অবলম্বনে ছবিটি নির্মিত হবে বলে জানান অরিন্দম। পরিচালনার পাশাপাশি এর চিত্রনাট্যও লিখেছেন তিনি। ছবিটিতে যুক্ত হতে পেরে তিশা বেশ উচ্ছ্বসিত বলে জানান।
ভারতের নতুন সেনসেশন মিঠুনের সেই মেয়েই
জাহ্নবী কাপুর, সারা আলি খানদের মতো তারকা-সন্তানরা ছবি মুক্তির আগেই রীতিমতো পরিচিত মুখ হয়ে উঠেছেন ভারতজুড়ে।এ তালিকায় রয়েছে দিশানী চক্রবর্তীরও নাম। তিনি মিঠুন চক্রবর্তীর কন্যা। এরই মধ্যে মুম্বাই ও নিউইয়র্ক থেকে নিয়েছেন অভিনয়ের প্রশিক্ষণ। যদিও দিশানী শেষ পর্যন্ত ছবিতে মুখ দেখাবেন কিনা, তা নিশ্চিত নয়। কেননা বাবা মিঠুন চান না দিশানী ছবিতে অভিনয় করুন। সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, বাবা ও মেয়ের মধ্যে সম্পর্ক বড়ই মধুর। মিঠুন অবশ্য দিশানীর জন্মদাতা বাবা নন। তিনি দিশানীকে দত্তক নিয়েছিলেন। মিঠুনের পরিবারে দিশানীর অন্তর্ভুক্তির গল্পটি সত্যিই হৃদয়স্পর্শী। দিশানীকে তার জন্মদাতা বাবা-মা ফেলে গিয়েছিলেন একটি আস্তাকুঁড়ে। সেই খবর কাগজে পড়ে মিঠুন সিদ্ধান্ত নেন, তিনি ওই শিশুকে দত্তক নেবেন। তার স্ত্রী যোগিতা বালিও মিঠুনের সিদ্ধান্তকে সমর্থন করেন। খু্ব দ্রুত প্রয়োজনীয় কাগজপত্রের ব্যবস্থা করে মিঠুন শেষ পর্যন্ত তাকে নিজের পরিবারে নিয়ে আসেন। শোনা যায়, নিজের অন্য সন্তানদের থেকেও দিশানী বেশি আদর ও ভালোবাসা পেয়েছেন বাবা মিঠুনের কাছ থেকে। সেই দিশানী এখন বড় হয়েছেন। মিঠুনের তরুণী কন্যার ইনস্টাগ্রামে ফলোয়ার সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। অদূর ভবিষ্যতে তাকে রুপালি পর্দায় দেখা যাবে বলে গুঞ্জন রয়েছে।
ভাইরাল ভিডিও শাহরুখ কন্যার
শাহরুখ খানকে বলা হয় ‘কিং অব রোমান্স’। আর তার সন্তান সুহানা খানের প্রতি ভক্তদের আগ্রহ কম নেই। বোল্ড ড্রেসআপ, নানান ভিডিও তাকে এনে দিয়েছে আলোচনার টেবিলে। সম্প্রতি সুহানা নতুন একটি ভিডিও আপ করেছেন ইনস্ট্রাগ্রামে। ভাইরাল ভিডিওটি ইতোমধ্যে ২৩ হাজারেরও বেশি বার দেখা হয়েছে তার আইডি থেকে। ভিডিওতে তাকে আর দশটা মেয়েদের মতোই দেখাচ্ছিলো। স্কুলের বান্ধবীদের সাথে মিজিক্যাল চেয়ার খেলছিলো ১৭ বছর বয়সী কিশোরী। ভিডিওটির ক্যাপশনে সুহানা লিখে, মিউজিক্যাল চেয়ার তার খুবই পছন্দের একটি খেলা। তার চেয়েও বেশি পছন্দ বন্ধুদের সঙ্গে খেলা। শুধু তাই নয়, বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দেওয়া, দুষ্টুমি করা, মজা করা, হাসাহাসি করা আর তাদের নিয়ে মেতে থাকতে তার আরও বেশি ভালো লাগে। সুহানার ইনস্টাগ্রামে পোস্ট করা ভিডিওর ক্যাপশনের সঙ্গে তাল মিলিয়ে কয়েকজন ভক্ত জানান, মিউজিক্যাল চেয়ার খেলতে তাদেরও খুব ভালো লাগে।
নায়করাজ রাজ্জাক অ্যাওয়ার্ড পেলেন কলকাতায় আলমগীর
কলকাতার বেঙ্গল ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন চেম্বার অব কমার্স (বিএফটিসিসি) বাংলাদেশের প্রয়াত কিংবদন্তী অভিনেতা নায়করাজ রাজ্জাকের নামে ‘লাইফ টাইম অ্যাওয়ার্ড’ পেলেন অভিনেতা আলমগীর হোসেন। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় কলকাতার এক পাঁচ তারকা হোটেল (হোটেল হিন্দুস্থান ইন্টারন্যাশনাল)-এ জমকালো অনুষ্ঠানে আলমগীরের হাতে এই পুরস্কার তুলে দেন অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা এবং শিল্পপতি সঞ্জয় বুধিয়া। আলমগীর ছাড়াও অভিনেতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, চলচ্চিত্র নির্মাতা বুদ্ধদেব দাশগুপ্ত, সাংবাদিক ড. সোমা এ চ্যার্টাজি এবং চলচ্চিত্র প্রতিষ্ঠান ভেঙ্কাটেশ মুভিজও অন্য বিভাগের আজীবন সম্মাননা গ্রহণ করেন। আলমগীর বলেন, রাজ্জাকের নামের এই পুরস্কার আমাকে গর্বিত করেছে। আর এই একই মঞ্চে সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়কেও সম্মাননা দেয়া হলো। এটাও আমার জন্য বড় পাওয়া। নায়করাজ রাজ্জাকের এই পুরস্কারটি আমি সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের আশীর্বাদ হিসাবে বাংলাদেশে নিয়ে যাচ্ছি। বাংলাদেশের বর্ষীয়ান চিত্র-নায়ক আলমগীর এই সম্মনায় পাওয়ায় খুশি পশ্চিমবঙ্গের তারকারও। অনুষ্ঠানে প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যয় বলেন, আলমগীর এমন একজন অভিনেতা যাকে এই সম্মান দেয়ায় আমরাও সমানভাবে গর্বিত। অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেন বলেন, আলমগীরের মতো একজন অভিনেতা যাকে দেখে আমরা সবাই বড় হয়েছে। সেই মানুষটিরকে আজ কলকাতার মাটিতে নায়করাজ রাজ্জাকের নামে সম্মাননা দেওয়ায় আমরা যারা অভিনয়শিল্পী তারাও সমান ভাবে সম্মানিত হলাম। আয়োজকরা বলছেন, আগামীতে রাজ্জাকের নামের এই পুরস্কার পশ্চিমবঙ্গের শিল্পীরাও পেতে পারেন। এছাড়াও বি.এন.সরকার অ্যাওয়ার্ড পুরস্কার পেয়েছে শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মস প্রাইভেট লিমিটেড, সংস্থার হয়ে পুরস্কার নিয়েছেন প্রযোজক শ্রীকান্ত মেহতা। তার হাতে পুরস্কার তুলে দেন অভিনেত্রী পাওলি দাম। দেবকী কুমার বোস পুরস্কার পান বুদ্ধবে দাশগুপ্ত। যদিও শারীরিক অসুস্থতার কারণে তিনি এদিন মঞ্চে উপস্থিত থাকতে পারেননি। অন্যদিকে কৈলাশ মুখার্জি অ্যাওয়ার্ড পুরস্কার প্রদান করা হয়েছে সাংবাদিক ড. সোমা এ.চ্যাটার্জিকে। পুরস্কার প্রদানের পাশাপাশি অভিনেত্রী ইন্দ্রানী দত্ত ও সহশিল্পীদের নৃত্য প্রদর্শনী এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়।
আল্লাহর পথে আন্না নাচ-অভিনয় ছেড়ে
একসময় নৃত্যশিল্পী ও অভিনেত্রী নাহিদা আশরাফ আন্না দুই পর্দায় সমানভাবে কাজ করেছেন। শনিবার এই অভিনেত্রীর ছিল জন্মদিন। প্রতিবছরের ন্যায় এবার তিনি জাঁকজমকভাবে জন্মদিন পালন করেননি। এখন তিনি আল্লাহর পথে এসেছেন এবং জন্মদিনে সবার কাছে দোয়া চাইলেন। তিনি বলেন, আমি আল্লাহর পথে আসার পর থেকে আর জন্মদিন পালন করি না। আমি আমার জন্মদিন উপলক্ষে সবার কাছে দোয়া চাইছি, যাতে আল্লাহর পথে থেকে ঈমানের সঙ্গে মৃত্যুবরণ করতে পারি। নাহিদা বলেন, আমি আর অভিনয় কিংবা নাচ, কোনো টাতে কাজ করব না। আর সবসময় পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ আদায় করছি। আল্লাহতায়ালার এবাদত বন্দেগিতেই নিজেকে ব্যস্ত রাখছি। এর পাশাপাশি আপাতত আমার ব্যবসা নিয়ে খুব ব্যস্ত সময় পার করছি।
শুটিং না করেই চলে গেলেন মাহি প্রতারণার অভিযোগে
ঢাকাই ছবির চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি সম্প্রতি ব্যস্ত রয়েছেন বেশ কিছু ছবির কাজ নিয়ে। এর মধ্যে অনন্য মামুনের তুই শুধু আমার ছবির কাজও করছেন তিনি। এ ছবিতে তার বিপরীতে রয়েছেন ওপার বাংলার সোহম ও ওম। এই ছবিতে কাজের জন্য মাহির শিডিউল নেন পরিচালক। সেই অনুযায়ী আজ শনিবার (২৮ এপ্রিল) এফডিসির ৭ নং ফ্লোরে শুটিং শুরু হয় এবং মাহিও অংশ নেন। কিন্তু মাহিয়া মাহি পরিচালকের বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ করেন এবং শুটিং শেষ না করেই চলে যান। জানা গেছে, এই সিনেমার গানের শুটিংয়ের কথা বলে মাহির সিডিউল নেন পরিচালক। কিন্তু পরে দেখা যায় সিনেমার গানের কথা বলে মাহিকে দিয়ে মিউজিক ভিডিওর কাজ করানো শুরু করেছিলেন পরিচালক। বিষয়টি যখন মাহি বুঝতে পারেন তখনই সঙ্গে সঙ্গে শুটিংস্থল ত্যাগ করেন। পরে মাহি আর কাজটি করেননি। এ প্রসঙ্গে মাহি বলেন,আমাকে সিনেমার গানের শুটিংয়ের কথা বললে আমি সিডিউল দেই। প্রায় গানের অর্ধেক কাজ শেষ হওয়ার পর আমি জানতে পারি এটা সিনেমার গান নয়। আমাকে দিয়ে মিউজিক ভিডিও বানানো হচ্ছে। এরপর আর কাজটি করিনি। তিনি আরও বলেন,পরিচালকের এমন মিথ্যাচার আমার খারাপ লেগেছে। তিনি অন্যায় করেছেন। পরিচালক অনন্য মামুন এ বিষয়ে বলেন,পুরো ব্যাপারটাই ভুল বোঝাবুঝি। মাহির সঙ্গে আমি কথা বলব এই নিয়ে। সবকিছু মিটে যাবে শিগগিরই। তবে গানটির প্রযোজক ইয়াসির আরাফাত বলেন,অনন্য মামুনের সঙ্গে গানের মিউজিক ভিডিওর কথা হয়। সে আমাকে বলে এটা মাহিকে দিয়ে শুট করাবে। এরকম ঝামেলা হবে আশা করিনি। নাহলে আমি নিজেই মাহির সঙ্গে কথা বলতাম।
নাবিলা বিয়ের পিঁড়িতে
বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হলো জনপ্রিয় উপস্থাপিকা-অভিনেত্রী মাসুমা রহমান নাবিলার। প্রেমিক জোবাইদুল হক রিমকে বিয়ে করেছেন তিনি। রাজধানীর মহাখালীর একটি কনভেনশন সেন্টারে বৃহস্পতিবার বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন হয়। এর আগে গত সোমবার রাজধানীর গুলশানের একটি কনভেনশন সেন্টারে গায়ে হলুদের অনুষ্ঠান করা হয়। শুক্রবার নবদম্পতি উড়াল দেবেন যুক্তরাজ্যের ম্যানচেস্টারে। তবে হানিমুনে নয়, বরং বর জোবাইদুল হকের প্রাতিষ্ঠানিক কাজে সঙ্গ দিতেই সেখানে যাচ্ছেন এই তারকা অভিনেত্রী। নাবিলা ১৫ বছর সৌদি আরবে ছিলেন। সেখানেই বড় হয়েছেন। পরে বাংলাদেশে ফিরে আসেন। পড়ালেখার পাশাপাশি ২০০৬ সালে টেলিভিশনে অনুষ্ঠান উপস্থাপনা শুরু করেন। অমিতাভ রেজা পরিচালিত আয়নাবাজি সিনেমায় অভিনয় করে বেশ প্রশংসিত হন তিনি।
একসঙ্গে প্রথমবার
দীপ্ত টিভির জনপ্রিয় সিরিয়াল পালকীতে নাম ভূমিকায় অভিনয় করে দারুণ পরিচিতি পান অভিনেত্রী স্নিগ্ধা মোমিন। এরপর তাকে আর পেছন ফিরে তাকাতে হয়নি। এই অভিনেত্রী এখন বিভিন্ন সিরিয়াল ও খণ্ড নাটকের কাজ নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন। অভিনয় করছেন এই সময়ের জনপ্রিয় অভিনেতাদের সঙ্গে জুটি বেঁধে। তারই ধারাবাহিকতায় প্রথমবারের মতো তিনি জুটি বাঁধলেন জনপ্রিয় অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরীর সঙ্গে। আসছে ঈদে তাদের দেখা যাবে প্রতি শনিবার নেওয়াজের চাচা মারা যান শিরোনামের একটি খণ্ড নাটকে। তারা ছাড়াও এই নাটকে আরো অভিনয় করেছেন আবুল হায়াত ও ঊর্মিলা শাবন্তী কর। এরইমধ্যে নাটকটির শুটিং শেষ হয়েছে। শাহজাহান সৌরভের চিত্রনাট্য ও সংলাপে এটি নির্মাণ করেছেন গোলাম সোহরাব দোদুল। এটিতে নেওয়াজ চরিত্রে অভিনয় করেছেন চঞ্চল চৌধুরী। স্নিগ্ধা মোমিন চরিত্রে থাকছেন সিঁথি। গল্পে দেখা যাবে, প্রতি শনিবারে সিঁথির সঙ্গে নেওয়াজের দেখা করতে হয়। কারণ শনিবার ছাড়া সিঁথি বাসা থেকে বের হতে পারে না। এদিকে সিঁথির সঙ্গে দেখা করার জন্য অফিসের বসের কাছে নেওয়াজকে একেক শনিবারে একেকটি কারণ দেখাতে হয়। তবে অফিসে নেওয়াজ প্রতি শনিবারে সমস্যা দেখান তার চাচাকে নিয়ে। অবশেষে একদিন সত্যি সত্যি তার চাচা একটি দুর্ঘটনায় পড়েন। নাটকটি প্রসঙ্গে স্নিগ্ধা মোমিন বলেন, অনেক মজার একটি গল্পের নাটক এটি। এটিতে চঞ্চল ভাইয়ের কাজের অভিজ্ঞতাও বেশ ভালো। তার সঙ্গে কাজ করে অনেক কিছু শিখেছি। এছাড়া এটি কমেডি গল্পের নাটক হলেও দর্শক শেষে ভালো একটি ম্যাসেজ পাবেন।