DHAKA, 19 September 2017

ইউনিজয় ফনেটিক
ডিজিটাল পদ্ধতিতে চিকিৎসা সেবা

2017-02-06

Share This News -

ব্যক্তিগত, স্বাস্থ্যগত বা মানসিক সমস্যার সমাধানে নির্ভরযোগ্য পরামর্শ পাওয়া অনেক সময় বেশ কঠিন হয়ে পড়ে। বিশেষজ্ঞ, বন্ধুবান্ধব বা পরিবারের সদস্যদের কাছ থেকে সঠিক পরামর্শ না পাওয়ায় তারা অসহায় বোধ করেন। এমনকি গর্ভাবস্থার শেষ সময়ে গর্ভবতী মা দৈনন্দিন স্বাস্থ্যসেবা সম্পর্কিত পরামর্শ থেকে বঞ্চিত হন। এসব সমস্যার সমাধান দিতে টেলিকম অপারেটর রবি ও মায়ার যৌথ উদ্যোগে চালু হয়েছে মায়া আপা প্লাস। রবিবার রাজধানীর কারওয়ান বাজারের জনতা টাওয়ার সফটওয়্যার টেকনোলজি পার্কে সেবাটির উদ্বোধন করা হয়। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আইসিটি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, প্রগতিশীল সমাজ ও স্বাস্থ্যবান ভবিষ্যৎ প্রজন্ম গঠনে মায়া আপা অ্যাপটি হবে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। নারীদের উদ্যোগে মায়া আপার মতো প্রযুক্তিগত স্বাস্থ্যসেবা চালু হয়েছে যা দেশের মঙ্গলের উদ্দেশ্যে তৈরি এবং স্বাস্থ্যখাতের উন্নয়নে অবদান রেখে চলেছে। তিনি জানান, সরকার মায়া আপা সেবাটির পাশে দাঁড়িয়েছে এবং শিগগিরই এই বিষয়ে কিছু ভাল সংবাদ পাব। তিনি বলেন, মায়া আপা অ্যাপ্লিকেশনটি আমরা গত বছর নির্বাচন করেছি। আমাদের ১ হাজার হাজার উদ্ভাবনী প্রকল্পের মধ্যে এটি অন্যতম। অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন মায়া আপার প্রতিষ্ঠাতা ও পওধান নির্বাহী আইভি হক রাসেল ও রবির চিফ কর্পোরেট অ্যান্ড পিপল অফিসার মতিউল ইসলাম নওশাদ। আইভি হক রাসেল বলেন, অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে রবি ও মায়া দেশের প্রত্যেককে ডিজিটাল স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দিতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। দৈনিক, সাপ্তাহিক, পাক্ষিক বা মাসিক প্যাকেজে সাবস্ক্রাইব করে এই সেবাটি গ্রহণ করতে পারবেন রবি গ্রাহকরা। এই সেবাটি এসএমএস ও মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে গ্রহণ করা যাবে। মায়া আপা প্লাস সেবা সাবস্ক্রাইব করে রবি গ্রাহকরা প্রতিদিন ২৪ ঘণ্টা মায়া বিশেষজ্ঞদের কাছ থেকে যেকোনও প্রশ্নের বিশেষজ্ঞ পরামর্শ ১০ মিনিটের মধ্যেই নিতে পারবেন। এখানে দ্রুততম সময়ের মধ্যে ব্যবহারকারীদের সর্বশেষ প্রশ্নের উত্তর আপডেট করা, ফটো অ্যাটাচমেন্ট ও ভয়েস জিজ্ঞাসা-সহ বিভিন্ন আকর্ষণীয় ফিচারসহ মায়া অ্যাপটি সাজানো হয়েছে। মায়া আপা প্লাস- সেবাটি পে-পার ইউজের ভিত্তিতে এখন এসএমএসও পাওয়া যাবে। ফলে রবি গ্রাহকরা এসএমএস’র মাধ্যমে বাংলা, ইংরেজি বা ইংরেজি ফন্টে বাংলা ভাষায় তাদের শারিরীক ও মানসিক সমস্যা নিয়ে আলোচনা বা প্রশ্ন করতে করতে পারবেন। এছাড়া সেবাটির গ্রাহক হয়ে বিষেশজ্ঞদের পরামর্শও গ্রহণ করতে পারবেন গ্রাহকরা। সেবা পেতে গ্রাহকদের গোপনীয়তা বজায় থাকবে সর্বোচ্চ পর্যায়ে।

তথ্য প্রযুক্তি