বুধবার, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৭
প্রকাশ : 2017-11-18

নৌকাডুবির শিক্ষার্থীরা পরীক্ষার হলে

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলায় নৌকাডুবির ঘটনায় বাংলা প্রথম পত্রের জেএসসি পরীক্ষা দিতে পারেনি ওরা। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত অনুসারে, উপজেলার বীরগাঁও স্কুল অ্যান্ড কলেজের সাতজন শিক্ষার্থী আজ শনিবার পরীক্ষা দিচ্ছে। জেলা প্রশাসক রেজওয়ানুর রহমানের ভাষ্য, মানবিক দিক বিবেচনা করে পরীক্ষার নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। উপজেলা প্রশাসন বিষয়টি তদারক করছে। সাত পরীক্ষার্থী হলো শান্তা বেগম, খাদিজা আক্তার, শান্তা খানম, জান্নাত আক্তার, রুমা বেগম, পাপিয়া বেগম ও সামিয়া আক্তার। জেএসসি পরীক্ষার কেন্দ্র কৃষ্ণনগর আবদুল জব্বার উচ্চবিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, পরীক্ষার জন্য কয়েকটি প্রশ্নের সেট প্রস্তুত ছিল। প্রথম পরীক্ষা বাংলা প্রথম পত্র ‘ক’ সেটের প্রশ্নে নেওয়া হয়েছিল। আরও প্রশ্নের সেট প্রস্তুত রয়েছে। প্রত্যেক পরীক্ষার দিন সকালে জেলা প্রশাসক কোন প্রশ্নে পরীক্ষা নিতে হবে, তা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে (ইউএনও) জানান। পরে ইউএনও মুঠোফোনে খুদে বার্তা দিয়ে কোন সেটের প্রশ্নে পরীক্ষা নিতে হবে, তা জানাবেন। বীরগাঁও স্কুল অ্যান্ড কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নাজির হোসেন বলেন, প্রথম পরীক্ষায় ১৬ জন অনুপস্থিত ছিল। তাঁদের মধ্যে নৌকাডুবির কারণে সাতজন পরীক্ষা দিতে পারেনি। ওই সাতজনই আজ পরীক্ষা দেবে। শিক্ষার্থীদের সার্বিক দেখাশোনার জন্য প্রতিষ্ঠান থেকে একজন শিক্ষক জেএসসি পরীক্ষার কেন্দ্রে উপস্থিত থাকবেন। কেন্দ্র সচিব কৃষ্ণনগর আবদুল জববার উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফেরদাউসুর রহমান বলেন, পরীক্ষা নেওয়ার বিষয়ে জেলা প্রশাসক, ইউএনও এবং কুমিল্লা বোর্ডের কন্ট্রোলার নির্দেশনা দিয়েছেন। ইউএনও সালেহীন তানভীর গাজী শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা নেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। ১ নভেম্বর সকালে নবীনগর উপজেলার পাগলা নদীর কৃষ্ণনগর এলাকায় বীরগাঁও স্কুল অ্যান্ড কলেজের দেড় শতাধিক জেএসসি পরীক্ষার্থী নিয়ে একটি নৌকা ডুবে যায়। এতে দুই শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়।