বুধবার, জুলাই ৮, ২০২০
প্রকাশ : 2020-05-24

পচা মাংস বিক্রি ও সরকারি নির্দেশনা না মানায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের জরিমানা

২৪ মে,রবিবার,কমল চক্রবর্তী,চট্টগ্রাম ,নিউজ একাত্তর ডট কম: সীতাকুণ্ড উপজেলা ও এর আশপাশ এলাকার বাজারগুলোতে কেউ মানছে না শারীরিক দূরত্ব । মানা হচ্ছে না সরকারি নির্দেশনা ও স্বাস্থ্যবিধি। দোকান গুলোতে ছিলনা মূল্য তালিকা। আবার দেখা গেছে মূল্য তালিকায় প্রদর্শিত মূল্যের চেয়ে অধিক মূল্যে পণ্য বিক্রয় করছে। এমন পরিস্থিতিতে জেলা প্রশাসন সীতাকুণ্ড পৌরসভা, কলেজগেট, বাড়বকুণ্ডের শুকলালহাট বাজার, কুমিরা ইউনিয়নের বড় কুমিরা বাজার ও ছোট কুমিরা বাজার এলাকায় করোনা ভাইরাসজনিত প্রাদুর্ভাব প্রতিরোধের লক্ষ্যে শারীরিক দূরত্ব নিশ্চিতকরণ, বাজার মনিটরিং এর লক্ষ্যে একটানা ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করছে। আজকের অভিযানে ১১ টি মামলায় ২১,১০০ (একুশ হাজার একশত) টাকা অর্থদণ্ড প্রদান করা হয়। আজ রবিবার ২৪ মে সকাল ১১ টা থেকে বিকাল দুপুর আড়াই টা পর্যন্ত বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ও চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের সহযোগিতায় জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট গালিব চৌধুরীর নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট গালিব চৌধুরী জানান, গত কয়েকদিন যাবত একটানা অভিযান চালানো হচ্ছে এই এলাকাগুলোতে। মুলত এইএলাকা গুলোতে কেউ মানছিলনা সরকারি নির্দেশনা ও স্বাস্থ্যবিধি । তাছাড়া এসব এলাকার দোকানগুলোতে মূল্য তালিকা না থাকা, মূল্য তালিকায় প্রদর্শিত মূল্যের চেয়ে অধিক মূল্যে পণ্য বিক্রয় রোধ করাসহ বাজার মনিটরিং এর উদ্দেশ্যে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়। তিনি বলেন, বাজার মনিটরিং কার্যক্রমের অংশ হিসেবে শুকলালহাট বাজারের এক মাংস বিক্রেতাকে পচা মাংস বিক্রয়ের অপরাধে দশ হাজার টাকা অর্থদণ্ড প্রদান করা হয়। পরবর্তীতে বড় কুমিরা বাজারের ঝন্টু স্টোরকে দুই হাজার) টাকা ও রাসেল স্টোরকে এক হাজার পাঁচশত টাকা এবং ছোট কুমিরা বাজারের খাজা ট্রেডার্স কে দুই হাজার টাকা অর্থদণ্ড দেয়া হয়। সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে দোকান খোলা রাখায় সীতাকুণ্ড পৌর বাজারের বেবি ফ্যাশনকে এক হাজার পাঁচশত টাকা, আতিক কসমেটিকসকে এক হাজার টাকা, গিফট গ্যালারিকে এক হাজার টাকা, রাজ টেলিকম এন্ড গিফট কর্নারকে পাঁচশত টাকা ও কুটুম্ববাড়ি সেলুনকে এক হাজার টাকা অর্থদণ্ড দেয়া হয়। এছাড়া ছোট কুমিরা বাজারের একটি সেলুনকে স্বাস্থ্যবিধি না মানায় পাঁচশত টাকা ও সীতাকুণ্ড পৌর বাজারে শারীরিক দূরত্ব না মানায় একজনকে একশত টাকা অর্থদণ্ড দেয়া হয়। করোনা পরিস্থিতিতে জনস্বার্থে এ ধরনের অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে জানান ম্যাজিস্ট্রেট গালিব চৌধুরী।

নিউজ চট্টগ্রাম পাতার আরো খবর