শনিবার, আগস্ট ৮, ২০২০
প্রকাশ : 2020-07-30

বাইসাইকেল পেল মাগুরার ৩০ শিক্ষার্থী

৩০জুলাই,বৃহস্পতিবার,শিক্ষা ডেস্ক,নিউজ একাত্তর ডট কম: শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রমের আওতায় মাগুরার শ্রীপুর উপজেলার ২০ জন ছাত্রী ও ১০ জন স্কুলছাত্রকে বাইসাইকেল দেওয়া হয়েছে। শ্রীপুর উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে বুধবার (২৯ জুলাই) দুপুরে মসজিদ-মন্দির ভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রমের আওতাভুক্ত ৮০২ শিশুকে প্রধানমন্ত্রীর শিশু খাদ্য উপহার, ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর ১০০ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে বাইসাইকেল ও শিক্ষা উপকরণ বিতরণ অনুষ্ঠান হয়। মাগুরা-১ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট সাইফুজ্জামান শিখর প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এসব উপহার সামগ্রী বিতরণ করেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. ইয়াছিন কবীরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মিয়া মাহমুদুল গণি শাহিন। অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলী আহমেদ মাসুদ, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, সাধারণ সম্পাদক ও নাকোল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান হুমাউনুর রশিদ মুহিত, সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মশিয়ার রহমান, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডের সাবেক কমান্ডার ইকরাম আলী বিশ্বাস প্রমুখ। অনুষ্ঠানে উপজেলার আটটি ইউনিয়নের মসজিদ-মন্দির ভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রমের আওতাভুক্ত ৮০২ শিশুকে প্রধানমন্ত্রীর শিশু খাদ্য উপহার এবং ২০ ছাত্রী ও ১০ স্কুলছাত্রকে বাইসাইকেল, ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়ুয়া ৪০ জন শিক্ষার্থীকে ২ হাজার ৪০০শ করে টাকা এবং কলেজ ও মাধ্যমিক পর্যায়ে ৩০ জনকে ৬ হাজার করে মোট ৩ লাখ টাকা ও ৫০ জনের মধ্যে ১ লাখ ২৫ হাজার টাকার শিক্ষা উপকরণ এবং শ্রীপুর আদিবাসী কল্যাণ সমিতি ও আমলসার আদিবাসী কল্যাণ সমিতিকে সাংস্কৃতিক উপকরণ ও ক্রীড়া সামগ্রীসহ সব মিলিয়ে ৭ লাখ ৫০ হাজার টাকার সামগ্রী বিতরণ করা হয়। প্রধান অতিথির বক্তব্যে সাইফুজ্জামান শিখর বলেন, মসজিদ ও মন্দির ভিত্তিক শিশুশিক্ষা কার্যক্রমের প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খুবই আন্তরিক। এজন্য তিনি অনেক প্রকল্প বাদ দিলেও এ দুটি প্রকল্প বাদ দেননি। তিনি সমাজের পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীকে সমান্তরালে নিয়ে আসার জন্য কাজ করে যাচ্ছেন, যার সুফল আপনারা এরই মধ্যে পেতে শুরু করেছেন। আপনারা দয়া করে প্রধানমন্ত্রীর জন্য প্রাণখুলে দোয়া করবেন। আপনারা নিজেরা যে সমিতি গঠন করেছেন, সে সমিতির মাধ্যমে নিজেরা স্বাবলম্বী হওয়ার জন্য কুটির শিল্প প্রতিষ্ঠা করে যদি ইউএনওর কাছে জমা দেন, তাহলে প্রধানমন্ত্রী আপনাদের প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করবেন, যোগ করেন শিখর।

শিক্ষা পাতার আরো খবর