প্রকাশ : 2018-04-17

ধরার পরেই তদবির আসা শুরু হয়-ভেজালকারীদের তো আমরা ধরতেই পারি

রমজান উপলক্ষে পণ্য পরিবহন ব্যবস্থা নির্বিঘ্ন রাখতে সড়ক-মহাসড়কে পুলিশের বিশেষ কার্যক্রম থাকবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। গতকাল রাজধানীতে নিত্যপণ্যের দাম ও আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ঢাকা চেম্বার আয়োজিত মতবিনিময় সভায় তিনি একথা বলেন। অসাধু চক্র নিয়ন্ত্রণে কেবল রোজা নয় সারা বছরই পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানান ব্যবসায়ীরা। বিশ্বের মুসলিম অধ্যুষিত দেশগুলোর দিকে তাকালে দেখা যায় রমজান এলেই নিত্যপণ্যের দাম বাড়ার পরিবর্তে কমে যায়। অথচ বাংলাদেশে এ চিত্র পুরোটাই উল্টো। পণ্যের দামের লাগাম টানতে যেনো সব প্রচেষ্টাই বিফলে যায়। এমন পরিস্থিতিতে আসন্ন রমজানে ভোগ্য পণ্যের দাম ও আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে করণীয় ঠিক করতে মতবিনিময় সভার আয়োজন করে ঢাকা চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অধ্যাপক ড. জিয়া রহমান বলেন, সারাদেশে সিন্ডিকেট চক্রের দৌরাত্ম্য কমাতে সরকারি খাদ্য কর্মকর্তাদের বিচারিক ক্ষমতা দেয়া উচিত। অধ্যাপক ড. জিয়া রহমান বলেন, '২০০৯ সালে আমরা ভোক্তা আইন পেয়েছি। কিন্তু এগুলো কাগজে-কলমেই সীমাবদ্ধ। শুধু পুলিশ-প্রশাসনের সীমিত লোক দিয়ে তা প্রয়োগ করা সম্ভব না হলে, খাদ্য কর্মকর্তাদের পাওয়ার দিতে হবে।' ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করেন, অসাধু চক্র নিয়ন্ত্রণে দীর্ঘ মেয়াদী পদক্ষেপ না নিয়ে রমযানের এক থেকে দুই মাস আগে তোড়জোড় শুরু করে সরকার। এতে ভোক্তারা তেমন সুফল পায় না। এদিকে, ভেজাল পণ্যের বিরুদ্ধে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী অভিযান চালাতে গেলে বিভিন্ন মহলের তদবিরের কারণে কার্যকর ব্যবস্থা নেয়া সম্ভব হয় না বলে নিজেই স্বীকার করলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

অর্থ-বাণিজ্য পাতার আরো খবর